Wednesday 28th of October 2020 05:24:44 AM

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জে চার চাকার ব্যাংকিং সেবা নিয়ে বুধবার (২৬ ডিসেম্বর) রাত ৯.৩০টায় চার চাকার ব্যাংকিং (জনগণের দোরগোড়ায় সেবা, ভাতা যাবে বাড়ি বাড়ি) জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ এর সাথে সৌজন্য স্বাক্ষাত করেন,জয়নাল আবেদীন।
এ সময়ে উপ-পরিচালক, স্থানীয় সরকার মোহাম্মদ এমরান হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক)মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম,জেলা ত্রান ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফরিদুল হক উপস্থিত ছিলেন।
প্রসঙ্গত জয়নাল আবেদীন, জেলা পরিষদ ডিজিটাল সেন্টার, সিলেট এর একজন উদ্যোক্তা তিনি দীর্ঘ দিন যাবত বিভিন্ন উদ্ভাবনী সেবার মাধ্যমে সিলেট জেলাবাসীকে বিভিন্ন সেবা প্রদান করে আসছেন।
জয়নাল আবেদীন জানান,গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে কাজ করছেন। বর্তমানে সুনামগঞ্জ জেলার জেলা প্রশাসক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে সিলেট জেলা পরিষদ, সিলেট কর্মরত থাকাকালীন সময় তাঁকে জেলা পরিষদ ডিজিটাল সেন্টার, সিলেট এর উদ্যোক্তা হিসেবে কাজ করার সুযোগ পান।
অদ্যাবধি তিনি সেখানে কাজ করে যাচ্ছেন পাশাপাশি ১০-১২ জন লোকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাও তিনি করে দিয়েছেন। তিনি বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারী ব্যাংকের এজেন্ট ব্যাংকিং সহ,বিধবাভাতা, বয়স্কভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা জনগনের দোড় গোড়ায় পৌঁছে দেয়ার জন্য এই চার চাকার ব্যাংকিং শুরু করতে যাচ্ছেন।
জেলা প্রশাসক তার উদ্ভাবনী কাজের জন্য তাঁকে ধন্যবাদ জানান এবং সুনামগঞ্জ জেলার উদ্যোক্তাদের তার মত উদ্যমী উদ্যোক্তা হিসেবে কাজ করার প্রয়োজনীয় সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০২এপ্রিল,এম এ কাদের মাধবপুর থেকেঃ হবিগঞ্জ জেলা মাধবপুর উপজেলায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে তিন চাকার যানবাহন ( সিএনজি) অবাধে চলছে। সকাল থেকে সন্ধ্যায় প্রতিনিহত এমনিভাবে চলছে মহাসড়ক জুড়ে, প্রশাসনের চেকপোস্টও রয়েছে মহাসড়ক জুড়ে। কিন্তুক তিন চাকার যানবাহন বন্ধ হচ্চেনা। তার পাছনে কি কোন বড় কোন শক্তি কাজ করছে নাকি প্রশসনের হাত রয়েছে। মহাসড়কে তিন চাকার যানবাহন চলাচলের বিষয়ে সিএনজি চালক ও পরিচালকের সাথে কথা বললে তারা বলেন আমরা  সিএনজি চালক হয়ে আমাদের জীবন সংসার চলছে অসহায় জীবনে। মহাসড়কে গাড়ী চালানোর জন্য পুলিশকে দৈনিক হাজার হাজার টাকা দিতে হয় তার পরও দেখা যায় বিভিন্ন সময় মামলা ও নগদ টাকার স্বীকার হতে হয়।
হাইকোর্টের মহাসড়কে সিএনজি চলাচল বন্ধের আদেশ থাকলও তা বাস্তবায়ন হচ্ছেনা কেন এই প্রশ্ন এখন এলাকার বিশিষ্ট্য ব্যক্তিবর্গগনের। তাহলে রক্ষকরাই কি বক্ষক নাকি আইনের প্রয়োগ সঠিক ভাবে হচ্চেনা।
শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জসিম উদ্দিনের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করলে তিনি মহাসড়কে তিন চাকার যানবাহন চলাচল বন্ধের জন্য আমরা যতেষ্ট চেষ্টা করে যাচ্ছি। কিন্তুক আমার থানায় পুলিশের ফোর্সের সংখ্যা খুব সীমিত থাকার কারনে মহাসড়ক কন্ট্রোল করা সম্ভব হচ্ছেনা। আমার থানায় ১০ থেকে ১৫ জন পুলিশ ফোর্স থাকে এর মধ্যে জেলার কার্যালয়ে, এক্সিডেন্ট, থানায় প্রহরী ও ছুটি সব মিলিয়ে অবশেষে ফোর্সের সংখ্যা এসে দাড়ায় মাত্র ৩ থেকে ৪ জন। যার কারনে মহাসড়কের একদিকে গেলে অন্য দিক ফাকা থাকে এই সুযোগে সিএনজি চালকরা সুযোগ নেয়। আমি উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের প্রতি সু-নজর দৃষ্টি কামনা করছি যেন অত্র থানায় ফোর্স বাড়ানোর ব্যাবস্হা করেন। পর্যাপ্ত ফোর্স থাকলে মহামান্য হাইকোর্টের আদেশ বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে আমার এরিয়ায় এটা দৃঢ়বিশ্বাস।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc