Friday 4th of December 2020 02:32:05 PM

বেনাপোল প্রতিনিধি : বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ অস্ত্র, মাদকসহ একাধিক মামলার আসামি শাহজাহান নামে এক পাসপোর্ট যাত্রীকে  ভারত যাওয়ার সময়  আটক করেছে।
বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) বিকাল সাড়ে ৪ টার সময় তাকে আটক করা হয়।
আটক শাহজাহান কক্সবাজার জেলার টেকানাফ থানার লেংদু গ্রামের জাফর আহমেদের ছেলে এবং সাবেক এমপি আব্দুর রহমান বদির ভাইয়ের ছেলে।
বেনাপোল ইমিগ্রেশনের সেকেন্ড অফিসার এসআই খায়রুল ইসলাম বলেন, তার নামে অস্ত্র ও মাদকসহ একাধিক মামলা রয়েছে। যে কারণে তার বিদেশ যাওয়া নিষোধাজ্ঞা রয়েছে। সে বেনাপোল ইমিগ্রেশন হয়ে ভারত যাওয়ার সময় তাকে আটক করা হয়।
বেনাপোল পোর্ট থানায় কঠোর নিরপত্তার মধ্যে তাকে রাখা হয়েছে। থানার প্রধান গেট তালা দিয়ে সেন্টি দিয়ে নিরাপত্তার দায়িত্ব কঠোর ভাবে পালন করা হচ্ছে। সাংবাদিকসহ কাউকে প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না।
বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি আবু সালেহ মাসুদ করিম থানার বাইরে এসে সাংবাদিকদের বলেন, তার পাসপোর্ট ব্লক ছিল তাই ইমিগ্রেশন আটক করে আমাদের হেফাজতে দিয়েছে। তার নামে কি কি মামলা আছে জানতে চাইলে তিনি বলেন তার মামলা সম্পর্কে জানতে হলে টেকনাফ যেতে হবে। তবে সে কক্সবাজারের সাবেক এমপি আব্দুর রহমান বদির চাচাতো ভায়ের ছেলে বলে তিনি জানান। এছাড়া সে টেকনাফ থানার শ্রমিকলীগের সভাপতি।
যশোরের নাভারন সার্কেল এএসপি জুয়েল ইমরান বলেন, যদি কারো পাসপোর্টে বিদেশ গমনে বাধা থাকে তবে সে বিদেশ যেতে পারবে না। সে অনুযায়ী ইমিগ্রেশন পুলিশ তাকে আটক করেছে । আমরা তার সম্পর্কে তার থানায় খোঁজ নিয়ে বিস্তারিত জানতে পারব।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৬মে,ডেস্ক নিউজঃ কক্সবাজারের মেরিন ড্রাইভ সড়কের হিমছড়ির ২ নং ব্রীজ এলাকা থেকে এক ব্যক্তির গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পুলিশের ভাষ্য, তিনি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় ও পুলিশের তালিকাভূক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী ছিলেন। শুক্রবার সকাল নয়টার দিকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত ব্যক্তির নাম আকতার কামাল (৪১)। তিনি টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের সদস্য এবং একই এলাকার মৃত নজির হোসেনের ছেলে।

টেকনাফের সাবরাং ইউপি’র চেয়ার‌্যান নুর হোসেন জানান, নিহত আকতার কামাল উখিয়া-টেকনাফ আসনের সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদির বড় বোন শামসুনাহারের দেবর।

রামু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লিয়াকত আলী সিকদার বলেন, ‘আজ ভোরে ইয়াবার লেনদেনকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপ মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে মেরিন ড্রাইভ সড়কে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আকতার কামালের মরদেহ দেখতে পায়। এসময় সেখান থেকে ৩ হাজার ইয়াবা, ১টি দেশিয় তৈরি এলজি এবং ৪ রাউন্ড কার্তুজ ও ৩টি খোসা উদ্ধার করা হয়।’

টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রনজিত কুমার বড়ূয়া জানান, আকতার কামাল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় ও পুলিশের তালিকাভূক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী ছিলেন। তার বিরুদ্ধে টেকনাফ থানায় ৫ টি মামলা রয়েছে। এরমধ্যে দুটি ইয়াবা ও একটি মানবপাচার মামলা।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফরুজুল হক টুটুল বলেন, ‘নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে রয়েছে।’

অপরদিকে নিহত আক্তার কামালের সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়ে এমপি বদি সাংবাদিকদের বলেন, উনি আমার বেয়াই না। আমার বড় বোনের নাম শামসুন্নাহার ঠিকই। কিন্তু তার দেবরের নাম আক্তার কামাল নয়, তার দেবরের নাম নুরু।

তিনি আরও বলেন, আমার নির্বাচনী এলাকা উখিয়া ও টেকনাফে আমার নামে কারও কাছে কোনো অভিযোগ নেই। আমি সব সময়েই মাদকের বিরুদ্ধে আমার অবস্থান পরিষ্কার করে বলেছি। এমনকি সংসদে দাঁড়িয়েও সে কথা বলেছি। এরপরে আর কোনো কথা থাকে না।

এদিকে মেরিনড্রাইভ সড়কের হিমছড়ি পুলিশ ফাঁড়ির আইসি পরিদর্শক মনিরুল ইসলাম জানান, শুক্রবার ভোরে দরিয়ানগর ব্রিজ এলাকায় গোলাগুলির খবর পেয়ে পুলিশ টহলে যায়। এক পর্যায়ে সেখানে সড়কের পাশে এক ব্যক্তির গুলিবিদ্ধ মরদেহ পাওয়া যায়। মরদেহের পাশে এক হাজার পিস ইয়াবা, একটি এলজি ও চার রাউন্ড গুলি পড়েছিল। পরে স্থানীয়রা এসে মরদেহটি এমপি বদির বেয়াই আক্তার কামালের বলে শনাক্ত করেন।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc