Friday 30th of October 2020 07:04:20 AM

নূরুজ্জামান ফারুকী:  মাধবপুরে  ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসা: য়ী গ্রেফতার:  মাধবপুর উপজেলার তেলিয়াপাড়া এলাকায় পৃথক অভিযান চালিয়ে ১৪শ ৫৫ পিস ইয়াবাসহ দু’মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পুলিশ জানায় শুক্রবার বিকাল ৩টায় তেলিয়াপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সেপেক্টও গোলাম মোস্তফা উপজেলার তেলিয়াপাড়া নোয়াহাটি মোড়ে অভিযান চালিয়ে ১৪’শ পিস ইয়াবাসহ শাহজাহানপুর ইউনিয়নের নোয়াগাও গ্রামের মিয়া হোসেনের ছেলে আব্দুল মোতালিব শামীম (২২) কে আটক করে।

অপর দিকে একই ফাঁড়ি এস.আই দ্রুবেশ রাত ৭টার দিকে তেমুনিয়া মোড়ে অভিযান চালিয়ে উপজেলার বহরা ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামের শাহজাহান মিয়ার ছেলে ফয়সল মিয়া (৩০)কে আটক করে। থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইকবাল হোসেন জানায় গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মামুন আহমেদ: দেশব্যাপী করোনা মৌসুমে যেখানে মানুষ মানুষ থেকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখে এরকম সময়ে ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও ভারসাম্যহীন নিখোঁজ ছেলেকে সামাজিক মর্যাদা দিয়ে সেবা-শুশ্রূষার মাধ্যমে তুলে দিলেন বাবার হাতে,এ ছিল এক পরম পাওয়া একজন পিতার জন্য একটি পরিবারের জন্য।পিতা পুত্রের মিলনের মাধ্যমে শেষ হলো একটি মানবিক গল্পের যার সৃষ্টি করেছিল একদল যুবক। জয় হলো মানবতার, ফেইসবুকের,জয় হলো সমাজসেবক প্রার্থ’দার,,জয় হলো আজিজুর রহমান নাঈম,শেখ সরোয়ার জাহান জুয়েল,মাহাদি হাসান,জুবেল আহমদ,তামজিদ পারভেজ,নাজমুল ইসলাম,সাদিক আহমদ রিফাত নাইমদের।
চার,পাঁচদিন হলো ফেইসবুকের ছড়িয়ে পড়া মানবিক কাজের সহযোগিতায় ছিলেন ডাক্তার,সমাজকর্মী,রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ।
শ্রীমঙ্গল লাউয়াছড়ার সেই মানসিক ভারসাম্যহীন যুবক এর পরিচয় পাওয়া গেলো নাম শরীফ কে চিকিৎসা করিয়ে ফেইসবুকের মাধ্যমে নাম পরিচয়হীন এই ছেলেটার বাবা মায়ের সন্ধানে নামে শ্রীমঙ্গল উপজেলা ছাত্রলীগের কিছু কর্মী এবং তাহাদের বন্ধু কিছু সমাজের কর্মী,উদ্ধার করে শ্রীমঙ্গল রেলওয়ে স্টেশনে রাত জেগে পাহারা দেয় ছাত্রলীগের কর্মীরা,আজ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে শ্রীমঙ্গল উপজেলা ছাত্রলীগের কর্মীরাসহ সাথে ছিল তাদের বন্ধু সমাজকর্মীরা।শরিফ কে তার বাবা ও দুলাভাই’য়ের নিকট হস্তান্তরের সময় উপস্থিত ছিলেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব নজরুল ইসলাম।

এভাবেই যত্রতত্র শুয়ে থাকতেন মানসিক বিকারগ্রস্ত শরীফ।

বাবার নিকট থেকে জানা যায় সে ২ বছর যাবত নিখোঁজ ছিলো। ময়মনসিংহ জেলার তারাকান্দা উপজেলার কামারগাঁও ইউনিয়নে তার বাড়ি, বাবার নাম খুরশেদ আলী।
শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত যারা সহযোগিতা করেছেন সকলের প্রতি রইলও আন্তরিক ধন্যবাদ ও শুভ কামনা।
মানবিক কাজে এগিয়ে এসে তাত্ক্ষণিক কিছু হৃদয়বান লোক সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে নগদ টাকা দিয়ে সহযোগিতা করেছেন। সাথে কিছু কাপড়,খাবার,দিয়ে তাহাদের বিদায় জানানো হয়।ছাত্রলীগ ভালো কাজও করে এটা প্রমাণিত।
প্রমাণ হলো-মানুষ মানুষের জন্য,জীবন জীবনের জন্য,জয় হউক মানবতার।জয় বাংলা।

মিনহাজ তানভীর: শ্রীমঙ্গলে ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনায় সহোদর দুই ভাই গুরুত্বর আহত হলে মৌলভীবাজার জেলা সদরের ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক।
স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশের এস আই রোকনুুজ্জামান এর সূত্রে জানা যায়, আজ বুধবার (২৩ সেপ্টেম্বর) বিকাল সোয়া চারটায় শ্রীমঙ্গল উপজেলার মৌলভীবাজার রোডস্থ রাজাপুর ও নোয়াগাঁও গ্রাম এর মধ্যবর্তী স্থানে ব্রীজের উপরে ওঠার আগে হবিগঞ্জ সিলেট বিরতি পরিবহনের একটি বাস অপর একটি পিকআপকে ওভারটেক করে ভৈরববাজারগামী একটি মোটর সাইকেলকে রাস্তার ডান পাশে মুখোমুখি ধাক্কা দিলে মোটরসাইকেলটি দুমড়ে-মুচড়ে ৫০/৬০ ফুট দূরে গিয়ে ছিটকে পরে। এসময় সাইকেল আরোহী সহোদরা দুই ভাই গুরুতর আহত হয়।

স্থানীয়রা ফায়ার সার্ভিসকে সংবাদ জানালে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা ঘটনাস্থলে এসে আহতদের একজনকে মুমুর্ষ অবস্থায় মৌলভীবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। এর আগে আহত অপরজনকে স্থানীয়রা হাসপাতালে প্রেরণ করে বলে জানা গেছে।

আহতরা হলেন শ্রীমঙ্গল উপজেলার ৫ নং কালাপুর ইউনিয়নের অন্তর্গত ভৈরবগঞ্জবাজার সংলগ্ন ৯ নং ওয়ার্ডের নয়নশ্রী গ্রামের ফুল মিয়ার ছেলে রাসেল মিয়া (২৫) ও রাহেল মিয়া (২২)।

স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, রাস্তা দিয়ে চলা যায় না। একেতো বে পরোয়া গাড়ী চালক তা ছাড়া রাস্তার পাশে আগাছায় জঙ্গল হয়ে থাকার কারণে একটি গাড়ি অপর গাড়িকে সাইড দিতে পারেনা পথচারীদের জন্য। অনেক সময় পথচারীদের বাঁচাতে গিয়ে কখনো কখনো ওভারটেক এর জন্য রাস্তার পাশে গাড়ি নামাতে গিয়ে ও অনেক দুর্ঘটনা ঘটে এমনকি রাস্তায় ফুটপাত ফ্রি না থাকার কারণে এলাকাবাসী এক এলাকা থেকে অন্য এলাকায় যাতায়াতে ভীত সন্ত্রস্ত থাকতে হয়।

পিন্টু অধিকারী মাধবপুর প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের মাধবপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামে এঘটনা ঘটে।

এলাবাসী সুত্রে জানা যায়, ওই গ্রামের মোঃ ফয়সল আহম্মেদ লিপনের ছেলে আবরার আহমেদ (২) সকলের অগোচরে বাড়ির পাশে পুকুরে পড়ে মারা যায়।পরে পুকুরে লাশ দেখে সকাল ১০টা দিকে উদ্বার করা হয়।

এর কয়েক ঘন্টা পর একই গ্রামের জহিরুল ইসলাম মিন্টুর মেয়ে মোছাঃ তানিশা আক্তার (৩)পানি ডুবে মারা যায়। তানিসা বাড়ির সকলের অগোচরে খেলতে গিয়ে পুকুরের পানিতে ডুবে মারা যায়। পরে পুকুরে লাশ ভেসে উঠলে উদ্বার করা হয়।

মাধবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইকবাল হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চত করেছে। একই দিনে গ্রামের দুই শিশু মৃত্যুর ঘটনা এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

সানিউর রহমান তালুকদার,নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) থেকে:  আব্দুল মমিন (৪০)। প্রায় চৌদ্দ বছর পূর্বে প্রবাসে পাড়ি জমান। প্রথমে ইরান এরপর তুরস্ক হয়ে ইরোপের দেশ গ্রীসে যান। সেখানে দশ বছর ধরে বসবাস করে আসছিলেন। কাজ করতেন গ্রীসের রাজধানী এথেন্সের আসপোগিরগো এলাকায়। তার বাড়ি হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার পূর্ব বড় ভাকৈর ইউনিয়নের কামড়াখাই গ্রামে। তার পিতা আব্দুর রাজ্জাক। একই গ্রামের নূর হোসেনের ছেলে শাহীন মিয়াও পরিবারের স্বচ্ছলতা ফেরাতে সাত বছর আগে ওইভাবে পাড়ি দেন প্রবাস জীবনে। সবে দুই বছর হয়েছে ইরোপের দেশ গ্রীসে যান। সেখানে গিয়ে আশ্রয় নেন আব্দুল মমিন’র কাছে। দুইজন কাজও করতেন একই কোম্পানিতে।
কিন্তু গত মঙ্গলবার ভোর রাতে কোনো এক সময় ইউরোপের দেশ গ্রীসে সন্ত্রাসীদের গুলিতে খুন হন তারা দুইজনই। ঘটনাটি ঘটে গ্রীসের রাজধানী এথেন্সের আসপোগিরগো এলাকায়। ওইদিন স্থানীয় সময় সকাল ১১টার দিকে গুলিবিদ্ধ মরদেহগুলো উদ্ধার করে গ্রীসের পুলিশ। এ হত্যাকান্ডের খবরে নিহতের বাড়িতে চলছে স্বজনদের শোকের মাতম। ছেলের শোকে নিহতের পিতা মাতা অচেতনপ্রায়। অশ্রুসিক্ত নয়নে অপেক্ষায় আছেন কখন ছেলের লাশ বাড়ি ফিরবে।
জানা যায়, ওই গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে আব্দুল মমিন (৪০) ও একই গ্রামের নূর হোসেনের ছেলে শাহীন মিয়া (২৫) পরিবারের স্বচ্ছলতা ফেরাতে গ্রীসের আসপোগিরগো এলাকায় একটি কন্টেইনার কোম্পানিতে পাহাড়াদার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। আব্দুল মমিন প্রায় ১৪ বছর ধরে প্রবাসে বসবাস করছেন। ইরান, তরস্ক হয়ে প্রায় দুই বছর পূর্বে গ্রীসে যান শাহীনও। মমিনের সেখানে কাজে তিনিও যোগ দেন। কিন্তু গত মঙ্গলবার রাতের কোনো এক সময় একদল সন্ত্রাসীরা একজনের মাথায় এবং অন্যজনের গলায় গুলি করে হত্যা করে। পরদিন সকালে স্থানীয়রা দুই মরদেহ দেখতে পেয়ে সেখানের পুলিশকে খবর দেন। পরে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে তাদের জিম্মায় নিয়ে যায়।
সেখানের বসবাসরত প্রবাসীরা জানান, দু’টি কন্টেইনারে ডাকাতির প্রস্তুতি নেয় সন্ত্রাসীরা। এসময় মমিন ও শাহীন বাঁধা দিলে তাদেরকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। এনিয়ে পুলিশ তদন্তে নেমেছে এবং মরদেহগুলো বাংলাদেশে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।
নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তারা বাড়িতে টাকা পাঠানোর জন্য টাকা জমা করেছিল। তাদেরকে খুন করে তাদের টাকা পয়সা লুট করেছে সন্ত্রাসীদল। নিহত আব্দুল মমিনের ২ ছেলে ১ মেয়ে। বাবা হত্যার বিচার দাবী করে দেশে লাশ আনার ব্যাপারে সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করছে তারা।
নিহত আব্দুল মমিনের মা গুলেছা বিবি কান্না জড়িত কণ্ঠে জানান, আমার ছেলেকে যারা নির্মমভাবে হত্যা করেছে আমি এর বিচার চাই এবং সরকারের কাছে আমার একটাই দাবী ‘আমার ছেলেকে শেষ দেখা দেখতে চাই’। অপরদিকে নিহত শাহীনের পিতা নুর হোসেন জানান, ‘আমার অবিবাহিত শাহীন পরিবারের কথা চিন্তা করে বিগত সাত বছর পূর্বে প্রবাসে যায়, সেখানে ইরান, তুরস্ক হয়ে দুই বছর ধরে গ্রীস বসবাস করে আসছে, তার এ দুর্ঘটনার আগে আমাদের সাথে কথাও হয়েছে শাহীনের, এমন ঘটনায় আমরা বাকরুদ্ধ, আমি আমার ছেলে হত্যার বিচার চাই, এবং আমার ছেলেকে শেষ দেখা দেখতে চাই।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শেখ মহিউদ্দিন জানান, খবরটি শুনে তিনিও শোকাহত। লাশ দেশে ফেরাতে সরকারীভাবে যা কিছু করতে হয় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন তিনি।

মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি:  হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার কালিরবাজার থেকে ৫৪০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ দুই মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে পুলিশ।

 মঙ্গলবার(৮ সেপ্টেম্বর) রাতে কাশিমনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মোরশেদ আলম এর নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়।

 অভিযানে আটককৃতরা হলেন উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের সুলতানপুর গ্রামের তারাব আলীর ছেলে বাবুল মিয়া (৪০) এবং একই গ্রামের দুধ মিয়ার ছেলে নাসির মিয়া (৪৫)।

আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে কাশিমনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (পুলিশ পরিদর্শক) মোরশেদ আলম জানান, রাতে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে ৫৪০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ উল্লেখিত দুইজনকে আটক করা হয়।

আটককৃতদের বিরোদ্ধে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের এর প্রস্ততি চলছে।

সাদিক আহমেদ,নিজস্ব প্রতিনিধি: মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার সদর ইউনিয়নের পশ্চিম ভারাউরার মধু মিয়ার বাড়ির পাশের পুকুরে পানিতে ডুবে ৫ বছরের দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার ১৪ জুলাই উপজেলার সদর ইউনিয়নের অন্তর্গত পশ্চিম ভাড়াউড়া এলাকায় এই দূর্ঘটনাটি ঘটে।

নিহত শিশু দুটি হচ্ছে অত্র এলাকার মোছাঃ রেশমী আক্তার (০৫),পিতা:মধু মিয়া এবং মোছাঃ মারিয়া আক্তার(০৫),পিতা:ফারুক মিয়া। প্রতিদিনের মতো শিশুদুটি বাড়ির আশেপাশে খেলাধুলা করতে যায়।কিন্তু এদিন সন্ধ্যা ৬ টার মধ্যে শিশু দুটি ঘরে ফিরে না আসলে পরিবারের লোকজন শিশু দুটিকে খোজাখুজি করতে থাকে।

এক পর্যায়ে রাত সাড়ে নয়টায় মধু মিয়ার বাড়ির পাশের পুকুরে শিশু দুটির ভাসমান মরদেহ পাওয়া যায়। বুধবার ১৫ জুলাই সকাল ১০ টায় শিশু দুটির জানাজার নামাজ পশ্চিম ভাড়াউড়া শাহী ঈদগাহে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

সরকারী খাদ্য কর্মসূচির চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়াই এক মহিলা সদস্যসহ ২ ইউপি সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

নিজস্ব প্রতিবেদক,মৌলভীবাজার: মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার ৫নং কালাপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৩ নং ওয়ার্ডের সদস্য মুজিবুর রহমান এবং ১, ২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের মহিলা সদস্য সাহিদা বেগম রুপার  বিরুদ্ধে সরকারী খাদ্য কর্মসূচির চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় এই দু’জনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৫মে ২০২০) এক প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে এই সাময়িক বহিস্কারের আদেশ দেন স্থানীয় সরকার,পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয় এর স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসচিব মোহাম্মদ ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী।

রেজওয়ান করিম সাব্বির, জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধি: জৈন্তাপুর উপজেলার লালাখাল সীমান্তের ১৩০১ নং অার্ন্তজাতিক পিলার বাঘছড়া এলাকা দিয়ে চোরাইপথে গরু অানতে গিঢে ভারতীয় বিএসএফ‘র ধাওয়া খেয়ে দুই বাংলাদেশী নাগরিক আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। গতকাল ২৭ জানুয়ারি সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে সীমান্ত এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। এই ব্যাপারে লালাখাল ও জৈন্তাপুর সীমান্ত ফাড়িঁর বিজিবি সদস্যরা জানান, খাসিয়া ও বিএসএফ‘র ধাওয়া খেয়ে ভারতে সুপারি চুরি করতে গিয়ে দুই বাংলাদেশী নাগরিক আহত হয়েছে বলে স্বীকার করেছেন।
এলাকাবাসী ও চোরাকারবারীর একটি অংশ জানায়, লালাখাল সীমান্তের ১৩০১ আর্ন্তজাতিক পিলার সংলগ্ন বাঘছড়া এলাকার ভারতীয় উকিয়াং নামক স্থান দিয়ে বাংলাদেশে গরু প্রবেশের কয়েকজন বাংলাদেশী নাগরিক প্রবেশ করে।

আহত আরেক বাংলাদেশী

এসময় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ ও খাসিয়ার ধাওয়া খেয়ে দুই বাংলাদেশী নাগরিক আহত হয়। আহত দুই নাগরিক সহ অনেকই প্রতিদিন রাতে সীমান্ত এলাকায় দিয়ে গোপনে ভারত থেকে গরু-মহিষ সহ অবৈধ চোরাচালান কাজে যাতায়াত করেন।

এই ঘটনায় আহত দুই বাংলাদেশী নাগরিক হলেন জৈন্তাপুর উপজেলার উত্তর কালিঞ্জী বাড়ি গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে রাসেল আহমদ (৩০) এবং বাইরাখেল গ্রামের মৃত আব্দুল মুতলিব‘র ছেলে আব্দুল জলিল (২৭)।
আহত দুই বাংলাদেশী নাগরিক সোমবার রাতে গোপনে জৈন্তাপুর হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসেন। এসময় সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে আহত আব্দুল জলিল পালিয়ে যান। রাসেল আহমদ প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে চলে যান। এই ব্যাপারে জৈন্তাপুর হাসপাতালে দায়িত্বরত আবাসিক চিকিৎসক রুবেল আহমদ জানিয়েছেন রাতে জরুরী বিভাগে চিকিৎসা নিতে রাসেল নামে একজন রোগী এসেছিলেন। প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে চলে গেছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলার কসবায় দুই ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১৬ জনের মধ্যে ৫ জনের পরিচয় পাওয়া গেছে।

নিহতদের হাতের আঙুলের ছাপ নিয়ে মঙ্গলবার সকালে তাদের পরিচয় শনাক্ত করেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের সদস্যরা।

নিহতদের মধ্যে যে পাঁচজনের পরিচয় পাওয়া গেছে, তারা হলেন- হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার মদনমোরাদ এলাকার আইয়ূব হোসেনের ছেলে আল-আমিন (৩৫), আনোয়ারপুর এলাকার মো. হাসানের ছেলে আলী মোঃ ইউসূফ (৩৫), চুনারুঘাট উপজেলার পীরেরগাঁও এলাকার সুজন (২৪), চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার রাজাগাঁও এলাকার মজিবুর রহমান (৫০) ও তার স্ত্রী কুলসুমা বেগম (৪২)।
মঙ্গলবার ভোর রাত সাড়ে তিনটার দিকে কসবা উপজেলার ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় শতাধিক যাত্রী আহত হয়েছেন।তবে নিহতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

জেলা প্রতিনিধি,নড়াইলঃ বাংলাদেশের ওয়াকার্স পার্টির ১০ম কংগ্রেসকে সামনে রেখে নড়াইল জেলা শাখার ৬ষ্ঠ জেলা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ‘সামাজিক ন্যায্যতা-সমতা প্রতিষ্ঠাসহ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তোলার’ অঙ্গিকার নিয়ে শনিবার (১৯ অক্টোবর) সকাল ১০টায় স্থানীয় জেলা পরিষদ মিলনায়তনে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
এর আগে জেলা পরিষদ চত্বরে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে সম্মেলনের উদ্বোধন করা হয়। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সংগীত পরিবেশনের সাথে সাথে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পতাকা উত্তোলন করেন যথাক্রমে পার্টির পলিট ব্যুরোর সদস্য ও সাবেক যশোর জেলা সভাপতি কমরেড ইকবাল কবির জাহিদ এবং জেলা সাধারণ সম্পাদক কমরেড অ্যাডঃনজরুল ইসলাম। এ সময় পার্টির নির্বাচিত প্রতিনিধি ও পর্যবেক্ষক উপস্থিত ছিলেন।
সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরে‌্যার সদস্য কমরেড ইকবাল কবির জাহিদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন ওয়ার্কার্স পার্টি খুলনা জেলা শাখার সভাপতি কমরেড মিনা মিজানুর রহমান, ওয়ার্কার্স পার্টি যশোর জেলা শাখার সভাপতি কমরেড নাজিম উদ্দিন।
অন্যান্যের মধ্যে মে উপস্থিত ছিলেন, ওয়ার্কার্স পার্টি নড়াইল জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক কমরেড নজরুল ইসলাম, সদস্য কমরেড সচীন্দ্রনাথ অধিকারী, কমরেড স্বপন বিশ্বাস, পলাশ কুন্ডু, স্বপ্না সেন প্রমুখ।
সম্মেলনে জেলা কমিটির সভাপতি শেখ হাফিজুর রহমান (সাবেক এমপি) অনুপস্থিত থাকায় সভা পরিচালনার জন্য সম্মেলনে সর্বসম্মতিক্রমে সভাপতি মন্ডলীর তিনজন সদস্য নির্বাচিত করা হয় । নির্বাচিত সভাপতিমন্ডলীবৃন্দরা হলেন মলয় কান্তি নন্দী, আমিরুল ইসলাম ও মোল্যা শাহাদৎ হোসেন ।
২য় অধিবেশনে প্রতিনিধি ও পর্যবেক্ষকদের মতামতের উপর ভিত্তি করে ২৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়। নতুন কমিটির সভাপতি কমরেড নজরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক কমরেড আমিরুল ইসলাম, সদস্য কমরেড অরবিন্দু আচার্য্য, মনিউর রহমান জিকু, কমরেড জহিরুল হক, কমরেড মলয় নন্দী, কমরেড স্বপন বিশ্বাস, কমরেড সচীন্দ্র অধিকারী, কমরেড শাহাজান মৃধা, কমরেড রবিন্দ্রনাথ বিশ্বাস, কমরেড স্বপ্না সেন, কমরেড আনোয়ার হোসেন, কমরেড পলাশ কুন্ডু, কমরেড প্রতীক রায়, কমরেড আকমল হোসেন , কমরেড আব্দুল কুদ্দুস সুমন, কমরেড স্বপন, কমরেড সুকুমার কুন্ডু, কমরেড কংকন পাঠক, কমরেড সঞ্জীত রাজবংশী, কমরেড সুনিল বিশ্বাস । এর সাথে আরো দু’জন সদস্য জেলা কমিটিতে কোআপ করা হবে।
সভা শেষে শপথ বাক্য পাঠ করান বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি পলিট ব্যুরো সদস্য ও যশোর সাবেক জেলা সভাপতি কমরেড ইকবাল কবির জাহিদ।
অপরদিকে নড়াইল শহরে অভিলাশ কমিউনিটি সেন্টারে বর্তমান সভাপতি অ্যাডঃ শেখ হাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে ওয়ার্কার্স পার্টি নড়াইল জেলা শাখা সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
শেখ হাফিজুর রহমানের নেতৃত্বাধিন সম্মেলন শেষে ১৪ সদস্য বিশিষ্ট একটি পাল্টা কমিটি ঘোষণা করা হয়। এতে শেখ হাফিজুর রহমানকে সভাপতি এবং নওরোজ মোল্যাকে সাধারণ সম্পাদক ও সদস্য হলেন শাহাদাৎ হোসেন মোল্যা, গিয়াস ভুইয়া, মাহামুদুল হাসান সাইফুল্লা, সুবোধ বিশ্বাস, অ্যাডঃ আনন্দ মোহন দাশ, পারভেজ আলম বাচ্চু, বিপ্লব ঘোষ, ইব্রাহীম মোল্যা, আব্দু সাত্তার, মঈন হাসান কাজল, পবিত্র দাশ হারান।
এদিকে সম্মেলন সূত্রে জানাগেছে, একই জেলায় পাল্টাপাল্টি সম্মেলন করায় এবং পার্টির শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে সম্মেলনে উপস্থিত সকলের সর্বসম্মতিক্রমে নওরোজ হোসেন, মোল্যা শাহাদৎ হোসেন ও গিয়াস ভূইয়াকে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি নড়াইল জেলা শাখা থেকে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত গৃতিত হয় এবং একই সাথে নড়াইল জেলা পার্টির সাবেক সভাপতি শেখ হাফিজুর রহমানকে বহিষ্কারের জন্য পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির নিকট সুপারিশ করা হয়েছে।

নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ নবীগঞ্জে পানিতে ডুবে প্রতিবন্ধী দুই শিশু সহোদরের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। সোমবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের পূর্ব জাহিদপুর গ্রামে এঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন, উপজেলার সদর ইউনিয়নের পূর্ব জাহিদপুর গ্রামের আজমান আলীর শিশু পুত্র প্রতিবন্ধী শাহান আহমেদ (১০) ও রাহান আহমেদ (৭)।
স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উল্লেখিত সময় পরিবারের অগোচরে শিশু শাহান ও রাহান উঠানের পাশ্ববর্তী পুকুরে নামে। এরপর থেকে তাদের আর কোনো সন্ধান পাওয়া যাচ্ছিল না। সম্ভাব্য স্থানে খুঁজাখুঁজি প্রায় ১ঘন্টা পর পুকুরে দুই ভাইর নিথর দেহ ভাসমান অবস্থায় দেখতে পায় পরিবারের লোকজন। এসময় তাৎক্ষণিক স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।
এঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ  নড়াইলের কালিয়া উপজেলার নড়াগাতি থানার কান্দুরী গ্রামে দুইজনকে হত্যার ঘটনায় দোষীদের গ্রেফতারসহ বিচার দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বেলা ১১টার দিকে নড়াগাতি থানার কলাবাড়িয়া ইউনিয়নের কান্দুরী গ্রামে এলাকাবাসীর আয়োজনে এ কর্মসূচীর পালিত হয়। মানববন্ধনে নারী-পুরুষসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করেন।
এ সময় দোষীদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন কান্দুরী গ্রামের ইমান আলী মোল্যা এবং আবুল বাশার রুকু মোল্যা হত্যা মামলার বাদী আইচপাড়ার জসিম মোল্যা, সাদেক মোল্যা, নিহত ইমান আলীর বোন সালমা বেগম, নিহত রুকুর মা ও ইমান আলীর স্ত্রী।
বক্তারা বলেন, এলাকায় আধিপত্য বিস্তার, পূর্বশত্রুতা ও জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে ২০১৮ সালের ৬ ডিসেম্বর নড়াইলের নড়াগাতি থানার কলাবাড়িয়া ইউনিয়নের কান্দুরী গ্রামে ধানকাটার সময় ইমান আলী মোল্যা (৩৫) ও আবুল বাশার রুকু মোল্যাকে (৩৪) বিএনপি সমর্থিত ইলিয়াস মোল্যা ও গোলাম তালুকদারসহ তার লোকজন নির্মম ভাবে কুপিয়ে এবং গুলি করে হত্যা করে। এছাড়া আতর্কিত ভাবে শটগানের গুলিতে ও কুপিয়ে অন্তত পাঁচজন গুরুতর আহত হন।
এই ডাবল মার্ডারসহ আহতের ঘটনায় ১০৫ জনকে আসামি করে নড়াগাতি থানায় মামলা দায়ের করা হয়। হত্যাকান্ডের সাত মাস অতিবাহিত হলেও সব আসামিকে গ্রেফতার করেনি পুলিশ। এরা সকলে বিএনপির লোক। এই মামলা তুলে নিতে বাদী জসিম মোল্যাকে বিভিন্ন সময়ে হুমকি দেয়া হয়েছে। গত ১৩ এপ্রিল সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কান্দুরী গ্রামের তিতু মোল্যার বাড়ির কাছে জসিমের পথরোধ করে ওই গ্রামের রাবু মোল্যা, মিজান চৌধুরী, অকিদুর চৌধুরী, আলিম মোল্যা, জিয়ার মোল্যা, জুবায়ের মোল্যা, সজিব মোল্যা, সাজিদ তালুকদার ও সাকিব তালুকদার তাকে (জসিম) রামদাসহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে মামলা তুলে নিতে হুমকি দেয়। মামলা না তুললে মেরে ফেলার কথাও বলে তারা। এ ঘটনায় জসিম গত ১৮ এপ্রিল নড়াগাতি থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।
এদিকে এ হত্যা মামলার আসামি কান্দুরী গ্রামের ইলিয়াস মোল্যা (৫০), গোলাম তালুকদার (৫৫), মিজান চৌধুরী (৩৫), সবিজ মোল্যা (৩০) ও রউফ মোল্যা (৪৫) জামিনে বেরিয়ে আগ্নোয়াস্ত্র ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে এলাকায় প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে, বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এমনকি বাদীপক্ষের লোকজনকে বিভিন্ন সময়ে হুমকি দিয়ে চলেছে। ভুক্তভোগীরা এদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্ঠান্তমূলক শাস্তির ব্যাবস্থা করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দাবি জানান

শ্রীমঙ্গলের মাজদিহি এলাকা থেকে রোববার দিবাগত রাতে পুলিশের হাতে গাঁজাসহ একজনকে আটক করা হয়।

পরে শ্রীমঙ্গল থানা সুত্রে জানা গেছে, আটক ব্যক্তি শ্রীমঙ্গল উপজেলার ৫নং কালাপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য অমৃত সিং ছৈত্রী (৪৬)। তার  পিতার নাম, মৃত বসন্ত সিং ছৈত্রী, সাং- মাইজদিহি চা বাগান (৯নং লাইন), থানা শ্রীমঙ্গল, জেলা মৌলভীবাজার। এসআই অনীক বড়ুয়ার নেতৃত্বে এএসআই ইমাম হোসাইন, এএসআই সাকির হোসেনসহ একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে মাইজদিহি চা বাগানস্থ ৯নং লাইনের তাহার বাড়ির সম্মুখ হইতে ৫ কেজি গাঁজাসহ তাকে গ্রেফতার করেন।

এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আব্দুছ ছালেক বলেন, গ্রেফতারকৃত ইউপি মেম্বারের বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মাদক মামলা রয়েছে।

উল্লেখ্য স্থানীয়দের সুত্রে মোবাইল ফোনে নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঘটনার রাতে আমার সিলেটকে জানান দু’ই বস্তা গাঁজাসহ অমৃত মেম্বারকে পুলিশ আটক করেছে তবে তারা এর পক্ষে কোন প্রমান দিতে পারেনি।

হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার লস্করপুর চা বাগানে গত ২৪ জুন চা শ্রমিকদের চা পাতা ওজনের সময় ৪-৬ কেজি চা পাতা কর্তন করার প্রতিবাদে আজ বাগানের অফিস প্রাঙ্গণে প্রতিবাদি ঝড় তুললেন চা শ্রমিকরা।
চা শ্রমিকের সন্তান শ্রী প্রসাদ চৌহান সোমবার দুপুর ১২.৩০ মিনিটে বাগানের ১৭ নম্বর সেড ঘরে ওজন মাপার সময় বিষয়টি প্রত্যক্ষ ভাবে লক্ষ্য করেন এবং সেই কাজে নিয়োজিত থাকা নিপেন বাবুকে প্রশ্ন করেন ৪-৬ কেজি চা পাতা ওজন থেকে কমানোর অনুমতি কোথা থেকে পেয়েছেন,উত্তরে নিপেন বাবু জানান চা বাগানের ম্যানেজার এবং চা শ্রমিকরা বিষয়টা জানেন,কিন্তু চা শ্রমিকদের কাছে জানতে চাইলে চা শ্রমিকরা বিষয়টা অস্বীকার করেন।পরবর্তী সময়ে বাগানের ম্যানেজার কাছে জানতে চাওয়া হবে বলে সেখান থেকে চলে যায় বাড়িতে।

অন্যদিকে ২৫ জুন দুপুরে পাতা ওজনের সময় সেকশনের কাজে নিয়োজিত থাকা নিপেন বাবু প্রত্যক্ষ ভাবে প্রধান ম্যানেজার আরিফ আহমেদের কাছে অভিযোগ করেছে “শ্রী প্রসাদ” নামের এক ছেলে খারাপ ব্যবহার করেছেন। বিষয়টা বোঝে উঠার আগেই চা শ্রমিকদের উপস্থিতিতে ছেলেটা কোন জায়গার ফালতু ছেলে এবং কোন সাহসে সেকশনে এসব কথা বলে,তাকে ধরে চড় থাপ্পর মারা উচিত ছিলো বলেছেন বলে চা শ্রমিকদের কাছে জানা যায়।

তারই ফল স্বরুপ আজ সকল চা শ্রমিকদের ঐক্যবদ্ব ভাবে প্রতিবাদ করার অনুপ্রেরণা জাগিয়ে চা শ্রমিক, শিক্ষার্থী, যুবক যুবতি সহ সবাইকে নিয়ে বাগানের অফিস প্রাঙ্গণে সকাল ৯ টা থেকে ১০ টা পর্যন্ত বাগানের ম্যানেজার আরিফ আহমেদকে প্রশ্ন করে জানতে চাওয়া হয় যে ৪-৬ কেজি চা পাতা কর্তন করার অনুমতি কেনো দিয়েছেন বাবুকে,উত্তরে বড় ম্যানেজার জানান যে ১ কেজি চা পাতা কাটারোও অনুমতি দেওয়া হয় নাই বাবুকে,এবং গালিগালাজ করার জন্য চা শ্রমিকদের কাছে এবং শ্রী প্রসাদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করলেন জনাব আরিফ আহমেদ।
সকল চা শ্রমিকরা দাবি করেছেন নিপেন বাবু যেনো বাগান থেকে চলে যান এবং চা শ্রমিকের যেনো ডিজিটালে মেশিনে পাতা ওজন করা হয় তাছাড়া বাগানের শিক্ষিত কোন মহিলা চা শ্রমিক যেনো ওজনের বিষয়টা প্রতিদিন খেয়াল করেন। চা শ্রমিকদের এইসব দাবি পুুরন করবেন বলে আশ্বাস দেন প্রধান ম্যানেজার এবং বলেন এর পরবর্তী সময়ে যদি কোন বাবু এক কেজিরও বেশি পাতা কর্তন করে তাহলে তাকে বাগান থেকে বহিঃস্কার করা হবে।
চা শ্রমিকরা বলেন দুইমাসের মধ্যে যদি বাগান থেকে বাবুকে বহিঃস্কার করা না হয় তাহলে বাগানে কাজ কর্ম বন্ধ থাকবে।
অবশেষে চা শ্রমিকরা আবারো তাদের কর্মে ফিরে গেলেন।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc