Sunday 25th of October 2020 08:15:22 AM

নড়াইলে কোরবানির জন্য প্রস্তুত প্রায় ৩০ হাজার পশু 

নড়াইল প্রতিনিধি: নড়াইলে গৃস্থালি থেকে শুরু করে খামারিরা কোরবানির জন্য ২৯ হাজার ৫৩২টি হাজার গরু ছাগল প্রস্তুত করেছে। ইতোমধ্যে জেলার তিনটি উপজেলার আটটি হাটে কোরবানির পশু বেচাকেনা শুরু হয়েছে। এদিকে করোনা সংকটের কারণে স্বাস্থ্যঝুঁকির কথা বিবেচনা করেনড়াইল কোরবানির হাটনামে মোবাইল অ্যাপ ওয়েবসাইটেরও উদ্বোধন করা হয়েছে। তবে অনলাইনে কেনাবেচায় আগ্রহী কম ক্রেতা বিক্রেতার উভয়ের।

কারণে হাটে ক্রেতাবিক্রেতা বেশি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সদরের নাকসী মাদরাসা, মাইজপাড়া, কালিয়ার পহরডাঙ্গাসহ বিভিন্ন পশুহাটে এমন চিত্র দেখা গেছে। পশু ক্রেতাবিক্রেতারা বলছেন, অনলাইন পদ্ধতিতে গরুছাগল বেচাকেনা করে তারা স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন না। কারণ, পদ্ধতিতে আকার, আকৃতি, সুস্থতাসহ বিভিন্ন বিষয় স্বচোক্ষে দেখা যায় না। কোরবানির পশু সরাসরি দেখে শুনে কেনার অনুভূতিটাই অন্যরকম। তবুও করোনাকালে স্বাস্থ্যঝুঁকির কথা বিবেচনা করে কেউ কেউ ঝুঁকছেন অনলাইনের দিকে। 

জেলা প্রশাসন প্রাণিসম্পদ অফিস সূত্রে জানা গেছে, বছর নড়াইলে কোরবানির হাটে বিক্রি জন্য ২৯ হাজার ৫৩২টি গরু এবং ছাগল প্রস্তুত করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৮ হাজার ৮০১টি গরু এবং ১০ হাজার ৭৩১টি ছাগল ভেড়া রয়েছে। হাটের পাশাপাশি করোনা সংকটের কারণে ক্রেতাদের ঘরে বসে পশু কিনতে গত ১০ জুলাই বিকেলে ভিডিওকনফারেন্সের মাধ্যমে তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপিনড়াইল কোরবানির হাটনামে একটি মোবাইল অ্যাপ ওয়েবসাইটের উদ্বোধন করেন। তবে হাটের দিকেই ক্রেতাবিক্রেতাদের ভিড় বেশি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। যদিও বেচাকেনা এখনো জমে উঠেনি। বছর হাটগুলোতে ৪০ থেকে ৭০ হাজার টাকার গরুর চাহিদা বেশি। এক্ষেত্রে ছাগলের চাহিদা সাত থেকে ১০ হাজার টাকার মধ্যে। ঈদের আগ মুহূর্তে কোরবানির পশুরহাট জমজমাট হয়ে উঠবে, এমন প্রত্যাশা ক্রেতাবিক্রেতাসহ হাট ইজারাদারদের।  

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাক্তার মারুফ হাসান জানান, নড়াইলে কোরবানির পশুর চাহিদার চেয়ে বছর অনেক বেশি গরুছাগল প্রস্তুত করা হয়েছে। জেলায় আনুমানিক ২৪ হাজার ৫০০ পশুর চাহিদা থাকলে ২৯ হাজারের বেশি পশু রয়েছে। এছাড়া কোরবানিযোগ্য পশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য হাটগুলোতে ভেটেরিনারি মেডিকেল টিম রয়েছে। করোনাকালে ক্রেতাবিক্রেতারা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছেন কিনা, সেদিকেও লক্ষ্য করা হচ্ছে।

জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা বলেন, করোনার দুর্যোগময় মুহূর্তে কোরবানির পশু ঘরে থেকেই মোবাইল অ্যাপ ওয়েবসাইটের মাধ্যমে কেনার জন্য সবাইকে ৎসাহিত করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে কেউ যাতে প্রতারিত না হন, সেদিকেও কঠোর নজরদারি রয়েছে। আমরা চাই মানুষ এই করোনার সংকট মূহুর্তে পশুর হাটে না গিয়ে,অ্যাপস এর মাধ্যমে কোরবানির পশু ক্রয়বিক্রয় করুক।

এম ওসমান, বেনাপোল প্রতিনিধি:যশোরের শার্শায় মেয়ে শারমিন আক্তার সিমা (২৪) হত্যার বিচার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন সিমার অসহায় মা জাহানারা খাতুন। আইনের আশ্রয় নিয়েও পুলিশের গড়িমসির কারণে কোন বিচার পাচ্ছেন না তিনি। সোমবার বিকালে শার্শা প্রেসক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলেন অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় বেনাপোল বড় আঁচড়ার শফিকুল ইসলামের স্ত্রী জাহানারা খাতুন তার লিখিত বক্তব্যে জানান, ৯ বছর পূর্বে বেনাপোল বড়আঁচড়া (মাঠ পাড়া) গ্রামের আক্তার হোসেনের ছেলে নাজমুল হোসেন (২৮)’র সাথে তার মেয়ে শারমিন আক্তার সিমা (২৪) বিবাহ হয়। তাদের সংসার সুখেই কাটছিল। এরই মাঝে তাদের কোল জুড়ে আসলো একটি কন্যা সন্তান নাজমিন আক্তার ফুল এবং সীমা ৩’মাসের অন্তসত্বা ছিলেন। হঠাৎ তাদের সুখের সংসারে আগুন লাগাতে যন্ত্রণা নামের এক মেয়ে এসে হাজির হলো।

সিমার স্বামী নাজমুল হোসেন যন্ত্রণার সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে এবং তাহাদের সংসারে বিভিন্ন কুমন্ত্রণা দেয়। গত রমজানের  ঈদের আগের দিন রাতে নাজমুল হোসেন  ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যসহ শারমিন আক্তার সিমাকে পরিকল্পিত ভাবে মাদক পানে বেহুশ করিয়ে ও বালিশ চাপা দিয়ে হত্যার পর ”শারমিন আত্মহত্যা” করেছে বলে প্রচার করতে থাকে।

বর্তমানে বাদীর মা বেনাপোল বন্দর থানায় হাজির হয়ে মামলার খোঁজ খবর নিতে চাইলে বেনাপোল পোর্ট থানার তদন্ত কর্মকর্তা বাদির কথায় কোন কর্নপাত না করে বলে ময়না তদন্তের রির্পোট আসলে আমরা দেখব।  দৃশ্যত; মনে হচ্ছে বাদীর সাথে বেনাপোল বন্দর থানার তদন্ত কর্মকর্তা গড়িমসি করতেছে। এদিকে বিবাদীগন প্রতিনিয়ত বাদীকে বিভিন্ন প্রকার হত্যার হুমকি দিয়ে চলেছে। বাদি তার স্বামী-সন্তান নিয়ে খবুই আতংকের মধ্যে আছেন। এমতাবস্থায় শারমিন আক্তার সিমার হত্যার বিচার দাবি করে হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি চেয়েছেন এলাকাবাসী।

এ বিষয়ে বেনাপোল পোর্র্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম বলেন, আমি নতুন এই থানায় যোগদান করার পর এই মামলার বিষয়ে আমার কাছে কেহ কোন অভিযোগ করতে আসেনি। অভিযোগ আসলে তদন্তপুর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৪মে,ডেস্ক নিউজঃ জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, ‌”নির্বাচনে আওয়ামী লীগ পরাজিত হলে কী হবে, তা আমি বলতে চাই না। আমাকে সঙ্গে নিয়ে হোক আর যেভাবেই হোক আওয়ামী লীগকে জয়ী হতে হবে।”

আওয়ামী লীগ দেশের ব্যাপক উন্নয়ন করলেও জনগণের মন জয় করতে পারেনি বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, “তবে তুলনামূলকভাবে বিএনপির চেয়ে আওয়ামী লীগ ভালো। তাই আগামী নির্বাচনে অংশ নিয়ে তাদের সহযোগিতা করবে জাতীয় পার্টি। জাতীয় পার্টি নির্বাচন করবে। আর নির্বাচন করলেই তা গ্রহণযোগ্য হবে।’

রোববার (১৩মে) দুপুরে রংপুর সার্কিট হাউসে তিন দিনের সফরে এসে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান।

তিনি বলেন, “আগে ঘরে খুন বাইরে গুম বলতাম। এখন বলি, ঘরে ধর্ষণ বাইরে চাকায় পিষ্ট। প্রতিনিয়ত মানুষ মরছে। মানুষের জীবনের কোনো মূল্য নেই। মেয়েরা ঘরে ধর্ষিত হচ্ছে। এসবের বিচার পাচ্ছে না।’

খুলনা ও গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন প্রসঙ্গে এরশাদ বলেন, “নিরপেক্ষ নির্বাচন দেয়া অত্যন্ত কঠিন। ওই দুই সিটিতে নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে কিনা তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। তবে আশা করি নির্বাচন যেন সুষ্ঠু হয়।”

সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, “জাতীয় পার্টিকে বিলীন করার ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল। কিন্তু তা ষড়যন্ত্রকারীরা পারেনি। মানুষের ভালোবাসা নিয়ে জাতীয় পার্টি টিকে আছে।”

এ সময় জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মেজর (অব.) খালেদ আখতার, রংপুর মহানগর জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক,ডা. আক্কাস আলী সরকার, হাজী আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ  উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে ঢাকা থেকে বিমানযোগে সৈয়দপুর পৌঁছালে দলীয় নেতাকর্মীরা তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

এদিকে কুড়িগ্রাম-৩ আসনের দলীয় এমপি মাইদুল ইসলাম মারা যাওয়ায় শূন্য আসনটিতে উপনির্বাচনে ডা. আক্কাস আলী সরকারকে প্রার্থী ঘোষণা করেন এরশাদ।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৩মার্চঃ      জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার হাইকোর্টের জামিন স্থগিত চাওয়া হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকালে দুর্নীতি দমন কমিশন ওই জামিন আদেশ স্থগিত চেয়ে আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় আবেদন করেন।
আজ দুপুরে আপিল বিভাগের চেম্বার জজ হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর আদালতে এ আবেদনের উপর শুনানি হবে বলে জানিয়েছেন দুদক কুশলী খুরশিদ আলম খান।
এর আগে গতকাল সোমবার খালেদা জিয়াকে চারমাসের জামিন দেয় হাইকোর্ট। নিম্ন আদালতে পাঁচ বছরের সাজা ঘোষণার পর থেকে বিএনপি চেয়ারপারসন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী আছেন।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৮নভেম্বর,রেজওয়ান করিম সাব্বিরঃসারাদেশের ন্যায় সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলায় আসন্ন প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনি পরীক্ষায় ২০১৭সনে মোট ১২২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হতে ৩হাজার ৫শত ৭৪জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করছে, যাহা বিগত ২০১৬সনের চেয়ে ৯শত ৩৮জন কম রয়েছে। ফলে বি ত হচ্ছে ঝরে পড়া শিশু শিক্ষার্থীরা।
উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে যানাযায়- আসন্ন ২০১৭সনের প্রাথমিক সমাপনি পরীক্ষায় ৮টি কেন্দ্র হতে মোট ৩হাজার ৩শত ৫০জন পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে এবং ইবতেদায়ী সমাপতি পরীক্ষায় ২টি কেন্দ্র হতে ২শত ২৪জন শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে।

শিক্ষার্থী সংখ্যা কম হওয়ার কারন জানতে চাইলে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল জলিল বলেন- বিগত বৎসর গুলোতে সমাপনি পরীক্ষায় উপজেলার এনজিও পরিচালিত বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ঝরে পড়া সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপযুক্ত করে সমাপনি পরীক্ষায় অংশগ্রহন করানোর ফলে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছিল। বিভিন্ন এনজিও প্রতিষ্ঠানের শিক্ষা কার্যক্রম বন্দ হওয়ায় পরীক্ষার্থীর সংখ্যা কম হওয়ার মূল কারন হতে পারে।

এ দিকে সচেতন মহলের সাথে আলাপচারিতায় জানাযায়- অনেক শিক্ষার্থী ২য়, ৩য় ও ৪র্থ শ্রেনী পর্যন্ত লেখাপড়া করে ঝরে পড়ে যায়। সে সকল শিক্ষার্থীদের কে এনজিও প্রতিষ্টান গুলো স্থানীয় সমাজকর্মীদের সহযোগিতায় খুঁজে খুঁজে বের করে প্রাথমিক শিক্ষা সম্পন্ন করতে থাকার কারনে উপজেলা জুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ঝরে পড়া শিশু শিক্ষার্থীর সংখ্যা রোধ হয়েছে।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩০সেপ্টেম্বর,জৈন্তাপুর(সিলেট)প্রতিনিধি:সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার জৈন্তাপুরে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতাকে মোবাইল ফোনে হুমকি প্রদান,নিরাপত্তা চেয়ে থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়।

জিডি সূত্রে জানা যায়- নজির আহমদ নামের জৈন্তাপুর ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ নেতা বাদী হয়ে সাধারণ ডায়েরি করে। হুমকীর ঘটনায় জৈন্তাপুর উপজেলা জুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে৷ জৈন্তাপুর উপজেলার ২নং জৈন্তাপুর ইউনিয়নের ২নং লক্ষীপুর গ্রামে মৃত সুলতান আহমদের ছেলে ও ২নং জৈন্তাপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ঔ বিশিষ্ট ব্যবসায়ী নজির আহমদকে গত ২৬ সেপ্টেম্বর দিবাগত (গভীর) রাত ১.৩৪ মিনিটে জনৈক্য হাবিব পরিচয়ে মোবাইল ফোন নং ০১৭১২১৭৭৮৯৭ হতে হুমকি দেওয়া হয় ।

হুমকীর ঘটনায় নিজের নিরাপত্তা এবং জান মালের সমূহ ক্ষতির আশংঙ্কায় জৈন্তাপুর মডেল থানায় সাধারন ডায়েরী (জিডি) করে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা৷ মোবাইল ফোনে হুমকি ধামকি প্রদর্শন এমনকি জৈন্তাপুর বাজারে আসলে কিংবা চাঙ্গীল ব্রীজ পার হলে আমাকে প্রাণে হত্যা করবে বলে হুমকি দেওয়া হয়। মোবাইল ফোনে অটো রেকর্ড থাকায় ফোনালাপটির রেকর্ড থেকে যায়৷

ওই নেতা অারও বলেন, মোবাইল ফোনে হুমকি প্রদানের ঘটনায় চরম নিরাপত্তার মানসিক চিন্তায় ভুগছেন ইউনিয়ন অাওয়ামীলীগ নেতা ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। বিষয়টি প্রশাসনের সু-নজরে আনতে তিনি জৈন্তাপুর মডেল থানায় জিডি করেন যাহার নং- ১০২৪, তারিখঃ ২৮/০৯/২০১৭।
এ ব্যাপারে জানতে জৈন্তাপুর মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ খাঁন মোঃ মায়নুল জাকির জানান- দায়েরকৃত জিডির প্রেক্ষিতে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে এ ব্যাপারে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,০৬জুন,ডেস্ক নিউজঃ   পিলখানা হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ড ব্যতীত বিভিন্ন মেয়াদের কারাদণ্ড ও খালাসপ্রাপ্ত ৫৮৯ জন আসামির সর্বোচ্চ সাজা চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ এই আদেশ দেন। আদালত বলেন, বিলম্ব মারজনার জন্য যে যুক্তি দেখানো হয়েছে তা সন্তষজনক নয়। যেহেতু ডেথ রেফারেন্স ও আপিলের রায় হাইকোর্টে অপেক্ষমান রয়েছে, সেহেতু এই পর্যায়ে এসে হস্তক্ষেপ করা ঠিক হবে না। ২০১৩ সালে ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আক্তারুজ্জামন পিলখানা হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করেন। ওই রায়ে ১৫২ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়।

পরে হাইকোর্টে এই মামলার ডেথ রেফারেন্স আপিল শুনানির শেষ পর্যায়ে রাষ্ট্রপক্ষ ৫৮৯ জন আসামির মৃত্যুদণ্ড চেয়ে আবেদন দেয়। শুনানি নিয়ে বিচারপতি মো. শওকত হোসেনের নেতৃত্বাধীন বৃহত্তর বেঞ্চ রাষ্ট্রপক্ষের আবেদন খারিজ করে দেন।

এই খারিজ আদেশের বিরুদ্ধে লিভ টু আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ। মঙ্গলবার আবেদনের পক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও আসামি পক্ষে এস এম শাহজাহান, এম আমিনুল ইসলাম শুনানি করেন।

তবে, হাইকোর্ট ডেথ রেফারেন্সের আপিলের রায়টি অপেক্ষমান রেখেছে।

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,১৭এপ্রিল,ডেস্ক নিউজঃ  ইংরেজি শিক্ষার শিক্ষকদের চেয়ে মাদ্রাসা শিক্ষকরা মেধাবী বলে মন্তব্য করেছেন ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের শিক্ষক দার্শনিক অধ্যাপক সলিমুল্লাহ খান।

তিনি বলেন, মাদ্রাসা শিক্ষার লোকেরা লেখাপড়া জানে না এমন প্রচারণা সঠিক নয়। বরং আমি চ্যালেঞ্জ করব আমাদের দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ৫ জনও পাবেন না যে তারা মাদ্রাসার শিক্ষকদের সাথে যুক্তি-তর্কে পারবেন। মাদ্রাসা শিক্ষা গ্রহণ করে অনেক বরেণ্য ব্যক্তিত্ব হয়েছেন আমাদের দেশে ও উপ-মহাদেশে এমন দৃষ্টান্ত  রয়েছে অনেক। তাদের জ্ঞানের ভাণ্ডার ব্যাপক। গত ১২ এপ্রিল রাতে দীপ্ত টিভির টকশোতে তিনি এসব কথা বলেন।ইনকিলাব।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc