Thursday 26th of November 2020 10:14:18 PM

জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধিঃ   জৈন্তাপুরে ১৯ বিজিবি’র পৃথক পৃথক অভিযানে ভারত হতে অবৈধ পথে নিয়ে আসা ৪৭টি গরু ও ৯টি মহিষ আটক করে জৈন্তাপুর বিজিবি ক্যাম্পের সদস্যরা। আটককৃত গরু মহিষ গুলো কাষ্টম কর্মকর্তার উপস্থিতিতে ৯ লক্ষ ৭২ হাজার টাকায় নিলাম দেওয়া হয়।
বিজিবি সূত্রে জানা যায়, ১৯ সেপ্টেম্বর শনিবার ভোর ৫ টা হতে সকাল ১০ টা পর্যন্ত উপজেলার টিপরাখলা, গৌরিশংকর ও গোয়াবাড়ী এলাকায় ১৯ বিজিবি জৈন্তাপুর ক্যাম্প কামান্ডার সুবেদার রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে পৃথক পৃথক অভিযান পরিচালনা করে ভারত হতে অবৈধ পথে আসা ভারতীয় ছোট-বড় ৪৭টি গরু ও ৯টি মহিষ আটক করে জৈন্তাপুর ক্যাম্পে নিয়ে আসে। তামাবিল কাষ্টম কর্মকর্তার উপস্থিতিতে জৈন্তাপুর ক্যাম্পে নিলামের মাধ্যমে ৪৭টি গরু ও ৯ টি মহিষ ৯ লক্ষ ৭২ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয়।

অপরদিকে সচেতন মহল জানায় সারা রাত জৈন্তাপুর উপজেলার ৪৮ বিজিবির নিয়ন্ত্রনাধীন আলুবাগান, নলজুরী, শ্রীপুর, আদর্শগ্রাম, মিলাটিলা, রাবার বাগান, কাঠালবাড়ী, কেন্দ্রি, কেন্দ্রি হাওর, ডিবিরহাওর এবং ১৯ বিজিবি’র নিয়ন্ত্রনাধীন ১২৯৬-রিভার পিলার, ফুলবাড়ী, টিপরাখলা, কমলাবাড়ী, গোয়াবাড়ী, বাইরাখেল, নয়াগ্রাম, জালিয়াখলা, কালিঞ্জিবাড়ী, লালাখাল গ্রান্ড, তুমইর বাঘছড়া, আফিফানগর, গঙ্গারজুম, জঙ্গীবিল, বালিদাঁড়া এলাকা দিয়ে জৈন্তাপুর উপজেলায় কমপক্ষে ৫ হতে ৬হাজারের অধিক ভারতীয় গরু মহিষ প্রবেশ করে।

এছাড়া অবৈধ পথে লাইনম্যানের সহায়তায় ভারতীয় শেখ নাছির উদ্দিন বিড়ি, বিভিন্ন ব্যান্ডের সিগারেট, অফিসার চয়েস মদ, বিআর, ফেন্সিড্রিল, কসমেট্রিক্স সামগ্রী বাংলাদেশে প্রবেশ করে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সীমান্তের বাসিন্ধরা আরও জানান, বিজিবি আই ওয়াস করতে নাম মাত্র অভিযান পরিচালনা করে ৫৪টি গরু মহিষ আটক করে। এসকল সীমান্ত পথে প্রতিদিন কয়েক শতাধিক ট্রাক মটরশুটি সহ বিভিন্ন সামগ্রী ভারতে পাচাঁর হচ্ছে।

সীমান্তের বাসিন্ধারা আরও বলেন, বিশেষ কারনে বিজিবি’র সদস্যদের সংবাদ দিলেও তারা কোন প্রতিকার ব্যবস্থা গ্রহন করেন না। অন্য একটি সূত্র জানায়, চেরাচালান ব্যবসায়ী সিন্ডেকেট সদস্যরা হরিপুর বাজার হতে সীমান্ত এলাকা নিয়ন্ত্রন করছে। কিন্তু সীমান্ত রক্ষী বাহিনী গরু মহিষ আটক করলেও কারও বিরুদ্ধে প্রকৃত চোরাকারবারীদের ছেড়ে দিচ্ছে।
১৯ বিজিবির অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোঃ রফিকুল ইসলাম, পিএসসি গরু মহিষ আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে বেশ কয়েকজন চোরাকারবারি অবৈধ পথে গরু মহিষ বাংলাদেশে নিয়ে আসছে। সংবাদের প্রেক্ষিতে জৈন্তাপুর বিজিবি’র ক্যাম্প কামান্ডারের নেতৃত্ব বিজিবি সদস্যরা পৃথক পৃথক অভিযান পরিচালনা করে ৪৭টি গরু ও ৯টি মহিষ আটক করতে সক্ষম হয়। আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধিঃ সিলেটের জৈন্তাপুর সীমান্তে অভিযান চালিয়ে চোরাইপথে ভারত হতে নিয়ে আসা ৭টি মহিষ আটক করে ১৯ বিজিবির লালাখাল ক্যাম্প৷ ৩ জুলাই বুধবার কাষ্টম কর্মকর্তান উপস্থিতিতে লিলাম৷
২ জুলাই মঙ্গলবার গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে জৈন্তাপুর উপজেলার গুয়াবাড়ী বাইরাখেল সীমান্তের ১২৯৪ অান্তজার্তিক পিলারের ৮শতগজ বাংলাদেশের অভ্যান্তরে ১৯ বিজিবি’র লালাখাল ক্যাম্প কমান্ডার নায়েক সুবেদার নুরুল হুদার নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করে ৭টি ভারতীয় মহিষ আটক করেন৷
এদিকে বিজিবির উপস্থিতি টের পেয়ে চোরাকারবারীরা পালিয়ে যায়৷ এঘটনায় ৭টি মহিষ জব্দ করে ১৯ বিজিবর লালাখাল ক্যাম্পে রাখা হয়৷ ৩ জুলাই কাষ্টম কর্মকর্তার উপস্থিতিতে মহিষ গুলো নিলামে বিক্রয় করা হবে৷
এবিষয়ে ১৯ বিজিবি’র লালাখাল ক্যাম্প কামান্ডার নায়েক সুবেদার নুরুল হুদা ৭টি ভারতীয় চেরাইপথে আসা মহিষ আটকের কথা স্বীকার করে বলেন- গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে আমরা অভিযান পরিচালনা করে ৭টি মহিষ আটক করি৷ ৩জুলাই কাস্টম বর্মকর্তার উপস্থিতিতে নিলাম করা হবে৷ এছাড়া চোরাকারবার বন্দে তাদের অভিযান নিয়মিত অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি ৷

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১০মে,বেনাপোল প্রতিনিধি: যশোরের বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতের হরিয়ানা থেকে সর্বপ্রথম আমদানি করা হলো ১০০টি মহিষের একটি চালান। বুধবার রাতে ৬টি ট্রাকে করে ছোট-বড় ১০০টি মহিষ ভারতের পেট্রাপোল বন্দর হয়ে বেনাপোল বন্দরে পৌছায়। কাস্টমস হাউজ থেকে ছাড় করিয়ে পরে রাত্রেই বেনাপোল স্থলবন্দর ত্যাগ করে।

বেনাপোল কাস্টমস ও স্থলবন্দর সূত্রে জানা যায়, সিরাজগঞ্জে অবস্থিত মিল্কভিটা কোম্পানী তাদের কোম্পানীতে দুধ উৎপাদনের জন্য ৫০টি বড় মহিষ ও ৫০টি বাছুর (প্রজনন) আমদানির জন্য দরপত্র দেয় ঢাকার একটি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান জেনটিক্স ইন্টারন্যাশনাল। প্রতিষ্ঠানটি মহিষগুলো ভারত থেকে আমদানি করেন, যার বিসিপি নং-১০৫৭/৬। মহিষের রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান হলো ভারতের জেকে এন্টারপ্রাইজ।

বেনাপোলের হটলাইন কার্গো ইন্টারন্যাশনাল নামে একটি সিএন্ডএফ এজেন্ট আমদানিকৃত মহিষগুলো কাস্টমস হাউজ থেকে ছাড় করার জন্য বিল অব এন্ট্রি দাখিল করে। যার বিল অব এন্ট্রি নং-৩১৯১৮, তারিখ-০৯/০৫/১৮ এবং মহিষের আমদানি মূল্য ঘোষণা দেওয়া হয়েছে ৮২ হাজার ২’শ ২৫ মার্কিন ডলার। যা বাংলাদেশী টাকায় মূল্য দাঁড়ায় ৬৮ লক্ষ ৬৫ হাজার ৭শ’ ৮৭ টাকা। প্রাণী সম্পদ বিভাগের ছাড়পত্র নেওয়ায় এই মহিষের কোন আমদানি শুল্ক  দিতে হবে না।

শার্শা উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা জয়দেব কুমার সিংহ জানান, মহিষগুলো সিরাজগঞ্জ মিল্ক ভিটায় নিয়ে যাওয়া হবে। প্রাথমিক ভাবে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে মহিষগুলো মান ভাল পাওয়া যায় এবং প্রাণী সম্পদ বিভাগের সরকারি শুল্ক আদায় করে যথাযথ ভাবে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।

বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমস কার্গো শাখার রাজস্ব কর্মকর্তা হারুন আর রশিদ জানান, মহিষগুলো বেনাপোল কাস্টমস হাউজ থেকে খালাস নিতে হর্ট লাইন কার্গো ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি সিএন্ডএফ এজেন্ট প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দাখিল করেছেন। তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে শুল্কায়ন করার পর খালাস দেয়া হয়েছে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc