Monday 26th of October 2020 06:35:55 PM

ডেস্ক নিউজঃ সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে।আজ বুধবার (১২ সেপ্টেম্বর) ১০ টা ৫৪ মিনিটে এই ভূমিকম্প অনুভূত হয়। প্রায় ১ মিনিট ব্যাপী ভূকম্পন অনুভূত হয়। এতে সিলেটসহ দেশের রাজধানী ঢাকা,চট্রগ্রাম, খুলনা, রাজশাহী, চাঁদপুর, নারায়ণগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ,বি-বাড়ীয়াসহ ফেনীতে একযোগে এই ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। সুত্র মতে,রিখটার স্কেলে ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৫ দশমিক ৪। উৎপত্তিস্থল ভারতের আসামে।

তাৎক্ষণিকভাবে কোনো ক্ষয়-ক্ষতির খবরাখবর এখনো পাওয়া যায়নি। তবে বিভিন্ন স্থানে অনেকেই ভূমিকম্পন অনুভব করে অনেকেই ভয়ে আতঙ্কে ভবন ছেড়ে বাইরে বের হয়ে আসেন।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জের জেলার দক্ষিন সুনামগঞ্জ ১শিশু ও ধর্মপাশা উপজেলায় দুই শিশুসহ তিন শিশু নিহত হয়েছে। নিহতরা হলেন,জেলার ধর্মপাশা উপজেলার সেলবরষ ইউনিয়নের উত্তরবীর গ্রামের বাপ্পী মিয়ার ছেলে মোদাক্কির (৩) ও একেই গ্রামের আরিফ মিয়ার মেয়ে মোস্তাহার বেগম (২)। আপর জন হলেন,দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নের ইনাতনগর গ্রামের করন আলীর ছেলে মোহাম্দ লিলু মিয়া (১০)।

স্থানীয় সুত্রে জানাযায়,জেলার ধর্মপাশা উপজেলার সেলবরষ ইউনিয়নের উত্তর বীর গ্রামের বাপ্পী মিয়ার ছেলে মোদাক্কির (৩) ও একেই গ্রামের আরিফ মিয়ার মেয়ে মোস্তাহার বেগম (২) বিকালে বাড়ির উঠানে ফুট বল দিয়ে খেলা করছিল।

খেলার এক ফাঁকে বাড়ির পাশে ডোবায় পড়ে যায়। উঠানে দুইজন কে দেখতে না পেয়ে পরিবারের লোকজন খোঁজ খোঁজি শুরু করলে একপ্রর্যায়ে বাড়ির পাশের ডোবায় ১ঘন্টা খানেক পরে ডোবা থেকে লাশ উদ্ধার করে ধর্মপাশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তারগন তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

অপর দিকে,জেলার দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নের ইনাতনগর গ্রামের করন আলীর ছেলে মোহাম্মদ লিলু মিয়া(১০)সহ কয়েকজন ইনাতনগর এলাকায় বিকালে সুনামগঞ্জ-সিলেট সড়ক পাড়ি দিতে রাস্তার পাশে দাড়িয়ে থাকে। এসময় হঠ্যাৎ করে সুনামগঞ্জ থেকে সিলেটগামী একটি বাস এসে লিলু মিয়াকে ধাক্ষা মারে এতে ঘটনাস্থলেই মারা যায়।

এই সময় আতিকুর রহমানসহ ৫জন আহত হয়। স্থানীয় জনতা তাদের উদ্ধার করে। ঘটনার পরপর ঘাতক বাস চালক বাস রেখে পালিয়ে যায়। পৃথক দুটি ঘটনার ধর্মপাশা থানার ওসি ও দক্ষিন সুনামগঞ্জ থানার ওসি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৪জুন,নড়াইল প্রতিনিধিঃ    গ্রীন নড়াইল ক্লিন নড়াইল গড়ার লক্ষ্যে নড়াইল শহরের বিভিন্ন স্থানে ডাষ্টবিন স্থাপন কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার শহরের চৌরাস্তা এলাকায় জেলা প্রশাসন, নড়াইল পৌরসভা ও নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের আয়োজনে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক মোঃ এমদাদুল হক চৌধুরী।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন, প্যানেল পৌর মেয়র মোঃ রেজাউল বিশ্বাস, পৌর কাউন্সিলর কাজী জহিরুল হক,নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের সাধারন সম্পাদক তরিকুল ইসলাম অনিক, নড়াইল প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক মীর্জা নজরুল ইসলাম,নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তাবৃন্দ,সরকারি কর্মকর্তা,রাজনীতিবিদ, আইনজীবি, সুশীল সমাজের প্রতিনিধিসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
নড়াইল ও লোহাগড়া শহরের বিভিন্ন স্থানে ডাষ্টবিন স্থাপনের লক্ষে মোট ৯ লক্ষ টাকা ব্যায়ে ১২০টি ডাষ্টবিন নির্মান করা হয়েছে ।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০১মে,বিক্রমজিত বর্ধন:    মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জে বজ্রপাতের ঘটনায় সোমবার (৩০ এপ্রিল) ২ জন নিহত ও ৪ জন আহত হয়েছেন। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে একজন প্রবাসী ও একজন চা শ্রমিক রয়েছেন।
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় বজ্রপাতে তমিজ উদ্দিন (৩৫) নামের একজন প্রবাসী নিহত হয়েছেন। তিনি মাঠে গরু চরাতে গিয়েছিলেন। এসময় তার সঙ্গে থাকা ৩টি গরুও ঘটনাস্থলে মারা যায়।
শ্রীমঙ্গলে বজ্রপাতের আরেক ঘটনায় অজয় গোয়ালা (২০) নামের একজন চা শ্রমিক নিহত হয়েছে। এতে আহত হয়েছেন আরও চারজন। দুপুরে ভারী বর্ষণের সময় উপজেলার কালীঘাট ইউনিয়নের লাখাইছড়া চা বাগানে এই ঘটনা ঘটে।
পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে অজয় মারা যান। নিহত অজয় লাখাইছড়া চা বাগানের বাসিন্দা চা শ্রমিক দিপক গোয়ালার ছেলে। এই ঘটনায় আহতরা হলেন একই এলাকার রাখাল সবর (৩২), জীতেন সবর (৩০), কিশোর গোয়ালা (২৫) ও রিপন ভূইয়া (২০)।
শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক আব্দুস সুবহান নিহতের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আহতের চিকিৎসা চলছে এবং মৃত ব্যাক্তির লাশ মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে রয়েছে।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১১এপ্রিল,সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ  সুনামগঞ্জের দুটি উপজেলায় বজ্রপাতের ঘটনায় দু-জন নিহত হয়েছে। তারা হলেন,জেলার দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলার পূর্ব পাগলা ইউনিয়নের ডিগারকান্দি গ্রামের মৃত মনাফ আলীর ছেলে মোহাম্মদ জালু মিয়া (৪৫) ও জগন্নাথপুর উপজেলার শ্রীরামসি আব্দুল্লাহপুর গ্রামের আদরিছ মিয়ার ছেলে সুহেল মিয়া(২৩)। স্থানীয় সুত্রে জানাযায়,দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলার বুধবার সকালে কাচিঁর ভাঙ্গা হাওরের পাকা ধান কাটাতে যায় জালু মিয়া। বেলা ১২টার দিকে প্রচন্ড ঝড় ও সাথে সাথে বজ্রপাত শুরু হয়।

এসময় হঠ্যাৎ বজ্রপাত জালু মিয়া গায়ে পড়ে গুরুত্বর আহত হয়। সাথে সাথে তার সাথে থাকা লোকজন থাকে উদ্ধার করে ২০শয্যা কৈতক হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে দুপুর ২টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যায়। কৈতক হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার মোহাম্মদ সাইদুর রহমান এঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন,বজ্রপাতে ঐ কৃষকের শরীরের অধিকাংশ পুড়ে যাওয়ায় তার মৃত্যু হযেছে।

অপরদিকে,জেলার জগন্নাথপুর উপজেলার শ্রীরামসি আব্দুল্লাহপুর গ্রামের আদরিছ মিয়ার ছেলে সুহেল মিয়া (২৩) নিজ বাড়ির আঙ্গিনায় বেলা ১২টার সময় দাড়িয়ে ছিলেন। এসময় সময় বজ্রপাতের আঘাতে তিনি গুরুত্বর আহত হলে পরিবারের লোকজন তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তবরত চিকিৎসকগন তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

জগন্নাথপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইতিয়ার উদ্দিন ও দক্ষিন সুনামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা (ওসি) হারুনর রশিদ বজ্রপাতে নিহতের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষায় আবারও আওয়ামীলীগকে ক্ষমতায় বসাতে হবেঃউপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ এমপি

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৫জানুয়ারী,কমলগঞ্জ প্রতিনিধিঃ জাতীয় সংসদের সাবেক চিফ হুইপ, বীর মুক্তিযোদ্ধা উপাধ্যক্ষ মো: আব্দুস শহীদ এমপি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে চলছে। সর্বক্ষেত্রে এই সরকার সফলতার স্বাক্ষর রাখছে। উন্নয়নের এই ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে আগামী নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে আওয়ামীলীগকে ক্ষমতায় বসাতে হবে। এজন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। তিনি সোমবার দিনভর মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার রহিমপুর, পতনঊষার ও মুন্সীবাজার ইউনিয়নে দু:স্থদেও মাঝে কম্বল ও ভিজিএফ এর চাল বিতরণ এবং মইদাইল, ধাতাইল গাও, সুরানন্দপুর, বাসুদেবপুর, করিমপুর ও উবাহাটা গ্রামের শব্দকর সমাজের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে প্রাপ্ত কম্বল বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথাগুলো বলেন।

এ সময় কমলগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি এম, মোসাদ্দেক আহমেদ মানিক, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান, রহিমপুর ইউপি চেয়ারম্যান ইফতেখার আহমেদ বদরুল, পতনঊষার ইউপি চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার তওফিক আহমদ বাবু, মুন্সীবাজার ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মোতালিব তরফদার, উপজেলা বিআরডিবি চেয়ারম্যান ইমতিয়াজ আহমেদ বুলবুলসহ স্থানীয় আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে রহিমপুর ইউনিয়নে ৩৫০ জন অসহায়, গরীব ও দু:স্থ লোকের মাঝে শীতবস্ত্র ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ১২০ জন চাষীদের মাঝে চাল ও নগদ অর্থ, পতনউষার ইউনিয়নে ৩০০ জন দরিদ্র লোকের মাঝে শীতবস্ত্র ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ১৪০ ব্যুরো চাষীদের মাঝে নগদ অর্থ ও খাদ্য সহায়তা এবং মুন্সীবাজার ইউনিয়নে ৩০০ জন দরিদ্র লোকের মাঝে শীতবস্ত্র ও ১৪০ দু:স্থ পরিবারকে ভিজিডি’র চাল বিতরণ করা হয়।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৬নভেম্বর,হবিগঞ্জঃ   জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ ইউনেস্কো কর্তৃক বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্যের স্বীকৃতি লাভ করায় সারা দেশের ন্যায় হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে আনন্দ ও শোভাযাত্রা সহ নানা অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে পালিত হয়েছে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ ইউনেস্কোর “মেমোরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল” রেজিস্ট্রারে অন্তর্ভুক্তির মাধ্যমে “বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্যের” স্বীকৃতি লাভ করায় সারাদেশে ন্যায় হবিগঞ্জে বিশাল শোভাযাত্রা বের করা হয়েছে।
শনিবার (২৫ নভেম্বর) সকাল ১০টায় নিমতলা কালেক্টরেট প্রাঙ্গণ থেকে বিশাল শোভাযাত্রা বের করা হয়। শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ হয়ে নিম তলায় এসে শেষ হয়।
হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে স্মরণকালের বৃহৎ (সোয়া দুই কিলোমিটার) র্যালীতে নারী সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী, জেলা প্রশাসক মনীষ চাকমা, পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরা, স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক সফিউল আলম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ফজলুল জাহিদ পাবেল, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আসম শামসুর রহমান ভূঁইয়া, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট তারেক মোঃ জাকারিয়া, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কুদ্দুছ আলী সরকার, সাবেক পৌর চেয়ারম্যান শহীদ উদ্দিন চৌধুরী, নবীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আলমগীর চৌধুরী, সাবেক জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী পাঠান, হবিগঞ্জ প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি চৌধুরী মোহাম্মদ ফরিয়াদ, জেলা আইনজীবি সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমান তালুকদার, জেলা ্আনসার বিডিপি’র কমান্ডার মোঃ সাইফুল্লাহ রাসেল পিএএম, জেলা আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক অনুপ কুমার দেব মনা, অ্যাডভোকেট আবল ফজল, অ্যাডভোকেট নিলান্দ্রী শেখর টিটু, জেলা পরিষদ প্যানেল চেয়ারম্যান নুরুল আমিন ওসমান, জেলা পরিষদের সদস্য অ্যাডভোকেট সুলতান মাহমুদ, হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শাহ ফখরুজ্জামান,জনকন্ঠের জেলা প্রতিনিধি রফিকুল হাসান চৌধুরী তুহিন, সিবিএ নেতা শাহ জয়নাল আবেদীন রাসেল, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের আহ্বায়ক গউছ উদ্দিন চৌধুরী, সদস্য সচিব পংকজ কান্তি দাশসহ প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, বীরমুক্তিযোদ্ধা, সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, সুশীল সমাজ, বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ অংশগ্রন করেন।
এর আগে প্রশাসনের পক্ষ থেকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয়। র্যালী শেষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
এর আগে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকালে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।
এছাড়া বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের উপর ৩টি গ্রুপে রচনা ও কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। সন্ধ্যায় জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে সাংকৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে।

(মাধবপুর)

এ উপলক্ষ্যে শনিবার (২৫ নভেম্বর) সকালে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়।
শোভাযাত্রার মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, আওয়ামীলীগ ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক শিক্ষার্থী সহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার কয়েক শতাধিক লোক অংশ গ্রহণ করেন।
এতে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মোকলেছুর রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি শাহ মোঃ মুসলিম, সাধারণ সম্পাদক চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান, সহ-সভাপতি কামেশ রঞ্জন কর, যুগ্ম সম্পাদক তাজুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার নুরুল ইসলাম, ডেপুটি কমান্ডার আব্দুল মালেক, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান শ্রীদাম দাশগুপ্ত, মুক্তিযোদ্ধা সুকোমল রায়, দুর্নীতি দমন কমিটির সভাপতি জীবনকৃষ্ণ বণিক, চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান, চেয়ারম্যান আপন মিয়া, চেয়ারম্যান ফারুক পাঠান, শিক্ষক মুছা মিয়া, যুবলীগ নেতা সাব্বির হাসান প্রমুখ।

( চুনারুঘাট )

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ ডকুমেন্টারী হেরিটেজ হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ায় চুনারুঘাটে স্মরণকালের আনন্দ র্যালী অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শনিবার সকাল থেকেইে বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে নানা সংগঠন খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে লোকজন শহরে আসতে থাকে। সকাল ১০টার পুর্বেই পুরো শহর যেন লোকে লোকারন্য হয়ে পড়ে।
সকাল ১০টায় হাতি ঘোড়া, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ও বাংলার কৃষকের নানা আয়োজনে র্যালীটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন করে স্থানীয় শহীদ মিনারে এসে মিলিত হয়।
এতে নেতৃত্ব দেন সংসদ সদস্য এডভোকেট মাহবুব আলী, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আবু তাহের ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাইজার মোহাম্মদ ফারাবী।
আনন্দ র্যালীতে উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা আওয়ামীলীগ, বিভিন্ন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ, মুক্তিযোদ্ধা, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন অংশ নেয়।
এর পুর্বে স্থানীয় শহীদ মিনারে উপজেলা প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা, আওয়ামীলীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দেয়।
আমাদের নবীগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ ইউনেস্কোর মেমোরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টার-এ অন্তর্ভূক্তির মাধ্যমে বিশ্বপ্রামান্য ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করায় দিবসটি উদযাপনের লক্ষ্যে নবীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বিশাল আনন্দ শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শনিবার সকালে উপজেলা পরিষদের সামন থেকে বিশাল এই বন্যার্ঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে শহর প্রদক্ষিণ করে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাজিনা সারোয়ারের সভাপতিত্বে শোভাযাত্রায় অংশ নেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য মুনিম চৌধুরী বাবু, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট আলমগীর চৌধুরী, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আতাউল গনি ওসমানী, মুক্তযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক আব্দুর রউপ, থানার অফিসার ইনচার্জ এস এম আতাউর রহমান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার নূর উদ্দিন বীর (প্রতিক), উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প কর্মকর্তা ডাঃ জাহাঙ্গীর আলম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ইমদাদুর রহমান মুকুল, সাধারন সম্পাদক সাইফুল জাহান চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক ওবায়দুল কাদের হেলাল, সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক আহমেদ মিলু, জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুল মালিক,
পৌরসভার প্যানেল মেয়র-১ এটিএম সালাম, উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি নারায়ন রায়, সাধারন সম্পাদক উত্তম কুমার পাল হিমেল, ইউপি চেয়ারম্যান আলী আহমেদ মুছা, নজরুল ইসলাম, আশিক মিয়া, বজলুর রশীদ, মুহিবুর রহমান হারুন, ছাইম উদ্দিন, সত্যজিত দাশ, যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক লোকমান আহমেদ খাঁন, খয়রুল ইসলাম চৌধুরী, রাব্বি আহমেদ চৌধুরী মাক্কু, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক নির্মেলেন্দু দাশ রানা, সাংগঠনিক সম্পাদক ওহি দেওয়ান চৌধুরী, , আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ আব্দুস সামাদ, ডাঃ চম্পক কিশোর শাহা, মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি দিলারা হোসেন, নিলূফা ইসলাম, দুলাল চৌধুরী, কাউন্সিল আলাউদ্দিন, বাবুল দাশ, আব্দুস সালাম, জাকির হোসেন, ফারজানা আক্তার পারুল, সৈয়দা নাছিমা, রোকেয়া বেগম, স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি আমিনুর রহমান চৌধুরী সুমন,প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি সরওয়ার শিকদার, সাধারন সম্পাদক সলিল বরণ দাশ, শিক্ষক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক রুবেল মিয়া, শিক্ষক কাঞ্চন বনিক, দৈনিক বিবিয়ানার বার্তা সম্পাদক মতিউর রহমান মুন্না, জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি খূর্শেদুল আম মফিজ, গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী সাহেল, আবুল হোসেন, মহিনুর রহমান ওহি প্রমুখ।
এ দিনটি উদযাপনের লক্ষে সকালে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়, জাতির পিতা ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের জন্য দোয়া করা হয়, পরে উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও মুক্তিযুদ্ধভভিত্তিক চলচ্চিত্র (ওরা ১১ জন) প্রদর্শন করা হয়। শেষে গত শুক্রবার অনুষ্ঠিত চিত্রাঙ্গন প্রতিযোগীতায় বিজয়ীদের হাতে পুরুস্কার তুনে দেন অথিতিবৃন্দ। শোভাযাত্রায় ১৩ ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে পৃথক ব্যানার নিয়ে এবং পৌরসভার প্যানেল মেয়রের নেতৃত্বে পৌর পরিষদের ব্যানার নিয়ে অংশ নেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি মুনিম চৌধুরী বাবু বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ আজ আর্ন্তজাতিকভাবে স্বীকৃতি লাভ করায় রাজাকার আলবদরা ইর্ষান্বিত হয়ে মুখ চুলকাচ্ছে। তাই এেদর পরিহার করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গড়তে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহবান।

( বাহুবল )

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ ইউনেস্কোর “মেমোরি অব দ্য ওয়াল্ড” ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টার-এ অন্তর্ভূক্তির মাধ্যমে বিশ্বপ্রামান্য ঐতিহ্যের স্বীকৃতি লাভ করায় সারা দেশের ন্যায় বাহুবল উপজেলা প্রশাসন আনন্দ শোভাযাত্রাসহ দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালা পালন করে।
শনিবার সকালে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের অংশগ্রহণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, আনন্দ শোভাযাত্রা, বঙ্গবন্ধুর উপর নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শণী, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও কাবাডি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।
দিনব্যাপী উক্ত আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আব্দুল হাই, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জসীম উদ্দিন, সহকারি কমিশনার (ভূমি) রফিকুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুন নূর মানিক, সহ-সভাপতি শাহ আহমেদ আওলাদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান চৌধুরী টেনু, সাইফুদ্দিন লিয়াকত, শামছুদ্দিন তারা মিয়া ও ফেরদৌস আলম, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ডা. আবুল হোসেন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের আহ্বায়ক মোঃ শামীম আহমেদ, যুগ্ম আহ্বায়ক শামীনুর রহমান, বাহুবল মডেল প্রেস ক্লাব সভাপতি মোঃ নূরুল ইসলাম নূর, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বশির আহমেদ ও সুহেল আহমেদ কুটি, উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম জমশের, জিতু মিয়া, প্রভাষক আফতাব উদ্দিন, নারায়ন চন্দ্র পাল, মখলিছুর রহমান, এম এ মজিদ তালুকদার, সন্ত্রাস-দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মোছাব্বির শাহিন, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক অলিউর রহমান অলি, যুগ্ম আহ্বায়ক মোশাহিদ আলী, কৃষকলীগ সাধারণ সম্পাদক শেখ সুহেল আহমেদ, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. বাবুল কুমার দাশ, কৃষি অফিসার রেজাউল করিম, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আশিষ কর্মকার, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মোঃ হোসেন শাহ, সমবায় কর্মকর্তা মমতাজুর রহমান, বাহুবল কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুর রব শাহিন, আলিফ সোবহান চৌধুরী কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মাহবুবুর রহমান, ডিএনআই মডেল হাই স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক প্রনয় চন্দ্র দেব, শিক্ষক সমরেশ ভট্টাচার্য্য ও মডেল প্রেস ক্লাবের ক্রীড়া সম্পাদক ফয়সল আহমেদ চৌধুরী তাইনুছ প্রমুখ।

( বানিয়াচং )

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ উইনেস্কো কর্তৃক বিশ্ব ঐতিহ্যের স্বীকৃতি লাভ করায় হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলায় অানন্দ শোভাযাত্রা ও অালোচনা সভা অনুষ্টিত হয়েছে।
শনিবার (২৫ নভেম্বর) সকাল ১০ টার দিকে উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পনের মধ্য দিয়ে এ অানন্দ শোভাযাত্রা বের করা হয়।
শোভাযাত্রাটি উপজেলা সদরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিন করে অাবার উপজেলা পরিষদ প্রঅঙ্গনে এসে শেষ হয়। শোভাযাত্রায় বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দসহ সর্বস্থরের জনগণ উপস্থিত ছিলেন।
পরে উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গনে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ উপলক্ষে এক অালোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অালোচনা সভায় বক্তারা বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের তাৎপর্য ও গুরুত্ব তুলে ধরেন। সবশেষে প্রজেক্টরের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক চলচ্চিত্র ‘ওরা ১১ জন’ প্রদর্শন করা হয়।

(শায়েস্তাগঞ্জ)
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ ই মার্চের ভাষণকে ইউনেস্কো ‘বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য’ ঘোষণা করায় আনন্দ র্যালি করেছে শায়েস্তাগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়।
শনিবার সকাল ১০টায় হবিগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী শায়েস্তাঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে র্যালি টি নিয়ে শহরের প্রধাণ সড়ক দিয়ে রেল পার্কিং পর্যন্ত ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে।
বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের অভিভাবকদের আয়োজিত এই র্যালিতে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি অভিভাবক সদস্য সাংবাদিক সৈয়দ আখলাক উদ্দিন মনসুর, আব্দুল্লাহ আল-মামুন, শিউলি বেগম, শিক্ষক সাজ্জাত মিয়া সাজু, আলী হায়দার সেলিম, শাহরিয়া চৌধুরী ডালিম, আজিজুর রহমার লিটন, ফয়সল আহম্মেদ, মোঃ সোয়েব, দেব যানী ধর, অঞ্জনা দত্ত সহ পাঁচ শতার্ধিক ছাত্রী র্যালিতে অংশগ্রহণ করেন। র
র্যালি শুরুর আগে বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক জালাল আহাম্মেদ বলেন, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ সমর্থক এবং পরস্পরের পরিপুরক। তার আদর্শ যুগযুগ ধরে আমাদের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের চেতনাকে লালন করতে অমিত অনুপ্রেরনার অনিঃশেষ উৎস হয়ে থাকব। জাতির জন্য তাঁর অবদানে তিনি সর্বকালের সর্ব শ্রেষ্ট বাঙালি ও বাঙালি জাতির জনক। ১৯৭১ সালে ৭ই মার্চ তিনি যে ভাষণ দেন তা শুধু বাঙালি জাতিকেই নয়, বিশ্বের নিপীড়িত, মুক্তিকামী মানুষকে স্বাধীনতার পথে অনুপ্রাণিত করছে। ইউনেস্কো কর্তৃক সেই ভাষণকে বিশ্ব প্রমাণ্য ঐতিহ্যের স্বীকৃতি প্রদানের কালজয়ী গুরুত্বকেই প্রতিষ্ঠিত করেছে।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৫সেপ্টেম্বর,হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ  হবিগঞ্জের নবিগঞ্জ ও মাধবপুরের পৃথক স্থানে অজ্ঞাত মহিলাসহ এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে স্থানিয় পুলিশ।

১৪ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার রাত ৮ টায় এক মহিলার লাশ উদ্ধার করেছেন। প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে পাওয়া, জেলার নবীগঞ্জ-আউশকান্দি সড়কের ফুটারমাটি এলাকায় রাস্তার পাশে পরিত্যক্ত একটি ঘরে ভিতরে লাশটি দেখতে পায় স্হানীয় লোকজন।

স্হানীয়দের ধারণা অজ্ঞাত এই মহিলাটিমানসিক ভারসাম্যহীন হবে। সারাদিন বিভিন্ন স্থানে ঘুরাঘুরি করে এই পরিত্যক্ত ঘরে ঘুমাতে আসে। তখন তাকে শিয়াল নতুবা কুকুরে কামড়ায়। তার শরীরে কামড়ের দাগ রয়েছে। স্হানীয় লোকজন নবীগঞ্জ থানা পুলিশ কে খবর দেয়। পুলিশ এসে অজ্ঞাত এই মহিলার লাশ উদ্ধার করেছেন। এব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ ইকবাল আহমেদ সত্যতা স্বিকার করে জানিয়েছেন, অজ্ঞাত এই মহিলার লাশ উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

অপরদিকে হবিগঞ্জের মাধবপুরে কামরুল ইসলাম সোহাগ (৩০) নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে ।
বৃহস্পতিবার রাত ১০টায় তার লাশ উদ্ধার করা হয়।সে উপজেলার ইটাখোলা গ্রামের মৃত মাসুক মিয়ার ছেলে।
জানা যায়, উপজেলার নয়াপাড়া ইউনিয়নের ইটাখোলা গ্রামের মৃত মাসুক মিয়ার ছেলে সোহাগ বাড়ি থেকে বের হলে রাত ১০টার দিকে মাদারগড়া রেল লাইনের অদূরে স্থানীয় লোকজন তাকে পড়ে থাকতে দেখে উদ্ধার করেন। মাথায় ও পায়ে আঘাত প্রাপ্ত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোকতাদির হোসেন (পিপিএম) সত্যতা স্বিকার করে জানিয়েছেন, মরদেহের মাথায় একটি আঘাত রয়েছে। তবে ময়না তদন্তের রিপোর্ট ছাড়া নির্দিষ্ট করে কিছু বলা যাচ্ছে না।

 

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৫জুন,হাবিবুর রহমান খান,স্টাফ রিপোর্টার।রাত পোয়ালেই ঈদুল ফিতর,দুয়ারে এসে দাঁড়িয়েছে পবিত্র ঈদুল ফিতর। ঘরে ঘরে বইছে আনন্দের কলরব।
এবারের পবিত্র ঈদুল ফিতরে সিলেট জেলা ও মহানগরী মিলিয়ে ১৩০৯টি স্থানে হবে ঈদের জামাত। তন্মধ্যে প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে সিলেট নগরীর শাহী ঈদগাহে। ঈদের দিন সকাল ৯টায় এ জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

পুলিশের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে, এবার সিলেট মহানগরীর ২৪৪টি ঈদগাহ ও মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া সিলেট জেলার ১২টি উপজেলার ৬৮৭টি মসজিদ ও ৩৭৮টি ঈদগাহ মিলিয়ে ১০৬৫টি স্থানে হবে ঈদের জামাত।
এসব ঈদ জামাতে সিলেট জেলা ও মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে।

জানা যায়, সিলেট মহানগরীতে পবিত্র ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাত ঐতিহাসিক শাহী ঈদগাহ ময়দানে অনুষ্ঠিত হবে। ঈদের দিন সকাল ৯টায় এখানে প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এ জামাতে ইমামতি করবেন নগরীর বন্দর বাজার জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা কামাল উদ্দিন আহমদ।
ঈদের নামাজের জন্য ঐতিহাসিক শাহী ঈদগাহ সম্পূর্ণভাবে প্রস্তুত রয়েছে বলে জানিয়েছেন সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। শনিবার ঈদগাহ ময়দান পরিদর্শন শেষে তিনি এমন তথ্য জানান।

এদিকে ঈদের দিন সকাল ৯টায় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে হযরত শাহজালাল (রহ.) ও হযরত শাহরপান (রহ.) এর দরগাহ মসজিদে। এছাড়া সকাল সাড়ে ৮টায় আলীয়া মাদরাসা মাঠ ও টিলাগড়স্থ শাহ মদনী শাহী ঈদগাহে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে। দক্ষিণ সুরমার খোজারখলা মার্কাজ মসজিদে সকাল সাড়ে ৮টায় হবে প্রধান জামায়াত।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,৩০এপ্রিল,হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ মারাত্বক ঝুকিঁর মধ্যে রয়েছে পুরাতন ঢাকা সিলেট মহাসড়কের ২০ কিলোমিটার অংশ। সড়কের চুনারুঘাট থেকে সাতছড়ি হয়ে সুরমা পর্যন্ত কমপক্ষে ১৫টি স্থানে মারাত্বক ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। সম্প্রতি অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলের কারণে এসব ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়েছে। পুনরায় বৃষ্টি হলেই সড়কটিতে যে কোন সময় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এতে চুনারুঘাটের সাথে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যাবে মাধবপুর উপজেলার। এদিকে হবিগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগ উক্ত সড়কের ভাঙ্গনগুলো বল্লী ও বালিভর্ত্তি বস্তা দিয়ে সড়কটির বিভিন্ন অংশে মেরামতের মাধ্যমে রক্ষার চেষ্ঠা করছে।
শুক্রবার সরজমিনে দেখা যায়, পুরাতন ঢাকা সিলেট মহাসড়কের চুনারুঘাট থেকে সাতছড়ি হয়ে সুরমা পর্যন্ত সড়কের বিভিন্ন স্থানে অসংখ্য ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। কোন কোন স্থানে ভাঙ্গনগুলো বড় আকার ধারন করায় যান চলাচল সীমিত করা হয়েছে। হবিগঞ্জ সড়ক বিভাগ লাল পতাকা দিয়ে সাবধানে চলাচলে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। বিশেষ করে চন্ডিছড়া চা বাগান থেকে সাতছড়ি পর্যন্ত কমপক্ষে ১২টি স্থানে মারাত্বক ভাঙ্গন রয়েছে। এসব স্থানে সড়কের পাশে চা বাগান ও পাহাড়ী ছড়া ভেঙ্গে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হযেছে। পাহাড়ী ঢলের পানি এসে সড়কের প্রায় এক তৃতীয়াংশ নিচের থেকে বালি ও মাটি সরে গেছে। সড়কের রামগঙ্গা ছড়ার পানিতে অর্ধেক সড়ক ভেঙ্গে গেছে। কোন কোন স্থানে সওজের তৈরী দেয়াল ভেঙ্গে নিয়ে গেছে পাহাড়ী ঢল। গত সপ্তাহে অতিবৃষ্টির সময় রামগঙ্গা ও চন্ডিছড়ার মাঝে একটি ব্রীজ ভেঙ্গে সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।
খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক সড়ক বিভাগ কোন রকম জোড়াতালি দিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করে। পুনরায় বৃষ্টি হলেই পাহাড়ী ঢলের পানিতে এ ব্রীজের দুপাশে ভেঙ্গে যান চলাচল বন্ধ হতে যেতে পারে। একই ভাবে রামগঙ্গা থেকে সাতছড়ি পর্যন্ত আরো অসংখ্য স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। কোন কোন গর্ত ২০ থেকে ৩০ ফুট পর্যন্ত গভীর ও প্রসস্ত হয়েছে। ব্রীজের পাশে বালি ও মাটি সরে যাওয়ায় এ সড়কে গত দু বছরে তৈরী আরো ৫টি ব্রীজ হুমকির মধ্যে রয়েছে। পাহাড়ী ও চা বাগান এলাকায় তৈরী এসব ব্রীজের পাশে গত এক মাসের অতিবৃষ্টিতে মাটি সরে গিয়ে বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে মারাত্বক হুমকির মধ্যে রয়েছে এসব ব্রীজও। শনিবার সরজমিনে দেখা যায়, হবিগঞ্জ সড়ক ও জনপথের অর্থায়নে বস্তাভর্ত্তি বালি ও বল্লী দিয়ে ভাঙ্গা মেরামতের কাজ করছে ১০/১২ জন।
শ্রমিকরা জানায়, হবিগঞ্জ সওজ’র ঠিকাদার তাদের দিয়ে এ কাজ করাচ্ছে। রাস্তাটি টিকিয়ে রাখতে তারা প্রাণপন চেষ্ঠা করছেন। ইতোমধ্যে তারা দুটি স্থানে মেরামত করেছেন বলেও জানান। আরো কমপক্ষে ৭/৮টি স্থানে তারা মেরামতের কাজ করবেন বলে জানান। তবে কাজের সময় কোন ঠিকাদারকে পাওয়া যায়নি।
চন্ডিছড়া চা বাগানের সাবেক ইউপি সদস্য বিকাশ তাতী জানান, গত এক মাসের অতিবৃষ্টির কারণে পাহাড়ী ঢলে সড়কের ব্রীজগুলোর পাশের মটি ও বালি সরে গেছে। কোন কোন স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্ঠি হয়েছে। ফলে সড়ক এবং ব্রীজগুলো হুমকির মধ্যে রয়েছে।
তিনি জানান, আবার বৃষ্টি হলে এ সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যাবে। কারণ ইতোমধ্যে পাহাড়ী ঢল অসংখ্য স্থানে সড়কের অর্ধেক ভেঙ্গে নিয়ে গেছে।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৫মার্চ,নড়াইল প্রতিনিধি: নিকৃষ্টতম স্থানে প্রত্যেক জেলার রাজাকারদের তালিকা ফলক স্থাপনসহ ছয় দফা দাবিতে নড়াইলে মানববন্ধন কর্মর্সূচি পালিত হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সুরক্ষা পরিষদের আয়োজনে শনিবার (২৫মার্চ) বেলা ১১টায় নড়াইল চৌরাস্তায় এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়।
মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য রাখেন,  নড়াইল জেলা  মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সুরক্ষা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আনিছুর রহমান, ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা সাধারণ সম্পাদক এ্যাডঃ নজরুল ইসলাম, অগ্নিবীনার চেয়ারম্যান  এইচ এম সিরাজ সাংবাদিক কার্ত্তিক দাস,  কবি মাহাবুবুর রহমান মিঠুসহ অনেকে।
বক্তব্যকালে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধাদের যথার্থ সম্মানে দাড়িয়ে সালাম দিবেন প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী-এ মর্মে সংসদের আইন পাশ, ভূযা মুক্তিযোদ্ধা প্রতিহত এবং তা তৈরির সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, প্রত্যেক জেলার কেন্দ্র স্থলে শহীদ ও বীরঙ্গনা স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ, মহান মুক্তিযুদ্ধে মাতা-ভগ্নিদের অবদান ও আত্মত্যাগকে ‘মুুক্তিযোদ্ধা মর্যাদা’ দান, প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ও বীরাঙ্গনাদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা বর্তমান সরকারের আমলে একযোগে জাতীয়ভাবে প্রকাশ ও প্রত্যেক জেলার নিকৃষ্টতম স্থানে রাজাকারদের তালিকা ফলক স্থাপন সম্বলিত ছয় দফা দাবি বাস্তবায়নের জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানানো হয়।
মানববন্ধনে রাজনীতিবিদ, শিক্ষক, সাংবাদিক সহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার লোকজন অংশগ্রহন করেন।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc