Sunday 25th of October 2020 12:23:03 AM

চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ চুনারুঘাট উপজেলার ৪নং পাইকপাড়া ইউনিয়নের আব্দুল্লাহপুর গ্রামের ফুরুক মিয়ার স্ত্রী আছিয়া খাতুন (৩৫) ও তার মেয়ে সেফুল আক্তার (১৩)। পূর্ব বিরোধের জেরধরে প্রতিপক্ষের হামলায় মা মেয়ে গুরুতর আহত হয়েছে।

জানা যায়, সোমবার সকাল ১০টার দিকে আব্দুল্লাপুর গ্রামে ফুরুক মিয়ার নিজ বসত বাড়ীতে এ ঘটনাটি ঘটে। আহতদের আত্মচিৎকারে স্থানীয় আশপাশের লোকজনরা এগিয়ে এসে উদ্ধার করে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চুনারুঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত সূত্রে জানা যায়, উপজেলার পাইকপাড়া ইউনিয়নের আব্দুল্লাপুর একই গ্রামের মৃত আব্দুন নূরের পুত্র কদ্দুছ মিয়া ও তার পুত্র উজ্জ্বল মিয়া এর সাথে দীর্ঘদিন যাবৎ ধরে ফুরুক মিয়ার পরিবারের সাথে পুকুর পাড় কাটাসহ বিভিন্ন বিরোধ চলে আসছে।

এরই জের ধরে সোমবার সকালের দিকে ফুরুক মিয়ার স্ত্রী বাড়ী থেকে রাস্তায় বের হলে উত্তেজিত হয়ে কদ্দুছ মিয়া ও তার ছেলে উজ্জ্বল মিয়া তাদের হাতে থাকা ধারালো অস্ত্র দা দিয়ে আছিয়া খাতুনের মাথায় কুপিয়ে ও তার মেয়ে আব্দুল্লাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণির ছাত্রী সেফুল আক্তারকে বেদরক পিঠিয়ে গুরুতর আহত করে পালিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে আছিয়া খাতুনের স্বামী ফুরুক মিয়া বাদী হয়ে চুনারুঘাট থানায় কদ্দুছ মিয়া ও তার ছেলে উজ্জ্বল মিয়াকে আসামী করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। চুনারুঘাট থানার এ এস আই কামাল হোসেন ঘটনাস্থলটি পরিদর্শন করেন।

কমলগঞ্জ প্রতিনিধিঃ কমলগঞ্জে জমি নিয়ে বিরোধে এক প্রবাসীর সদ্য রোপিত ধানী জমি বিনষ্ঠ ও তার ভাইয়ের বাড়িতে এক বিএনপি নেতার নেতৃত্বে হামলা ও ভাংচুর হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।আদমপুর ইউনিয়নের ছনগাঁও গ্রামের প্রবাসী হাজী মোঃ মতলিব মিয়া সোমবার (১৩ আগষ্ঠ) অভিযোগ করে এ প্রতিনিধিকে জানান, রবিবার ভোররাতে আদমপুর ইউনিয়ন বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি ভানুবিল গ্রামের আমিনুল ইসলামের নেতৃত্বে ১০/১২জনের একটি দল দা লাঠি নিয়ে এসে তার ছোট ভাই দিলবর মিয়ার বাড়ীতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে, পানির পাম্প খুলে নেয় ও বেড়া ভাংচুর করে।

এর আগে তার ক্রয়কৃত ৩২শতক জমিতে নেমে সদ্য রোপন করা ধানের চারা সম্পূর্ণ বিনষ্ঠ করে দেয়।ছনগাঁও গ্রামের দিলবর মিয়া, মিলন মিয়া,আব্দুস শহীদ, তোরন মিয়া বলেন, প্রতিবেশী মন্নান মিয়া দীর্ঘদিন ধরে ভূয়া কাগজপত্রের মাধ্যমে মতলিব মিয়ার ক্রয় করা জমি দখলের পাঁয়তারা করছেন।

তবে আমিনুল ইসলাম হামলা, ভাংচুরের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তার চাচা মন্নান মিয়া ক্রয়সূত্রে বৈধ মালিকানায় দীর্ঘ ৩৪ বছর যাবত এ জমি ভোগ করছেন। জমির দলিল নিয়ে কিছু জটিলতা থাকায় বিষয়টি আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। মতলিব মিয়া আদালতের নির্দেশনা না মেনে রবিবার রাতে এ জমিতে ধান রোপন করলে তিনি তার চাচা মন্নান মিয়া ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা বাধা দিতে যান।

এ সময় প্রতিপক্ষের হামলায় তাদের পরিবারের সদস্য আরশ বিবি(৫৭) ও জমিরুন বেগম(৩৬) আহত হন। আদমপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবদাল হোসেন, স্থানীয় ইউপি সদস্য কে,মনীন্দ্র কুমার সিংহ ও এলাকাবাসীর সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, জমি নিয়ে মন্নান মিয়া ও মতলিব মিয়ার মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছে। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় কয়েকবার সালিশ বৈঠক হয়েছে। পুলিশ রবিবারে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কমলগঞ্জ থানার উপ পুলিশ পরিদর্শক চম্পক দাম জানান, উক্ত জমি নিয়ে বিজ্ঞ আদালতে মামলা রয়েছে।আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী পুলিশ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৭জুলাই,কমলগঞ্জ প্রতিনিধি:   মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের ছনগাঁও গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় এক প্রবাসী গুরুতর আহত হয়েছেন। আহত প্রবাসীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে। গত বুধবার সকাল ১০ টায় ছনগাঁও গ্রামের মসজিদের সম্মুখের রাস্তার উপর হামলার এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে আদমপুর ইউনিয়নের ছনগাঁও গ্রামের বাছন মিয়া (৩০), ছালাত মিয়া (২৫), ফুল মিয়া (২৪) সহ পাঁচ, সাত সদস্যের সংঘবদ্ধ দল দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে একই গ্রামের প্রবাসী সাইফুর রহমান এর মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে হামলা চালায়। হামলার পর গুরুতর আহত সাইফুর রহমান (২৬)কে উদ্ধার করে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

সাইফুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, পূর্ব পরিকল্পিতভাবে প্রাণে হত্যার উদ্দেশ্যে প্রতিপক্ষরা লোহার রডসহ দেশীয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলা চালিয়েছে। হামলায় হাত, মাথা ও শরীরের কয়েকটি স্থানে মারাত্মক আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছি। ফলে মাথায় ১৩টি সেলাই দিতে হয়েছে। এ ঘটনায় সাইফুর রহমান এর পিতা তরিক মিয়া বাদি হয়ে কমলগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চেয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করেও বাছন মিয়া, ছালাত মিয়া ও ফুল মিয়াকে পাওয়া যায়নি। তবে স্থানীয় ইউপি সদস্য কে মনিন্দ্র সিংহ হামলা ও প্রবাসী আহত হওয়ার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। আদমপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দাল হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমার কাছে কোন পক্ষই আসেনি। তবে শুনেছি জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে মারামারি হয়েছে। ঘটনায় সাইফুর রহমান আহত হয়েছেন। পুলিশ ঘটনা তদন্ত করছে।

অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা কমলগঞ্জ থানার এসআই আজিজুর রহমান বলেন, অভিযোগপত্র পেয়ে তিনি হাসপাতালে গিয়ে আহত ব্যক্তিকে দেখেছেন এবং ঘটনাস্থল পরিদর্শনসহ তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,১৭এপ্রিল,চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ চুনারুঘাট উপজেলার সাটিয়াজুরী ইউনিয়নের সিরাজনগর গ্রামের আঃ খালেকের স্ত্রী মোছাঃ রাবিয়া খাতুন (৪০) কে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে বেদড়ক পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছে প্রতিপক্ষের লোকজনরা।

অভিযোগ থেকে জানা যায়, গত ১৩ এপ্রিল বৃহস্পতিবার রাত অনুমান সাড়ে ৮টার দিকে রাবিয়া খাতুনের নিজ বসতবাড়িতে এ ঘটনাটি ঘটে। আহত রাবিয়া খাতুনের আত্মচিৎকারে স্থানীয় এলাকাবাসীরা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে আশংকাজনক অবস্থায় চুনারুঘাট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এজাহারের বিবরণে জানা যায়, উপজেলার সাটিয়াজুরী ইউনিয়নের সিরাজনগর একই গ্রামের মোস্তফা মিয়া, দেলোয়ার হোসেন, হোসেন আহমদ, তরিকুল ইসলাম, বিল্লাল মিয়া গংদের সাথে রাবিয়া খাতুনের পূর্ব জমি সংক্রান্ত বিরোধ দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছিল। এরই জের ধরে মোস্তফা মিয়া সহ একদল দুর্বৃত্তররা দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে রাবিয়া খাতুনের বসতবাড়িতে উঠে ভাংচুর ও লুটপাট চালালে এসময় রাবিয়া খাতুন প্রতিবাদ করিলে মোস্তফা মিয়া উত্তেজিত হয়ে তার হাতে থাকা রামদা দিয়ে রাবিয়া খাতুনের কোমরের ডান পাশে কুব মেরে গুরুতর আহত করে ও মোস্তফার সহযোগিতার রাবিয়া খাতুনের সারা শরীরে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে ও তার বসতঘরের আসবাবপত্র ভাঙচুর ও লুটপাট করে প্রায় লক্ষাধিক টাকার মালামাল ও নগদ অর্থ ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে এলাকার নিরীহ আঃ খালেকের স্ত্রী রাবিয়া খাতুন বাদী হয়ে চুনারুঘাট থানায় ৫ জনকে আসামী করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। মামলার বিবরণে আসামীরা হলেন, উপজেলার সাটিয়াজুরী ইউনিয়নের সিরাজনগর গ্রামের মৃত মনছুর আলীর পুত্র মোস্তফা মিয়া (৪২), দেলোয়ার হোসেন (৩৮), নূরুল আমিনের পুত্র হোসেন আহমদ, বিল্লাল মিয়া নূরুল ইসলামের পুত্র তরিকুল ইসলাম।

এ ব্যাপারে প্রশাসনের প্রতি রাবিয়া খাতুন সুবিচার পাওয়ার জন্য সুদৃষ্টি কামনা করছেন।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২১মার্চ,হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃহবিগঞ্জের লাখাই উপজেলায় জমিজমা নিয়ে বিরোধের জের ধরে গিয়াস উদ্দিন (৩২) নামে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন।

সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় উপজেলার সিংহগ্রামে এঘটনাটি ঘটেছে। নিহত যুবক উপজেলার সিংহগ্রামের গিয়াস উদ্দিন সিংহ গ্রামের মারাজ মিয়ার ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, লাখাই উপজেলার সিংহ গ্রামের লকুজ মিয়ার ছেলে বুরহান মিয়ার সঙ্গে একই
গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের দীর্ঘদিন ধরে জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলছিল।

এর জের ধরে সন্ধ্যায় গিয়াস উদ্দিনের সঙ্গে তাদের কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে বুরহান মিয়া সহ একদল লোক গিয়াস উদ্দিন কে পিটিয়ে আহত করে। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

লাখাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ শামীম মুছা নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানায়,জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ বিষয়টি খতিয়ে দেখবে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc