Saturday 31st of October 2020 09:43:14 AM

“এএসপি (টিম লিডার) করোনা রেসপন্স টিম, র‍্যাব-৯, এর সাহসী ও মানবিক উদ্যোগ”

জহিরুল ইসলাম, নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  এবার সিলেট র‌্যাব-৯ এর দুর্গে করোনার হানা, এতে ১৩ সদস্যের করোনা  পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। শুক্রবার ওসমানী মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে নমুনা পরীক্ষায় র‌্যাবের সিলেট ইউনিটের ১৩ সদস্যের করোনা শনাক্ত নিশ্চিত হয়েছে। করোনার ঝুঁকি থেকে যারা রাত দিন দেশের জনগণকে সচেতন করার লক্ষ্যে ছুটে বেড়িয়েছে শহর থেকে গ্রামে, গ্রাম থেকে অজপাড়া-গাঁ- এ  আজ তারা হানা মুক্ত নয়।

এর আগে চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী, পুলিশ, সাংবাদিকসহ অনেকের করোনা শনাক্ত হলেও সিলেটে এই প্রথমবারে মত সিলেট র‌্যাব সদস্যদের করোনা শনাক্ত হলো। জানা গেছে শনাক্ত হওয়া বেশির ভাগেরই কোনো উপসর্গ নেই। বাকীদের হালকা জ্বর-সর্দি রয়েছে। গতকাল শুক্রবার ওসমানীর ল্যাবে ১৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৩১ জনের করোনা শনাক্ত হয়।

একইদিনে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের পিসি আর ল্যাবে সমান সংখ্যক নমুনা পরীক্ষায় ১৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়। র‌্যাব-০৯’র এএসপি (মিডিয়া) ওবাইন অফিসার এএসপি মো.আনোয়ার হোসেন শামীম বিষয়টি আমার সিলেট কে নিশ্চিত করে বলেন, শুক্রবার আমাদের ১৬ জন সদস্যের নমুনা পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠানো হয়।এর মধ্যে ১৩ জনের রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে। তার মধ্যে আজকে আবার আরও বেশ ক’জনের নমুনা নেওয়া হয়েছে।

নেটিজেনদের উদ্যেশ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে Md. Anwar Hossan (Shamim Anwar) এএসপি (টিম লিডার) করোনা রেসপন্স টিম, র‍্যাব-৯,সিলেট থেকে জানান “এই ১৩ জনসহ ভবিষ্যতে পুরো র‍্যাব-৯ ব্যাটালিয়নে যত জন করোনা পজিটিভ রোগী পাওয়া যাবে, অফিসার হিসেবে তাদের দেখভালের দায়িত্ব গ্রহণ করেছি আমি ও আমার টিম। শ্রীমঙ্গল অধ্যায় শেষে এখন থেকে সিলেটের ব্যাটালিয়ন হেডকোয়ার্টারে আমার নেতৃত্বে ৬ সদস্যের ছোট্ট টিম পুরো র‍্যাব-৯ ব্যাটালিয়নের সকল করোনা আক্রান্ত রোগীর দেখাশোনা করা, হাসপাতালে ভর্তি করা, তাদের কাছে খাবার পৌঁছানো, ঔষধ-পথ্য গ্রহণ নিশ্চিত করার দায়িত্ব পালন করব। যেহেতু সারাক্ষণ করোনা রোগীদের নিয়েই পড়ে থাকব, করোনা রোগীদের নিয়েই হবে ওঠাবসা, অলৌকিক কিছু না ঘটলে ধরেই নেওয়া যায়, আজ হোক বা দু-দিন পরে হোক, নিশ্চিত করোনা আক্রান্ত হবার রাস্তাতেই পা রাখছি। সম্পূর্ণ বুঝেশুনে, সজ্ঞানে। যত গরম, আর অস্বস্তি লাগুক, পিপিই-ই হতে যাচ্ছে সারাদিনের একমাত্র পোশাক। আমার জানামতে, খাগড়াছড়ি জেলার উত্তর বড়বিল (সিংহপাড়া) গ্রামে জন্ম হবার পর এই নগণ্য মানুষটির জীবনে এমন মহান, বিরাট, গর্ব করার মতো কাজ করার সুযোগ কখনোই আসেনি। আলহামদুলিল্লাহ, আমি সেই সুযোগ দুই হাত ভরে গ্রহণ করছি।”

চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের চুনারুঘাট লালচাঁন্দ চা বাগানে একদল ডাকাত ডাক বাংলোতে ডাকাতি করেছে। ডাকাতের হামলায় নারীসহ ৪ জন আহত হয়েছেন। ২৮ জুলাই রবিবার গভীর রাতে এঘটনাটি ঘটেছে। আহতদের হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ডাকাত দলের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আহত হয়েছেন ম্যানেজার মোফাজ্জল হোসেন (৫৫), তার স্ত্রী আফরোজা বেগম লিপি (৪৮) ও কলেজ পড়ুয়া মেয়ে মালিয়া হোসেন লিপি (১৮)। জানা যায়, ১০/১২ জনের ডাকাত দল প্রথমে বড় বাংলোতে হানা দেয়।
বাংলোর মুল গেট ভেঙে ডাকাতদল ঘরে ঢুকে ম্যানেজার মোফাজ্জল হোসেনের কলেজ পড়ুয়া মেয়েকে অস্ত্র ঠেকিয়ে
নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার দেওয়ার জন্য দাবি জানান। এসময় নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার দিতে না পারায়  ডাকাতরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আহত করে মোফাজ্জল সহ তার স্ত্রী ও মেয়ে কে। এঘটনা পর পরই আতঙ্ক ছড়িয়ে পরে।
চুনারুঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ নাজমুল হক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। আমাদের প্রাথমিক ধারণা ম্যানেজার মোফাজ্জল হোসেনের বাংলোতে কিছু না পাওয়ায় ডাকাত দল তাদের উপর হামলা করেছে। তিনি আরও জানান, ডাকাত দলের সদস্যদের ধরতে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,০৬এপ্রিল,রেজওয়ান করিম সাব্বির, জৈন্তাপুরঃ
জৈন্তাপুর ভারতীয় শিলং তীরের অাস্তানায় অভিযান চালিয়ে থানা পুলিশ বইয়ের মালিক সহ ৩জর কে অাটক করে৷
৬ এপ্রিল বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টায় জৈন্তাপুর উপজেলার মা-মার্কেট ও বিদ্যুৎ অফিস সংলগ্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ৩জন কে অাটক করে জৈন্তাপুর মডেল থানা পুলিশ৷ অাটককৃতরা হল নিজপাট দর্জী হাটি গ্রামের মৃত অাব্দুর রব এর ছেলে অাব্দুল হাসিম (৩০) উপজেলার বাউরভাগ গ্রামের মৃত সামসুল হক এর ছেলে জামাল অাহমদ(২৮) নিজপাট তোয়াসী হাটি গ্রামের গোপাল (৪৫)৷
এলাকাবাসী সূত্রে যানাযায়- গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে মা মার্কেট এলাকায় অাব্দুল হাসিমের মালিকানায় ৫টি বই বিক্রয় হয়৷ দীর্ঘ দিন হতে হাসিম মা-মার্কেটে অাস্তানা পরিচালনা করছে৷ থানা পুলিশ একাধিকবার অভিযান পরিচালনা করলে চতুর হাসিম পালিয়ে যায়৷ অবশেষে ৬ এপ্রিল বৃহস্পতিবার অফিসার ইনচার্জ এর নির্দেশে এএসঅাই হাবিবুর অভিযান পরিচালনা করে বই সহ খেলা পরিচালনাকারী ভারতীয় শিলং তীরের অন্যতম এজেন্ট অাব্দুল হাসিম কে অাটক করে সেই সাথে ভারতীয় শিলং তীরের ২ খেলোয়াড়কে অাটক করা হয়৷
১জন মালিক সহ ২ খেলোয়াড়দের অাটক করায় জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সফিউল কবির সহ পুলিশকে ধন্যবাদ জানান বাজারের ব্যবসায়ীরা পাশাপাশি তারা অারও বলেন জৈন্তাপুরের ভারতীয় শিলং তীর খেলা শেষ্ঠ এজেন্ট রুমিন মিয়া, জামাল অাহমদ, অাব্দুল মালিক বাকুম, মনির হোসেন, অাব্দুল খালিক, মোঃ রাসেল, জুলফিকর অালী লেফ সহ অন্যান্যদের অাটক করে শাস্তি কঠিন শাস্তি প্রদানের দাবী জানান৷
এবিষয়ে জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সফিউল কবির অাটকের বিষয় নিশ্চিত করে বলেন জৈন্তাপুর উপজেলার সব কয়েকটি ভারতীয় শিলং তীরের অাস্তানা পর্যায়ক্রমে ঘুটিয়ে দেওয়া হবে এবং উপজেলা নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হবে৷ অাটককৃতদের অাইনের অাওতায় অানা হবে বলে জানান৷

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc