Wednesday 2nd of December 2020 08:52:18 AM

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবে গত মাসের তারিখে আওয়ামী পরিবারের নামে একটি মানববন্ধন থেকে বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ এনে সংগঠনের সভাপতি বরাবরে দরখাস্তের ফলে সাময়িকভাবে বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক এম ইদ্রিছ আলীকে স্থায়ী বহিস্কার করা হয়েছে এবং প্রাথমিক সদস্যপদ ও বাতিল করা হয়েছে ৷

বুধবার (৮জুলাই) দুপুরে শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির এক সভায় এই সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়৷ গণমাধ্যমকে বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সভাপতি বিশ্বজ্যোতি চৌধুরী বুলেট ৷
আজীবন বহিষ্কৃত ইদ্রিছ আলী দৈনিক মানবজমিন পত্রিকার শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি ও মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক।
শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাব সভাপতি বিশ্বজ্যোতি চৌধুরী গণমাধ্যমকে জানান, শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্র বিরোধী কার্যকলাপে লিপ্ত থাকার অভিযোগে প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্রের অনুচ্ছেদ ৬(১)৬(৫)৪(২খ) ধারা ৭(ঝ) লঙ্ঘন করার দায়ে এম ইদ্রিছ আলীকে গত ২১ জুন সাময়িক অব্যাহতি দেয় প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটি।পাশাপাশি ‘কেন স্থায়ী বহিস্কার করা হবে না’-তা জানতে চেয়ে ইদ্রিছ আলীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়। সেই কারণ দর্শানোর নোটিশের জবাব সন্তোষজনক না হওয়ার প্রেক্ষিতে শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের কার্যনিবার্হী কমিটির সভায় সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তাছাড়া তার বিরুদ্ধে আসা বিভিন্ন সময়ে চাঁদাবাজিসহ অন্যান্য অভিযোগগুলোর ব্যাপারে গঠিত তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি তদন্ত কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও জানান, আব্দুস শুকুর এবং সৈয়দ আবু জাফর সালাউদ্দিন শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সদস্য নয়।

প্রসঙ্গত, স্থানীয় সাংবাদিকদের মূল্যায়ন না করে তাদের প্রতি ঘৃণা বিস্তারের কারণে শ্রীমঙ্গলে আরও দুইটি প্রেসক্লাবের (শ্রীমঙ্গল অনলাইন প্রেসক্লাব ও শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাব) আবির্ভাব ঘটেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ছাড়াও সাংবাদিকতার অঙ্গনে তার পছন্দনীয় গৃহপালিতদের ব্যবহার করে প্রকৃত সাংবাদিকদের বামে রেখে উপজেলার বিভিন্ন সেক্টরে এক নায়কতন্ত্রের মাধ্যমে অপসাংবাদিকতার সূচনা করার ও অভিযোগ রয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২১ জুন এম ইদ্রিস আলীর বিরুদ্ধে ব্যাপক চাঁদাবাজি, গরীব মানুষের অসহায়ত্বকে পুঁজি করে সুদ ব্যবসায় মাধ্যমে কালোটাকা অর্জন, তাছাড়া প্রশাসনকে চাপ প্রয়োগ করে মামলাবাজি, প্রেসক্লাবে গোপন সভা ও সরকার বিরোধি কর্মকান্ডে ব্যবহার, সাম্প্রদায়িক উস্কানির ইন্ধন, অপপ্রচার, প্রধানমন্ত্রীর গাড়ি বহরে হামলাকারী বিএনপি নেতার প্রদেয় পিপিই বিতরণ ইত্যাদি রাষ্ট্র ও সমাজবিরোধি কর্মকান্ডের অভিযোগ এনে শ্রীমঙ্গলের সরকারদলীয় নেতাকর্মীরা ‘আওয়ামী পরিবারে’র ব্যানারে শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সামনে ২ ঘন্টা ব্যাপী অবস্থান কর্মসূচী পালন করে এবং সাংবাদিক হিসেবে ইদ্রিছ আলীকে শ্রীমঙ্গলে অবাঞ্চিত ঘোষণা করে ৷ পাশাপাশি, আন্দোলনকারীরা দৈনিক যুগান্তরের প্রতিনিধি সাবেক ছাত্রদল নেতা সৈয়দ আবু জাফর সালাউদ্দিন ও দৈনিক করোতোয়ার প্রতিনিধি এলিট ফোর্সের সুপারভাইজার (সিকিউরিটি) আব্দুস শুক্কুরকেও তার অপকর্মের সহযোগী হিসেবে আখ্যায়িত করে লিখিত অভিযোগ ও বক্তব্য প্রদান করেন। তারই আলোকে এম ইদ্রিছ আলীকে গত ২১ জুন সাময়িক অব্যাহতি দেয় প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটি।গতকাল ০৮ জুলাই তাকে স্থায়ীভাবে সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে বহিষ্কার করা হল।

“সাংবাদিকতার আড়ালে শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের মত একটি পবিত্র স্থানকে রাষ্ট্র ও সমাজ বিরোধী কার্যক্রমে ব্যবহার করে আসছে দাবী করে দৈনিক মানবজমিন শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি এম ইদ্রিছ আলীর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও অবস্থান কর্মসূচীতে তাকে শ্রীমঙ্গলে অবাঞ্ছিত ঘোষনা করা হয়” 

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক ও শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক দৈনিক মানবজমিন এর শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি এম ইদ্রিছ আলীর রাষ্ট্র ও সমাজ বিরোধী কার্যক্রম এবং প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগ সরকারের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচারের প্রতিবাদে প্রতিবাদ সভা ও অবস্থান কর্মসূচি করেছে শ্রীমঙ্গল আওয়ামী পরিবার।এসময় এম ইদ্রিস আলীকে প্রেসক্লাব থেকে স্থায়ীভাবে বহিস্কারের দাবী করা হয়।
আজ রোববার (২১ জুন) দুপুরে শহরের কলেজ রোডস্থ প্রেসক্লাবের সামনে এ প্রতিবাদ সভা ও অবস্থান কর্মসূচী করা হয়। এসময় ইদ্রিছ আলীর বিরুদ্ধে ডজনের ও অধিক অভিযোগ তুলে বক্তারা পরে একই প্রেসক্লাবের সভাপতি বরাবর লিখিত অভিযোগ তুলে দেয় তারা।
সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, শ্রীমঙ্গল উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি জিল্লুল আনাম চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এনাম হোসেন চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক বেলায়েত হোসেন, সালিক আহমেদ, পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তহিরুল ইসলাম মিলন, উপজেলা যুব লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু তালেব বাদশা, পৌর যুব লীগের সভাপতি আকবর হোসেন শাহীন, সাধারণ সম্পাদক সালেহ আহমেদ চৌধুরী, সহ সভাপতি কামরুল হাসান দুলন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন রাহিদ, সভাপতি মসুদুর রহমান মসুদ,সাধারণ সম্পাদক রাজু দেব রিটন, পৌর ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি খসরুল আলম সাধারণ সম্পাদক আবেদ হোসেন,কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি সাইদুর রহমান সুজাত, সাধারণ সম্পাদক উজ্জ্বল কান্তি দাস প্রমুখ।
প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তরা বলেন, মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক ও শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এম ইদ্রিছ আলী শ্রীমঙ্গলে রাষ্ট্র বিরোধীদের একত্রিত করে রাষ্ট্র বিরোধী কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সাংবাদিকতাকে ব্যবহার করছেন। তিনি কৌশলে শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক হয়ে একক আদিপত্য বিস্তারের লক্ষে প্রেসক্লাবকে ব্যবহার করে দেশ বিরোধী অপকর্মে লিপ্ত রয়েছেন। এম ইদ্রিছ আলী জামাত শিবিরের সাথে একাত্মতা করে বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে গাড়িতে পেট্টোল বোমা নিক্ষেপসহ বিভিন্ন দাঙ্গা হাঙ্গামায় জড়িত থাকায় ইতিপূর্বে একাধিক মামালায় আসামী অর্ন্তভুক্ত রয়েছেন।

প্রেসক্লাব থেকে স্থায়ী বহিস্কারের দাবী জানিয়ে লিখিত অভিযোগ সভাপতি বিশ্বজ্যোতি চৌধুরীর হাতে তুলে দেন তারা।

বক্তারা আরও বলেন, “শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবকে ব্যবহার করে সাধারণ মানুষকে হুমকি দামকি দিয়ে অবৈধ বালু উত্তোলন, পতিতা ব্যবসা, বন বিভাগ, মদের ডিপো ও অবৈধ ইজিবাইক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চাঁদাবাজির মতো অপকর্ম চালিয়ে আসছেন। এমনকি প্রকাশ্যে সমবায় সমিতির নামে সুদের ব্যবসা করে সাধারণ মানুষের সহায় সম্বল হাতিয়ে নিচ্ছেন তিনি। পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরকার বিরোধী উস্কানিমূলক বক্তব্য প্রকাশ করে তার অনুসারী বিভিন্ন সাংবাদিককে ই-মেইলে সরকার বিরোধী সাজানো ও বানোয়াট তথ্য এবং বিএনপির কার্যক্রম প্রকাশের জন্য প্রেরণ করে প্রচার করাতে বাধ্য করছেন।একই সাথে ধর্মীয় অনুভুতির উপর আঘাত আনার বিষয়ে প্রায়ই উস্কানি মুলক সংবাদ প্রকাশ করে শ্রীমঙ্গলে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগাচ্ছেন।”

বক্তারা আরও দাবী করেন, তিনি প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক হয়ে প্রশাসনকে কাজে লাগিয়ে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সাংবাদিকদের কোনঠাসা ও বহিষ্কার করে প্রেসক্লাবকে দখলে নেয়।ইদ্রিস আলী শহরের এমন কোন খাত নেই যেখান থেকে চাঁদাবাজি করছে না। আর এসব কাজে তিনি শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবকে ব্যবহার করছেন। তার সাথে আছেন দৈনিক যুগান্তর শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি,দৈনিক করতোয়ার শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি ও এলিট সিকিউরিটি সুপারভাইজার শুক্কর আলী।

বক্তাদের অনেকেই দাবী করেন, “সিকিউরিটি গার্ড শুক্কর আলী নামে এক লোক সাংবাদিকতার কার্ড ব্যবহার করে তার এলাকা শ্রীমঙ্গলের দিলবরনগরে বিভিন্ন মানুষকে বিভিন্নভাবে হয়রানি করে আসছে। তার গ্রামের কারোও সাথে পারিবারিক বা সামাজিক দন্ধ সংঘাতের মতো কিছু হলে সে তাদের উভয় পক্ষের মধ্যে বিভিন্ন ধরণের উস্কানি দিয়ে অশান্তি সৃষ্টি করে প্রশাসনকে বিভ্রান্তমূলক তথ্য দিয়ে ব্যবহার করে সাধারণ লোকদেরকে জিম্মি করে রেখেছে। এমনকি প্রশাসনের সাথে সখ্যতা তৈরি করে প্রতিদিনই থানাতে আড্ডা দিতে দেখা যায়,অথচ আওয়ামী পন্থি সাংবাদিকরা এখানে তুচ্ছ।”

প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে এম ইদ্রিস আলীকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করেন এবং সাংবাদিকতার মতো মহান পেশা ও ঐতিহ্যবাহী শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাব থেকে তাকে স্থায়ী বহিস্কারের জন্য দাবী জানিয়ে লিখিত অভিযোগ সংগঠনের সভাপতি বিশ্বজ্যোতি চৌধুরী হাতে তুলে দেন প্রতিবাদকারীরা।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এম ইদ্রিস আলী বলেন,”আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে এগুলো অপপ্রচার ও অসত্য। প্রেসক্লাবে আমরা সবাই দলমত নির্বিশেষে মানুষের কাজ করি। এখানে সরকার বিরোধী কোন কার্যক্রম হয় না। আমি সরকার বা রাষ্ট্রবিরোধী কোন কাজের সাথে সম্পৃক্ত নই।”

অপরদিকে একই বিষয়ে শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সভাপতি বিশ্বজ্যোতি চৌধুরী বলেন, “শ্রীমঙ্গলের সাংবাদিকদের জন্য আজ কালোদিন।ব্যক্তিগতভাবে আমি চাঁদাবাজ পছন্দ করিনা।সাংবাদিকতার নাম ব্যবহার করে চাঁদাবাজদের কখনোই এই প্রেসক্লাব প্রশ্রয় দেবেনা। শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের একটি অতীত ঐতিহ্য আছে।এখানে দেশ বরেণ্য সাংবাদিকরা সাংবাদিকতা করে গেছেন।সেই অতীত ঐতিহ্য একজন ব্যক্তির জন্য ম্লান হয়ে গেলো।আমাদের কাছে লিখিত অভিযোগ এসেছে।আমরা প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটি বসে সীদ্ধান্ত নিবো।”

 

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc