Tuesday 1st of December 2020 08:50:10 PM

নূরুজ্জামান ফারুকী নবীগঞ্জঃ  নবীগঞ্জে কাতার নেয়ার নামে জাল ভিসা দিয়ে প্রতারণার অভিযোগে ৩ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। গতকাল সোমবার নবীগঞ্জ উপজেলার নারাইন্দি গ্রামের মনর মিয়ার ছেলে রুমেল আহম্মেদ বাদী হয়ে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ মামলাটি দায়ের করেন। মামলার আসামীরা হলো, নবীগঞ্জ উপজেলার গজনাইপুর গ্রামের আব্দুল খালিকের ছেলে মোঃ খালেদ মিয়া, তার ভাই মাহমুদ মিয়া ও এক ই উপজেলার নারাইন্দি গ্রামের নানু মিয়ার ছেলে ছালিক মিয়া।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, মামলার বাদী রুমেল আহম্মেদকে মামলার ১নং আসামী খালেদ মিয়া কাতার নেয়ার জন্য ৩ লাখ ৬০ হাজার টাকা দিয়ে মৌখিক চুক্তি হয়। কথা অনুযায়ী গত ১৬ জুন প্রথমে ৫০ হাজার টা dকা ও পাসপোর্ট দিয়ে দেন। এর পর ২৫ জুলাই রুমেলকে নিয়ে ঢাকায় ট্রেনিং করানো হয়। এরপর ২০ আগস্ট বাকী ৩ লাখ ১০ হাজার টাকা দেয়ার পর ভিসার একটি ফটোকপি দেয় ১নং আসামী। এরপর তাকে চাপ প্রয়োগ করলে তিনি জানান ধৈর্য ধর কিছুদিনের মধ্যে বিদেশ পাঠানো হবে। এক পর্যায়ে বাদী ভিসা সঠিক আছে কিনা এমবিসিতে যাচাই করলে তারা জানান ভিসাটি জাল। এরপর ১নং আসামী খালেদের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি টালবাহানা শুরু করে এবং ভিসা জাল বলে স্বীকার করেন এবং টাকা ফেরত দেয়ার আশ্বাস প্রদান করেন।

কিন্তু টাকা ফেরত না দেয়ায় এ নিয়ে বেশ কয়েকবার  শালিস বিচার বৈঠক হলেও কোন সমাধান হয়নি ফলে বাধ্য হয়েই গতকাল আদালতে মামলা দায়ের করেন। আদালত মামলা গ্রহন করে সিআইডি পুলিশকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন।

সারা বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশেও করোনাভাইরাস মহামারীর থাবা পড়েছে। এর কারণে এ বছর পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষা না নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। এর কারণে আগামী ডিসেম্বরে গ্রেড বা জিপিএ নম্বর ছাড়া সব পরীক্ষার্থীর জন্য পাসের সার্টিফিকেট বিতরণের চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে । প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। সূত্র জানিয়েছে, প্রতিকূল পরিস্থিতির কারণে পঞ্চম শ্রেণির পরীক্ষার্থীদের পাসের সার্টিফিকেট দেয়া হবে। তবে সে সব সার্টিফিকেটে কোনো জিপিএ বা গ্রেড পয়েন্ট উল্লেখ থাকবে না। সার্টিফিকেটে শুধু ‘উত্তীর্ণ’ লেখা থাকবে। সেটি নিয়েই শিক্ষার্থীরা ষষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি হতে পারবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন সোমবার রাতে বলেন, এ বিষয়ে আগেই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। যেহেতু প্রাথমিক সমাপনী ও পঞ্চম শ্রেণির পরীক্ষা হচ্ছে না সেহেতু তাদের ষষ্ঠ শ্রেণিতে উন্নীত করার বিষয়ে স্ব-স্ব প্রতিষ্ঠান প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে। মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে গত ১৮ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ আছে। প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো প্রস্তাবে মন্ত্রণালয় বলেছে– ১৮ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি থাকায় ৩১ আগস্ট পর্যন্ত ৭১টি কর্মদিবস নষ্ট হচ্ছে। এতে শিক্ষার্থীদের ৪০৬ বিষয়ভিত্তিক পাঠদান ক্ষতিগ্রস্ত। ১ জানুয়ারি থেকে ১৭ মার্চ পর্যন্ত সিলেবাসের মাত্র ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ পড়ানো সম্ভব হয়েছে। পাঠ্যবইয়ের অবশিষ্ট অংশ শেষ করতে কমপক্ষে ৫০ কর্মদিবস দরকার। নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসে পাঠদান কার্যক্রম চালানো সম্ভব হলেও ৫০ কর্মদিবস পাওয়া যাবে না।

এতে আরও বলা হয়, করোনাভাইরাসের বিদ্যমান প্রাদুর্ভাবে সেপ্টেম্বর মাসে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া সম্ভব হবে কিনা সে সিদ্ধান্ত এখনও নেয়া হয়নি। খুলে দেয়া হলে অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের স্কুলে নাও পাঠাতে পারেন। জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার পর ভাইরাস পরিস্থিতিতে পুনরায় বন্ধ করে দিতে হয়েছে। অন্যদিকে করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের পর টেলিভিশনে পাঠদানের ব্যবস্থা করা হয়েছে। কিন্তু সমীক্ষায় দেখা গেছে, মাত্র ৫৬ শতাংশ শিক্ষার্থী টেলিভিশন পাঠদানের সুযোগটি গ্রহণ করতে সক্ষম হয়েছে। সম্প্রতি বেতারে পাঠদান কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এতে ৯৭ দশমিক ৬ শতাংশ শিক্ষার্থী পাঠদানের আওতায় আসতে পারে। এ ছাড়া ৭৬ শতাংশ শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সঙ্গে লেখাপড়ার বিষয়ে কথা বলতে পেরেছে।

এদিকে করোনা পরিস্থিতির কারণে সমাপনী-ইবতেদায়ি পরীক্ষা বাতিলে গত ১৯ আগস্ট প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটি সারসংক্ষেপ পাঠানো হয়। এ নিয়ে সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউসের উপস্থিতিতে শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিবের একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
সেখানে পরীক্ষা না নেয়ার প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীকে পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়। এর ভিত্তিতে একটি সারসংক্ষেপ তৈরি করে প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হলে তাতে সম্মতি দেয়া হয়। পরে পরীক্ষা না নেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়।

প্রতারনার অভিযোগে হবিগঞ্জের আদালতে মামলা

চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ  চুনারুঘাটের এক ব্যাক্তিকে বিদেশ নেয়ার নামে, বানিয়াচং এর কাউছার নামে এক দালাল  ৩  লক্ষ টাকা প্রতারনা করে আৎসাতের চেষ্টা করছে বলে আদালতে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে ভূক্তভোগি বিলাল মিয়া বাদি হয়ে দালাল কাউছারের বিরুদ্বে হবিগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত – ২ এ একটি মামলা দায়ের করেন (সি আর মামলা নং ৬৭/১৮ চুনারুঘাট) ।
মামলার বিবরনে জানা যায়, গত ২০১৬ ইং সনে  বানিয়াচং উপজেলার সুজাতপুর ইউনিয়নের ইকরাম গ্রামের আক্তার মিয়ার ছেলে মোঃ কাউছার মিয়া, চুনারুঘাট উপজেলার আলীনগর গ্রামের মোঃ আমির হোসেনের পুত্র মোঃ বিলাল মিয়াকে কাতার প্রবাসে নেয়ার কথা বলে ৩ লক্ষ টাকা নেয়। এর পর থেকে দালাল কাউছার কাল ক্ষেপণ শুরু করে। এক পর্যায়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বার ও মুরুব্বীদের নিয়ে একাধিক শালিস বৈঠক হয়।
শালিসে কোন প্রকার সমাধান  না হওয়ায় ভুক্তভোগী বিলাল গত ২০১৮ ইং সনে কাউছারের বিরুদ্বে আদালতে মামলা দায়ের করেন। মামলাটি বর্তমানে বিচারাধীন।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc