Wednesday 21st of October 2020 02:27:07 PM

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৯ফেব্রুয়ারি,ডেস্ক নিউজঃ  মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় এখনও যেসব রোহিঙ্গা মুসলমান রয়ে গেছেন তাদেরকে অনাহারে মারা হচ্ছে। তাদের জন্য এখন এমন এক পরিস্থিতির সৃষ্টি করা হয়েছে যাতে তারা দেশ ত্যাগ করতে বাধ্য হয়। দেশটির সেনাবাহিনী এ নির্মমতার সঙ্গে জড়িত। রোহিঙ্গাদের ওপর চলমান সহিংসতা নিয়ে নতুন তথ্যপ্রমাণের ভিত্তিতে তৈরি করা এক প্রতিবেদনে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এসব তথ্য জানিয়েছে।খবর পার্সটুডে
গত জানুয়ারির শেষ দিকে লন্ডনভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থাটি বাংলাদেশে নতুন করে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মধ্যে ১৯ জনের সাক্ষাৎকার নিয়েছে। রাখাইনে সেনাবাহিনীর চাপিয়ে দেওয়া ক্ষুধা এবং অব্যাহত অপহরণ ও লুটতরাজের মুখে কীভাবে তারা পালাতে বাধ্য হয়েছেন, সাক্ষাৎকারে সেসব কথা উঠে এসেছে।
অন্যান্য মানবাধিকার সংস্থাও গত ডিসেম্বর ও জানুয়ারি মাসজুড়ে রাখাইন থেকে পালানো হাজারো রোহিঙ্গার বিষয়ে তথ্য নথিভুক্ত করেছে। সীমান্ত পেরিয়ে এখনো রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে প্রবেশ অব্যাহত আছে।
অ্যামনেস্টি বলেছে,মিয়ানমারের কর্তৃপক্ষ রোহিঙ্গাদের সম্পদ লুট করছে; তাদের অপহরণ করছে; নারী-পুরুষ-শিশুকে অনাহারে থাকতে বাধ্য করছে। এসব কর্মকাণ্ডের লক্ষ্য,এই গোষ্ঠীর জন্য এমন একটি অসহনীয় পরিস্থিতি তৈরি করা যাতে তারা দেশ ছেড়ে পালিয়ে যায়।
মিয়ানমারের সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে জাতিগত শুদ্ধি অভিযান অব্যাহত রেখেছে বলে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল জানিয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশে পালিয়ে যাওয়ার সময় বিভিন্ন তল্লাশিচৌকিতে রোহিঙ্গাদের অর্থকড়ি ও অন্যান্য জিনিসপত্র লুটে নিচ্ছে নিরাপত্তা বাহিনী। গ্রামে গ্রামে রোহিঙ্গা বাড়িঘরে গিয়ে তাদের নারী ও তরুণীদের অপহরণও করছে।
ফলে দেশ ছাড়তে মরিয়া হয়ে উঠছে তারা। রোহিঙ্গারা বলছে,বহুমুখী নির্যাতনের ঘটনার মধ্যে প্রধানত খাদ্যাভাবই সবচেয়ে কঠিন বিষয় হিসেবে দেখা দিয়েছে। অ্যামনেস্টি বলেছে, এ খাদ্যসংকট সৃষ্টির পেছনে বড় ভূমিকা রেখেছে নিরাপত্তা বাহিনীর কর্মকাণ্ড। তারা রোহিঙ্গাদের নিজেদের খেতখামারে যেতে দিচ্ছে না। যেতে দিচ্ছে না বাজারঘাটে। মানবিক ত্রাণ গ্রহণের সুযোগ থেকেও বঞ্চিত করছে।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৫মার্চ,মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া,সুনামগঞ্জ: সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার সীমান্ত নদী যাদুকাটা। এই নদীর মাঝ থেকে কুদাল ও বেলছা দিয়ে বালি ও পাথর উত্তোলন করে জীবিকা নির্বাহ করে থাকে প্রায় অর্ধলক্ষাধিক পুরুষ ও নারী শ্রমিক। কিন্তু নদীর মাঝ থেকে বালি ও পাথর উত্তোলন করা বন্ধ করে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। ফলে শ্রমিকরা তাদের পরিবার-পরিজন নিয়ে অনাহারে দিন যাপন করছে। তাদের এই দুঃখ দূর্দশা দেখার কেউ নেই। অথচ স্থানীয় প্রভাবশালীরা অবৈধভাবে ড্রেজার ও বোমা মেশিন দিয়ে যাদুকাটা নদীর তীর কেটে বালি ও পাথর উত্তোলন করে প্রতিদিন লক্ষলক্ষ টাকা বিক্রি করেছে। তারপরও নেওয়া হচ্ছে না আইনগত কোন পদক্ষেপ।

এব্যাপারে স্থানীয়রা জানায়,এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তিরা তাদের অবৈধ কর্মকান্ড চালিয়ে যাওয়ার জন্য গত কয়েক মাস ধরে এলাকায় গ্রুপিং তৈরি করে রেখেছে। এবং উপজেলা প্রশাসনকে দিয়ে আইনি জটিলতা সৃষ্টি করে যাদুকাটা নদীর মাঝে শ্রমিকদের কোন কাজ করতে দিচ্ছে না। অন্যদিকে প্রভাবশালী ব্যক্তিরা উপজেলার মাহারাম ও গাগটিয়া এলাকায় অবৈধভাবে ড্রেজার ও বোমা মেশিন দিয়ে অবাধে নদী তীর কেটে বালি-পাথর উত্তোলন করে প্রতিদিন লক্ষলক্ষ টাকা বিক্রি করেছে। কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদের বিরুদ্ধে আজ পর্যন্ত নেওয়া হয়নি আইনগত কোন পদক্ষেপ। আর যে সকল শ্রমিকরা মাথার গাম পায়ে ফেলে কুদাল ও বেলছা দিয়ে নদীর মাঝ থেকে বালি-পাথর উত্তোলন করে তাদের সংসার চালাচ্ছে তাদের কাজ বন্ধ করে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। ফলে অসহায় শ্রমিকদের জীবনে নেমে এসেছে ভয়াবহ দূর্ভিখ। কিন্তু যুগ যুগ ধরে শ্রমিকরা উন্মুক্ত ভাবে কোন প্রকার বাঁধা ছাড়াই যাদুকাটা নদীর মাঝ থেকে বালি-পাথর উত্তোলন করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে।

এব্যাপারে শ্রমিকরা জানায়,দীর্ঘদিন যাবত যাদুকাটা নদীটি বন্ধ থাকায় ক্ষুধার জ্বালা সইতে না পেরে শ্রমিকরা উপজেলা প্রশাসন ও জেলা প্রশাসক বরাবর একাধিক বার আবেদন নিবেদন করেছে। কিন্তু তাতে কোন সুফল পায়নি শ্রমিকরা। অবশেষে নিরুপায় হয়ে শ্রমিকদের প্রতিনিধি হয়ে লাউড়গড় গ্রামের নারী শ্রমিক আম্বিয়া বেগম বাদী হয়ে হাইকোর্টে রিট পিটিশন নং-২৬৮৫/২০১৭ইং দায়ের করেন। এই পিটিশনের প্রেক্ষিতে গত ৭ই মার্চ হাইকোর্টের বিচারপতি মোছাঃ নাইমা হায়দার ও আবু তাহের মোঃ সাইফুর রহমান যাদুকাটা নদীতে শ্রমিকদের ৬মাসের জন্য কাজ করার নির্দেশ দেন। আর এই রায় পেয়ে শ্রমিকরা তাদের পরিবার-পরিজনদের ক্ষুধা নিবারণের জন্য আবারও যাদুকাটা নদীতে বালি-পাথর উত্তোলনের কাজ করতে যায়। কিন্তু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নদী তীর কাটা বন্ধ না করে নদীর মধ্য থেকে কুদাল,বেলছা ও দেশীয় যন্ত্রপাতি দিয়ে বালি-পাথর উত্তোলন করা বন্ধ করে দেন। এর ফলে প্রায় অর্ধলক্ষাধিক বালি-পাথর উত্তোলনকারী শ্রমিকরা আবারও বেকার হয়ে পড়ে।

এব্যাপারে নারী শ্রমিক সুজাতা বেগম,খালেদা বেগম,রহিমা বেগম বলেন-যাদুকাটা নদীতে পাথর ও কয়লা উত্তোলন করে প্রতিদিন ৩ থেকে ৫শত টাকা বিক্রি করে সংসার চালাতাম। কিন্তু নদীটি বন্ধ করে দেওয়ায় ছেলে-মেয়ে নিয়ে না খেয়ে দিন যাপন করছি। পাথর শ্রমিক আব্দুর রহমান,বজলুর রহমান,বিল্লাল হোসেন,আবুল কাসেমসহ আরো অনেকে বলেন-আমাদের এলাকায় যাদুকাটা নদী ছাড়া আর কোথাও কাজ করার কোন সুযোগ না থাকায় স্ত্রী সন্তান নিয়ে না খেয়ে থাকতে হচ্ছে। নদীর মাঝে কাজ করতে বাঁধা দিলে আমরা আন্দোলনে নামতে বাধ্য হব।

লাউড়গড় বালি-পাথর ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ওসমান গনি ও বাদাঘাট ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন বলেন,পাহাড়ি ঢলের সাথে ভেসে আসা বালি ও পাথর নদীর মাঝ থেকে উত্তোলন করে প্রায় অর্ধলক্ষাধিক শ্রমিক তাদের জীবিকা নির্বাহ করে থাকে। কিন্তু প্রশাসন নদীটি বন্ধ করে দেওয়ায় শ্রমিকদের জীবনে নেমে এসেছে ভয়াবহ দূর্ভিখ।

উপজেলা চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল বলেন,আমি সরেজমিন যাদুকাটা নদীর চরে গিয়ে দেখেছি শ্রমিকরা কত কষ্ঠ করে বালি থেকে কয়লা ও পাথর উত্তোলন করে। কিন্তু নদীটি বন্ধ থাকায় শ্রমিকরা সীমাহীন কষ্টের মধ্যে রয়েছে। এব্যাপারে আমি ও আমার পরিষদের সকল সদস্যরা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে উপস্থিত হয়ে অসহায় শ্রমিকদের কর্মসংস্থানের একমাত্র অবলম্বন যাদুকাটা নদীটি উন্মুক্ত রাখার জন্য দাবী জানিয়েছি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম বলেন,আদালতের রায়ের বিষয়টি আমার জানা নেই,আমি যাদুকাটা নদী পরিদর্শনের গিয়েছিলাম শ্রমিকদের কাজে কোন প্রকার বাঁধা দেইনি।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc