রাউজান হলদিয়া হযরত ছিদ্দিকে আকবর (র.) স্মৃতি সংসদে

    0
    35

    উদ্যোগে ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) মাহফিলে আল্লামা নূরী-“কুরআন ও সুন্নাহর অপব্যাখা করে শান্তি বিনষ্টকারীদের সম্মিলিত ভাবে সমুচিত জবাব দিতে হবে”

    আন্জুমানে রজভীয়া নূরীয়া বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় চেয়ারম্যান পীরে তরিক্বত হযরতুলহাজ¦ আল্লামা মুহাম্মদ আবুল কাশেম নূরী বলেন, ইসলাম শান্তি ও মানবতার ধর্ম। কোরআন ও সুন্নাহ ইসলামের মূল নির্যাস। এ দুটি পবিত্র গ্রন্থে শান্তি ও সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে জোর তাগিদ দেয়া হয়েছে। কিন্তু বর্তমানে কিছু পথভ্রষ্ট কোরআন ও সুন্নাহর অপব্যাখ্যা করে মানুষে মানুষে ঝগড়া ফ্যাসাদ সৃষ্টিতে লিপ্ত রয়েছে। ভ্রাতৃত্ব, শান্তি ও সম্প্রীতি নষ্ট করে তারা তাদের বিকৃত দর্শন ও উগ্রবাদকে প্রতিষ্ঠায় চেষ্টা করে যাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, কুরআন ও সুন্নাহর অপব্যাখ্যা করে শান্তি বিনষ্টকারীদের সম্মিলিত ভাবে সমুচিত জবাব দিয়ে ইসলামের সঠিক রূপরেখা সমাজ ও রাষ্ট্রে প্রতিষ্ঠা করতে হবে। ২৮ নভেম্বর বৃহস্পতিবার বিকালে রাউজান হলদিয়া দুল্লোভ কাজীর বাড়ী হযরত ছিদ্দিকে আকবর (র.) স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (দরুদ) উপলক্ষ্যে আজিমুশশান নুরানী মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সংগঠনের সহ সভাপতি শায়ের মুহাম্মদ মাছুমুর রশিদ কাদেরীর স ালনায় এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন হলদিয়া ৫নং ওয়ার্ডের মেম্বার ও দুল্লোভ কাজীর বাড়ীর সমাজ প্রতিনিধি মুহাম্মদ আলী।

    উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন হলদিয়া দুল্লোভ কাজীর বাড়ী জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুল আলী রজভী। মাহফিলের সভাপতিত্ব করেন গর্জনীয়া রহমানিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার সাবেক অধ্যক্ষ আল্লামা সৈয়দ মুহাম্মদ আহসান হাবিব। প্রধান অতিথি ছিলেন আন্জুমানে রজভীয়া নূরীয়া বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় চেয়ারম্যান পীরে তরিক্বত হযরতুলহাজ¦ আল্লামা মুহাম্মদ আবুল কাশেম নূরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআ’ত রাউজান উপজেলা উত্তরের সাধারণ সম্পাদক আল্লামা মুহাম্মদ ইদ্রিস আনসারী। প্রধান বক্তা ছিলেন উত্তর সর্তা গাউসিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার আরবী প্রভাষক আল্লামা সৈয়দ মুহাম্মদ হাসান মুরাদ কাদেরী। বিশেষ বক্তা ছিলেন গর্জনীয়া রহমানিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার মুর্দারিস ও সংগঠনের উপদেষ্ঠা মাওলানা মুহাম্মদ জাফর আলম নুরী। উপস্থিত ছিলেন আহলে সুন্নাতের অসংখ্য উলামায়ে কেরাম ও সংগঠক।

    সংগঠনের নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সভাপতি মুহাম্মদ মফিজুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ হায়দার, মুহাম্মদ আবুল ফজল, মুহাম্মদ ইদ্রিস, মুহাম্মদ আলম, মুহাম্মদ জসিম, অলি আহমদ, মুহাম্মদ আবুল হাশেম, মুহাম্মদ খাইরুল বশর, মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন, মুহাম্মদ রুবেল, এস.এম ইকবাল বাহার চৌধুরী, মুহাম্মদ তৌহিদ, মুহাম্মদ সুলাইমান, মুহাম্মদ আমান উল্লাহ, মুহাম্মদ মাসুদ-অর-রশিদ, মুহাম্মদ আমজাদ হোসেন পাপ্পু, মুহাম্মদ আইমন, মুহাম্মদ সাজিদ, মুহাম্মদ ইরফান, মুহাম্মদ বাবুল, মুহাম্মদ শাহজাহান, মুহাম্মদ সোহেল, মুহাম্মদ হাসান, মুহাম্মদ ইমন, মুহাম্মদ শ্রাবণ প্রমুখ।