Friday 26th of February 2021 03:49:36 PM

গাজীপুর প্রতিনিধিঃ গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে হলমার্কের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) তুষার আহমদের সঙ্গে এক নারীর অন্তরঙ্গ সময় কাটানোর ঘটনাকে জঘন্য বলে অভিহিত করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত কারারক্ষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানিয়েছেন মন্ত্রী।শনিবার দুপুরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী এই কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘এটি জঘন্য কাজ। কারাগারে এসব নিষিদ্ধ। এর পেছনে যারা দায়ী প্রাথমিকভাবে তাদের সবাইকে প্রত্যাহার করতে বলা হয়েছে। মন্ত্রণালয় থেকে একটি তদন্ত কমিটিও করতে বলা হয়েছে। কমিটির দেয়া প্রতিবেদনের আলোকে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ‘সব কারাগারের জন্য এটি সতর্কবার্তা। যারাই এর সঙ্গে জড়িত থাকবে, তারাই শাস্তির আওতায় আসবে। কেননা এটি জঘন্যতম অপরাধ।’

প্রসঙ্গত,গত ৬ জানুয়ারি গাজীপুর জেলার কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ এর ভেতরে হলমার্কের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীরের শ্যালক একজন নারীর সঙ্গে অন্তরঙ্গ সময় পার করেন। এতে সহযোগিতা করেন ওই কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার রত্না রায়সহ বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা।

এ নিয়ে কারাগারের মধ্যে তোলপাড় শুরু হলে কারা অধিদপ্তর থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। একইসঙ্গে গত ১৮ জানুয়ারি এক আদেশে ওই ঘটনায় সহায়তার দায়ে ডেপুটি জেলার মোহাম্মদ সাকলাইন, সার্জেন্ট আব্দুল বারী ও সহকারী প্রধান কারারক্ষী খলিলুর রহমানকে প্রত্যাহার করে কারা সদর দপ্তরে সংযুক্ত করা হয়।

২১ জানুয়ারি অতিরিক্ত কারা-মহাপরিদর্শক কর্নেল আবরারের নেতৃত্বে গঠিত তিন সদস্যের কমিটি কাশিমপুর গিয়ে তদন্ত করেছেন।

কারা সূত্রে জানা গেছে, অন্তরঙ্গ সময় কাটানোর আগে ও পরের দৃশ্য কারাগারের সিসিটিভি ক্যামেরায় ধরা পড়েছে। সেই ফুটেজ উদ্ধার করে বিশ্লেষণ করছে তদন্ত কমিটি।
এদিকে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে গঠিত তদন্ত কমিটিও কাজ করছে বলে জানা গেছে। অল্প সময়ের মধ্যে এই প্রতিবেদন জমা দেয়ার কথা রয়েছে।

নূরুজ্জামান ফারুকী, বিশেষ প্রতিনিধিঃ  নবীগঞ্জে ৭ কেজি গাজা ও একটি মোটরসাইকেলসহ ফারুক মিয়া (৪৫) নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ । গ্রেফতারকৃত ফারুক মিয়া চুনারুঘাট উপজেলার কালামন্ডল (আমরুবাজার) এলাকার মৃত আব্দুল লতিফের পুত্র।

নবীগঞ্জ থানা পুলিশ সুত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নবীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) আমিনুল ইসলামের নেতৃত্বে এস.আই মনিরুজ্জামান সহ নবীগঞ্জ থানা পুলিশের একটি টিম উপজেলার কাজিরবাজার এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে একাধিক মাদক মামলার আসামী ফারুক মিয়া (৪৫) কে ৭ কেজি গাজা ও একটি মোটর সাইকেলসহ গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। পরে ২৩ জানুয়ারি (শনিবার) তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে নবীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম এ প্রতিবেদককে বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে আমরা জিরো ট্রলারেন্সে কাজ করছি। মাদক অভিযানের অংশ হিসেবে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। নিয়মিত মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে। গোপন তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারি ফারুক চুনারুঘাট থেকে মোটর সাইকেল যোগে গাজা নিয়ে মার্কুলি যাচ্ছে পরে নবীগঞ্জ উপজেলার কাজির বাজারস্থ স্থানে অভিযান পরিচালনা করে তাকে গাজা ও মোটরসাইকেলসহ গ্রেফতার করা হয়।

নূরুজ্জামান ফারুকী ,নবীগঞ্জ: নবীগঞ্জ-ইনাতগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কের পার্শ্ব থেকে মোঃ আলমগীর মিয়া (৪০) নামে ৩ সন্তানের জনকের রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় নবীগঞ্জ থানায় ২জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামী করে নিহতের স্ত্রী মুর্শেদা বেগম বাদী হয়ে নবীগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ৷ নির্মম মৃত্যুর ঘটনাটি পরিকল্পিত হত্যা না সড়ক দুর্ঘটনা এ নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

এদিকে নিহতের পরিবারে এখনো চলছে শোকের মাতম৷ পরিবারের কর্তা বড় সন্তানকে হারিয়ে মা রাবেয়া বেগম সন্তান হারানোর শোকে ও বেদনায় কেঁদে কেঁদে বার বার মূর্ছা যান৷ নিতহ আলমগীরের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় এক হৃদয় বিদারক করুণ দৃশ্য,নিহতের ৩টি মেয়ে, বড় মেয়ে তানিয়া জাহান চৈতী সে নবীগঞ্জ ডিগ্রি কলেজে অধ্যায়নরত, প্রথম বর্ষের ছাত্রী ৷ ২য় মেয়ে স্থানীয় উচ্চ বিদ্যালয়ে ১০ম শ্রেণীর ছাত্রী ও ৩য় মেয়ে হিবা আক্তার স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪র্থ শেণীতে লেখা পড়া করে ৷

মা রাবেয়া বেগমের ৬ মেয়ে ৩ ছেলের মধ্যে আলমগীর ছিলেন ২বোনের ছোট এবং ভাইদের মধ্যে সবার বড়, অর্থাৎ তার পিতা আবুল কালাম আজাদ মারা যাওয়ার পর থেকে তিনিই পরিবারের ভরণ পোষণ করতেন এবং অভিভাবক (কর্তা) হিসেবেই সংসারের হাল ধরে রেখেছিলেন বলে তাঁর মা কান্নাজড়িত কন্ঠে সাংবাদিকদের বলেন ও থানায় অভিযোগে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন,গত বুধবার সন্ধ্যা অনুমান ৬ টার দিকে আলমগীরকে তার বাড়ি থেকে ডেকে নেয় একই ইউনিয়নের নিজ আগনা গ্রামের এলকাছ মিয়ার পুত্র জুবেল মিয়া ৷ তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে ওই গ্রামের মৃত এরশাদ মিয়ার পুত্র রুয়েল মিয়ার বাড়িতে জুবেল ও রুয়েল মিয়া সহ অজ্ঞাত নামা ব্যক্তিরা আলমগীরকে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে লাশ রাস্তায় ফেলে যায় ৷ পরে বৃহস্পতিবার ভোর-রাতে নবীগঞ্জ-ইনাতগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কের ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের নিজ আগনা গ্রামের সড়কের পার্শ্বে একটি মরদেহ পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয়রা।

পরে পুলিশকে খবর দিলে ইনাতগঞ্জ পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ সামছুদ্দিন খানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং মৃত দেহটি উদ্ধার করেন। তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরী। পরে মৃতদেহটি আলমগীর মিয়ার বলে শনাক্ত করে তার পরিবারের সদস্যরা।
নিহত মোঃ আলমগীর মিয়ার মাতা রাবেয়া বেগম, ও স্ত্রী মুর্শেদা বেগম সহ তার সন্তানদের দাবী আলমগীরকে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে৷ এই ঘটনায় প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করে দোষীদের গ্রেফতার পূর্বক কঠোর শাস্তির দাবী জানান তারা৷

এঘটনায় নবীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান- মৃতদেহটির ময়না তদন্তের রিপোর্ট আসার আগ পর্যন্ত কিছু বলা যাচ্ছে না৷ তবে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটা একটি সড়ক দূর্ঘটনায় হয়তো তার মৃত্যু হয়েছে৷ এ বিষয়ে পুলিশ অতি গুরুত্বের সহিত তদন্ত করছে বলেও তিনি  আশ্বস্ত করেন।

এতে ব্যর্থ হলে জনগণের কাছে জবাব দিবে হবে:ইলেকশন মনিটরিং ফোরাম

অবকাঠামোসহ সরকারের অধিকাংশ উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করে স্থানীয় সরকার। এখানে সৎ ও যোগ্য লোক নির্বাচিত করা জনগণের দায়িত্ব। এতে কোনো প্রকার ভুল করলে বা ভুল ব্যক্তি নির্বাচিত হলে স্থানীয় জনগণকে দীর্ঘ সময় এর মাশুল দিতে হয়। একারণে স্থানীয় নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এখানে অনিয়ম হলে সার্বিকভাবে দেশেরই ক্ষতি। নির্বাচনকে গ্রহণযোগ্য করতে নির্বাচন কমিশনের সচেষ্ট ভূমিকা ও আন্তরিকতা প্রয়োজন। সকল দলের মনোনীত প্রার্থীদেরকে সমান সুযোগ নিশ্চিত করা, সাধারণ ভোটারদের ভোট অধিকার প্রয়োগে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নেওয়া নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব। একটি গণতান্ত্রিক দেশে ভোট কেন্দ্র থেকে এজেন্টদের বের করে দেওয়া, দুপুরের পূর্বেই বিভিন্ন প্রার্থী ভোট বর্জন করা তা শুভ লক্ষণ নয়।
সকল দল ও প্রার্থীদের উচিত ভোটের মাঠে সর্বশেষ সময়টুকু অপেক্ষা করা। শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রেখে ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে উপস্থিতির বিষয়ে উৎসাহিত করা। কোনো প্রকার স্বার্থান্বেষী মহলের প্ররোচনায় ভোটের মাঠ ত্যাগ করা জনবান্ধব প্রার্থীর পক্ষে উচিত নয়, এতে দুস্কৃতিকারীরা লাভবান হয়। ইলেকশন মনিটরিং ফোরামের আয়োজনে ২৩ জানুয়ারি বিকাল ৩.০০ ঘটিকায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব বঙ্গবন্ধু হলে “পর্যবেক্ষকদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা এবং নগর উন্নয়ন ও নাগরিক প্রত্যাশা শীর্ষক মুক্ত আলোচনা সভায়” ফোরামের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মোহাম্মদ আবেদ আলী সভাপতির বক্তব্যে উপরোক্ত মন্তব্য করেন।

তিনি আরো বলেন নির্বাচন কমিশনের জন্য চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচন শেষ পরীক্ষা, এতে ব্যর্থ হলে জনগণের কাছে জবাব দিবে হবে, কারণ নির্বাচন কমিশন তাদের মেয়াদের সর্বশেষ বড় নির্বাচন হিসেবে চট্টগ্রামের নির্বাচনী ভূমিকার উপর সাধারণ জনগণের সজাগ দৃষ্টি রয়েছে। কোনো প্রকার ব্যর্থতার দায় নির্বাচন কমিশন এড়াতে পারবে না। মুক্ত আলোচনা সভায় আলোচক হিসেবে অংশগ্রহণ করেন যথাক্রমে- চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী, বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের সাবেক কমিশনার জনাব মো: শাহ্ নেওয়াজ, সুপ্রিম কোর্টের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এডভোকেট আবুল হাশেম, ইলেকশন মনিটরিং ফোরামের পরিচালক- তানবীরুল ইসলাম, সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের পরিচালক ড. মুহম্মদ মাসুম চৌধুরী, সিটি নিয়ন গ্রুপ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক রেদওয়ান খান বোরহান, ফোরামের সমন্বয়কারী মো: মনির হোসেন, সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম বিভাগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ¦ সালেহ আহাম্মদ, মহানগরের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এস.এম. আজিজ।প্রেস বিজ্ঞপ্তি

শংকর শীল, হবিগঞ্জঃ সারা দেশের ন্যায় হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার গাজিপুর ইউপির ইকরতলী গ্রামে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের ৭৪ টি ঘর ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার (২৩ জানুয়ারি) সকাল ১১টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিক ভাবে ইকরতলী গ্রামে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের মাঝে ৭৪ টি ঘর উদ্বোধন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন – বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী এড. মাহবুব আলী, সিলেট বিভাগীয় কমিশনার মোঃ মশিউর রহমান (এনডিসি), হবিগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরী, জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান, চুনারুঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল কাদির লস্কর, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সত্যাজিত রায় দাশ,সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আবু তাহের, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা খাতুন, ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব লুৎফুর রহমান মহালদার, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মিল্টন চন্দ্র পাল, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্লাবন পাল, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এড. আকবর হোসেন জিতু, চুনারুঘাট অফিসার ইনচার্জ এম আলী আশরাফ, ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবেদ আসনাত চৌধুরী সনজু, হুমায়ুন কবির চৌধুরী, রমিজ উদ্দিন আহমেদ, চুনারুঘাট পৌর নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত (নৌকা) প্রার্থী সাইফুল আলম রুবেল, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি লুৎফুর রহমান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক কে এম আনোয়ার হোসেন, যুগ্ন সম্পাদক আলহাজ্ব জিল্লুল কাদির লস্কর রিমন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি মানিক সরকার, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান রিপন, সাংবাদিক জাহাঙ্গীর আলম ও আবুল কালাম আজাদ প্রমূখ।

দেশব্যাপী ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন”

নূর মোহাম্মদ সাগর শ্রীমঙ্গলঃ ‘আশ্রয়ণের অধিকার শেখ হাসিনার উপহার” এই স্লোগানকে সামনে রেখে মুজিববর্ষ উপলক্ষে সকল ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে আবাসন সুবিধার আওতায় আনার জন্য ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক  ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়েছে।

শ্রীমঙ্গলে ৩০০ ঘর নির্মাণ করে দিয়েছে সরকার, উপজেলার বেগুনবাড়ী, মহাজিরাবাদ,রাধানগর ও মির্জাপুর এলাকায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এসব ঘর বিতরণের অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন।  প্রথম দফায় শনিবার (২৩ জানুয়ারি) সকালে ১০০ গৃহহীন পরিবারকে তাদের ঘর বুঝিয়ে দেয়া হয়। বাকি ২০০ ঘর নির্মাণ কাজ শেষে বুঝিয়ে দেয়া হবে।

আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের আওতায় উপজেলার আশিদ্রোন, শ্রীমঙ্গল সদর, ভূনবীর ও মির্জাপুর ইউনিয়নে সরকারি খাস জমিতে এসব ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, প্রতিটি ঘর নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা। ৪৩৫ বর্গফুটের প্রতিটি ঘরে রয়েছে দুটি শয়নকক্ষ, একটি করে বারান্দা, রান্নাঘর, বাথরুম ও নামাজের জায়গাসহ নানা সুযোগ-সুবিধা রাখা হয়েছে।

নির্মিত ১০০ ঘর ও আশপাশের জমি মিলিয়ে দুই শতক ভূমি দলিলসহ হস্থান্তর করা হয় উপকারভোগী প্রতিটি পরিবারের মধ্যে। এই প্রকল্প কাজ বাস্তবায়ন করেছে উপজেলা প্রশাসন শ্রীমঙ্গল।

এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলাম জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশের সঙ্গে শনিবার সকালে শ্রীমঙ্গল উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় সরকারি খাস জমিতে ৫ কোটি ২৫ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা ১০০টি ঘরের মালিকানা গৃহহীনদের হাতে তুলে দেয়া হয়। বাকি ২০০টি ঘর নির্মাণের কাজ চলছে।

তিনি আরও বলেন, আমরা কাজের মান ঠিক রাখতে সার্বক্ষণিক তদারকি করছি। ঘর প্রদানের জন্য সঠিক উপকারভোগী নির্বাচনের ক্ষেত্রেও আমরা নিরপেক্ষ যাচাই-বাছাই করেছি। যারা প্রকৃত ভূমিহীন তারাই এই সুবিধার আওতায় এসেছেন।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক মুজিববর্ষ  উপলক্ষ্যে নড়াইলে ১০৫ ভ’মিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান কার্যক্রমের  উদ্বোধন করা হয়েছে। আজ শনিবার সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে জেলা প্রশাসন  ও সদর উপজেলা প্রশাসন ,নড়াইলের আয়োজনে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে গণ ভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে  এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ।

জেলা প্রশাসক মোহম্মদ্দ হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে পুলিশ সুপার মোহাম্দ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার),  জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অ্যাডঃ সুবাস চন্দ্র বোস, সাধারন সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নিজামউদ্দিন খান নিলু,আওয়ামীলীগের জাতীয় পরিষদ সদস্য অ্যাডঃ ফজলুর রহমান জিন্নাহ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ ইয়ারুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোঃ ফকরুল ইসলাম, গনপূর্তের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ নাহিদ পারভেজ,  সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক অ্যাডঃ ওমর ফারুক,সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সালমা সেলিম, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান তোফায়েল মাহমুদ তুফান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ইসমত আরা, নড়াইল প্রেসক্লাবের সভাপতি এনামুল কবির টুকু, জেলা ও সদর উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, মুক্তিযোদ্ধা,সাংবাদিক, রাজনীতি বিদ, আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ ,সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, এনজিও প্রতিনিধি ও উপকার ভোগীদের প্রতিনিধিরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প এবং দুর্যোগ ব্যাবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রÍনালয়ের গ্রামীন অবকাঠামো সংস্কার ( কাবিটা) প্রককল্পের মাধ্যমে নড়াইল জেলায় এ কার্যক্রমের আওতায় আজ ১ম পর্যায়  ২ শতক জমি সহ ১০৫টি গৃহ ও বন্দোবস্তকৃত জমির  মালিকানা সংক্রান্ত কাগজ পত্র  উপকার ভোগিদের মাঝে হস্তান্তরের উদ্বোধন করা হয়।

১লক্ষ ৭১ হাজার টাকা ব্যয়ে সরকারি খাস জমিতে প্রতি পরিবারকে ২ শতক জমিসহ সদরে ৩০, লোহাগড়ায় ৩৫ এবং কালিয়া উপজেলায় ৪০টি গৃহ নির্মান কাজ প্রায় সমাপ্তির পথে।

২য় পর্যায়ে  জেলায় আরো ২ শত ২০টি  গৃহ নির্মান করা হবে। ১ম ও ২য় পয়ায়ে মোট  ৩২৫টি গৃহ নির্মান করা হবে।

এম ওসমান, বেনাপোল প্রতিনিধি: সারাদেশের সাথে শার্শায়ও ৫০টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের হাতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পাকা ঘরের চাবি তুলে দিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ উপলক্ষে শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় উপজেলা অডিটোরিয়ামে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পাকা ঘরের চাবি তুলে দিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সভাপতিত্বে এসময় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু।
বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আলেয়া ফেরদৌস, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) রাশনা শারমিন মিথী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি সালেহ্ আহমেদ মিন্টু, যুগ্ম- সাধারণ সম্পাদক অধ‍্যক্ষ ইব্রাহীম খলিল,  উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা লাল্টু মিয়া, উপজেলা আইটি কর্মকর্তা আহসান হাবীব, শার্শা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বদরুল আলম খান, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর হোসেন ও শার্শা প্রেসক্লাবের সভাপতি প্রভাষক আসাদুজ্জামান আসাদ প্রমূখ।

নূরুজ্জামান ফারুকী বিশেষ প্রতিনিধি: হবিগঞ্জ শহরের পরিচিত মুখ পত্রিকা বিক্রেতা লায়েছ মিয়া (৩০) কে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। শুধু তাই নয়, তার সাথে থাকা টাকা ও মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। এ ঘটনায় হকার্স সমিতির মাঝে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। তারা অবিলম্বে দোষীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন।

গতকাল শুক্রবার সকালে এড়ালিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। জানা যায়, ওই গ্রামের মৃত হুরাই মিয়ার পুত্র লায়েছ মিয়ার সাথে বিরোধ চলে আসছে একই গ্রামের মহব্বত উল্লার পুত্র হাসিম মিয়ার। গতকাল ওই সময় লায়েছ মিয়া জমিতে পানিতে দিতে যায়। এ সময় হাসিম মিয়া তাকে বাঁধা দেয়। বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয়ে হাসিম মিয়া তার হাতে থাকা কুড়াল দিয়ে লায়েছের মাথায় আঘাত করে। এতে সে গুরুতর আহত হয়। তখন তার পুত্র রাজু মিয়া আহত লায়েছের কাছে নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। লোকজন তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। তার অবস্থা আশংকাজনক।

এ বিষয়ে হকার্স সমিতির সভাপতি শেখ কামাল উদ্দিন খান, দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের নিকট দাবি জানান। এ বিষয়ে ওসি মাসুক আলী জানান, এখনো কোন অভিযোগ পাইনি। পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নূরুজ্জামান ফারুকী বিশেষ প্রতিনিধি: হবিগঞ্জ শহরে দীর্ঘদিন ধরে নারী অপরাধী চক্র সক্রিয় হয়ে উঠেছে। তাদের টার্গেট হচ্ছে সদর হাসপাতাল, কোর্ট, শপিং মলসহ জনসমাগম এলাকা। প্রায়ই এসব চোরকে জনতা হাতেনাতে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। কিন্তু পুলিশ কাউকে আদালতে সোপর্দ করে আবার কাউকে ছেড়েও দেয়।

ফলে দিন দিন এসব অপরাধী সক্রিয় হয়ে উঠছে। অভিযোগ রয়েছে, যাদেরকে পুলিশ আদালতে সোপর্দ করে তাদের বিরুদ্ধে কোনো মামলা না দেয়ায় সহজেই তারা ছাড়া পেয়ে যায় এবং ফের একই অপরাধ জড়িয়ে পড়ে। গতকাল শুক্রবার সকালে মাধবপুর উপজেলার কালিকাপুর গ্রামের আলা মিয়ার মেয়ে রাহেলা বেগম (২০) এবং পিয়ারা বেগম (১৮) নামের দুই নারীকে মোবাইল ও টাকা চুরি করার সময় হাতেনাতে আটক করে জনতা। তারা শহরের বেবি স্ট্যান্ড এলাকায় অবস্থিত একটি ক্লিনিকে আসা জনৈক লোকের মোবাইল ও টাকা চুরি করতে গেলে হাতেনাতে আটক হয়।

জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে সাথে থাকা তার ছোট বোনের কথা বললে লোকজন পিয়ারা বেগমকেও আটক করে। আটকের পর তাদেরকে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc