নবীগঞ্জে সাবেক চেয়ারম্যান’সহ ৩জনের দণ্ড

    0
    9

    আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৩অক্টোবর,নবীগঞ্জ সংবাদদাতাঃ হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার পানিউমদা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নোয়াগাঁও গ্রামের আব্দুর রহমান’সহ ৩ জনকে ২ বছরের সস্ত্রম কারাদণ্ড ও ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ৩ বছরের দণ্ড প্রদান করা হয়েছে। অপর দণ্ডপ্রাপ্তরা হচ্ছেন, একই গ্রামের দু’সহোদর মোঃ রুহুল আমিন (৩৫) ও ইউসুফ আলী (৪৫)। খাগাঁউড়া গ্রামের বাসিন্দা রইছগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী নুরাজ মিয়ার দোকান ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগে দায়েরকৃত দ্রুত বিচার আইনে মামলায় দোষী সাব্যস্ত করে তাদের এ দণ্ড প্রদান করা হয়। চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ সুলায়মান মিয়া সোমবার (২ সেপ্টেম্বর) এ রায় প্রদান করেন।
    মামলার বিবরণে জানা যায়, নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রচার প্রচারণা শুরু হয়। ঘটনার কয়েকদিন পূর্বে বাদীর দোকানে বসে জনৈক চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনী প্রচার করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন পানিউমদা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নোয়াগাঁও গ্রামের বাসিন্দা আব্দুর রহমান। তিনি কয়েকজনকে নিয়ে দোকানে এসে তার দোকানে বসে কেউ যাতে নির্বাচনী প্রচার করতে না পারে
    সে জন্য নুরাজ মিয়াকে শাসিয়ে যান। এর প্রতিবাদ করায় তাকে হুমকী প্রদান করা হয়। এর জের ধরে সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুর রহমানের নেতৃত্বে আসামীরা ২০১৫ সনের ২৯ নভেম্বর সকাল ১১ টার দিকে নুরাজ মিয়ার দোকান ঘেরাও করে। খবর পেয়ে নুরাজ মিয়া দোকানে আসলে আসামীরা তাকে ধাওয়া করলে তিনি দৌড়ে পালিয়ে যান। পরে সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান এর নির্দেশে
    আসামীরা তার দোকানে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট করে বলে আরজিতে উল্লেখ করা হয়। এতে প্রায় ১ লাখ ২০ হাজার টাকা ক্ষতি হয়। এ সময় আসামীরা একটি রঙ্গিন টিভি ও ১০ ড্রাম তেল চুরি করে নিয়ে যায়। যার মুল্য ১ লাখ ৫৪ হাজার টাকা। ঘটনার খবর পেয়ে গোপলার বাজার ও পুটিজুরী ফাঁড়ি পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলে আসামীরা পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় পরদিন দোকান মালিক
    নুরাজ মিয়া বাদী হয়ে সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুর রহমানকে প্রধান আসামী করে ১৫ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৪০/৫০জনকে অভিযুক্ত করে নবীগঞ্জ থানায় দ্রুত বিচার আইনে একটি মামলা
    দায়ের করেন। মামলাটি বাদী পক্ষে পরিচালনা করেন এডঃ ফয়জুল বশির চৌধুরী সুজন। আসামী পক্ষে ছিলেন এডঃ চৌধুরী আশরাফুল বারী নোমান।

     

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here