Friday 26th of February 2021 10:31:17 PM

নূরুজ্জামান ফারুকী নবীগঞ্জ থেকে:  আজ ১০ জানুয়ারী রবিবার সন্ধার পর নবীগঞ্জ নতুনবাজার মোড়ে নবীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী গোলাম রসুল রাহেল চৌধুরীর নৌকার সমর্থনে পথসভা শেষ হতে না হতেই ঘটনাস্থলে ২টি ককটেল বিস্ফোরনের ঘটনা সংগঠিত হয়।

এতে ঘটনাস্থলে শত শত জনতা দিকবিদিক ছুটাছুটি করে। শহরে সাধারন মানুষের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনার সাথে সাথে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে। ককটেল বিস্ফোরনে ৩জন পথচারী আহত হয়। আহতদের নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। আহতরা হলেন, পৌর এলাকার সালামতপুর গ্রামের ছমির মিয়ার ছেলে নজির মিয়া (৩৬), ভানুদেভ গ্রামের ফিরোজ মিয়ার ছেলে শিপন আহমদ (২২), প্রজাতপুর গ্রামের হুসেইন মিয়ার ছেলে তারেক আহমদ (২৪)।

পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানাযায়, আগামী ১৬ জানুয়ারী অনুষ্টিতব্য নবীগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী গোলাম রসুল রাহেল চৌধুরীর নৌকার সমর্থনে পথসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মহিলালীগের সাধারন সম্পাদক সাবেক এমপি অধ্যাপিকা অপু উকিল। এতে প্রায় সহশ্রাধিক লোকের সমাগম ঘটে। বক্তব্য শেষে প্রধান অতিথি সভা স্থল ত্যাগ করার সাথে সাথেই নতুন বাজার গোল চত্বর মোড়ে বিকট আওয়াজে দুটি ককটেল বিস্ফোরনের ঘটনা ঘটে। এতে সাধারন মানুষ আতংকে দিকবিদিক ছুটাছুটি করেন। খবর পেয়ে পুলিশ এসে ঘটনাস্থলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার ওসি মোঃ আজিজুর রহমান বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে সাথে সাথে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছেছে। এ ব্যাপারে ঘটনাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। সুষ্ট নির্বাচন সম্পনের জন্য পুলিশ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে। নির্বাচনে কোন অপশক্তি প্রভাবিত করতে পারবে না।

আজ রোববার ১০ জানুয়ারি বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। পাকিস্তানের বন্দীদশা থেকে মুক্তি পেয়ে ১৯৭২ সালের এদিন তিনি সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে প্রত্যাবর্তন করেন। এর আগে ৮ জানুয়ারি পাকিস্তানের মিয়ানওয়ালি কারাগারে দীর্ঘ ৯ মাস কারাভোগের পর মুক্তি লাভ করেন তিনি। পরে তিনি পাকিস্তান থেকে লন্ডন যান। তারপর দিল্লী হয়ে ঢাকা ফেরেন বঙ্গবন্ধু।

দিবসটি পালন উপলক্ষে আওয়ামী লীগ ও দলের বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনসহ বিভিন্ন দল ও সংগঠন ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়, বঙ্গবন্ধু ভবন ও সারা দেশে দলীয় কার্যালয়ে দলীয় ও জাতীয় পতাকা উত্তোলন, জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পাঞ্জলি নিবেদন এবং আলোচনা সভা। দিবসটি উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাণী দিয়েছেন।

১৯৭১ সালের ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করে বঙ্গবন্ধু সর্বস্তরের জনগণকে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহ্বান জানান। স্বাধীনতা ঘোষণার অব্যবহিত পর পাকিস্তানের সামরিক শাসক জেনারেল ইয়াহিয়া খানের নির্দেশে তাকে গ্রেপ্তার করে তদানীন্তন পশ্চিম পাকিস্তানের কারাগারে নিয়ে আটক রাখা হয়। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানি সৈন্যদের বিরুদ্ধে নয় মাস যুদ্ধের পর চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত হলেও ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মধ্য দিয়ে জাতি বিজয়ের পূর্ণ স্বাদ গ্রহণ করে।

জাতির পিতা পাকিস্তান থেকে ছাড়া পান ১৯৭২ সালের ৭ জানুয়ারি ভোর রাতে ইংরেজি হিসেবে ৮ জানুয়ারি। এদিন বঙ্গবন্ধু ও ড. কামাল হোসেনকে বিমানে তুলে দেয়া হয়। সকাল সাড়ে ৬টায় তাঁরা পৌঁছান লন্ডনের হিথরো বিমানবন্দরে। বেলা ১০টার পর থেকে বঙ্গবন্ধু কথা বলেন, ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড হিথ, তাজউদ্দিন আহমদ ও ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীসহ অনেকের সঙ্গে। পরে ব্রিটেনের বিমান বাহিনীর একটি বিমানে করে পরের দিন ৯ জানুয়ারি দেশের পথে যাত্রা করেন।

দশ তারিখ সকালেই তিনি নামেন দিল্লীতে। সেখানে ভারতের রাষ্ট্রপতি ভিভি গিরি, প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী, সমগ্র মন্ত্রিসভা, প্রধান নেতৃবৃন্দ, তিন বাহিনীর প্রধান এবং অন্যান্য অতিথি ও সেদেশের জনগণের কাছ থেকে উষ্ণ সংবর্ধনা লাভ করেন সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশের পিতা শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধু ভারতের নেতৃবৃন্দ এবং জনগণের কাছে তাদের অকৃপণ সাহায্যের জন্য আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানান। তার এই স্বদেশ প্রত্যাবর্তনকে আখ্যায়িত করেছিলেন ‘অন্ধকার হতে আলোর পথে যাত্রা হিসেবে।’
এদিন বেলা ১টা ৪১ মিনিটে তিনি ঢাকা এসে পৌঁছেন। চূড়ান্ত বিজয়ের পর ১০ জানুয়ারি বাঙালি জাতি বঙ্গবন্ধুকে প্রাণঢালা সংবর্ধনা জানানোর জন্য প্রাণবন্ত অপেক্ষায় ছিল। আনন্দে আত্মহারা লাখ লাখ মানুষ ঢাকা বিমান বন্দর থেকে রেসকোর্স ময়দান পর্যন্ত তাঁকে স্বতঃস্ফূর্ত সংবর্ধনা জানান। বিকেল পাঁচটায় রেসকোর্স ময়দানে প্রায় ১০ লাখ লোকের উপস্থিতিতে তিনি ভাষণ দেন।

পরের দিন দৈনিক ইত্তেফাক, সংবাদসহ বিভিন্ন পত্রিকায় বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন নিয়ে এভাবেই লিখা হয়- ‘স্বদেশের মাটি ছুঁয়ে বাংলাদেশের ইতিহাসের নির্মাতা শিশুর মতো আবেগে আকুল হলেন। আনন্দ-বেদনার অশ্রুধারা নামলো তার দু’চোখ বেয়ে। প্রিয় নেতাকে ফিরে পেয়ে সেদিন সাড়ে সাত কোটি বাঙালি আনন্দাশ্রুতে সিক্ত হয়ে জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু ধ্বনিতে প্রকম্পিত করে তোলে বাংলার আকাশ-বাতাস।’

জনগণ নন্দিত শেখ মুজিব সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে দাঁড়িয়ে তাঁর ঐতিহাসিক ধ্রুপদি বক্তৃতায় বলেন, ‘যে মাটিকে আমি এত ভালবাসি, যে মানুষকে আমি এত ভালবাসি, যে জাতিকে আমি এত ভালবাসি, আমি জানতাম না সে বাংলায় আমি যেতে পারবো কিনা। আজ আমি বাংলায় ফিরে এসেছি বাংলার ভাইয়েদের কাছে, মায়েদের কাছে, বোনদের কাছে। বাংলা আমার স্বাধীন, বাংলাদেশ আজ স্বাধীন।

সশ্রদ্ধ চিত্তে তিনি সবার ত্যাগের কথা স্মরণ করেন এবং সবাইকে দেশ গড়ার কাজে উদ্বুদ্ধ করে বলেন, ‘আজ থেকে আমার অনুরোধ, আজ থেকে আমার আদেশ, আজ থেকে আমার হুকুম ভাই হিসেবে, নেতা হিসেবে নয় প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নয় প্রেসিডেন্ট হিসেবে নয়। আমি তোমাদের ভাই, তোমরা আমার ভাই। এ স্বাধীনতা আমার পূর্ণ হবে না যদি বাংলার মানুষ পেট ভরে ভাত না পায়, এ স্বাধীনতা আমার পূর্ণ হবে না যদি বাংলার মা-বোনেরা কাপড় না পায়, এ স্বাধীনতা আমার পূর্ণ হবে না যদি এদেশের যুবক যারা আছে তারা চাকরি না পায়।
মুক্তিবাহিনী, ছাত্র সমাজ তোমাদের মোবারকবাদ জানাই তোমরা গেরিলা হয়েছো, তোমরা রক্ত দিয়েছো, রক্ত বৃথা যাবে না, রক্ত বৃথা যায় নাই।

বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘একটা কথা- আজ থেকে বাংলায় যেন আর চুরি-ডাকাতি না হয়। বাংলায় যেন আর লুটতরাজ না হয়। বাংলায় যারা অন্য লোক আছে অন্য দেশের লোক, পশ্চিম পাকিস্তানের লোক বাংলায় কথা বলে না, তাদের বলছি তোমরা বাঙালি হয়ে যাও। আর আমি আমার ভাইদের বলছি তাদের উপর হাত তুলো না আমরা মানুষ, মানুষ ভালোবাসি। ‘তবে যারা দালালি করেছে যারা আমার লোকদের ঘরে ঢুকে হত্যা করেছে তাদের বিচার হবে এবং শাস্তি হবে’ উল্লেখ করে জাতির পিতা বলেন, ‘তাদের বাংলার স্বাধীন সরকারের হাতে ছেড়ে দেন, একজনকেও ক্ষমা করা হবে না। তবে আমি চাই স্বাধীন দেশে স্বাধীন আদালতে বিচার হয়ে এদের শাস্তি হবে। আমি দেখিয়ে দিতে চাই দুনিয়ার কাছে শান্তিপূর্ণ বাঙালি রক্ত দিতে জানে, শান্তিপূর্ণ বাঙালি শান্তি বজায় রাখতেও জানে।’

বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘আমায় আপনারা পেয়েছেন। আমি আসছি। জানতাম না আমার ফাঁসির হুকুম হয়ে গেছে আমার সেলের পাশে, আমার জন্য কবর খোঁড়া হয়েছিল। আমি প্রস্তুত হয়েছিলাম, বলেছিলাম আমি বাঙালি, আমি মানুষ, আমি মুসলমান, মুসলমান একবার মরে দুইবার মরে না। আমি বলেছিলাম, আমার মৃত্যু আসে যদি আমি হাসতে হাসতে যাবো। আমার বাঙালি জাতকে অপমান করে যাবো না, তোমাদের কাছে ক্ষমা চাইবো না। এবং যাবার সময় বলে যাবো জয় বাংলা, স্বাধীন বাংলা, বাঙালি আমার জাতি, বাংলা আমার ভাষা, বাংলার মাটি আমার স্থান।’ সূত্র: বাসস।

জুড়ী (মৌলভীবাজার) সংবাদদাতাঃ  মৌলভীবাজারের জুড়ীতে পিকআক ভ্যানের সাথে মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছে। ঘটনাটি ঘটে রোববার (১০ জানুয়ারী) দুপুর ১২.৫৫ মিনিটে জুড়ী-লাঠিটিলা রাস্তার কলেজ রোড এলাকায়।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার জায়ফরনগর ইউনিয়নের হাসনাবাদ গ্রামের মৃত মুক্তাদির আলীর ছেলে কলেজ শিক্ষার্থী হোসাইন আহমদ (২৪) মোটরসাইকেল নিয়ে বাড়ি থেকে কলেজ মাঠে খেলতে যাবার পথে জুড়ী-লাঠিটিলা রাস্তার কলেজ সংলগ্ন ব্রীজের পাশে বিপরীত দিক থেকে আসা পিকআপ ভ্যানের সাথে সংঘর্ষ ঘটে। এতে মোটরসাইকেল আরোহি গুরতর আহত হলে সাথে সাথে জুড়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেল কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। জুড়ী থানা ওসি সঞ্জয় চক্রবর্তী, সড়ক দূর্ঘটনায় হোসাইন আহমদের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ   তৃতীয় ধাপে নড়াইল ও কালিয়া পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ১জন, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১ জন ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৯ জন প্রার্থী তাদের মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহান করেছেন। আজ রবিবার ছিল মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ।
জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানাগেছে, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে নড়াইল পৌরসভায় সাধারন কমিশনার পদে ১ জন এবং কালিয়া পৌরসভায় মেয়র পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী কালিয়া উপজেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি বিএম একরামুল হক টুলু,সংরক্ষিত কমিশনার পদে ১ জন ও সাধারন কমিশনার পদে ৮ জন মনোনয়ন প্রতাহার করেন।
এর ফলে নড়াইল ও কালিয়ায় মেয়র পদে ৭জন, সংরক্ষিত নারী কমিশনার পদে ২০ জন ও সাধারণ কমিশনার পদে ৭১ জন প্রার্থী এ নির্বাচনে অংশ গ্রহন করছে । এরমধ্যে নড়াইল পৌরসভায় মেয়র পদে ৪ জন , সংরক্ষিত নারী কমিশনার পদে ১১ জন ও সাধারণ কমিশনার পদে ৩৯ জন এবং কালিয়া পৌরসভায় মেয়র পদে ৩ জন , সংরক্ষিত নারী কমিশনার পদে ৯ জন ও সাধারণ কমিশনার পদে ৩২ জন প্রার্থীর এ নির্বাচনে প্রতিদ্বদ্ধিতা করবেন।
নড়াইল পৌরসভায় মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রাপ্ত নারী নেত্রী আঞ্জুমান আরা, মনোনয়ন বঞ্চিত নড়াইল পৌর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সরদার আলমগীর হোসেন আলম, বিএনপি মনোনয়ন প্রাপ্ত জুলফিকার আলী ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর মনোনয়ন প্রাপ্ত মাওলানা খায়রুজ্জামান এবং কালিয়া পৌরসভায় মেয়র পদে আওয়ামীলীগের মনোনয়নপ্রাপ্ত ওয়াহিদুজ্জামান হিরা, আওয়ামীলীগের মনোনয়ন বঞ্চিত সাবেক আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র মেয়র ফকির মুশফিকুর রহমান লিটন এবং বিএনপির মনোনয়নপ্রাপ্ত ওয়াহিদুজ্জামান মিলু প্রতিদ্বদ্ধিতা করবেন।
১১ জানুয়ারী প্রতীক বরাদ্দ এবং আগামী ৩০ জানুয়ারী এই দুই পৌরসভার ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে।

পিন্টু অধিকারী,মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের মাধবপুর পৌরসভার বিএনপি’র মনোনীত প্রার্থী হাবিবুর রহমান মানিকের পক্ষে বিএনপি ব্যাপক গণসংযোগ করেছেন। শনিবার সকাল থেকে মাধবপুর বাজার, শ্যামলীসহ বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করা হয়। এ সময় পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি জালাল আহম্মদ খাঁন, আব্দুল আজিজ, পৌর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক আলাউদ্দিন আল রনি, যুগ্ম আহবায়ক মোঃ মাসুকুর রহমান, লুৎফুর রহমান খাঁন, বিএনপির নেতা এড. সাজিদুল ইসলাম সজল, ইদ্রিছ আলী গেদু, মহারাজ খাঁন, আকবর আলী, জাহের মিয়া, আব্দুর রশিদ, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক সৈয়দ মোঃ সোহেল, উপজেলা যুবদলের আহবায়ক এনায়েতউল্লাহ, পৌর যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক এমদাদুল হক সুজন, জসিম শিকদার, ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক জুলহাসউদ্দিন রিংকু, শেখ জাহান রনি, খাইরুল আরাফাত রাজসহ শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

নূরুজ্জামান ফারুকী বিশেষ প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার বড়ইউড়ি গ্রামে পূর্ব বিরোধের জের ধরে তানভীর আহমেদ (২০) নামে এক কলেজছাত্রকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। ৯ জানুয়ারি রাত সাড়ে ১০ টায় মরদেহ উদ্ধারের করে ময়না তদন্তের জন্য হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ।

তানভীর আহমেদ বড়ইউড়ি গ্রামের মজিদ মিয়ার ছেলে। বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. এমরান হোসেন জানিয়েছেন, স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তানভীরের ক্ষতবিক্ষত মরদেহ উদ্ধার করে। দুর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে। নিহতের পরিবারের বরাত দিয়ে ওসি বলেন, তানভীরের বাবা মজিদ মিয়ার সঙ্গে একই গ্রামের আহম্মদ আলীর বিরোধ ছিল। এ নিয়ে একাধিক মামলাও রয়েছে। পুরোনো বিরোধকে কেন্দ্র করে আহম্মদ আলীর লোকজন তানভীরকে কুপিয়ে হত্যা করেছে। জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

মিজানুর রহমান,চুনারুঘাট: বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রিয় কার্যনির্বাহী কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক মনোনিত হওয়ায় হবিগন্জের চুনারুঘাটে ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমনকে এস এস সি ৯৫ ব্যাচের পক্ষ থেকে এক অনাড়ম্বর সংবর্ধনাদেয়া হয়েছে। (৯ জানুয়ারী) শনিবার চুনারুঘাট উপজেলা হল রুমে সংবর্ধনা প্রস্তুতি কমিটির আহব্বায়ক ফয়জল আবেদিন রিপন এর সভাপতিত্বে,মিজানুর রহমান বাবুল ও জুয়েল আহমদের যৌথ পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্হিত ছিলেন চুনারুঘাটের ঐতিহ্যবাহী ডিসিপি হাই স্কুলের সাবেক প্রধান শিক্ষক আলহাজ্ব ইন্তাজ উল্লা।
প্রধান মেহমান হিসেবে উপস্হিত ছিলেন সংবর্ধিত কেন্দ্রিয় আওয়ামী যুবলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন। অনুষ্ঠান শুরুতেই হবিগন্জ জেলার ৯টি উপজেলার এস এস সি ৯৫ ব্যাচ ও সিলেট ব্যাচ- ষ্টেইজে উঠে পরিচিতি প্রদান করেন  এবং সকল উপজেলার পক্ষ থেকে অতিথিগনকে ফুলের তোড়া দিয়ে বরণ করা হয়। আলোচনা পর্ব শেষে র‍্যালি করে পায়ে হেটে উপজেলার মুসলিম হল সেন্টারে মধ্যাহ্নভোজে অংশ নেন সকল অতিথিবৃন্দ। পরে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন সিলেটের খ্যাতনামা সঙ্গীত শিল্পী আশিক।

জেলা প্রতিনিধি, হবিগঞ্জ:হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে এক বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ।নিহত আব্দুল্লা মিয়া (৬২) উপজেলার আহম্মদাবাদ ইউনিয়নের গাদিশাল গ্রামের বাসিন্দা।

রোববার (১০ জানুয়ারী) বেলা ১২টায় এ লাশ উদ্ধার হয়।

নিহতের শালা রেজ্জাক মিয়া বলেন, নিহত আব্দুল্লা মিয়া মানসিক ভারসাম্যহীন ছিলেন এবং দীর্ঘদিন পাগল অবস্থায় বাড়িতে বাঁধা ছিলেন বলে তিনি জানান।চুনারুঘাট থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আলী আশরাফ এ ঘটনাটির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc