Tuesday 20th of October 2020 07:58:55 PM

রেজওয়ান করিম সাব্বির, জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধিঃ  ১লা সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সকাল ১০টায় সিলেটের জৈন্তাপুরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধানের উপহার স্বরুপ প্রকৃত দুঃস্থ গৃহহীন সেনা মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে সরকারের আশ্রায়ণ প্রকল্পের অংশ হিসেবে সেনাবাহিনীর ব্যবস্থাপনায় গৃহ নির্মাণ করতঃ এবং ঘর হস্তান্তর ও বিভিন্ন অনুদান প্রদানের কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়। তারই ধারাবাহিকতায় ১৭ পদাতিক ডিভিশনের এরিয়া কমান্ডার এবং সিলেট এরিয়ার অধীনস্থ ২১ ইঞ্জিনিয়ার ব্যাটালিয়নের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ গেজেটের তালিকাভূক্ত প্রকৃত দুঃস্থ গৃহহীন জৈন্তাপুর উপজেলার নিজপাট ইউনিয়নের কুমারপাড়া গ্রামের সেনা মুক্তিযোদ্ধা নম্বর ৩৯৪৫৫৩৩ মরহুম সৈনিক মুসাবির আলী’র উত্তরাধীকারী স্ত্রী মোছাঃ আফলাতুন বেগম নিকট একটি নির্মিত গৃহ হস্তান্তর করা হয়।
ঘর হস্তান্তর কার্যক্রম অনুষ্টানে উপস্থিত ছিলেন ২১ ইঞ্জিনিয়ার ব্যাটালিয়নের পিএসসি, অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবু খালেদ আল-মামুন। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ সংবাদকর্মীগণ।
ঘর হস্তান্তর অনুষ্ঠানে লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবু খালেদ আল-মামুন বলেন, সেনাবাহিনীর মাধ্যমে গৃহ নির্মাণ করতঃ তা দুঃস্থ গৃহহীন সেনা মুক্তিযোদ্ধাদের মাধে হস্তান্তর সহ বিভিন্ন অনুদান প্রদানের কার্যক্রম অতীতেও করা হয়েছে এবং ভবিষ্যতেও এ ধরনের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ইউএইচএফপিও’র হাতে কেন্দ্রীয় আ,লীগের করোনা সুরক্ষা সামগ্রী তুলে দিয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।
মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) বিকেলে বাংলাদেশ কেন্দ্রীয়  আ’লীগের সভাপতি, আ’লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দীর প্রেরিত করোনা সুরক্ষা সামগ্রী তাহিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান করুনা সিন্দু চৌধুরী বাবুলের সার্বিক তথ্যবধানে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য শামীম আখঞ্জির মাধ্যমে ইউএইচএফপিও ডাঃ ইকবাল হোসেনের নিকট হস্তান্তর করেন।
সুরক্ষাসামগ্রীর মধ্যে ছিল পিপিই, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, মাস্ক, সাবান, আয়ুস ফেসওয়াস, আয়ুস টারমারিক ক্রিম, ফেসশিল্ড, হ্যান্ড গ্লাভস ইত্যাদি।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক এখলাছুর রহমান তারা মিয়া, সহ-দপ্তর সম্পাদক শাহীন রেজা, সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহিনুর তালুকদার, সদস্য এমরান হোসেন ভীপকসহ নেতাকর্মী ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা,কর্মচারীগন।

এম ওসমান, বেনাপোল প্রতিনিধি : ভারতে পাচার হওয়া দুই কিশোরী ও এক কিশোরকে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)’র কাছে হস্তান্তর করেছে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) সদস্যরা। বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৫ টার সময় তাদেরকে হস্তান্তর করা হয়।
হস্তান্তরকৃতরা হলো, নড়াইলের কালিয়া থানার রাজাপুর গ্রামের নিজাম শিকদার’র ছেলে তহিদুল শিকদার (১২), যশোরের শার্শা উপজেলার পন্ডিতপুর গ্রামের জসিম উদিন’র মেয়ে হালিমা খাতুন (১২) ও খুলনার ডুমুরিয়া থানার রাজনগর গ্রামের দেব প্রসাদ’র মেয়ে নুপুর ডালি (১৪)। তারা দীর্ঘ ৮ মাস কোলকাতা ওয়েল বেঙ্গল হোমে আটক ছিল।
বেনাপোল আইসিপি বিজিবি ক্যাম্পের নায়েব সুবেদার খোরশেদ আলম জানান, ভারতে পাচার হওয়া কিশোরী ও কিশোরদের ভারতীয় বিএসএফ হস্তান্তর করেছে। পরে তাদেরকে বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ করা হয়েছে। কাগজপত্রের আনুষ্ঠানিকতা শেষে বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশ মানবাধিকার সংস্থা জাস্টিজ এন্ড কেয়ার এর যশোর প্রতিনিধির নিকট হস্তান্তর করবেন ।

এম ওসমান, বেনাপোল প্রতিনিধি: ভারতে পাচার হওয়া ১০ বাংলাদেশী নারীকে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে হস্তান্তর করেছে ভারতীয় পুলিশ । শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার সময় তাদেরকে ভারতীয় ইমিগ্রেশন পুলিশ বাংলাদেশ ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেন । তাদের বাড়ি নড়াইল, যশোর, সাতক্ষীরা, বরিশাল ও পিরোজপুর জেলায়।
বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মহসিন হোসেন জানান, প্রায় ২ বছর আগে বাংলাদেশী ১০ নারী দালালের খপ্পরে পড়ে পাসপোর্ট ভিসা ছাড়া ভারতে যায়। পরে পুলিশ তাদের ধরে জেল হাজতে প্রেরন করে। জেল খাটার পর শুক্রবার সন্ধ্যায় ভারতীয় ইমিগ্রেশন পুলিশ তাদেরকে হস্তান্তর করেছেন। উক্ত নারীদের কে বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ করা হয়েছে ।
বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মামুন খান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ফেরত আসা ১০নারীকে মানবাধিকার সংস্থা রাইটস যশোর এর যশোর প্রতিনিধির নিকট হস্তান্তর করা হবে ।

এম ওসমান,বেনাপোলঃ  ভারতে পাচার হওয়া ৮ বাংলাদেশি নারীকে ফেরত পাঠিয়েছেন ভারতীয় বিএসএফ সদস্যরা । মঙ্গলবার (২০আগস্ট) বিকাল ৪টায় কাগজ পত্রের আনুষ্ঠানিকতা শেষে ভারতের পেট্রাপোল বিএসএফ সদস্যরা বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন হাতে তুলে দেয়।
রাইটস যশোর নামে একটি এনজিও সংস্থা তাদেরকে পরিবারের কাছে পৌঁছে দিতে নিজেদের জিম্মায় নিয়েছেন।
ফেরত আসা বাংলাদেশিরা হলেন- ঠাকুরগাও মিম আক্তার (১৭), মনি আক্তার (১৯) রুবিনা খাতুন (১৮), রিনা বেগম (১৬), মুক্তা আক্তার (১৯ ), বরিশালের মুন্নি আক্তার (২২), ইতি খাতুন (২১) ও রেক্সোনা আক্তার (১৭)।
পাচারের শিকার মনি আক্তার জানান, ভালো কাজের কথা বলে তাকে সীমান্ত পথে ভারতে নিয়ে যায়। পরে দালালরা তাকে সেখানে ফেলে পালিয়ে আসে। ভারতীয় পুলিশ তাকে আটক করে জেলে পাঠায়। সেখান থেকে কলকাতা হাওড়ায় অবস্থিত লিলুয়া সেল্টার হোম নামে একটি এনজিও সংস্থা তাকে ছাড়িয়ে নিজেদের আশ্রয়ে রাখে। তারা ২ বছর পর আজ বাড়ি ফিরছেন।
এনজিও সংস্থা রাইটস যশোর এর প্রতিনিধি তৌফিকুজ্জামান জানান, দুই দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যোগাযোগের মাধ্যমে তাদেরকে স্বদেশ প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় তাদের ফেরত আনা হয়েছে। এরা যদি পাচারকারীদের শনাক্ত করে মামলা করতে চায় তাহলে আইনি সহায়তা করা হবে।
বেনাপোল আইসিপি বিজিবি ক্যাম্পের নায়েব সুবেদার আতিয়ার রহমান জানান, কাগজপত্রের আনুষ্ঠানিকতা শেষে তাদেরকে পোর্টথানা পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।

এম ওসমান, বেনাপোল : অবৈধ পথে ভারতে পাচার হওয়া ৭ বাংলাদেশী নারী-শিশুকে স্বদেশ প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া মাধ্যমে ফেরত পাঠিয়েছে ভারত সরকার।
মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) সন্ধ্যায় কাগজ পত্রের আনুষ্ঠানিকতা শেষে ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ ও বিএসএফ সদস্যরা তাদেরকে যৌথভাবে বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন পুলিশ ও বিজিবি সদস্যদের হাতে তুলে দেয়।
রাইটস যশোর নামে একটি এনজিও সংস্থা তাদেরকে পরিবারের কাছে পৌঁছে দিতে নিজেদের জিম্মায় নিয়েছেন।
ফেরত আসা নারী-শিশুরা হলেন- ঢাকার রুপা চৌধুরী (৩৫), রাবেয়া খাতুন (৪৫) ও লাবনী (১৮), যশোরের নারগীস (১৬), নড়াইলের অথৈই শিলা (১৫), বাগেরহাটের সাগর মোল্লা (১৩) ও চাঁপাইনবানগঞ্জের শফিকুল ইসলাম (১৩)।
পাচারের শিকার রুপা চৌধুরী জানান, ভালো কাজের প্রলোভনে দালালদের খপ্পরে পড়ে সীমান্ত পথে সে ভারতে পাড়ি জমায়। পরে দালালরা তাকে সেখানে ফেলে পালিয়ে আসে। ভারতীয় পুলিশ তাকে আটক করে জেলে পাঠায়। সেখান থেকে নিলুয়া হোম নামে একটি এনজিও সংস্থা তাকে ছাড়িয়ে নিজেদের আশ্রয়ে রাখে। সাত বছর পর তিনি বাড়ি ফিরছেন।
এনজিও সংস্থা যশোর রাইটসের তথ্য ও অনুসন্ধান কর্মকর্তা তৌফিকুজ্জামান জানান, দুই দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যোগাযোগের মাধ্যমে স্বদেশ প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় তাদের দেশে ফেরত আনা হয়েছে। এরা যদি পাচারকারীদের শনাক্ত করে মামলা করতে চায় তাহলে আইনি সহায়তা করা হবে।
বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মাসুম বিল্লাহ জানান, কাগজপত্রের আনুষ্ঠানিকতা শেষে তাদেরকে পোর্টথানা পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। তারা পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

এম ওসমান, বেনাপোল: ভালো কাজের প্রলোভনে বিভিন্ন সময়ে  ভারতে পাচার হওয়া ৬ বাংলাদেশি তরুনীকে বিশেষ ট্রাভেল পারমিটের মাধ্যমে ফেরত দিয়েছে ভারতীয় পুলিশ। সোমবার (১০ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ তাদেরকে বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের হাতে তুলে দেয়।
ফেরত আসা বাংলাদেশিরা হলেন, গাইবান্ধার মুরসিদা বেগম (২১), সাতক্ষীরার রাবিয়া খাতুন (২৩), বাগেরহাটের নিসাত আক্তার বৃষ্টি (২০), যশোরের কল্পনা গাজী (২৫), সাথী সরদার (২২)  ও রহিমা খাতুন (১৮)।
জাস্টিস এন্ড কেয়ারের যশোর শাখার তথ্য ও অনুসন্ধ্যান কর্মকর্তা এবিএম মুহিত হোসেন জানান, সংসারে অভাব-অনটনের কারণে তিন বছর আগে এসব বাংলাদেশি তরুনীরা দালালের খপ্পরে পড়ে সীমান্ত পথে ভারতে যায়। এ সময় অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে ভারতীয় পুলিশ তাদের আটক করে। সেখান থেকে বোম্বায়ের নবজীবন নামে একটি শেল্টার হোম তাদেরকে ছাড়িয়ে নিজেদের আশ্রয়ে রাখে।  পরে  দু’দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যোগাযোগে বিশেষ ট্রাভেল পারমিট আইনে তাদের দেশে ফেরার ব্যবস্থা করা হয়।
বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল বাশার জানান, কাগজ পত্রের আনুষ্ঠানিকতা শেষে তাদেরকে পোর্টথানা পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ মহাকাশে উৎক্ষেপণের এক বছর পর আজ বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু হয়েছে। আজ (বোরবার) সন্ধ্যায় হোটেল ইন্টার কন্টিনেন্টালে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে সম্প্রচার কার্যক্রমের জন্য বাণিজ্যিক চুক্তি হস্তান্তর হয়।

বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিএসসিএল) চেয়ারম্যান ড. শাজাহান মাহমুদের কাছে টিভির মালিকরা বাণিজ্যিক চুক্তিপত্র হস্তান্তর করেন।

টিভিগুলো হলো- দীপ্ত টিভিসময় টিভিবিজয় টিভিমাই টিভিযমুনা টিভি ও বাংলা টিভি। এছাড়া সোনালী ব্যাংকের ব্রাঞ্চ টু ব্রাঞ্চ কানেক্টিভিটি (শাখা থেকে শাখায় যোগাযোগ) ও এটিএম কানেক্টিভিটি (এটিএম বুথের সাথে যোগাযোগ) কাজের জন্য সমঝোতা স্বাক্ষর হয়েছে।

বিসিএসসিএল চেয়ারম্যান ড. শাজাহান মাহমুদ বলেনপর্যায়ক্রমে বেসরকারি সকল টিভির সাথে বাণিজ্যিক কার্যক্রম চালুতে চুক্তি হবে। এর আগে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের বর্ষপূতি ও সেবা বিপণন কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

এসময় বক্তব্য দেন- ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের মন্ত্রী মোস্তফা জব্বারতথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকবিটিআরসি চেয়ারম্যান জহুরুল হক প্রমুখ।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপন

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘এই চুক্তির ফলে আমাদের নিজস্ব স্যাটেলাইটের মাধ্যমে সম্প্রচার হবে। এতে করে চ্যানেলগুলো এখন সাশ্রয়ী মূল্যে সম্প্রচার করতে পারবে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার বলেনবঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ উৎক্ষেপণের বিষয়ে কাজ চলছে। কিভাবে হবেখুব দ্রুত সময়ে তার বিস্তারিত বিষয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠাব।

উল্লেখ্যগত বছরের ১২ মে বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে বাংলাদেশ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করে। এরপরে এ স্যাটেলাইটের মাধ্যমে গত বছরের ৪ সেপ্টেম্বর থেকে সাউথ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন (এসএএফএফ) চ্যাম্পিয়ানশিপ ম্যাচটি পরীক্ষামূলক সম্প্রচার করা হয়। এরপর পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন চ্যানেলের সঙ্গে সংযোগ স্থাপনের মাধ্যমে পরীক্ষামূলকভাবে সম্প্রচার করা হয়।পার্সটুডে

বেনাপোল প্রতিনিধি: যশোরে নাভারণ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়িতে বিভিন্ন সময় জব্দকৃত মডেল আউট এবং কাগজপত্র বিহীন ৫ টি ট্রাক মালিকদের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিভিন্ন অংশে খুলে নেওয়ার ব্যবস্থা করা হইয়াছে। অবৈধ ভাবে হাইওয়ে সড়কে চলাচলের কারনে ট্রাকগুলি আটক হয়ে দীর্ঘদিন পড়ে থাকায় প্রায় নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে। যে কারনে মালিক পক্ষ যথাযথ কতৃপক্ষ বরাবর আবেদন করিলে মালিকানা যাচাই ও অন্যান্য আইনি প্রক্রিয়া শেষ করে শনিবার সকাল ১১টায় তাহাদের জিম্মায় ট্রাকের যন্ত্রাংশ গুলো প্রদান করা হইয়াছে।

এ সময় হাইওয়ে পুলিশের ফরিদপুর জনের সিনিয়ার সহকারী পুলিশ সুপার সিরাজুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন। আরো উপস্থিত ছিলেন, নাভারণ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সার্জেন্ট পলিটন মিয়া, এসআই সাহিদুর রহমান, এএসআই নুরে আলমসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে গাড়ি গুলোর যন্ত্রাংশ খুলে নেওয়ার জন্য মালিকদের জিম্মায় দেওয়া হয়।

বেনাপোল প্রতি‌নি‌ধি: অবৈধ প‌থে ভারতে পাচার হওয়া চার বাংলাদেশি নারীকে ফেরত পাঠিয়েছেন ভারত পুলিশ। বুধবার রাতে ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ তাদের ট্রাভেল পারমিট প্রক্রিয়ায় বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে।

ফেরত আসারা হলেন, টাঙ্গাইলের জোঁছনা (২৫), যশোরের শরিফা (২৬), রংপুরের সুমি আক্তার দিপা (২৩) ও ঢাকার রিনা (২১)।

জানা যায়, ভা‌লো কা‌জের প্র‌লোভ‌নে ৫ বছর আগে পাচারকারীদের খপ্পরে পড়ে এরা সীমান্ত পথে ভারতে যায়। পরে ভারতীয় পুলিশ তাদের উদ্ধার করে আদালতে সোপর্দ করে। সেখান থেকে ভারতের একটি এনজিও সংস্থা তাদের ছাড়িয়ে নিজেদের আশ্রয়ে রাখে। পরে দুই দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতি ক্রমে ট্রাভেল পারমিট প্রক্রিয়ায় তাদের ফেরত আনা হয়। কাগজপত্রের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে এই দীর্ঘ সময় লেগে যায়।

বেনাপোল ইমিগ্রেশনের ভারগ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তরিকুল ইসলাম জানান, ফেরত আসা নারীদের আইনী প্রক্রিয়া শেষে রাতেই তাদের বেনাপোল পোর্টথানা পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে পরিবারের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৭মার্চ,এম ওসমান, বেনাপোল : ভারতে ছয় মাস কারাভোগের পর ৩৬ বাংলাদেশী যুবককে বেনাপোল চেকপোষ্ট দিয়ে শনিবার রাত ৮টার সময় বাংলাদেশে হস্তান্তর করেছে ভারতীয় পুলিশ। ফেরত আসা যুবকদের অধিকাংশের বাড়ি খুলনা, বরিশাল ও নড়াইল জেলার বিভিন্ন স্থানে।
বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তরিকুল ইসলাম জানান, দুই বছর আগে এসব যুবকরা ভালো কাজের আশায় যশোরের বিভিন্ন সীমান্ত পথে ভারতের কেরালা রাজ্যে যায়। সেখানে দীর্ঘ ৬ মাস কাজ করার পর কেরালা পুলিশ তাদের আটক করে আদালতে পাঠায়। আদালত তাদের ছয় মাস কারাবাসের নির্দেশ দেন। কারাভোগের মেয়াদ শেষে দু’দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের যোগাযোগে ‘স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের’ মাধ্যমে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে তাদের বাংলাদেশ ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে হস্থান্তর করা হয়।
বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) ফিরোজ উদ্দিন জানান, স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মাধ্যমে ৩৬ বাংলাদেশী যুবককে দেশে ফেরত আনা হয়েছে। কাগজপত্রের কাজ সম্পন্ন করে তাদের বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ করা হয়। পরে মানবাধিকার সংগঠন রাইটস যশোরের মাধ্যমে তাদের আত্মীয় সজনদের কাছে ফেরত দেয়ার জন্য হস্তান্তর করা

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৩ডিসেম্বর,বেনাপোল প্র‌তি‌নি‌ধি: অবৈধপ‌থে ভারতে পাচার হওয়া ৩ বাংলাদেশী কিশোরকে তিন বছর পর ফেরত পাঠিয়েছেন ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) সদস্যরা।
মঙ্গলবার রাতে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়ায় তাদেরকে ভারতের পেট্রাপোল ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা বেনাপোল চেকপোস্ট আইসিপি ক্যাম্পের বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড (বিজিবি) সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করে।
কাগজপত্রের আনুষ্ঠানিকতা শেষে বিজিবি বাংলাদেশ মহিলা আইনজীবী সমিতির কাছে তাদের হস্তান্তর করেছে পরিবারের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য।
ফেরত আসা কিশোররা হলো- সাতক্ষীরার ব্রজোপাটুলিয়া গ্রামের রসিদ গাজির ছেলে রায়হান (১৭), গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়া গ্রামের সুনিল গাইনের ছেলে সবুজ গাইন (১৭) ও একই জেলার টুপিরিয়া গ্রামের গোবিন্দ শীলের ছেলে আনন্দ শীল (১৫)।
বাংলাদেশ মহিলা আইনজীবী সমিতির যশোর অফিসের কাউন্সিলর নাহার জানান, ভালো কাজের প্রলোভ‌নে দালালের খপ্পরে প‌ড়ে সীমান্ত পথে তারা ভারতের দিল্লিতে যায়। এসময় অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে ভারতীয় পুলিশ তাদেরকে আটক করে জেলে পাঠায়। সেখান থেকে একটি এনজিও সংস্থা তাদের ছাড়িয়ে নিজেদের আশ্রয়ে রাখে। পরে দুই দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যোগাযোগে স্বদেশ প্রত্যাবর্তনে দেশে ফিরে আসে।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৩সেপ্টেম্বর,এম ওসমান,বেনাপোল: ভালো কাজের প্রলোভনে ভারতে পাচার হওয়া ১০ বাংলাদেশি নারীকে অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে আটকের ৩বছর পর বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে হস্তান্তর করেছে ভারতীয় পুলিশ। রোববার (০৩সেপ্টোম্বর) বিকাল সাড়ে ৫টায় ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ তাদেরকে বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে।
ফেরত আসা নারীরা হলেন, মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার সোহাগী (২১), রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার পারুল আক্তার(১৭), যশোরের শার্শা উপজেলার ঝর্না খাতুন (২২) ও সহিরন খাতুন (২১), ঝিকরগাছা উপজেলার রাশেদা বেগম (২৪), যশোর সদর উপজেলার এলাকার আলেয়া বেগম (২২), ঝিনাদহের মহেশপুর উপজেলার নারগিস (১৯), বাগেরহাটের মোল্লারহাট উপজেলার শ্যামলী (২০), সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার মায়া দেবী মন্ডোল (২২) ও শ্যামনগর উপজেলার নবিতা নারী সরদার (২০)।
বেনাপোল চেকপেটাস্ট ইমিগ্রেশন পুলিশের উপ-পরির্দশক (এসআই) ফজলুর রহমান জানান, ভালো কাজের কথা বলে দালালরা তাদের সীমান্ত পথে ভারতে নিয়ে যায়। পরে অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে ভারতের মুম্বাই শহর থেকে পুলিশ তাদের আটক করে জেল হাজতে পাঠায়। সেখান থেকে একটি এনজিও সংস্থা তাদেরকে ছাড়িয়ে নিজেদের আশ্রয়ে রাখে। পরে দু’দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের দেওয়া বিশেষ ট্রাভেল পারমিটে তারা দেশে ফেরত আসে।
পুলিশের কাছ থেকে জাস্টিস এন্ড কেয়ার নামে একটি এনজিও সংস্থা তাদেরকে গ্রহন করেছে পরিবারের কাছে পৌছে দেওয়ার জন্য।
ঢাকা আহসনিয়া মিশনের স্থানীয় কর্মর্কতা ফাতেমা খাতুন জানান, এরা তাদের শেল্টার হোমের থাকবে। কয়েক দিনের মধ্যে তাদেরকে পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে। এসময় কেউ যদি পাচারকারীদের সনাক্ত করে মামলা করতে চায় আইনি সহয়তা করা হবে।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২মার্চঃ   সিলেটের শিববাড়ির আতিয়া মহলে শেষ হয়েছে সেনাবাহিনীর অভিযান।মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’-এর সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। একই সঙ্গে আতিয়া মহল হস্তান্তর করা হয়েছে পুলিশের কাছে।

২৮ মার্চ মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় সিলেটের জালালাবাদ সেনানিবাসে আয়োজিত সংবাদ ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান সামরিক গোয়েন্দা পরিদপ্তরের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফখরুল আহসান।

এখন অভিযান শেষ হলেও ভবনটিতে আরো বিস্ফোরক থাকার সম্ভাবনা আছে বলে জানিয়েছেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফখরুল আহসান। এ কারণে ভবনটি এবং এর আশপাশের এলাকা এখনো ঝুঁকিপূর্ণ বলে জানিয়েছেন তিনি।

অভিযানের শেষ দিনেও আতিয়া মহল থেকে ১০টির মতো বোমা ধ্বংস করা হয়েছে। যেহেতু এখন ভবনটির দায়িত্ব পুলিশের, এ কারণে এখন থেকে ভবনটিতে বোমা থাকলে তা উদ্ধার করা এবং নিষ্ক্রিয় করার দায়িত্ব পুলিশের বলে জানিয়েছেন তিনি।

অভিযানের ব্যাপারে ফখরুল আহসান বলেন- “অপারেশনের প্রথম পর্বটি ছিল সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ।” তিনি জানান- গত ২৫ মার্চ দুপুর ১টার মধ্যে ভবন থেকে ৩০ জন পুরুষ, ২৭ জন নারী ও ২১ জন শিশুসহ মোট ৭৮ জনকে নিরাপদে উদ্ধার করা হয়। তিনি বলেন- “নিচতলার উদ্ধার অভিযান ছিল সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ। কমান্ডো সদস্যরা অত্যন্ত সাহসিকতার সঙ্গে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অভিনব পন্থা অবলম্বন করে সব বাসিন্দাকে নিরাপদে সরিয়ে আনে।”

ফখরুল আহসান আরো বলেন- ‘এরপর অভিযান দল তাদের দ্বিতীয় পর্বের তথা জঙ্গিদের নির্মূলের কার্যক্রম শুরু করে। এ পর্বে সেনাবহিনীর কমান্ডোদের পাশাপাশি স্লাইপার দল এপিসিসহ বিশেষায়িত অনেক সদস্য নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করেন। তিন দিন একটানা বিভিন্ন কৌশল প্রয়োগের মাধ্যমে সোমবার বিকেলের মধ্যে চারজন জঙ্গিকে নির্মূল করা হয়। মূলত গতকালই (সোমবার) অভিযান শেষ হয়।

তবে আরো বিশদ তল্লাশি ও নিশ্চিত হওয়ার জন্য মঙ্গলবার দিনটি ব্যবহার করা হয়। সোমবার দুটি মৃতদেহ বের করে পুলিশ প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর করা হয়। বাকি যে দুটি মৃতদেহ ছিল সেগুলো সুইসাইডাল ভেস্টসহ থাকায় অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় ছিল।

নিরাপত্তা বিবেচনায় এবং পুলিশ প্রশাসনের পরামর্শে ঘটনাস্থলেই এগুলোর বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। বিস্ফোরণের আগে প্রয়োজনীয় ছবি ও ভিডিও সংগ্রহ করা হয়। সব কার্যক্রম শেষে গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে ভবনটি ক্রাইমসিন হিসেবে পুলিশ প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর করা হয়।’

অভিযান পরিচালনায় পুলিশ, র‌্যাব, সোয়াট, ফায়ার সার্ভিস, বিভিন্ন সেবা প্রদানকারী সংস্থাসহ স্থানীয় বাসিন্দাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফখরুল আহসান।
এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন র‌্যাব ৯-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আলী হায়দার আজাদ আহমেদ, আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল রাশেদুল হাসান ও সিলেট মহানগর পুলিশের কমিশনার গোলাম কিবরিয়া।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc