Saturday 5th of December 2020 05:49:44 PM

গীতি গমন চন্দ্র রায় গীতিঃ  ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে গত ১১ই জুলাই ২০২০ সকালে ও দুপুরে ১ নং ভোমরাদহ ইউনিয়নের গাজী পড়া গ্রামের নুরজামালের স্ত্রী মেরিনা আক্তার ও ফরজনের স্ত্রী নুরবানু একই গ্রামের প্রতিপক্ষ রওশন আলী,রেজাউল ইসলাম,রসন আলী,কহিনুর ও মৌসুমীর মারপিটের আঘাতে গুরুতর আহত হলে স্থানীয় অটোযোগে বিকালে চিকিৎসার জন্য পীরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হন।বর্তমানে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন মেরিনা আক্তার ও নুরবানু।
জানা যায় ফরজন আলীর লাগানো বাস প্রতিপক্ষ রসন আলী, রেজাউল, রওশন বাস কাটলে এতে বাধা দেন মেরিনা ও নুরবানু সে সময় প্রতিপক্ষেরা ক্ষিপ্ত হয়ে মেরিনা ও নুরবানুকে মারপিট ও শ্লীলতা হানী ঘটায়।
এ বিষয়ে মেরিনা ও নুরবানু গণমাধ্যম প্রতিনিধি কে বলেন আমার বাস প্রতিপক্ষ গন কাটলে আমরা এতে বাধা দিলে আমাদেরকে মারপিটে জখম করেছে।বর্তমানে চিকিৎসা নিচ্ছি। সুস্থ হয়ে বাড়ী যাওয়ার পরে আইনের আশ্রয় নিব।এদিকে ঐ এলাকায় খবর নিয়ে দেখা যায় মেরিনাদের বাস কেটে ওদেরকেই মারপিট  করেছে বলে এলাকার কয়েক জন বলেন।

স্টাফ রিপোর্টারঃ ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে গত ১৩ই মে ২০২০ ইং তারিখে মোঃ কসিরদ্দীন ওরফে গুন্ডরী,মোঃ হামিদুল ও মোঃমামুন পরিকল্পিত ভাবে বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে মোঃ আব্দুল হাইকে বেধম মারপিট ও হামলা চালায়।জানা যায়,মোঃমিন্টু ও আব্দুল হাই পারস্পরিক সুসম্পর্কের বন্ধুতে দীর্ঘ দিন ধরে একসাথে শ্রমিক হিসেবে কাজ করে সংসার চালান বর্তমানে আব্দুল হাই ও মিন্টু কলা ব্যবসা করার পরিকল্পনা করেন,সে বিষয়ে ব্যবসায়িক আলাপ আলোচনা করার জন্য মোবাইল ফোনে মিন্টু তার বাড়ীতে আসতে বলেন পরে মিন্টুর বাড়ীতে আব্দুল হাই গেলে দূই বন্ধু মিলে আলোচনা করেন সে সময় হঠাৎ কসিরদ্দীন ওরফে গুন্ডরী ও তার দুই ছেলে হামিদুল ও মামুন।
মিন্টু রহমানের ঘরে প্রবেশ করিয়া, আব্দুল হাই কে দুই হাত পিছনে দড়ি দিয়ে বেঁধে লোহার রড দিয়ে এলোপাতাড়ি বেআইনিভাবে মারপিট করে ও কসিরদ্দীন ওরফে গুন্ডরীর লোহার রড দিয়ে আব্দুল হাইয়ের নিচের সারির দাঁত ভেঙে দেন এবং লোহার রডের আঘাতে দুই দাঁত অকেজো  হয় পড়ে,দুষ্কৃতিকারী কসিরদ্দীন ওরফে গুন্ডরী,হামিদুল ও মামুনের আঘাতে আব্দুল হাই আহত অবস্থায় অচেতন হয়ে পড়লে আব্দুল হাইয়ের কলা ব্যবসা করার জন্য তার বাবার কাছে নেওয়া টাকা পকেট হতে ছিনিয়ে নেন।সে সময় তার বন্ধু মিন্টু রহমান আব্দুল হাই কে মারপিট,হামলা,ও অমানুষিক নির্যাতনের প্রতিবাদ করতে গেলে পরে মিন্টু ও তার স্ত্রী সৃতি বেগমকে বেধম মারপিট করে, বাড়ি থেকে বাহির করে দেন এবং মিন্টুর ঘরের আসবাবপত্র ও রান্নার চুলা ভেঙে দিয়েছে।এ বিষয়ে মিন্টুর সাথে কথা বলে জানতে পারা যায়,আমার বাবা পূর্বের শুত্রুতার জের ধরে আব্দুল হাই কে মারপিট করে, এবং  অমানুষিক নির্যাতন চালায়।পরে এলাকা বাসী জানতে পেরে আব্দুল হাইয়ের বাঁধন খুলে দিয়ে মুমূর্ষু অবস্থায় ভ্যান যোগে পীরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মুক্তিযোদ্ধা ১ নং কেবিনে ভর্তি করেন।
উক্ত ঘটনার প্রেক্ষিতে সরেজমিনে তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে ঐ এলাকার লোকজন জানায়,কসিরদ্দীন ওরফে গুন্ডরী অনেক লোকের উপর অন্যায় ভাবে পূর্বে মিথ্যা মামলা করান ও হুমকি ধামকি দেন।এ ব্যাপারে এলাকার লোকের কাছে জানতে পারি,আব্দুল হাই এর পরিবারের লোকজন সৎ ও নিরীহ এবং তার পিতা এবং চাচা বীর মুক্তিযোদ্ধা।
এ বিষয়ে বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ আব্দুর রাজ্জাক সাংবাদিক কে জানান আমার ছেলে মোঃ আব্দুল হাইয়ের উপর হামলা ও অমানুষিক নির্যাতন করায় বাদী হয়ে গত ১৬/০৫/২০২০ইং তারিখে আনুমানিক  বেলা ১.০০ ঘটিকার সময় পীরগঞ্জ থানায় সুষ্ঠু ও ন্যায় বিচারের জন্য এজাহার দায়ের করেন।

গীতি গমন চন্দ্র রায় গীতি,স্টাফ রিপোর্টার: ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে ২ দিন ব্যাপী ১০নং জাবরহাট ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ১০ নং জাবর হাট ইউনিয়নের আওয়ামী সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শাহের আলী তার নিজস্ব অর্থায়নে নিজ ওয়ার্ডে ৪৫০ পরিবারের মাঝে ৫ কেজি চাল ও ৫ কেজি আটা এবং নগদ ১৫০ টাকা বিতরণ করেন।সে সময় তার ওয়ার্ডের অসহায় নানামুখী কর্মকান্ডের মানুসকে নিজ হাতে ত্রাণ বিতরণ করেন।
ইউপি সদস্য মোঃ সাহের আলী সাংবাদিকদের বলেন আমার ওয়ার্ডে অনেক অসহায়,দিন মজুর,রিক্সা চালক,ভ্যান চালক, অটো চালক চা দোকানদার রয়েছেন, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে দেশ ও জাতীকে রক্ষা করতে তারাও বাইরে বের হতে পারছেন না,আমি জানি আমার ওয়ার্ডে অনেক গরীব দূঃখী অসহায় নানামুখী মানুষ খেয়ে না খেয়ে ঘরের ভিতরে বন্দী রয়েছেন তাই আমি আমার নিজস্ব অর্থায়ন থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ১০ নং জাবর হাট ইউনিয়নের আওয়ামী সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি হিসেবে ৪৫০ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করলাম

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৪মে,গীতি গমন চন্দ্র রায়,পীরগঞ্জ,ঠাকুরগাঁওঃ ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে জন্মের ১৭ বছর পর পিতৃ পরিচয় পেল পীরগঞ্জ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রী সুমি আক্তার। বাবাকে কাছে পেয়ে অতীতকে ভুলে গিয়ে আনন্দে ভাসছে সুমীসহ তার আতœীয় স্বজনেরা।

তার পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৮ সালে পীরগঞ্জ পৌরসভাস্থ রঘুনাথপুর গ্রামের আমিরুল্লার কন্যা শেফালী বকুল এর সহিত সাটিয়া গ্রামের শরিফুল ইসলামের বিবাহ হয়। বিবাহের তিন বছর পর শেফালীর কোল জুড়ে আসে শিশু সন্তান সুমি আক্তার। আর এর পরেই তাদের সংসারে নেমে আসে অশান্তি। এক পর্যায়ে সুমির বয়স যখন ৬ মাস তখনই তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। তারপর অন্যের বাড়িতে কাজ করে মেয়েকে মানুষ করার যুদ্ধ চলতে থাকে শেফালীর।

বর্তমানে সুমি আক্তার পীরগঞ্জ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রী। এতদিন পিতৃ পরিচয় না থাকায় সুমি আক্তার মানবাধিকার কর্মী নাহিদ পারভীন রিপার সহযোগীতায় তার বাবা শরিফুল ইসলামের বিরুদ্ধে সন্তান হিসেবে পারিবারিক সকল সম্পর্ক ও দায়-দায়িত্ব থেকে বঞ্চিত করার জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দেয়।

এর প্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিষয়টি নিরসনের জন্য পীরগঞ্জ থানার ওসি আমিরুজ্জামানের উপর দায়িত্ব অর্পন করেন। ওসি আমিরুজ্জামানের প্রচেষ্টায় গত শনিবার বিকেলে পীরগঞ্জ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কক্ষে শরিফুলের কন্যা সুমি আক্তারকে নিজ জন্মদাতা মেয়ে হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করেন তার পিতা শরিফুল ইসলাম। তাই এখন আনন্দে ভাসছে সুমির পরিবার। সুমি আক্তার জানায়, আগে আমি আমার পিতৃ পরিচয় দিতে পারতাম না কিন্তুু এখন থেকে পারবো। তাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ ডব্লিউ এম রায়হান শাহ ও ওসি আমিরুজ্জামান সাহেবের কাছে চির কৃতজ্ঞ।
এ ব্যাপারে পীরগঞ্জ থানার ওসি আমিরুজ্জামান বলেন, মানবিক বিবেচনায় উভয় পক্ষের আত্মীয় স্বজন ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গের উপস্থিতিতে তার বাবার হাতে সুমিকে তুলে দেওয়া হয়।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ ডব্লিউ এম রায়হান শাহ বলেন, সুমি আক্তার তার পিতৃ পরিচয় পেয়েছে এবং মেয়ে হিসেবে সকল প্রকার অধিকার ও ভরন পোষন পাবে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc