গোয়াইনঘাটে ঐতিহ্যবাহী ফাইনাল ঘোড় দৌড় ২০ফেব্রুয়ারী

    0
    90

    রেজওয়ান করিম সাব্বির,জৈন্তাপুর (সিলেট) প্রতিনিধিঃ গ্রামবাংলার ঐহিয্যবাহী খেলার অন্যতম খেলা হল ঘোড়ার দৌড় প্রতিযোগিতা। প্রতি বৎসরের ন্যায় সিলেটের যে কয়েকটি উপজেলায় ঘোড় দৌড় প্রতিযোগিতা আয়োজন করা হয় তার মধ্যে অন্যতম সিলেটের গোয়াইনঘাট। ঐতিহ্যের টানে ঝাঁক ঝমকপূর্ণ ভাবে তিন দিন ব্যাপী এ খেলা অনুষ্টিত হচ্ছে।
    সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, গোয়াইনঘাট উপজেলার ৫নং আলীরগাঁও ইউনিয়নের খাঁস মৌজা মাঠে গত ১৯ ফেব্রুয়ারী হতে এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে এলাকাবাসী। আজ ১৯ ফেব্রুয়ারী সকাল ৯ টায় ২দিনের ঘোড় দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্টিত হয়।

    এ প্রতিযোগিতায় সিলেটের বিভিন্ন উপজেলা হতে প্রায় ৩৫টি ঘোড়া দৌড় প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহন করে। বিভিন্ন ইভেন্টের মাধ্যমে দৌড়ে অংশ গ্রহন করে তারা পর্যায়ক্রমে আগামীকাল ফাইন্যাল খেলায় অংশ গ্রহন করবে। বিভিন্ন ইভেন্টের ৩৫টি ঘোড়া দৌড় সমাপ্ত করে সর্বশেষ ফাইন্যালে জন্য আজ বুধবার মাঠে নামবে ২০টি ঘোড়া। দৌড় প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহনকারী ঘোড়া গুলোর ১ম ও ২য় স্থান নির্বাচিত হবে।

    তাছাড়া আরও অংশ গ্রহনকারী ১০ হতে ১২টি ঘোড়াকে সম্মান জনক পুরস্কার তুলে দেওয়া হবে। ঐতিহ্যবাহী ঘোঢ় দৌড় খেলাটি গোয়াইনঘাট উপজেলা বিভিন্ন অ ল হতে দিন দিন বিলুপ্ত হতে চলছে। বিলুপ্ত ঘোড় দৌড় প্রতিযোগিতাটি ধরে রাখতে তারা নানা প্রতিকুল পরিবেশ পেরিয়ে খেলাটি সম্পন্ন করে আসছে।

    তারই ধারাবাহিকতায় আলীরগাঁও অ লের লোকজনদের অনুমতিতে একটি মাঠে নির্বাচন করে। প্রশাসনের উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে শান্তিপূর্ণ ভাবে খেলাটি পরিচালনা করে। ঘোড় দৌড় প্রতিযোগিতার আয়োজন করাটা অনেকটা কষ্ট সাদ্য হলেও কোন প্রকার প্রচার প্রচারনা ছাড়াই ঐহিয্যবাহী দৌড়টি আয়োজন করে আয়োজক কমিটি।
    একনজর ঘোড় দৌড় প্রতিযোগীতা দেখতে হাজার হাজার নারী পুরুষ মাঠে অংশ গ্রহন করে দৌড় প্রতিযোগিতা উপভোগ করে। সরাসরি প্রচার প্রচারনা হলে কয়েক লক্ষ মানুষ দৌড় দেখার জন্য মাঠে উপস্থিত হত। প্রচার বিহীন ঘোড় দৌড় প্রতিযোগিতা দেখতে খাঁস মৌজা মাঠে কয়েক হাজার লোকের সমাগম ঘঠেছে।

    সিলেট জেলার বিভিন্ন উপজেলা সহ সিলেটের বাহির হতে প্রতিযোগিতায় ঘোড়া অংশ গ্রহন করে। কোন প্রকার অপ্রিতিকর ঘটনা ছাড়াই ২য় দিনের খেলা সমাপ্ত করা হয়। আয়োজকরা আশাবাদ ব্যক্ত করেন। সুন্দর ভাবে ফাইন্যাল দৌড়টি সমাপ্ত করবেন বলে জানান।

    স্থানীয় সংবাদিক মনজুর আহমদ প্রতিবেদককে জানান- ঐহিত্যবাহী ঘোড় দৌড় প্রতিযোগিতাটি সাধারণ মানুষদের আনন্দ জাগায়। কৃষকরা ধান সহ বিভিন্ন কৃষি ফসল উত্তোলনের পর মানুষের মনে আনন্দ বিনোদন ছড়িয়ে দিতে কৃষক পরিবার গুলো এই ঐহিত্য আয়োজন করা হয়েছে এবং প্রচার প্রচারনা ছাড়াই খেলায় এত দর্শক সমাগম হয়েছে তা বলার বাহিরে।

    কোন প্রকার অপ্রিতিকর ঘটনা ছাড়া দৌড় প্রতিযোগিতা সমাপ্ত করায় এলাকাবাসীকে এবং দৌড় প্রতিযোগিতায় আগত দর্শকবৃন্দকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।