Wednesday 21st of October 2020 11:30:37 AM

নূরুজ্জামান ফারুকী নবীগঞ্জঃ  সিলেটে এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার ৪ নম্বর আসামী অর্জুন লস্কর মাধবপুর (২৪) থেকে ও ৫নং আসামী রবিউল ইসলাম (২৫) কে নবীগঞ্জের ইনাতগঞ্জ থেকে এবং হবিগঞ্জের শাহ মো. মাহবুবুর রহমান রনি (২৫) কে আটক করা হয়েছে। অর্জুন ও রবিউলকে পুলিশ ও রনিকে র‌্যাব আটক করেছে। আবুল হোসেন সবুজ, মাধবপুর থেকে জানান, গতকাল রোববার ভোরে মাধবপুর উপজেলার বহরা ইউনিয়নের দূলর্ভপুর থেকে অর্জুনকে গ্রেপ্তার করেছে সিলেট জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃত অর্জুন জকিগঞ্জের আটগ্রামের কানু লস্করের ছেলে। মাধবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইকবাল হোসেন গ্রেপ্তারের খবর নিশ্চিত করে জানান, অর্জুনকে সিলেটের গোয়েন্দা পুলিশের একটি টিম উপজেলার দৌলতপুর গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করেছে। অপর দিকে গণধর্ষণের ঘটনায় দায়েরী মামলার ৫নং আসামি রবিউল হাসানকে নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জের নিজগ্রাম থেকে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল গ্রেফতার করেছে। গতকাল রোববার রাতেই তাকে হবিগঞ্জ ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়েছে। রবিউলের বাড়ি দিরাই উপজেলার বড়নগদীপুর (জগদল) গ্রামে।
বিষয়টি নিশ্চিত করে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা জানান, রাতে গোপন সংবাদে খবর পেয়ে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল অভিযান চালিয়ে তাকে ইনাতগঞ্জের নিজগ্রাম থেকে গ্রেফতার করে।
অপরদিকে গণধর্ষণ মামলার আসামী হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বাগুনীপাড়া গ্রামের মো. জাহাঙ্গীর মিয়ার ছেলে শাহ মো. মাহবুবুর রহমান রনি (২৫)কে গতকাল গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। র‌্যাব দাবী করছে রনিকে শায়েস্তাগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। কিন্তু রনির চাচা শাহ নজির মিয়া দাবী করছেন হবিগঞ্জ শহরের অনন্তপুর এলাকায় অবস্থিত তার (নজির মিয়ার) বাসা থেকে র‌্যাব রনিকে নিয়ে গেছে।
উল্লেখ্য, শুক্রবার সন্ধ্যায় স্বামী-স্ত্রী এমসি কলেজে বেড়াতে যান। এ সময় কলেজ ক্যাম্পাস থেকে কয়েকজন ছাত্রলীগ কর্মী জোরপূর্বক কলেজের ছাত্রাবাসে নিয়ে যায় দম্পতিকে। সেখানে একটি কক্ষে স্বামীকে আটকে রেখে ২০ বছর বয়সী তরুণী গৃহবধূকে গণধর্ষণ করে তারা। খবর পেয়ে পুলিশ গৃহবধূকে উদ্ধার করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টার ওসিসিতে ভর্তি করে।
এ ঘটনায় ধর্ষিতা গৃহবধুর স্বামী বাদি হয়ে সিলেট শাহপরান থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় ছাত্রলীগের ৬ নেতাকর্মীসহ অজ্ঞাত আরও ৩ জনকে আসামি করা হয়েছে।

 

জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধি: সিলেটের জাফলং পর্যটকদের জন্য মরণ ফাঁদ হিসাবে পরিচিত সিলেটের জিরো পয়েন্টে আবারো নিখোঁজের ঘটনা ঘটেছে। নিখোঁজ হয়েছেন এমসি কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আতিকুর রহমান অনিক। ডাউকী ও পিয়াইন নদীর উৎসমুখের স্বচ্ছ পানিতে গোসল করতে নেমে ছাত্র নিখোঁজের ঘটনা ঘটে৷ ২৬ এপ্রিল শুক্রবার জুম’আর নামাজের পর নিখোঁজের ঘটনা ঘটে।
এলাকাবাসীসূত্রে জানা যায়- ৮ বন্ধু মিলে প্রকৃতিকন্যা জাফলং বেড়াতে আসে। এরমধ্যে আতিকুর সহ ৩ তিন বন্ধু জিরো পয়েন্টে গোসল করার সময় আতিকুর নদীর পানিতে তলিয়ে যান। কয়েকজন বারকী শ্রমিক তা দেখে  দ্রুত ছুটে আসে এবং দুজন কে উদ্ধার করতে সক্ষম হলেও আতিকুর রহমান অনিক কে উদ্ধার করতে পারেন নি৷ এঘটনার পর হতে সে নিখোঁজ রয়েছে। তার গ্রামের বাড়ি হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলায়। বর্তমানে তিনি সিলেট নগরীর আম্বরখানা এলাকার বাসিন্দা।
খবর পেয়ে জৈন্তাপুর ফায়ার স্টেশনের কর্মীরা নিখোঁজ শিক্ষার্থীর সন্ধান শুরু করে। তবে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত তার লাশ পাওয়া যায়নি৷ ফায়ার সার্ভিস ও গোয়াইনঘাট থানা প্রশাসনের পক্ষে নিখোঁজের সন্ধান কার্যক্রম স্থগিত ঘোষনা করেছে৷ আগামীকাল ২৭ এপ্রিল পুনরায় সন্ধান চালাবে বলে জানান ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ইনচার্জ ফারুক হোসাইন৷
গোয়াইনঘাট থানার ওসি জলিল জানান- কলেজ ছাত্রটি এখনো নিখোঁজ। ঘটনাস্থলে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা তৎপরতা চালিয়ে সন্ধান পায়নি৷ আপতত অনুসন্ধান স্থগিত করা হয়েছে৷ আগামীকাল পুনরায় নিখোঁজের সন্ধান করা হবে৷

আবু তাহির,ফ্রান্স: বর্ণাঢ্য আয়োজনের মাধ্যমে আনন্দঘন পরিবেশে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে ঐতিহ্যবাহী মুরারিচাঁদ কলেজ সিলেট এর ১২৫ বছরপূর্তি উৎসব ও পূণর্মিলনী’২০১৮ উদযাপিত এবং “শিকড়ের টানে” সাহিত্য স্মারকের মোড়ক উন্মোচিত হলো।

“এম.সি ইউনিভার্সিটি কলেজ এক্স-স্টুডেন্টস্ অ্যাসোসিয়েশন, ফ্রান্স” -এর উদ্যোগে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো: আলী আশরাফ মাসুমের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারী মোহাম্মদ আব্দুল হামিদের সার্বিক পরিচালনায় ও সাংবাদিক আবু তাহিরের সার্বিক সহযোগীতায় পূণর্মিলনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাজ্য এম.সি কলেজের সাবেক শিক্ষার্থীদের ১২৫ বছরপূর্তি নির্বাহী কমিটির কনভেনর ও জিপি কেয়ার সার্ভিস লি. ইউ.কে এর ডাইরেক্টর ডা. মোশাররাফ হুসেইন, বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ফ্রান্সের কমিউনিটি নেতা টি.এম.রেজা, যুক্তরাজ্য এম.সি কলেজ সাবেক শিক্ষার্থীদের ১২৫ বছরপূর্তি নির্বাহী কমিটির দুই যুগ্ম আহ্বায়ক সলিসিটর এম.আব্দুল হামিদ টিপু ও , মনসুর আহমদ খান। এসময় আরো বক্তব্য রাখেন ওয়াহিদ বার তাহের ,এনায়েত হোসেন সোহেল , হেনু মিয়া, তৌফিকা সাহেদ ,আব্দুল মান্নান আজাদ, অজয় দাস , আজহারুল ফয়সল, মনির আহমদ।

“শিকড়ের টানে” সাহিত্য স্মারকের মোড়ক উন্মোচন করেন প্রধান অতিথি, বিশেষ অতিথি বৃন্ধ, কমিউনিটি নেতৃবৃন্ধ ও সাবেক সকল শিক্ষার্থীবৃন্ধ। পরে সাংবাদিক আবু তাহির অ্যাসোসিয়েশনের সকল সদস্যদের পরিচয় করিয়ে দেন এবং প্রধান অতিথি সাবেক সকল শিক্ষার্থীদের উত্তরীয় পরিয়ে দেন। এবং অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে ইংল্যান্ড থেকে আগত প্রধান অতিথি ডা. মোশাররাফ হুসেইন, বিশেষ অতিথি এম.আব্দুল হামিদ টিপু ও মনসুর আহমদ খানকে ক্রেস্ট প্রদান করেন ও উত্তরীয় পরিয়ে দেন সভাপতি মো: আলী আশরাফ মাসুম ও সেক্রেটারী মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ।

আলোচনা পর্বে, “এম.সি ইউনিভার্সিটি কলেজ এক্স-স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন,ফ্রান্স” এর পক্ষ থেকে স্বাগতিক বক্তব্য প্রদান করেন আশরাফ হোসেন মাসুদ, জাকির হোসেন সুয়েব, জিয়াউর রহমান, মো: সালাহ উদ্দিন, সাইদুর রহমান সাইদ, রাজু এইচ আহমদ, মাহবুব আহমদ, সুমা দাস, শামসুল ইসলাম, আকরাম খান ও আফসার উদ্দিন আহমদ .

বক্তারা এ অনুষ্ঠান ও “শিকড়ের টানে” সাহিত্য স্মারকের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন ফ্রান্সে এরকম ব্যতিক্রমধর্মী অনুষ্ঠান প্রথম উপহার দিলো এম.সি কলেজ এক্স স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন এবং ফ্রান্সে বাঙালী কমিউনিটির মধ্যে “শিকড়ের টানে” সাহিত্য স্মারকের মতো এত বৃহৎ কলেবরে ও দেশ বরেন্য বহু গুণী লেখকদের সমন্বয়ে ম্যাগাজিন এটাই প্রথম।

সভাপতির সমাপনী বক্তব্যে সকলকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে বলেন,আপনাদের সকলের উপস্থিতি আমাদের অনুষ্ঠানকে সফল ও সার্থক করে তুলেছে। এবং এরই মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি টানা হয়।

“সিলেট এমসি ইউনিভার্সিটি কলেজ এক্স-স্টুডেন্টস্ অ্যাসোসিয়েশন, ফ্রান্স” এর ফেমিলি ডে”

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৮মে,আবু তাহেরঃ ফ্রান্সে বসবাসরত সিলেট এমসি ইউনিভার্সিটি কলেজ এক্স-স্টুডেন্টস্ অ্যাসোসিয়েশন, ফ্রান্স” এর উদ্যোগে প্যারিসে গতকাল রবিবার এক আনন্দঘন পরিবেশে অনুষ্ঠিত হলো “ফেমিলি ডে । এতে ফ্রান্সে বসবাসরত এমসি কলেজের বিপুল সংখ্যক ছাত্র-ছাত্রী ও তাদের পরিবারের উপস্থিতিতে শিশু কিশোরদের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বিটিআই কার্গো চেয়ারম্যান কবির হোসেইন পাটোয়ারী।

দিনভর আয়োজনের মধ্যে মা ও শিশু কিশোরদের খেলাধুলা ও পুরস্কার বিতরনী, মধ্যাহ্ন ভোজ, কলেজ মনোগ্রাম সংবলিত টি-শার্ট পরিধান ফটো সেশন ও

আলোচনা সভায় সংগঠনের সভাপতি আলী আশরাফ মাসুমের সভাপতিত্বে অ্যাসোসিয়েশনের সেক্রেটারী মোহাম্মদ আব্দুল হামিদের পরিচালনায় আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন প্রধান অতিথি বিটিআই কার্গো চেয়ারম্যান কবির হোসেইন পাটোয়ারী ও এমসি কলেজের ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দের পক্ষে বক্তব্য রাখেন খালেদ আহমদ, আবু তাহির, মাহবুব আহমদ, ফয়সল আহমদ, ইস্তিয়াক আহমদ চৌধুরি , সাইদুর রহমান সাইদ, ইকবাল হোসাইন, রাজু এইচ আহমদ, শাহ সুহেল আহমদ, আশরাফ হোসেন মাসুদ, ইসমত আহমদ, নিজাম উদ্দিন, আব্দুল মুমিত সুমন।

অনুষ্ঠান থেকে আগামী ৮ জুলাই অনুষ্ঠেয় কলেজের ১২৫ বছরপূর্তি উৎসব ও পূনর্মিলনী’২০১৮ এর ওপর গুরুত্বারোপ করে আগামি ১৭ই জুন’২০১৮ রোজ রবিবার অ্যাসোসিয়েশনের ঈদ পূনর্মিলনীর ঘোষণা দেন ।

সবশেষে বিভিন্ন ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের মাঝে পুরস্কার বিতরন করেন অনুষ্ঠানে আগত অতিথিবৃন্দ ।

“ফ্রান্সে বসবাসরত সাবেক ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে প্যারিসে ‘এমসি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ সাবেক স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন ফ্রান্স’ গঠিত, সভাপতি আলী আশরাফ মাসুম, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ, সাংগঠনিক সম্পাদক সুমা দাস”

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩০জানুয়ারী,প্যারিস,ফ্রান্সঃ     বাংলাদেশ এর প্রাচীনতম বিদ্যাপীঠ সিলেট এমসি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ’র ১২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে ফ্রান্সে বসবাসরত সাবেক ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে প্যারিসে ‘এমসি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ সাবেক স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন ফ্রান্স’ গঠিত হয়েছে। প্যারিসের গার দ্যু নর্দে এক মতবিনিময় সভায় সাবেক ছাত্র-ছাত্রীদের উপস্থিতিতে সর্বসম্মতিক্রমে সাবেক ছাত্র আলী আশরাফ মাসুমকে সভাপতি, মোহাম্মদ আব্দুল হামিদকে সাধারণ সম্পাদক ও সুমা দাসকে সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত করে ৩১সদস্য বিশিষ্ঠ কমিটি গঠন করা হয়।

অনুষ্ঠানে এমসি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের সাবেক ছাত্র আফসার উদ্দিন আহমদ এর সভাপতিত্বে ও সাংবাদিক আবু তাহিরের পরিচালনায় এ সময় বক্তব্য রাখেন আলী আশরাফ মাসুম, মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ, খালেদ আহমদ, মাহবুব আহমদ, সালাহ উদ্দিন, সুমা দাস ,শাহ সুহেল, ফাহিম বদরুল হাসান, আশরাফ হোসেন মাসুদ সহ এমসি কলেজের সাবেক ছাত্রছাত্রীরা।

এসোসিয়েশনের যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি প্রকাশ করা হয়, সেটি হচ্ছেঃ

সভাপতি- আশরাফ আলী মাসুম, সহ-সভাপতি- খালেদ আহমদ, বদরুজ্জামান, মাহবুব আহমদ, আবু সাঈদ মোহাম্মদ শফিউল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক- মোহাম্মদ আবদুল হামিদ , সহ-সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমদ, বুলবুল আহমেদ, মোহাম্মদ সালাউদ্দিন, ইকবাল হোসাইন, সাংগঠনিক সম্পাদক সুমা দাস, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ সোহেল আহমদ, অর্থ সম্পাদক ইশতিয়াক আহমদ চৌধুরী, সহ-অর্থ সম্পাদক মোহাম্মদ সাহিনুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক সাইদুর রাহমান, সহ-প্রচার সৈয়দ অলিউর রাহমান , অফিস সম্পাদক ফাহিম বদরুল হাসান, সাহিত্য ও প্রকাশনা সম্পাদক আশরাফ হোসেন মাসুদ, সহ-সাহিত্য ও প্রকাশনা মহিনুল ইসলাম মুহিত, আন্তর্জাতিক সম্পাদক রাজু আহমদ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক জয় প্রকাশ দেব, ক্রীড়া সম্পাদক জাকির আহমদ শোয়াইব, মহিলা সম্পাদক এলিনা চৌধুরী, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক বদরুল ইসলাম, সহ-তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক শালিক উদ্দিন।

কার্যকরী কমিটির সদস্য আবু তাহির, সামসুল ইসলাম ,সুশীল বণিক ,জাহিদুল ইসলাম ,আক্তার হোসেন ,নাজমুল হোসেন ,নজরুল ইসলাম মাছুম। এবং উপদেষ্টা হিসাবে আফসার উদ্দিন আহমদ, মোহাম্মদ সাজিদুল আলমকে নির্বাচিত করা হয়।

কমিটি গঠনের পর সর্বসম্মতিক্রমে আগামী ৮ জুলাই এমসি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ১২৫ বছর পূর্তি প্যারিসে বর্ণাঢ্য আয়োজনে পালনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

“আমার বাবারে আইনা দাও। আমার বাবারে ছাড়া কেমনে দিন কাটব বলে নিহতের মায়ের কান্না”

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০১জুলাই,সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের টাংগুয়ার হাওরে পানিতে ডুবে নিহত এমসি কলেজ মেধাবী ছাত্র আশরাফুল ইসলাম হাসানের (২৩) লাশ দাফন সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার ১১টার সময় ধর্মপাশা উপজেলার বাদশাগঞ্জ ডিগ্রি কলেজ মাঠে জানাযার নামাজ অনুষ্টিত হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন,ধর্মপাশা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মোতালেব খাঁ,তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কারুজ্জামান কামরুল,সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আনিসুল হক,ধর্মপাশা উপজেলার সেলবরস ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আলী আমজাদ,ধর্মপাশা উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহবায়ক লুৎফুর রহমান উজ্জল সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্ধ সহ এলাকার সর্বস্থরের মানুষের অংশ গ্রহনে কানায় কানায় পূর্ন হয় মাঠ। জানাযার নামাজ শেষে সেলবরস ইউনিয়নের এলাকাবাসীর সম্মিলত কবর স্থানে তাকে দাফন করা হয়েছে।

জানাযায়, বাবা চাঁন মিয়া সুনামগঞ্জ গনর্পূত বিভাগে নিরাপত্তা প্রহরীর চাকরীর সুবাধে সুনামগঞ্জের হাজি পাড়াস্থ সরকারী কোয়াটারে থেকেই স্কুল জীবন শুরু করে। উন্নত লেখা পাড়ার সুবাধে চলে আসে সিলেটে। ভর্তি হয় এমসি কলেজে উদ্ভিদ বিদ্যা বিভাগে। পড়াশুনা ছিল মেধাবী তার জন্য সবার একটু ভাল লাগা ছিল ছিল সবার প্রিয় পাত্র। শেষ মুর্হুতে ৪র্থ বর্ষে ছিল হাসান। ৩বোন এক ভাইয়ের মধ্যে হাসান দ্বিতীয়।

একমাত্র সন্তানকে হারিয়ে নির্বাক হয়ে তাকিয়ে আছে বাবা চাঁন মিয়া আর মায়ের নাড়িছেড়া ধন হারানো বেদনায় বার বার মূর্চা যাচ্ছে। বার বার শুধু বলছেন আমার বাবারে আইনা দাও। আমার বাবারে ছাড়া কেমনে দিন কাটব। বাবা আমার কেমনে আমরারে ছাইড়া চলইলা গেল। কোন ভাবেই শান্ত করা যাচ্ছে না মায়ের মন। মায়ের আতœ চিৎকারে এলাকার এক হ্নদয় বিধারক পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে। আতœীয় স্বজন ও পাড়া প্রতিবেশীরা নিজেদের চোখের জল ধরে রাখতে পারছে না। একমাত্র সন্তান কে হারিয়ে বাবা চাঁন মিয়া একবারেই হাত পা ছেঁেড় বসেছে। কারন একামাত্র সন্তান কে নিয়ে ছিল তার অনেকে স্বপ্ন সব স্বপ্ন এভাবে এক মূর্হূতে নিঃশ্বেস হয়ে যাবে কোন ভাবেই তা মানতে পারছেন না তিনি। নিহতের বাবা চাঁন মিয়া বলেন,বাবারে নিয়া অনেক স্বপ্ন ছিল আমরার সব শেষ হইয়া গেল। ভাল ছাত্র ছিল কষ্ট করে তাই লেখা পাড়া করার লাগি সিলেটে এমসি কলেজে পড়াইতা ছিলাম কেরে যে বাবা আমার হাওরে গেল না গেলে ত এমন হইত না। আমার বুকটা খালি করই দিয়া গেল। কেমনে বাঁচমো তারে ছাড়া আমরা। নিহতের তিন বোন ভাই হারানো বেদনায় মা,বাবাকে জরিয়ে চিৎকার করে শুধুই চোঁেখর জল ফেলছে। এমসি কলেজের মেধাবী শিক্ষার্থী হাসানের অকাল মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে তার নিজ এলাকা সেলবরস ইউনিয়নে সহ উপজেলা জুড়ে। হাসানের মৃত্যু খবর শুনে ছুঠে আসছে তার সহপাটি সহ এলাকাবাসী। সবাই নির্বাক দৃষ্টিতে না ফেরার দেশে চলে যাওয়া হাসানের পরিবারের দিকে তাকিয়ে আছে আর শান্তনা দিচ্ছে পরিবারের সকল সদস্যদের কে। এভাবে অকালে না ফেরার দেশে চলা যাওয়া কোন ভাবেই মেনে নিতে পারছে না তার র্দীঘ সময়ের সহপাটিরা। হাসানের সহপাটি এহসানুল হক মুন্না,অভি,অপু তালুকদার সহ সবাই ভুকভাড়া র্দীঘশ্বাস আর কান্না জরিত কণ্ঠে জানায়,হাসান আমাদের ছেড়ে এভাবে চলে যাবে তা কোন ভাবেই মানতে পারছি না পারছি না ভাবতে। এখন ও ভুলতে পারছি না আমরা গতকাল এক সাথে ট্যাকেরঘাট,বারেকটিলা,লামকাছড়া ও টাংগুয়ার হাওরে বেড়ানো ও গোসল করার মুর্হুত গুলো। কত আনন্দ করেছি আমরা সবাই মিলে। আজ হাসান আমাদের মাঝে নেই তা মানতে খুব কষ্ট হচ্ছে। নিজের হাতে আমাদের প্রিয় বন্ধু কে এভাবে মাটি দিতে হবে তা কখনোও ভাবি নি। আমরা আর তার সাথে কথা বলতে পার না পারব না আড্ডা দিতে ভাবতেই বুকটা হাহাকার করে উঠে। নিহত হাসানের চাচাত ভাই সিদ্দিকুর রহমান ও মোফাজ্জল হায়দার বলেন,হাসান খুবেই মেধাবী ছাত্র ছিল আমরা সবাই তাকে নিয়ে অনেক স্বপ্নœ দেখে ছিলাম আজ সব শেষ হয়ে গেলে। সে পরিবারের সবার আদরের ছিল। এই ভাবে যে আমাদের ছেড়ে ছলে যাবে ভাবতে পারছিনা। এবার ঈদে বাড়ি আসে নি। এই ত বাড়ি আসল একবারে নিরব নিতর দেহটা। আর তার মুখে বড় ভাই ডাক শুনব না মনে হলে কষ্টে বুকটা ভেঙ্গে যায়। উল্লেখ্য,সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের গত মঙ্গলবার ঈদ উপলক্ষে সকালে সিলেট থেকে হাসান মিয়া (২৩) ও তার কলেজের বন্ধু সহ মোট ২১জনের একটি দল ট্যাকেরঘাট,টাংগুয়ার হাওর সহ বিভিন্ন পর্যটন স্পটে বেড়াতে আসে। রাতে ট্যাকেরঘাট অবস্থান করে আজ বুধবার দুপুরে ইঞ্জিন চালিত ট্রলার যোগে টাংগুয়ার হাওরে বেড়াতে যায়। বেড়ানোর এক প্রর্যায়ে টাংগুয়ার হাওরের ওয়াচ টাওয়ারের পাশে নৌকা রেখে সবাই গোসল করতে নামে। গোসল শেষে সবাই নৌকায় উঠে কাপড় পরিবর্তন করে তাহিরপুরের উদ্যোশে রওনা করে। এক সময় সবাই হাসানের মোবাইল নৌকার উপড়ে দেখতে পায় কিন্তু হাসান কে নৌকার উপরে ও ভিতরে না পেয়ে সবাই নৌকা ঘুড়িয়ে ওয়াচ টাওয়ারে কাছে যায়। সেখানে গিয়ে অনেক খোঁজা খুজির পর তারা ওয়াচ টাওয়ারে পাশেই হাসানের মৃত দেহ ডুবন্ত অবস্থায় দেখতে পায়। সাথে সাথে তাকে উদ্ধার করে বিকাল সাড়ে ৫টায় তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তারগন থাকে মৃত ঘোষনা করেন।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৮জুন,সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃসুনামগঞ্জের তাহিরপুরের টাংগুয়ার হাওরে পানিতে ডুবে এমসি কলেজ ছাত্র হাসান মিয়া (২৩) হয়েছে। তিনি জেলার ধর্মপাশা উপজেলার মাটিকাটা গ্রামের চাঁন মিয়ার ছেলে এবং সিলেট এমসি কলেজের ভোটানিক্যাল বিভাগের ৪র্থ বর্ষের ছাত্র।

পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানাযায়,গত মঙ্গলবার ঈদ উপলক্ষে সকালে সিলেট থেকে হাসান মিয়া (২৩) ও তার কলেজের বন্ধু সহ মোট ২১জনের একটি দল ট্যাকেরঘাট,টাংগুয়ার হাওর সহ বিভিন্ন পর্যটন স্পটে বেড়াতে আসে।

রাতে ট্যাকেরঘাট অবস্থান করে আজ বুধবার দুপুরে ইঞ্জিন চালিত ট্রলার যোগে টাংগুয়ার হাওরে বেড়াতে যায়। বেড়ানোর এক প্রর্যায়ে টাংগুয়ার হাওরের ওয়াচ টাওয়ারের পাশে নৌকা রেখে সবাই গোসল করতে নামে। গোসল শেষে সবাই নৌকায় উঠে কাপড় পরিবর্তন করে তাহিরপুরের উদ্যোশে রওনা করে।

এক সময় সবাই হাসানের মোবাইল নৌকার উপড়ে দেখতে পায় কিন্তু হাসান কে নৌকার উপরে ও ভিতরে না পেয়ে সবাই নৌকা ঘুড়িয়ে ওয়াচ টাওয়ারে কাছে যায়। সেখানে গিয়ে অনেক খোঁজা খুজির পর তারা ওয়াচ টাওয়ারে পাশেই হাসানের মৃত দেহ ডুবন্ত অবস্থায় দেখতে পায়।

সাথে সাথে তাকে উদ্ধার করে তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তরত ডাক্তারগন থাকে মৃত ঘোষনা করেন। তাহিরপুর থানার ওসি নন্দন কান্তি ধর এঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৮মার্চ,হাবিবুর রহমান খান,নিজস্ব প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সিলেটের এমসি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান এর ৩য় বর্ষের মেধাবী ছাত্র মো: জাহিদুল ইসলাম।কলেজের সেরা শিক্ষার্থী হিসেবে নিবার্চিত হয়েছেন। মৌলভীবাজার জেলার জুড়ী উপজেলা সদরের উত্তর ভবানীপুর গ্রামের হাজী আব্দুল হাসিব ও রিনা বেগম দম্পতির ঘরে ১৯৯৫ সালের ৮ জুলাই জন্ম নেয়া এ কৃতী শিক্ষার্থী সাত ভাই-বোনের মধ্যে ৬ষ্ঠ। তার শিক্ষা জীবনে শুরুর দিকে ৩য় শ্রেণীতে থাকাকালীন বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় সাফল্যের পাশাপাশি স্কুলসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানাদিতে বক্তৃতায় বাকপটু হওয়া এ কৃতী শিক্ষার্থী সম্প্রতি সিলেট জেলার শ্রেষ্ঠ বিতার্কিকের স্বীকৃতি পেয়েছেন।

উপজেলা পর্যায়ে সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগিতায় ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের চ্যাম্পিয়ন, দুদকের আয়োজনে বিতর্ক প্রতিযোগিতায় শ্রেষ্ঠ বিতার্কিক, ব্রাক, ইসলামী ফাউন্ডেশনের আয়োজনের প্রতিযোগিতাসহ প্রায় অর্ধশতাধিক প্রতিযোগিতায় সাফল্যে দেখিয়েছেন এক সময়ের এ স্কাউট সদস্য।

গত (২৬ মার্চ) দুপুরে কলেজ অডিটরিয়ামে সদ্য সমাপ্ত এমসি কলেজের বিভাগীয় সাহিত্য-সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা ‘১৭ এর তিনটি ইভেন্টে প্রথম স্থান অর্জন করেন। স্বাধীনতা দিবস উদযাপন ও কৃতী শিক্ষার্থী সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে কলেজের সম্মান ক্যাটাগরিতে সাত পয়েন্ট পেয়ে চ্যাম্পিয়ন জাহিদুল ইসলামের হাতে সনদপত্র তুলে দেন কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক নিতাই চন্দ্র চন্দ, সাহিত্য-সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আহ্বায়ক অধ্যাপক শামীমা আকতার চৌধুরী, কলেজ শিক্ষক পরিষদ সম্পাদক তোতিউর রহমান সহ অতিথিবৃন্দ।

মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার নয়া বাজার আহমদিয়া ফাজিল মাদ্রাসার প্রাক্তন জিএস জাহিদুল ইসলাম একজন প্রফেশনাল মোটিভেশনাল স্পীকার। মৌলভীবাজার জেলার বিভিন্ন স্কুল, কলেজ ও বিভিন্ন সংগঠনের প্রোগ্রামাদিতে প্রায় নিয়মিতই শিক্ষার্থীদের উদ্দীপনামূলক বক্তব্য প্রদানের দায়িত্ব পালন করতে হয় তাকে।

জানা গেছে নিয়মিত বক্তৃতা, বিতর্কের পাশাপাশি প্রবন্ধ, কবিতা লিখা ও আবৃত্তিতে পারদর্শী এ শিক্ষার্থী বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত। এমসি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ক্যাম্পাসের প্রিয়মুখ, সদা হাস্যোজ্জল রাষ্ট্রবিজ্ঞান সম্মান তৃতীয় বর্ষের এ ছাত্র প্রথম ও দ্বিতীয় বর্ষে পেয়েছেন প্রথম শ্রেণী। নয়া বাজার আহমদিয়া ফাজিল মাদ্রাসা থেকে দাখিল ও আলিম পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হওয়া ও শিক্ষার্থী পারিবারিক ব্যবসার দিকটিও ভাল করে দেখে থাকেন। মা-বাবার অনুপ্রেরণায় একের পর এক সাফল্যের মুকুট পড়া জাহিদুল ইসলাম ভবিষ্যতে প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ পদে গিয়ে দেশ ও জনগণের সেবা করতে চান।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc