Tuesday 20th of October 2020 11:47:51 AM

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৫জুলাই,আশরাফ আলী, মৌলভীবাজার: আড়াই মাস পর মৌলভীবাজারের নাসিরপুর ও বড়হাট এলাকার দুই জঙ্গী আস্তানার তদন্তভার পুলিশের বিশেষ শাখা সিআইডির কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

১৫ জুলাই, শনিবার দূপুর ১২টা থেকে এই দুটি আস্তানা পরিদর্শন করেছেন সিআইডি সিলেট বিভাগের বিশেষ পুলিশ সুপার মোঃ মোস্তফা কামাল, মৌলভীবাজারের তদন্তকারী কর্মকর্তা আব্দুছ ছালেকসহ একটি দল।

গত ১ এপ্রিল বড়হাটের জঙ্গী আস্তানা ও ৩০ মার্চ সদর উপজেলার নাসিরপুরে জঙ্গী আস্তানায় অভিযান শেষ হওয়ার পর থেকে বিভিন্ন সময়ে দুটি আস্তানা থেকে পুলিশ, কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট ও সিআইডি আলামত সংগ্রহ করে। এরপর থেকে বাড়ি দুটিতে পুলিশ প্রহরা রাখা হয়।

১৫ জুলাই সিআইডি দায়িত্ব পাওয়ার পর দূপুর ১২টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত দুটি বাড়ি পরিদর্শন, এলাকাবাসীর সাথে মত বিনিময় ইত্যাদি কাজ সমাপ্ত করেছে।

এবিষয়ে সিআইডি সিলেট বিভাগের বিশেষ পুলিশ সুপার মোঃ মোস্তফা কামাল জানান, আমরা ঘটনার পর থেকে আলামত সংগ্রহ করেছি। আজ পরিদর্শন ও এলাকাবাসীর সাথে মত বিনিময় করলাম। এখন আর কোন আলামত পাওয়া যায় কিনা সেটাও দেখা হচ্ছে। এছাড়া সাধারণ মানুষের ভয়ে থাকার কোন কারণ নাই। এই মামলাও সুষ্ঠু ও সুন্দর ভাবে তদন্ত করবো।

উল্লেখ্য, গত গত ১ এপ্রিল বড়হাটের জঙ্গী আস্তানা ও ৩০ মার্চ সদর উপজেলার নাসিরপুরে জঙ্গী আস্তানায় অভিযান শেষ হওয়ার পর নাসিরপুরে ৭জন ও বড়হাটে ৩জন জঙ্গী মারা যায়।

 আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,১৭মে,ডেস্ক নিউজঃ  ঝিনাইদহের চুয়াডাঙ্গা গ্রামের জঙ্গি আস্তানায় শুরু করা দ্বিতীয় দিনের অভিযান শেষ হয়েছে। পাশাপাশি ওই এলাকায় জারি করা ১৪৪ ধারাও উঠিয়ে নেয়া হয়েছে।

বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে অভিযানের সমাপ্তি ঘোষণা করেন র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (‌র‌্যাব)-৬-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল খন্দকার রফিকুল ইসলাম।
তিনি জানান, এদিন বাড়ি থেকে উদ্ধার করা সুইসাইড ভেস্ট নিষ্ক্রিয় করা হয়েছে। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানাতে স্থানীয় র‌্যাব ক্যাম্পে ব্রিফিং করা হবে।

সকাল পৌনে ৯টার দিকে মঙ্গলবারের স্থগিত অভিযান শুরু করে র‌্যাবের বোমা নিষ্ক্রিয়কারী ও কমান্ডো দল।
এর আগে জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পাওয়ার পর মঙ্গলবার ভোর থেকে বাড়ি দুটিতে অভিযান চালায় র‌্যাব।

সন্ধ্যা পর্যন্ত পরিচালিত অভিযানে সেখান থেকে দুটি সুইসাইড ভেস্ট, ৫টি বোমা, ১৫টি মাইন তৈরির সরঞ্জাম, ৩০টি বোমা তৈরির ডিভাইস, ৪টি কনটেইনার, ১৮টি বোমা তৈরির জেল এবং ১৮৬টি সার্কিট উদ্ধার করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

বুধবার সকালে বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট বিস্ফোরণ ঘটিয়ে এসব ধ্বংস করে।

এদিকে, ঘটনাস্থলে র‍্যাবের আইন ও মিডিয়া উইং এর পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান, পরিচালক অপারেশন লেফটেন্যান্ট কর্নেল মাহমুদ, র‌্যাব-৬ এর কমান্ডিং অফিসার এডিশনাল ডিআইজি খন্দকার রফিকুল ইসলাম, ঝিনাইদহ র‌্যাবের অধিনায়ক মেজর মনির আহমেদ উপস্থিত আছেন।

ঝিনাইদহ র‌্যাব ক্যাম্পের অধিনায়ক মেজর মনির আহমেদ জানান, সোমবার রাতে সেলিম ও প্রান্ত নামে নব্য জেএমবি’র দুই সদস্যকে আটক করে র‌্যাব। পরে তাদের স্বীকারোক্তি মোতাবেক এ অভিযান চালানো হয়। অভিযানের শুরুতে র‌্যাব দু’টি জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পেলেও পরে আরো তিনটি আস্তানার সন্ধান পায় তারা।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩১মার্চ,হৃদয় দাশ শুভ,নিজস্ব প্রতিবেদক,বড়হাট মৌলভীবাজার থেকে: মৌলভীবাজারের বড়হাট এলাকায় যে বাড়িতে জঙ্গি আস্তানা রয়েছে তার জানালাগুলো বুলেটপ্রুফ বলে ধারণা করছেন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের সোয়াট টিমের সদস্যরা। বাইরে থেকে সোয়াটের ছোড়া গুলিতে জানালার কাঁচ ভাঙছে না। অভিযানের সংশ্লিষ্ট সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে। বাড়ির ভেতরের অবস্থা বেশ জটিল বলে জানিয়েছেন সিটিটিসি’র প্রধান মনিরুল ইসলাম।
শুক্রবার (৩১ মার্চ) সকাল ৯টা ৫২ মিনিটে বড়হাটের এই বাড়িতে “অপারেশন ম্যাক্সিমাস” শুরু হয়েছে। অভিযান চলাকালে জঙ্গি আস্তানার বাইরে এক সংক্ষিপ্ত প্রেস ব্রিফিংয়ে মনিরুল জানান, ‘ভেতরে খুব জটিল পরিস্থিতি। বাড়ির ভেতর একাধিক কামরায় চার থেকে পাঁচ জঙ্গি রয়েছে।

তিনি আরও বলেন,তার মধ্যে একজন বোম্ব এক্সপার্ট রয়েছে বলেও আমাদের ধারণা। ঘেরাও এর সময় থেকেই একাধিক বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে তারা। গুলিও করেছে।’ বড়হাটের এই বাড়ির জানালার গ্লাসগুলো শক্তিশালী কাঁচের তৈরি বলেও জানান মনিরুল।
অভিযানের নাম কেন “অপারেশন ম্যাক্সিমাস” এই প্রশ্নের জবাবে মনিরুল বলেন, ‘সার্বিক পরিস্থিতির কথা চিন্তা করে জটিলতার ব্যাপকতা বোঝাতেই  এই নামকরন।

অপরদিকে কুমিল্লার কোটবাড়ীতেও একটি জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ। সেই অভিযানের নাম “অপারেশন স্ট্রাইক আউট”।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯মার্চ,হৃদয় দাশ শুভ,নিজস্ব প্রতিবেদক,মৌলভীবাজার থেকে: মৌলভীবাজারের পৌরসভার বড়হাট ও নাসিরপুর গ্রামে যে দুটি বাড়ি জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে পুলিশ ঘিরে রেখেছে সেই দুই বাড়ির মালিক সাইফুর রহমানের শ্যালক মিজানুর রহমানকে (৪০) গ্রেফতার করা হয়েছে। আজ বুধবার দুটি বাড়ি ঘেরাও করার সময়ই মিজানুরকে গ্রেফতার করা হয়। লন্ডনপ্রবাসী সাইফুর রহমানের বন্ধু তোফায়েল ইসলাম  এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তবে পুলিশের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে কিছু জানানো হয়নি।

আরও দেখুনঃ আত্মসমর্পণ করতে বললে জঙ্গিরা গুলি ছুঁড়ে:মেয়র ফজলু

তোফায়েল ইসলাম জানান, মিজানুর রহমান বড়হাটে সাইফুরের বাড়ির পাশে আরেকটি বাসায় পরিবার নিয়ে থাকেন। তিনিও সাইফুরের দুটি বাড়ি দেখাশোনা করেন। বুধবার ভোররাতে পুলিশ বড়হাট ও নাসিরপুরে দুটি বাড়ি ঘেরাও করার সময়ই মিজানুরকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়।
তোফায়েল আরও বলেন, “বড়হাটের ওই বাড়িতে দুইটা ফ্লোরে তিনটা ফ্ল্যাট আছে। এই বাড়িতে যাদের জঙ্গি বলে সন্দেহ করা হচ্ছে তারা শিয়া বা সালাফি সম্প্রদায়ের হতে পারে বলেও আমাদের ধারণা। কারণ তারা দিনে তিন রাকাতের মতো নামাজ পড়ে।”
বড়হাটের এই বাড়িতে তিন-চার জনের মতো জঙ্গি রয়েছে বলে ধারণা করছে পুলিশ। মৌলভীবাজারের এএসপি রোকনুজ্জামান চৌধুরী এই তথ্য জানান।
উল্লেখ্য জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে মৌলভীবাজার পৌরসভার বড়হাট এলাকায় একটি বাড়ি এবং খলিলপুর ইউনিয়নের সরকার বাজার এলাকার নাসিরপুর গ্রামের একটি বাড়ি ঘিরে রেখেছে পুলিশ ও কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ইউনিটের (সিটিটিসি) সদস্যরা। দুটি আস্তানাতেই বিপুল পরিমাণ অস্ত্র-বিস্ফোরক আছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। দুটি বাড়ির মালিকই লন্ডনপ্রবাসী সাইফুর রহমান।
মৌলভীবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন জানান, জঙ্গিদের প্রতিহত করতে এরই মধ্যে সব প্রয়োজনীয় কৌশল নেওয়া হয়েছে। ওই এলাকায় সাংবাদিকসহ সাধারণ মানুষকে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না।
সিটিটিসির এডিসি মো. সাইফুল ইসলাম  জানান, নাসিরপুর গ্রামের জঙ্গি আস্তানা থেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের লক্ষ্য করে তিনটি গ্রেনেড ছোড়া হয়েছে। এই জঙ্গিরা নব্য জেএমবি’র সঙ্গে যুক্ত বলেও ধারণা করা হচ্ছে।
নাসিরপুর গ্রামের গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। জঙ্গি আস্তানার আশেপাশের এলাকা থেকে লোকজনকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরে যেতে পুলিশ মাইকিং করছে। এরই মধ্যেই ওই বাড়ির এক কিলোমিটার এলাকার মধ্যে থাকা লোকজনকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।
ঘটনাস্থল পরির্দশন করে সিলেটের ডিআইজি কামরুল আহসান বলেন,”অভিযান শেষ না হওয়া পর্যন্ত কিছু বলা যাচ্ছে না।”

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯মার্চ,হৃদয় দাশ শুভ,নিজস্ব প্রতিবেদক,মৌলভীবাজার থেকে:  মৌলভীবাজারে সন্ধান পাওয়া দু’টি জঙ্গি আস্তানার বাড়ি দু’টির মালিক সাইফুল ইসলাম লন্ডনে ট্যাক্সি চালান বলে জানা যায়। তার বয়স ৩৩ থেকে ৩৫ বছর।

বাবা থেকে পাওয়া সম্পত্তির বর্তমান মালিক তিনিই। টিনশেডের বাড়িটি প্রায় তিন একর জায়গার উপর নির্মিত। বড়হাটার বাড়িটি ডুপ্লেক্স।

আরও দেখুনঃ মৌলভীবাজারে কিছুক্ষণের মধ্যে অভিযান শুরু হতে পারে

তিনি লন্ডনপ্রবাসী হওয়ায় বাড়ি দুটি দেখাশোনার দায়িত্ব দেন দূর সম্পর্কের আত্মীয় জুয়েল। তিনি বাড়িভাড়া থেকে শুরু করে সব তত্ত্বাবধান করেন। জুয়েল থাকেনও ওই বাগান বাড়িতে।

এ বিষয়ে লন্ডন থেকে ফোনে সাইফুল বলেন, জুয়েল আমার বাড়ি দেখাশোনা করেন। বাড়ি ভাড়া দেওয়ার আগে আমাকে বলেছিলো ভাড়াটিয়া একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করেন। লন্ডনে অনেক ব্যস্ত থাকায় বাড়ির দিকের বেশি খোঁজ-খবর নিতে পারি না।

বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তান সাইফুল সবশেষে বছর খানেক আগে দেশে আসেন বলে জানা যায়।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯মার্চ,হৃদয় দাশ শুভ ,মৌলভীবাজার থেকে : মৌলভীবাজার পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড, পার্শ্ববর্তী কুসুমবাগ এলাকা এবং খলিলপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় থেকে দুই কিলোমিটার এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে স্থানীয় জেলা প্রশাসন।

আজ বুধবার দুপুরের পর  ১৪৪ ধারা জারি করা হয়। মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক তোফায়েল ইসলাম এ তথ্য জানিয়েছেন।

মৌলভীবাজার পৌরসভায় ৬নং ওয়ার্ডের বড়হাটের একটি বাড়িতে জঙ্গিরা অবস্থান করছে, এমন সন্দেহে বাড়িটি ঘিরে রেখেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

এছাড়া খলিলপুর ইউপি কার্যালয়েল অনতিদূরে নাসিরপুরের একটি বাড়িতে আরেকটি জঙ্গি আস্তানা রয়েছে সন্দেহে ঘিরে রাখা হয়েছে।

এদিকে, বেলা আড়াইটার দিকে ফায়ার সার্ভিসের একটি গাড়ি ও একটি অ্যাম্বুলেন্স নাসিরপুরের জঙ্গি আস্তানার পাশে গিয়ে অবস্থান করতে দেখা গেছে।

অপরদিকে, জঙ্গি আস্তানার আশপাশের মানুষদের নিরাপদে সরে যেতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করা হচ্ছে। ঢাকা থেকে সোয়াট সদস্যরা এলে জঙ্গি আস্তানা দুটিতে অভিযান চালানো হতে পারে বলে জানিয়েছে পুলিশের একটি সুত্র।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯মার্চ,হৃদয দাশ শুভ: মৌলভীবাজারের দু’টি জঙ্গি আস্তানায় অভিযানে যোগ দিতে ঢাকা থেকে রওনা দিয়েছে সর্বাধুনিক প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত স্পেশাল উইপন্স অ্যান্ড ট্যাক্টিকস টিম সোয়াট ।

বুধবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে সোয়াটের একটি টিম মাইক্রোবাসযোগে ঢাকা থেকে রওনা দেয় বলে জানিয়েছে একটি সূত্র।

মঙ্গলবার দিবাগত রাত থেকে মৌলভীবাজার শহরের বড়হাট ও সদর উপজেলার খলিলপুর ইউনিয়নের সরকার বাজারের কাছে ফতেহপুর গ্রামের ওই দু’টি জঙ্গি আস্তানা ঘেরাও করে রেখেছে পুলিশ। বড়হাটের আস্তানাটি একটি ডুপ্লেক্স বাড়িতে, আর ফতেহপুরের আস্তানাটি একটি একতলা বাড়িতে।
স্থানীয়রা জানান, সে দু’টি বাড়িই এক লন্ডনপ্রবাসীর। তার নাম সাইফুল ইসলাম। তিনি সপরিবারে লন্ডনে থাকেন।

আজ বুধবার ভোররাতের দিকে অভিযান শুরু করলে জঙ্গিরা গুলি ছুড়ে। সকালে একের পর এক গ্রেনেড ছুঁড়েও মারে তারা।

সকাল ১০টা থেকে সাড়ে ১০টার মধ্যেও দু’টি জঙ্গি আস্তানায় বিস্ফোরণ ও গুলির শব্দ শোনা যায়। সাড়ে ১০টার দিকে বড়হাটের ‍আস্তানার ভেতরে বিকট শব্দে তিনটি গ্রেনেড বিস্ফোরণ ঘটায় জঙ্গিরা।
রাশেদুল ইসলাম বলেন, রাত থেকে কৌশলে আমরা এলাকাবাসীকে সরিয়ে নিতে পেরেছি। এখন জঙ্গিদের কব্জা করার সব চেষ্টা চলছে।

বড়হাটের স্থানিয় এক গৃহিণী জানান “পুলিশ  মসজিদের মাইকে  ঘোষণা  করে আমাদের সতর্ক থাকতে বলেছেন কিন্তু আমরা তো বাচ্চাদের নিয়ে আতংকে আছি। গুলির শব্দে মধ্যে মধ্যে ঘর বাড়ি কেঁপে উঠছে।”

ইতিমধ্যে মৌলভীবাজার জঙ্গি আস্তানার আধ কিঃ মিঃ কর্ডন করে রাখেছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc