Wednesday 21st of October 2020 04:23:30 AM

হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার পুকড়া ইউনিয়নের খাটখাল গ্রামের মৃত কাজী ওয়াসিদ উল্লার পুত্র ও সাংবাদিক কাজী এম.এ ওয়াহিদের পিতা কাজী আব্দুর রহামন গত রবিবার সকাল ১০টায় নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ……….. রাজিউন)। মৃত্যকালে তাহার বয়স হয়েছিল ৯৮ বৎসর।

উক্ত মরহুমের জানাজার নামাজ রবিবার বাদ আসর সন্ধ্যা ৬ ঘটিকার সময় খাটখাল জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত জানাজার নামাজে উপস্থিত ছিলেন, মাওলানা আবু ফজল, হযরত মাও: আইয়ুব বিন সিদ্দিক, কাজী লুৎফুর রহমান সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গরা উপস্থিত ছিলেন।

মৃত্যুকালে তিনি ২ ছেলে, ৫ মেয়ে সহ নাতি-নাতনী ও অসংখ্য আত্মীয়-সজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। মরহুমের জানাজার নামাজ শেষে তাকে খাটখাল পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৩অক্টোবর,চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ  হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে চান্দের গাড়ি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে ইউপি সদস্যসহ দুইজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও ২০ যাত্রী।
রোববার (২২ অক্টোবর) রাতে বানিয়াচং-হবিগঞ্জ সড়কের ভাটিপাড়া নামকস্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
নিতহরা হলেন নোয়াগর গ্রামের মৃত জমাদার উল্লাহর ছেলে ও আজমিরীগঞ্জ উপজেলার জলসুখা ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য হাফিজ উল্লাহ। অপর নিহত বানিয়াচং উপজেলা সদরের মাতাপুর মহল্লার মমতাজ হুসেনের ছেলে আমির হুসেন।
জানা যায়, চান্দের গাড়িটি হবিগঞ্জ খোয়াইমুখ বাসস্ট্যান্ড থেকে যাত্রী নিয়ে বানিয়াচংয়ের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। গাড়িটি ভাটিপাড়ায় পৌঁছলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যায়। দুর্ঘটনায় আহত কয়েকজন যাত্রীকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
হবিগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস সিনিয়র স্টেশন কর্মকর্তা সামছুল আলম জানান, আটকে থাকা যাত্রীদের উদ্ধারে হবিগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা আপ্রাণ চেষ্টা করে উদ্ধার করেছে।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,০৫জুন,নিজস্ব প্রতিবেদকঃ   হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলায় পুকুরে বিষ দেওয়াকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় সামছু মিয়া (৫২) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। সোমবার দুপুরে উপজেলার মন্দরী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।সামছু মিয়া ওই গ্রামের মৃত ইয়াকুব আলীর ছেলে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শনিবার (৩ জুন) সামছু মিয়ার পুকুরে কে বা কারা বিষ প্রয়োগ করে সব মাছ মেরে ফেলে। সোমবার সকালে তিনি জানতে পারেন তার প্রতিবেশী ইসমাইল মিয়ার ছেলে আয়াত আলী তার পুকুরে বিষ প্রয়োগ করে। ঘটনাটি জানার পর সামছু মিয়া প্রতিবেশী আয়াত আলীকে জিজ্ঞেস করেন কেন এ কাজ করল।
তখন তারা দু’জনের মধ্যে তর্ক-বিতর্ক হয়। এক পর্যায়ে আয়াত আলীর লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সামছু মিয়ার উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এতে সামছু মিয়া গুরুত্বর আহত হন। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
বানিয়াচং থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোজাম্মেল হক জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুুতি চলছে বলে জানা গেছে।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,২২মে,নিজস্ব প্রতিবেদকঃ হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে বড়বাজার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেনীর ছাত্রী শিশু মার্জিয়া (১০) হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে বিশাল মানববন্ধন করেছেন শিক্ষক শিক্ষার্থী,অভিবাবক ও সর্বস্তরের জনগণ।
সোমবার দুপুর ১২টায় স্থানীয় বড়বাজারে নিহত মার্জিয়ার পাঠশালার প্রধান শিক্ষক মোঃ ফারুক মিয়ার সভাপতিত্বে মানব বন্ধনে বক্তব্য রাখেন বড়াজার ব্যবসাীয় কল্যাণ সমিতির সেক্রেটারী মোঃ আঙ্গুর মিয়া,যুগ্ম সম্পাদক এসএম সাইফুল ইসলাম সেলিম,অভিবাবক সাহেদ আলী,স্কুল শিক্ষক দিপু চন্দ্র গোপ,তাজ উদ্দিন,সাজেদা বেগম,মাহমুদা খাতুন,নার্গিস জাহান,নুরজাহান বেগম,নিহত শিশু মার্জিয়ার সহপাঠি বড়বাজার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাজ্জাদুর রহমান ফারদিন ও মৌমিতা রাণী গোপ প্রমূখ।
মানব বন্ধকারীরা অবিলম্বে মার্জিয়া হত্যাকারীদের গ্রেফতার করে তাদের ফাঁসির দাবী করেন।
উল্লেখ্য গত ১৮ মে ২০১৭ খ্রিষ্টাব্দ রাত ১০টায় ভূমি সংক্রান্ত বিরুধের জের ধরে উপজেলার ১ নং ইউনিয়ন সাউথপাড়া গ্রামের মোতালিম মিয়ার সাথে তার ভাই মোতাব্বির,মতিন ও দুদু মিয়ার বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে মোতালিমের ভাই,ভাতিজা ও তাদের পরিবারের সদস্যরা মিলে মোতালিমের পরিবারের লোকজনের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। হামালায় শিশু মার্জিায়র মাথায় গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত হলে তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।
এছাড়া হামলায় নিহত শিশুর মা গুরুতর আহত ফাতেমা বেগম ও পিতা মোতালিমকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদিকে ঘাতক মতিনকে প্রধান আসমী করে ৮জনের বিরুদ্ধে সোমবার হবিগঞ্জের বিচারিক আদালতে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন নিহতের মা ফাতেমা বেগম।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,১৯মে,নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে চাচার লাঠির আঘাতে স্কুলে পড়ুয়া এক ভাতিজী খুন হয়েছে।
সে উপজেলা সদর ১ ইউনিয়নের সাউথপাড়া গ্রামের মোতালিম মিয়ার মেয়ে মার্জিয়া (১০)। সে স্থানীয় স্কুলের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী।বৃহস্পতিবার (১৮ মে) রাত ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
এ সময় নিহতের পিতা মোতালিম মিয়া ও মাতা ফাতেমা খাতুন আহত হন। গুরুতর আহত মোতালিম মিয়াকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
জানা যায়, মোতালিম মিয়ার সাথে তার ভাই মোতাব্বির মিয়ার ভূমি নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ বিরুধ চলে আসছিল। এ নিয়ে গত বৃহস্পতিবার রাত ১০ টায় উভয় পক্ষের মাঝে বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে মোতাব্বির,দুদুমিয়া,মতিন মিয়া উত্তেজিত হয়ে মোতালিম ও তার পরিবারের লোকজনের উপর দেশীয় অস্ত্র,দা,লাঠি নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়।
এসময় মোতাব্বির মিয়ার হাতে থাকা লাঠি দিয়ে শিশু মার্জিয়ার মাথায় আঘাত করে। লাঠির আঘাতে শিশু মার্জিায়া মাথায় গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে আহত হলে তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার শিশু মার্জিয়াকে মৃত ঘোষনা করেন।
নিহতের পিতা মোতালিম কোমড়ে মারাত্মক আঘাতপ্রাপ্ত হওয়ায় তাকে সিলেট এসএজি ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহতের মা ফাতেমাকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা করানো হয়েছে।
নিহতের বোন ছাবিনা জানান, তার চাচা মোতাব্বির,দুদু ও মতিনের সাথে আমাদের বসত ভিটা নিয়ে বিরুধ ছিল। সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান হায়দারুজ্জামান খান ধন মিয়া শালিসের মাধ্যমে বিরুধ মিমাংশা করে দেন। কিন্তুু শালিসের সিদ্ধান্ত অমান্য করে বিরুধীয় ভিটায় এমারত নির্মাণ করে তারা।
সাবিনা আরও জানান, তার চাচারা প্রচুর ধন সম্পদের মালিক। অত্যন্ত প্রভাবশালী। তাই প্রতিনিয়ত আমাদেরকে বিভিন্নভাবে নির্যাতন করে তারা।
এদিকে ঘটনাস্থল সরজমিনে গেলে এলাকাবাসী জানান মোতাব্বির ও তার ভাইরা এলাকার বিচার পঞ্চায়েত মানেনা। তারা ভূমি খেকো। বিচার অমান্য করে মোতালিবের পৈত্রিক ভিটেতে বিল্ডিং নির্মাণ করেছে। সরকারী খাল দখল করে ৩ তলা বিশিষ্ট এমারত তৈরী করেছে।
সরজমিনে দেখা যায় ঘাতকদের ঘরে তালা জুলছে। ঘটনার পর থেকে ঘাতকরা এবং তাদের পরিবারের সদস্যরা সবাই পলাতক রয়েছে।
এ ব্যাপারে বানিয়াচং থানার ওসি মোজাম্মেল হকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় কোন মামলা দায়ের করা হয়নি। পুলিশ কাউকে আটকেরও খবর পাওয়া যায়নি।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,১৩মে,নিজস্ব প্রতিবেদকঃ হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে দুই পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে অন্তত ৫০ জন আহত হয়েছেন। ১৫ জনকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বাকীদের উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
শনিবার সকালে উপজেলার হিয়ালা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
স্থানীয়রা জানায়, ওই গ্রামের লাল মিয়ার ছেলে হারুন মিয়া এবং আজিজ মিয়ার ছেলে আব্দুল মন্নাফের মাঝে জমিজমা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। এর সূত্র ধরে তারা বিভিন্ন সময় ঝগড়ায় লিপ্ত হয়। শুক্রবার সন্ধ্যায় তাদের মাঝে তর্কাতর্কি হয়। এর জের ধরে শনিবার সকালে উভয়ের পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়।
সংঘর্ষে আহতদের মাঝে টেঁটাবিদ্ধ মুখলিছ মিয়াকে সিলেট হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
বানিয়াচং থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মোজােম্মেল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,১৩এপ্রিল,নিজস্ব প্রতিবেদকঃ পাহাড়ি ঢল ও ভারি বর্ষণে হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার ২০ হাজার হেক্টর বোরো ফসল ডুবে গেছে। বানের পানি ঠেকাতে এখনও বিভিন্ন হাওরে চলছে স্বেচ্ছাশ্রমে ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণের যুদ্ধ। বুধবার (১২ এপ্রিল) কাগাপাশা ইউনিয়নের বাগহাতার সিদ্দির হাওরে ইউপি চেয়ারম্যান এরশাদ আলীর নেতৃত্বে কৃষকরা স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধ নির্মাণ কাজ করেছেন। বড়ইউরি মরাবাট হাওরের পানি সরাতে অন্তত ৫০টি সেচ মেশিন স্থাপন করেছে গ্রামবাসী।

এদিকে ফসলের ক্ষতি সইতে না পেরে মোছাম্মদ তারাবানু (৪৫) নামের এক কৃষানীর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার বিকাল ৫টায় কুমড়ি হাওরে হার্টএটাক করে তিনি মারা যান।
তারাবানু পৈলারকান্দি ইউনিয়নের কুমড়ি নজরপুর গ্রামের সফর আলীর স্ত্রী।এপৈলারকন্দি ইউনিয়ন কমিউনিটি পুলিশিং সভাপতি অ্যাডভোকেট আবদুল হামিদ বলেন, অসময়ের বন্যায় ফসলের ক্ষতিতে ইউনিয়নের কৃষক পরিবারগুলোতে আহাজারি ও কান্নার বিলাপ চলছে। তাদের শান্তনা দেয়ার মতো কোনো ভাষা নেই।
ইউপি সদস্য সহিদ মিয়া বলেন, প্রান্তিক কৃষক তারাবানু’র স্বামী বাকপ্রতিবন্ধী। ছোট ১ ছেলে ও ২ মেয়ে। বড় মেয়েটিও বাকপ্রতিবন্ধী। তারাবানু দারদেনা করে ১০ বিঘা জমি আবাদ করেছিলেন। বিকালে হাওরে গিয়ে দেখেন তার সম্পূর্ণ জমি বানের পানিতে তলিয়ে গেছে। তিনি এ ক্ষতি সইতে না পেরে হাওরেই হার্টএটাকে মারা যান। দরিদ্র এ পরিবারটির জন্য খুব কষ্ট হচ্ছে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc