Saturday 6th of March 2021 01:29:32 PM

 নড়াইল প্রতিনিধিঃ  নববর্ষে নতুন বইয়ের ঘ্রাণে আনন্দে উদ্বেলিত শিক্ষার্থীরা। শিক্ষা নিয়ে গড়ব দেশ , শেখ হাসিনার বাংলাদেশ প্রতিপাদ্যকে সামনে নিয়ে নড়াইলে স্বাস্থ্য বিধি মেনে নতুন বছরে শিক্ষার্থীদের মাঝে নতুন পাঠ্য পুস্তক বিতরন২০২১ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। আজ শুক্রবার নড়াইল সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাঠ্য পুস্তক বিতরনের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা। 

নড়াইল সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ জাকির হোসেন সিকদারের সভাপতিত্বে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অ্যাডঃ সুবাস চন্দ্র  বোসঅতিরিক্ত পুীলশ সুপার মোঃ ইমরান হোসেন,জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ ছায়েদুর রহমান, বিদ্যালয়ের  শিক্ষকগণ, সীমিত আকারে শিক্ষার্থী অভিভাবকগন সময় উপস্থিত ছিলেন।  

এছাড়া জেলার ৩টি উপজেলার সরকারিবেসরকারি মাধ্যামিক প্রাথমিক বিদ্যালয় ,কারিগরি বিদ্যালয় মাদ্রাসায় পাঠ্য পুস্তক বিতরণের উদ্বোধন করা  হয়েছে।  

নড়াইল জেলায় ২০২১ শিক্ষা বর্ষে মাধ্যমিক পর্যায়ে ১১লক্ষ ৯৩ হাজার খানা পাঠ্যপুস্তক বিতরন করা হবে। এর মধ্যে এবতেদায়ী ১লক্ষ ২৩ হাজার ৫৮৬ খানা,মাধ্যমিক পর্যায়ে ৮লক্ষ ৬৬ হাজার ২৩০ খানা, মাদ্রাসা পর্যায়ে ১লক্ষ ৭৫ হাজার ৫৬১ খানা, এস,এস,সি ভোকেশনাল  ১১ হাজার ৬১৬ খানাদাখিল ভোকেশনাল হাজার ৭৪৭ খানা,

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ  নরসিংদীর বেলাবোতে যাত্রীবাহী বাস ও প্রাইভেটকারের সংঘর্ষে একই পরিবারের তিন বোনসহ চারজন নিহত হয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও এক জন।

আজ শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নরসিংদী ও ভৈরবের সীমান্তবর্তী এলাকা দরিয়াকান্দি নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে। খাইরুন্নাহার (৩০) কামনা (২৭) তৃষা (১৮) পিতার নাম আসাদুজ্জামান, চরসিন্দুর ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড গ্রাম ছলনা, থানা পলাশ, নরসিংদী জেলার বাসিন্দা। নিহতদের আত্মীয় আবুল হাসনাত বাবুল জানান,নিহতরা একই পরিবারের তিন বোন,একজন চাকরী করতেন বাকী দুই বোন লেখা পড়া করতেন,কারো বিবাহ হয়নি। তারা বেড়াতে গিয়েছিলো।

বেলাবো থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাফায়েত হোসেন পলাশ দুর্ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, আজ শুক্রবার বিকেলে ভৈরব থেকে যাত্রীবাহী একটি বাস ঢাকার দিকে যাচ্ছিল। এ সময় বিপরীত দিক থেকে আসা একটি প্রাইভেটকারের সঙ্গে বাসটির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে প্রাইভেটকারটি দুমড়ে মুচড়ে গিয়ে ঘটনাস্থলেই চারজন মারা যান।

ওসি আরও জানান, এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরও একজন। তাকে উদ্ধার করে ভৈরব হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি: মৌলভীবাজার জেলা শ্রীমঙ্গল উপজেলার সাতগাঁও বাজার সিন্দুরখাঁন রোডস্থ বীর মুক্তিযোদ্ধা আমিরুল ইসলাম স্মৃতি সংসদ ক্লাব এর ব‍্যবস্থাপনায়, তরিকুল ইসলাম লিটন এর আয়োজনে, মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা আমিরুল ইসলাম স্মরণে আজ শুক্রবার (১ জানুয়ারি) দিনব্যাপী ফ্রী চক্ষু চিকিৎসা দেওয়া হয়।

২ নং ভুনবীর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আব্দুর রশীদ এর সভাপতিত্বে ও ড. আব্দুল আজিজ এর সঞ্চালনায়, প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রেম সাগর হাজরা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান শ্রীমঙ্গল উপজেলা, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোঃ আলমগীর হোসেন সাধারণ সম্পাদক সাতগাঁও বাজার পরিচালনা কমিটি, মোহাম্মদ আনিছুল ইসলাম আশরাফী সভাপতি অনলাইন প্রেসক্লাব শ্রীমঙ্গল, কাউছার আহমেদ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখা,মোঃ নাছির আহমেদ সভাপতি এশিয়ান জার্নালিস্ট চ‍্যারিটেবল সোসাইটি শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখা,বদরুল ইসলাম বকুল মেম্বার ৮ নং ওয়ার্ড, সাংবাদিক আব্দুল মজিদ,আওয়ামী লীগ নেতা জালাল মিয়া,জাহাঙ্গির মিয়া ব্যবসায়ী,সাইফুল ইসলাম রিংকু সভাপতি মাধব পাশা দিঘীরপাড় সমাজ কল্যাণ পরিষদ, ডাঃ ইমদাত তুয়া,খালেদ আহমেদ জনি, জাহেদ ইসলাম, রায়হান ইসলাম, জিহাদ ইসলাম, জনি দেব প্রমুখ।

উল্লেখ্য দিনব্যাপী এই চক্ষু শিবিরে ৩৪৫ জন এর চিকিৎসা প্রদান করা হয় বলে আয়োজক সূত্রে জানা গেছে। চিকিৎসা ক্ষেত্রে সার্বিক সহযোগিতা করেন মৌলভীবাজার আধুনিক চক্ষু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

নূরুজ্জামান ফারুকী,বিশেষ প্রতিনিধি:  রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ার পদ্মা ও যমুনা নদীর মোহনায় আক্কাস মোল্লা নামের এক জেলের জালে ধরা পড়েছে বিশাল আকৃতির ২০ কেজি ৫শ গ্রাম ওজনের একটি কাতল মাছ।

নববর্ষের প্রথম দিনই শুক্রবার (১ জানুয়ারি) ভোরে মাছটি ওই জেলের জালে ধরা পড়ে।

সকালে মাছটি দৌলতদিয়া ঘাটের নাটু মোল্লার আড়তে বিক্রি করতে গেলে ঘাটের মাছ ব্যবসায়ী মো. চান্দু মোল্লা ১৬০০ টাকা কেজি দরে ৩২ হাজার ৮০০ টাকায় কিনে নেন। পরে তিনি ১৭শ টাকা কেজি দরে ৩৪ হাজার ৮৫০ টাকায় ঢাকায় মাছটি বিক্রি করেন। এ সময় মাছটি দেখতে ভিড় করেন স্থানীয়রা।

মাছ ব্যবসায়ী মো. চান্দু মোল্লা জানান, এখন নদীতে প্রায়ই বড় বড় মাছ ধরা পড়ছে। মাছ ধরা পড়ার পর জেলেরা দৌলতদিয়া ঘাটের আড়তে বিক্রি করতে আনেন। পরে তারা আড়তের মাধ্যমে কিনে সামন্য লাভে ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে যোগাযোগ করে বিক্রি করেন।

নূরুজ্জামান ফারুকী,বিশেষ প্রতিনিধি:  সিলেট-তামাবিল সড়কে ট্রাকের সাথে মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে গোলাম মোস্তফা (৫৫) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন আরও ৯ জন।

শুক্রবার সকাল ৭টার দিকে শাহপরান থানাধীন পরগণাবাজার এলাকায় এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। দুর্ঘটনায় নিহত গোলাম মোস্তফা ঢাকার চানখারপুল এলাকার মৃত আজিজ বেপারীর ছেলে।

শাহপরান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা (ওসি) আব্দুল কাইয়ুম জানান, ঢাকা থেকে মোস্তফাসহ ১০জন বৃহস্পতিবার রাতে একটি মাইক্রোবাসযোগে সিলেটের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। তারা ছুটির দিনে জাফলংসহ বিভিন্ন স্থানে বেড়ানোর জন্য এসেছিলেন।

সকালে তাদের মাইক্রোবাসটির সিলেটের পরগণাবাজারে এলে বিপরীত দিক থেকে আসা বালুভর্তি ডাম্প ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।

এসময় গুরুতর আহত হন মাইক্রোবাস যাত্রী গোলাম মোস্তফা। তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।

তার সাথের বাকি ৯ জনই কমবেশি আহত হয়েছেন। তাদের সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নাজমুল হক নাহিদ,আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি: সভ্যতার প্রায় উন্মেষকাল থেকেই বাংলাদেশের সবর্ত্রই যাতায়াত ও পরিবহনের জন্য একটি গুরুত্বপূণর্ যান ছিল ‘গরুর গাড়ি’। কিন্তু আধুনিক সভ্যতার বিবতের্ন যন্ত্রচালিত লাঙল বা পাওয়ার টিলার এবং নানা যন্ত্রযানের উদ্ভবের ফলে বিলুপ্তির ‘গরুর গাড়ি’।

মৎস্য ও শষ্য ভান্ডার খ্যাত নওগাঁর আত্রাইয়ের এক সময়ের যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম গ্রামবাংলার জনপ্রিয় ঐতিহ্যবাহি গরুর গাড়ি আজ বিলুপ্তির পথে। নতুন নতুন প্রযুক্তির ফলে মানুষের জীবনযাত্রার উন্নয়ন ঘটছে, পক্ষান্তরে হারিয়ে যাচ্ছে অতীতের এই ঐতিহ্য।

জানা যায়, গরুর গাড়ির ইতিহাস সুপ্রাচীন। খ্রিস্টজন্মের ১৬০০ – ১৫০০ বছর আগেই সিন্ধু অববাহিকা ও ভারতীয় উপমহাদেশের উত্তর-পশ্চিম অ লে গরুর গাড়ির প্রচলন ছিল, যা সেখান থেকে ক্রমে ক্রমে দক্ষিণেও ছড়িয়ে পড়ে। গ্রাম বাংলায় এ ঐতিহ্য আজ তা বিলুপ্তির পথে।

একসময় উত্তরা লের পল্লী এলাকার জনপ্রিয় বাহন ছিল গরুর গাড়ি। বিশেষ করে এই জনপদে কৃষি ফসল ও মানুষ বহনের জনপ্রিয় বাহন ছিল গরুর গাড়ি। যুগের পরিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে এই বাহন।

মাঝেমধ্যে প্রত্যন্ত এলাকায় দু-একটি গরুর গাড়ি চোঁখে পড়লেও শহরা লে একেবারেই দেখা যায় না। সে কারণে শহরের ছেলেমেয়েরা দূরের কথা, বর্তমানে গ্রামের ছেলেমেয়েরাও গরুর গাড়ি শব্দটির সঙ্গে পরিচিত নয়। এমনকি অনেক শহুরে শিশু গরুর গাড়ি দেখলে বাবা-মাকে জিজ্ঞেস করে গরুর গাড়ি সম্পর্কে।

গরু গাড়ি দুই চাকাবিশিষ্ট গরু বা বলদে টানা এক প্রকার বিশেষ যান। এ যানে সাধারণত একটি মাত্র অক্ষের সাথে চাকা দুটি যুক্ত থাকে। গাড়ির সামনের দিকে একটি জোয়ালের সাথে দুটি গরু বা বলদ জুটি মিলে গাড়ি টেনে নিয়ে চলে। সাধারণত চালক বসেন গাড়ির সামনের দিকে। আর পেছনে বসেন যাত্রীরা। বিভিন্ন মালপত্র বহন করা হয় গাড়ির পেছন দিকে। বিভিন্ন কৃষিজাত দ্রব্য ও ফসল বহনের কাজে গরুর গাড়ির প্রচলন ছিল ব্যাপক।

দুই যুগ আগেও গরুর গাড়িতে চড়ে বর-বধূ যেত। গরুর গাড়ি ছাড়া বিয়ে কল্পনাও করা যেত না। বিয়ে বাড়ি বা মাল পরিবহনে গরুর গাড়ি ছিল একমাত্র পরিবহন বাহন। গরুর গাড়ির চালককে বলা হয় গাড়িয়াল।

আর তাই চালককে উদ্দেশ্য করে রচিত হয়েছে ‘ওকি গাড়িয়াল ভাই’ কিংবা ‘আস্তে বোলাও গাড়ি, আরেক নজর দেখিয়া ন্যাং মুই দয়ার বাপের বাড়িরে গাড়িয়াল’ এরকম যগান্তকারী সব ভাওয়াইয়া গান।

তবে বর্তমানে নানা ধরনের মোটরযানের কারণে অপেক্ষাকৃত ধীর গতির এই যানটির ব্যবহার অনেক কমে এসেছে। তাই এখন আর তেমন চোখে পড়ে না। বর্তমান যুগ হচ্ছে যান্ত্রিক যুগ।

মানুষ বিভিন্ন ধরনের প্রয়োজনীয় মালামাল বহনের জন্য বাহন হিসেবে ব্যবহার করছে ট্রাক, পাওয়ার টিলার, লরি, নসিমন-করিমনসহ বিভিন্ন মালগাড়ি। মানুষের যাতায়াতের জন্য রয়েছে মোটরগাড়ি, রেলগাড়ি, বেবিট্যাক্সি, অটোরিকশা ইত্যাদি।

ফলে গ্রামা লেও আর চোখে পড়ে না গরুর গাড়ি। অথচ গরুর গাড়ির একটি সুবিধা হলো, এতে কোনো জ্বালানি লাগে না। ফলে ধোঁয়া হয় না। পরিবেশের কোনো ক্ষতিও করে না। এটি পরিবেশবান্ধব একটি যানবাহন।

আবার ধীর গতির কারণে এতে তেমন কোনো দুর্ঘটনারও আশংকা থাকে না। অথচ যুগের পরিবর্তনে আমাদের প্রিয় এই গরুরগাড়ি প্রচলন আজ হারিয়ে যাচ্ছে কালের অতল গর্ভে।

নূরুজ্জামান ফারুকী বিশেষ প্রতিনিধি: বানিয়াচংয়েজায়গা সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে দুইপক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ ১০ জন আহত হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে বানিয়াচং সদরের ২নং উত্তর পশ্চিম ইউনিয়নের রূপরাজখার পাড়া গ্রামে। এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, জায়গা সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে খোর্শেদ আলম ও ডালিম গংদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। গতকাল সকালে ডালিম গংরা খোর্শেদ আলম এর জায়গায় স্থাপনা নির্মাণ করতে চাইলে উভয়ের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। একই দিন বিকাল ৪টায় একই ঘটনার জের ধরে আবারো উভয়ের পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে শিক্ষক খোর্শেদ আলম, ফারুক মিয়া, আঃ শহীদ, আমিনুল, আকিরুন বেগম, রাহেনাসহ অন্তত ১০ জন লোক আহত হয়।

তন্মধ্যে গুরুতর আহত শিক্ষক খোর্শেদ আলম, ফারুক মিয়াকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ও আঃ শহীদকে সিলেট প্রেরণ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে বানিয়াচং থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ এমরান হোসেন এর সাথে আলাপকালে তিনি জানান, ঘটনাটি অবহিত হওয়ার পরপরই ঘটনাস্থলে পুলিশ প্রেরণ করা হয়েছে। ঘটনা পরবর্তী পরিস্থিতি এড়াতে এলাকায় পুলিশ টহল জোরদার করা হয়েছে।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ তৃতীয় ধাপে নড়াইল ও কালিয়া পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ৮জন, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ২১ জন ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৮১জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছে। এদের মধ্যে মেয়র পদে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন বঞ্চিত তিনজন প্রার্থী রয়েছে।
জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানাগেছে, বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ দিন পর্যন্ত নড়াইল পৌরসভায় মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রাপ্ত

নারী নেত্রী আঞ্জুমান আরা, মনোনয়ন বঞ্চিত নড়াইল পৌর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সরদার আলমগীর হোসেন আলম, বিএনপি মনোনয়ন প্রাপ্ত জুলফিকার আলী ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর মনোনয়ন প্রাপ্ত মাওলানা খায়রুজ্জামান মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এছাড়া সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১১জন ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪১ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

এছাড়া কালিয়া পৌরসভায় মেয়র পদে আওয়ামীলীগের মনোনয়নপ্রাপ্ত ওয়াহিদুজ্জামান হিরা, আওয়ামীলীগের মনোনয়ন বঞ্চিত সাবেক আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র মেয়র ফকির মুশফিকুর রহমান লিটন ও বিদ্রোহী প্রার্থী কালিয়া উপজেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি বিএম একরামুল হক টুলু এবং বিএনপির মনোনয়নপ্রাপ্ত ওয়াহিদুজ্জামান মিলু মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

এছাড়া সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১০জন ও সাধাররণ কাউন্সিলর পদে ৪০জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। আগামী ৩০ জানুয়ারী এই দুই পৌরসভার ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। ৩ জানুয়ারী মনোনয়ন বাছাই, ১০ প্রার্থীতা প্রত্যাহার এবং ১১ জানুয়ারী প্রতীক বরাদ্দ করা হবে।

আলী হোসেন রাজন,মৌলভীবাজারঃ  মৌলভীবাজার সদর পৌরসভা নির্বাচনে বৃহস্পতিবার (৩১ ডিসেম্বর) শেষ দিনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন মেয়র, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর ও সাধারণ আসনের কাউন্সিলর প্রার্থীরা। মেয়র ও কাউন্সিলর পদে মোট ৪৪ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত মনোনয়ন জমা নেয়া হয়।

প্রার্থীরা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মামুনুর রশিদের নিকট মনোনয়ন জমা দেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফরহাদ হোসেন।

মেয়র পদে ৩ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন,আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী বর্তমান মেয়র মো: ফজলুর রহমান (নৌকা), বিএনপি মনোনীত মেয়রপ্রার্থী অলিউর রহমান (ধানের শীষ) ও স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী সাইফুর রহমান বাবুল।

এছাড়াও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১০ জন ও সাধারন কাউন্সিলর পদে ৩১ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। নির্বাচন কমিশনের (সিইসি) তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ছিল আজ ৩১ ডিসেম্বর।

মনোনয়ন বাছাই করা হবে ৩ জানুয়ারী, আর প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ১০ জানুয়ারী। প্রার্থীরা আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচার শুরু করতে পারবেন ১১ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্ধের পর,আর ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৩০ জানুয়ারি ।

নূরুজ্জামান ফারুকী বিশেষ প্রতিনিধি:  হবিগঞ্জ শহরের টাউন হল এলাকা থেকে ১শ পিস ইয়াবাসহ শাহাদাত হোসেন (২২) নামে এক যুবককে আটক করেছে ডিবি পুলিশ। গতকাল বুধবার রাত ৭টার দিকে তাকে আটক করা হয়। আটককৃত শাহাদাত হোসেন চাদপুর জেলার মতলব উত্তর থানার বড় মুরাধন গ্রামের মোস্তাক মিয়ার ছেলে। ডিবি পুলিশ সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন ধরে আটককৃত শাহাদাত হোসেন হবিগঞ্জে মাদক ইয়াবাসহ মাদক দ্রব্য বিক্রয় করে আসছিল।

গতকাল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পেয়ে ডিবি’র এসআই রকিবুল ইসলাম ও এসআই আবুল কালাম আজাদের নেতৃত্বে একদল পুলিশ শহরের টাউন হল রোড এলাকার রূপালী ম্যানসনের পাছনের রাস্তায় ইয়াবা বিক্রয়কালে শাহাদাত হোসেনকে আটক করা হয়। এ সময় শাহাদাত হোসেনের আরেক সহযোগি দৌড় দিয়ে পালিয়ে যায়।

আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে ডিবি’র এসআই রকিবুল ইসলাম রবিকুল ইসলাম জানান এব্যাপারে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে আটককৃত শাহাদাত হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হবে।

নূরুজ্জামান ফারুকী, বিশেষ প্রতিনিধি: খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গার রিছাং ঝর্ণায় বেড়াতে গিয়ে পানিতে ডুবে অপু চন্দ্র দাশ (২৪) ও প্রীতম দেবনাথ (২৩) নামে দুই পর্যটকের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৩১ ডিসেম্বর) বিকালে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত প্রীতম দেবনাথ খাগড়াছড়ি সদরের রুখাই চৌধুরী পাড়ার মৃত দুলাল দেবনাথের ছেলে এবং অপু চন্দ্র দাশ লক্ষ্মীপুর সদরের ভাঙ্গাখা গ্রামের দেবব্রত দাশের ছেলে।

স্থানীয়রা জানায়, রিছাং ঝর্ণার উপরে দিকে আরেকটি ঝর্ণা রয়েছে। যেটি অনেক গভীর ও দুর্গম। বৃহস্পতিবার দুপুরে তারা ওই ঝর্ণায় গোসল করতে যায়। এ সময় ঝর্ণার পানিতে ডুবে তাদের মৃত্যু হয়। বিকেলে স্থানীয়রা মরদেহ পানিতে ভাসতে দেখে পুলিশকে খবর দেয়। পরে সেনাবাহিনীর সহায়তায় মাটিরাঙ্গা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ আলীর নেতৃত্বে মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত অপু চন্দ্র দাশের বন্ধু সোহেল জানান, স্বপ্নীল নামে এক ছাত্রের মায়ের বাবার বাড়ি খাগড়াছড়িতে বেড়াতে আসে অপু চন্দ্র দাশ। সেখান থেকেই স্বপ্নীলের মামা প্রীতম দেবনাথের সঙ্গে রিছাং ঝর্ণায় বেড়াতে যায় অপু। এরপর ঝর্ণার পানিতে ডুবে তাদের মৃত্যু হয়।

এদিকে ঘটনাকে অনাকাঙ্ক্ষিত মন্তব্য করে মাটিরাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ আলী বলেন, ঝর্ণার উৎসমুখে জমে থাকা পানির গভীর কূপে ডুবে তাদের মৃত্যু হতে পারে। পানিতে দুই পর্যটকের লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা খবর দিলে পুলিশ সেখানে যায়। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো প্রস্তুতি চলছে।

উল্লেখ্য, এর আগে গত ৬ সেপ্টেম্বর বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরতে এসে রিছাং ঝর্ণার গভীর পানিতে ডুবে মলাই জ্যোতি চাকমা (১৪) নামে এক স্কুলছাত্রের মৃত্যু হয়। নিহত মলাই জ্যোতি চাকমা পুলিশ কনস্টেবল জগত বন্ধু চাকমার ছেলে। সে খাগড়াছড়ি পুলিশ লাইনস্ স্কুলের ৮ম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

নূরুজ্জামান ফারুকী বিশেষ প্রতিনিধিঃ বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে ১০ ট্রাকে ১২০ মেট্রিক টন বিস্ফোরক দ্রব্য আমদানি করেছে দিনাজপুরের মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান। বুধবার (৩০ ডিসেম্বর) বিকেল ৫টায় ভারতের পেট্রাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ট্রাক ১০টি বেনাপোল বন্দরের ৩১ নম্বর ট্রান্সশিপমেন্ট ইয়ার্ডে প্রবেশ করে।

এএস ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট প্রতিষ্ঠান পণ্য চালানটি বন্দর থেকে খালাস নিতে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র বেনাপোল কাস্টমস হাউজে দাখিল করেছে। কাজ সম্পূর্ণ হলে ভারতীয় ট্রাক থেকে খালাস করে বাংলাদেশি ট্রাকে নেয়া হবে। পরে ট্রাক দিনাজপুরের উদ্দেশ্যে বেনাপোল বন্দর থেকে ছেড়ে যাবে।

বন্দর সূত্র জানায়, এক লাখ ৯৪ হাজার ৯১৮ মার্কিন ডলার মূল্যের ১২০ মেট্রিক টন ওজনের বিস্ফোরক দ্রব্য দিনাজপুর মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেড ভারত থেকে আমদানি করেছে। যার বাংলাদেশি টাকায় মূল্য এক কোটি ৬৫ লাখ ৬৮ হাজার টাকা।

বেনাপোল বন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক আব্দুল জলিল জানান, দিনাজপুরের মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের খনন কাজ পরিচালনার জন্য ভারত থেকে ১২০ মেট্রিক টন ওজনের বিস্ফোরক দ্রব্য আমদানি করেছে। দ্রুত পণ্য খালাসের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এছাড়া খালাসের স্থানে নিরাপত্তার জোরদার করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc