Saturday 31st of October 2020 01:44:46 PM

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৩এপ্রিল,ডেস্ক নিউজঃ  বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে ফিরিয়ে আনতে ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে কথা হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা তাকে দেশে ফিরিয়ে নিতে সক্ষম হব ইনশাল্লাহ এবং সে তার কৃতকর্মের জন্য বিচারের সম্মুখীন হবে।

শনিবার লন্ডনের ওয়েস্টমিনস্টারে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে দেয়া বক্তব্যে তিনি আরো বলেন, ‘আমরা ইতিমধ্যেই তারেক রহমানের প্রত্যর্পণের বিষয়ে ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে কথা বলেছি। মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হওয়ার পরও সে কীভাবে লন্ডনে থাকে? আমরা তাঁকে দেশে ফিরিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছি।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তারেক রহমান দেশে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করেছে, আর এখন ব্রিটেনের রাজধানীতে বসেও একই ধরনের অপরাধ করছে, চিন্তা করে দেখুন কত বড় সন্ত্রাসী সে ?’

প্রসঙ্গত,তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে নতুন করে তত্পরতা শুরু করেছে সরকার। তিনি বর্তমানে সপরিবারে যুক্তরাজ্যে অবস্থান করছেন। তার বিরুদ্ধে দুটি দুর্নীতির মামলায় ১৭ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড বলবত্ রয়েছে। কিন্তু তাকে দেশে ফিরিয়ে আনার ক্ষেত্রে আইনি বাধা থাকলেও বিদ্যমান মিউচ্যুয়াল লিগ্যাল অ্যাসিসট্যান্স অ্যাক্টের আওতায় কূটনৈতিক তত্পরতার মধ্য দিয়ে তাকে দেশে ফিরিয়ে আনার সুযোগ রয়েছে। বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্য সরকারের মধ্যে বন্দী বিনিময় চুক্তি না থাকায় এ পথে এগুতে পারে সরকার।

অপরাধের দায়ে দণ্ডিত তারেক রহমানের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের কথা উল্লেখ করে শনিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লন্ডনে বলেন, তাকে বিচারের মুখোমুখি হতে হবে। আমরা ইতোমধ্যেই তারেক রহমানের প্রত্যর্পণের বিষয়ে ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে কথা বলেছি। মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হওয়ার পরও সে কিভাবে লন্ডনে থাকে? আমরা তাকে দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছি।

দেশে ফিরিয়ে আনা প্রসঙ্গে গতকাল রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেছেন, তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা চলছে। তিনি বলেন, বন্দী বিনিময় চুক্তি না থাকলেও এ চুক্তি করতে তো বাধা নেই। তাছাড়া মিউচ্যুয়াল লিগ্যাল অ্যাসিসট্যান্স অ্যাক্ট বলে একটা আইন আছে। সে আইনের আলোকে কিছু কিছু অপরাধীদের বন্দী বিনিময় চুক্তি না থাকা সত্ত্বেও আমরা কিন্তু আনতে পারি। সেই মিউচ্যুয়াল লিগ্যাল অ্যাসিসট্যান্স অ্যাক্ট আমাদের দুই দেশেরই আছে। এটা কিন্তু জাতিসংঘের ধার্যকৃত একটা আইন। সেই সহযোগিতাও এই দুই দেশের মধ্যে আছে।

প্রসঙ্গত ২০০৮ সাল থেকে তারেক রহমান সপরিবারে যুক্তরাজ্যে অবস্থান করছেন। সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে একাধিক দুর্নীতির মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে যান। দীর্ঘদিন কারাগারে আটক থাকার পর জামিন পেয়ে তিনি চিকিত্সার জন্য ওই দেশে যান। এরপর থেকে তিনি সেখানেই অবস্থান করছেন।

চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় তারেক রহমানকে দশ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেয় ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫। এছাড়া অর্থ পাচারের একটি মামলায় ২০১৬ সালে তাকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেয় হাইকোর্ট। যদিও নিম্ন আদালত তাকে বেকসুর খালাস দিয়েছিল। এছাড়া ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলার মামলাসহ বেশ কয়েকটি দুর্নীতির মামলা রয়েছে তার বিরুদ্ধে।সূত্রঃ ইত্তেফাক

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৫নভেম্বর,আবু তাহির,ফ্রান্সঃ    রোহিঙ্গারা তাদের সকল ধরণের অধিকার নিয়ে তাদের ভূমিতে ফিরে যাবে এটাই একমাত্র রোহিঙ্গা ইস্যুর সমাধান।বাংলাদেশে বর্তমান সরকার এবং সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের কে মানবিক বিবেচনায় আশ্রয় দিয়েছেন।আন্তর্জাতিক বিশ্বকে এ ব্যাপারে কার্যত ভূমিকা রাখার আহবান জানান বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

ইউনেস্কোর ৩৯ তম সাধারণ অধিবেশনে বিশ্বনেতাদের সামনে প্রদত্ত ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন।তিনি বলেন রোহিঙ্গাদের নিয়ে মায়ানমার সরকার আন্তরিক নয়।গত কাল ইউনেস্কো সদর দপ্তরে আয়োজিত এ অধিবেশনে নুরুল ইসলাম নাহিদ ইউনেস্কোর নতুন ডিরেক্টর জেনারেল উদরে আজুলাই কে শুভেচ্ছা জানান এবং ইরিনা বাকুবার প্রশংসা করেন।

এসময় তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের ৭ই মার্চের ভাষণকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্য ইরিনা বাকুবা ও ইউনেসকোর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান । প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও জানান তিনি ।নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, মায়ানমার সরকারকে অনুরোধ করব তারা যেন দ্রুততম সময়ে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়। সেদেশের সরকার যেন এভাবে বর্বর হত্যাকাণ্ড বন্ধ করে। এটা মানবাধিকার চরমভাবে লঙ্ঘিত হচ্ছে।

তিনি বলেন, এই বর্বর হত্যাকাণ্ড বন্ধের জন্য বিশ্ববাসী ও জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আহ্বান জানানো হয়েছে। তারা যেন মানবিক কারণে এগিয়ে আসে। বিশ্বের বড়বড় রাষ্ট্র উদ্যোগ নিয়ে মায়ানমারে নিজ দেশে রোহিঙ্গাদের দ্রুত পুনর্বাসন করেন।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৭আগস্ট,নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  শয্যাশায়ী মায়ের পাশ থেকে নিয়ে যাওয়া শিশুকে বাঘের মুখ থেকে ফিরিয়ে আনলেন এক মা। পরে আহত শিশু ছফিনা খাতুনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।বানিয়াচং উপজেলার বড়সড়ক গ্রামের আজিজুর রহমানের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।
জানা যায়, শনিবার রাতে আজিজুর রহমানের স্ত্রী লাইলী আক্তার তাঁর ৭ মাসের কন্যা ছফিনা খাতুনকে নিয়ে অন্যান্য দিনের মতো কক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন। ভোরে কোন এক সময় ছফিনাকে মায়ের পাশ থেকে নিয়ে যায় একটি মেছোবাঘ। কিছুই ঠের পাননি লাইলীসহ তার পরিবারের লোকজন।
পরে বাঘের কামড়ে শিশুর কান্নাকাটি শুরু করলে কান্নার শব্দ শুনে ঘুম থেকে জেগে উঠেন মা লাইলীসহ স্বজনরা। তারা ঘরের বাইরে গিয়ে দেখতে পান তাদের আদরের ছফিনা বাঘের মুখে। বাঘ তাকে মুখে নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে। এ সময় পরিবারের লোকজন বাঘটিকে ধাওয়া করে। বাঘ লোকজনের ধাওয়া খেয়ে ছফিনাকে রেখে পালিয়ে যায়।

এদিকে বাঘের নখের আছরে শিশু ছফিনা গুরুতর আহত হয়। পরে আহত অবস্থায় রবিবার সকালে তাকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,০৬এপ্রিল,নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইল এক্সপ্রেস খ্যাত ও বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট ওয়ানডে দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মোর্ত্তজাকে  টি টোয়েন্টি  ক্রিকেটে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক হিসাবে ফিরিয়ে আনার দাবীতে নড়াইলে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার নড়াইল শহরের রুপগঞ্জ বাজার বাসষ্টান্ড এলাকায় এবং আলাদাতপুর এলাকায় নড়াইল যশোর সড়ক অবরোধ করে ক্রিকেট প্রেমী নড়াইল বাসীর আয়োজনে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। মানববন্ধন চলাকালে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ক্রিকেট প্রেমী আব্দুর রশীদ মন্নু, গিয়াসউদ্দিন খাঁন ডালু, সাংবাদিক কার্তিক দাস, সাংস্কৃতিক কর্মি আসলাম খান লুলু, জেলা ছাত্রলীগের ছাত্রলীগের ষাধারন সম্পাদক আশরাফুজ্জান মুকুলসহ অনেকে।

মানববন্ধনে বিভিন্ন বিদ্যালয়ের ছাত্র- ছাত্রীসহ ক্রিকেটপ্রেমি  বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।বক্তারা অবিলম্বে, মাশরাফির টি-২০ ক্রিকেট থেকে অবসরের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের করে জাতীয় দলের অধিনায়ক হিসাবে  বহাল রাখার জন্য  বিসিবির সভাপতির হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc