Saturday 31st of October 2020 10:02:00 AM

আবহাওয়ার ডেস্ক:  সম্ভাব্য তারিখ : ২০ টু ৩০ শে সেপ্টেম্বর ২০২০ পর্যন্ত, পর্যায়ক্রমে বাংলাদেশ ও এর পার্শবর্তী দেশে।

ঢল ৩ একটি পুর্ণাঙ্গ বৃষ্টি বলয়, সুতরাং এই বৃষ্টি বলয়ে সারাদেশে ভারিবর্ষণ হতেপারে। সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত সিলেট, চট্টগ্রাম ও বরিশাল বিভাগ, সবচেয়ে কম আক্রান্ত খুলনা বিভাগ।

একটা মৌসুমি নিন্মচাপ ও প্রবল সক্রিয় মৌসুমি বায়ুর জন্য এই বৃষ্টি বলয়টি আসছে।

বৃষ্টি বলয় ঢল৩ প্রথমদিকে দেশের দক্ষিন দক্ষিন পুর্ব এলাকায় সক্রিয় হবে, তারপর দেশের মধ্য অঞ্চলে এবং ২২ শে সেপ্টেম্বর রাত থেকে উত্তর বঙ্গে বেশি সক্রিয় হতেপারে।

ঢল ৩ তে দেশের উত্তর অংশে ভয়াবহ বজ্রপাত হতেপারে, এবং দক্ষিন অংশে বজ্রপাত কম থাকতেপারে।

বৃষ্টি বলয় ঢল৩ চলাকালিন সময়ে সাগর উত্তাল থাকতেপারে, তাই ঢল৩ চলাকালিন সময়ে মাছ ধরা নৌকা ও ট্রলার যেনো সাগরে প্রবেশ না করে।

এই বৃষ্টি বলয়ে টানা বৃষ্টির সম্ভাবনা বেশি ও ঝাকে ঝাকে বৃষ্টির সম্ভাবনা বেশি।

বৃষ্টিবাহি মেঘের অভিমুখ প্রথমে দক্ষিন পুর্ব থেকে ধিরে ধরে পশ্চিম থেকে পুর্ব দিকে গিয়ে শেষ হতেপারে।

আপনার এলাকা ঢল ৩ তে আক্রান্ত হলে এই ভ্যাপসা গরম হ্রাস পাবে।

বৃষ্টি বলয় ঢল ৩ প্রথমে চট্টগ্রাম ও বরিশাল বিভাগে, তারপর খুলনা ও ঢাকা বিভাগে, তারপর রাজশাহী, ময়মনসিংহ বিভাগে, এরপর সিলেট ও রংপুর বিভাগ আক্রান্ত হতেপারে।

নোট : ঢল ৩ এক এক সময় দেশের এক এক অংশে বেশি সক্রিয় থাকতেপারে, সুতরাং ঢল৩ চলাকালিন সময়ে সবসময় যে আপনার এলাকায় বৃষ্টি বা রোদ থাকবে এমনটা নয়।

নোট : প্রাকৃতিক কারনে ঢল৩ তার সময়সিমা পরিবর্তন, ও এর শক্তি হ্রাস বৃদ্ধি বা বিলুপ্ত হওয়া অস্বাভাবিক কিছু নয়।

নোট : ঢল৩ এর প্রভাবে দেশের অনেক নিচে এলাকা প্লাবিত হওয়া সহ অনেক মাছের ঘের তলিয়ে যেতেপারে।

নোট : ২১ টু ২৩ শে সেপ্টেম্বর বজ্রপাত তুলনামূলক কম থাকবে।

নোট : ঢল ৩ এ আপনার এলাকায় দরকারি রোদ পাবেন্না কিন্তু।

একটানা বৃষ্টি, এই বৃষ্টি এই রোদ, টিপটিপ বৃষ্টি, ভারিবর্ষণ সবই পাবেন ঢল৩ চলাকালিন সময়ে।

সুতরাং বৃষ্টি প্রেমীরা উপভোগ করতে থাকুন মহা বৃষ্টি বলয় ঢল৩।

চিত্র অংকনে : মশিয়ার রহমান জনী, আবহাওয়া গবেষক বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা Jessore bangladesh

সবচেয়ে নির্ভরশীল ও নির্ভরযোগ্য আবহাওয়ার পুর্বাভাস পেতে আপনারা সরকারি আবহাওয়া পেজ ও ওয়েবসাইটে নজর রাখুন।

আসুন একনজরে দেখে নেই বৃষ্টি বলয় ঢল৩ চলাকালিন সময়ে আপনার জেলায় সম্ভাব্য কত মিলিমিটার বৃষ্টি হতেপারে।

জেলার নাম : বৃষ্টির পরিমান মি.মি. আকারে।

ঢাকা বিভাগ :
ঢাকা : ৩০০
গোপালগঞ্জ : ২৭০
মাদারীপুর : ২৬০
শরিয়তপুর : ২৮০
ফরিদপুর : ২৫০
রাজবাড়ি : ২২০
মানিকগঞ্জ : ২৪০
নারায়নগঞ্জ : ২৫০
নরসিংদী : ৩০০
গাজীপুর : ২৯০
টাঙ্গাইল : ৩১০
জামালপুর : ৪০০
শেরপুর : ৬০০
ময়মনসিংহ : ৪০০ থেকে ৬৫০
নেত্রকোনা : ৬৫০
কিশোরগঞ্জ : ৪৩০
মুন্সীগঞ্জ : ২৯০

চট্টগ্রাম বিভাগ :
কক্সবাজার : ৭০০, আক্রান্ত হয়েগেছে
বান্দরবান : ৩৭৫
রাঙ্গামাটি : ৩৯০
খাগড়াছড়ি : ৩৫০
চট্টগ্রাম : ৫৫০
ফেনী : ৫০০
Lakshmipur : ৪৯০
চাঁদপুর : ৪৫০
নোয়াখালী : ৪৮০
কুমিল্লা ৪০০
ব্রাম্মনবাড়ীয়া : ৩৯০
সন্দ্বীপ : ৭০০

রাজশাহী বিভাগ :
রাজশাহী : ৩২০
পাবনা : ৩১০
সিরাজগঞ্জ : ৩৩০
চাপাইনবাবগঞ্জ : ৩০০
নওগাঁ : ৩১০
বগুড়া : ৩২০
জয়পুরহাট : ৩৪০
গাইবান্ধা : ৩৭০
রংপুর : ৩৫০
দিনাজপুর : ৩৭০
ঠাকুরগাঁও : ৩৮০
Nilphamari :৪২০
পঞ্চগড় : ৫৫০
Lalmonirhat : ৬৫০
কুড়িগ্রাম : ৬৫০
নাটোর : ৩৪০

সিলেট বিভাগ :

সিলেট : ৬৭০
সুনামগঞ্জ : ৬৭০
হবিগঞ্জ : ৪৫০
মৌলভীবাজার : ৩৯০

খুলনা বিভাগ :
খুলনা সদর : ২৫০
খুলনা উপকূল : ৪০০
সাতক্ষিরা সদর : ৩০০
সাতক্ষীরা উপকূল : ৪১০
বাগেরহাট সদর : ২৫০
বাগেরহাট উপকূল : ৩৯০
যশোর : ২৫০
নড়াইল : ৩৪০
মাগুরা : ২৪৫
ঝিনাইদহ : ২৬০
চুয়াডাঙ্গা : ২৬০
মেহেরপুর : ২৭০
কুষ্টিয়া : ২৭০

বরিশাল বিভাগ :
বরিশাল : ৩২০
পিরোজপুর : ৩৪০
ঝালকাঠি : ৩৭০
বরগুনা : ৪০০
পটুয়াখালী : ৪২০
ভোলা : ৪৫০

সাবেক বিভাগ ধরা হয়েছে।

কলকাতা : ২৬০
দীঘা : ৩৪০
উড়িস্যা : ২৭৫
রানিগঞ্জ : ৪৫০
বারাসত : ৩০০
২৪ পরগনা : ৩২০
মেঘালয় : ৯০০
ত্রিপুরা : ৩৫০
কৃষ্ণনগর : ৩৫০

ধন্যবাদ : পারভেজ আহমেদ পলাশ, প্রধান আবহাওয়া গবেষক, বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা Jessore bangladesh.

আন্তর্জাতিক ডেস্ক-কয়দিন আগেই ঘূর্ণিঝড় বুলবুল সবকিছু তছনছ করে দিয়েছে বাংলাদেশ, ওড়িশা ও পশ্চিমবঙ্গের উপকূল। এখনও সেই আতঙ্কে ভুগছে সাধারণ মানুষ। সেই আতঙ্ক কাটতে না কাটতেই ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘নাকরি’। দক্ষিণ চীন সাগরে তৈরি ‘নাকরি’ বুলবুলের চেয়েও বেশি শক্তিশালী বলে জানা গেছে। এর উৎসস্থল ছিল দক্ষিণ চীন সাগর। মাতমো থেকেই ছিটকে গিয়ে তৈরি হয়েছিল বুলবুল। সেই বুলবুলের দাপটে দুই বাংলায় অনেক বেশি ক্ষতি হয়ে গেছে। সেই ঘা না শুকাতেই নাকরির দাপটে কি হবে তাই ভাবাচ্ছে জনগণকে।

জানা গেছে, আপাতত ধীরে ধীরে ভিয়েতনামের ভূমি লক্ষ্য করে এগোচ্ছে এই ঝড়। সেখানে বৃষ্টিপাত ঘটিয়ে মিয়ানমারের দক্ষিণ অংশে এসে পৌঁছাবে। তারপরেই প্রায় সমস্ত শক্তি ক্ষয় করে বঙ্গোপসাগরের ওপরে আসবে। এরপর এই ঘূর্ণিঝড় ঠিক কোনদিকে যাবে সেটা বোঝা যাচ্ছে না এখনই। বঙ্গোপসাগর থেকে ফের একবার শক্তি সঞ্চয় করতে পারে এই ঘূর্নাবর্ত। তারপরে এই ঘূর্ণাবর্ত ঠিক কোনদিকে যাবে, তার নিশ্চয়তা নেই।

দুই বাংলাতেও আঁছড়ে পড়তে পারে। আবার তা না হয়ে ‘নাকরি’র মুখোমুখি হতে পারে অন্ধ্রপ্রদেশ ও ওড়িশা।

ডেস্ক নিউজঃ জামাল খাশোগি হত্যার বিষয়ে ক্রমেই বেরিয়ে আসছে চাঞ্চল্যকর নানা তথ্য। আর এসব তথ্য থেকে বোঝা যায় খুব সম্ভবত সৌদি যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন সালমানের নির্দেশেই খাশোগিকে হত্যা করা হয়েছে।

তুরস্কের সরকারপন্থী দৈনিক ইয়েনি শাফাক লিখেছে, সরকার-বিরোধী সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগি ইস্তাম্বুলের তুর্কি কনস্যুলেটে নিহত হওয়ার আগে সৌদি যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন সালমান তাকে টেলিফোন করেন এবং তিনি তাকে রিয়াদে ফিরে আসার জন্য রাজি করার চেষ্টা করেছিলেন।

তুর্কি দৈনিকটি লিখেছে, খাশোগি যুবরাজের প্রস্তাব নাকচ করে দেন এই ভয়ে যে সৌদিতে ফিরে গেলে তাকে গ্রেফতার ও পরে হত্যা করা হতে পারে। টেলিফোন সংলাপ শেষ হওয়ার পর ঘাতক টিম খাশোগিকে হত্যা করে। ওই টিমই খাশোগিকে কনস্যুলেট ভবনে আটকে রেখেছিল এবং এরপর তার কাছে যুবরাজের ফোন আসে।

তুর্কি কর্তৃপক্ষ মনে করে খাশোগির আঙ্গুলগুলো কেটে ফেলার পর ঘাতকরা তাকে কনস্যুলেট ভবনের অন্য একটি কক্ষে নিয়ে যায় এবং সেখানে সভা-সম্মেলনে ব্যবহৃত একটি টেবিলে  উঠিয়ে খাশোগির দেহ টুকরো টুকরো করা হয়।

তুর্কি তদন্ত টিম বলছে, সিসি টিভির রেকর্ডে দেখা যায় দু’টি গাড়ি কনস্যুলেট থেকে বের হয় খাশোগি হত্যাকাণ্ডের পর। ওই দুটি গাড়ি ইস্তাম্বুলের বাইরে দু’টি ভিন্ন এলাকায় গিয়েছিল। এ দুটি গাড়িতেই হয়ত রাখা হয়েছিল খাশোগির দেহের খণ্ড-বিখণ্ডিত নানা অংশ। এ দু’টি গাড়ি ইস্তাম্বুল শহরের বাইরে ‘বেলগ্রেড জঙ্গল’ ও ‘ইয়ালোভা’ এলাকায় গিয়েছিল বলে উভয় এলাকায় খাশোগির লাশের টুকরো তন্ন তন্ন করে খোঁজার চেষ্টা করছে তুর্কি পুলিশ।

সৌদি সরকার খাশোগি হত্যার ব্যাপারে নানা ধরনের বক্তব্য রাখায় এ হত্যাকাণ্ডে সৌদি সরকারের জড়িত থাকার জোর সম্ভাবনার কথা বলছে বিভিন্ন মহল।

এদিকে তুরস্কের ক্ষমতাসীন জাস্টিস এন্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি বা একেপি’র মুখপাত্র ওমর জিলিক বলেছেন, খাসোগির হত্যাকাণ্ড ছিল সুপরিকল্পিত এবং চরম বর্বরোচিতভাবে এই প্রতিবাদী সাংবাদিককে হত্যার ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল।

রিয়াদ শনিবার বলেছে, খাশোগি হাতাহাতির এক ঘটনায় নিহত হয়েছে। কিন্তু পরে সৌদি কর্তৃপক্ষ বলেছে, খাশোগিকে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করা হয়েছে। সৌদি সরকার তার লাশ সম্পর্কে কোনো মন্তব্য করেনি এখনও। প্রথমদিকে সৌদি সরকার খাশোগি নিহত হওয়ার খবর অস্বীকার করে বলেছিল, খাশোগি ইস্তাম্বুলস্থ সৌদি কনস্যুলেটে আসলেও পরে বেরিয়ে যান অক্ষত অবস্থায়।

অথচ সৌদি সরকার গতকাল রোববার বলেছে, প্রথম পরিকল্পনা অনুযায়ী  খাশোগিকে অপহরণ করার ও পরে তাকে বুঝিয়ে সৌদি আরবে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হয়েছিল কিন্তু তিনি রাজি না হওয়ায় তাকে অক্ষত অবস্থায় ছেড়ে দেয়া হয়।  খাশোগি গত ২ অক্টোবর সৌদি কনস্যুলেটে যান। এরপর তাকে আর বের হয়ে আসতে দেখা যায়নি।

অন্য এক খবরে জানা গেছে, এদিকে সৌদি কনস্যুলেটের একটি গাড়ি ইস্তাম্বুলের সুলতানগাজি এলাকার একটি পার্কিং ডিপোতে পাওয়া গেছে। খাশোগি হত্যার তদন্তে নিয়োজিত তুর্কি পুলিশ গাড়িটি খুঁজে পেয়েছে গতকাল সোমবার। গাড়িটিতে সৌদি কনস্যুলেটের ব্যবহৃত গাড়ির অনুরূপ ডিপ্লোম্যাটিক নাম্বার প্লেট দেখা গেছে। তদন্তের জন্য পুলিশ গাড়িটিতে তল্লাশি চালাবে এবং এ জন্য সৌদি কনস্যুলেটের অনুমতি নিয়েছে।

ওদিকে সৌদি রাজপরিবারের তল্পি-বাহক অনির্বাচিত শুরা বা সংসদ বলেছে, খাশোগি হত্যার ঘটনার সঙ্গে সরকারের কোনো সম্পর্ক নেই এবং তা সরকারি নীতির আওতা-বহির্ভূত ব্যক্তিগত সংঘাতের জের।পার্সটুডে

আসছে ঘুর্নিঝড় তিতলি,দেশে ৪ নম্বার সতর্ক সংকেত ঘোষণা করা হয়েছে।একই সাথে সাগরে থাকা মাছ ধরার ট্রলার গুলো কে নিজ নিজ দায়িত্তে উপকূলের পাশে নিরাপদ  স্থানে থাকার আহ্বান জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

একই সুত্রে জানা গেছে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’ প্রবল ঘূর্ণিঝড় আজ বৃহস্পতিবার সকাল নাগাদ ভারতের উড়িষ্যা রাজ্যের গোপালপুরে আঘাত হানবে।

বাংলাদেশের ওপর সরাসরি ঘূর্ণিঝড় তিতলির কোনো প্রভাব না থাকলেও পরোক্ষ প্রভাব হিসেবে বাতাস ও গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টির পরিমাণ বাড়বে।

ভারতে আঘাত হানলেও বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার দেশের ওপর দিয়ে বাতাসের গতিবেগ বাড়বে। একইসঙ্গে গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টিপাতও বাড়বে। যা শনিবার কমার প্রবণতায় থাকবে।

আবহাওয়াবিদ মো. আবদুর রহমান জানান, ঘূর্ণিঝড়টি ব্যাপক ক্ষমতাসম্পন্ন হলেও শঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। কেননা, বাংলাদেশে এটি সরাসরি আঘাত হানবে না। পরোক্ষভাবে আঘাত হানবে।

এক্ষেত্রে বৃহস্পতিবার সকাল নাগাদ ভারতের উড়িষ্যা-অন্ধ্র প্রদেশে আঘান হানবে। এরপর শক্তিক্ষয় করে এটি পশ্চিমবঙ্গ হয়ে বাংলাদেশের ভেতরে খুলনা অঞ্চলে দুর্বল অবস্থায় আসবে শনিবার। এ সময় নিন্মচাপের কারণে আকাশ মেঘাছন্ন থাকবে।

ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’র প্রভাবে চট্টগ্রামে তৃতীয় দিনের মতো বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট এ ঘূর্ণিজড়ে সাগর উত্তাল বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

এদিকে পতেঙ্গা আবহাওয়া কার্যালয় জানায়, বুধবার সকালে ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’ চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ৯৪৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছিলে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে চট্টগ্রামসহ আশপাশের এলাকায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত অব্যাহত আছে।

বুধবার সকাল ৯টা থেকে পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় ৪৭ দশমিক ৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে আবহাওয়া দপ্তর। সাগর উত্তাল থাকায় দেশের সমুদ্রবন্দর গুলোকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

এদিকে, বৃষ্টির কারণে পাহাড় ও ভূমিধসের আশঙ্কায় পাহাড়ের পাদদেশে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় বসবাসরতদের নিরাপদ স্থানে সরে যেতে মাইকিং করছে জেলা প্রশাসন, চলছে অন্যান্য সব প্রস্তুতির কাজ। এরই মধ্যে স্থানীয় লালখান বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে জরুরি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে।

নিউজ ডেস্কঃ শরীয়তপুর-২ আসনে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের কাছে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছেন দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীম। তাকে ঘিরে ইতিবাচক প্রত্যাশা তৈরি হয়েছে এলাকায়।

এ আসনের বর্তমান এমপি বয়োবৃদ্ধ কর্নেল (অব.) শওকত আলী আগামী নির্বাচনে স্বাস্থ্যগত কারণে অংশ নিতে পারবেন না ধরে নিয়েই এনামুল হক শামীমের মতো একজন দক্ষ সংগঠককে প্রার্থী হিসেবে চাইছেন দলীয় নেতা-কর্মীরা। একইভাবে ফেনী-১ আসনে দলীয় নেতা-কর্মীদের মধ্যে আশার আলো জ্বালিয়েছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাসিম। এ আসনের বর্তমান এমপি জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ (ইনু) সাধারণ সম্পাদক শিরীন আকতার। আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা-কর্মীরা মনে করেন, জোটের প্রার্থী থাকায় দল হিসেবে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা তেমন মূল্যায়ন পাচ্ছেন না। সে কারণে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হিসেবে তারুণ্যের প্রতীক ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের অভিভাবক আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাসিমকে এমপি হিসেবে দেখতে চান তারা।

চট্টগ্রাম বিভাগে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে তার আলাদা প্রভাব ও অবস্থান রয়েছে। মাগুরা-১ আসনে গত সাড়ে নয় বছর ধরে সম্ভাবনাময় প্রার্থী হিসেবে সবার মুখে মুখে সাইফুজ্জামান শিখরের নাম। প্রধানমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব হিসেবে এলাকায় উন্নয়নে নেতৃত্ব দিয়ে নিজের সক্ষমতা ও সম্ভাবনা জানান দিয়েছেন তিনি। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তাকে মনোনয়ন দিলে এই আসনে আওয়ামী লীগের জয়লাভ সহজ হবে বলেই এলাকায় আলোচনা আছে।

ফরিদপুর-১ (আলফাডাঙ্গা, বোয়ালমারী ও মধুখালী) আসনে কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ও ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য আরিফুর রহমান দোলন আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী, সমর্থক ও ভোটারদের মধ্যে নতুন সম্ভাবনার নাম। রাজনৈতিক কর্মকা-ের পাশাপাশি নিয়মিত সামাজিক কর্মকা- করে সাধারণ মানুষের মধ্যে ইতিবাচক ভাবমূর্তি তৈরি করেছেন তিনি। পেশাজীবী দোলনই হতে পারেন ফরিদপুর-১ আসনে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী এবং ভোটারদের ইতিবাচক পরিবর্তনের হাতিয়ার। তৃণমূলে এটিই এখন জোর আলোচনা। এ আসনে তরুণ প্রার্থী হিসেবে আরও আলোচনায় রয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি লিয়াকত সিকদার।

তিনিও এলাকায় নিয়মিত গণসংযোগ করছেন। কেবল এনামুল হক শামীম, আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাসিম, সাইফুজ্জামান শিখর, আরিফুর রহমান দোলন বা লিয়াকত সিকদারই নন, এমন অর্ধশত তরুণ প্রার্থী এলাকায় জোর সম্ভাবনা জাগিয়েছেন। তরুণ প্রজন্মের ভোট টানতে তাদের অনেকেই এবার দলের মনোনয়ন পাচ্ছেন বলে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী সূত্রে জানা গেছে। ২০১০ সালে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বাবা এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর হয়ে প্রচারণায় অংশ নিয়ে ব্যাপক সাড়া ফেলেছিলেন মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

যুক্তরাজ্য থেকে আইনে স্নাতক নওফেল বাবার পথ অনুসরণ করে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় হয়েছেন। বর্তমানে তিনি দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক। বাবা মহিউদ্দিন চৌধুরী প্রয়াত হওয়ায় চট্টগ্রাম-৯ আসনে তাকে ঘিরে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের প্রত্যাশা তৈরি হয়েছে। আগামী নির্বাচনে তিনি মনোনয়ন পেলে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত বলে মনে করেন স্থানীয়রা। আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন দীর্ঘদিন ধরে সাতকানিয়া-লোহাগড়ার মানুষের সুখে-দুঃখে তাদের পাশে আছেন। এলাকার উন্নয়নেও ভূমিকা রাখছেন দলের কেন্দ্রীয় এই নেতা।

আগামী নির্বাচনে চট্টগ্রাম-১৫ আসনে তাকে নৌকার প্রার্থী হিসেবে চাইছেন দলীয় নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা। গাজীপুর-৩ আসনের বর্তমান এমপি অ্যাডভোকেট রহমত আলী বয়সে রোগে ন্যুব্জ। শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় তিনি আগামী নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না বলে মনে করেন স্থানীয় নেতা-কর্মীরা। সেক্ষেত্রে পারিবারিক কারণে এগিয়ে রয়েছেন তার ছেলে জামিল হাসান দুর্জয়। পিতার পাশাপাশি তিনি এলাকার নেতা-কর্মী ও জনগণের সঙ্গে কাজ করছেন। এ আসনে আরেক মনোনয়ন প্রত্যাশী হচ্ছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন সবুজ। তারা দুজনই সম্ভাবনাময় প্রার্থী। তৃণমূল নেতা-কর্মীরা তাই মনে করছেন।

গাইবান্ধা-৫ (ফুলছড়ি-সাঘাটা) আসনে ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাহমুদ হাসান রিপন দীর্ঘদিন ধরেই সক্রিয় আছেন। বছরের পর বছর সময় দিয়ে তিনি স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী, সমর্থক ও ভোটারদের মধ্যে নিজের ইতিবাচক ভাবমূর্তি গড়ে তুলেছেন। এলাকার উন্নয়ন ও সাধারণ মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন। এলাকার তরুণ প্রজন্মের মধ্যেও তিনি গ্রহণযোগ্য অবস্থান গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছেন।

সব মিলিয়ে আগামী সংসদ নির্বাচনে তাকে মনোনয়ন দিলে আওয়ামী লীগের জয় সহজ হবে বলে অনেকে মনে করেন। সর্বশেষ খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দলের হয়ে সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করেছেন আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য এস এম কামাল হোসেন। তাকে খুলনা-৩ আসন থেকে দলের প্রার্থী হিসেবে চাইছেন আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা।

সাবেক ছাত্রনেতা শফি আহমেদ দীর্ঘদিন ধরেই নেত্রকোনা-৪ (মদন-মোহনগঞ্জ-খালিয়াজুরি) আসনের মানুষের পাশে আছেন। ২০০৭ সালে বাতিল হওয়া নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছিলেন। ২০০৮ সালের নির্বাচনে মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে থেকেও তিনি বঞ্চিত হন। তাই বলে পিছিয়ে না থেকে এলাকায় নিয়মিত সময় দিচ্ছেন তিনি। এবার মনোনয়ন দৌড়ে তিনি শক্তভাবেই আছেন, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী, সমর্থকরা এমনটাই মনে করেন।

ঝালকাঠি-১ আসনে নানা কারণে বিতর্কিত বর্তমান এমপি বি এইচ হারুন মনোনয়ন দৌড়ে পিছিয়ে পড়েছেন বলে মনে করেন স্থানীয় নেতা-কর্মীরা। এ আসনের আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী বিশিষ্ট মিডিয়া ব্যক্তিত্ব স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অব ট্রাস্টির চেয়ারম্যান, বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টা ও দৈনিক বাংলাদেশ সময়ের সম্পাদক নারী নেত্রী ফাতিনাজ ফিরোজ।

তিনি স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক চেয়ারম্যান ঝালকাঠি আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্য প্রয়াত শিক্ষাবিদ ড. এম এ হান্নান ফিরোজের সহধর্মিণী। তার সমর্থিত নেতা-কর্মীদের ভাষ্য, আগামী জাতীয় নির্বাচনে ঝালকাঠি-১ আসনে মনোনয়নের অন্যতম দাবিদার ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর একান্ত বিশ্বস্ত হান্নান ফিরোজ। তার মৃত্যুর পর এ আসনে তার স্ত্রী ফাতিনাজ ফিরোজ মনোনয়ন লাভের জন্য রাজাপুর-কাঁঠালিয়া চষে বেড়াচ্ছেন। দুই উপজেলার আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী, স্থানীয় গণ্যমান্যদের সঙ্গে নিয়ে ভোটারদের কাছে গিয়ে আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়ন কর্মকা- তুলে ধরছেন।

শরণখোলা-মোরেলগঞ্জ উপজেলা নিয়ে বাগেরহাট-৪ সংসদীয় আসন। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগকে ঘিরে স্বপ্ন দেখছেন স্থানীয়রা। এলাকার উন্নয়নে সক্রিয় অংশগ্রহণ এবং তৃণমূল নেতা-কর্মীদের সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ে তোলায় সোহাগের নাম এখন মানুষের মুখে মুখে। আগামী নির্বাচনে তাকে নৌকার প্রার্থী করা হলে তিনি দলের সম্পদ হবেন বলে মনে করছেন অনেকেই।

টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান প্রার্থী হতে চাইছেন। তিনি এ আসনের চমক হতে পারেন। বর্তমান সংসদ সদস্য আমানুর রহমান খান রানা আওয়ামী লীগ নেতা ও মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমেদ হত্যা মামলার অন্যতম আসামি হয়ে কারাগারে রয়েছেন। টাঙ্গাইল-৬ আসনে তরুণ প্রার্থী হিসেবে নেতা-কর্মীদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছেন সাবেক ছাত্রনেতা তারেক শামস হিমু। তিনি বর্তমানে আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া উপ-কমিটির সদস্য। নিয়মিত এলাকায় গণসংযোগ করে চলেছেন সাবেক এই ছাত্রনেতা। টাঙ্গাইল-২ আসনে আওয়ামী লীগের বর্তমান এমপি খন্দকার আসাদুজ্জামান।

এ আসনে এবার দলের তৃণমূলে জনপ্রিয়তায় এগিয়ে রয়েছেন খন্দকার আসাদুজ্জামানের ছেলে মশিউজ্জামান খান রুমেল। তিনি এলাকায় গণসংযোগ করে চলেছেন। পিরোজপুর-২ আসনে ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইসহাক আলী খান পান্না দীর্ঘদিন ধরে প্রস্তুতি নিচ্ছেন। নিয়মিত এলাকায় সময় দিচ্ছেন। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী, সমর্থক ও ভোটারদের মধ্যে তিনি সুপরিচিত। আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তাকে প্রার্থী করা হলে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত মনে করছেন দলের তৃণমূল নেতা-কর্মীরা। কুমিল্লা-৭ (চান্দিনা) আসনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্তকে ঘিরে পরিবর্তনের স্বপ্ন দেখছে এলাকাবাসী।

ভিসি পদ থেকে অবসর নেওয়ার পর ডা. প্রাণ গোপাল স্থানীয় আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় হয়েছেন। কুমিল্লা জেলা আওয়ামী লীগের এই সহ-সভাপতি আগামী নির্বাচনে দলের মনোনয়ন চান। নোয়াখালী-৬ (হাতিয়া) আসনে মোহাম্মদ আলীর সঙ্গে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী, সমর্থকদের নিবিড় সম্পর্ক। সময় পেলেই হাতিয়ার গ্রাম থেকে গ্রামে চষে বেড়ান তিনি। আসনটির বর্তমান সংসদ সদস্য মোহাম্মদ আলীর স্ত্রী বেগম আয়েশা ফেরদাউস। তার স্ত্রী নির্বাচন না করলে তিনিই এ আসনের আওয়ামী লীগের যোগ্য প্রার্থী বলে তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা মনে করেন।

সর্বশেষ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সুনামগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে ছিলেন প্রয়াত পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুস সামাদ আজাদের পুত্র আজিজুস সামাদ ডন। কিন্তু তিনি মনোনয়ন পাননি। স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে অংশ নিলেও আওয়ামী লীগ প্রার্থী এম এ মান্নানের কাছে অল্প ভোটে পরাজিত হন। দীর্ঘদিন ধরে তিনি এলাকার রাজনীতিতে সক্রিয় থেকে নিজের অপরিহার্যতা জানান দিয়েছেন। আগামী নির্বাচনে তিনি নৌকার প্রার্থী হলে জয়লাভ সহজ হতে পারে বলে অনেকের ধারণা। সিলেট-৬ আসনে নিজের শক্ত অবস্থান তৈরি করেছেন কানাডা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সরোয়ার হোসেন। সাংগঠনিক ও সামাজিক কর্মসূচি নিয়ে তিনি এলাকায় গণসংযোগ করছেন।

এ ছাড়া নেত্রকোনা-৫ আসনে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, নেত্রকোনা-৩ আসনে অসীম কুমার উকিল, নেত্রকোনা-২ আসনে চিত্রনায়ক রানা হামিদ ও শামসুর রহমান ভিপি লিটন, ময়মনসিংহ-৩ আসনে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের মহাসচিব ডা. এম এ আজিজ, ঢাকা-৮ আসনে যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট, ঢাকা-২ আসনে কেরানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদ, ঢাকা-৫ আসনের বর্তমান এমপি হাবিবুর রহমান মোল্লার ছেলে মশিউর রহমান সজল, কিশোরগঞ্জ-২ আসনে সাবেক আইজিপি নূর মোহাম্মদ, জামালপুর-১ আসনে বকশীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নূর মোহাম্মদ, পাবনা-১ আসনে অধ্যাপক আবু সাইয়িদ, সিরাজগঞ্জ-৬ আসনে সাবেক এমপি চয়ন ইসলাম,

নীলফামারী-৪ আসনে নাফিউল করিম নাফা, রংপুর-৫ আসনে জাকির হোসেন সরকার, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনে সাবেক ছাত্রনেতা ইঞ্জিনিয়ার মাহতাব উদ্দিন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে যুবলীগ নেতা আনোয়ারুল ইসলাম আওয়ামী লীগের প্রার্থী হলে ভোটারদের মধ্যে ইতিবাচক বার্তা পৌঁছবে বলে এলাকাবাসীর ধারণা।

খোঁজখবর নিয়ে জানা যায়, বর্তমান সংসদের অনেকেই নানাভাবে বিতর্কিত। টিআর, কাবিখা, জিআর থেকে অর্থ নেওয়া, নৈশপ্রহরী এবং পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগ থেকে টাকা নেওয়ায় সাধারণ মানুষের তোপের মুখে আছেন তারা। এলাকায় নিয়মিত যেতে পারেন না। সেক্ষেত্রে তরুণরা সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলে আওয়ামী লীগকে দীর্ঘ সময় সেবা দিতে পারবেন। ফলে সাধারণ মানুষের মধ্যে আওয়ামী লীগ সম্পর্কে ইতিবাচক ভাবমূর্তি তৈরি হবে বলে রাজনৈতিক অভিজ্ঞ মহল মনে করেন। সুত্রঃ সম্পাদক

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১২জানুয়ারী,বেনাপোল থেকে এম ওসমানঃ  বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দিতে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে প্রতিদিন কয়েক হাজার বিদেশী মুসল্লি বাংলাদেশে আসতে শুরু হয়েছে। টঙ্গির তুরাগ নদীর তীরে আজ শুক্রবার (১২ জানুয়ারি) থেকে শুরু হতে যাওয়া ৬৬তম বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দিতে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে বিদেশি মুসল্লিরা আসছেন বাংলাদেশে। গত এক সপ্তাহে এই সংখ্যা ৪ হাজারেরও বেশি বলে জানিয়েছেন ঢাকার তাবলীগ জামায়াতের কর্মকর্তা আলহাজ্ব কামাল হোসেন। আখেরী মোনাজাতের আগের দিন পর্যন্ত আরও বিদেশি মেহমানরা বাংলাদেশে আসবেন।
যেসব দেশ থেকে বিদেশি মুসল্লিরা আসছেন সেসব দেশের তালিকায় রয়েছে ইন্দোনেশিয়া, মালেশিয়া, আফ্রিকা, তুর্কমেনিস্থান, শ্রীলঙ্কা, ফিলিপাইন, ভারত, সৌদি আরব ও কম্বোডিয়া।
বিদেশী মেহমানদের অভ্যর্থনা জানানো, থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করা ও বাস যোগে ঢাকায় পাঠানোসহ সব কাজ দ্রুত করার জন্য ঢাকার কাকরাইল মসজিদ থেকে আসা ৩৮ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কাজ করে যাচ্ছেন বেনাপোল চেকপোস্টে । তাদের সঙ্গে কাজ করছেন বেনাপোলে চেকপোস্টের জামিয়া আরাবিয়া বাগে জান্নাত কওমি মাদ্রাসার শিক্ষার্থী ও এতিমখানার নেতারা। বিশ্ব ইজতেমায় আগত বিদেশি মেহমানসহ মুসল্লিদের থাকা-খাওয়ার জন্য এ মাদ্রাসায় বিশেষ ব্যবস্থাও রয়েছে।
এদিকে, পরিবহন স্বল্পতার কারণে বিদেশ থেকে আসা মুসল্লিরা দুর্ভোগের মধ্যে পড়ছেন। কুয়াশার কারণে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পরিবহন না আসায় এই সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করেছে। এছাড়া, ইজমেতায় যোগ দিতে আসা বিদেশি মেহমানরা ৫শ’ টাকার ভ্রমণকর নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন। তারা বলছেন, ইসলামি দাওয়াতের কাজে তারা বাংলাদেশে আসছেন। তাই সরকার এই কর তাদের জন্য মওকুফ করতে পারত।
ইউসুফ আলী নামে এক ভারতীয় নাগরিক জানান, ভারতীয় পুলিশ তাদের ৩/৪ ঘন্টা ধরে নানা ভাবে জিজ্ঞাবাদ করে অহেতেুক দেরী করিয়েছে।
বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দিতে আসা ভারতীয় নাগরিক মোঃ রিয়াসাদ হোসাইন জানান,‘আমরা শত শত বিদেশি মুসল্লি কেবল ধর্মীয় কাজে বিশ^ এজতেমায় যোগ দিতে বাংলাদেশে এসেছি। সরকারের উচিত ছিল ইজতেমায় আসা বিদেশি মেহমানদের ভ্রমণকর মওকুফ করে দেওয়া। তাহলে বাংলাদেশ সরকারের ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল হতো।’
বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট পুলিশ ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম জানান ‘বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দিতে আসা বিদেশি মেহমানদের দ্রুততার সঙ্গে পাসপোর্টের কাজ সম্পন্ন করতে সকাল সন্ধ্যা কাজ করে যাচ্ছি। এ জন্য ইমিগ্রেশনে অতিরিক্ত অফিসার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। বিদেশি মেহমানদের সেবা করতে পেরে আমরাও খুন খুশি।’

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৮নভেম্বর,হাবিবুর রহমান খানঃ দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম হাওর হাকালুকিতে ইতিমধ্যে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ঝাঁকে ঝাঁকে আসতে শুরু করেছে অতিথি পাখি।হাকালুকি হাওর কেবল দেশের সবচেয়ে বড় হাওর নয়, এটি এশিয়ার অন্যতম বৃহৎ মিঠাপানির জলাশয় হিসেবেও পরিচিত।

আমাদের এইদেশ ছয় ঋতুর বাংলাদেশ।একেক সময়ে ধারণ করে একেক রূপ। আর প্রতিটি রূপেরই রয়েছে কিছু বিশেষত্ব।এগুলোর একটি হচ্ছে শীতকালে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আসা পরিযায়ী পাখি।প্রতিবারের মতো এবারও শীত শুরু হতে না হতেই শীতের অতিথিরা হাজার হাজার মাইল দূর থেকে উড়ে আসতে শুরু করেছে আমাদের এই হাকালুকিতে।

মৌলভীবাজার জেলার হাওর হাকালুকিতে এরই মধ্যে দেখা মিলছে তাদের। সারারাত খাবার সংগ্রহ করার পর ভোরবেলা নিজের তৈরি করা অস্থায়ী বাসস্থানে ফিরে ক্লান্তি দূর করছে অতিথি পাখির দল। শীতের শুরুতেই মৌলভীবাজার জেলার, কুলাউড়া, জুড়ী, বড়লেখা উপজেলার একাধিক জায়গায় ঝাঁকে ঝাঁকে বিভিন্ন প্রজাতির অতিথি পাখি আসতে শুরু করেছে। ভিনদেশি এসব অতিথি পাখি হয়ে উঠেছে এসব এলাকার মানুষের বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম।আট বছর আগে হঠাৎ এক শীতে আসতে শুরু করে পরিযায়ী পাখি।এরপর থেকে প্রতি বছর শীত এলেই আসে পাখি।আমরাও অতিথিদের অপেক্ষায় থাকি প্রতি বছর।সন্ধ্যা নামার সঙ্গে সঙ্গে ঝাঁকে ঝাঁকে পাখি খাবার সংগ্রহের জন্য বেড়িয়ে পড়ে। আবার ভোর হতে না হতেই চলে আসে নিজের বাসস্থানে। অতিথি পাখির কলতানে এখন মুখরিত এশিয়ার বৃহত্তম হাওর হাকালুকির আকাশ-বাতাস। দেশ-বিদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আগত নানা প্রজাতির শীতের পাখি প্রতিদিনই খেলা করছে ২৩৮ টি বিলবেষ্টিত হাওরে। সারাদিন পাখির কলকাকলিতে ভরে থাকে আমাদের চারপাশ।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১২আগস্ট,এম এস জিলানী আখনজীঃ আসছে রক্তাক্ত ১৩‘ই আগস্ট। অজ¯্র শোক, বেদনা ও মর্মাহত জড়ানো একটি দিন। যে দিন সুন্নীয়তের নীলাকাশে খসে পড়েছিল একটি উজ্জ্বল নক্ষত্র। আর সে নক্ষত্র হলেন নিউইয়র্কে দূর্বৃত্তের গুলিতে নির্মমভাবে নিহত, কুইন্স ওজনপার্কে অবস্থিত আল-ফুরকান জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব জনপ্রিয় ইসলামী চিন্তাবিদ, পীরজাদা আল্লামা শহীদ শাহ্ আলাউদ্দিন আখঞ্জী (রহ:)।

যিনি ২০১৬ সালের ১৩‘ই আগষ্ট সত্যের আদর্শে পরাজিত শক্তি, নরপিশাচ ঘাতক হায়েনাদের হাতে আল ফুরকান জামে মসজিদের সামনে রোজ শনিবার ইউ.এস.এ দুপুরের সময় ১:৫০ মিনিটে আততায়ীদের গুলিতে নির্মমভাবে শাহাদাত বরণ করেন। তিনি জোহরের নামাজ শেষে বাসায় ফিরছিলেন। তিনি ছিলেন একটি বিস্ময়কর হিরন্ময় জ্যোতি। ছিলেন সকলের প্রাণের ব্যক্তিত্ব ও হৃদয়ের স্পন্দন। ইসলামী বিশ্বে তিনি ছিলেন সুন্নীয়তের শান্তির দূত ও নির্ভীক সিপাহশালা। তিনি আমৃত্যু ইসলামের সঠিকরূপ রেখা তথা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের আদর্শ প্রচার ও প্রসারে নিয়োজিত ছিলেন।

তিনি হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার আহম্মদাবাদ ইউনিয়নের (গোছাপাড়া) গ্রামের শামছুল আরেফীন আল্লামা শাহ্ শামছুদ্দিন আখঞ্জী (রহ:) ঔরশে জন্ম নেয়া এই মহান বীরের জীবন কেটেছে প্রথমে শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ে জামে মসজিদ, অতপর হবিগঞ্জ চৌধুরী বাজার কেন্দ্রীয় সুন্নি জামে সসজিদ এবং সর্বশেষ নিউইয়র্ক কুইন্স ওজনপার্কে অবস্থিত আল-ফুরকান জামে মসজিদে। জীবনের সর্বাঙ্গে তিনি ছিলেন অবিচল, আস্থাশীল ও সক্রিয়। তিনি সরলমনা মুসলমানদের শিখিয়েছেন আল্লাহ, নবী ও ওলীদের কিভাবে ভালবাসতে হয়।

তিনিই একমাত্র ব্যক্তি যার অক্লান্ত পরিশ্রমের কারণে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন স্থানে ইয়ানবী সালামু আলাইকা’র সাথে মোস্তফা জানে রহমত পেঁ লাখো সালাম এর সুর লহরী প্রতিধ্বনিত হয়েছিল। যা শ্রবণে নবী প্রেমিকদের হৃদয় প্রশান্তিতে ভরে যেত। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ছিলেন খুবই সাধারণ। জীবন যাপন ছিল অনাড়ম্বর ও অতি সাদামাটা। মূলত সত্য, ন্যায়, ইসলামের সঠিক শিক্ষা ও আদর্শ প্রচারে তিনি ছিলেন সক্রিয় ব্যক্তিত্ব। যার উজ্জ্বল প্রমাণ মানুষকে সত্যের পথিক বানানো। যার কারণে সারা বিশ্বের প্রায় মুসলিম বিশেষ করে প্রবাসী বাঙ্গালীরাও ছিল তাঁর প্রতি ভক্ত ও শ্রদ্ধাশীল। মূলত তাঁর শাহাদাতের পেছনে এটাই আসল কারণ যে, তিনি কেন এ ভাবে মানুষকে সত্যের পথিক বানাচ্ছেন।

তাই অন্যায়, অসত্য ও তাগুতীবাদের প্রেতাত্মারা ভারাটিয়া কিলারের মাধ্যমে গুলি করে নির্মমভাবে শহীদ করে দেয়। আল্লামা শাহ্ আলাউদ্দিন আখঞ্জী (রহ:) এমন উচুঁমাপের ইসলামী চিন্তাবিদ ছিলেন, যা তাঁর ইন্তিকালের সময়ে প্রমাণিত হয়েছে। তাঁর জানাযার নামাজ জন সমুদ্রে পরিনত হয়েছিল। প্রিয় ব্যক্তিত্বকে হারানোর শোকে অশ্রু“ ঝড়াচ্ছিল দু’নয়নে। তিনি শাহাদাতের সুধা পান করেই আজ জান্নাতী। মূলত শাহাদাত তাঁর একটি কামনা ছিল।

তাঁর প্রতিটি দোয়া মোনাজাতে বলতেন, আল্লাহ আমাকে শহীদি মৃত্যু দাও। আর মকবুল বান্দার দোয়া কবুল করেন আল্লাহ তায়ালা। প্রিয় নবী (দ:) বলেছেন, “যে ব্যক্তি আল্লাহর কাছে সত্যিই শাহাদাতের মৃত্যু চায়, সে তার বিছানায় মৃত্যুবরণ করলেও আল্লাহ তায়ালা তাকে শহীদের মর্যাদায় পৌঁছে দেন”। (মুসলিম শরীফ) এভাবে হাজারো গুণে-বৈশিষ্ট্যে আল্লামা আখঞ্জী (রহ:) ছিলেন স্বমহিমায় সমুজ্জ্বল। আজ দীর্ঘ এক বছর পরও মানুষ তাকে শ্রদ্ধাভরে স্বরণ করছে এবং ন্যায় বিচারের দিকে থাকিয়ে আছে। তিনি আজ আমাদের মাঝে নেই। আছে হাজারো স্মৃতি ও কথা। তিনি আজীবন সকল সুন্নী মুসলমানদের প্রাণে চীর স্বরণীয় হয়ে থাকবেন।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৮জুলাইঃ  মহাবিশ্বের স্রষ্টার প্রতি ভক্তি বা ভালোবাসাকে মানব জাতি যে নজরেই দেখুক না কেন, তাকে কি মানুষের প্রেমের সর্বোত্তম প্রতিভাসের বহিঃপ্রকাশ হিসাবে ব্যাখ্যার সুযোগ থাকেনা? হোক না স্রষ্টা বা ঈশ্বর, ভগবান বা আল্লাহ, জাতিতে হিন্দু বা মুসলিমদের, জৈনের বা খ্রিস্টানের, পরমাত্তায় বিশ্বাসীদের বা একেশ্বর বাদীদের, বহুশ্বরবাদীদের বা নিরীশ্বর বাদীদের, সর্বেশ্বর বাদীদের বা পৃথিবীর সকল আস্তিক বা নাস্তিকবাদীদের হৃদিপদ্মে বিরাজ করে শুধুই এক স্রষ্টা, কিন্তু ডাকা হচ্ছে বিভিন্ন নামের মাধ্যমে এবং ধর্মীয় পরিচয়ে। তাঁর প্রতি বিভিন্ন ধর্মের মানুষের ভক্তি প্রকাশের ভাষাটি ভিন্ন হতেই পারে কিন্তু প্রেমের গভীরতাটুকুকে তুলনা করে কাউকে আঘাত দিতে চাওয়াটাই হবে চরম ভুল।

সাধক সন্ন্যাসীর জীবন কাহিনীর সমন্বয়ে তাঁদেরই গভীর আত্মার প্রেম ও ভালোবাসা কতটুকু সমৃদ্ধ বা শক্তিশালী তা গভীর ভাবে অভিনেতা ও নাট্যকার নজরুল ইসলাম তোফা তাঁর রচিত নাটকে তুলে ধরেছেন। সাধুরুপী আধ্যাতিক চেতনার পুরুষ সাধন ভজনের লক্ষে এক গ্রামে প্রবেশ করলে সৃষ্টি হয় অনেক ঘটনা। সে গ্রামের এক মেয়ে সেই আধ্যাতিক সাধক পুরুষের কর্মকান্ডে হয়ে উঠে সাধন ভজনে বিভোর। কারণ মেয়েটি ছিল কীর্ত্তনিয়া অর্থাৎ কীর্ত্তন গান করে সেহেতু সাধুজীর আধ্যাতিক ভক্ত হয়ে উঠেন।

আধ্যাতিক আসলে কি? তা জানা যাবে এই নাটকে। সামান্য একটু ধারনা দিয়ে পরিচালক শিমুল সরকার বলেন, দৃষ্টি, শ্রবণ, ঘ্রাণ, স্বাদ ও স্পর্শ এই পাঁচ ইন্দ্রিয় শক্তির বাইরেও কিছু ঘটনা ঘটে থাকে মানব জীবনে। স্বাভাবিক বুদ্ধি বা কার্য-কারণ তত্ত্ব দিয়ে তার বিশ্বাস যোগ্য ব্যাখ্যা পাওয়া যায় না। কিন্তু মানব জীবনে এরকম বহু ঘটনা ঘটে। যেমন: একজন স্বপ্নে দেখেছেন, তিনি মরা মানুষ জীবিত করতে পারেন; কেউ কেউ রাতের অন্ধকারে গায়েবি আওয়াজ শুনতে পান; কারো কারো নজর লাগে বা মুখ লাগে যার ফলে অন্যের ক্ষতি হয়; কেউ কেউ ভবিষ্যতে কোথায় কি ঘটবে তার পূর্বাভাস পান, ইত্যাদি। এরূপ ঘটনা পাঁচ ইন্দ্রিয় শক্তি বা ক্ষমতার বাইরে। তাই এসবের নামই অতীন্দ্রিক বা আধ্যাত্মিক ঘটনা।

বিশ্বের বিভিন্ন সমাজে বহু উদাহরণ আছে যারা আধ্যাত্মিক বা অতীন্দ্রিক চর্চা করে সফল এবং তারাই সমাজে মর্যাদার অাসনের অধিকারী। এই উপমহাদেশে সভ্যতার উষালগ্ন থেকে আধ্যাত্মিক বা অতীন্দ্রিক চর্চা হয়ে আসছে। সাধু-সন্ত-সন্যাসী, আউল-বাউল, পীর-ফকির, আউলিয়া-কুতুব-দরবেশ, মরমি-সুফি, ভিক্ষু-শ্রমণ, পুরুত-ঠাকুর, তান্ত্রিক-যোগী-পরমহংস প্রমুখ পদ-নাম এর সঙ্গে জড়িত। এঁরা অতীন্দ্রিক বা আধ্যাত্মিক কেরামতি প্রদর্শনের মাধ্যমে যুগে যুগে সাধারণ মানুষের আস্থা অর্জন করেছেন, যার যার ধর্ম বা আদর্শিক মতবাদ প্রচারের কাজ করেছেন এবং তারাই ভক্তি-শ্রদ্ধা কুড়িয়েছেন।

আবার জাদুকর, ডাকিনী, গুণিন, ওঝা, বৈদ্য, বাজিকর প্রমুখ ঝাড়ফুঁক, জাদু টোনা, বান মারা, বশ করা, ভুত ছাড়ানো প্রভৃতি তেলেসমাতি দেখিয়ে লোকজনকে বশীভূত বা সম্মোহিত করে তাদের উদ্দেশ্য হাসিল করেন। আর যারা ব্যর্থ হন তারা উন্মাদ হিসেবে চিহ্নিত হয়ে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য ও লাঞ্চনা-গঞ্জনার শিকার হন। বলা বাহুল্য, ধর্ম সম্বন্ধে আমাদের অজ্ঞতা, কুসংস্কার এবং গোঁড়ামিই তাদের মত ধোঁকাবাজদের সমাজে প্রতিষ্ঠিত হবার সুযোগ করে দেয়।

এই আর্ট ফিল্মে শৈল্পিক নান্দনিকতায় রয়েছে চরম আধ্যাতিক ভালোবাসার আবেদন এবং এই ফিল্মে বিনোদনে কোনই অপূর্ণতা নেই। পরিচালক শিমুল সরকার এই আর্ট ফিল্মের নির্মাণ কর্মে কোথায়ও রাখতে চান না এতটুকু মেকি ক্লাইমেকস্। এদেশের প্রথম পে চ্যানেল (love tv) লাভ টিভি অর্থাৎ www.lovetv24.com এ আগামী ঈদুল আযহা থেকেই সম্প্রচার হবে। তাছাড়াও অন্য চ্যানেলে নাটকটি প্রচারের কথা চলছে। এই আর্ট ফিল্মটির নাম “কাম সাধন”।

নাট্যকার ও অভিনেতা নজরুল ইসলাম তোফা বলেন, প্রেম ভালোবাসার মধুর হাঁসিতে, জন্মের পর যখন প্রথম কাঁদি-সেই কান্নায়, পাহাড়ের ঝর্নায় বহমান ধারায়, সমুদ্রের উথাল পাথাল ঢেউ-এ, পাখীর ডাকে, কীর্ত্তনীয়া নারীর কীর্ত্তন গানের সুরে, দক্ষীনা বায়ুপ্রবাহে আন্দলিত বৃক্ষপত্রের মর্মর ধ্বনিতে, বৃষ্টির বর্ষণে, বিশ্ব প্রকৃতির মাঝে সর্বত্র স্বত:সিদ্ধ হয়ে উঠে ‘কাম সাধন’ আর্ট ফিল্মটি।সর্বদাই বিদ্যমান রয়েছে চিত্রনাট্যের সুনিপুণ নির্মাণ। আর্ট ফিল্মটির চিত্রনাট্যে ও পরিচালনায় আছেন শিমুল সরকার।প্রেস বিজ্ঞপ্তি

আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম,২৬এপ্রিলঃ   আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অকাল বন্যায় বিধ্বস্ত হাওর এলাকা পরিদর্শনে যাচ্ছেন।আগামী রোববার প্রধানমন্ত্রী হাওরের পরিস্থিতি সরেজমিনে দেখতে সুনামগঞ্জ জেলা সফর করবেন।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক (সিলেট বিভাগ) আহমদ হোসেন দুপুরে বিভিন্ন অনলাইনকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।মার্চের শেষে অকাল বন্যায় বাঁধ ভেঙে বিস্তীর্ণ হাওরাঞ্চলের প্রায় সব বোরো ফসল তলিয়ে যায়।

এটাই হাওরের একমাত্র ফসল।এই ফসল হারিয়ে মানুষ এখন দিশেহারা। বাংলাদেশের সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার, নেত্রকোনা, হবিগঞ্জ ও কিশোরগঞ্জের বিস্তীর্ণ এলাকা নিয়ে এই হাওরাঞ্চল অবস্থিত।

বোরো ফসল ডুবে যাওয়ার পর সেখানে শুরু হয় মাছ, হাঁস ও অন্যান্য জলজ প্রাণীর মড়ক।যার ফলে বিভিন্ন স্থানে মাছ ধরা নিষিদ্ধের পাশাপাশি পানিতে চুন ফেলে বিষক্রিয়া কাটানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।

এ অবস্থায় ক্ষতিগ্রস্ত হাওরবাসীর পক্ষ থেকে ‘দুর্গত এলাকা’ ঘোষণার দাবি করা হলেও ‘আইনবলে’ সরকার তা আমলে নেয়নি।তবে সরকারের পক্ষ থেকে হাওরে নানা ধরনের সাহায্য-সহযোগিতার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।এনটিভি

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩০মার্চ,হৃদয় দাশ শুভ,নিজস্ব প্রতিবেদক, মৌলভীবাজার থেকেঃ  মৌলভীবাজার সদর উপজেলার নাসিরপুর গ্রামের জঙ্গি আস্তানায় ফের অভিযান শুরু করেছে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি)। অভিযানের শুরুতেই সেখানে টানা গুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে।

এদিকে নাসিরপুরে জঙ্গি আস্তানায় সিটিটিসির সদস্যরা ড্রোন ব্যবহার করছে বলে অভিযান সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এদিকে সিটিটিসির প্রধান মনিরুল ইসলাম  জানান, বৃহস্পতিবার সকালে তারা অভিযান চালানোর চেষ্টা করেছিল। কিন্তু বৃষ্টির কারণে তা সম্ভব হয়নি।
নাসিরপুরে অভিযান শেষে বড়হাটে অভিযান চালানো হবে বলে নিশ্চিত করেছেন মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল থানার এসআই রাশেদুল আলম খান।
এর আগে সিলেটের জঙ্গি আস্তানা আতিয়া মহলেও ড্রোন ব্যবহার করেছিল আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।
উল্লেখ্য, জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে মঙ্গলবার (২৮ মার্চ) রাত থেকে মৌলভীবাজার পৌরসভার বড়হাট এলাকায় একটি বাড়ি এবং খলিলপুর ইউনিয়নের সরকার বাজার এলাকার নাসিরপুর গ্রামে আরও একটি বাড়ি ঘিরে রেখেছে পুলিশ ও সিটিটিসি। দুটি আস্তানাতেই বিপুল পরিমাণ অস্ত্র-বিস্ফোরক আছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯মার্চ,হৃদয দাশ শুভ: মৌলভীবাজারের দু’টি জঙ্গি আস্তানায় অভিযানে যোগ দিতে ঢাকা থেকে রওনা দিয়েছে সর্বাধুনিক প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত স্পেশাল উইপন্স অ্যান্ড ট্যাক্টিকস টিম সোয়াট ।

বুধবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে সোয়াটের একটি টিম মাইক্রোবাসযোগে ঢাকা থেকে রওনা দেয় বলে জানিয়েছে একটি সূত্র।

মঙ্গলবার দিবাগত রাত থেকে মৌলভীবাজার শহরের বড়হাট ও সদর উপজেলার খলিলপুর ইউনিয়নের সরকার বাজারের কাছে ফতেহপুর গ্রামের ওই দু’টি জঙ্গি আস্তানা ঘেরাও করে রেখেছে পুলিশ। বড়হাটের আস্তানাটি একটি ডুপ্লেক্স বাড়িতে, আর ফতেহপুরের আস্তানাটি একটি একতলা বাড়িতে।
স্থানীয়রা জানান, সে দু’টি বাড়িই এক লন্ডনপ্রবাসীর। তার নাম সাইফুল ইসলাম। তিনি সপরিবারে লন্ডনে থাকেন।

আজ বুধবার ভোররাতের দিকে অভিযান শুরু করলে জঙ্গিরা গুলি ছুড়ে। সকালে একের পর এক গ্রেনেড ছুঁড়েও মারে তারা।

সকাল ১০টা থেকে সাড়ে ১০টার মধ্যেও দু’টি জঙ্গি আস্তানায় বিস্ফোরণ ও গুলির শব্দ শোনা যায়। সাড়ে ১০টার দিকে বড়হাটের ‍আস্তানার ভেতরে বিকট শব্দে তিনটি গ্রেনেড বিস্ফোরণ ঘটায় জঙ্গিরা।
রাশেদুল ইসলাম বলেন, রাত থেকে কৌশলে আমরা এলাকাবাসীকে সরিয়ে নিতে পেরেছি। এখন জঙ্গিদের কব্জা করার সব চেষ্টা চলছে।

বড়হাটের স্থানিয় এক গৃহিণী জানান “পুলিশ  মসজিদের মাইকে  ঘোষণা  করে আমাদের সতর্ক থাকতে বলেছেন কিন্তু আমরা তো বাচ্চাদের নিয়ে আতংকে আছি। গুলির শব্দে মধ্যে মধ্যে ঘর বাড়ি কেঁপে উঠছে।”

ইতিমধ্যে মৌলভীবাজার জঙ্গি আস্তানার আধ কিঃ মিঃ কর্ডন করে রাখেছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৩মার্চ,মতিউর রহমান মুন্না,নবীগঞ্জ থেকেঃ অনামিকা সিনহা অনু। অনার্স শেষ করে বর্তমানে এম এ করছেন পাশাপাশি একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহাকারী শিক্ষিকা হিসেবে কর্মরত অবস্থায় আছেন। ছোট বেলা থেকেই লেখালেখির অভ্যাস ছিল তাঁর। বিদ্যালয় ও কলেজের দেয়ালিকা গুলোতে তার লেখা শীর্ষ স্থান পেতেন। এক সময় প্রথম আলোর বন্ধু সভায় তাঁর কবিতা ছাপা হতো নিয়মিত। এভাবেই লেখা লেখি যাত্রা শুরু। অবশেষে নানা জল্পনা কল্পনার অবশান ঘটিয়ে তার লেখা গান দিয়ে “বন্ধুয়ার গান” নামের সিডি এ্যালবাম বাজারে আসছে।

আর এর মাধ্যমে অনামিকা অনু গীতিকার হিসাবে পদার্পণ করলেন এই প্রথম। তার জীবনের প্রথম লেখা গানগুলোতে কন্ঠ দিয়েছেন দেশের সুনামধন্য তিন কন্ঠ শিল্পী- শফি মন্ডল ও রিংকু ও বাউলিয়ানা দিপু। (২৩ মার্চ) বৃহস্পতিবার সিলেটের হাংরি স্টেশন নামক একটি রেষ্টুরেন্টে আয়োজন করা হয়েছে এ্যালবামের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানের।

জমকালো আয়োজনের মাধ্যমে বাজারজাত করা হবে সিডি এ্যলবামটি। সম্পর্ক ক্রিয়েশনের ব্যানারে ও মহতের সৌজন্যে ‘বন্ধুয়ার গান’ এ্যালবামের সকল গান লিখেছেন অনামিকা সিন্হা অনু নিজেই আর গানগুলো সুর করেছেন মোবারক হোসেন ও নোমান সজীব।

নবীন গীতিকার অনামিকা সিনহা অনু‘র জন্ম মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ থানার পল্লীতে। পিতাঃ বীর মুক্তিযোদ্ধা বীরেশ্বর সিং (অবসর প্রাপ্ত সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসার) এবং মাতাঃ ঊষা রানী দেবী একজন স্কুল শিক্ষক। অনামিকা তার পিতা মাতার ২য় সন্তান।

অনামিকা সিনহা অনু দৈনিক হবিগঞ্জের বাণীকে বলেন, ‘গুরুজি শফিমন্ডল এর মত একজন বাউল আমার গানের ধরন দেখে তিনি নিজেই আবেগাপ্লুত হয়ে বলেছেন গানের কাজ আমি অন্তর থেকে করবো। রিংকু ভাইয়ের কাছে সারা জীবন কৃতজ্ঞ, উনার দরদ ভরা কন্ঠ দিয়ে গানগুলো করেছেন এবং সার্বিক সহযোগিতা করেছেন। সজিব ভাই ও মোবারক ভাই গানগুলো আরো প্রানবন্তো করেছেন বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে, উনাদের কাছেও কৃতজ্ঞ। বাবার অনুপ্রেরণা ও বাউলিয়ানা দীপুর আন্তরিক প্রচেষ্টার ফলে এ্যালবামটি করতে সক্ষম হয়েছেন বলেও জানান অনিমিকা। ভবিষ্যতে আরো কাজ করার পরিকল্পনা আছে বলেও জানান এই নবীন গীতিকার।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc