১১ ঘণ্টা পর ঢাকা-সিলেট রুটে ট্রেন চলাচল চালু

    0
    12
    কুলাউড়ায় বেইস প্লেট খুলে উপড়ে ফেলা হয়েছে রেল লাইন।

    আন্তঃনগর উপবন এক্সপ্রেসের ইঞ্জিন ও ছয়টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে মঙ্গলবার সিলেটের সঙ্গে ঢাকার রেল যোগাযোগ ১১ ঘণ্টা বন্ধ থাকে।

    রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (নিয়ন্ত্রণ) আতাউর রহমান জানান, হরতালের মধ্যে মঙ্গলবার ভোর ৫টার দিকে উপবন এক্সপ্রেস লাইনচ্যুত হলে ঢাকা-সিলেট রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। লাইন মেরামত করে বগিগুলো উদ্ধারের পর বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

    নাশকতার ঘটনায় পাঁচ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ, যাদের মধ্যে তিনজন শিবিরের এবং দুজন বিএনপিকর্মী বলে জানিয়েছেন কুলাউড়া থানার ওসি সেলিম নেওয়াজ।

    কুলাউড়ার স্টেশন মাস্টার মহিদুর রহমান জানান, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা উপবন এক্সপ্রেস ভোর পৌনে ৫টার দিকে কুলাউড়া স্টেশন অতিক্রম করে। এরপর ভোর ৫ টায় ছকাপন ও বরমচাল স্টেশনের মধ্যবর্তী ৭ নম্বর রেলসেতুর আগে  ট্রেনটি লাইনচ্যুত হয়।

    রেল পুলিশের ওসি স্বপন বড়ুয়া জানান, বিএনপি জোটের ৩৬ ঘণ্টা হরতালের মধ্যে রাতের কোনো এক সময় রেললাইনের একটি অংশ উপড়ে ফেলায় এ ঘটনা ঘটে।

    “লাইন উপড়ে ফেলার বিষয়ে একটি সংবাদ সিলেট স্টেশন থেকে জানানো হয়েছিল। বিষয়টি সহকারী স্টেশন মাস্টার কেফায়েত উল্লাহকে জানানোর পরও তিনি তাতে গুরুত্ব না দিয়ে উপবনকে ছেড়ে যেতে দেন”, বলেন তিনি।

    লাইনচ্যুত উপবনের কয়েকজন যাত্রী সামান্য আহত হলেও কারো আঘাত গুরুতর নয় বলে রেল কর্মকর্তারা জানান।

    ট্রেনের চালক নজরুল ইসলাম বলেন, “ট্রেনের গতি কম থাকায় বড় ধরনের দুর্ঘটনা এড়ানো গেছে।”

    সকালে কুলাউড়া থেকে একটি উদ্ধারকারী ট্রেন ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধারে কাজ শুরুর পর উপবনের ১২টি বগির মধ্যে ৬টি কুলাউড়ায় ফিরিয়ে নেয়া হয়। আর আটকে পড়া যাত্রীদের একটি বিশেষ ট্রেনে করে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সিলেটে নিয়ে যাওয়া হয় বলে জানান সিলেট রেল স্টেশনের ম্যানেজার আবুল কালাম আজাদ।

    তিনি জানান, লাইন বন্ধ থাকায় সিলেট থেকে ঢাকাগামী কালনী এক্সপ্রেস ও জয়ন্তিকা এক্সপ্রেসের যাত্রা বাতিল করা হয়। পাহাড়িকা এক্সপ্রেস কুলাউড়া স্টেশন থেকে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়।

    কুলাউড়া থানার ওসি সেলিম নেওয়াজ জানান, লাইন উপড়ে ফেলার ঘটনায় উপজেলা সদরের বিভিন্ন স্থান থেকে পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

    এরা হলেন- শিবিরের কর্মী আবুল কাশেম (৩৫), আব্দুস সোবহান (৩০) ও রেদোয়ান হক (২০) এবং বিএনপি কর্মী আলমগীর হোসেন (৪৫) ও আব্দুল মতলিব (৪০)।

    রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের সিলেট বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. মুজিবুর রহমানও বলেছেন, হরতাল সমর্থকরাই এ নাশকতা ঘটিয়েছে। পুলিশ বলছে, জামায়াত-শিবির কর্মীরাই এসব ঘটনার পেছনে জড়িত। 

    Train line in Kulaura

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here