কমলগঞ্জে সংখ্যালঘুর জমিতে জোরপূর্ব্বক ঘর নির্ম্মাণ

    0
    9

    আমারসিলেট24ডটকম,২৬ফেব্রুয়ারী,শাব্বির এলাহী মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার পতনঊষার ইউনিয়নের শ্রীসুর্য্য গ্রামে ধর্মীয় সংখ্যালঘুর পরিবারের জায়গাতে জোরপূর্ব্বক বসতঘর নির্ম্মাণ করে জমি দখলের পায়তারা করছে একটি চক্র। এ ব্যাপারে কমলগঞ্জ থানায় লিখিত এজাহার দায়ের করা হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। আতংকিত সংখ্যালঘু পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন। কমলগঞ্জ থানা পুলিশ মঙ্গলবার বিকেলে সরেজমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে উভয়পক্ষকে আজ বুধবার সন্ধ্যায় কমলগঞ্জ থানায় প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে হাজির হওয়ার জন্য নোটিশ প্রদান করেছেন।

    খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কমলগঞ্জ উপজেলার পতনঊষার ইউনিয়নের শ্রীসুর্য্য গ্রামে মৃত নরেশ চন্দ্র ধরের মৌরসী জায়গাতে মৃত আব্দুল করিমের ছেলে সোহাগ মিয়া ও সদর মিয়া গংরা সম্প্রতি জোরপূর্ব্বক দখল করে গত ১৬ ফেব্রুয়ারি বসতঘর নির্ম্মান করে (মৌজা-শ্রীসুর্য্য, জেএলনং ৩৮, খতিয়ান নং ২৭১, দাগ নং ৩০১৯, ভূমির পরিমাণ ২০ শতক)। এ সময় মৃত নরেশ চন্দ্র ধরের পুত্র নির্মল কুমার ধর, নীহার রঞ্জন ধর, হেমেন্দ্র কুমার ধর ও নিরঞ্জন কুমার ধর সহ এলাকার লোকজন ঘর নির্ম্মাণে বাঁধা দিলে সোহাগ মিয়া গংরা দেশীয় অস্ত্র শস্ত্র সহ প্রাণে হত্যার হুমকি প্রদান করে। বিষয়টি সংখ্যালঘু পরিবারের সদস্যরা স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ পতনঊষার ইউপি চেয়ারম্যানকে অবহিত করেন। এ ঘটনায় আতংকিত সংখ্যালঘু পরিবারটি নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন।

    স্থানীয়ভাবে বিষয়টি আপোষ মীমাংসার চেষ্টা করলেও কোন সুষ্ঠু বিচার না পেয়ে অসহায় নির্মল কুমার ধর বাদী হয়ে ৩ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরো ৮/১০ জনকে আসামী করে গতকাল মঙ্গলবার সকালে কমলগঞ্জ থানায় একটি লিখিত এজাহার দাখিল করেন। কমলগঞ্জ থানার এসআই চম্পক দামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ মঙ্গলবার বিকেলে সরেজমিন পরিদর্শন করে উভয় পক্ষকে শান্ত থাকার পরামর্শ দেন এবং আজ বুধবার সন্ধ্যায় এ সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে কমলগঞ্জ থানায় আসার জন্য নোটিশ প্রদান করেন।

    ঘটনার ব্যাপারে জানতে চাইলে অভিযুক্ত সোহাগ মিয়া বলেন, তিনি জনৈক রফিক মিয়ার কাছ থেকে জায়গাটি মৌখিকভাবে লীজ এনেছেন। তার থাকার কোন বসতঘর নেই, তাই এখানে ঘর নির্ম্মাণ করেছেন। তবে অবৈধভাবে দখলের কথা স্বীকার না করলেও কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেননি।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here