Sunday 25th of October 2020 12:12:20 AM

হৃদয় দাশ শুভ: বিয়ের কেনাকাটা শেষ। সামনে বিয়ের অনুষ্ঠান।বাবার চিকিৎসা করাতে গিয়ে আর ঘরে ফিরলেন না মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল থানার সদর ইউনিয়নের  উত্তর ভাড়াউড়া এলাকার বাসিন্দা সামিনা নুর নীলা।একই দুর্ঘটনায় তার মাতা ও নিহত হয়েছেন।
বুধবার দুপুরে ঘাতক বাস নীলার জীবন কেড়ে নিয়েছে। বুধবার দুপুরে বাবার চিকিৎসার কাজ সেরে ঢাকা থেকে নিজ বাড়ীতে ফিরার কথা ছিল নীলার পুরো পরিবারের।কিন্তু ঢাকা থেকে ফেরার পথে ব্রাহ্মনবাড়িয়ার সরাইলে এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যায় নীলা৷একই ঘটনায় বাসে থাকা তার মা রুবিনা নুর ও ঘটনাস্থলেই মারা যান,আহত হন নীলার বাবা আলফু মিয়া (৬৫) ও ভাই আসিফ (২০)  সহ ২০ জনের অধিক যাত্রী ৷
এদিকে দুর্ঘটনার খবরে নীলার স্বজনদের মাঝে চলছে শোকের মাতম।এলাকায় স্তব্দতা নেমে এসেছে মানুষের মাঝে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুপুরে বি-বাড়িয়া জেলার সরাইল উপজেলার রামপুরা নামক স্থানে দ্রুত গতিতে চলা এনা পরিবহনের একটি বাস নিয়ন্ত্রন হারিয়ে রাস্তার পার্শ্ববর্তী একটি খাদে পড়ে পানিতে ঢুবে যায় বাসের অধিকাংশ।এতে ঘটনাস্থলেই নীলা ও তার মা’সহ আরেক যাত্রী মারা যান ৷
পরে স্থানীয়রা নীলা ও তার মা’য়ের লাশ উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাদেরকে মৃত ঘোষনা করেন৷
স্থানীয় এক প্রতিবেশী মোনায়েম আহমদ শাদী আমার সিলেট প্রতিনিধিকে জানান,আগামী মাসের ১২ তারিখে নীলার বিয়ের দিন তারিখ ঠিক ছিল রাজধানী ঢাকার উত্তরার এক পরিবারের ছেলের সাথে।তিনি আরও জানান নিহতদের জানাজার সময় এখনো নির্ধারন করা সম্ভব হয়নি কারণ নিহতদের পরিবারের বড় মেয়ে  ভারতে চিকিৎসার জন্যে গিয়েছিলেন তিনি ফিরে এলেই জানাজা ও দাফনের কাজ সম্পন্ন হবে।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৭মার্চ,মতিউর রহমান মুন্না,নবীগঞ্জ থেকে: কলেজ থেকে বাড়ি ফেরার পথে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় বাস ও সিএনজি অটোরিক্সার মুখোমুখি সংঘর্ষে মাহফুজ (১৯) নামে এক কলেজছাত্র নিহত হয়েছেন। সোমবার  বিকেল সাড়ে ৩ টায় উপজেলার বড়গাঁও এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত মাহফুজ উপজেলার খাগাউড়া নোয়াগাঁও  গ্রামের মহিবুর মিয়ার ছেলে ও স্থানীয় রাগিব রাবেয়া হাই স্কুল এন্ড কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র। মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনায় যেন মুহুর্তেই স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হলো একটি পরিবারের।
এদিকে ঘটনার পর থেকে প্রায় আড়াই ঘন্টা সময় মহাসড়ক অবরোধ করে মিছিল করছে উত্তেজিত জনতা। ফলে দুদিকে যান চলাচল বন্ধ ছিল।
স্থানীয়রা জানান, মাহফুজ কলেজ থেকে ক্লাস শেষে ঢাকা সিলেট মহাসড়ক হয়ে বাড়ি যাওয়ার জন্য (হবিগঞ্জ-থ ১১-৩১৪৬) নম্বারের (মহা সড়কে নিষিদ্ধ) সিএনজি অটোরিক্সা যোগে রওনা হন। পথিমধ্যে বড়গাঁও এলাকায় যাওয়া মাত্র হবিগঞ্জ-সিলেট এক্সপ্রেস পরিবহনের একটি বাসের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ বাধে। এতে মাহফুজ (১৯) ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। অন্যান্য যাত্রীদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এসময় স্থানীয় উত্তেজিত জনতা বিক্ষোভ মিছিল করে মহা সড়ক অবরোধ করে রাখেন। পরে পুলিশ ও নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গের হস্তক্ষেপে প্রায় আড়াই ঘন্টা পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে যান চলাচল ফের শুরু হয়।  মহাসড়কে সিএনজি অটোরিক্সা চলাচলে সরকার কঠোর থাকলেও মহাসড়কের নবীগঞ্জ এলাকায় কিভাবে সিএনজি অটোরিক্সা চলাচল করে এনিয়ে জনমনে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। হাইওয়ে পুলিশের ভূমিকা নিয়েও নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে।
সচেতন লোকজনের ভাষ্যমতে, মহাসড়কে  সিএনজি অটোরিক্সা বন্ধ থাকলে এ ঘটনাটি ঘটতোনা। অকালেই ঝড়ে যেতনা একটি তাজা প্রাণ। এভাবেই কলেজ ছাত্রকে হারাতো না তার মা বাবা। সব শেষ হয়ে গেল একটি দুর্ঘটনায়। মুহুর্তেই স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হলো একটি পরিবারের।
গোপলার বাজার তদন্ত কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশরাফ উদ্দিন জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে এবং পরিস্থিতি স্বাভাবিক করেছে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc