Tuesday 27th of October 2020 03:00:06 AM

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৭জানুয়ারী,চান মিয়া,ছাতকঃ   ছাতকস্থ লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট লিমিটেডে পরিবহন শ্রমিকদের চাকুরি পূনর্বহাল ও বকেয়া বেতন ভাতা প্রদানের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। গত ২০১৭সালের ২৮ডিসেম্বর চট্টগ্রাম শ্রম আদালত এ রায় প্রদান করেন। জানা যায়, লাফার্জের পরিবহন শ্রমিকদের চাকুরি স্থায়ি করার দাবিতে ২০১৩সালের ৯ডিসেম্বর চট্টগ্রাম ২য় শ্রম আদালতে আইআর মামলা নং ৩০থেকে ৫২/২০১৩ইং মোট ২৩টি মামলা দায়ের করেন। এতে লাফার্জ কর্তৃপ মামলার জবাব না দিয়েই সিভিল প্রসেডিওর কোর্টের অর্ডার নং ৭, রোল- ১১তে মামলা খারিজের আবেদন করেন। পরে মামলার শুনানী শেষে আদালত ২০১৪সালের ১০মার্চ তাদের আবদন নামঞ্জুর করেন। এ আদেশের বিরুদ্ধে ঢাকা শ্রম আপীল ট্রাইব্যুনালে লাফার্জ কর্তৃপ আপীল মামলা নং- ৭২ থেকে ৯৪/২০১৪ পর্যন্ত দায়ের করেন।

এতে শ্রমিকদের চাকুরি স্থায়িকরণের বিষয়ে হয়রানীমুলক জটিলতা সৃষ্টি হয়। আপীল চলাকালে মাননিয় আপীল ট্রাইব্যুনাল ২০১৪সালের ১০এপ্রিল শ্রমিকদের বেতন ভাতাসহ যাবতিয় সুবিধা আপীল নিষ্পত্তি পর্যন্ত বহাল রাখার নির্দেশ দিলেও কোম্পানী কর্তৃপ তা- না দিয়ে আবারো ঢাকায় মাননীয় হাইকোর্ট আদালতে একটি রিট মামলা নং ৩৫৩৯/২০১৪ দায়ের করেন। এদিকে আপীল ট্রাইব্যুনালে আপীল শুনানী শেষে ২০১৪সালের ৮সেপ্টেম্বর নি¤œ আদালতের রায় বহাল রাখেন। এ আদেশের বিরুদ্ধে কোম্পানী কর্তৃপক্ষ মাননীয় হাইকোর্ট বিভাগে আরেকটি রিট মামলা নং ৮৬৭২ থেকে ৪৬৯৪/২০১৪ পর্যন্ত দায়ের করেন। দীর্ঘদিন থেকে শ্রমিকদের এহয়রানীতে আইনী মোকাবেলা করে ২০১৭সালের ৩০মার্চ মাননিয় হাইকোর্ট লাফার্জের দায়েরি রুল ডিসচার্জ করে দেন। এতে চাকুরি স্থায়ীর মামলা দ্রুত নিষপত্তির জন্য চট্টগ্রাম শ্রম আদালতকে নির্দেশ দেন মাননিয় হাইকের্ট।

এদিকে শ্রমিকদের বেতন ভাতার বিরুদ্ধে কোম্পানীর করা রিট মামলা নং ৩৫৩৯/২০১৪ লাফার্জ কর্তৃপ সেচ্ছায় সারেন্ডার করে মামলাটি প্রত্যাহার করে নেন। এতে শ্রম আপীল ট্রাইব্যুনালের দেয়া বেতন ভাতার আদেশ বহাল থেকে যায়। কিন্তু শ্রমিকরা বেতন-ভাতা পায়নি। ফলে ২০১৭সালের ২৮আগষ্ট লাফার্জের পরিবহন শ্রমিক সংগ্রাম কমিটির সভাপতি খালেদ মিয়া বাদী হয়ে ঢাকা শ্রম আপীল ট্রাইব্যুনালে লাফার্জে বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার কন্ডেম্প মামলা নং ০৪/২০১৭ দায়ের করেন। যাহা এখন বিচারাধিন রয়েছে।

এদিকে উচ্চ আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী শ্রম আদালতে বেতন ভাতাসহ চাকুরিতে পূনর্বহালের জন্য আবেদন জানায় শ্রমিকরা। এতে শুনানী শেষে শ্রম আদালতের চেয়ারম্যন ও সিনিয়র জেলাও দায়রা জজ মুক্তার হোসেন ২০১৭সালের ৩১ডিসেম্বর শ্রমিকদের যাবতীয় বকেয়া পরিশোধসহ চাকুরীতে যোগদানের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। শ্রমিক নেতা খালেদ মিয়া জানান, কোম্পানী কর্তৃপ শ্রমিক হয়রানীর সব ধরনের কৌশল অবলম্বন করে যাচ্ছেন। তারা আদালত অবমানাসহ শ্রমিকদের ঘামের বিনিময় দিতে টালবাহানা করে যাচ্ছে। তাই শ্রমিকরা খুবই কষ্টে জীবন-যাপন করছে।

তবুও আইনী লড়াই করে অধিকার আদায়ের আনন্দে লড়াইয়ে কখনও পিছপা হননি বলে জানান। এরসাথে আাদলতের প্রতি সম্মান ও আদালতের নির্দেশ পালনের জন্যে অনুরুধ জানান খালেদ মিয়াসহ পরিবহন নেতৃবৃন্দ।  অন্যথায় বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সহযোগিতায় কঠোর আন্দোলন-সংগ্রামের হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

 

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,০৭এপ্রিল,চান মিয়া,ছাতক (সুনামগঞ্জ):ছাতকস্থ লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট লিমিটেডের ভারি যানবাহন শ্রমিকদের চাকুরি স্থায়ীকরনের দাবিতে ২০১২সালের ৯ডিসেম্বর চট্টগ্রাম ২য় শ্রম আদালতে পরিবহন শ্রমিক ২৩টি আইআর মামলা দায়ের করেন। এতে লাফার্জ কর্তৃপক্ষ মামলাগুলো খারিজের আবেদন করলে ২০১৪সালের ২৫ফেব্রুয়ারি ২য় শ্রম আদালত চট্টগ্রাম তা- না মঞ্জুর করেন। পরে ঢাকা শ্রম আপীল ট্রাইব্যুনালে আপীল মামলা দায়ের করলে ২০১৪সালের ১০এপ্রিল লাফার্জের আপীল মামলাও ডিসমিস হয়ে যায়।

এতে নিম্ন আদালতের রায় বহাল রেখে শ্রমিকদের বেতন-ভাতাসহ যাবতীয় সূযোগ-সূবিধা বহাল রাখার আদেশ দেন। এরপরও শ্রমিকদের চাকুরী বহালও স্থায়ী না করে মাননীয় হাইকোর্টে রিট পিটিশন মামলা (নং ৮৬৮৪/২০১৪ইং) দায়ের করেন। দীর্ঘ ৩বছর পর গত ২০১৭সালের ৩০মার্চ উচ্চ আদালত আবারো শ্রমিকদের পক্ষে রায় ঘোষণা করেন। বিচারপতি তরিকুল হাকিমও বিচারপতি এমডি ফারুক (এম ফারুক) সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ নিম্ন আদালতকে শ্রমিকদের স্থায়ীকরন মামলা নিষ্পত্তি করার আদেশ দেন। এরসাথে তাদের বেতন-ভাতার আদেশ বহাল রাখেন। লাফার্জের পরিবহন শ্রমিক সংগ্রাম কমিটির সভাপতি খালেদ মিয়াও সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান আলী জানান, ৩বছর যাবত রায়ের পরও বেতন-ভাতাদি না দিয়ে লাফার্জ কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদের চরম হয়রানী করে যাচ্ছেন।

তারা শ্রমিকদের হয়রানি করার সব পথই অবলম্বন করে অবশেষে ব্যর্থ হয়েছে। তাদের এসব হয়রানিতে শ্রমিকরা অসহায়ভাবে মানবেতর জীবন করছে। এনিয়ে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন কয়েকদফা আন্দোলন-সংগ্রাম করেছেন। অবশেষে দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রামের পর শ্রমিকদের অধিকার প্রতিষ্টিত হয়েছে।

তারা বলেন, এযাবত আদালতের ৩টি রায় পেয়েছেন। তাদের অধিকার আদায়ে আদালতের আশ্রয় নেয়া কি অপরাধ ছিল? যে অজুহাতে তাদের বেতন-ভাতা বন্ধ করা হয়। তারা মামলার আগে লাফার্জকে বার বার লিখিতভাবে অনুরুধ জানিয়েছেন। এতে তারা সাড়া না- দিয়ে উল্টো তাদেরকে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শনও হুমকিসহ হয়রানী করার পথ বেছে নেয়া হয়। পরিশেষে তারা দেশের দায়িত্বশীল ব্যক্তিবর্গকে অনুরুধ জানিয়ে বলেন, দেশে আর যেন কোন শ্রমিক হয়রানী না- হয়।

এক্ষেত্রে সবার সজাগ দৃষ্টি ও সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন তারা। এছাড়া নেতৃবৃন্দ আদেশের সার্টিফাইড কপি হাতে পেলেই চট্টগ্রাম ২য় শ্রম আদালতে আইনী প্রক্রিয়া সেরে তাদের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্টিত করবেন বলে জানিয়েছেন।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc