Sunday 25th of October 2020 09:20:40 AM

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা কেন্দ্র,আকবরপুর,মৌলভীবাজার এর আয়োজনে “ওয়ার্কশপ কাম প্রশিক্ষণ ও চারা বিতরণ” অনুষ্ঠানে স্থানীয় প্রশিক্ষনার্থিরা বৃহস্পতিবার (১২ জুলাই) দিন ব্যাপী মাঠ প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ করেন।

উক্ত প্রশিক্ষণ কর্মশালা ও চারা বিতরন অনুষ্টানে উপস্থিত ছিলেন মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডঃ মোঃ জসিম উদ্দীন,ডঃ মোঃ আলমগীর হোসেন প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা, ডঃ মোঃ সরফ উদ্দীন উর্ধতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা। এ সময় ১৫০ কৃষককে ১০টি করে বারী জাতের ফলের চারা বিতরণ করা হয়।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৮মার্চ,জাহাঙ্গীর আলম ভুঁইয়া,সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃসুনামগঞ্জ-সিলেট আ লিক মহাসড়ক, দিরাই মদনপুর সড়ক ও সাচনাবাজার-সুনামগঞ্জ সড়কের খানা খন্দ আর রাস্তার চারপাশে মাটি ভরাটসহ পুর্ণ নির্মানের দাবীতে ধর্মঘট অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে সুনামগঞ্জ জেলা বাস,অটোরিক্সা,সিএনজি মালিক সমিতি। কোন পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই রবিবার সকাল থেকে শুরু হয় ধর্মঘট,মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দর প্রচেষ্টায় দিরাই বাস্টেন্ড থেকে শুরু করে প্রত্যেক মুড়ে গাড়ী চলা বন্ধ করতে অবস্থান নিয়েছিলেন সমিতির কর্মীরা।

এ কারণে দিন ব্যাপী জনদূর্ভোগ দেখা দেয় দিরাই-সুনামগঞ্জ, সিলেট ও সাচনাবাজার-সুনামগঞ্জ সড়কে আগত যাত্রীদের। সকাল থেকে যাত্রীদের গন্তব্যে পৌছতে না পাড়া ও সিলেট সুনামগঞ্জ থেকে বাড়ীতে না ফিরতে পারায় চরম দুর্ভোগে পড়েন যাত্ররা। এরমধ্যে দুপুর ১২টায় বাস মালিক সমিতির নেতারা সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপদ বিভাগের কার্যালয় ঘেরাও করেন। তবে কর্তৃপক্ষের আশ^াসের ভিত্তিতে ঘেরাও কর্মসূচী পরবর্তীতে প্রত্যাহার করা হয়।
জানা যায়,সুনামগঞ্জ-সিলেট সড়কের বেহাল অবস্থা দূর করার জন্য ২০১৬সালের ডিসেম্বর মাসে প্রথম দরপত্র আহ্বান করা হয়। ৮০কোটি টাকা ব্যয়ে দুটি প্যাকেজের এই দরপত্রে ম্যানুয়েল ত্রুটি থাকায় দরপত্র স্থগিত করে পুনরায় সংশোধিত দরপত্র আহ্বানের নির্দেশ দেয় মন্ত্রণালয়। ২০১৭সালে জানুয়ারি মাসে আবার মার্কিন সিস্টেমে দরপত্র আহ্বান করা হয়। অংশগ্রহণ করেন ৫জন ঠিকাদার। সর্বনি¤œ দরদাতা হয় জয়েন্টভে ারে তমা কন্সট্রাকসন ও সজিব রঞ্জন দাস। সওজ’র উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে এই দরপত্রও বাতিল করা হয়। সওজ’র সিলেটের সুপারেন্টেড অফিস গত এপ্রিল মাসে তৃতীয় দফায় দরপত্র আহ্বান করে। এই দরপত্র গ্রহণের আগে পূবের সর্বনিম্ন দরদাতা ঠিকাদার সজিব রঞ্জন দাস বাদী হয়ে আদালতে রীট করেন। আদালত দরপত্র কার্যক্রমের উপর স্থগিতাদেশ জারি করেছে।
শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নুরুল হক বলেন, প্রধানমন্ত্রী সুনামগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কের উন্নয়নে আন্তরিক, ১৪ টি নতুন সেতু হয়েছে এই সড়কে। সড়ক প্রসস্তকরণের জন্য বরাদ্দও দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এখনো কোন কাজ হচ্ছে না। অভ্যন্তরীণ সড়কেরও বেহাল অবস্থা। এই অবস্থায় যান চলাচল অব্যাহত রাখা কঠিন হয়ে পড়েছে। বাধ্য হয়ে পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দিয়েছি আমরা।
জেলা বাস মিনিবাস মালিক গ্রুপের মহাসচিব মোহাম্মদ জুয়েল মিয়া জানান,এই রাস্তাগুলো প্রশস্ত না হওয়ায় জীবনের ঝুকি নিয়ে বাস মিনিবাসগুলো চলতে হয়েছে। তাই মূলত শুধু যানবাহনের দিক বিবেচনা করেই নয় বরং সাধারন যাত্রীদের জানামলের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করেই রাস্তাগুলো সংস্কারের দাবীতে এই আন্দোলনে নামা।
এই রাস্তার ৮ কিমি দিরাই-শাল্লার এমপি সুরঞ্জিত সেন গুপ্তর সহধর্মীনী ড. জয়া সেনগুপ্তা’র নির্বাচনী এলাকা। অপর ১৬ কিমি সড়কে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান’র নির্বাচনী এলাকা। সরকারের এই দুই প্রভাবশালী এমপি ও প্রতিমন্ত্রী থাকা সত্বেও দিরাই-মদনপুর সড়কের উন্নয়নের ক্ষেত্রে অনেকটা পিছিয়ে রয়েছে বলে জানান এই সড়কের চলাচলের যাত্রীর। এ কারণেই হাওর পাড়ের লাখা-লাখ মানুষ চলাচলে ও ক্ষেত্রে চরম দূর্ভোগ পোহাচ্ছেন।
রাস্তার খানা খন্দের কারণে প্রতিনিয়ত দূর্ভোগের সাথে তুমুল যুদ্ধ করে ঢাকা-সিলেটসহ সুনামগঞ্জ যেতে হয় মানুষজনের। কুমল মতি শিক্ষার্থী ও গর্ভবতী মহিলাদের এক আতংকের নাম দিরাই-মদনপুর সড়ক। অনেকেই দিধাবোধ করেন এই সড়ক দিয়ে যাত্রা করতে। রাস্তার মাঝে-মাঝে গর্ত ও চার পাশে মাঠি বিহীন থাকায় প্রতিদিন ঘটছে অসংখ্য ছোট বড় দূর্ঘটনা। দিরাই-মদনপুর সড়কের বেহাল দশার কারনে অবর্ণনীয় দুর্ভোগে আছেন যাত্রী সাধারণ।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্জ্ব আবুল কালাম বলেন, দিরাই-মদনপুর সড়কের কিছু অংশ ভালো কিছু অংশ ভাঙ্গা। অনেক স্থানেই রাস্তার পাশে মাচের চাষ করার জন্য রাস্তার মাঠি সড়ে রাস্তা দুর্বল হচ্ছে। বর্যায় এই রাস্তার অবস্থা আরো খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। প্রশাসন দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে ভবিষ্যতে রাস্তা আরো ভাঙ্গবে। সংষ্কারের জন্য জেলার সমন্বয় সভায় বারবার বলা হচ্ছে আশা করি সংষ্কারের ব্যবস্থা হবে।
এ ব্যাপারে সড়ক জনপথ বিভাগের সুনামগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: শফিকুল ইসলাম জানান,সাচনাবাজার-সুনামগঞ্জ সড়কে এক অংশে সংষ্কার কাজ চলমান অবস্থায় রয়েছে, বাকী অংশ টে-ার হয়েছে দুইটা মিলে ১ কোটি টাকা বরাদ্দ পেয়েছি আশা করি ১৫ দিনের মধ্যেই বাকী কাজ শুরু হবে। দিরাই-মদনপুর সড়কের কাজও প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৫মার্চ,চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ  “পরিচয় হীন নয় স্ব- পরিচয়ে বাঁচতে চাই।” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে চুনারুঘাট উপজেলার আমু চা-বাগানে অনুষ্ঠিত হয়েছে  আ লিক উরাঁও সম্মেলন ও মিলন মেলা ২০১৭। ২৪ ফেব্রুয়ারী সকাল ৯টায় বাংলাদেশ ওরাঁও ছাত্র সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত দেশের  বিশ জেলার ওরাঁও বা উরাং সমাজের এই মহামিলন মেলার শুভ উদ্বোধন করেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবেদ হাসনাত চৌধুরী সনজু। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, সিলেট শাহ জালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডঃ এম, এম ফারুক, ওরাঁও গবেষক স্বপন রেজা, গল্পকার নাহিদা আশরাফি, কবি সোহাগ সিদ্দিকী, মাস্টার রানা প্রসাদ ঘোষ ও প্রমূখ। বক্তারা, ওরাঁও সমাজের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির উপর আলোকপাত করেন। এরপর, ওরাঁও সংলাপ, ওরাঁও গান, ওরাঁও নৃত্য প্রীতি ভোজের আয়োজন করা হয়।

বিকাল ৪ঘটিকায় অনুষ্ঠিত হয় সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান ও আলোচনা সভা। ওরাঁও নেতা  প্রশান্ত কেরকেটা’র সভাপতিত্বে ও জুনেশ ওরাঁও’ স ালনায় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, হবিগন্জ জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রোকন উদ্দিন। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, চুনারুঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের, উপজেলা নির্বাহী অফিসার সিরাজাম মুনিরা, সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাহিদ হাসান খাঁন, বেলায়েত হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও সাবেক পিপি এডঃ আকবর হোসেন জিতু, প্রাক্তন ইউপি  চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আঃ লতিফ, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি অধ্যক্ষ আলা উদ্দিন, ওরাঁও ছাত্র সংগঠন কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মিলন কুজোর, সম্মেলন ও মিলন মেলার আহবায়ক হরেন্দ্র মিনজ ওরাঁও প্রমূখ।

উপস্থিত ছিলেন, সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আলহাজ্ব আঃ রহমান আজাদ, উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি শাহ জাহান চৌধুরী, চুনারুঘাট রিপোটার্স ইউনিটির সভাপতি নুরুল আমিন, সাংবাদিক ফোরাম সভাপতি আঃ রাজ্জাক রাজু, আওয়ামীলীগ নেতা প্রভাষক আবু নাসের, সমাজ সেবক জাকির হোসেন পলাশ, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সহ-সভাপতি মাসুদ আহমেদ, ছাত্র-নেতা কামরুল হাসান শামীম প্রমূখ সহ সহস্্রাধিক ওরাঁও জনগোষ্ঠী। সভায়, ওরাঁওরা তাঁদের বক্তব্য কালে, ওরাঁও এবং উরাং মূলত একই সমাজের আদিবাসী জনগোষ্ঠী বলে সকলকে অবহিত করে তাদেরকে আদিবাসী কোটার  বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা প্রদান,  সরকারি ভাবে তাদের সংস্কৃতি চর্চা ও  ঐতিয্য সংরক্ষণ করার ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানান।

প্রধান অতিথি রোকন উদ্দিন তাঁর বক্তব্য কালে বলেন, বাংলাদেশের প্রত্যেক নাগরিকের অধিকার ও সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করণের কথা পবিত্র সংবিধানে রয়েছে। যার জন্য কাউকে আলাদা ভাবে চিন্তা করতে হবে না। ওরাঁও এবং উরাং এর ব্যাপারে তিনি বলেন, এর সমাধান করবে ওরাঁও সমাজ নিজেরা মিলে। সবশেষে তিনি স্থানীয় জন প্রতিনিধি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে ওরাঁওদের ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও সংস্কৃতি চর্চার ব্যবস্থা করনের সুপারিশ করেন।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৫মার্চঃ   সচেতন,সংগঠিত ও সোচ্চার  জনগোষ্ঠী গণতন্ত্রের রক্ষাকবচ স্লোগানকে সামনে রেখে ৪ মার্চ সিলেটের হোটেল ফরচুন গার্ডেনে অনুষ্ঠিত হলো সুজন-সুশাসনের জন্য নাগরিক‘র আ লিক পরিকল্পনা সভা,উক্ত পরিকল্পনা সভায় অংশ নেয় সিলেট অ লের ৪ টি জেলা সিলেট, মৌলভিবাজার, সুনামগঞ্জ, ও হবিগঞ্জ’র সুজন নেতৃবৃন্দ। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় সুজন সম্পাদক ও স্থানীয় সরকার বিশেজ্ঞ ড বদিউল আলম মজুমদার ,কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারী দিলিপ কুমার সরকার, সুজন সুনামগঞ্জ সমন্বয়কারী আব্দুল হালিম, সিলেট সমন্বয়কারী এএসএম আখতারুল ইসলাম এবং সুজন সহযোদ্ধা রঞ্জীদ মৃধা সহ অন্যান্যরা

জাতীয় সংগীত দিয়ে পরিকল্পনা সভার কার্যক্রম শুরু হয় । এরপর পরিচয় পর্ব শেষে স্বাগত বক্তব্য স্বাগত বক্তব্য দেন সুজন  সিলেট জেলা  কমিটির ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক এড. শাহ শাহেদা, সভায় সভাপতিত্ব করেন আজিজ আহমদ সেলিম। এরপর শোক প্রস্তাব ও বিগত বছরের কার্যক্রম বর্ণনা শেষে কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারীর উপস্থাপনায় উন্মক্ত আলোচনা সভা শুরু হয়। উন্মক্ত আলোচনা সভায় অংশ নেন সুনামগঞ্জ জেলা সুজন সভাপতি হোসেন তৌফিক চৌধুরী,মৌলভীবাজার সুজন সভাপতি ডাঃ সাদিক আহমদ, সম্পাদক জহর লাল দত্ত, হবিগঞ্জ জেলা সহসম্পাদক এএসএম মহসিন চৌধুরী সহ- মেসবাহুল বারী, জালাল উদ্দিন রুমি, জিয়া উদ্দিন দুলাল, মোঃ আমিন উদ্দিন, খালেদ আহমদ, রাধিকা রঞ্জন তালুকদার, ইকবাল হোসেন স্বপন, সাংবাদিক উজ্জ্বল মেহেদি, চৌধুরী দেলওয়ার হোসেন জিলন, সাইদুর রহমান সাইদ সহ অন্যান্যরা মুক্ত আলোচনায় অংশ নিয়ে সুশাসন প্রতিষ্ঠার আন্দোলনকে আরো বেগবান করার মাধ্যমে বাংলাদেশকে এগিয়ে নেওয়ার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

পাশাপাশি স্থানীয় নাগরিক সমস্যা ,পরিবেশ দূষন ও দূর্নীতির বিরুদ্ধে সুজনের উদ্যোগে আরো জোরালো পদক্ষেপ প্রয়োজন বলে মতামত ব্যক্ত করেন। এরপর সুজন নেতৃবৃন্দ জেলা ভিত্তিক বার্ষিক পরিকল্পনা প্রনয়ন ও উপস্থাপন করেন। প্রধান অথিতি ড. বদিউল আলম  মজুমদার- তার বক্তব্যের শুরুতে সবাইকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

উপস্থাপিত পরিকল্পনা যাতে সফল ভাবে বাস্তবায়িত হয় সেলক্ষ্যে সবাইকে  একত্রে সমন্বিতভাবে কাজ করার জন্য অনুরোধ করেন। পাশাপাশি তিনি বলেন আমাদের আন্দেলন সরকার বা কোন দলের বিপক্ষে নয় বরং সুশাসন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে দূর্নীতি মুক্ত গনতান্ত্রিক বাংলাদেশ গড়া আমাদের লক্ষ্য। সমাপনীতে সভাপতি সবাইকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন সবার সুস্বাস্থ্য কামনা করে সভার সমাপ্তি ঘোষনা করেন।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc