Tuesday 27th of October 2020 06:49:54 PM

নিজস্ব প্রতিনিধি:  আল্লামা ওবায়দুল মোস্তফার দাফন ও জানাজা সম্পন্ন হয়েছে।ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আতের প্রবীণ আলেমেদ্বীন, সারা বাংলায় এক সময়কার গুরুত্বপূর্ণ ইসলামী বক্তা, বাড়িউড়া দরবার শরীফের পীর সাহেব আল্লামা মুফতি উবাইদুল মোস্তফা নকশেবন্দী বুধবার (১৪ অক্টোবর) সন্ধ্যা ৬ টার দিকে ইন্তিকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। আজ দুপুর বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) বা’দ যোহর জানাযার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়, বি-বাড়িয়া জেলার সরাইল উপজেলার বাড়িউরা কেন্দ্রীয় ঈদগাঁহ ময়দানে জানাজা শেষে দাফন সম্পন্ন করা হয়। বিস্তারিত আসছে

মিনহাজ তানভীর:  মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল শহরের চৌমুহনা চত্বরে বাংলাদেশ আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার উদ্যোগে আজ বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) হেফাজতকর্মীদের দায়ের করা মামলায় কারান্তরীণ আল্লামা মুফতি আলাউদ্দিন জিহাদীর মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন,পথসভা ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।
বিক্ষোভ মিছিলটি শ্রীমঙ্গল চৌমুহনা চত্বর থেকে শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে ঘুরে এসে চৌমুহনায় এসে সমাপ্তি করেন।
এ সময় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা যুবসেনাসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, সমাজকর্মী ও ধর্মীয় ব্যক্তিবর্গ।
একসময় বক্তারা আল্লামা আলাউদ্দিন জিহাদীর মুক্তির ব্যাপারে বিভিন্ন যুক্তি বক্তব্যের মাধ্যমে তুলে ধরেন।
বিশেষ করে সিরাজনগর মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মুফতি শিব্বির আহমদ তার বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশের পুলিশ সহ সবাই জানে জঙ্গিবাদের উত্থান কোথায় থেকে? ওহাবী, হেফাজতি, কওমি সম্প্রদায় থেকে সৃষ্টি হয়েছে জঙ্গিবাদ। হাটহাজারীর শফি সাহেবকে তার ছাত্ররা নির্যাতন করে হত্যা করেছে এ সমস্ত বিষয় আড়াল করার জন্য মুফতি আলাউদ্দিন এর নামে ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দেওয়া হয়েছে, নিজেদের দোষ গোপন করতেই এ মামলা। আমরা বাংলাদেশ সরকারের কাছে অনতিবিলম্বে মুফতি আলাউদ্দিন সাহেবের মুক্তি চাই আর নতুবা বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে হলে তিনি হুঁশিয়ারি করেন।
এছাড়াও আরও বক্তব্য রাখেন, অধ্যক্ষ মোল্লা শহিদ সাতগাঁও সামাদিয়া আলিম মাদ্রাসা। মুহিবুর রহমান মুহিব,বোরহান উদ্দিন সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক মৌলভীবাজার। সাবেক ছাত্রনেতা মামুনুর রশিদ মামুন ও ছাত্রনেতা এম এম রাসেল প্রমুখ।
উল্লেখ্য সম্প্রতি হেফাজতে ইসলামের আমীর আল্লামা মুফতি আহমদ শফীর মৃত্যুতে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত নেতা আল্লামা মুফতি আলাউদ্দিন জিহাদীর ফেসবুকে একজন এডমিনকর্তৃক বিরূপ মন্তব্য করলে নারায়ণগঞ্জ হেফাজতে ইসলামীর জেলা শাখার এক নেতার আইসিটি ধারায় মামলা রুজু করা হয়। ওই মামলায় আল্লামা মুফতি আলাউদ্দিন জিহাদীকে গ্রেফতার করে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ।
প্রসঙ্গত হেফাজতের আমির আল্লামা আহমদ শফী মৃত্যুর আগে বিভিন্ন বক্তব্যে মিলাদুন্নবী পবিত্র মিলাদুন্নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উপলক্ষে মিলাদ কিয়াম ইত্যাদি বিষয়ে আপত্তিকর ফতুয়া দিয়ে সুন্নি অঙ্গনে বহুবার সমালোচিত হয়েছেন। এমনকি তিনি পবিত্র মিলাদের তাবারুককে স্পষ্ট ভাষায় পায়খানার সাথে তুলনা করেন যা সুন্নি জনতার জন্য মারাত্মক মর্মাহতের কারণ।
অপরদিকে কওমি সম্প্রদায়ের জন্য হেফাজত আমিরের মৃত্যুতে খুশি হয়ে স্ট্যাটাস দিয়ে আইডির স্বতাধিকারী মুফতি আলাউদ্দিন জিহাদী মামলার শিকার হন।
সংবাদ মাধ্যমে জানা যায় মুফতি আলাউদ্দিন জিহাদীর আইডি থেকে প্রকাশিত স্ট্যাটাস এর ব্যাপারে তিনি দুঃখ প্রকাশ করেছেন এবং স্ট্যাটাসটি ডিলিট করে থানা নিরাপত্তা চেয়ে জিডি করেছেন।

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ আজ মঙ্গলবার ৩০ শে জুন বা’দআছর থেকে মাগরিব পর্যন্ত মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলা শহরের সিন্দুরখান রোডস্থ জামিয়া ইসলামিয়া মাদ্রাসার মসজিদ প্রাঙ্গণে করোনা রোগী সেবা পরিষদ শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার কমিটি গঠন উপলক্ষ্যে এক সভার আয়োজন করা হয়।

উক্ত সভায় উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত ওলামা কেরাম ও স্থানীয় মুসল্লিগণ উপস্থিত ছিলেন। এ সময় উপস্থিত ওলামাদের অনেকেই বক্তব্য রাখেন। বিশেষ করে বরুনা মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতার ছেলে মুফতি রশিদুর রহমান ফারুক এর বক্তব্যের মাধ্যমে শুরু হয় আলোচনা সভা। এ সময় তিনি বলেন, আজ মানুষ মানুষকে অবহেলা করে ভয়ে একজন আরেকজনের কাছে যাচ্ছে না করোনার ভয়ে। আমরা ভয় করবোনা আল্লাহ্‌র উপর ভরসা করে একজন অন্যজনকে সেবা করবো। যেখানেই করোনা রোগীর কথা শুনবেন সেখানেই তার খোঁজ খবর নিবেন প্রয়োজনীয় সকল সহযোগিতার ব্যবস্থা করবেন। তিনি আরও বলেন, শ্রীমঙ্গল উপজেলায় সকল স্থানে করুণা রোগীদের সেবা করার মাধ্যমে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি কামনায় একটি স্বেচ্ছাসেবক টিম গঠন করা হচ্ছে,যারা এই কাজের আঞ্জাম দিবে আর যারা কমিটিতে থাকতে পারবেন না তারাও রোগীর সেবা করবেন একে অপরকে সহযোগিতা করবেন।

পরে উপজেলার একটি খসরা কমিটির তালিকা ঘোষণা করা হয়, নিম্নে শ্রীমঙ্গল থানা কমিটির সদস্যবৃন্দের নাম ও পদবী উল্লেখ করা হলো,

তারা হলো সভাপতি-মাওলানা আব্দুস শাকুর, সহ-সভাপতি- রশিদ আহমদ হামিদী, সহ-সভাপতি-মাওলানা আব্দুর রহমান নোমানী, সহ-সভাপতি- হাফেজ আব্দুল্লাহ চৌধুরী, সহ-সভাপতি মীর এম এ সালাম, সহ-সভাপতি- মাওলানা সাইফুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক-মাওলানা আব্দুল মালিক, সহ-সাধারণ সম্পাদক-মাওলানা মাহমুদুল হাসান, সাংগঠনিক সম্পাদক-মাওলানা সোহেল আহমদ, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক-বায়তুলমাল, সহ-বায়তুল মাল সম্পাদক-মাওলানা আয়াত আলী সহ- বায়তুল মাল সম্পাদক হাফেজ শাহাদাত হোসাইন, প্রচার সম্পাদক-ইসমাইল হোসেন,সহকারী প্রচার সম্পাদক-আজিজুর রহমান।

সদস্য বৃন্দরা হলেন, হাফেজ শুয়েব আহমদ,মাওলানা মারুফ আব্দুল্লাহ, মনসুর আহমদ, আব্দুল মান্নান (শ্যামলী) ,মুফতি মনির উদ্দিন, মাওলানা আব্দুল মালিক, বিলাল আহমেদ চৌধুরি (শান্তিবাগ) কাজী মাওলানা শিহাব উদ্দিন প্রমুখ।

পরে এদের থেকে নয়টি ইউনিয়নের প্রতিটিতে প্রতি দুইজনকে কমিটি গঠনের দায়িত্ব দেওয়া হয় পরিশেষে সভার প্রধান অতিথি মুফতি রশিদুর রহমান ফারুক মুনাজাত পরিচালনা করেন এ সময় তিনি মহান আল্লাহর দরবারে হেফাজত কামনা করে দোয়ার মাধ্যমে সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

জানা গেছে,মুফতি রশিদুর রহমান ফারুক এর আহবানে রোববার (২৮ জুন) দুপুর ২ টায় শ্রীমঙ্গল থানাধীন শেখবাড়ী জামিয়া মাদ্রাসার হল রুমে বিভিন্ন এলাকার সচেতন নাগরিকদের উপস্থিতিতে “করুণা রোগী সেবা পরিষদ মৌলভীবাজার জেলা” গঠন করা হয়। এর পর থেকে মৌলভীবাজার জেলার সকল থানা কমিটি গঠন করা হচ্ছে। প্রত্যেক থানার দায়িত্বশীলগণ ইউনিয়ন কমিটি গঠন করবেন ।

উল্লেখ্য,পরিষদের প্রধান উপদেষ্টা হলেন মুফতি খলিলুর রহমান হামিদী এবং সভাপতি মুফতি রশিদুর রহমান ফারুক বর্ণবি।গঠিত পরিষদের প্রধান কার্যালয় হিসেবে জামিয়া মাদানিয়া শেখবাড়ি মাদ্রাসা নির্ধারিত থাকবে।

চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ  আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আত চুনারুঘাট উপজেলা সাবেক সাধারন সম্পাদক ও জেলা উপদেষ্টা মরহুম মুফতি ছালেহ্ আহমদ তালুকদারের স্মরণে শোক সভা ও মিলাদ মাহ্ফিল (দঃ) অনুষ্টিত। আহলে সুন্নাত ওয়াল জমা’আত চুনারুঘাট উপজেলা শাখার উদ্দোগে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে স্থানীয় আল মদিনা জামে মসজিদে উপজেলা ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ্ব আঃ জাহির মেম্বার এর সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক মাওঃ আব্দুল কাইয়ুম তরফদারের পরিচালনায় অনুষ্টিত সভায় বক্তব্য রাখেন ইসলামী ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় নেতা মাওঃ আলী মোহম্মদ চৌধুরী, জেলা ইসলামী ফ্রন্টের সহসভাপতি কাজী মাওঃ আবুল খায়ের শানু, উপজেলা ইসলামী ফ্রন্টের সভাপতি মাওঃ মুসলিম খান, সাধারন সম্পাদক মাওঃ মোঃ ইয়াকুত মিয়া, শফিউল আলম জুয়েল, আলহাজ্ব আব্দুল জাহির,আলহাজ্ব ইয়াছিন তালুকদার।
আরও উপস্থিত ছিলেন,উপজেলা যুবসেনা সভাপতি শফিকুল ইসলাম তালুকদার দুলাল, অধ্যাপক আলহাজ্ব সাহিদুল ইসলাম,মাওঃ উমর ফারুক, সাংবাদিক এস এম সুলতান খান, মাওঃ আজিজুর রহমান সুহাগ,আব্দুল জব্বার মেম্বার,  ছাত্রসেনা জেলা সভাপতি মোঃ নর উদ্দিন, মাওঃ  আল আমীন,  মোঃ মোক্তার হোসেন,   মাওঃ মামুনুর রশিদ,আলহাজ্ব হাফিজ আহমদ তালুকদার,  উপজেলা ছাত্রসেনার সভাপতি আব্দুল্লাহ্ আল মামুন, সহসভাপতি হেলাল উদ্দিন জাবেদ, পৌর সভাপতি মোঃ আবু তাহের প্রমূখ।
পরে মিলাদ শরিফ ও মোনাজাতের মাধ্যমে , মরহুম ছালেহ আহমেদের রুহের মাগফিরাত কামনা করা হয়।

চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ চুনারুঘাটে শহিদ হালিম দিবস ও বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা মৌলভীবাজার জেলা শাখার সাবেক সহ সভাপতি, হবিগঞ্জ জেলা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআতের উপদেষ্টা ও  চুনারুঘাট উপজেলা আহলে সুন্নাত ওয়াল জমা আতের সাধারন সম্পাদক  পীর মাওলানা মুফতি ছালেহ আহমদ তালুকদারের অকাল মৃতুতে বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট, যুবসেনা ও ছাত্রসেনা চুনারুঘাট উপজেলা শাখার উদ্দোগে গতকাল বুধবার বিকালে স্থানীয় কার্যালয়ে এক আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিল  অনুষ্টিত হয়।
ছাত্রনেতা আব্দুল্লাহ্ আল মামুনের সভাপতিত্বে অনুষ্টিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা ইসলামী ফ্রন্টের সভাপতি মুফতি মোঃ মুসলিম খান। বিশেষ অতিথি উপজেলা ইসলামী ফ্রন্টের সাধারন সম্পাদক মাওঃ মোঃ ইয়াকুত মিয়া, উপজেলা যুবসেনা সভাপতি শফিকুল ইসলাম তালুকদার, সাংবাদিক এস এম সুলতান খান, জেলা ছাত্রসেনার সভাপতি নুর উদ্দিন ইবনে মালেখ, সাবেক কেন্দ্রীয় সদস্য মোঃ মামুনুর রশিদ, সাবেক জেলা সহসাধারন সম্পাদক আব্দুল আউয়াল সুমন, উপজেলা সহ সভাপতি মোঃ হেলাল  উদ্দিন জাবেদ , সাধারন সম্পাদক আবু তাহের মিছবাহ্, পৌর সভাপতি মোঃ আবু তাহের, উপজেলা সাংগটনিক সম্পাদক মোঃ লোকমান চৌধুরী প্রমূখ।
সভায় মরহুম মুফতি ছালেহ্ আহমদ ও শহিদ আব্দুল মোস্তফা হালিমের রুহের মাগফেরাত কামনা করে মিলাদ শরিফ ও মোনাজাত করা হয়।

চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা, মৌলভীবাজার জেলা শাখার সাবেক সহ সভাপতি, হবিগঞ্জ জেলা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আতের উপদেষ্টা ও  চুনারুঘাট উপজেলা  ইসলামী ফ্রন্ট নেতা ও  আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আতের সাবেক সাধারন সম্পাদক,  গোগাউড়া দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক বিশিষ্ট আলেমেদ্বীন এবং  পীর মাওলানা মুফতি ছালেহ আহমদ তালুকদার (৫৫) গতকাল মংগলবার সকাল সাড়ে ১১টায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন ( ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

মৃত্যুকালে তিনি  স্ত্রী  ২ ছেলে ও ১ মেয়েসহ অসংখ্য আত্তীয় স্বজন রেখে গেছেন। ঐদিন বিকাল ৬ টায় তার প্রতিষ্টিত, গাউছিয়া নুরীয়া ও আ’লা হযরত একাডেমী  মাঠে নামাজে জনাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাপন করা হয়।

জানাজায় শত শত আলেম ও হাজারো মানুষের উপস্থিত হয়। ইমামতি করেছেন পীরে তরিকত আল্লামা আব্দুল করিম ছাহেব কিবলা সিরাজনগরী (মাঃআঃ)।

উপস্তিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ আব্দুল কাদির লস্কর, ইসলামী ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা আলী মোহাম্মদ চৌধুরী, মাওলানা ছোলাইমান খান রাব্বানী, জেলা আওয়ামীলীগ নেতা আলহাজ্ব শামীম আহমদ,  ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব লুৎফুর রহমান মহালদার, মাওঃ এ কে আফছার আহমদ,ইসলামী ফ্রন্ট জেলা সহসভাপতি কাজী মাওঃ আবুল খায়ের শানু, সাধারন সম্পাদক বিএসসি জাহেদুল ইসলাম, জেলা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত এর সম্পাদক মাওলানা শহিদুল ইসলাম, শেখ ফারুক আহমদ, উপজেলা সাধারন  সম্পাদক  মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম তরফদার, এডঃ নাজমুল ইসলাম বকুল, আলহাজ্ব আব্দুল জাহির মেম্বার, মাওঃ শেখ মুশাহিদ আলী, উপজেলা যুবসেনা সভাপতি শফিকুল ইসলাম তালুকদার, রিপন ফরাজী, সৈয়দ আবু নাঈম হালিম, উপজেলা ছাত্রসেনা সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মামুন প্রমূখ।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৫মে,নিজস্ব প্রতিনিধিঃ আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত যুক্তরাজ্য ও বাংলাদেশের অন্যতম সিপাহশালার, আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন আলেমেদ্বীন,পীরে তরিকত রাহনুমায়ে শরীয়ত ওয়াত তরিকত,ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি প্রতিষ্ঠান হবিগঞ্জের “দিনারপুর গাউছিয়া সুন্নিয়া আলিয়া মাদ্রাসা “সহ দেশ-বিদেশে বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা  এবং অধ্যক্ষ মাওলানা শেখ ফরহাদ ছা’দ উদ্দিন আহমদের পিতা হবিগন্জ জেলার দিনারপুর নিবাসী ও যুক্তরাজ্য প্রবাসী মুফতিয়ে আযম,শেরে পান্জাব আল্লামা মুফতি শেখ গিয়াস উদ্দিন আহমদ দিনারপুরী ছাহেব ক্বিবলা আজ ৫ মে ২০১৮ ঈসায়ী শনিবার বাংলাদেশ সময় প্রায় ১টা ৩০ মিনিটে যুক্তরাজ্যের বার্মিংহামের নিজ বাস ভবনে ইন্তেকাল করেন,ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।মাওলানা সুলাইমান খান রাব্বানি সংবাদটি জানিয়ে বলেন জানাজা সংক্রান্ত বিস্তারিত পরে জানানো হবে।

আল্লামা মুফতি শেখ গিয়াস উদ্দিন আহমদ দিনারপুরীর ইন্তেকালে মৌলভিবাজার জেলা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত  এর সভাপতি পীর আলী নুরুল্লাহ,জেলা সেক্রেটারি কাজী কুতুব উদ্দিন ও আন্তর্জাতিক সম্পাদক আনিসুল ইসলাম আশরাফী  লিখিত শোক বার্তায়  মহান আল্লাহর দরবারে বরেণ্য এ সুন্নি  রাহবারের ধর্মীয় খেদমতকে কবুল করে তাকে জান্নাতে নসীব করে  তার পরিবার পরিজন ও শুভাকাঙ্গিদের সবুর করার  ক্ষমতা কামনা করেন।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,১২এপ্রিল,হৃদয় দাশ শুভ,স্টাফ রিপোর্টারঃ নিষিদ্ধ ঘোষিত হরকাতুল জিহাদের (হুজি) শীর্ষনেতা মুফুতি আব্দুল হান্নান এবং তার দুই সহযোগী শরীফ শাহেদুল আলম বিপুল ও দেলোয়ার হোসেন রিপনের ফাঁসি আজ বুবধার রাতে কার্যকর হবে। রাত ১০টা থেকে ১১টার মধ্যে দুই কারাগারে তিন জঙ্গির ফাঁসি কার্যকর করা হবে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কারা ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র। মুফতি হান্নান ও শরীফ শাহেদুল আলম বিপুল রয়েছেন কাশিমপুর হাউসিকিরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে। দেলোয়ার হোসেন রিপন রয়েছেন সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে।
এ দিকে গতকাল কারা কর্তৃপক্ষ তাদের স্বজনদের ডেকেছে। চিঠিতে বলা হয়েছে ১২ এপ্রিলের (বুধবার) মধ্যে যে কোনো সময় দেখা করতে পারবেন। এ দিকে ফাঁসি কার্যকরের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে কর্তৃপক্ষ। কাশিমপুর ও সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। তবে গতকালই আগাম খবরে সিলেট কারাগারে দেখা করেছেন দেলোয়ার হোসেন রিপনের বাবা-মা ও ভাইসহ স্বজনরা। সিলেট কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার ছগির মিয়া বলেছেন, ফাঁসি কার্যকর করার আগে তাদেরকে ডাকা হবে।
মুফতি হান্নাননের গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জে, শরীফ শাহেদুল আলম বিপুলের বাড়ি চাঁদপুরে। আর শরীফ শাহেদুল আলম বিপুলের বাড়ি মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায়।
জল্লাদ প্রস্তুত :কাশিমপুর হাউসিকিউরিটি কারাগারে ফাঁসি কার্যকর করতে রাজু ও রোমানের নেতৃত্বে ৬ জল্লাদ প্রস্তুত রাখা হয়েছে। একই ভাবে সিলেট কারাগারেও ৪ জল্লাদকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে।
কারা সূত্র জানায়, রাষ্ট্রপতির কাছে করা প্রাণভিক্ষার আবেদনে মুফতি হান্নান ও শরীফ বিপুল বর্তমান সরকার, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও দেশ স্বাধীনের জন্য অবদান ও জাতির জনক হিসেবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের কথা স্বীকার করে প্রশংসামূলক বক্তব্য তুলে ধরেছেন। সাথে সাথে দেশ পরিচালনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুরদর্শিতা ও সফলতার কথাও বলেছেন।
পেছনের কথা :২০০৪ সালের ২১ মে সিলেটের হযরত শাহজালালের (র.) মাজারে তত্কালীন ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরীর ওপর গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। হামলায় আনোয়ার চৌধুরী ও জেলা প্রশাসকসহ অর্ধশতাধিক ব্যক্তি আহত এবং দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ তিনজন নিহত হন।
২০০৮ সালে সিলেটের দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল এ মামলার ৫ আসামির মধ্যে মুফতি হান্নান, বিপুল ও রিপনকে মৃত্যুদণ্ড এবং মহিবুল্লাহ ও আবু জান্দালকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়। ২০০৯ সালে আসামিরা আপিল করেন। বিচারিক আদালতের রায় বহাল রেখে গত বছরের ১১ ফেব্রুয়ারি রায় ঘোষণা করে হাইকোর্ট। এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন দুই আসামি মুফতি হান্নান ও বিপুল। গত বছরের ৭ ডিসেম্বর আসামিদের আপিল খারিজ করে চূড়ান্ত রায় ঘোষণা করে আপিল বিভাগ। আসামিরা এ রায়ের পুনর্বিবেচনা চেয়ে রিভিউ আবেদন জানালে গত ১৯ মার্চ তা খারিজ করে দেয় সর্বোচ্চ আদালত।
রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি গত ২১ মার্চ প্রকাশিত হয়। পরের দিন তিন জঙ্গির মৃত্যু পরোয়ানায় স্বাক্ষর করে কারাগারে পাঠায় বিচারিক আদালত। মুফতি হান্নান, বিপুল ও রিপন রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদন জানান। গত ৮ এপ্রিল রাষ্ট্রপতি প্রাণভিক্ষার আবেদন নাকচ করে দেওয়ার পর নির্বাহী আদেশ ও জেলকোড অনুসারে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হবে বলে জানায় কারা কর্তৃপক্ষ।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc