Saturday 31st of October 2020 01:51:22 AM

সিলেট প্রতিনিধিঃ সিলেট কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ভোলাগঞ্জে শাহ্ আরফিন পাথর কোয়ারিতে ১৫টি পরিবেশ বিধ্বংসী বোমা মেশিন ধ্বংস করেছে স্থানীয় পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপু্র থেকে একটানা প্রায় তিন ঘণ্টাব্যাপী অভিযানে এসব বোমা মেশিন জব্দ করে আগুনে পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন পাওয়ারটিলার ব্যবহারের মাধ্যমে এ যন্ত্র দিয়ে মাটির গভীর থেকে পাথর উত্তোলন করায় পরিবেশের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। এ কারণে উচ্চ আদালতের নির্দেশে পাথর কোয়ারিতে এটি নিষিদ্ধ রয়েছে। এ নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও শাহ আরফিনে এটি গোপনে ব্যবহার করা হয়।

প্রভাবশালী পাথর ব্যবসায়ীরা বোমা মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন অব্যাহত রাখায় পরিবেশের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। এভাবে পাথর তোলার খবর পেয়ে গতকাল সেখানে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে নেতৃত্ব দেন কোম্পানীগঞ্জ থানার সেকেন্ড অফিসার মোঃ বদিউজ্জামাল।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ তাজুল ইসলাম জানান, ‘উপজেলা প্রশাসন ও টাস্কফোর্সের নিয়মিত অভিযানের পরও প্রভাবশালীরা বোমা মেশিনের ব্যবহার অব্যাহত রেখেছে। এ অবস্থায় পুলিশের পক্ষ থেকে সেখানে অভিযান চালানো হয়। এর কয়েকদিন আগেও সেখানে অভিযান চালিয়ে ৮টি মেশিন ধ্বংস করা হয়। অভিযান অব্যাহত থাকবে।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,৩০এপ্রিল,হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ মারাত্বক ঝুকিঁর মধ্যে রয়েছে পুরাতন ঢাকা সিলেট মহাসড়কের ২০ কিলোমিটার অংশ। সড়কের চুনারুঘাট থেকে সাতছড়ি হয়ে সুরমা পর্যন্ত কমপক্ষে ১৫টি স্থানে মারাত্বক ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। সম্প্রতি অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলের কারণে এসব ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়েছে। পুনরায় বৃষ্টি হলেই সড়কটিতে যে কোন সময় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এতে চুনারুঘাটের সাথে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যাবে মাধবপুর উপজেলার। এদিকে হবিগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগ উক্ত সড়কের ভাঙ্গনগুলো বল্লী ও বালিভর্ত্তি বস্তা দিয়ে সড়কটির বিভিন্ন অংশে মেরামতের মাধ্যমে রক্ষার চেষ্ঠা করছে।
শুক্রবার সরজমিনে দেখা যায়, পুরাতন ঢাকা সিলেট মহাসড়কের চুনারুঘাট থেকে সাতছড়ি হয়ে সুরমা পর্যন্ত সড়কের বিভিন্ন স্থানে অসংখ্য ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। কোন কোন স্থানে ভাঙ্গনগুলো বড় আকার ধারন করায় যান চলাচল সীমিত করা হয়েছে। হবিগঞ্জ সড়ক বিভাগ লাল পতাকা দিয়ে সাবধানে চলাচলে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। বিশেষ করে চন্ডিছড়া চা বাগান থেকে সাতছড়ি পর্যন্ত কমপক্ষে ১২টি স্থানে মারাত্বক ভাঙ্গন রয়েছে। এসব স্থানে সড়কের পাশে চা বাগান ও পাহাড়ী ছড়া ভেঙ্গে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হযেছে। পাহাড়ী ঢলের পানি এসে সড়কের প্রায় এক তৃতীয়াংশ নিচের থেকে বালি ও মাটি সরে গেছে। সড়কের রামগঙ্গা ছড়ার পানিতে অর্ধেক সড়ক ভেঙ্গে গেছে। কোন কোন স্থানে সওজের তৈরী দেয়াল ভেঙ্গে নিয়ে গেছে পাহাড়ী ঢল। গত সপ্তাহে অতিবৃষ্টির সময় রামগঙ্গা ও চন্ডিছড়ার মাঝে একটি ব্রীজ ভেঙ্গে সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।
খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক সড়ক বিভাগ কোন রকম জোড়াতালি দিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করে। পুনরায় বৃষ্টি হলেই পাহাড়ী ঢলের পানিতে এ ব্রীজের দুপাশে ভেঙ্গে যান চলাচল বন্ধ হতে যেতে পারে। একই ভাবে রামগঙ্গা থেকে সাতছড়ি পর্যন্ত আরো অসংখ্য স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। কোন কোন গর্ত ২০ থেকে ৩০ ফুট পর্যন্ত গভীর ও প্রসস্ত হয়েছে। ব্রীজের পাশে বালি ও মাটি সরে যাওয়ায় এ সড়কে গত দু বছরে তৈরী আরো ৫টি ব্রীজ হুমকির মধ্যে রয়েছে। পাহাড়ী ও চা বাগান এলাকায় তৈরী এসব ব্রীজের পাশে গত এক মাসের অতিবৃষ্টিতে মাটি সরে গিয়ে বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে মারাত্বক হুমকির মধ্যে রয়েছে এসব ব্রীজও। শনিবার সরজমিনে দেখা যায়, হবিগঞ্জ সড়ক ও জনপথের অর্থায়নে বস্তাভর্ত্তি বালি ও বল্লী দিয়ে ভাঙ্গা মেরামতের কাজ করছে ১০/১২ জন।
শ্রমিকরা জানায়, হবিগঞ্জ সওজ’র ঠিকাদার তাদের দিয়ে এ কাজ করাচ্ছে। রাস্তাটি টিকিয়ে রাখতে তারা প্রাণপন চেষ্ঠা করছেন। ইতোমধ্যে তারা দুটি স্থানে মেরামত করেছেন বলেও জানান। আরো কমপক্ষে ৭/৮টি স্থানে তারা মেরামতের কাজ করবেন বলে জানান। তবে কাজের সময় কোন ঠিকাদারকে পাওয়া যায়নি।
চন্ডিছড়া চা বাগানের সাবেক ইউপি সদস্য বিকাশ তাতী জানান, গত এক মাসের অতিবৃষ্টির কারণে পাহাড়ী ঢলে সড়কের ব্রীজগুলোর পাশের মটি ও বালি সরে গেছে। কোন কোন স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্ঠি হয়েছে। ফলে সড়ক এবং ব্রীজগুলো হুমকির মধ্যে রয়েছে।
তিনি জানান, আবার বৃষ্টি হলে এ সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যাবে। কারণ ইতোমধ্যে পাহাড়ী ঢল অসংখ্য স্থানে সড়কের অর্ধেক ভেঙ্গে নিয়ে গেছে।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০১এপ্রিল,এম ওসমান,বেনাপোল: বেনাপোলের ছোটআঁচড়া সীমান্ত দিয়ে ভারতে পাচারকালে ১ কেজি ৫শ’ গ্রাম  ওজনের ১৫টি স্বর্নের বারসহ শামিম ও হোসেন আলী নামে ২ পাচারকারীকে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা। তবে প্রকৃত সোনা ব্যাবসায়িকে আটক করতে পারেনি তারা। আটক শামীম হোসেন বেনাপোল কৃত্তিপুর গ্রামের নুর ইসলামের ছেলে ও হোসেন আলী বেনাপোল নারানপুর গ্রামের আজিজুল ইসলামের ছেলে।
বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)’র ৪৯ ব্যাটলিয়নের (ভারপ্রাপ্ত) অধিনায়ক লে. কর্নেল খবির উদ্দিন জানান, শনিবার সকালে বেনাপোল ছোটআঁচড়া সীমান্ত দিয়ে একটি স্বর্নের চালান ভারতে পাচার হয়ে যাচ্ছে জানতে পারে বিজিবি। সীমান্ত এলাকায় অভিযান চালিয়ে পাচারকারী ২জনকে একটি মটরসাইকেলসহ আটক করা হয়। পরে তাদের শরীরে বাধা অবস্থায় ১৫পিস স্বর্ন জব্দ করা হয়। যার ওজন ১কেজি ৫শ’ গ্রাম। দাম প্রায় ৭০লাখ টাকা। আটক আসামীদেরকে যশোর হেড কোয়াটার ব্যাটলিয়নে নেওয়া হয়েছে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc