দুর্নীতির অভিযোগে মৌলভীবাজারে ইউপি চেয়ারম্যান সালেক বহিষ্কার

0
211
দুর্নীতির অভিযোগে মৌলভীবাজারের ইউপি চেয়ারম্যান সালেক বহিষ্কার

“জেলার রাজনগর উপজেলার ৩নং মুন্সিবাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছালেক মিয়াকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়,কিন্তু স্থানীয়রা চাই স্থায়ী বহিষ্কার”

আলী রাজন, মৌলভীবাজার প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার ৩নং মুন্সিবাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছালেক মিয়াকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। দুর্নীতির অভিযোগে মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসের সুপারিশে থাকে বহিষ্কার করা হয়।কেন চুড়ান্তভাবে বহিষ্কার করা হবে না তা জানতে কারণ দর্শানোর নোটিস দিয়েছে মন্ত্রণালয়।

১১ জুলাই স্থানীয় সরকার পল্লি উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের উপসচিব আবু জাফর স্বাক্ষরিত নোটিশের অনুলিপি পাঠানো হয়েছে মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক ও রাজনগরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে।সেখানে বলা হয় ৫২৯ নং স্মারকের প্রজ্ঞাপনে জনস্বার্থে চেয়াম্যান সালেক কে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। স্থানীয় সরকার ইউনিয়ন পরিষদ আইন,২০০৯ এর ৩৪ (৪)(খ) ও (ঘ) এর অপরাধ সংঘটিত করার অপরাধে কেন চেয়াম্যান সালেক কে তার পদ হতে চুরান্তভাবে অপসারণ করা হবেনা তার জবাব পত্র প্রাপ্তির ১০কার্যদিবসের মধ্যে জেলা প্রশাসক মৌলভীবাজার এর মাধ্যমে স্থানীয় সরকার বিভাগে প্রেরণের জন্য নির্দেশ দেয়া হয়।

নোটিশ সূত্রে জানা যায়, মুন্সিবাজার ইউনিয়ন পরিষদের অধিগ্রহণকৃত ভূমিতে কামারপট্টি টিনশেড প্রকল্পের মাধম্যে সরকারি টাকা ব্যযে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগ স্থানীয় তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসকের সুপারিশে জনস্বার্থে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে।

কামারপট্টিতে সরজমিনে গেলা মুনসিবাজার ইউনিয়নের সালামত মিয়া,সেজুল আহমদ,ময়না মিয়া বলেন কামারপট্টি নির্মানের পুরো কাজের টাকা চেয়ারম্যান সালেক মেরে দিয়েছে। আমরা চাই চেয়ারম্যান সালেকসহ যারা এই কাজের সাথে জড়িত আছে তাদের সঠিক বিচার।

এলাকার এক আওয়ামীলীগ নেতা বলেন চেয়ারম্যান সালেক আমাদের ইউনিয়নের জন্য আওয়ামীলীগের জন্য একটা খারাপ মানুষ, সে নৌকা প্রতিক নিয়ে মুনসীবাজার ইউনিয়নে নির্বাচন করে নির্বাচিত হয়েছে, আমরা জানি তাকে কি ভাবে পাশ করিয়েছি,সে সব কথা সে ভুলে গেছে। চেয়ারম্যান হবার ৫/৬ মাস পর থেকে শুরু হয়েছে তার দূনির্তী, সন্ত্রাসী আচার ব্যবহার সালেকের মনে থাকা উচিৎ ছিলো যে পাপ বাপ কেও ছাড়েনা। সাময়িক বহিষ্কার আমরা চাই না ,স্থানীয় তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে চেয়ারম্যান সালেক দুশি তাহলে তাকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা ধরকার। দুনির্তীবাজ কোন চেয়াম্যান আমরা চাই না । তাই সরকারে প্রতি আমাদের আকুল আবেদ চেয়াম্যান সালেক কে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হউ।

এ বিষয়ে ৩নং মুন্সিবাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছালেক মিয়াকে জানান, আমার প্রতিপক্ষ আমাকে হেয় করার জন্য এই কাজ করেছে। আমি কোনো অন্যায় করিনি।

রাজনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রিয়াংকা পাল জানান, ঘটনাটি শুনেছি কিন্তু এখনো অফিসিয়ালি কাগজপত্র আমার কাছে এসে পৌঁছায়নি। কাগজপত্র আসলে ব্যবস্থা নিব।


LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here