Sunday 25th of October 2020 04:02:27 PM

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ সাম্প্রতিক সীমান্ত সংঘর্ষের পরে উভয়পক্ষের মধ্যে শান্তি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে ভারত ও চীনের মধ্যে আরও উত্তেজনা বাড়ার সাথে সাথে ভারতের রাজনৈতিক ও সামরিক বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে পরিস্থিতি এখন আরও জটিল ও উত্তাল হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
আমি মনে করি এটি আরও জটিল হয়ে উঠেছে। ইতিমধ্যে এলএসি (প্রকৃত নিয়ন্ত্রণের রেখা) নিয়ে উত্তেজনা ছিল, এবং প্রাথমিক সহিংসতার পরে কমপক্ষে পরিস্থিতি কিছুটা শীতল হয়ে গিয়েছিল এবং বিভিন্ন স্তরে আলোচনা চলছিল, “লেফটেন্যান্ট জেনারেল দেপেন্দ্র সিং হুদা, (অবসরপ্রাপ্ত) ভারতীয় সেনাবাহিনী বলেন “এখন হঠাৎ করেই, আপনার আবার একটি নতুন প্রচেষ্টা হয়েছে, সম্পূর্ণ নতুন অঞ্চলে একরকম আক্রমণ (চীন এর লোক মুক্তির সেনা দ্বারা)। সুতরাং, পরিস্থিতি উত্তেজনার দিকে চলেছে। “

নয়াদিল্লি গত সোমবার বলেছে যে তার সেনারা হিমালয় অঞ্চলের সীমান্ত অঞ্চলে “উস্কানিমূলক সামরিক তৎপরতা ব্যর্থ করেছে যেখানে গত মে মাস থেকে দু’দেশের মুখোমুখি ঘটনা প্রত্যক্ষ হয়েছে। পরবর্তীকালে, চীনের লিবারেশন আর্মি ভারতীয় পক্ষকে সীমান্ত লঙ্ঘন করার জন্যও অভিযুক্ত করে।”

হুডার মতে, তিনি বলেছিলেন “ক্রমবর্ধমান ও প্রচণ্ড উস্কানিমূলক” জিনিসগুলি সীমান্তে আরও উত্তেজনা বাড়াবে। “যদি কূটনৈতিক আলোচনা এবং সামরিক-থেকে-সামরিক আলোচনা কাজ না করে এবং চীন এখন তাদের সামরিক বাহিনীকে যেমন ব্যবহার করেছে এমতাবস্থায় আমি মনে করি সবকিছু এখন টেবিলের মধ্যে রয়েছে।

বিতর্কিত জম্মু ও কাশ্মীরের লাদাখ অঞ্চলে দু’দেশের মধ্যে একটি সীমান্তরেখার এলএসি-তে ভারত ও চীন একে অপরের মুখোমুখি হয়েছিল, যেখানে এই জুনে ২০ জন ভারতীয় সেনা নিহত হয়েছিল। এর পর থেকে দু’দেশের মধ্যে বেশ কয়েকটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে, তবে সাফল্য হয়নি।

সাংহাই বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্কের পাঠদানকারী রাজীব রঞ্জন বলছিলেন যে লাদাখের জুনে সংঘর্ষ ভারত-চীন সম্পর্ককে অস্বীকার করেছে। “নতুন করে উত্তেজনার খবর পাওয়া গেলে উত্তেজনা বজায় থাকবে এবং ভারত সীমাবদ্ধতা রেখে প্রতিশোধ নিতে পারে”।

ভারতের চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ জেনারেল বিপিন রাওয়াত গত সপ্তাহে বলেছিলেন যে দু’দেশের মধ্যে আলোচনা ব্যর্থ হলে চীনকে মোকাবেলায় সামরিক বিকল্প” রয়েছে।

প্রাক্তন সেনা কমান্ডার হুদা বলেছিলেন,আমি কোন যুদ্ধের ঘটনা দেখতে পাচ্ছি না তবে উত্তেজনা বাড়বে কারণ যখন আলোচনা চলছে এবং হঠাৎ করে আপনি একটি নতুন অঞ্চলে কিছু করার চেষ্টা করছেন, এটি একটি বিরাট উস্কানি। আমি বলছি উভয় দেশ যুদ্ধে নামবে না। তবে, এই সমস্ত বিষয় নিয়ে, আগামী সময়ে কী ঘটবে কে জানে।

এদিকে রঞ্জন হুডার আবারো একই মতামত প্রতিধ্বনিত করে বলেন, উভয় দেশের নেতারা যুদ্ধের ব্যয় এবং উপকার গণনা করতে যথেষ্ট পরিপক্ক। আমি বিশ্বাস করি যে উভয় পক্ষই পুরোপুরি দ্বন্দ্ব এড়াতে চেষ্টা করবে তবে ভারত এবং চীন যেহেতু দীর্ঘ অচল সীমানা নিয়ে প্রতিবেশী, তাই আরও ঝগড়া এগিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে,

ভারতের রাজনৈতিক ভাষ্যকাররা বিশ্বাস করেন যে কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে উত্তেজনা সমাধান পেতে পারে।

“নয়াদিল্লি-ভিত্তিক অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশনের বিশিষ্ট সহযোগী এবং ভারত-চীন সম্পর্কের বিশেষজ্ঞ মনোজ জোশী বলেছেন-আমি মনে করি এটি কূটনৈতিক বন্দোবস্ত খুঁজে পাবে। চীনারা ইতিমধ্যে গ্যালওয়ানে ফিরে এসেছেন। উভয়ই বাস্তব নিয়ন্ত্রণের স্বীকৃত লাইন তৈরির পক্ষে উভয়েরই সমাধানয়।

জুনে ভারত-চীন সংঘর্ষের পরে, চীনা পণ্য বর্জন করার জন্য ভারতে বহু দাবী উঠেছিল। ভারতীয় দৈনিক দ্য হিন্দু জুনে জানিয়েছিল যে সম্প্রতি ভারতীয় রেলওয়ে একটি চীনা সংস্থাকে দেওয়া একটি সিগন্যালিং প্রকল্প বাতিল করেছে।

বিশেষজ্ঞরা বলেছিলেন যে সংঘর্ষের ফলে ভারতের মানুষের মধ্যে চীনবিরোধী অনুভূতির সৃষ্টি হয়েছিল।

২০ জন ভারতীয় সেনা নিহত হওয়ার পটভূমিতে চীনের বিরুদ্ধে ভারতে একটি জনপ্রিয় উদ্বেগ অনুভূতি রয়েছে। জনমত জরিপগুলি এটি ইঙ্গিত করেছে। কিছু সংস্থা চাইনিজ পণ্য বর্জন করার আহ্বান জানিয়েছে, ”নয়াদিল্লির জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের চীন বিষয়ক বিশেষজ্ঞ শ্রীকান্ত কোন্ডাপল্লি বলছিলেন: “এই আন্দোলনটি বাষ্প অর্জন করছে”

জোশী অবশ্য বলেছিলেন যে একটি বয়কট করা ভাল ধারণা নয়। আমার দৃষ্টিতে, এটি সম্ভবত … টেকসই নয়। তবে এটি সমর্থনকারী লোকদের মধ্যে এটি ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ, তিনি বলেছিলেন। চীন আঞ্চলিক সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘন করেছে।

নতুন উত্তেজনার বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়ে চীন মঙ্গলবার ভারতকে “লাদাখ সীমান্ত অঞ্চলে” পরিস্থিতি বৃদ্ধি ও জটিলতার দিকে পরিচালিত যে কোনও পদক্ষেপ অবিলম্বে বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছে।

“ভারতের এই পদক্ষেপ চীনের আঞ্চলিক সার্বভৌমত্বকে চূড়ান্তভাবে লঙ্ঘন করেছে, দু’দেশের মধ্যে প্রাসঙ্গিক চুক্তি, এবং প্রোটোকল গুরুতরভাবে লঙ্ঘন করেছে এবং চীন-ভারত সীমান্ত অঞ্চলে শান্তি ও প্রশান্তিকে মারাত্মক ক্ষতি করেছে,”

চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মি ভারতীয় পক্ষকে শান্তি পরিস্থিতি বিনষ্ট করার অভিযোগও করেছে। “সেনাবাহিনীর পশ্চিমা থিয়েটার কমান্ড বলেছে,” সেনাবাহিনী ভারতীয় সেনাদের উস্কানির জবাবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছে এবং পরিস্থিতি নিকটতরভাবে অনুসরণ করবে এবং সীমান্তবর্তী অঞ্চলে জাতীয় সার্বভৌমত্ব, শান্তি ও স্থিতিশীলতার রক্ষা করবে।

দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে দুই দেশের সীমান্ত উত্তেজনা বিরাজ করছে। চীন ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ভূখণ্ডের দাবি করেছে, যখন নয়াদিল্লি লাদাখ অঞ্চলের কিছু অংশসহ হিমালয়ের আক্সাই চিন মালভূমিতে বেইজিংয়ের অঞ্চল দখল করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে।আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম অবলম্বনে ফখরুল ইসলাম চৌধুরী।

হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ  হবিগঞ্জের চুনারুঘাট আরও ৬জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে করোনা রোগী ২১৭ জন।
মঙ্গলবার (২৫আগষ্ট) রাত ১০.১০মিঃ সময়ে নতুন রিপোর্টে ৬ জনের করোনা পজিটিভ আসে। এর মাঝে – মোট সুস্থ হয়েছেন ১৮১ জন,
আইসোলেসনে রয়েছ ৩৫ জন, মোট মৃত্যু হয়েছে২জনের। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ মোজাম্মেল হোসেন সত্যতা স্বীকার করে বলেন, মহামারী করোনা সংক্রমণ দিন -দিন বেড়েই চলছে। অতি প্রয়োজন ছাড়া কেউ বের হবেন না। জরুরি প্রয়োজনে বাইরে গেলে অবশ্যই মাস্ক পরিধান করুন। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন। বার- বার কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড করে সাবান দিয়ে হাত ধৌত করুন এবং সর্দি, কাশি, জ্বর, গলাব্যথা ইত্যাদি (উপসর্গ) দেখা দিলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে করোনা পরীক্ষা করান এবং রিপোর্ট  না পাওয়া পর্যন্ত আলাদা থাকুন।

মালয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাইফুদ্দীন আব্দুল্লাহর সঙ্গে বৈঠক করেছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। বৈঠকে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাইফুদ্দীন আব্দুল্লাহ বলেছেন, ‘মালয়েশিয়ার সরকার বাংলাদেশি শ্রমিকদের নিয়োগ ও কাজ উভয়ই সহজ করে দিচ্ছে। সব নিয়ম-শৃঙ্খলা অনুযায়ী হবে। এ সহজীকরণে একটি স্বাধীন কমিটি কাজ করছে।’ মন্ত্রী বলেন, বিদেশি কর্মীরা যাতে স্বল্প খরচে নিশ্চিন্তে কাজে যোগদান করতে পারে এবং মধ্যস্তভোগীদের দ্বারা প্রতারণার শিকার না হয়। মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম শাহরিয়ার আলমের সঙ্গে ২২ এপ্রিল বৈঠককালে এসব বলেন।

শাহরিয়ার আলম দক্ষিণ ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া কো-অপারেশনের (সায়াকো) মাধ্যমে মালয়েশিয়ার সমর্থন অর্জনের জন্য কুয়ালালামপুরে চার সদস্যের একটি প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। বৈঠকে উভয় দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কোন্নয়ন এবং আঞ্চলিক অর্থনৈতিক সহযোগিতার মাধ্যমে উন্নয়নের বিভিন্ন বিষয়ে ঐকমত্য পোষণ করেন সে দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। উভয় দেশেই নতুন সরকার, তাই সম্পর্কের নব উন্মেষ হবে এ প্রত্যাশা করেন। মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠককালে শাহরিয়ার আলম মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশের অনেকের কর্মসংস্থান হয়েছে এবং হচ্ছে। এজন্য মালয়েশিয়া সরকারের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

মালয়েশিয়া বাংলাদেশকে সোর্স কান্ট্রি উল্লেখ করে শ্রম নিয়োজন শুরু করেছে। যারা বৈধতা-সংক্রান্ত সমস্যায় আছে তাদের বিষয়টি দ্রুত সমাধানের জন্য অনুরোধ করেন। তিনি আশা করেন মালয়েশিয়া সরকার দ্রুত নবনিয়োগের ক্ষেত্রে স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করবে। এ বিষয়ে মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাইফুদ্দীন আব্দুল্লাহ আশা প্রকাশ করে বলেন, ‘নিয়ম-কানুন ও পলিসি সংশোধন করে বিদেশি শ্রমিক নিয়োগ-সংক্রান্ত সমস্যা সমাধানের চেষ্টা চলছে। অনিয়ম বা বিশৃঙ্খলার পুনরাবৃত্তি হোক তা মালয়েশিয়া সরকার চায় না।’

বৈঠকে মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশের নির্যাতিতরা বিপুল পরিমাণে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে এবং বাংলাদেশ এসব অসহায় লোকদের পাশে থেকে যে মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে তাতে সাধুবাদ জানিয়ে রোহিঙ্গা সমস্যার আশু সুষ্ঠু সমাধানের আশ্বাস দেন। মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন অর্থনৈতিকভাবে অনেক উন্নতি করছে। আঞ্চলিক অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রেও বাংলাদেশ অগ্রণী ভূমিকা রাখবে।’
শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ।’

বৈঠকে মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মহ. শহীদুল ইসলাম, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ডিজি (ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন) এএফএম গৌছুল আজম সরকার এবং সেস্কো ফাউন্ডেশনের নির্বাহী চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন চৌধূরী এবং মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ হাইকমিশনের অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। শাহরিয়ার আলম আরও বলেন, ‘এটি একটি বেসরকারি খাত এবং ট্র্যাক-২ লেভেল ফোরাম এই অঞ্চলের পাঁচটি ওআইসি দেশ- বাংলাদেশ, ব্রুনাই, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া এবং মালদ্বীপ আঞ্চলিক অর্থনৈতিক প্রগতিকে এগিয়ে নেয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে।’

সদস্য দেশ ও তাদের আশপাশের দেশগুলোর অর্থনৈতিক সহযোগিতার এজেন্ডা নিয়ে বিশ্ব ইসলামী অর্থনৈতিক ফোরাম (ডাব্লুআইইএফ) মডেলে কাজ করবে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে এবং জনসাধারণ ও বেসরকারি স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে কাজ করছে। বিদেশি মন্ত্রীদের প্রত্যাশিত অংশগ্রহণের সঙ্গে সঙ্গে ২০১৯ সালের জুনের শেষ দিকে ঢাকায় সিএইচওএর উদ্বোধনী সম্মেলনের আয়োজন করার জন্য প্রস্তুত।

মালয়েশিয়ায় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ার মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বিষয়ে আলোচনা করেন। তিনি বলেন, ‘মালয়েশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্য গ্যাপ অনেক বেশি, যা মালয়েশিয়ার অনুকূলে। বাংলাদেশি বেশি বেশি পণ্যের প্রবেশাধিকার দিলে এ বৈষম্য কমে যাবে।’ তিনি আশা করেন, মালয়েশিয়া সরকার বাণিজ্য ভারসাম্য রক্ষার পদক্ষেপ নেবেন। মালয়েশিয়ার ব্যবসায়ী এবং বাণিজ্য ও বিনিয়োগ কর্তৃপক্ষ এবং চেম্বারের সঙ্গে পৃথক বৈঠক করেছেন।

রোহিঙ্গা বিষয়ক আলোচনায় মালয়েশিয়া আসিয়ান দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম প্রধান হওয়ায় বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। রোহিঙ্গা সমস্যা নিরসনে মালয়েশিয়া সরকার গুরুত্বের সঙ্গে কাজ করছে বলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান। ২৩ এপ্রিল পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী জালান সুলতান ইয়াহিয়া পেত্রাস্থ চেন্সারি ভবন এবং আমপাংস্থ পাসপোর্ট সার্ভিস কেন্দ্র ঘুরে ফিরে দেখেন এবং সেবাপ্রত্যাশীদের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, প্রবাসীদের সুন্দর সেবা নিশ্চিত করতে হবে। অপপ্রচার বা অন্য কোনোভাবে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন না হয় সেদিকে নজর রাখতে হবে।

বেনাপোল প্রতিনিধি:  যশোরের শার্শায় ২৬ দিনের মধ্যে দুই দফায় সন্তান প্রসব করে তিন সন্তানের মা হলেন আরিফাসুলতানা ইতি। বিরল এ ঘটনার জন্ম দেয়া ইতি যশোরের শার্শা উপজেলার শ্যামলাগাছির সুমন বিশ্বাসের স্ত্রী।

২৫ ফেব্রুয়ারি স্বাভাবিকভাবে এক সন্তান জন্ম দেয়ার পর ২২ মার্চ তিনি সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে আরও দুটিসন্তানের জন্ম দেন।প্রথমবার বাড়িতে স্বাভাবিকভাবে একটি পুত্রসন্তান প্রসব করেন। এরপর যশোর শহরের রেল রোডস্থআদ-দ্বীন হাসপাতালে এক পুত্র ও এক কন্যাসন্তানের জন্ম দেন ইতি।

জানা যায়, অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার পর সাড়ে ছয় মাসের মাথায় ২৫ ফেব্রুয়ারির একটি পুত্রসন্তান জন্ম দেন ইতি।

জন্মের পরনবজাতক ও মা অসুস্থ হয়ে পড়লে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়।

এরপর প্রিম্যাচিউরড (অপরিণত) শিশুটিকে নিয়ে খুলনা মেডিকেল কলেজের এনইউসিতে (নিউ নেটাল কেয়ার ইউনিট) রাখা হয়।

খুলনায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইতির পুনরায় আলট্রাসনোগ্রাফি করা হয়।তখন রিপোর্টে দেখা যায়, ইতির গর্ভে আরওদুটি সন্তান রয়েছে।

গত ২২ মার্চ শুক্রবার ইতিকে যশোর রেলরোডস্থ আদ-দ্বীন হাসপাতালে আনা হলে সিজারিয়ানডেলিভারির মাধ্যমে দুটি সন্তান প্রসব করানো হয়। সিজারিয়ান ডেলিভারি করান ডা. শীলা পোদ্দার।

এ ব্যাপারে যশোর আদ্-দ্বীন হাসপাতালের গাইনি বিশেষজ্ঞ ডা. শীলা পোদ্দার বলেন, গর্ভে একাধিক বাচ্চা থাকলে সেটিআমরা একসঙ্গে প্রসব হতে দেখেছি। কিন্তু একবার একটি বাচ্চা প্রসবের ২৬ দির পর আরও দুটি বাচ্চা প্রসবের ঘটনাবিরল।

প্রথমবার প্রসব হওয়া বাচ্চাটির পাশাপাশি সম্প্রতি প্রসব হওয়া বাচ্চা দুটি সুস্থ ও স্বাভাবিক বলেও জানান তিনি।

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধিঃ দিন রাতের বিশেষ বিশেষ সময়ে বাড়ির লোকদের নাকে হঠাৎ ভেসে আসতো পোলাওয়ের চালের গন্ধ। মনে হতো কোথাও কালিজিরা, চিনিগুঁড়া ধান দিয়ে পোলাও রান্না হচ্ছে। কিন্তু আশেপাশের ঘর বাড়িতে খবর নিয়ে জানা যেত পোলাওয়ের চাল কিংবা পোলাও রান্না হচ্ছে না। বাড়ির লোকেদের অনেকে ভৌতিক চিন্তা-ভাবনা কল্পনায় আসতে থাকলো তার কয়েকদিন পরই তারা পোলাও চালের রহস্য খোঁজে পেল। ভৌতিক কোন ঘটনা নয় পোলাওয়ের চালের মতো গন্ধ ছড়াতো একটি প্রাণী। তার নাম হচ্ছে গন্ধগোকুল। এরকম গন্ধ ছড়ায় বলেই এদের এমন নামকরণ করা হয়েছে। প্রাণীটিকে দেখার পর বাড়ির লোকেদের ভৌতিক ভয় চলে গেলে প্রাণীগুলোর উপস্থিতি সকলকে অসস্তিতে ফেলে দিচ্ছে। মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের কলেজ রোডস্থ একটি বাড়িতে গিয়ে এমন গল্পই শুনা যায়।

পরিবারের লোকজন এর সাথে কথা বলে জানা গেছে, ঘরের ছাদের সিলিং এ বাসা বেধে একটি গন্ধগকূল পরিবার অনেক দিন থেকেই আছে। সেখানে রয়েছে বড় দুটি গন্ধগকুল ও চারটি বাচ্চা। সারা দিন-রাত বাড়ির সিলিং এর ভিতর ছুটাছুটি করে বেড়ায় এই গন্ধগকুল গুলো। তাদের কারনে বাড়িতে থাকাটা একটা অস্বস্থিতে পরিনত হয়েছে বাড়ির লোকদের। মাঝে মাঝে বাশ দিয়ে সিলিং এ শব্দ করলে তারা কিছুক্ষণ শান্ত থাকে কিন্তু পরক্ষনেই আবার ছুটাছুটি করে। তাছাড়া বাড়িতে থাকা ছোট শিশুরা এই গন্ধগোকুল গুলোর জন্য সারক্ষন ভয়ে থাকে।

মো. শরিফ নামে এই বাড়ির একজন সদস্য এ প্রতিনিধিকে জানান, গন্ধগোকূল গুলো বনে থাকার কথা থাকলেও তাদের বাড়িতে বাসা বেধেছে। এই গন্ধগোকূল গুলোর যন্ত্রনায় বাড়িতে থাকাটা কঠিন হয়ে পড়ছে। অনেক সময় এই গন্ধগকুূল গুলো টয়লেট করে পুরো ঘর বাড়ি নোংরা করে দিচ্ছে। এই অবস্থায় গত বৃহস্পতিবার গন্ধগকুলের দুটি ছোট বাচ্চাকে আটক করে খাঁচায় রেখেছি। এখন বড়গুলোকে ধরতে পারলে বন বিভাগ কিংবা বন্যপ্রানী সেবা ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে বনে ছেড়ে দিয়ে আসার ব্যবস্থা করবো। বন্যপ্রাণীদের তো মারতে পারি না,তাই কষ্ট হলেও তাদের সাথেই বাস করছি।

শ্রীমঙ্গলস্থ বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক সজল দেব বলেন, আমরা ঐ বাড়িতে গিয়েছি। গন্ধগোকূল গুলো টিনের ছাদের নিচের সিলিং এর ভিতর। সেখান থেকে তাদের ধরাটা সহজ নয়। যেহেতু প্রাণীগুলো সুস্থ ও স্বাভাবিক তাদের ধরতে গেলেই পালিয়ে যায়। বাড়ির সদস্যরা গন্ধগোকূলের দুটি বাচ্চা ধরে খাঁচায় রেখেছেন। আমরা চেষ্ঠা করছি এই বাচ্চার মাধ্যমে বড় দুটি গন্ধগোকূলকে উদ্ধার করে বনে নিয়ে ছেড়ে দেবার।

বাংলাদেশ বন্যপ্রানী সেবা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সিতেশ রঞ্জন দেব প্রথম আলোকে বলেন, গন্ধগোকুল ঠরাবৎৎরফধব গোত্রের নিশাচর ও স্তন্যপায়ী প্রাণী। শরীরটা বিড়ালের ন্যায়, লেজ লম্বা ও মুখ দেখতে বেজি অথবা ভোঁদরের মতো। পশম ধুসর বা বাদামী বর্ণে হয়ে থাকে। শরীরে বিভিন্ন ধরনের রংয়ের সারি ও কালো ছোপ ছোপ দাগ থাকতে পারে। লম্বায় ১৬-৩৪ ইঞ্চি পর্যন্ত হয়ে থাকে। লেজের দৈর্ঘ্য ৫-২৬ ইঞ্চি হয়। সাধারণত ১.৫-১১ কিলোগ্রাম পর্যন্ত ওজনের হতে পারে এরা। বাংলাদেশে ৫টি প্রজাতি গন্ধগোকুল রয়েছে, যার মধ্যে ৩টি বিলুপ্তির পথে।

এরা একাকী নির্জন পরিবেশে থাকতে পছন্দ করে। সাধারণত গভীর রাতে শিকার এবং খাবার সংগ্রহের উদ্দেশ্যে বের হয়ে আসে। নিশাচর এ প্রাণীটি ভূমিতেই বেশি বিচরণ করতে স্বাচ্ছন্দবোধ করে। গন্ধগোকুল সর্বভুক, কিন্তু প্রাথমিকভাবে মাংসাশী প্রাণী। ইঁদুর, আম, কফি বীজ, আনারস, তরমুজ, কলা, ছোট পাখি, টিকটিকি, ছোট সাপ, ব্যাঙ, শামুক ইত্যাদি খাদ্যতালিকায় রয়েছে।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৫মার্চঃ  জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার পাঁচ বছরের কারাদণ্ড আরও বাড়াতে আপিল আবেদন করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। রোববার (২৫ মার্চ) হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ আবেদন করা হয়।

এর আগে দুদকের আইনজীবী অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম খান সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, ১৯ মার্চ বিকেলে দুর্নীতি দমন কমিশনের এক বৈঠকে আবেদনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

খালেদার সাজা বাড়িয়ে কত বছর চাওয়া হবে জানতে চাইলে খুরশিদ আলম খান বলেন, আইনে ৪০৯ ধারা অনুযায়ী সর্বোচ্চ সাজা যাবজ্জীবন হওয়ার বিধান রয়েছে।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন বিচারিক আদালত। একই সঙ্গে খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমানসহ মামলার অপর পাঁচ আসামির প্রত্যেককে ১০ বছর করে সশ্রমকারাদণ্ড দেয়া হয়। রায়ের পর থেকে নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে আটক রয়েছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

“পুলিশের তালিকায় এখনও নিখোঁজ আরো ৪ জন”

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১০সেপ্টেম্বর,হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ  হবিগঞ্জে নৌকা ডুবির ঘটনায় নিখোঁজ নারীসহ আরও দুই ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।
রোববার (১০ সেপ্টেম্বর) ভোররাতে জেলার বানিয়াচং উপজেলার খোয়াই নদীর শাহপুর ও রাধাপুর এলাকা থেকে এ দুটি লাশ উদ্ধার করা হয়।
জানা যায়, রোববার সকালে শাহপুর এলাকায় খোয়াই নদীতে নারীর লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয় লোকজন পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছে।
তাৎক্ষনিক নিহতদের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি। তবে এর মধ্যে একজন নারী রয়েছে বলে জানান স্থানীয় লোকজন।
পুলিশ জানিয়েছে কয়েকদিন পানির নিচে লাশ থাকায় পঁচে গিয়ে ‍বিকৃত হয়ে গেছে। এই মুহুর্তে লাশের পরিচয় সনাক্ত করা সম্ভব হচ্ছে না। একটু সময় লাগবে পরিচয় পেতে।
এদিকে সকাল ৮ টায় রাধাপুর এলাকায় আরো একটি লাশ ভেসে উঠার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ রওয়ানা দিয়েছে।
নৌকা ডুবির ঘটনায় এ পর্যন্ত ৬ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।
গত বৃহস্পতিবার (৭ সেপ্টেম্বর) সাড়ে ৮ টার দিকে লম্বাবাক এলাকায় নৌকা ডুবির ঘটনা ঘটে। রাতে হবিগঞ্জ শহরের চৌধুরী বাজার এলাকা থেকে ৩০ জন যাত্রী নিয়ে সিমেন্ট বোঝাই ইঞ্জিনের নৌকাটি সুজাতপুরের উদ্যোশে রওয়ানা দেয়। পথে আনোয়ারপুর এলাকার লম্বাবাক নামক স্থানে পৌঁছলে নৌকাটি ডুবে যায়। ঐ রাতেই তিন জনের লাশ উদ্ধার করে জনতা।
গত শনিবার আরও এক জনের লাশ ভেসে উঠে। পুলিশের তালিকায় এখনও নিখোঁজ রয়েছেন আরো ৪জন।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৮মার্চ,হাবিবুর রহমান খানঃ সিলেটের দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ি ‘আতিয়া মহল’ থেকে আজ সকালে অবশিষ্ট আরও দুইটি মরদেহও উদ্ধার করেছে সেনাবাহিনীর প্যারা-কমান্ডোরা। এখন লাশগুলো পুলিশের কাছে হস্তান্তর প্রক্রিয়া চলছে বলে জানা গেছে।তাদের কোন পরিচয় পাওয়া যায়নি। এর আগে মৃতদেহে থাকা সুইসাইডাল ভেস্ট অপসারণ করে সেনাবাহিনীর বোম ডিসপোজাল টিমের সদস্যরা।

তবে এ ঘটনায় কোন বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেনি। লাশ দুটির সুরতহাল আতিয়া মহলেই হবে বলে জানা গছে। পরে তাদের নেয়া হবে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করা হবে। সবাই প্রায় নিশ্চিত যে আতিয়া মহল এখন জঙ্গিমুক্ত।

এদিকে আতিয়া মহলকে কেন্দ্র করে শিববাড়ি এলাকার তিন বর্গ কিলোমিটার জুড়ে নিরাপত্তা আগের মতোই জোরদার রয়েছে। ১৪৪ ধারা বহাল থাকায় এ এলাকায় সাধারণ মানুষের চলাচল বন্ধ রয়েছে। সোমবার রাত এবং মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত শিববাড়ি এলাকায় আর কোন বিস্ফোরণ বা গুলাগুলির শব্দ শোনা যায়নি বলে জানান এলাকাবাসী।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc