নড়াইলে অধ্যক্ষ লাঞ্ছিতের ঘটনায় ওসি শওকত স্ট্যান্ডরিলিজঃ৪ আসামীর রিমান্ড মঞ্জুর

0
42
নড়াইলে অধ্যক্ষ লাঞ্ছিতের ঘটনায় ওসি শওকত স্ট্যান্ডরিলিজঃ৪ আসামীর রিমান্ড মঞ্জুর

সুজয় বকসী.নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইল সদর উপজেলার মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসের গলায় জুতার মালা দেয়ার ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার কারণে সদর থানার ওসি শওকত কবিরকে স্ট্যান্ডরিলিজ করা হয়েছে। রোববার সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায়।
তিনি জানান, ওসি শওকত কবিরকে নড়াইল সদর থানা থেকে স্ট্যান্ডরিলিজ করে খুলনায় সংযুক্ত করা হয়েছে। ঘটনার সময় সদর থানার ওসি শওকত কবির ঘটনাস্থলে সময় উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে এ মামলায় গ্রেফতার চার আসামীকে ৩দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। নড়াইল জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট কোট-২ এর বিচারক আমাতুল মোর্শেদা রিমান্ড মঞ্জুর করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ৫দিনের রিমান্ড আবেদন করেছিলেন। আসামীরা হলো অন্যতম রহমত উল্লাহ রনি ,বিছালী ইউনিয়নের আড়পাড়া গ্রামের মালেক মুন্সীর ছেলে মির্জাপুর বাজারের মোবাইল ফোন মেকার শাওন, মির্জাপুর গ্রামের সৈয়দ মিলনের ছেলে অটোচালক রিমন ও একই গ্রামের মাদরাসা শিক্ষক মনিরুল ইসলাম ।

নড়াইলে অধ্যক্ষ লাঞ্ছিতের ঘটনায় ওসি শওকত স্ট্যান্ডরিলিজঃ৪ আসামীর রিমান্ড মঞ্জুর
নড়াইলে অধ্যক্ষ লাঞ্ছিতের ঘটনায় ৪ আসামীর রিমান্ড মঞ্জুর।

প্রসঙ্গত, সদরের বিছালী ইউনিয়নের মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র রাহুল দেব রায় ফেসবুকে মহানবী (দঃ) কে নিয়ে অবমাননাকর পোস্ট দেওয়ায় গত ১৮জুন কলেজে উত্তেজনা দেখা দেয়। এ সময় বিক্ষুব্ধ ছাত্র ও স্থানীয় লোকজন শিক্ষকদের ৩টি মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেয় এবং অভিযুক্ত ছাত্র ও কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ^াসকে জুতার মালা গলায় পরিয়ে পুলিশের সামনে ক্যাম্পাস থেকে বের করে দেয়। পরে অভিযুক্ত রাহুলকে গ্রেফতার করে তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়। ঘটনাটি তদন্তে রবিবার (২৬ জুন) অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জুবায়ের হোসেন চৌধুরীর নেৃতৃত্বে এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ রিয়াজুল ইসলামের নেতৃত্বে দু’টি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।
এ দিকে মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের অধ্যক্ষকে লাঞ্চিত, শিক্ষকদের মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেওয়া এবং পুলিশের কাজে বাঁধা দেওয়ার ঘটনায় সোমবার (২৭ জুন) রাতে পুলিশ বাদি হয়ে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের এবং ওই রাতেই স্থানীয় ৩জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে গতকাল বুধবার রাতে মামলার প্রধান আসামী রহমত উল্লাহ রনিকে খুলনা থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মামলায় গ্রেফতার হওয়া প্রথম ৩জনের জন্য বুধবার (২৯জুন) এবং বুধবার রাতে গ্রেফতার হওয়া রনির জন্য বৃহস্পতিবার নড়াইল সদর আমলী আদালতে ৫দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। আজ রবিবার ৩ জুলাই রিমান্ড শুনানীর দিন ধার্য করা হয়েছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here