Friday 30th of October 2020 07:18:07 AM

করোনা সংক্রমণের ভয়াবহ পরিস্থিতিতে কোভিড-১৯ কে ‘জাতীয় দুর্যোগ’ ঘোষণা করা এবং বিনা মূল্যে কোভিড- ১ এর নমুনা পরীক্ষা ও চিকিৎসার সকল দায়িত্ব সরকারকে গ্রহণ করার দাবি জানিয়েছে চিকিৎসকদের সংগঠন ডক্টরস ফর হেল্থ এন্ড এনভায়রনমেন্ট।

করোনা পরিস্থিতি, স্বাস্থ্যসেবা ও স্বাস্থ্য বাজেটের প্রেক্ষাপটে জরুরী করণীয়  প্রসঙ্গে আজ (শুক্রবার) সকালে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলন ডক্টরস ফর হেল্থ এন্ড এনভায়রনমেন্ট একটি দশ-দফা প্রস্তাবনা তুলে ধরেন। একই সাথে স্বাস্থ্য সেবা খাতে বাজেট বৃদ্ধি, জনবল বৃদ্ধি, অবকাঠামো উন্নয়ন, চিকিৎসা গবেষণায় অধিক মনোনিবেশ এবং সার্বিকভাবে চিকিৎসা শিক্ষা ব্যবস্থাকে যুগোপযোগী করে পুনর্বিন্যাসেরও পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে, সংগঠনের সভাপতি ডাক্তার কাজী রকিবুল ইসলাম রেডিও তেহরানক বলেন, করোনার এ ভয়াবহ পরিস্থিতিতে মৃত্যু ও সংক্রমণ কমিয়ে আনতে দুর্যোগকালীন পরিস্থিতির মতো সরকারের সকল প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক শক্তি একযোগে সমন্বিতভাবে কাজ করতে না পারলে আমাদের করুণ পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হবে।

কোভিড-১৯ কে “জাতীয় দুর্যোগ” ঘোষণা দাবি সমর্থন জানিয়ে চিকিৎসকদের অপর একটি সংগঠন ডক্টরস প্লাটফর্ম ফর পিপলস হেলথ- এর আহবায়ক প্রফেসর ডাক্তার রশীদ-ই-মাহবুব রেডিও তেহরানকে বলেন, দুর্যোগ পরিস্থিতিতে সরকার জরুরি কিছু পদক্ষেপ নিতে পারে যা স্বাভাবিক অবস্থায় সম্ভব নয় সরকার যদি জনগণের জীবন সুরক্ষায় এরকম কিছু করে তবে পরিস্থিতি মোকাবেলায় দ্রুত সুরাহা আসতে পারে।

ওদিকে, ডক্টরস ফর হেল্থ এন্ড এনভায়রনমেন্ট তাদের ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে অবিলম্বে করোনা নমুনা পরীক্ষা ফি সংক্রান্ত পরিপত্র বাতিল এবং সরকারি হাসপাতালগুলোর পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতালসমূহকে রিকুইজিশন করে কোভিড ও নন-কোভিড সব ধরনের রোগীকে সেবার ব্যবস্থা গ্রহণের আহবান জানিয়েছে।

চিকিৎসকদের এ সংগঠনটি উল্লেখ করেছে, করোনাভাইরাসে বাংলাদেশে এ পর্যন্ত যত রোগী শনাক্ত ও মৃত্যু হয়েছে, তার অধিকাংশ ঘটেছে গত জুন মাসে। তবে নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা কম হওয়ায়, এমনকি উপসর্গযুক্ত অনেক ব্যক্তি নমুনা সংগ্রহের আওতায় না আসতে পারায় দেশে মোট রোগীর ও মৃত্যুর সংখ্যার হিসাবে গড়মিল থেকেই যাচ্ছে।

অন্যদিকে স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয় সরকারি প্রতিষ্ঠানে করোনা পরীক্ষার জন্য ফি নির্ধারণ করায়, দরিদ্র জনগণ টেস্ট করাতে নিরুৎসাহিত হবে, যা করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যু সংখ্যা আড়াল করার একটি অপচেষ্টাও বটে। এখানে উল্লেখ্য যে পার্শ্ববর্তী সকল দেশেই সরকারি প্রতিষ্ঠানে করোনা পরীক্ষা বিনামুল্যে করা হয়।

সংক্রমণের ধারা বিবেচনায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব মতে ১ জন রোগী সনাক্ত করতে গিয়ে যদি ১০ থেকে ৩০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয় তবে পরীক্ষা পর্যাপ্ত হয়েছে বলে ধরা যায়। বাংলাদেশ এ ক্ষেত্রে অনেক পিছনে, এমনকি দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে একমাত্র আফগানিস্তান ছাড়া সবার নিচে।

ডক্টরস ফর হেল্থ এন্ড এনভায়রনমেন্ট উদ্বেগের সাথে উল্লেখ করেছে, রোগ প্রতিরোধের শিথিলতার কারণে সম্ভাব্য যে সংখ্যক মানুষ আক্রান্ত হবে তার যথাযথ চিকিৎসা দেওয়া আমাদের হাসপাতালের শয্যা সংখ্যা, দুর্বল ভৌত অবকাঠামো, মানসম্পন্ন যন্ত্রপাতির স্বল্পতা, দক্ষ জনবলের অপ্রতুলতা, চিকিৎসক সহ সকল স্বাস্থ্য কর্মীর স্বল্পতা ও আর্থিক সামর্থ দিয়ে যে মোকাবিলা করা সম্ভব হবে না; তা বিভিন্ন মহল থেকে বার বার বলা হয়েছিল।

“আমরা সকরুণ দৃষ্টিতে, জীবন দিয়ে, মৃতের সংখ্যা গুণে তা’ এখন হাড়ে হাড়ে উপলব্ধি করছি। এখন হাসপাতাল, বাসা সর্বত্র রোগীর আহাজারি; নিরবচ্ছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহ আর নিবিড় পরিচর্যা বিছানার অভাবে লম্বা হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল। ইতিমধ্যে আমরা হারিয়েছি ৭০জন চিকিৎসক সহ অনেক সেবিকা ও অন্যান্য স্বাস্থ্যসেবা কর্মীকে, সম্মুখ যোদ্ধাদের মৃত্যুর এ হার বিশ্বের মধ্যে সর্বাধিক। হারিয়েছি দেশের অনেক বরেণ্য ব্যক্তি, পদস্থ কর্মকর্তা ও সাংবাদিক সহ  বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার আরও অনেককেই।”

“শিল্প বাঁচানোর নামে, শ্রমিকদের জীবিকার নামে কল-কারখানাবিশেষতঃ পোশাক শিল্প খোলা-বন্ধের খেলা, ঈদের সময় পরিবহন চালু করা না-করার সিদ্ধান্তহীনতা এবং দোকানপাট শপিংমল খোলায় মানুষের অবাধ যাতয়াতের (স্বাস্থ্যবিধি না মেনে) ফলে করোনার সামাজিক সংক্রমণের ব্যাপক বিস্তার ঘটার যে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছিল তার বাস্তবরূপ এখন দেখতে পাচ্ছি। এ বিষয়ে সরকার গঠিত জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ কমিটি এবং কারিগরি পরামর্শক কমিটির সুপারিশ সঠিকভাবে আমলে নেওয়া হয়নি, যদিও তাদের পরামর্শ অনুযায়ী কাজ হচ্ছে বলে প্রচারের চেষ্টা চলছে।“

“এ মহাদুর্যোগের সময়েও সরকার ও উর্ধতন কর্তৃপক্ষের অনেকেই মূল সমস্যাসমূহ চিহ্নিত করে সেগুলো সমাধানের উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করার পরিবর্তে, আমলাতান্ত্রিক খেলার মাধ্যমে সংকটের দায়ভার চিকিৎসক সমাজ ও জনগণের কাঁধে চাপিয়ে দিয়ে আবারও চিকিৎসক ও জনগণকে মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দেয়ার অপচেষ্টায় লিপ্ত। জাতির এই চরম সংকটকালীন সময়েও চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের সুরক্ষা সামগ্রী ও থাকা-খাওয়া, চিকিৎসার যনত্রপাতি এবং দরিদ্র জনগণের রিলিফ সামগ্রী ক্রয় ও বিতরণ নিয়ে থেমে নেই দুর্নীতি, চৌর্যবৃত্তি ও মিথ্যাচার। মানহীন সুরক্ষা সামগ্রী ও সুরক্ষা সামগ্রীর স্বল্পতা চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যসেবা কর্মীর অধিক মৃত্যু হারের অন্যতম কারণ বলে সকলেই মনে করেন, তাও আবার ক্রয় করা হয়েছে চড়া দামে। সরকারের উপর মহল থেকে প্রতিনিয়ত দুর্নীতির বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ এর বাণী শোনানো হলেও কার্যত তা’ দৃশ্যমান নয়। সম্প্রতি চীন থেকে আগত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দল বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতিতে হতাশা প্রকাশ করেছেন।পাশাপাশি এত সীমাবদ্ধতার মধ্যেও চিকিৎসকসহ স্বাস্থ্য কর্মীদের অসাধারণ ভূমিকার প্রশংসাও করেছেন। বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতির বর্তমান অবস্থা বিবেচনায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, আমাদের জনস্বাস্থ্যবিদ ও সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ এবং অন্যান্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগণ মনে করেন এখনো আমাদের সংক্রমণের পূর্বাভাস মেনে সঠিকভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। সুতরাং বর্তমান বিরাজমান পরিস্থিতিতে রোগ নিয়ন্ত্রণে করণীয় সর্বশেষ সু্যোগটিও হাতছাড়া করলে দেশবাসীকে চরম মূল্য দিতে হবে।”

ডক্টরস ফর হেল্থ এন্ড এনভায়রনমেন্ট মনে করে স্বাস্থ্যের সংগ্রাম চিকিৎসকদের একার বিষয় নয়, শুধু চিকিৎসকদের পক্ষে তা’ অগ্রসর করা সম্ভব ও নয়। মেডিকেল শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবার আমূল সংস্কারের লক্ষ্যে সকল শ্রেণী-পেশার মানুষের সমন্বিত ‘সার্বিক স্বাস্থ্য আন্দোলন’গড়ে তোলা ছাড়া সামনে কোনো বিকল্প নেই।পার্সটুডে

অপরদিকে নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশে মৃত্যু বরণ করেছেন ৬৭ জন চিকিৎসক। এ যাবত আক্রান্ত হয়েছেন মোট ১ হাজার ৫৬১ জন চিকিৎসক। শুক্রবার দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে চিকিৎসকদের সংগঠন ফাউন্ডেশন ফর ডক্টরস সেফটি, রাইটস অ্যান্ড রেসপনসিবিলিটিজ (এফডিএসআর)।

এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার পাঁচ দিনের সূচির বদল হয়েছে। দেশের আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটি এ তথ্য জানায়। মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইটে জানানো হয়েছে, ২০১৯ সালের এইচএসসি পরীক্ষার প্রকাশিত সময়সূচির আংশিক পরিবর্তন করা হয়েছে।

উল্লেখ করা হয়েছে, ১৭ এপ্রিলের পরীক্ষাগুলো ৯ মে বিকালে, ১৮ এপ্রিলের পরীক্ষা ১১ মে বিকালে এবং ২২ এপ্রিলের পরীক্ষা ১২ মে বিকালে নেওয়া হবে। এছাড়া ৪ মে এবং ৬ মের পরীক্ষা একই দিন সকালের পরিবর্তে বিকালে নেওয়া হবে।

শবে বরাতের কারণে এক দিনের এবং পরীক্ষাগুলো পাশাপাশি পড়ে যাওয়ায় শিক্ষার্থীদের সুবিধার দিক হিসেব করে অন্য চারদিনের পরীক্ষা সূচি বদলে দেওয়া হয়েছে।

গত ১ এপ্রিল থেকে শুরু এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় এবার ১৩ লাখ ৫১ হাজার ৫০৫ জন শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে।

মৌলভীবাজারে সরকারি মেডিকেল কলেজ দ্রুত বাস্তবায়নের দাবী সকলের 
নাজমুল সুমন মৌলভীবাজার থেকেঃ  শেখ বোরহান উদ্দীন (র:) ইসলামী  সোসাইটি  কর্তৃক জেলার সর্ববৃহৎ মেধা যাচাই পরীক্ষার ফলাফল ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠান ২২ মার্চ ২০১৯ শুক্রবার সকাল ১০টায়  মৌলভীবাজার পৌর জনমিলন কেন্দ্রে আনুষ্ঠানিক ফলাফল ঘোষণা এবং পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়। শেখ বোরহান উদ্দীন (রঃ) ইসলামী সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান বিশিষ্ট সমাজসেবক  এম. মুহিবুর রহমান মুহিব এর সভাপতিত্বে  অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজা-হবিগঞ্জ সংরক্ষিত আসনের মাননীয়া সংসদ সদস্য সৈয়দা জহুরা আলাউদ্দীন. বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজার সদর উপজেলা চেয়ারম্যান জননেতা মোঃ কামাল হোসেন. মৌলভীবাজার সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ ড. ফজলুল  আলী. শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রফেসর  ড. সৈয়দ আশরাফুর রহমান.মৌলানা মুফাজ্জল হুসেন মহিলা কলেজের  অধ্যক্ষ মোঃ ইকবাল. গ্রেটার সিলেট কাউন্সিল ইউ,কের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ৭১ এর বীর  মুক্তিযোদ্ধা  সৈয়দ  আব্দুল কাইয়ুম কায়সার ,মৌলভীবাজার  বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালের সাধারন সম্পাদক সৈয়দ মশাহিদ আহমদ চুনু. বাংলাদের সুপ্রিম কোট এর ব্যারিস্টার ফয়েজ উদ্দিন আহমদ.টিভি বাংলার চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন হক।
অনুষ্ঠান চলাকালে সংগঠনের প্রেট্রন ডেইলি সিলেট এন্ড দৈনিক মৌলভীবাজার মৌমাছি কন্ঠের সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কমিউনিটি লিডার মোহাম্মদ মকিস মনসুর বৃটেন থেকে পাঠানো  লিখিত বক্তব্য পাঠ করে শুনানো হয়েছে.তিনি অনুষ্ঠানের সফলতা কামনা করে   মৌলভীবাজার জেলায় সরকারি মেডিকেল কলেজ  ও  একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় দ্রুত বাস্তবায়ন এবং মৌলভীবাজার জেলাকে এ গ্রেডে পরিনত করতে আরেকটি উপজেলা গঠন ও জেলার উন্নয়নে সম্মানিত  প্রধান ও বিশেষ অতিথিবৃন্দকে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করার আহবান জানিয়েছেন।
শেখ বুরহান উদ্দীন (রঃ) ইসলামী সোসাইটির প্রোগ্রাম চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান রাসেল এর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত পোগ্রামে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান মো : ফজলুল চৌধুরী।প্রোগ্রাম কো-চেয়ারম্যান রো:দুলাল হোসেন জুৃমান।সচিব. এম জুনেদ আহমদ। এছাড়া ও পরীক্ষা পরিচালনা পরিষদের নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, পরীক্ষা নিয়ন্রক মো শফিকুল ইসলাম। রোটা: আতাউর রহমান, নাজমুল হুসাইন, সোহান হোসাইন হেলাল,শেখ রুমেল, সাব্বির আহমেদ, সাইফুর রহমান চৌধুরী, সিরাজুল হাসান, আশরাফুল খান রুহেল, এস এম বশির,সুহিন উদ্দিন,মোঃফয়েজ  মোঃআরিফ খান,সালেহ আকরাম,জুবায়ের আহমদ জুবেল,, আব্দুল মুত্তাকিন শিবলু, শাহেদ তালুকদার, ফাহিম আহমদ মাহিন, মোঃশাকিল, ওয়াহিদ রাব্বি,মো: সোহেল আহমদ, সাইদুল ইসলাম রিমন,,সোহেল আহমদ, অমিত আল হাসান,বোরহান উদ্দিন,রফিকুল ইসলাম, ও রোমেল আহমদ  চৌধুরী,সহ প্রমুখ।
এখানে উল্লেখ্য  যে গত ২০ ডিসেম্বর  ২০১৮ ইং মৌলভীবাজার সরকারি কলেজ কেন্দ্রে অনুষ্ঠিতব্য  মেধা যাচাই  পরীক্ষার পুরস্কার বিতরণী  অনুষ্ঠানে বিজয়ী ১০৪ জন শিক্ষার্থীকে নগদ অর্থ, ক্রেস্ট ও শিক্ষা উপকর বিতরণ করা হয়েছে..।। প্রধান অতিথি সৈয়দা জহুরা আলাউদ্দীন এমপি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ কামাল হোসেন সহ সকল বক্তারা
শেখ বোরহান উদ্দীন (র:) ইসলামী  সোসাইটির বিগত দিনের কাজের ভূয়সী প্রশংসা করে  মৌলভীবাজারে মেডিকেল কলেজ দ্রুত বাস্তবায়ন ও জেলার উন্নয়নে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহবান জানান।। পরিশেষে সভার সভাপতি সংগঠন এর চেয়ারম্যান  এম. মুহিবুর রহমান মুহিব অনুষ্ঠান সফল করতে সহযোগিতাকারী সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেছেন।

ডেস্ক নিউজঃ  দুর্নীতি মামলায় কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ‘কারাগারে নিয়মিত খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়। এরপরও বিএনপি নেতাদের অনুরোধের কারণে আবারও তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হবে।’

রোববার দুপুরে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে যান। বিএনপি নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেশের সেরা চিকিৎসা হয় সরকারি হাসপাতালগুলোতে। এরপরও বিএনপির পক্ষ থেকে ইউনাইটেড হাসপাতাল ও অ্যাপোলো হাসপাতালে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা করার জন্য আবেদন করা হয়েছে। খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার বিষয়ে নিয়মিত খোঁজ-খবর নেন চিকিৎসকেরা। এরপরও বিএনপির দাবির পরিপ্রেক্ষিতে মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হবে। এ সময় সাংবাদিকের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মেডিকেল বোর্ড শিগগির গঠন করা হবে। তবে ঠিক কবে বোর্ড গঠন করা হবে, সে বিষয়ে তিনি কিছু বলেননি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের পর বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া কারারুদ্ধ আছেন। তার স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটেছে। বিষয়টি নিয়ে আমরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয়ের কাছে এসেছিলাম। আমরা তাকে অনুরোধ করেছি যে, দ্রুত বিশেষায়িত হাসপাতালে যেন তাকে চিকিৎসা দেয়া হয়। আমরা ইউনাইটেড হাসপাতাল যেটা তিনি পছন্দ করেন সেই হাসপাতালে নেওয়ার জন্য তাকে অনুরোধ করেছি।

ফখরুল বলেন, তিনি (স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী) বলেছেন যারা দায়িত্বে আছেন মন্ত্রণালয়ের সচিব ও আইজি প্রিজনসহ অন্যান্যদের সাথে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নিবেন। তিনি এও বলেছেন যে, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক যারা আছেন তাদের পরামর্শ নিয়ে ব্যবস্থা নেবেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কবে ব্যবস্থা নেবেন, এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে বিএনপির মহাসচিব বলেন, সেটি সুনির্দিষ্টভাবে তিনি কিছু বলেননি। বলেছেন যে, আজকেই ওই সভাটা করবেন।

বিকাল ৩টা থেকে ৩টা ৫০ পর্যন্ত সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চতুর্থ তলায় মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের কক্ষে এই বৈঠক চলে। বৈঠকের এক পর্যায়ে কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিনও মন্ত্রীর কক্ষে প্রবেশ করেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে বিএনপির প্রতিনিধি দলে স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, জমিরউদ্দিন সরকার, রফিকুল ইসলাম মিয়া, মির্জা আব্বাস, আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান ছিলেন।

তবে স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ বিদেশে, মাহবুবুর রহমান ও গয়েশ্বর চন্দ্র রায় অসুস্থ থাকায় এবং আমীর খসরু মাহমুদ চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা বিলম্বে পৌঁছানোর কারণে এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না বলে জানা গেছে।

সাংবাদিকদের সাথে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কথা বলার সময়ে বিএনপি খন্দকার মোশারররফ, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান ও চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান পাশেই ছিলেন। তবে বৈঠকের আলোচনার বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি।

জিয়া এতিমখানা দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ডপ্রাপ্ত খালেদা জিয়া গত ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ঢাকার পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি। জিয়া এতিমখানা দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ডপ্রাপ্ত খালেদা জিয়া গত ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ঢাকার পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি। জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট মামলার শুনানি শেষ করতে কারাগারের ভেতরেই আদালত বসিয়ে তার বিচারের ব্যবস্থা করেছে সরকার।

গত সপ্তাহে ওই আদালতে শুনানির প্রথম দিন সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া বিচারককে বলেন, তিনি অসুস্থ। এই অবস্থায় তার পক্ষে বার বার আদালতে আসা সম্ভব নয়। বিচারক যতদিন খুশি সাজা দিতে পারেন। কারাগারে এভাবে আদালত বসানোকে ‘সংবিধান পরিপন্থি’ আখ্যায়িত করে বিএনপি নেতারা বলছেন, তাদের ‘অসুস্থ নেত্রীকে জোর করে’ ওই আদালতে হাজির করা হয়েছে।

খালেদার অসুস্থতার কারণে এর আগে একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করেছিল সরকার। কিন্তু পরীক্ষা করে সেই মেডিকেল বোর্ড বলেছিল, বিএনপি চেয়ারপারসনের অসুস্থতা গুরুতর নয়। মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসকদের পরামর্শে এক্সরে করাতে গত ১৪ এপ্রিল খালেদা জিয়াকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে নেওয়া হয়েছিল। তবে সরকারের গঠিত ওই মেডিকেল বোর্ড নিয়ে বিএনপির অনাস্থা রয়েছে।

খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে এর আগে গত ২৭ মার্চ ও ২৩ এপ্রিল দুই দফা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে দেখা করেন বিএনপি নেতারা।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯জুনঃ   জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)।

বৃহস্পতিবার (২৮ জুন) এ বিষয়ে ডিপিই মহাপরিচালক আবু হেনা মোস্তফা কামাল বলেন, সম্প্রতি শেষ হওয়া ‘সহকারী শিক্ষক নিয়োগ-২০১৪’ লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশের কাজ চূড়ান্ত পর্যায়ে। জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে এ ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

তিনি বলেন, লিখিত পরীক্ষার খাতা সম্পূর্ণ কম্পিউটারাইজডভাবে মূল্যায়ন করা হয়েছে। নির্ভুলভাবে খাতা মূল্যায়ন হওয়ায় কাউকে নম্বর কম-বেশি করে দেয়ার কোনো সুযোগ নেই।

আবু হেনা মোস্তফা কামাল বলেন, পরীক্ষায় পাস করে দেয়ার লোভ দেখিয়ে প্রার্থীরা কারো সঙ্গে কোনো লেনদেন করবেন না।

মহাপরিচালক আরো বলেন, লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ করার দুই সপ্তাহের মধ্যে উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষা শুরু করা হবে। মৌখিক পরীক্ষা কয়েকটি ভাগে এক সপ্তাহের মধ্যে মৌখিক পরীক্ষা শেষ করা হবে এবং দুই মাসের মধ্যেই চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হবে।

তিনি বলেন, দ্রুত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক সংকট দূরীকরণ করা হবে। এ লক্ষ্যে চলমান নিয়োগের লিখিত পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পরেই নতুন করে আরো ১০ থেকে ১২ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে। স্থগিত হওয়া সহকারী শিক্ষক ২০১০ সালের এই নিয়োগ কার্যক্রম শেষ হলেও পরবর্তী নিয়োগের কার্যক্রম শুরু করা হবে বলেও জানান তিনি।

নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফল ও যাবতীয় তথ্য www.dpe.gov.bd এই ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।

গত ২০ এপ্রিল প্রথম ধাপের শিক্ষক নিয়োগ লিখিত পরীক্ষা শুরু হয়। সেখানে প্রায় দুই লাখ প্রার্থী অংশগ্রহণ করেন। দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষা গত ১১ মে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে প্রায় তিন লাখ প্রার্থী অংশগ্রহণ করেন। তৃতীয় ধাপের ২৬ মে প্রায় দুই লাখ এবং শেষ ধাপে ১ জুন প্রায় দুই লাখ প্রার্থী অংশগ্রহণ করেন।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৬মে,ডেস্ক নিউজঃ  এসএসসি ও সমমানের এবারের পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ হবে আজ রোববার। দুপুর ২টা থেকে শিক্ষা বোর্ড গুলোর ওয়েবসাইটে ফল পাওয়া যাবে। পাশাপাশি যেকোনো মুঠোফোন নম্বর থেকে এসএমএস (খুদেবার্তা) পাঠিয়ে পরীক্ষার্থীরা ফল জানতে পারবে।

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ আজ সকাল ১০টায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এসএসসির ফলাফলের সারসংক্ষেপ হস্তান্তর করবেন। এর পর দুপুর ১টায় সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে পরীক্ষার ফল ঘোষণা করবেন শিক্ষামন্ত্রী। তার পরই মুঠোফোনো এসএমএস-এর মাধ্যমে ফল জানা যাবে।

এসএমএস-এ যেভাবে পাওয়া পাবে ফলাফল যেকোনো মুঠোফোন অপারেটর থেকে SSC/DAKHIL লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০১৮ লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠিয়ে ফল জানা যাবে। এ ছাড়া শিক্ষা বোর্ডগুলোর ওয়েবসাইট http://www.educationboardresults.gov.bd থেকেও পরীক্ষার্থীরা ফল জানতে পারবে।

ফল পুনঃনিরীক্ষা রাষ্ট্রায়ত্ত্ব মুঠোফোন অপারেটর টেলিটক থেকে আগামী ৭ থেকে ১৩ মে পর্যন্ত এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করা যাবে। ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন করতে RSC লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে বিষয় কোড লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে। ফিরতি এসএমএসে ফি বাবদ কত টাকা কেটে নেওয়া হবে—তা জানিয়ে একটি পিন নম্বর (পার্সোনাল আইডেন্টিফিকেশন নম্বর) দেওয়া হবে।

আবেদনে সম্মত থাকলে RSC লিখে স্পেস দিয়ে YES লিখে স্পেস দিয়ে পিন নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে যোগাযোগের জন্য একটি মোবাইল নম্বর লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে। প্রতিটি বিষয় ও প্রতি পত্রের জন্য ১২৫ টাকা হারে চার্জ কাটা হবে। যেসব বিষয়ের দুটি পত্র (প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র) রয়েছে, সেসব বিষয়ের ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করলে দুটি পত্রের জন্য মোট ২৫০ টাকা ফি কাটা হবে। একই এসএমএসে একাধিক বিষয়ের আবেদন করা যাবে, এ ক্ষেত্রে বিষয় কোড পর্যায়ক্রমে ‘কমা’ দিয়ে লিখতে হবে।

গত ১ থেকে ২৫ ফেব্রুয়ারি এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার তত্ত্বীয় এবং ২৬ ফেব্রুয়ারি থেকে ৪ মার্চ ব্যবহারিক পরীক্ষা হয়। এবারের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল ২০ লাখ ৩১ হাজার ৮৮৯।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩১জানুয়ারী,গীতি গমন চন্দ্র রায় পীরগঞ্জ (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধিঃ আসন্ন এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা ২০১৮ খ্রিঃ অনুষ্ঠিতব্য তথ্য দিতে অনিহা প্রকাশ করেন পীরগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমি ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আরিফুল্লাহ। তিনি তথ্য ও উপাত্ত না দিতে গনমাধ্যম কর্মীদের  সময় ও কালক্ষেপন করেন। এ নিয়ে রানীশংকৈল উপজেলার নির্বাহী অফিসার নাহিদ হাসান পীরগঞ্জের অতিরিক্ত দায়িত্বে নিয়োজিত’র সঙ্গে মুঠো ফোনে জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি শিক্ষা অফিসারের নিকট অবগত করবেন বলে এ প্রতিনিধিকে জানান।

প্রকাশ গত ৩১ জানুয়ারী, ২০১৮ তারিখে পীরগঞ্জ উপজেলার মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা দপ্তর কার্যালয়ে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার বিষয়ে পরীক্ষার্থী, কেন্দ্র, ভ্যানু সহ ভোকেশনালের কেন্দ্রের ও পরীক্ষার্থীর সংখ্যার তথ্যাদি চাইলে উক্ত শিক্ষা অফিসার তথ্যাদি দিতে অনিহা প্রকাশ করেন। এসব তথ্যের জন্য ক’দিন ধরেই ঐ অফিসে এ গনমাধ্যম কর্মী সহ আরো কয়েক জন গনমাধ্যম কর্মী তথ্যাদির জন্য গেলে অফিস স্টাফ বসাক বাবু সহ অন্যান্য স্টাফগন আজ কাল, কাল পরশু দিন আসতে বলেন।

তিনারা  বলেন কর্মকর্তা ছাড়া কোন তথ্য দেওয়া যাবে না। গতকাল কয়েকবার ঐ অফিসে তথ্যাদির জন্য যাওয়া হলে শেষে বৈকাল ৪ ঘটিকার পরে শিক্ষা কর্মকর্তা আরিফুল্লাহ তার অফিসে কোচিং সেন্টার ব্যবসায় জড়িত ৪ ব্যবসায়ীর সঙ্গে কোচিং সম্পর্কে মশগুলে ব্যস্ত থাকেন। এ সময় কয়েক জন গনমাধ্যম কর্মী আসন্ন ১ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ খ্রিঃ পরীক্ষার তথ্যাদির জন্য জানতে চাইলে তিনি জানায় কতটি পরীক্ষা কেন্দ্র, কতজন পরীক্ষার্থী ও ভ্যানু কেন্দ্র কোথায় তার তথ্য তিনার কাছে নেই। এমন কি শিক্ষামন্ত্রণালয় কর্তৃক কোচিং সেন্টার ব্যবসায়ীরা পরীক্ষা সময়ের ৭দিন পূর্ব হতে বন্ধ রাখার জন্য জারিকৃত চিঠিপত্র দেখালেও তার কপি দিতে অনিহা প্রকাশ করেছেন।

তথ্য বিবরণীতে জানা যায় উক্ত অফিসার পাশ্ববর্তী জেলার বাসিন্দা হওয়ায় এ উপজেলায় যোগদানের পর থেকে তিনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষ ও ব্যাক্তিদ্বয়ের নিকট সুযোগ সময়ে কখনো তদন্ত ও অনিয় ত্রুটির নামে মোটা অঙ্কের উৎকোচ গ্রহণ করেন। উৎকোচ গ্রহণ করলেও ঐ ব্যাক্তিকে বিভিন্ন ভাবে হেনেস্তা করার তথ্য পাওয়া যায়। সর্বপুরি তিনি ধরাকে সরা জ্ঞান মনে করে খেয়াল খুশী ভাবে উপজেলা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তার এহেন কর্মকান্ডের জন্য স্থানীয় বেশ কিছু গণমাধ্যম কর্মীগন ধিক্কার ও অনিহা প্রকাশ করেছেন।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৮নভেম্বর,কমলগঞ্জ প্রতিনিধি:  সোমবার(২০ নভেম্বর) মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে অনুষ্ঠিত হচ্ছে আব্দুন নূর-নুরজাহান চৌধুরী ৩য় মেধা বৃত্তি পরীক্ষার ২০১৬ এর পুরস্কার বিতরণ । বিকাল ৩টায় কমলগঞ্জ পৌরসভা হলরুমে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৪র্থ, ৫ম ও ৮ম শ্রেণির ৩০ কৃতিশিক্ষার্থীকে পুরষ্কার বিতরণ করবেন জাতীয় সংসদের সাবেক চিফ হুইপ, আলহাজ্ব উপাধ্যক্ষ মোঃ আব্দুস শহীদ এমপি।

ট্রাষ্টের উপদেষ্টা মন্ডলীর চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুন নুর মাষ্টারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাহমুদুল হক, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এম, মোসাদ্দেক আহমেদ মানিক, কমলগঞ্জ পৌরমেয়র মো: জুয়েল আহমদ, মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ সদস্য অধ্যক্ষ ম. মুর্শেদুর রহমান, জেলা পরিষদ সদস্য বদরুজ্জামান সেলিম, বিশিষ্ট সাংবাদিক, সাহিত্যিক ও প্রাবন্ধিক আহমদ সিরাজ।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,১৮এপ্রিল,হৃদয় দাশ শুভ,নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমান পরীক্ষার ফল আগামী ২ অথবা ৪ মে ঘোষণা করা হতে পারে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রস্তাব করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি পেলেই উল্লেখিত তারিখের যে কোনো দিন আনুষ্ঠানিকভাবে ফল ঘোষণা করা হবে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (মাধ্যমিক) রুহী রহমান আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকমকে বলেন, পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৬০ দিনের মধ্যে পাবলিক পরীক্ষার ফল প্রকাশে সরকারের নীতিগত সিদ্ধান্ত রয়েছে। আগামী ৪ মে ৬০ দিন পূর্ণ হবে। বিগত বছরের মতোই এবারও ৬০ দিনের আগে ফল প্রকাশ করা হবে।
তিনি আরও বলেন, আগামী মাসের (মে) ২ থেকে ৪ তারিখের মধ্যে ফল প্রকাশে প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি চেয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। তিনি (প্রধানমন্ত্রী) যেদিন নির্ধারণ করবেন সেদিনই ফল প্রকাশ করা হবে।
উল্লেখ্য, গত ২ ফেব্রুয়ারি পরীক্ষা শুরু হয়ে ২ মার্চ শেষ হয়েছে। এছাড়া ব্যবহারিক পরীক্ষা গত ৪ মার্চ শুরু হয়ে শেষ হয় ১১ মার্চ। এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ১৭ লাখ ৮৬ হাজার ৬১৩ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে আটটি সাধারণ বোর্ডের অধীনে ১৪ লাখ ২৫ হাজার ৯০০ জন এবং মাদরাসা বোর্ডের অধিনে ২ লাখ ৫৬ হাজার ৫০১ জন ও কারিগরি বোর্ডের অধীনে (ভোকেশনাল) ১ লাখ ৪ হাজার ২১২ শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc