Tuesday 20th of October 2020 09:17:29 PM

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১০এপ্রিল,আলী হোসেন রাজন,মৌলভীবাজার প্রতিনিধি: মৌলভীবাজার সদর উপজেলার আখাইলকুড়া ইউনিয়নের পাগুরিয়া গ্রামের ব্যবসায়ী রিপন মিয়া হত্যার ৯ দিন পর রহস্য উদঘাটন করেছে মৌলভীবাজার মডেল থানা পুলিশ। এ ঘটনায় জড়িত ৩ জনকে পুলিশ আটক করেছে।

আটককৃতরা হলেন, শেখ আবেদ আহমদ (৩৩) পিতা শেখ মো: মদন,মাতা সমিতা বেগম, সাং-মিরপুর।জায়েদ আহমদ আলাল (৩০) পিতা আব্দুর রহিম,মাতা কবিরূন্নেচ্ছা,সাং-জগৎপুর,ও মিনহাজ মিয়া (৩২ )পিতা মৃত মধু মিয়া, মাতা মৃত আলেয়া বেগম,সাং পাগুরিয়া।

তাদের বাড়ি একই ইউনিয়নের বাসিন্দা বলে পুলিশ জানায়। তাদের দুজনকে আখাইলকুড়া এলাকা ও এক জনকে মৌলভীবাজার শহর থেকে আটক করে পুলিশ।

আজ ১০এপ্রিল মঙ্গলবার দুপুর ১টায় মৌলভীবাজার মডেল থানায় এক প্রেস বিফিং করে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) রাশেদুল ইসলাম পিপিএম জানান, আবেদ ও রিপন মিয়া তারা দুজনই এলাকায় দাদন ব্যবসা করত এলাকার অনেকেই রিপনের কাছ থেকে দাদন হিসেবে টাকা নিত কিন্তু আবেদর কাছ থেকে দাদনের টাকা কম নিত মানুষ। এর জের ধরে আবেদ রিপনকে খুন করার প্রস্তুতি নেয়। পরে টাকার বিনিময়ে রিপন মিয়াকে সে খুন করায়।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সোহেল আহম্মদ,পুলিশ পরিদর্শক ( তদন্ত) মোহাম্মাদ নজরুল ইসলাম, পুলিশ পরিদর্শক (অপাঃ)মো: হারুন-অর-রশিদ।
গত সোমবার ৯ এপ্রিল বিকেলে আদালতে ১৬৪ ধারা মোতাবেক স্বীকারোক্তীমূলক জবানবন্দীতে মিনহাজ এই হত্যার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।

উল্লেখ্য, গত ১ এপ্রিল রোরবার শেষ রাতে মুদি দোকানি ও দাদন ব্যবসায়ী রিপন মিয়া প্রতিদিনের মতো রাতের খাবার শেষে দোকানের দরজা লাগিয়ে ভেতরে ঘুমান। সকালে এলাকাবাসী দোকানের দরজা ভাঙ্গা দেখে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে রিপনের লাশ উদ্ধার করে।

তার মাথায় ধারালো অস্ত্রের একাধিক আঘাত রয়েছে। রিপন মিয়ার একই এলাকায় বাড়ি হলেও নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চোরের হাত থেকে রক্ষা করতে ৮ থেকে ১০ বছর যাবৎ ব্যবসা পরিচালনা শেষে দোকানের ভেতর তিনি রাত্রিযাপন করতেন।

নিহত রিপন একই এলাকার কাছন মিয়ার বড় পুত্র।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৮জুলাই,হাবিবুর রহমান খান,স্টাফ রিপোর্টার:মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের ১২ নং ওয়ার্ডের সদস্য মশিউর রহমান রিপন (৪৫) কে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ।
শুক্রবার (৭ জুলাই) বিকালে গোপন সংবাদের ভিতিত্তে অভিযান চালিয়ে মৌলভীবাজার শহরের শ্রীমঙ্গল রোড থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মশিউর রহমান রিপন শ্রীমঙ্গল উপজেলার কালাপুর ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামের মৃত হাবিবুর রহমান এর ছেলে।

মৌলভীবাজারের গোয়েন্দা পুলিশের (এসআই) মো: মুমিন উল্লাহ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, তার বিরুদ্ধে শ্রীমঙ্গল থানায় মারামারি ও চাঁদাবাজির মামলা রয়েছে।
শ্রীমঙ্গল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) রফিকুল ইসলাম জানান, গত ২২ মে রাতে শ্রীমঙ্গল শহরের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও মৌলভীবাজার চেম্বার অব কমার্স এর পরিচালক তাজুল ইসলামকে তার ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে আক্রমন চালিয়ে গুরুতর আহত করে সন্ত্রাসীরা,এই মামলার ওয়ান্টেভুক্ত পলাতক আসামি ছিলেন মশিউর রহমান রিপন।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৩মার্চ,চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ চুনারুঘাট উপজেলার উবাহাটা ইউনিয়নের বালিয়ারী গ্রামের অজিত সরকার প্রকাশ রিপন (৩৮) নামে এক কাঠমিস্ত্রী বিগত ১৭ ফেব্রুয়ারী হতে নিখোঁজ। তার স্ত্রী শেলী রানী দেবনাথ জানান, গত ১৭ ফেব্রুয়ারী তিনি কাজের উদ্দেশ্যে কাঠমেস্ত্রীর যন্ত্রপাতি নিয়ে উপজেলার আইতন গ্রামে যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে বের হয়ে আর বাড়ি ফিরেনি।

উপজেলার আইতন গ্রামে খোঁজ নিলে আইতন গ্রামের স্থানীয়রা জানান, অজিত সরকার ওইদিন কাজের জন্য আসেননি এবং তাকে কেউ ঐ এলাকায় দেখতেও পায়নি। তার স্ত্রী শেলী রানী তার আত্মীয় স্বজন ও সম্ভাব্য সকল স্থানে তার স্বামী অজিত সরকারকে অনেক খোঁজাখুঁজি করে কোথাও তাকে না পেয়ে তার স্ত্রী চুনারুঘাট থানায় জিডি করেন।

চুনারুঘাট থানার জিডি নং- ৬১৬, তারিখ- ১২/০৩/২০১৭। স্বামীকে হারিয়ে তার অবুঝ ৩ সন্তানকে নিয়ে তার স্ত্রী প্রায় পাগল হয়ে পড়েছেন। নিখোঁজ অজিত সরকারের গায়ের রং শ্যামলা, উচ্চতা অনুমান ৫ ফুট, বয়স ৪০, মাথার চুল কালো, পরনে ছিল সাদা চেক লুঙ্গি আকাশি রঙ্গের ফুলহাতা শার্ট। অজিত সরকারের সঙ্গে থাকা মোবাইল ফোন নং- ০১৭৫৬-৫৮৩৬৯২। মোবাইল নাম্বারটি বর্তমানে বন্ধ দেখাচ্ছে। কোন সহৃদয়বান ব্যক্তি তার সন্ধান পেলে ছেলে- ০১৭৭১-৯৪১১২৩, ০১৭০৩-৫৬৪২১৩ নম্বরে মোবাইলে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন তার স্ত্রী।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc