Saturday 31st of October 2020 04:26:42 PM

বেনাপোল প্রতিনিধিঃ   যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার বায়সা-চাঁদপুর দাখিল মাদরাসার সুপার জাহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে ২০২০ ইং সালের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিকে পুঁজি করে অর্থ বাণিজ্যের অভিযোগ তুলেছেন মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা সদস্য নুর ইসলাম সরদার।
নতুন জনবল কাঠামোর ভিত্তিতে  প্রতিষ্ঠানে চলতি বছরে নতুন করে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে নিজের খেয়াল খুশি মতো লোক পছন্দ করে নিয়োগে অস্বচ্ছতা ও অবৈধ পথে হাটছেন বলে দাবি করেন নুর ইসলাম সরদার।
মিডিয়াকে তিনি ভিডিও জবানবন্ধি দিয়ে বলেন, নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে ৪র্থ শ্রেণি পদে দপ্তরি ও আয়া হিসাবে দুটি পদের চাহিদা দেওয়া হয়েছে। আমি আমার পুত্রবধুর জন্য দুটোর যে কোন একটিতে আবেদন দাখিল করেছি।
প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হিসাবে উক্ত পদের জন্য আমার অগ্রাধীকার বেশি থাকলেও কোটি টাকার বিনিময়ে হলেও আমার পুত্রবধুর চাকরি হবেনা বলে সুপার জাহিদুল ইসলাম উচ্চস্বরে জানিয়ে দেন।
পরে বার বার আমাকে উল্টো ২ লাক টাকা নিয়ে আবেদন তুলে নেওয়ার জন্য বলেন। কারন খুঁজতে সুপারের কাছে জিজ্ঞেসা করলে সুপার আমাকে বলেন আমার সভাপতি শাহজাহান আলী মহোদয়ের নিজের কোন এক আত্মীয়কে চাকরিটি পাইয়ে দেওয়ার জন্য বলেছেন। সেখান থেকে তিনি মোটা অঙ্কের অর্থের লোভে এই অর্থ বাণিজ্য খেলায় লিপ্ত হয়েছেন।
এ বিষয়ে মাদরাসার সুপার জাহিদুল ইসলামকে মুঠো ফোনে জিজ্ঞেসা করা হলে তিনি মোবাইলে বক্তব্য দিবেন না বলে কথা এড়িয়ে যান এবং লাইনটি কেটে দেন।
জানতে চাইলে মাদরাসার গর্ভনিং বডির সভাপতি শাহজাহান আলী বলেন, নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে যতোসব প্রশ্ন উঠেছে সে বিষয়ে আমার কিছু জানা নেই। নিয়োগে কোনরকম অস্বচ্ছতা থাকবে না। সঠিক নিয়ম মেনেই প্রার্থী বাছাইয়ের প্রথম পর্ব শেষ হয়েছে। পুরো স্বচ্ছতার সহিত কার্যক্রম শেষ হবে।
এদিকে অভিযোগকারী প্রতিষ্ঠাতা সদস্য নুর ইসলাম সরদার বলেন, আমার পুত্রবধু একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। একাদশ শ্রেণি পাশ। আমি প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। তারপরও আমার অগোচরে সুপার সাহেব অর্থলোভে চক্রান্ত করে আমার উপর অবৈধ ভাবে বল প্রয়োগ করছে। আমি উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের কাছে অনুরোধ করছি যাহাতে নিয়োগ প্রক্রীয়া সচ্চ ও নিয়ম মাফিক হয় সে বিষয়ে যেন একটু ক্ষতিয়ে দেখা হয়।

আন্দোলনের মুখে হেফাজতে ইসলামের আমির ও আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম বা হাটহাজারি মাদ্রাসার মহাপরিচালক আল্লামা আহমদ শফীর পুত্র কেন্দ্রীয় হেফাজতের প্রচার সম্পাদক ও মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষা পরিচালক মাওলানা আনাস মাদানীকে হাটহাজারী মাদরাসা থেকে স্থায়ী বহিষ্কার করা হয়েছে।

গতকাল (বুধবার) রাত ১০ টার দিকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের মাদ্রাসার শুরা সদস্য ও মেখল মাদ্রাসার পরিচালক মাওলানা নোমান ফয়জী এ ঘোষণা পাঠ করে শোনান।

মাদ্রাসার মহাপরিচালক শাহ আহমদ শফীর সভাপতিত্বে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। মাওলানা নোমান ফয়জী বলেন, হাটহাজারী মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা আনাস মাদানীকে অব্যাহতিসহ মোট তিনটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে শুরা কমিটি। পাশাপাশি ছাত্রদের আর কোনো হয়রানি করবে না বলেও শূরা কমিটির বৈঠকে জানানো হয়েছে। আগামী শনিবার মজলিসে শুরার সব সদস্য মিলে বাকী সমস্যাগুলো সমাধান করবেন।

আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম

শূরায় উপস্থিত ছিলেন, ফটিকছড়ি নানুপুর ওবাইদিয়া মাদ্রাসার মহাপরিচালক শূরার সদস্য মাওলানা সালাউদ্দিন, হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক শূরার সদস্য মাওলানা নোমান ফয়েজী ও মাওলানা ওমর ফারুক।

বুধবার দুপুরে জোহরের নামাজের পর থেকে আনাস মাদানির অপসারণসহ বিভিন্ন দাবি নিয়ে মাদ্রাসার সব গেইট বন্ধ করে ভেতরে আন্দোলন শুরু করে ছাত্ররা। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, পুলিশ, র‍্যাব, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছালেও মাদ্রাসার সব গেইট বন্ধ থাকায় ভেতরে প্রবেশ করতে পারেনি। পরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সতর্কবস্থায় বাইরে অবস্থান করে। তবে প্রশাসন যাতে মাদ্রাসার ভিতরে ঢুকে কোনো ধরনের হস্তক্ষেপ না করে সেজন্য মাদরাসার ছাত্ররা মসজিদের মাইকে বারবার মাইকিং করছিল।

ছাত্রবিক্ষোভ ও ভাংচুর

ছাত্ররা যেসব দাবি জানান সেগুলো হচ্ছে, আনাস মাদানিকে অনতিবিলম্বে অপসারণ করতে হবে। ছাত্রদের প্রাতিষ্ঠানিক সুযোগ সুবিধা বাস্তবায়ন সহকারে সকল প্রকার হয়রানি বন্ধ করতে হবে। আল্লামা আহমদ শফী শারীরিকভাবে অক্ষম হওয়ায় পরিচালক পদ থেকে তাঁকে সম্মানজনক অব্যাহতি দিয়ে উপদেষ্টা বানাতে হবে। উস্তাদদের পুর্ণ অধিকার ও বিয়োগ নিয়োগকে সুরার নিকট পুর্ণ ন্যস্ত করতে হবে এবং বিগত শূরার হক্কানি আলেমদেরকে পুনর্বহাল ও বিতর্কিত সদস্যদেরকে পদচ্যুত করতে হবে।

দাবি আদায় না হলে মাদ্রাসার সমস্ত একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ থাকবে বলেও মাইকে ঘোষণা দেয় আন্দোলনকারী ছাত্ররা। তারা হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, আন্দোলনে বাধা সৃষ্টি হলে দেশের সমস্ত কওমি মাদ্রাসায় আন্দোলনের দাবানল জ্বলে উঠবে। আন্দোলন চলাকালে মাদ্রাসার ভেতরে আনাস মাদানিসহ তিন জন শিক্ষকের কক্ষ ভাংচুর করা হয়। শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করা হয়েছে হেফাজত নেতা মঈনুদ্দিন রুহিকেও।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের তীব্রতা দেখে মাদ্রাসার আশপাশের দোকানদাররা তাদের দোকান-পাট বন্ধ করে দেয়।ইরনা

চট্টগ্রামের হাটহাজারী বুড়িশ্চর জিয়াউল উলুম ফাযিল (ডিগ্রি) মাদরাসার অভিভাবক সমাবেশ ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে শির্ক্ষাথীদের হাতে পুরস্কার তুলে দিচ্ছেন ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ। চট্টগ্রামের হাটহাজারী বুড়িশ্চর জিয়াউল উলুম ফাযিল (ডিগ্রি) মাদরাসার অভিভাবক সমাবেশ ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ।
বুড়িশ্চর জিয়াউল উলুম মাদ্রাসায় ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্য ড. মুহাম্মaদ আহসান উল্লাহ-
মাদ্রাসা শিক্ষার্থীরাও দেশে এবং দেশের বাইরে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখছে

অভিভাবক সমাবেশ ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ বলেছেন মাদরাসা আর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার মান একই। যে কোন চাকরীতে মাদরাসার ছাত্ররাও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর মত যে কোন চাকরীর জন্য আবেদন করতে পারে। একারণে মাদরাসা শিক্ষার্থীরাও দেশে এবং দেশের বাইরে চাকরীর সুযোগ পাচ্ছে। এখানে কোন ভেদাবেদ নেই। বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই সুযোগ করে দিয়েছেন। তিনি আরও বলেন শিক্ষার্থীদের জ্ঞান চর্চা আরও বাড়াতে হবে। এজন্য শিক্ষক ও অভিভাবকদের আরও সচেতনতার সাথে কাজ করতে হবে। চিন্তা শক্তি কাজে লাগিয়ে তাঁদের লক্ষস্থলে পৌঁছিয়ে দিতে হবে।

শিক্ষক-অভিভাবকদের পর্যবেক্ষণ শক্তি আরও দক্ষ হতে হবে। শিক্ষার্থীদের উদ্দ্যেশ্যে তিনি বলেন ইচ্ছে শক্তিও থাকতে হবে। চাইলে সব পারা যায় যদি চেষ্টা থাকে। নিজের বিজয় নিজেকে আনতে হবে। আমি পারবনা এটা মনে পুষে রাখলে চলবে না। মনে স্বপ্ন থাকতে হবে তাহলে ভালো অবস্থানে পৌঁছানো যাবে। তিনি বলেন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের আরও মনযোগী হয়ে পাঠ দান ও গ্রহন হবে। তাহলে মাদরাসা শিক্ষার উন্নতি হবে। শিক্ষার উন্নতির জন্য শুধু শিক্ষার্থীদের উপর ছেড়ে দিলে চলবে না। অভিভাবকদেরও ভুমিকা রাখতে হবে।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে মাদরাসা মাঠে আয়োজিত সভায় তিনি এসব কথা বলেন। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা এসএম ফরিদ উদ্দিন। পরিচালনা কমিটির সহ সভাপতি প্রকৌশলী মোহাম্মদ আবুল কালামের সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন বুড়িশ্চর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান রফিকুল আলম, শেখ মুহাম্মদ সওদাগর স্মৃতি ফাউন্ডেশন চেয়ারম্যান শেখ মুহাম্মদ ইব্রাহিম, পটিয়া ফয়জুল বারি মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা কাজী আনোয়ারুল ইসলাম খান, আলহাজ হোসাইন মুনিরী, লোকমান হাকিম মেম্বার, মুহাম্মদ সরোয়ার উদ্দিন, মুহাম্মদ আবু সৈয়দ, খোরশেদ আলম চৌধুরী, এহসানুল হক বাবুল।

জেষ্ঠ শিক্ষক রুহুল কাদের চৌধুরী ও ছাত্র মুহাম্মদ মামুনুর রশিদের স ালনায় উপস্থিত ছিলেন উপাধ্যক্ষ মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মদ নুরুল আমিন, অধ্যাপক শেখ ফয়জুল্লাহ আহমদ, আ ন ম মঞ্জুর হায়দার সিদ্দিকী, মাওলানা জমির হোসাইন কাদেরী, মাওলানা অধ্যাপক আব্দুল মাবুদ ফারুকী, প্রভাষক ইলিয়া মুহাম্মদ শোয়াইব, মঞ্জুরুল কাদের, শিক্ষক নাসির উদ্দিন, তোফাজ্জল হোসেন, মাসুদ পারভেজ, আবু হেনা মুহসম্মদ সৈয়দ নুর, মাওলানা মোরশেদুল কাদেরী, মাওলানা আব্দুন নুর, কারী ফরিদুল হক প্রমুখ। অনুষ্ঠান শেষে মাদ্রাসার বার্ষিক ফলাফল ঘোষণা করা হয়।

মকিস মনসুর: গত ২রা সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং সোমবার বাদ জোহর কচুয়া রাজারবাড়ি এতিমখানা ও হাফিজিয়া মাদরাসা’র হল রুমে, মাদরাসা’র ১ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে এক মিলাদ শরীফ ও দোয়ার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।
প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে আজবধি মাদরাসা’র উন্নয়নে নানাভাবে যারা সহযোগিতা করেছেন সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানানো সহ দেশে বিদেশে বসবাসরত গ্রামের সবার জন্য ও সমগ্র মুসলিম উম্মার জন্ন্য বিশেষ দোয়া করা হয়। এদিকে শুরু থেকেই মাদরাসা’র “প্রধান শিক্ষক” হিসাবে নিষ্টা ও নিরলসভাবে দায়িত্ত পালন করে আসছেন হাফিজ মাওলানা আহমাদ হোসাইন চৌধুরী শ্রীমঙ্গলী।
আমেরিকা প্রবাসী আলহাজ্ব বাহার মিয়া কুররীর নিজ প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠিত কচুয়া এতিমখানা ও হাফিজিয়া মাদরাসা’র সভাপতি হিসাবে শাহ গিয়াস উদ্দিন ও সাধারন সম্পাদক হিসাবে মোহাম্মদ মুজিব মনসুর দায়িত্বে রয়েছেন।

এখানে উল্লেখ্য যে গত বছর ২রা সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং তারিখে সুন্নিয়াতের অকুতোভয় বীর সিপাহসালার আল্লামা মুহাম্মদ হুসাম উদ্দিন চৌধুরী ছাহেব জাদায়ে ফুলতলী এক মোবারক মিলাদ শারীফ- নাসিহাত ও সংক্ষিপ্ত মোনাজাতের মাধ্যমে উক্ত মাদরাসা’র শুভ-উদ্বোধন করা হয়েছিলো।

উচ্চ মাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষায় এ বছর ১০টি শিক্ষা বোর্ডের মধ্যে বাংলাদশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডে পাশের হার সর্বোচ্চ।

এবার সারাদেশে গড় পাসের হার যেখানে ৭৩ দশমিক ৯৩ শতাংশ, সেখানে মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৮৮ দশমিক ৫৬ শতাংশ। মাদ্রাসা বোর্ডে জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন ২ হাজার ২৪৩ জন শিক্ষার্থী।

মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে এবার মোট পরীক্ষা দিয়েছেন ৮৬ হাজার ১৩৮ জন। গত বছর এ সংখ্যা ছিল ৯৭ হাজার ৭৯৩ জন।

এবারের পরীক্ষায় পাস করতে পারেননি ৯ হাজার ৮৫৭ জন শিক্ষার্থী। গতবার এ সংখ্যা ছিল ২০ হাজার ৮৬১ জন।

শতভাগ পাস করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৬১৫টি। আর, এক জনও পাস করতে পারেনি, এমন প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা সাতটি।

বুধবার সকাল ১০টার পর গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের ফলাফলের অনুলিপি তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি ও উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

এরপর সংশ্লিষ্ট বোর্ডের চেয়ারম্যানরা তাদের স্ব স্ব বোর্ডের ফলাফল প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন।

“করলেন ইমাম আ‘যম ও আ‘লা হযরত গবেষণা পরিষদ”

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৪মেঃ  মাদরাসার জমি দখলে বাধা দেয়ায় এবং পরিচালনা কমিটিতে জায়গা না পেয়ে স্থানীয় ভূমিদস্যু জাহাঙ্গীরের নেতৃত্বে বাকেরগঞ্জ উপজেলার রঙ্গশ্রী ইউনিয়নে কাঁঠালিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসার সুপার মাওলানা আবু হানিফের মাথায় মল ঢেলে দিয়ে তা ভিডিও করে হত্যার হুমকি দেয়ায় ইমাম আ‘যম ও আ‘লা হযরত গবেষণা পরিষদ আহবায়ক মুফতি আবুল কাশেম মুহাম্মদ ফজলুল হক ও সদস্য সচিব মুফতি মুহাম্মদ বখতিয়ার উদ্দিন আজ ১৪ মে’১৮ সোমবার এক যুক্ত বিবৃতিতে ন্যাক্কারজনক ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

তারা বলেন-একজন শিক্ষক’কে এমনভাবে প্রকাশ্যে লাঞ্ছানা গোটা জাতির জন্যই লজ্জাজনক। মানুষ গড়ার কারিগর শিক্ষককের প্রতি এমন অসম্মান বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা বরদাশত করবে না। নেতৃদ্বয়- অবিলম্বে ভূমিদস্যু জাহাঙ্গীরসহ দোষীদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি গ্রহণের দাবী জানান।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৯আগস্ট,চান মিয়া,ছাতক (সুনামগঞ্জ): ছাতকে সুরমা নদীর ভয়াবহ ভাঙ্গনে ক্রমেই বিলীন হচ্ছে হাট-বাজার, স্কুল, মসজিদ, মাদরাসা ও বসতবাড়ি। কালারুকা ইউপির নূরুল্লাপুর, রামপুরও উজিপুর এলাকায় সুরমার এ ভাঙ্গন অব্যাহত রয়েছে। শীঘ্রই ভাঙ্গন রোধের কার্যকর উদ্যোগ না- নিলে নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাবে ১৯৪৮সালে প্রতিষ্ঠিত নূরুল্লাপুর ইসলামীয়া দাখিল মাদরাসাও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্টান, হাট-বাজার, বসতবাড়িসহ গোটা এলাকা। বাজারের দোকান, একাধিক বসতভিটা ভাঙ্গনে বিলীন হওয়ার আশংকা রয়েছে।

এব্যাপারে এলাকাবাসী কয়েক দফায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপরে কাছে একাধিক আবেদন করেছেন। কিন্তু ভাঙ্গন রোধে কোন পদপে না নেয়ায় ৭০বছরের প্রাচীন মাদরাসাটি এখন নদী গর্ভে বিলীন হবার পথে। শিক্ষক-শিক্ষিকার এপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থী রয়েছেন ৪শ’ ১৫জন। এরমধ্যে ছিু অংশ তলিয়ে যাওয়ায় মাদরাসার একটি ভবনে পাঠদান বন্ধ রাখা হয়েছে।

এব্যাপারে মাদরাসার সূপার মাওলানা জাহাঙ্গির আলম, সমাজসেবী ফরিদ আহমদ, ফারুক আহমদ চৌধুরী, হাজি আসিকুর রহমান, সাবেক ইউপি সদস্য এনামুল হক, হাজি নজির উদ্দিন, আজির উদ্দিন, সাজ্জাদ আহমদ, সফিকুল ইসলাম, আব্দুর রহিমসহ এলাকাবাসী মাদরাসা রক্ষায় ভাঙ্গন রোধে সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছেন। পরিচালনা কমিটির সভাপতি শাহজাহান আব্দুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ইতোমধ্যেই মাদরাসা এলাকার প্রায় ৫০ফুট জমি নদীতে চলে গেছে।

এছাড়া মার্চ, এপ্রিলও মে’ মাসে ভাঙ্গন এলাকায় দুবাই প্রবাসি শরিফ উদ্দিনও সৌদি আরব প্রবাসি তাজির উদ্দিনের সহযোগিতায় ৮হাজার বালু ভর্তি বস্তা, নূরুল্লাপুরও উজিরপুর গ্রাম থেকে বিপুল পরিমান বাঁশ এবং মাদরাসা কমিটি বাশেঁর বেড়া দেয়ার ব্যয় বহন করে। এরপাশে নূরুল্লাপুর বাজারে পাকা বিল্ডিং, উজিরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মসজিদ, কবরস্থান, পাকা ও কাঁচা সড়কসহ নূরুল্লাপুর ও উজিরপুরের কয়েক শ’ বাড়ি-ঘর নদী গর্ভে তলিয়ে যায়। এব্যাপারে

ছাতক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল বলেন, একাধিকবার এলাকা পরিদর্শন করে সরকারের পানি সম্পদ মন্ত্রীর সাথে সুরমা নদীর ভাঙ্গন রোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহনের সহযোগিতা দাবি করা হয়েছে। সুনামগঞ্জ জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবু বকর সিদ্দিক ভূইয়া বলেন, ভাঙ্গন প্রতিরোধে সরেজমিন এলাকা পরিদশন করা হযেছে। জরিপ কাজের পর একটি কারিগরি কমিটি করা হয়েছে। ডিজাইনের কাজ শেষে প্রকল্পটি অনুমোদন হলেই মূল কাজ শুরু হবে বলে তিনি জানান।

“তাকওয়া ও নৈতিকতার মানদন্ডে উত্তীর্ণ হয়ে দেশ গঠনে মাদরাসার ছাত্রদেরকে ভূমিকা পালন করতে হবে-সাইফুল ইসলাম”

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,১৫জুনঃ  গতকাল বাংলাদেশ মাদরাসা ছাত্রকল্যাণ পরিষদের সিলেট ক্যাডেট মাদ্রাসার উদ্যেগে ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাদরাসা ছাত্রকল্যাণের উপদেষ্ঠা মাওলানা সাইফুল ইসলাম।
প্রধান অতিথি বলেন – মাহে রমাদ্বান আত্মগঠনের জন্য এক অনন্য প্রশিক্ষণের মাস। মুমিনরা এই মাসের প্রশিক্ষণ ও শিক্ষা কাজে লাগিয়ে বছরের বাকি সময় ব্যাক্তি ও সামাজিক জীবন পরিচালিত করার অনুপ্রেরণা লাভ করেন। ছাত্র সমাজের জন্য এই মহিমান্বিত মাস আলাদা তাৎপূর্যপূর্ণ। এই মাসকে আত্ম গঠনের কাজে লাগিয়ে তাকওয়া ও নৈতিকতার মানদন্ডে উত্তীর্ণ হয়ে দেশ গঠনে মাদরাসার ছাত্রদেরকে ভূমিকা পালন করতে হবে।
মাওলানা জয়নুল ইসলামের সভাপতিত্বে হাফেজ আহমদ আব্দুল্লাহ এর পরিচালনায় পবিত্র কুরআনুল কারিম তেলাওয়াত করেন – আব্দুল্লাহ আল হাসান, ইসলামি সংগীত পরিবেশন করেন -হিফজুর রহমান ও আদিল ইউসুফ, বক্তব্য রাখেন ঃ হাফেজ আশরাফ উদ্দিন, হাফেজ শাহরিয়ার তাহসিন শিহাব। উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত কুইজ প্রতিযোগিতায় অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত কুইজে প্রথম স্থান অর্জন করে মাসুদ আহমদ, ২য় স্থান অর্জন করেন – রেজা ই রাব্বি সাফওয়ান, ৩য় স্থান অর্জন করেন আশরাফ। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন – আহমদ আল মাসুদ, আরিফ আহমদ, হাফেজ রাসেল আহমদ, মুস্তাক আহমদ জাকারিয়া, হোসাইন আহমদ, মুহাম্মাদ আব্দুল হাসিব জাহিদ, মেরাজুল ইসলাম, হোসাইন আহমদ, হাফিজ খান সায়েম, মোশাহিদ ইসলাম নাবিল, আহমদ। প্রমুখ।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,১৯এপ্রিল,চান মিয়া,ছাতক (সুনামগঞ্জ):ছাতকের পেপারমিল আদর্শ দাখিল মাদরাসা থেকে ২০১৬সালে অনুষ্টিত ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় ৩টি ট্যালেন্টপুল ও ৮টি সাধারণ গ্রেডে বৃত্তিসহ মোট ৪০জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে কৃতিত্বের সাথে ৩৭জন পাস করেছে। পাসের হার শতকরা ৯২.০৫%। এবারে সাইফুর রহমান, সালমান আহমদ ও ইমা বেগম ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি লাভ করেছে। মাদরাসার সূপার মাওলানা শরিফুল ইসলাম জানান, প্রতি বছরের ন্যায় এবারেও পরীর্ক্ষীরা ঈর্ষনীয় ফলাফল অর্জন করেছে। এক্ষত্রে তিনি সকলের সহযোগিতা ও দোয়া কামনা করেছেন।  এ ছাড়া ও

ইবতেদায়ী সমাপনীতে ট্যালেন্টপুলসহ-ছাতক উপজেলায় ১ম স্থান অধিকার করেছে সৌরভ
ছাতক জালালিয়া আলিম মাদরাসা থেকে ২০১৬সালে অনুষ্টিত ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরিক্ষায় অংশ নিয়ে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি লাভসহ উপজেলার মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করেছে আব্দুল্লাহ আল্ মানসুর (সৌরভ)। সে জালালাবাদ গ্যাস ছাতক আ লিক অফিসের সহকারি সমন্বয় অফিসার জাহাঙ্গীর আলম ও গৃহিনী মোছাম্মৎ রওশন আক্তারের ২য় পুত্র। সৌরভ এ- সাফল্যের জন্যে মাতা-পিতাও শিক্ষক-শিক্ষিকাসহ সকলের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছে। চিকিৎসক হতে আগ্রহী মো. আব্দুল্লাহ আল্ মানসুর (সৌরভ) নিজের ভবিষ্যত উজ্জল কামনায় সকলের কাছে দোয়া প্রার্থী।

ছাতকে পলাশ জেএসসিতে গোল্ডেন এ-প্লাস পেয়েছে
ছাতকের পীরপুর শুকুরুন নেছা চৌধুরী স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২০১৬সালে অনুষ্টিত জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে গোল্ডেন এ-প্লাস পেয়েছে কাজি নাজিম উদ্দিন পলাশ। সে গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউপির পীরপুর গ্রামের বাসিন্দা সমাজসেবী মিজানুর রহমান চুনু ও গৃহিনী সামসুন্নাহার তালুকদারের পুত্র। পলাশ ২০১৩সালে অনুষ্টিত প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী
পরীক্ষাসহ বিভিন্ন বে-সরকারি ট্রাষ্টের পরক্ষায় অংশ নিয়ে বৃত্তি লাভ করে। উক্ত হাইস্কুলের ষ্টুডেন্টস্ কেবিনেটের প্রধান নাজিম উদ্দিন পলাশ এসাফল্যের জন্যে পিতা-মাতা ও শিক্ষক-শিক্ষিকাসহ সকলের কাছে কৃজ্ঞতা প্রকাশ করছে। ইংরেজি বিভাগে উচ্চ শিক্ষিত হতে আগ্রহী পলাশ নিজের ভবিষ্যত উজ্জল কামনায় সকলের কাছে দোয়া প্রার্থী।

ছাতকে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি প্রাপ্ত ছামি চিকিৎসক হতে আগ্রহী
ছাতক জালালিয়া আলিম মাদরাসা থেকে ২০১৬সালে অনুষ্টিত ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরিক্ষায় অংশ নিয়ে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি লাভ করেছে জিবরান আহমদ ছামি। সে উপজেলার দোলারবাজার ইউনিয়নের কাটাশলা গ্রামের বাসিন্দা ও ছাতক সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের ষ্ট্যাম্প ভেন্ডার সালেহ আহমদ ও গৃহিনী হুসনারা বেগমের ২য় পুত্র। ছামি এ- সাফল্যের জন্যে মাতা-পিতাও শিক্ষক-শিক্ষিকাসহ সকলের কাছে কৃজ্ঞতা প্রকাশ করছে। চিকিৎসক হতে আগ্রহী জিবরান আহমদ ছামি নিজের ভবিষ্যত উজ্জল কামনায় সকলের কাছে দোয়া প্রার্থী।

ছাতকে তাহসিনের ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি
ছাতকের সিংচাপইড় ইউপির খাসগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ২০১৬সালের প্রাথমিক সমাপনি পরিক্ষায় অংশ নিয়ে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি লাভ করেছে রেদওয়ান আহমদ তাহসিন। সে গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউপির কাকুরা জামে মসজিদের ইমামও খতিব কালারুকা ইউপির ছিক্কা নিবাসী মাওলানা নূর আহমদও গৃহিনী রোকেয়া বেগমের পুত্র। তাহসিন এ- সাফল্যের জন্যে মাতা-পিতাও শিক্ষক-শিক্ষিকাসহ সকলের কাছে কৃজ্ঞতা প্রকাশ করছে। সে নিজের ভবিষ্যত উজ্জল কামনায় সকলের কাছে দোয়া প্রার্থী।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,১৭এপ্রিল,ডেস্ক নিউজঃ  ইংরেজি শিক্ষার শিক্ষকদের চেয়ে মাদ্রাসা শিক্ষকরা মেধাবী বলে মন্তব্য করেছেন ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের শিক্ষক দার্শনিক অধ্যাপক সলিমুল্লাহ খান।

তিনি বলেন, মাদ্রাসা শিক্ষার লোকেরা লেখাপড়া জানে না এমন প্রচারণা সঠিক নয়। বরং আমি চ্যালেঞ্জ করব আমাদের দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ৫ জনও পাবেন না যে তারা মাদ্রাসার শিক্ষকদের সাথে যুক্তি-তর্কে পারবেন। মাদ্রাসা শিক্ষা গ্রহণ করে অনেক বরেণ্য ব্যক্তিত্ব হয়েছেন আমাদের দেশে ও উপ-মহাদেশে এমন দৃষ্টান্ত  রয়েছে অনেক। তাদের জ্ঞানের ভাণ্ডার ব্যাপক। গত ১২ এপ্রিল রাতে দীপ্ত টিভির টকশোতে তিনি এসব কথা বলেন।ইনকিলাব।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc