Thursday 26th of November 2020 07:15:48 AM

মিনহাজ তানভির,নিজস্ব প্রতিনিধিঃ শ্রীমঙ্গল উপজেলার ২ টি ইউনিয়নের উপ নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। উপ-নির্বাচন উপলক্ষে শ্রীমঙ্গল উপজেলা কার্যালয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ কারী প্রার্থীদের নিয়ে আইন শৃঙ্খলা ও নির্বাচনী বিধি নিয়ে একটি সভা রোববার বিকালে (৪ অক্টোবর) অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলাম। বিশেষ অতিথিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজার জেলা  নির্বাচনি কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন।
এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র এএসপি আশরাফুজ্জামান আশিক (শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ সার্কেল)। শ্রীমঙ্গল থানার ওসি আব্দুস ছালেকসহ বিজিবি প্রতিনিধি ও অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।

উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়ন ও ভূনবীর ইউনিয়নের মৃত্যুবরণকারী সাবেক চেয়ারম্যান আবু সুফিয়ান চৌধুরী ও চেরাগ আলীর মৃত্যুতে ও মির্জাপুর ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের সাবেক এক ইউপি সদস্যের মৃত্যুতে উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়।
জানা যায় আগামী ২০ শে অক্টোবর ২০২০ তারিখ সকাল ৯ ঘটিকা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত একটানা ভোট গ্রহণ চলবে। সে উপলক্ষে ৪ অক্টোবর রোববার তারিখে শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাচন অফিস থেকে উপ নির্বাচনের প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ করেছেন। উপনির্বাচনে ১ নং মির্জাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী দুইজন, ২ নং ভূনবীর ইউনিয়নে ৫ জন প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন একই সময়ে মির্জাপুর ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী রয়েছেন পাঁচজন। উপনির্বাচনে ১ নং মির্জাপুর ইউনিয়নে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন চেয়ারম্যান পদে ২ জন, তারা হচ্ছেন আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন নিয়ে অপূর্ব চন্দ্র দেব,নৌকা মার্কা এবং বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির পক্ষ থেকে মোঃ সুফি মিয়া ধানের শীষ প্রতীকে লড়ছেন।
অপরদিকে ২ নং ভূনবীর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন পাঁচজন এর মধ্যে রয়েছেন আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নৌকা মার্কায় লড়ছেন সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ আবদুর রশিদ, স্বতন্ত্র থেকে কবির আহমদ প্রতীক মোটরসাইকেল, স্বতন্ত্র মোহাম্মদ আবুল বাশার প্রতীক চশমা, স্বতন্ত্র মোঃ কাওছার আহমেদ প্রতীক অটোরিকশা, মোঃ জলিল মাহমুদ স্বতন্ত্র প্রতীক আনারস।
অপরদিকে মির্জাপুর ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের এক ওয়ার্ড সদস্য মারা যাওয়ায় এই ওয়ার্ডে মেম্বার পদে পাঁচজন নির্বাচনী প্রতিযোগিতা করছেন তারা হচ্ছেন, উত্তম দাস টিউবওয়েল, জাহের মিয়া ফুটবল, বিজয় কৃষ্ণ দেবনাথ বৈদ্যুতিক পাখা, মোঃ কলিম উল্লাহ তালা, মোঃ ফারুক আহমেদ মোরগ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
জানা যায়,নির্বাচনী অফিসের সুত্রে জানা গেছে, ২ নং মির্জাপুর ইউনিয়নের ভোটার সংখ্যা রয়েছে মোট ২০৫৪৯ জন এবং ২ নং ভূনবীর ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা ২৫৬৪৮ জন। অপরদিকে মির্জাপুর ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডে ভোটার রয়েছে মাত্র ২৪৭৭ জন।
উপ নির্বাচন উপলক্ষে প্রার্থীদের নিয়ে আইন শৃঙ্খলা ও নির্বাচনী বিধি নিয়ে একটি সভায় উপজেলা কর্মকর্তা যে কোন আইন বিরোধী কাজের জন্য সতর্ক থাকতে অনুরোধ করেন এর ব্যত্যয় ঘটলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না সে যে দলেরই হা।,আপনারা সোজা আমরা সোজা,আপনারা আমাদের কঠোর হতে বাধ্য করবেন না। এ সময় সিনিয়র এএসপি আশরাফুজ্জামান বলেন যেহেতু মাত্র ২ টি ইউনিয়নে নির্বাচন আপনাদের মনে রাখতে হবে এই নির্বাচনে পুলিশের লোকবলের অভাব হবে না,সুতরাং ভুলেও বাক্স নিয়ে দৌর দেওয়ার কল্পনা ও করবেন না।

 

জলাবদ্ধতা, গ্যাস সংকট ও গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধিতে নাকাল চট্টগ্রামের জনজীবন

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৩জুনঃ  বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর সভাপতি ছাত্রনেতা মাছুমুর রশিদ কাদেরী বলেন, ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটের আকার যত বিশাল হোক, আসলখাত অর্থাৎ শিক্ষাখাতে এর বরাদ্দ হতাশাব্যঞ্জক। শিক্ষাখাতে বরাদ্দ বৃদ্ধির নামে শুভঙ্করের ফাঁকি দেয়া হয়েছে। ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেটে শিক্ষা উন্নয়ন খাতে ৫৩ হাজার ৫৪ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে। গত অর্থবছরে শিক্ষা খাতের বাজেট ছিল ৫০ হাজার ৪৩৯ কোটি টাকা। এ বছর বরাদ্দ বেড়েছে ২ হাজার ৬১৫ কোটি টাকা। টাকার অংকে শিক্ষা বাজেট বৃদ্ধির কথা বলা হলেও শতাংশে তা কমেছে। যা জনগণের সাথে এক ধরণের প্রতারণার নামান্তর।

আমরা বিগত বছরের বরাদ্দের সাথে মিলালে দেখি, ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরে শিক্ষা ও প্রযুক্তি দুটো খাত মিলিয়ে বরাদ্দ ছিল ১৬.৪%, অথচ ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের বাজেটে শিক্ষা ও প্রযুক্তি খাতে মিলেয়ে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ১৬.৩%, যা বিগত অর্থবছরের চেয়ে আরো কম। বরাদ্দ বৃদ্ধির নামে সর্বস্তরের ছাত্রসমাজসহ দেশের সাধারণ জনতার সাথে এ প্রতারণা মেনে নেয়া যায় না। প্রস্তাবিত বরাদ্দ থেকে প্রযুক্তিখাত বাদ দিলে শিক্ষাখাতে বরাদ্দ জাতীয় বাজেটের ১০ শতাংশের নিচে চলে আসবে।

একদিকে শিক্ষাখাত ও প্রযুক্তিখাত দুই খাত মিলিয়ে বরাদ্দ দিয়ে শুভঙ্করের ফাঁকি দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা আপামর ছাত্রসমাজের পক্ষে দীর্ঘদিন ধরে  শিক্ষাখাতে মোট বাজেটের ২৫ শতাংশ বরাদ্দ দাবি করে আসলেও সরকার সে দাবি আগ্রাহ্য করে মূলত ছাত্রসমাজের প্রতি বিরূপ আচরণ করা হয়েছে।

আজ দুপুরে মোমিন রোডস্থ দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা চট্টগ্রাম মহানগর উত্তরের ৩য় সাধারণ সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি উপর্যুক্ত মন্তব্য করেন। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ছাত্রনেতা মিজানুর রহমানের পরিচালনায় সভায় আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ছাত্রনেতা আবদুল্লাহ আল মাসুম,শিহাব উদ্দীন, মুহাম্মদ এহসান, মুহাম্মদ কাউসার খাঁন, মুহাম্মদ ফোরকান রেজা, মুহাম্মদ এরশাদুল করিম, মুহাম্মদ মঈনুদ্দীন কাদেরী, হাবিবুল্লাহ আরাফাত, মুহাম্মদ আদনান তাহসিন আলমদার, মুহাম্মদ শাহাদাত হোসাইন, মুহাম্মদ আবদুস সাত্তার, মুহাম্মদ আরাফাত, আবদুল কাদের, মুহাম্মদ সাব্বির, মাহমুদুল হাসান, মুশফিক উদ্দিন রায়হান, মুহাম্মদ ওয়াহেদ, মুহাম্মদ ইলিয়াস, মুহাম্মদ মিজান প্রমুখ।

সভায় সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান  বলেন, জলাবদ্ধতা চট্টগ্রাামের প্রধান সমস্যা হলেও এর সমাধানে চট্টগ্রামের সেবা সংস্থা সমূহ আন্তরিক নয়। সেবাসংস্থা সমূহের সমন্বয়হীনতা ও অকার্যকরী পদক্ষেপের কারণে বর্ষার প্রথম বর্ষণেই চট্টগ্রামের মানুষ অথৈই জলে ভাসছে। চট্টগ্রামের মানুষ দুর্ভোগের শেষ সীমায় আছে।

এ সমস্যা সমাধানে তড়িৎ কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ না করা হলে সামনের দিনগুলোতে বর্ষায়  চট্টগ্রাম বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়বে। তিনি আরো বলেন, একদিকে জলাবদ্ধতার কারণে মানুষের আয়-উপার্জন যখন কমছে তখন সরকারের গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত যেন মড়ার উপর খাড়ার গাঁ। গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি না করে তিনি প্রতিবছর চুরি হওয়া ৩০কোটি ঘনফুট গ্যাসের চুরি বন্ধ করার আহবান জানান।

তিনি বলেন, গ্যাসের চুরি বন্ধ করা গেলে বিদেশ থেকে এলএনজি আমদানি করতে হবে না। আর এলএনজি আমদানি করতে না হলে গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির কোন প্রয়োজন পড়বে না।প্রেস বার্তা

“ইসলামী ফ্রন্ট নগর উত্তর সভাপতি নঈম উল ইসলামের সকাশে পলিটেকনিক ছাত্রসেনার নেতৃবৃন্দ”

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২১মেঃ বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর উত্তর সভাপতি আলহাজ্ব নঈম উল ইসলাম বলেন, আসন্ন ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের বাজেটে শিক্ষাখাতে মোট বাজেটের ৩০ শতাংশ বরাদ্দ নিশ্চিত করতে হবে। প্রান্তিক পর্যায়ে শহরের সমনিয়মে শিক্ষার সুব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হলে বাজেটে শিক্ষাখাতে বরাদ্দ বৃদ্ধি করার কোন বিকল্প নেই। তিনি আরো বলেন, বর্তমানে অর্থনৈতিক ও বৈষয়িক বিষয়ে বাংলাদেশ এগিয়ে গেলেও মূল্যবোধ ও নৈতিকতা সম্পন্ন সমাজ প্রতিষ্ঠায় পিছিয়ে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা চট্টগ্রাম পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের নেতৃবৃন্দের সাথে আজ ২১ মে সোমবার সকালে মতবিনিময়কালে তিনি উপর্যুক্ত বক্তব্য রাখেন। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা চট্টগ্রাম মহানগর উত্তরের সভাপতি ছাত্রনেতা মুহাম্মদ মাছুমুর রশিদ কাদেরী, সাধারণ সম্পাদক ছাত্রনেতা মুহাম্মদ মিজানুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক ছাত্রনেতা মুহাম্মদ গোলাম মোস্তফা।

ছাত্রসেনা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নবনির্বাচিত সভাপতি মুহাম্মদ জিয়াউদ্দীন রায়হানকে, সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ সুমন মিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ মেজবাহ, মুহাম্মদ ইকবাল হোসেনসহ সকল নেতৃবৃন্দ।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc