Sunday 28th of February 2021 12:27:08 PM

নড়াইল প্রতিনিধিঃ এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে নড়াইল সদর উপজেলার হবখালী ইউনিয়নের চরসিংঙ্গিয়া গ্রামে প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে সাবু মোল্যা (৩২) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। সাবু পার্শ্ববর্তী কোমখালী গ্রামের শফিয়ার মোল্যার ছেলে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সাবু মোল্যা সিংঙ্গিয়া বাজার থেকে বাড়িতে যাওয়ার পথে চরসিংঙ্গিয়া এলাকায় পৌঁছালে প্রতিপক্ষের লোকজন তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে পালিয়ে যায়। স্থানীয় লোকজন সাবুকে উদ্ধার করে নড়াইল সদর হাসপাতালে আনলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষণা করেন।সাবু মোল্যার পরিবারের অভিযোগ, প্রতিপক্ষের বাদশা, ইকবাল, সোহেল, আলামিনসহ কয়েকজন দুর্বৃত্ত সাবুকে কুপিয়ে হত্যা করে।
নড়াইল সদর থানার ওসি ইলিয়াস হোসেন পিপিএম জানান, ময়নাতদন্তের জন্য সাবুর মরদেহ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। হত্যাকান্ডে জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি: মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য, আপনার একটু সাহায্যে বাঁচতে পারে নওগাঁর আত্রাই উপজেলার দিনমজুর পরিবারের অসহায় কন্যা ছনিয়া।

নওগাঁ জেলার আত্রাই উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের আটগ্রাম ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের হতদরিদ্র খেটে খাওয়া দিন মজুর শহীদুল ইসলামের কন্যা ছনিয়া (১৬)। সে দীর্ঘ ৬বছর যাবৎ ব্রেন টিউমারে ভুগছে। দিন মুজুর বাবা মেয়েকে বাঁচাতে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

জানা যায়, দিন মুজুর পিতা শহীদুল ইসলাম প্রথমে নওগাঁ মেডিফেয়ার ডিজিটাল ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে, পরবর্তীতে রাজশাহী ও বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মানসিক ও ব্রেণ রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. আলতাফ হোসেন মন্ডলকে দেখানোর পর তিনি জানিয়েছেন, ছনিয়ার ব্রেনে টিউমারের সৃষ্টি হয়েছে। এবং ব্রেনে ইনফেকশন সে ক্ষেত্রে অপারেশন ছাড়া তাকে বাঁচানো সম্ভব নয় এবং জরুরি ভিত্তিতে শিশুটিকে উন্নত চিকিৎসা নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। অন্যথায়, তার জীবন নাশের আশংকা রয়েছে। অসহায় ছনিয়ার শারীরিক সমস্যা দিন দিন জটিল থেকে জটিলতর হচ্ছে।

এদিকে দিন মজুর শহীদুল বিভিন্ন জায়গায় চিকিৎসা করে এ পর্যন্ত প্রায় দেড় লাখ টাকা ব্যয় করেছে । বর্তমানে অপারেশেন করতে প্রায় ৩ লাখ টাকার প্রয়োজন হওয়ায় তার পক্ষে এই ব্যয় বহন করা অসম্ভব হয়ে পড়েছে । টাকার অভাবে তার চিকিৎসা বর্তমানে বন্ধ রয়েছে। অসহায় ছনিয়ার চিকিৎসার জন্য প্রায় ৩ লাখ টাকার প্রয়োজন কিন্তু হতদরিদ্র দিনমুজুর শহীদুলের পক্ষে চিকিৎসা ব্যয় বহন করা সম্ভব হচ্ছে না।

এমতাবস্থায় অসহায় হতদরিদ্র পিতা-মাতা ছনিয়ার সুচিকিৎসার জন্য সমাজের বিত্তবান, হৃদয়বান ও দানশীল ব্যক্তির সাহায্য কামনা করেছেন।

অসহায় মেয়েটিকে বাঁচাতে সাহায্য পাঠাতে পারেন আপনিও। ছনিয়ার চিকিৎসার সাহায্য দিতে সরাসরি যোগাযোগ মোবাইল নাম্বার বিকাশ, নগদ, রকেট- ০১৩০২-৮৪১৮৬২।

নোট- সংবাদটির কোন দ্বায় দায়িত্ব পত্রিকা কর্তৃপক্ষ বহন করে না।

বিশেষ প্রতিবেদক,মৌলভীবাজার: আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে লালন করে সাহসের সাথে সৎ পথে চলতে শিখেছি,ছাত্রলীগের সাথে সম্পর্কটা রক্তের। আফসোস লাগে বঙ্গবন্ধুর নিজ হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগকে যখন কেউ নিজ স্বার্থে সন্ত্রাসী কার্যকলাপে ব্যবহার করে। পিস্তল হাতে নিয়ে আরেক ছাত্রলীগ ভাইয়ের বুকে তাক করার নীতি আপনাকে কে শিখিয়েছে.? তার পরিচয় চাই,যে হাতে কলম থাকার কথা সে হাতে পিস্তল কে ধরিয়ে দিয়েছে জবাব চাই। এমনটাই বলছেন জেলা ছাত্রলীগের অনেক কর্মী তাদের ফেইজবুক ফেইজে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রলীগ কর্মীর অভিভাবক বলেছেন, ছাত্রদের হাতে কলম দেয়ার নামে পিস্তল তুলে দেয় এমন ছাত্রলীগ সংগঠন প্রযোজন নেই ,আমরা জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আর্দশকে সম্মান জানিয়ে আওয়ামীলীগ সমর্থন করি,আমার ছেলেকে বলেছি ছাত্রলীগ করো যে সংগঠন বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া।এখন তো ভয় হচ্ছে,রাজনগরের এই সঙ্ঘর্শে শুধু ছাত্রলীগ নয় স্কুলে পড়ুয়া ছেলেদের হাতে অস্ত্র যা আমরা সরাসরি দেখেছি।
রাজনগরে প্রকাশ্য দিবালোকে গুলাগুলি, গ্রুপিং দ্বন্দের জেরে অস্ত্রের মহড়া নিয়ে সন্ত্রাসী কার্য-কলাপে লিপ্ত হয় যুবলীগ ছাত্রলীগ নামধারীরা। রাজনগর, দিনে দিনে বাড়ছে সন্ত্রাসীদের তান্ডব, ভঙ্গ করছে সাংগঠনিক নীতিমালা, ক্ষুন্ন হচ্ছে আওয়ামীলীগ যুবলীগ ছাত্রলীগের ভাবমূর্তি, প্রকাশ্য দিবালোকে মানুষ হত্যার লক্ষ্যে অস্ত্রের মহড়া বেড়েই যাচ্ছে সন্ত্রাসী মহলের।
উল্লেখ্য ১১ই ফেব্রুয়ারি রাজনগর উপজেলা পরিষদের সম্মুখে রাজনগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মিলন বখত এর নেতৃত্বে সন্ত্রাসী হামলায় পিস্তল এবং শটগানসহ দেখা যায় রাজনগর উপজেলার ছাত্রলীগ সভাপতি রুবেল আহমেদকে, রাজনগর উপজেলার যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ফৌজি, রাজনগর উপজেলার যুবলীগের সহ-সভাপতি সিজু আহমেদ। সন্ত্রাসী কার্যক্রমে সম্মুখে থেকে আরো নেতৃত্ব দেয় ছালেক আহমদ ,নজমুল হক সেলিম,সাবেক জাসদ নেতা ময়নু খান।সাংগঠনিক নীতিমালা লংঘন করে কিভাবে অস্ত্র নিয়ে ওপেন গোলাগুলি হয় মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার আওয়ামী যুবলীগ ছাত্রলীগ ছত্রছায়ায়? প্রশ্ন এখন সাধারণ মানুষের।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইজবুকে আরো বলছেন গ্রুপিং দ্বন্দ থাকতে পারে তবে ওপেন গোলাগুলি ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সাংগঠনিক পরিচয় মানায় না, যুবলীগের বিধানে আছে কোন অস্ত্র সন্ত্রাসী মাদক ব্যবসায়ী মাদকসেবী আওয়ামী যুবলীগে ঠাঁই পাবে না। রাজনগর উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি সিজু আহমেদ শটগান নিয়ে ওপেন গুলি করছেন -দ্বিতীয় ব্যক্তি রাজনগর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রুবেল আহমদ পিস্তল নিয়ে গুলি করছেন। কোথায় জেলার ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকরা ? তারা কি দেখেও না দেখার বান করছেন। যদি এভাবেই সংগঠনে সন্ত্রাসীদের টাই দেওয়া হয় তাহলে সংগঠনের সোনাম প্রতিনিয়ত নষ্ট হয়ে যাবে। তাই সাংগঠনিক নাম লাগিয়ে সন্ত্রাসী কার্যকলাপ লেবাসধারী ছাত্রলীগ যুবলীগ করার অধিকার নেই অতিদ্রুত বহিষ্কার প্রধানের আবেদন ও উপজেলা ছাত্রলীগ আজীবনের জন্য স্থগিত করা হোক। বহিস্কারের পাশাপাশি এসব সন্ত্রাসীদের আইনের মাধ্যমে এনে বিচার করা হোক। মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আমিনুল ইসলাম চৌধুরী আমিন কে এই প্রতিনিধি একাদিক মোবাইল ফোন করলেও সে ফোন ধরেনি।

উন্নয়ন ও সমৃদ্ধিতে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াচ্ছে। এই অবস্থায় একটা আঘাত আসার আশঙ্কা রয়েছে। সেজন্য দেশবাসীকে সবধরনের ষড়যন্ত্র সম্পর্কে সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা (জুলাই, ২০২০-জুন, ২০২৫) দলিলের মোড়ক উন্মোচন উপলক্ষে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)-এর সভার প্রারম্ভিক ভাষণে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। খবর বাসসের।
তিনি গণভবন থেকে শেরে বাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত বৈঠকে ভিডিও কনফারেন্সের সাহায্যে ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণ করেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা লক্ষ্য করবেন, বাংলাদেশের মানুষের যখন একটু ভালো সময় আসে, মানুষ একটু ভালো থাকার স্বপ্ন দেখতে শুরু করে, জীবন-মান একটু উন্নত হয় তখনই কিন্তু একটা আঘাত আসার আশংকা থাকে। সেই কারণেই সকলকে একটু সতর্ক থাকা দরকার।’
১৫ আগস্টের বিয়োগান্তক অধ্যায়ের কথা স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ গড়ে তুলে জাতির পিতা যখন অর্থনৈতিক উন্নয়নের দিকে পা বাড়াচ্ছিলেন, দেশটা উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাবে সেই সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে এবং তার সুফলও মানুষ পেতে শুরু করেছে, মানুষ একটু খুশি এবং স্বস্তিতে, ঠিক সেই সময়ে কিন্তু ১৫ আগস্টের ঘটনাটা ঘটলো।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘একটা বিষয় আমি সবসময় স্মরণ করাতে চাই, যখন বাংলাদেশে একটি সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে-জিনিসপত্রের দাম মানুষের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে রয়েছে, ব্যাপকভাবে ফসল উৎপাদনের প্রস্তুতি এবং সেটা হওয়ারও সম্ভাবনা দেখা গেছে, কলকারখানা, স্কুল-কলেজ সব চালু-সবদিক থেকে মানুষ যেন একটা স্বস্তিতে ফিরে এসেছে, তখন শুধু জাতির পিতাকে হত্যা নয়, আমি আমার পরিবারের সবাইকে হারালাম।’
বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ‘আমি জাতির পিতা, জাতীয় চারনেতা, ১৫ আগস্টের সকল শহীদ এবং মক্তিযুদ্ধের শহীদ এবং নির্যাতিতা মা-বোনদের স্মরণ করে সবাকেই এ বিষয়ে একটু সতর্ক করতে চাই।’
তিনি পঁচাত্তর পরবর্তী স্বৈরশাসনের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, ‘এদেশে গণতন্ত্র কখনো অব্যাহতভাবে চলেনি। জাতির পিতাকে হত্যার পর একর পর এক ‘মার্শাল ল’ এবং সামরিক শাসকরা দেশ চালিয়েছে। হত্যা, ক্যু, ষড়যন্ত্রের রাজনীতিই দেশে চলেছে। এরসাথে অগ্নিসস্ত্রাস, জঙ্গিবাদ এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগ সবই আমাদের মোকাবেলা করতে হচ্ছে এবং এসব মোকাবেলা করেও আমরা অর্থনৈতিক অগ্রগতির পথে এগিয়ে যাচ্ছি এবং করোনাভাইরাস মোকাবেলাতেও আমরা সাফল্য অর্জন করেছি এবং করে যাচ্ছি।’
১৯৬৯ সালে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা চলার সময় ১৬ ফেব্রুয়ারি স্মৃতিচারণ করে সেই মামলার আসামি ও হত্যাকাণ্ডের শিকার সার্জেন্ট জহুরুল হকের কথা শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন। তিনি বলেন, ‘এর প্রতিবাদেই তিনি, বঙ্গমাতাসহ সমগ্র দেশবাসী আন্দোলনে ফেটে পড়ে এবং বঙ্গবন্ধুকে মুক্ত করে আনে। কেননা, বঙ্গবন্ধুকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যার একটা প্রারম্ভিক চেষ্টা হিসেবেই সাজেন্ট জহুরুল হককে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘রেহানা আর আমি সকাল থেকে বারবার শুধু সার্জেন্ট জহুরুল হকের কথাই মনে করছিলাম, এইদিনই ক্যান্টনমেন্টে তাকে হত্যা করা হয়। কারণ তাকে যখন হত্যা করা হলো তখন আমরা খুব শংকিত ছিলাম যে, এর পরই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ওপর আঘাত আসবে, আমরা বাবাকে হারাব। অবশেষে, সেই আঘাতটা এলো ১৫ আগস্ট। কিন্তু সেইদিন গণমানুষের যে স্রোত, সেজন্য আইয়ুব খান বাধ্য হলো, তার পতনও হলো।’
তিনি ভাষার মাসে সব ভাষা শহীদকে স্মরণ করে বলেন, ‘দীর্ঘ সংগ্রামের মধ্যদিয়ে স্বাধীনতা অর্জন করাতে বছরের প্রতিটি দিনই কিছু না কিছু স্মৃতি আমাদের রয়ে গেছে। কাজেই, বাংলাদেশের মানুষ ভালো থাক, সুস্থ থাক এবং স্বাধীনতার চেতনায় বাংলাদেশ গড়ে উঠুক এটাই আমাদের একমাত্র কামনা।’
প্রধানমন্ত্রী এসময় সবার সহযোগিতায় তার সরকারের করোনা মোকাবেলার সাফল্য তুলে ধরে বলেন, ‘ভৌগলিক দিক থেকে ছোট হলেও জনসংখ্যার দিক থেকে বড় এই দেশে আমরা করোনা মোকাবেলা করে তাকে যথেষ্ট নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম হয়েছি।’
তিনি বলেন, স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে চলায় আমরা যেমন নির্দেশনা দিয়েছি, প্রণোদনা দিয়েছি তেমনি ভ্যাকসিন প্রদানও শুরু করেছি। যা বিশ্বের অনেক উন্নত দেশও এখনো আনতে পারেনি।
তিনি ভ্যাকসিন নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের গবেষণা চলার সময়ই এটি চালু হলে বাংলাদেশ যেন আগে পেতে পারে সেজন্য আগাম অর্থ দিয়ে বুকিং করে রেখেছিলেন বলেও উল্লেখ করেন। কেননা, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিুউএইচও) যখনই অনুমতি দেবে ভ্যাকসিনটা যাতে দেশের মানুষকে পেতে পারে, তার সরকার সেটা করতে সক্ষম হওয়ায় তিনি সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে নিয়ে ষড়যন্ত্র চলছে উল্লেখ করে, সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেছেন, আল-জাজিরার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়। মঙ্গলবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে আর্মি এভিয়েশন গ্রুপে আয়োজিত অনুষ্ঠান শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য দেশের মানুষ প্রত্যাখ্যান করেছে। এ বিষয়ে সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বানও জানান জেনারেল আজিজ আহমেদ।
এর আগে ওই অনুষ্ঠানের অফিসিয়াল বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘Don’t Play With Armed Forces’ (সশস্ত্র বাহিনীকে নিয়ে খেলবেন না)।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মতো একটি প্রতিষ্ঠান যেটা জাতির গর্ব, দেশের গর্ব, এই প্রতিষ্ঠানকে নিয়ে নানা ধরনের অপপ্রচার চলছে। যাতে করে একটা বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়। আমি আপনাদের স্পষ্ট করে বলতে চাই, সেনাবাহিনী অত্যন্ত প্রশিক্ষিত এবং স্বয়ংসম্পূর্ণ একটা বাহিনী। আগের থেকে অনেক বেশি সুসংহত। সেনাবাহিনীর চেইন অব কমান্ড অত্যন্ত কার্যকর এবং সেনাবাহিনীর প্রতিটা সদস্য ঘৃণাভরে এই ধরনের অপচেষ্টাকে প্রত্যাখ্যান করে এসেছে অতীতে, এখনো করছে এবং বর্তমানে যা আছে তাকেও ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করে যাচ্ছে।

সেনাপ্রধান বলেন, আমাদের চেইন অব কমান্ডের যারা আছে তারা সবাই এই ব্যাপারে সতর্ক আছি। আমি আশ্বাস দিতে চাই আপনাদেরকে যে সেনাবাহিনীতে এই ধরনের অপপ্রচার বিন্দুমাত্র আঁচ লাগতে দেবে না। সেনাবাহিনী বাংলাদেশের প্রতি শ্রদ্ধাশীল এবং বাংলাদেশে সরকারের প্রতি অনুগত। বাংলাদেশ সরকারের সকল ধরনের আদেশ ও নির্দেশ পালনে সেনাবাহিনী সদা প্রস্তুত এবং বাংলাদেশের সেটা অভ্যান্তরীন হোক, বর্হিবিশ্বের হোক যেকোন সমস্যার মোকাবিলার জন্য আমরা সাংবিধানিকভাবে ঐক্যবদ্ধ।

সেনাপ্রধানের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে আল জাজিরার প্রতিবেদনে যেসব কথা বলা হয়েছে সে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমার ভাইদের বিরুদ্ধে যে অপপ্রচার চালানো হয়েছে সেটা স্পষ্ট ব্যাখা দেওয়া আছে। এছাড়া আমার পরিবারের পক্ষ থেকে খুব শীঘ্রই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জানানো হবে। তবে আমি সেনাপ্রধান হিসেবে বলতে পারি, সেনাবাহিনীর ভাবমূর্তি, আমার অবস্থা, আমার দায়িত্ব সম্পর্কে আমি সচেতন। কি করলে সেনাবাহিনীর দায়িত্ব ক্ষুন্ন হতে পারে, কি করলে আমার যে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সেটা খর্ব হতে পারে সে সম্পর্কে আমি সম্পূর্ণ অবগত।

সেনাপ্রধান বলেন, আল জাজিরা যেটা দিয়েছে সেটা সম্পূর্ণ অসৎ উদ্দেশ্যে দিয়েছে। কারণ সেদিন আমার ভাইয়ের বিরুদ্ধে কোন মামলা ছিল না, কোন সাজা ছিল না। তার আগেই যে মামলাটা ছিল সেটা থেকে তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছিল। বিভিন্ন দেশে চিত্রধারণ বিষয়ে সেনাপ্রধান বলেন, আমি সেনাপ্রধান হিসেবে অফিসিয়ালভাবে যখন থাকব তখন আমার নিরাপত্তা অফিসিয়ালভাবে নিশ্চিত করা হয়ে থাকে। সেখানে আমার অতিরিক্ত নিরাপত্তা নেওয়ার প্রয়োজন আমি মনে করি না। কিন্তু যখন আমি কোথাও ব্যক্তিগত ভ্রমণে থাকি সে সময় অফিসিয়াল কোন প্রটোকল ব্যবহার করা আমি সেটা কখনো সমীচীন মনে করি না। সেক্ষেত্রে সেই দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে তারা অসৎ উদ্দেশ্যে এটা করেছে।

বার বার কেন সেনাপ্রধানকে টার্গেট করা হয় এই প্রশ্নের জবাবে সেনাপ্রধান সাংবাদিকদের বলেন, এই প্রশ্নের উত্তর আমি আপনাদের উপর ছেড়ে দিলাম। আপনারা বুঝে নেন খুঁজে নেন কেন বাংলাদেশে সেনাবাহিনীর সেনাপ্রধানকে টার্গেট করা হচ্ছে। কারণ এই সেনাপ্রধানকে বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দিয়েছে। সেনাপ্রধানকে হেয় প্রতিপন্ন করা মানে প্রধানমন্ত্রীকে হেয় প্রতিপন্ন করা। আমি সম্পূর্ণভাবে সচেতন যে আমার কারণে কখনো আমার প্রতিষ্ঠান যেন বিব্রত বা বিতর্কিত না হয়।

তিনি বলেন, আপনারা যা কিছু শুনছেন তারা এগুলো বিভিন্ন জায়গা থেকে কাটপিস এবং অন্যান্য জিনিস যোগ করে করেছে। কিন্তু তাতে এদের কোন উদ্দেশ্য হাসিল হবে না। এটা আপনারা সাংবাদিকরা আপনাদের কলম দিয়ে সঠিক জবাব দিয়ে দিয়েছেন। এজন্য আমি আপনাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।

পটুয়াখালীতে নারী ও শিশুর প্রতি জেন্ডারভিত্তিক সহিংসতা প্রতিরোধে দিনব্যাপি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) সকালে সেহাকাঠি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের হলরুমে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় জৈনকাঠি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: ফিরোজ আলমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পটুয়াখালী সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লতিফা জান্নাতী। গেস্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পটুয়াখালী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাড. গোলাম ছরোয়ার। জেন্ডারভিত্তিক ন্যায়বিচারের প্রচার: পুরুষ এবং ছেলেদের সংযুক্তিকরণ নেটওয়ার্ককে শক্তিশালী করার মাধ্যমে বাংলাদেশের নারী ও শিশুদের প্রতি সহিংসতা হ্রাসকরণ প্রকল্পের উদ্যোগে ব্রেড, অ্যাডমাস ও প্রতীকি যুব সংসদের আয়োজনে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় সহযোগিতা প্রদান করে ব্র্যাক ও এনগেজিং মেন এন্ড বয়েজ নেটওর্য়াক (ইএমবি)।

সাব্বির হাসান ও হোমায়রা ইসলাম পিয়ার সঞ্চালনায় কর্মশালার মূল তথ্যপত্র উপস্থাপন করেন প্রতীকি যুব সংসদের নির্বাহী প্রধান সোহানুর রহমান। কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন ব্রেডের নির্বাহী পরিচালক মো: শহিদুল ইসলাম । অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান অ্যাড. সৈয়দ সোহেল, ব্র্যাকের সাতক্ষীরা জেলা সমন্বয়কারী মো: নেফাজ উদ্দিন ব্র্যাক জেন্ডার জাস্টিস এন্ড ডাইভারসিটি কর্মসূচির ডিভিশনাল ম্যানেজার মো: সেলিম মোল্লা, এসডিএর নির্বাহী পরিচালক কেএম এনায়েত হোসেন, প্রতীকি যুব সংসদের চেয়ারপার্সন আমিনুল ইসলাম (ফিরোজ মোস্তফা) প্রমুখ। কর্মশালায় জৈনকাঠি ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য, অভিভাবক, সুরক্ষা এবং যুব গ্রুপের সদস্যবৃন্দ অংশগ্রহণ করে মডেল ইউনিয়ন গড়ে তোলারসমন্বিত কর্ম-পরিকল্পনা গ্রহণকরেন।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইলে অজ্ঞান করে ইজিবাইক নিয়ে যাওয়ার ঘটনায় দুজন গ্রেপ্তার হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার দুুপরে লোহাগড়া থানা-পুলিশ তাঁদের গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিরা হলেন নড়াইলের কালিয়া উপজেলার দেবদুন গ্রামের মকিতুর রহমান মোল্লা (৬০) এবং তাঁর ছেলে আরাফাত মোল্লা (৩৫)।

গত ১০ ফেব্রুয়ারি দুপুরে সাকিব শিকদারের ইজিবাইকটি খোয়া যায়। এ ঘটনায় সাকিব শিকদার বাদী হয়ে আজ মঙ্গলবার দুপুরে লোহাগড়া থানায় মামলা করেছে।  এজাহারভুক্ত ওই দুজনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।

সাকিব শিকদারদের বাড়ি কালিয়া উপজেলার আটলিয়া গ্রামে। সাকিব জানায়, নড়াইল শহর থেকে দুজন যাত্রী তাঁর ইজিবাইকে ওঠে। নিয়ে আসে লোহাগড়া উপজেলার এড়েন্দা বাজারে। সেখানে ওই দুজন বিস্কুট ও পানি খায়। সাকিবকেও খেতে দেয়। তা খাওয়ার পর অজ্ঞান হয়ে পড়ে সাকিব। ইজিবাইকটি নিয়ে যায় ওই দুর্বৃত্তরা। এরপর স্থানীয় লোকজন তাকে নড়াইল সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

লোহাগড়া থানার ওসি সৈয়দ আশিকুর রহমান বলেন, গ্রেপ্তার হওয়া দুজন সংঘবদ্ধ ইজিবাইক ছিনতাই চক্রের সদস্য। ইজিবাইকটি উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

কমলগঞ্জ প্রতিনিধিঃ  মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে গ্রামীণ ঐতিহ্য বহনকারী বাংলাদেশের জাতীয় খেলা হা-ডু-ডু অনুষ্ঠিত হয়। রবিবার রাত সাড়ে দশটায় আদমপুরের কাউয়ারগলায় ১০ম হা-ডু-ডু টুর্নামেন্টের সমাপনী খেলায় করিমপুর স্পোর্টিং ক্লাবকে হারিয়ে বন্ধন-মৌলভীবাজার দল চ্যাম্পিয়ান হয়। এদিন সকাল নয়টায় জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে কাউয়ার গলা ফ্রেন্ড্স পাওয়ারের উদ্যোগে ১০ম হাডুডু টুর্নামেন্ট ২০২১ এর উদ্বোধন করেন কমলগঞ্জ উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ইমতিয়াজ আহমেদ বুলবুল । দেশের বিভিন্ন উপজেলা থেকে ১৬ টি দলের অংশগ্রহণে দিনব্যাপী অনুষ্টিত আবহমান বাংলার চিরন্তন আকর্ষণীয় এ খেলা দেখতে দুর দুরান্ত থেকে আসা দর্শকদের উপচে পড়া ভিড় ছিল লক্ষনীয়।

হাডুডু টুর্নামেন্টে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কমলগঞ্জ পৌর মেয়র জুয়েল আহমেদ, সাবেক আদমপুর ইউপি চেয়ারম্যান সাব্বির আহমেদ ভূঁইয়া, কমলগঞ্জ প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি শাব্বির এলাহী, ইউপি সদস্য হাজী আলমগীর হাসান, মোস্তফা কামাল, ছাত্রলীগ নেতা কাইয়ুম বক্ত, সমাজ সেবক আকাশ আহমেদ, সাদেক হোসেন প্রমূখ।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইলের কালিয়ায় নছিমন উল্টে চালক নিহত হয়েছে।মঙ্গলবার সকাল ১০ টার দিকে চালক ইকবল (৪০) নছিমন চালিয়ে মাউলি ইউনিয়নের কাটাদুরো নামক স্হানে পৌঁছালে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে নসিমন নিয়ে খাদে পড়ে যায়। স্হানীয় জনতা দেখতে পেয়ে উদ্ধার করে লোহাগড়া হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষণা করে।

লোহাগড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সৈয়দ আশিকুর রহমান এই বিষয় টি নিশ্চিত করে বলেন আমরা কোন অভিযোগ পায়নি।

নড়াইল প্রতিনিধি: ব্যাপক উৎসাহ উদ্দিপনার মধ্যদিয়ে নড়াইলে হিন্দু ধর্মাবলম্বিদের বিদ্যার দেবী সরস্বতী পূজাঁ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বাড়িতে বাড়িতে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৬ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার  ভোর থেকেই  বাসা বাড়িতে ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তাদের বিদ্যার দেবীর  পূজাঁ অনুষ্ঠিত হয়। বিদ্যা ও জ্ঞান লাভের আশায় বানী অর্চনার মধ্যদিয়ে সনাতন ধর্মে বিশ্বাসী  মানুষ শুক্লা পঞ্চমী তিথিতে দেবী সরস্বতী’র চরনে পুস্পমাল্য অর্পন, অঞ্জলী প্রদান ও প্রসাদ বিতরন করেন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক- শিক্ষার্থী, সনাতন ধর্মালম্বীরাসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ  এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

রেজওয়ান করিম সাব্বির, জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধি: ২০২৩ সালের মধ্যে বাংলাদেশ হতে জলাতঙ্ক রোগ নির্মূলের লক্ষ্যে সিলেট জেলার ব্যাপকহারে টিকাদান কার্যক্রমে অংশ গ্রহনের লক্ষ্যে জৈন্তাপুর উপজেলায় ১৬ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হল রুমে অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আমিনুল হক সরকারের সভাপতিত্বে ও ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরীর স াচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন জৈন্তাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি কামাল আহমদ।

বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ তদন্ত ওমর ফারুক, উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, দরবস্ত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাহারুল আলম বাহার, উপজেলা শিক্ষা কর্তকর্তা আব্দুল জলিল তালুকদার, জৈন্তাপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি শাহেদ আহমদ, ইউপিআই কর্মকর্তা ইসমাইল আলী, উপজেলা স্বাস্থ্য ইন্সপেক্টার মোঃ শহিদুল ইসলাম মোল্লা, জৈন্তাপুর অনলাইন প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোঃ রেজওয়ান করিম সাব্বির ও স্বাস্থ্য সহকারী করুনা কান্ত দেব, নুরুল ইসলাম।

সোলেমান আহমেদ মানিক, শ্রীমঙ্গলঃ  শ্রীমঙ্গলে অসামাজিক ব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগে আসমার বাসা থেকে ২ খদ্দের ও ২ নারী দেহ ব্যবসায়ীকে আটক করেছে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ।জানা গেছে মূলহোতা দেহব্যবসায়ী আসমা পলাতক রয়েছে।তার বিরুদ্ধে মানবপাচারের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে মামলা করেছে শ্রীমঙ্গল থানা, এসআই মোহাম্মদ আলমগীর বাদী হয়ে এ মামলা রুজু করেন।
উপজেলার শহরের অদূরে হাউজিংস্টেট এর নিকটবর্তী এলাকায় আসমা আক্তার এর বাসা থেকে অসামাজিক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অপরাধে দুই নারী ও দুই যুবককে গতকাল পুলিশ আটক করেছে।
পুলিশের সূত্রে জানা যায়, শ্রীমঙ্গল থানা ইনচার্জ  আব্দুস ছালিকের নির্দেশে পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হুমায়ূন কবিরের নেতৃত্বে এসআই মোহাম্মদ আলমগীর ও অন্যান্য পুলিশ সদস্যদের অংশগ্রহণে ১৫ ফেব্রুয়ারি সোমবার সন্ধ্যায় হাউজিংস্টেট এলাকার সন্নিকটে অভিযান চালিয়ে আসমা আক্তারের বাসা থেকে দুই যুবক ও দুই নারীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।
আটককৃতরা হলো আফসানা বেগম (৩৫) পিতা আমীর হোসেন দেওয়ান, গজারিয়া, মুন্সিগঞ্জ।রাশিদা বেগম (২৬) পিতা মোঃ আইয়ুব আলী, গ্রাম কলারদুলিয়া, নাজিরপুর, পিরোজপুর, বরিশাল। আব্দুল ওয়াহিদ (২৭) পিতা রহমত আলী, গ্রাম স্নানঘাট, বাহুবল, হবিগঞ্জ।মোহন মিয়া (২৩) পিতা শেখুল মিয়া, গ্রাম লালবাগ, থানা শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার। আসামিদের মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী পুলিশ স্কটের মাধ্যমে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে পুলিশ পরিদর্শক  (তদন্ত হুমায়ূন কবীর আটকের কথা স্বীকার করে জানান, “অসামাজিক কাজের মূল হোতা ও পতিতা রানী আসমা বেগমকে গ্রেফতারের জোর প্রচেষ্টা চলছে। আসমার বিরুদ্ধে মানবপাচার আইনের ৭, ৮, ১১ ও ১২ধারায় মামলা দায়ের হয়েছে। তাকে আটক করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এবং সকল অপরাধীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে।”
এদিকে এলাকাবাসীর দাবী অসামাজিক কর্ম কাণ্ডের সবগুলো স্পটে নিয়মিত অভিযান চালালে অনৈতিক কর্ম কাণ্ড কিছুটা হলেও রোধ পাবে। বিশেষ করে যে সমস্ত আবাসিক স্পট গুলোতে কথিত রিসোর্টের নামে স্কুল কলেজ গামীদের বিপথের রাস্তা খোলাসা করে দিচ্ছে তাদের প্রতি নজর রাখার জন্য শ্রীমঙ্গল থানা প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন সচেতন মহল।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc