Thursday 3rd of December 2020 10:23:19 PM

মহামারি করোনার পাশাপাশি বাড়ছে ডেঙ্গুর প্রকোপ। অক্টোবরের চেয়ে চলতি মাসে এখন পর্যন্ত দেশে প্রায় দ্বিগুণ ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে। বেশির ভাগই রাজধানী ঢাকার বাসিন্দা। তাই করোনার পাশাপাশি ডেঙ্গু আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য অনেক হাসপাতালে চালু করা হয়েছে আলাদা ইউনিট।স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হিসাব মতে, গত অক্টোবর মাসে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছিল ১৬৯ জন। আর নভেম্বরের প্রথম ১৭ দিনে ডেঙ্গু রোগী পাওয়া যায় ২৩৯ জন।

শীত আসতে না আসতে রাজধানীতে বৃষ্টি হওয়ায় মশার উপদ্রব কিছুটা বেড়েছে। আবার বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনার কথা বলছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এ অবস্থায় ব্যক্তিগতভাবে সচেতন হওয়ার পাশাপাশি মশা নিধনের কার্যক্রম জোরদারের পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে নিয়মিত মশকবিরোধী অভিযান চললেও অনেক এলাকায় মশার উপদ্রব বেড়েছে। তাই মশা নিধনের কাজে বাড়তি জনবল চেয়ে জনপ্রতিনিধিদের কেউ কেউ মেয়রদের কাছে অনুরোধ করছেন। সিটি করপোরেশনের স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, জনবল সংকট নেই বরং মশার সমস্যা সমাধানে নিয়মিত কাজ চলছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, সেপ্টেম্বরে ডেঙ্গুর মূল মৌসুম শেষ হলেও অক্টোবর ও নভেম্বরে এবার উল্লেখযোগ্য হারে ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে। চলতি বছরের শুরু থেকে গতকাল সোমবার পর্যন্ত দেশে ১ হাজার ২৬ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে ৯৩৬ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। এখনো চিকিৎসাধীন আছেন ৮৪ জন।
এই অবস্থায় ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগীদের জন্য আলাদা ওয়ার্ডের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যাদের করোনার সঙ্গে ডেঙ্গুও রয়েছে, তাদের ঢামেক কর্তৃপক্ষ ভর্তি করলেও নন-কোভিড রোগীদের সলিমুল্লাহ মেডিকেল ও সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। ডেঙ্গু রোগীদের ক্ষেত্রে মশারি ব্যবহারের পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা। আর দিনের বেলা মশার কামড় থেকে বাঁচতে বিভিন্ন ধরনের ক্রিম ব্যবহারের পরামর্শ দিচ্ছেন।
ঢাকা টাইমস বিভিন্ন হাসপাতালে খোঁজ নিয়ে ডেঙ্গু ভর্তি ও চিকিৎসার তথ্য নিয়েছে। ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি হয়েছিলেন ৫০ জন। যারা সবাই সুস্থ হয়েছেন। সোহরাওয়ার্দী ও মিটফোর্ড হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ৩৯ জনের মধ্যে ৩২ জন বাড়ি ফিরেছেন। ঢাকা শিশু হাসপাতালের ৭২ জনের মধ্যে ৬২ জন বাড়ি ফিরেছেন। এ ছাড়া বিএসএমএমইউ এবং পুলিশ হাসপাতালে ভর্তি হওয়া দুজন সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন।

ঢাকা বিভাগের অন্যান্য জেলায় আক্রান্ত ৪০ জনের মধ্যে ৩৮ জন সুস্থ হয়েছেন। ময়মনসিংহ বিভাগে ১৬ জনের মধ্যে ১৫ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। চট্টগ্রাম বিভাগে আক্রান্ত ১১ জনই সুস্থ হয়েছেন। রাজশাহী বিভাগের আক্রান্ত একজন ইতিমধ্যে সুস্থ হয়েছেন।
খুলনা বিভাগের ৪৭ জনের মধ্যে ৪২ জন, বরিশাল বিভাগের তিনজন, সিলেট বিভাগের আক্রান্ত একজন সুস্থ হয়েছেন। তবে রংপুর বিভাগে এখন পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত কোনো রোগী পাওয়া যায়নি।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সিডিসি বিভাগের ডেপু-প্রোগ্রাম আফসানা আলমগীর খান বলেন, ‘সারাদেশের নিয়মিত ডেঙ্গু পরীক্ষা করা হচ্ছে। সবচেয়ে বেশি ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা ঢাকাতে।
জ্বর হলে করোনার সঙ্গে ডেঙ্গু এনএস-১ পরীক্ষা করানোর পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।মশার উৎপাতে নগরবাসী নগরবাসীকে স্বস্তি দিতে নিয়মিত মশার বিরুদ্ধে অভিযান চালাচ্ছে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন। তারপরও মশার উৎপাত কমেনি। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন ওয়ার্ডের বাসিন্দারা মশা নিয়ে অভিযোগ করেছেন।
উত্তর সিটির ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিল আসিফ আহমেদ প্রায় পাঁচ লাখ বাসিন্দার ওয়ার্ডে মশক নিধনের জন্য বাড়তি জনবল, ওষুধ চেয়ে নগর ভবনে আবেদন করেন বলে জানা গেছে।
মশার উপদ্রব বেড়েছে এই সিটি করপোরেশনের ৩১ নম্বর ওয়ার্ডেও। টাউন হল এলাকার বাসিন্দা সজিব আহমেদ বলেন, ‘সন্ধ্যার পর রাস্তায় দাঁড়ানো যায় না। প্রচুর মশা। বাসার মধ্যেও মশার উৎপাত। কয়েল ছাড়া একটা দিনও চলে না।‘
সামনে শীতের মৌসুমে কুয়াশার কারণে মশার উপদ্রব আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা এখানকার বাসিন্দাদের। একই অবস্থা ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের। কলেজগেট, মিরপুর রোড, লালমাটিয়া নিয়ে গঠিত ওয়ার্ডের মশকের উপদ্রবের কথা উঠে এসেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘আমাদের মোহাম্মদপুর’ গ্রুপে।
স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ওয়ার্ডটির মাঠগুলোতে বিকালের পর মশার কারণে কোথাও বসা যায় না। সন্ধ্যার পর মশার উপদ্রব শুরু হয় ঘরে ঘরে।
যদিও ওয়ার্ড কাউন্সিলর শেখ নূর ইসলাম রাষ্ট্রন এ কথা মানতে নারাজ। তিনি বলেন, ‘আমার ওয়ার্ডে মশার সমস্যা নাই। নাগরিকরা আমাকে বলে তারা মশারি ছাড়া ঘুমায়। তারপরও মশা নিধনে নিয়মিত ওষুধ দেয়া হচ্ছে।’
তবে মশা বাড়ার বিষয়টি স্বীকার করছে সিটি করপোরেশনের স্বাস্থ্য বিভাগ। কর্মকর্তারা বলছেন, মৌসুমের কারণে মশার উপদ্রব বেড়েছে। তবে মশক নিধনে তাদের কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।
ডেঙ্গু সহনীয় মাত্রায় রাখতে উত্তর সিটি কাজ করে চলেছে জানান প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা। তিনি বলেন, ‘ডেঙ্গু কিছু মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। আমরা তাদের ঠিকানা সংগ্রহ করে তার বসবাসের পাশপাশে মশক নিধনে বেশি জোর দিচ্ছি।’
এদিকে উত্তর সিটির উত্তর খান, দক্ষিণ খান, বাড্ডা, মিরপুর, পল্লবী, গাবতলী এলাকার মশার উপদ্রব রয়েছে। সন্ধ্যার পর মশার গুনগুনানি শোনা যায় কূটনৈতিক পাড়া গুলশানেও।
দক্ষিণ সিটির বর্ধিত এলাকার পাশাপাশি কামরাঙ্গীরচর এলাকার মশার উপদ্রব সবচেয়ে বেশি। ৫৫, ৫৬ ও ৫৭ নম্বর ওয়ার্ড এই এলাকায় পড়েছে। তিনটি ওয়ার্ডেই মশার উপদ্রব এখন চরমে পৌঁছেছে।
কামরাঙ্গীরচরের রনি মার্কেট এলাকার বাসিন্দা সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘মশার ওষুধ দেওয়া হয়, তবে নিয়মিত না। সন্ধার পর মশার জ্বালায় টিকা যায় না।’
ডিএনসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ওবায়দুর রহমান বলেন, ‘বর্ষা মৌসুমটা শেষে সেপ্টেম্বর পার হয়ে গেলে মশার উপদ্রব একটু বাড়ে। এটা প্রকৃতিক বিষয়। এখন কিউলেক্স মশার প্রজননটা বাড়বে। আমরা চিরুনী অভিযান করেছি। মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা করেছি।’
নগরে ডেঙ্গু দমনে সিটি করপোরেশনের নানান কার্যক্রম থাকলেও চলতি বছর বেশ কিছু মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে। মশক নিধনে জনবলের ঘাটতি ও মশক নিধনের ওষুধের স্বল্পতা রয়েছে। এ বিষয়ে জনপ্রতিধিদের আপত্তির জায়গাটিকে গুরুত্ব দিতে নারাজ ডিএনসিসির স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ওবায়দুর রহমান।
তিনি বলেন, ‘জনবল কম বা ওষুধ কম এ বিষয়ে আমি মোটেও বিশ্বাসী নই। স্বাধীনতার পর থেকে জনবল কম। আগামী ৫০ বছর জনবল কম থাকবে। এটাকে আমি কোনোভাবেই আমলে নেই না। আমার স্বাস্থ্য বিভাগেও জনবল কম আছে। আমার যে জনবল আছে, সেটা দিয়েই আমাদের দক্ষতা দেখাতে হবে।’
ডিএসসিসির জনসংযোগ কর্মকর্তা ও মুখমাত্র মো. আবু নাছের বলেন, ‘মশার ওষুধের গুণগত মান নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই। প্রতিটি ওয়ার্ডে মশক নিধনে আমাদের রুটিন কার্যক্রম চলমান আছে।

করোনাভাইরাস পরীক্ষা নিয়ে জেকেজি হেলথ কেয়ারের প্রতারণার মামলায় গ্রেপ্তার প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ও জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের চিকিৎসক ডা. সাবরিনা চৌধুরীকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। রোববার বিকেলে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের এক অফিস আদেশে তাকে বরখাস্ত করা হয়।

ডা. সাবরিনা জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের কার্ডিয়াক সার্জারি বিভাগের রেজিস্ট্রারের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। তিনি জেকেজির প্রধান নির্বাহী আরিফুল হক চৌধুরীর স্ত্রী।

হাসপাতালে তার কক্ষের সামনে নেইমপ্লেটে তার নাম লেখা ডা. সাবরীনা আরিফ। তবে সরকারি নথিতে তার নাম সাবরিনা শারমিন হুসাইন।

স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আবদুল মান্নান স্বাক্ষরিত ওই আদেশে বলা হয়, ‘ডা. সাবরিনা শারমিন হুসাইন সরকারি চাকরিতে কর্মরত থাকা অবস্থায় বেসরকারি প্রতিষ্ঠান জেকেজির চেয়্যারম্যান হিসেবে কর্মরত ছিলেন। করোনা টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট দেওয়া ও অর্থ আত্মসাতের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ছিলেন তিনি। এ কারণে তাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। সরকারি কর্মকর্তা হয়ে সরকারের অনুমতি ছাড়া বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান পদে থাকা ও অর্থ আত্মসাত সরকারি কর্মচারী বিধিমালা অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অপরাধ। সেহেতু ডা. সাবরিনা শারমিন হুসাইনকে সরকারি কর্মচারী বিধিমালা-২০১৮ এর বিধি ১২ (১) অনুযায়ী সাময়িক বরখাস্ত করা হলো।’

সম্প্রতি জেকেজি’র ব্যাপারে বিশদ তদন্ত করতে গিয়েই উঠে আসে ডা. সাবরিনা ও তার প্রতারক স্বামী আরিফ চৌধুরীর নাম।

তদন্ত করে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে নমুনা সংগ্রহ করে কোনো পরীক্ষা না করেই প্রতিষ্ঠানটি ১৫ হাজার ৪৬০ জনকে করোনার টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট সরবরাহ করেছে। একটি ল্যাপটপ থেকে গুলশানে তাদের অফিসের ১৫ তলার ফ্লোর থেকে এই মনগড়া করোনা পরীক্ষার প্রতিবেদন তৈরি করে হাজার হাজার মানুষকে মেইলে পাঠায় তারা।
প্রতিষ্ঠানটির কার্যালয় থেকে জব্দ ল্যাপটপ পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর করোনা টেস্ট জালিয়াতির এমন চমকপ্রদ তথ্য মেলে। এতে দেখা গেছে, টেস্টের জন্য জনপ্রতি নেওয়া হয় সর্বনিম্ন পাঁচ হাজার টাকা। বিদেশি নাগরিকদের কাছে জনপ্রতি একশ’ ডলার। এ হিসাবে করোনার টেস্ট বাণিজ্য করে জেকেজি হাতিয়ে নিয়েছে সাত কোটি ৭০ লাখ টাকা।

তদন্ত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মূলত সাবরিনার হাত ধরেই করোনার স্যাম্পল কালেকশনের কাজটি ভাগিয়ে নেয় অনেকটা অখ্যাত জেকেজি নামে এই প্রতিষ্ঠান। প্রথমে তিতুমীর কলেজে মাঠে স্যাম্পল কালেকশন বুথ স্থাপনের অনুমতি মিললেও প্রভাব খাটিয়ে ঢাকার অন্য এলাকা আর অনেক জেলা থেকেও নমুনা সংগ্রহ করছিলেন তারা।গত ২৪ জুন জেকেজির গুলশান কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে আরিফসহ ছয়জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের দুই দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়। দু’জন আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন। জেকেজির কার্যালয় থেকে ল্যাপটপসহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ নথি জব্দ করে পুলিশ। এ ঘটনায় তেজগাঁও থানায় মোট চারটি মামলা দায়ের করা হয়। সন্দেহভাজন করোনা রোগীদের নমুনা সংগ্রহের জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সঙ্গে চুক্তি ছিল জেকেজির। পরে ওই চুক্তি বাতিল করা হয়।

এ ঘটনায় গত কয়েক দিনে নানা সংবাদ প্রকাশ ও আলোচনার পর রোববার দুপুরে ডা. সাবরিনাকে ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদের পর বিকেলে তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) হারুন অর রশীদ জানান। এর ঘণ্টাখানেক পর তাকে বরখাস্তের অফিস আদেশ জারি করা হয়।

জহিরুল ইসলাম, নিজস্ব প্রতিনিধি:  মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে  করোনার উপসর্গ নিয়ে কানু দাস (৬২) নামে এক জনের মৃত্যু হয়েছে।
আজ শুক্রবার (০৩)জুলাই ভোরে চিকিৎসার জন্য সিলেট যাওয়ার পথে এ্যাম্বুলেন্সেইতিনি মারা যান।কানু সদর ইউনিয়নের রুপসপুর এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন। তিনি ফেরি করে কাপড় বিক্রি করতেন। শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম বলেন,মৃত লোকটি গত ১ জুলাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নমুনা দিয়ে গিয়েছিলেন।

যেহেতু তিনি করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন, তাই আমরা স্বাস্থ্য বিধি মেনেই দাহ করার পরামর্শ দিয়েছি। আর মৃতের পরিবারকে রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দিয়েছি।

এদিকে করোনা ভাইরাস উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়ার কারনে স্বাস্থ্য বিধি মেনে শ্রীমঙ্গল উপজেলা দেহ সৎকার ব্যবস্থাপনা কমিটি মৃতদেহ শেষকৃত্য করে। দুপুরে তাদের ব্যবস্থাপনায় শহরের পৌর শ্মশানে তাকে দাহ করে তারা। এসময় উপস্থিত ছিলেন  সৎকার ব্যবস্থাপনা কমিটির আহবায়ক সুশীল শীল, সদস্য সচিব সুদীপ দাশ রিংকু, জহর তরফদার, ঝলক দেবরায়, অলক পাল, কানন দেব,সৌরভ আদিত্য, সম্ভু সরকার রবিন, অর্জুন দাশ, মিঠুন রায়, দেবাংশু মজুমদার, সুখদেব কৈরী, সঞ্জু দাশ, সজল দেব,ছোটন চৌধুরী, পাপন দত্ত সহ প্রমুখ।

“এএসপি (টিম লিডার) করোনা রেসপন্স টিম, র‍্যাব-৯, এর সাহসী ও মানবিক উদ্যোগ”

জহিরুল ইসলাম, নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  এবার সিলেট র‌্যাব-৯ এর দুর্গে করোনার হানা, এতে ১৩ সদস্যের করোনা  পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। শুক্রবার ওসমানী মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে নমুনা পরীক্ষায় র‌্যাবের সিলেট ইউনিটের ১৩ সদস্যের করোনা শনাক্ত নিশ্চিত হয়েছে। করোনার ঝুঁকি থেকে যারা রাত দিন দেশের জনগণকে সচেতন করার লক্ষ্যে ছুটে বেড়িয়েছে শহর থেকে গ্রামে, গ্রাম থেকে অজপাড়া-গাঁ- এ  আজ তারা হানা মুক্ত নয়।

এর আগে চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী, পুলিশ, সাংবাদিকসহ অনেকের করোনা শনাক্ত হলেও সিলেটে এই প্রথমবারে মত সিলেট র‌্যাব সদস্যদের করোনা শনাক্ত হলো। জানা গেছে শনাক্ত হওয়া বেশির ভাগেরই কোনো উপসর্গ নেই। বাকীদের হালকা জ্বর-সর্দি রয়েছে। গতকাল শুক্রবার ওসমানীর ল্যাবে ১৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৩১ জনের করোনা শনাক্ত হয়।

একইদিনে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের পিসি আর ল্যাবে সমান সংখ্যক নমুনা পরীক্ষায় ১৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়। র‌্যাব-০৯’র এএসপি (মিডিয়া) ওবাইন অফিসার এএসপি মো.আনোয়ার হোসেন শামীম বিষয়টি আমার সিলেট কে নিশ্চিত করে বলেন, শুক্রবার আমাদের ১৬ জন সদস্যের নমুনা পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠানো হয়।এর মধ্যে ১৩ জনের রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে। তার মধ্যে আজকে আবার আরও বেশ ক’জনের নমুনা নেওয়া হয়েছে।

নেটিজেনদের উদ্যেশ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে Md. Anwar Hossan (Shamim Anwar) এএসপি (টিম লিডার) করোনা রেসপন্স টিম, র‍্যাব-৯,সিলেট থেকে জানান “এই ১৩ জনসহ ভবিষ্যতে পুরো র‍্যাব-৯ ব্যাটালিয়নে যত জন করোনা পজিটিভ রোগী পাওয়া যাবে, অফিসার হিসেবে তাদের দেখভালের দায়িত্ব গ্রহণ করেছি আমি ও আমার টিম। শ্রীমঙ্গল অধ্যায় শেষে এখন থেকে সিলেটের ব্যাটালিয়ন হেডকোয়ার্টারে আমার নেতৃত্বে ৬ সদস্যের ছোট্ট টিম পুরো র‍্যাব-৯ ব্যাটালিয়নের সকল করোনা আক্রান্ত রোগীর দেখাশোনা করা, হাসপাতালে ভর্তি করা, তাদের কাছে খাবার পৌঁছানো, ঔষধ-পথ্য গ্রহণ নিশ্চিত করার দায়িত্ব পালন করব। যেহেতু সারাক্ষণ করোনা রোগীদের নিয়েই পড়ে থাকব, করোনা রোগীদের নিয়েই হবে ওঠাবসা, অলৌকিক কিছু না ঘটলে ধরেই নেওয়া যায়, আজ হোক বা দু-দিন পরে হোক, নিশ্চিত করোনা আক্রান্ত হবার রাস্তাতেই পা রাখছি। সম্পূর্ণ বুঝেশুনে, সজ্ঞানে। যত গরম, আর অস্বস্তি লাগুক, পিপিই-ই হতে যাচ্ছে সারাদিনের একমাত্র পোশাক। আমার জানামতে, খাগড়াছড়ি জেলার উত্তর বড়বিল (সিংহপাড়া) গ্রামে জন্ম হবার পর এই নগণ্য মানুষটির জীবনে এমন মহান, বিরাট, গর্ব করার মতো কাজ করার সুযোগ কখনোই আসেনি। আলহামদুলিল্লাহ, আমি সেই সুযোগ দুই হাত ভরে গ্রহণ করছি।”

পৃথিবীব্যাপী মানবসভ্যতার সামনে সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জের নাম হচ্ছে করোনাভাইরাস। করোনার থাবায় প্রতিদিনই প্রাণ হারাচ্ছেন মানুষ। গবেষকরা এবার দাবি করলেন, করোনাকে কাবু করার সবচেয়ে কার্যকরী অস্ত্র তৈরি করে ফেলেছেন। করোনা থেকে রক্ষা পেতে গবেষকরা নতুন ওষুধ আবিষ্কার করলেন। এ‌টি এখন বাংলা‌দে‌শেও তৈ‌রি হ‌চ্ছে। জাপানের ফুজিফিল্ম তয়োমা ফার্মাসিউটিক্যালস লি. তৈরি করল ফ্যাভিপিরাভির ‘অ্যাভিগান` নামে ট্যাবলেট। যা কি না করোনাভাইরাসকে কার্যকরভাবে মেরে ফেলা সম্ভব। দেশে করোনা রোগীদের চিকিৎসায় রোববার বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস বিনামূল্যে ওষুধটি পৌঁছে দেবে। সম্প্রতি অন্তত ডজনখানেক ওষুধ যেমন ফ্যাভিপিরাভির, রেমডেসিভির, ইন্টারফেরন আলফা টুবি, রিবাভিরিন, ক্লোরোনকুইনিন, লোপিনাভির এবং আরবিডল কভিড-১৯ চিকিৎসার সারিতে জমা হয়েছে। সরাসরি নভেল করোনাভাইরাসের জন্য তৈরি না হলেও অন্য ভাইরাসের বিরুদ্ধে কাজ করা ড্রাগ করোনাভাইরাস ঠেকাতে পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার শুরু হয়েছে।

করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় ট্যাবলেট অ্যাভিগান জাপানের ফুজি ফিল্ম কোম্পানির সাবসিডিয়ারি ওষুধ কোম্পানি তয়োমা কেমিক্যাল। ট্যাবলেটটির জেনেরিক নাম ফ্লাভিপাইরাভির। ওষুধটি এখন বাংলাদেশের বেক্সিমকো ও বিকন ফার্মাসিউটিক্যালস তৈরি শুরু করছে। বিকন ফার্মাসিউটিক্যালস রোববার ওষুধটি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও ঔষধ প্রশাসনে হস্তান্তর করবে। ওষুধ‌টি সরকারকে সরবরাহ করার পাশাপাশি যে সমস্ত হাসপাতালে করোনা রোগী আছে সেখানেও সরবরাহ করা হবে। তবে এখনই ফার্মেসিতে সরবরাহ করা হবে না।

ম্যাটেরিয়াল স্বল্পতার কারণে এখন মাত্র ১০০ রোগীর জন্য ওষুধটি তৈরি হবে, তবে এ মাসের মধ্যেই ওষুধটি উৎপাদন বাড়াতে পারবে বলে কোম্পানির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস যে সমস্ত হাসপাতালে করোনা রোগী ভর্তি আছে সেখানে ওষুধটি পৌঁছে দেবে। প্রতিটি ট্যাবলেটের দাম ৪০০ টাকা হলেও এখন এটি বিনামূল্যে আক্রান্ত রোগীদের সরবরাহ করা হবে। ওষুধটি প্রস্তুতের পেটেন্ট জাপানের হলেও অনুন্নত দেশ হিসেবে তারা বাংলাদেশকে ২০৩৩ সাল পর্যন্ত ওষুধটি প্রস্তুতের অনুমোদন দিয়েছে। ফ্লাভিপাইরাভির ওষুধটি কভিভ-১৯ রোগের সুনিশ্চিত চিকিৎসা নয়, তবে ১২০ জন রোগীর ওপরে পরীক্ষা করে সাফল্য পাওয়া গেছে। আক্রান্ত তরুণ রোগীদের ওপর ওষুধটি ব্যবহার করে সাত দিনে এবং বয়স্কদের ওপর ব্যবহার করে নয় দিনে কোভিড-১৯ নেগেটিভ হয়েছে।

ফ্লাভিপাইরাভির ওষুধটির সাথে ওরভেসকো নামক আরও একটি ওষুধ মিলিয়ে ট্রায়ালগুলো করা হয়েছে। জাপান, তুরস্ক এবং চায়না ওষুধটি ব্যবহার করছে। কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্তের তিনটি পর্যায়- সাধারণ, মাঝারি ও মারাত্মক। এই তিন ক্ষেত্রেই ওষুধটি কার্যকর। গর্ভস্থ শিশুর ওপর ওষুধটির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে।
এখন পর্যন্ত এই ভাইরাস দমনে কার্যকর প্রমাণিত কোনো ওষুধ বের হয়নি। হয়নি আবিষ্কারের কোনো ভ্যাকসিন বা টিকা। তবে এরই মধ্যে অন্তত ডজনখানেক ওষুধ যেমন ফ্যাভিপিরাভির, রেমডেসিভির, ইন্টারফেরন আলফা টুবি, রিবাভিরিন, ক্লোরোনকুইনিন, লোপিনাভির এবং আরবিডল কভিড-১৯ চিকিৎসার সারিতে জমা হয়েছে। সরাসরি নভেল করোনাভাইরাসের জন্য তৈরি না হলেও অন্য ভাইরাসের বিরুদ্ধে কাজ করা ড্রাগ কোভিড-১৯ ঠেকাতে পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার শুরু হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ৮ এপ্রিল অসম্পাদিত ‘মেডিকেল আর্কাইভ নামে এক প্রি-প্রিন্ট জার্নালে প্রকাশিত চীনের উহান বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জিংহুয়ান ওয়াং-এর নেতৃত্বে এক গবেষণা প্রবন্ধে বলা হয়, ক্লিনিকাল ট্রায়ালে অ্যাভিগান জ্বর, কাশি এবং শ্বাসকষ্ট আর এক ওষুধ আরবিডলের সাথে তুলনায় কার্যকরী যা করোনাভাইসের চিকিৎসা হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। তাদের গবেষণা বলছে, অ্যাভিগান ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের জন্য গত ২০ ফেব্রুয়ারি থেকে ১২ মার্চ পর্যন্ত চীনের উহান বিশ্ববিদ্যালয়ের জংগান হাসপাতাল উহান লেসেশান হাসপাতাল এবং হুবেই প্রদেশের আর একটি হাসপাতালে ২৩৬ জন কভিড-১৯ আক্রান্ত মাত্র সাত দিনের মধ্যে অন্তত ৬১ শতাংশ রোগী ৭ দিনে জ্বর, কাশি থেকে মুক্ত হোন। এছাড়া এইসব রোগীদের জন্য শ্বাস-প্রশ্বাসের জন্য কৃত্রিম অক্সিজেন সরবরাহ করার প্রয়োজন পড়েনি।

অধিকাংশ কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের ডায়াবেটিস, কিডনির সমস্যা, উচ্চ রক্তচাপ এবং শ্বসনতন্ত্রের সমস্যা ছিল। অ্যাভিগান এইসব রোগীর শরীরে ভালভাবে কাজ করেছে বলে এই গবেষকরা দাবি করছে। এন্টিভাইরাল ওষুধের মধ্যে অন্যতম জাপানের ফুজিফিল্ম তয়োমা ফার্মাসিউটিক্যালস লি.-এর তৈরি ফ্যাভিপিরাভির অ্যাভিগান। যেটি ২০১৪ সাল থেকে ইনফ্লুয়েঞ্জার চিকিৎসার জন্য তৈরি করা হয়। চীন উহানে কোভিড-১৯ ব্যাপক প্রাণহানির পর সেই দেশের সরকার গত মার্চে দাবি করে, এভিগান ওষুধ ‘কোভিড-১৯’ প্রতিরোধে ভাল কাজ দিয়েছে। চীনের দাবির এক মাসের মধ্যে জাপানের স্বাস্থ্য, শ্রম ও কল্যাণ মন্ত্রী কাতসুনোবু কাতো ইঙ্গিত দেন যে ‘এভিগান’ কোভিড -১৯-এর বিরুদ্ধে পরীক্ষা করার পরিকল্পনা করছে। আর এরপরই মূলত কোভিড-১৯ জন্য অ্যাভিগানকে প্রস্তুত করতে উঠে পড়ে লাগে জাপান। এর মধ্যে গত ৩১ মার্চ ফুজিফিল্মর প্রেসিডেন্ট জুনিজি ওকাদা এক বিবৃতিতে, ফ্যাভিপিরাভিরের জেনরিকের অ্যাভিগান তৃতীয় ধাপে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু করেছে দাবি করেন। কোভিড-১৯ মহামারি রুখতে বিশ্বের অন্যন্য দেশের চাহিদা অনুযায়ী জাপান সরকারের পরামর্শক্রমে তারা এই ওষুধ সরবরাহ করবে জানান।

আমেরিকার খাদ্য ও ঔষধ প্রশাসন এখনও কোভিভ-১৯ রোগের চিকিৎসার জন্য কোনো ঔষধকে অনুমোদন দেয়নি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, যুক্তরাজ্যের জাতীয় স্বাস্থ্য দপ্তর এবং অস্ট্রেলিয়ার স্বাস্থ্য দপ্তর ফ্লাভিপাইরাভির ওষুধটিকে এখনও অনুমোদন দেয়নি। ইতালিতে ট্রায়ালে ভালো ফল পাওয়া গেছে তবে সরকারিভাবে এখনও অনুমোদন দেয়নি। বর্তমানে বিশ্বের ২০টি দেশে ওষুধটির ট্রায়াল চলছে। অ্যাভিগান সত্যি যদি করোনাভাইরাসকে প্রতিরোধ করতে পারে, তাহলে এটি হবে এই শতকের সবচেয়ে বড় অর্জন।

হাবিবুর রহমান বাংলাদেশ পুলিশের এর একজন কর্মকর্তা। তিনি জন হপকিন্স ইউনিভার্সিটি থেকে করোনা ভাইরাস সম্পর্কিত একটা পোস্টের বাংলা অনুবাদ দেশের পাঠকদের কল্যাণে উপস্থাপন করেছেন । এটা থেকে করোনার বৈশিষ্ট্য গতি -প্রকৃতি ও প্রতিরোধের উপায় সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা পাওয়া যাবে ।নিচে তার অনুবাদকৃত প্রবন্ধটি বিস্তারিত উল্লেখ করা হলো।

  •  “ভাইরাস জীবন্ত প্রাণী নয়। এটি প্রোটিনের অণু (ডিএনএ) যা লিপিডের (চর্বি) মোড়কে মোড়ানো। এটা আমাদের নাক-চোখ-মুখের মাধ্যমে শরীরে ঢুকে গেলে নিজের জেনেটিক কোড বদলে ফেলে শক্তিশালী ও আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠে।
    * ভাইরাস যেহেতু কেবলই একটি প্রোটিন অণু এবং জীবন্ত নয় তাই এটাকে মেরেও ফেলা যায় না। তবে সে নিজে থেকে ধ্বংস হতে পারে। এটা কতক্ষণে ধ্বংস বা ক্ষয় হবে তা নির্ভর করে এর থাকার স্থানটির তাপমাত্রা, আর্দ্রতা ও স্থানটি কী উপাদানে তৈরি, তার উপরে।
  • করোনা ভাইরাস ভঙ্গুর কারণ সুরক্ষার জন্য তা কেবল একটি চর্বির স্তর দিয়ে মোড়ানো। এ কারণেই সাবান ও ডিটারজেন্ট ভাইরাসটি থেকে মুক্ত হবার সহজ উপায়। সাবান ও ডিটারজেন্ট মূলত যেকোনো স্থানের তেল বা চর্বি সরাতে পারে। তেল বা চর্বি সরানোর উদ্দেশ্যে আমাদের অন্তত টানা ২০ সেকেন্ড ধরে সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার করতে হয় যাতে করে প্রচুর ফেনা তৈরি হতে পারে। এর ফলে ভাইরাসের উপরের চর্বির স্তর ভেঙে গিয়ে পুরোপুরি অকার্যকর হয়ে যায়।
  • গরম তাপমাত্রা চর্বি গলাতে কার্যকর। এজন্যে হাত বা কাপড় ধোয়ার ক্ষেত্রে অন্তত ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার পানি ব্যবহার করা উচিত। এ ছাড়া, সাবান ব্যবহারের ক্ষেত্রে গরম পানি ঠান্ডা পানির চেয়ে বেশি ফেনা তৈরি করতে পারে বলে ভাইরাসটিকে আরও দ্রুত অকার্যকর করতে পারে।
  • অ্যালকোহল কিংবা অন্তত ৬৫% অ্যালকোহলের মিশ্রণ যেকোনো ধরনের তেল অথবা চর্বি ভাঙার জন্য উপযুক্ত। ভাইরাসের শরীরের বাইরের চর্বির স্তর ভাঙতে অ্যালকোহলের মিশ্রণ অত্যন্ত কার্যকর একটি উপায়।
  • এক ভাগ ব্লিচ ও পাঁচ ভাগ পানির মিশ্রণ সরাসরি প্রয়োগে প্রোটিন ভেঙে যায়। তাই এই মিশ্রণ ভাইরাসটিকে ভেতর পর্যন্ত গলিয়ে ধ্বংস করতে পারে।
  • সাবান, অ্যালকোহল এবং ক্লোরিন যদি অক্সিজেন চালনা করা পানির (অক্সিজেনেটেড ওয়াটার) সঙ্গে ব্যবহার করা হয় তবে তা অপেক্ষাকৃত দীর্ঘ সময় ধরে ভাইরাসের কার্যক্ষমতা ঠেকাতে সাহায্য করে। এর কারণ অক্সিজেন চালনা করা পানিতে থাকা পারঅক্সাইড ভাইরাসের প্রোটিনকে গলিয়ে ফেলতে পারে। এটি বিশুদ্ধ হলে ব্যবহার করা যেতে পারে তবে ত্বকের জন্য সুবিধাজনক নয়।
  • ব্যাকটেরিয়া ধ্বংসে যা ব্যবহার করা হয় তা দিয়ে ভাইরাস থেকে মুক্ত হওয়া সম্ভব না। ভাইরাস ব্যাকটেরিয়ার মতো জীবন্ত প্রাণী নয়। যা জীবন্ত নয় তাকে অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করে হত্যা করার প্রশ্ন নেই। তবে আগে যা যা উপায় বলা হলো সেসব অনুসরণ করে ভাইরাসকে ভেঙে ধ্বংস করা সম্ভব।
  • ব্যবহৃত বা অব্যবহৃত পোশাক, কাপড় বা চাদর ঝাড়া দেয়া যাবে না। কাপড় ঝাড়লে তা থেকে নিসৃত ভাইরাস কোথাও পড়লে সেখানেই আটকে থাকে। কাপড় বা সমধর্মী জিনিসে তিন ঘণ্টা, তামা বা কাঠে চার ঘণ্টা (যেহেতু তামা নিজেই জীবাণু ধ্বংস করতে পারে এবং কাঠ ক্রমাগত আর্দ্রতা হারাতে থাকে), হার্ডবোর্ডের উপরে ২৪ ঘণ্টা, ধাতব জিনিসে ৪২ ঘণ্টা এবং প্লাস্টিকে ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত ভাইরাসটি টিকে থাকতে পারে। ভাইরাস আছে এমন কিছুকে ঝাড়া দিলে বা তার উপরে পালকের ডাস্টার ব্যবহার করলে ভাইরাসের অণুগুলো বাতাসে তিন ঘণ্টা পর্যন্ত ভাসতে পারে এবং মানুষের নাকে ঢুকে যেতে পারে।
  • ভাইরাস অণুগুলো ঠান্ডা আবহাওয়ায়, এমনকি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বাড়ি বা গাড়িতে অত্যন্ত ভালোভাবে টিকে থাকতে পারে। বেশি কার্যকর থাকার জন্য ভাইরাসটির আর্দ্রতা এবং অন্ধকারের উপস্থিতির প্রয়োজন পড়ে। এ কারণে একদিকে শুকনো বা কম আর্দ্রতাবিশিষ্ট আবহাওয়া, অন্যদিকে, গরম এবং উজ্জ্বল পরিবেশে ভাইরাসটি দ্রুত ধ্বংস হয়।
  • ইউভি লাইট ভাইরাসটিকে তার প্রোটিন ভেঙে যেকোনো কিছুর ওপর থেকে ধ্বংস করতে পারে। এভাবে একটি মাস্ককে ব্যবহারের পর ভাইরাসমুক্ত করে আবারো ব্যবহার করা যেতে পারে। কিন্তু ইউভি লাইট যেহেতু ত্বকের কোলাজেন ভেঙে দেয় তাই মুখে বলিরেখা থেকে শুরু করে ত্বকের ক্যানসার পর্যন্ত হতে পারে।
  • ভাইরাসটি সুস্থ এবং স্বাভাবিক ত্বকের ভেতরে সরাসরি প্রবেশ করতে পারে না।
  • করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত হতে ভিনেগার কার্যকর নয় কারণ ভিনেগার প্রোটিন ধ্বংস করতে পারে না।
  • স্প্রিট বা ভদকা ভাইরাসটি ধ্বংস করতে করতে কার্যকর নয়। ভদকায় অ্যালকোহলের সর্বোচ্চ মাত্রা হতে পারে ৪০% কিন্তু ভাইরাসটি ধ্বংস হতে কমপক্ষে ৬৫% অ্যালকোহল দরকার।
  • করোনা ভাইরাসকে ধ্বংস করে, অ্যালকোহলসমৃদ্ধ এমন কিছুর কথা ভাবলে একমাত্র বলা যেতে পারে কোনো কোনো লিসটারিনের (মাউথ ওয়াশ) কথা যাতে ৬৫% অ্যালকোহল থাকে। তবে বেশিরভাগ লিসটারিনে থাকে ২০% থেকে ৩০% অ্যালকোহল যা ভাইরাসটি ধ্বংসে কার্যকর নয়।
  • বদ্ধ স্থানে ভাইরাসটির প্রকোপ বেশি হবে। উলটোদিকে উন্মুক্ত এবং বাতাস চলাচল করে এমন স্থানে ভাইরাসের উপস্থিতি কম হবে।
  • এটা অবশ্য অনেকবার বলা হয়েছে, তবু আরেকবার বললে ক্ষতি নেই যে, নাক, খাবার, দরজার লক, যে কোনো সুইচ, রিমোট কন্ট্রোলার, সেল ফোন, ঘড়ি, কম্পিউটার, টেবিল ও টেলিভিশন জাতীয় জিনিস ধরার আগে ও পরে হাত ধোয়া জরুরি। ওয়াশরুম ব্যবহার করলে হাত তো ধুতে হবেই।
  • বারে বারে ধোয়া হাত ভালোমতো শুকাতেও হবে। কারণ ত্বকের যে কোনো ফাটলে ভাইরাস লুকিয়ে থাকতে পারে। ত্বক আর্দ্রতাকারী লোশন বা ক্রিম যত ভারি ও তৈলাক্ত হয় তত ভালো।
  • হাতের নখ ছোটো করে কেটে রাখা উচিত যেন তাতে ভাইরাস ঢুকে থাকতে না পারে।সবাই সুস্থ থাকুন, ভালো থাকুন।”

লেখক: ডিআইজি, ঢাকা বিভাগ। বর্তমানে তিনি ঢাকা রেঞ্জ ডিআইজি (উপ মহাপরিদর্শক) হিসেবে বাংলাদেশ পুলিশে দ্বায়ীত্বরত রয়েছেন।এর পুর্বে তিনি ঢাকাস্থ সদরদপ্তরে উপ মহাপরিদর্শক (প্রশাসন-ডিসিপ্লিন) হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc