Thursday 3rd of December 2020 04:36:25 PM

নূরুজ্জামান ফারুকী বিশেষ প্রতিনিধি: সিলেটের জালালাবাদ থানা এলাকা থেকে বিদেশী অস্ত্র ও ইয়াবাসহ দুই শীর্ষ সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৯। রোববার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে এসএমপির জালালাবাদ থানাধীন পাঠানটুলা এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে ২০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, ৩ রাউন্ড গুলি, একটি টি রিভলবার, একটি বিদেশী পিস্তল জব্দ করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- সিলেটের জালালাবাদ থানা এলাকার মোহনা,ব্লক-বি ৩৭, করের পাড়ার মো.আব্দুর রহির ছেলে মো.তানভির আহম্মেদ (৩৪) ও সুনামগঞ্জ জেলার বাসিন্দা ও বর্তমানে জালালাবাদ থানার লক-বি ৩৭, করের পাড়া এলাকার সুকেশ সরকারের ছেলে সাগর সরকার (২৫)।

উদ্ধারকৃত আলামতসহ গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে র‌্যাব বাদী হয়ে এসএমপির জালালাবাদ থানায় অস্ত্র ও মাদক আইনে মামলা দায়ের করে তাদেরকে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করেছে বলে জানান র‌্যাব-৯এর মিডিয়া ওবাইন।

নূরুজ্জামান ফারুকী বিশেষ প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জে পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারের লাইসেন্স না থাকা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে চিকিৎসা দেয়ার অভিযোগে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সেই সাথে ওই সেন্টারে জয়ন্তী রাণী নামে এক নারীর বিএমডিসি সনদ না থাকা সত্বেও ডাক্তার পদবী ব্যবহার করায় ৬ মাসের কারাদ- দেয়া হয়েছে। গতকাল রোববার দুপুরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শামসুদ্দিন মোঃ রেজার নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান পরিচালনা করা হয়।

সূত্রে জানা যায়, উপজেলার হাসপাতাল রোডের অবস্থিত পপুলার ডায়াগনস্টিকে লাইসেন্স না থাকা, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে সেবা প্রদান ও দায়িত্বশীল মেডিক্যাল প্র্যাক্টিশনারের অনুপিস্থিস্থ্যসেবা প্রদানকারী ২ টি প্রতিষ্ঠানকে বন্ধ করে দেয়া হয়।

নিজস্ব প্রতিনিধি: মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ থানার সার্কেল অফিসার সিনিয়র এএসপি আশরাফুজ্জামান আশিক করোনা মুক্ত হয়েছেন বলে তিনি সকলের কাছে দোয়া চেয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। তিনি করোনা পজিটিভ অবস্থায় বেশ কিছুদিন কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন।

জানা যায়,গত ৩১ শে অক্টোবর বিকালে কাকিয়াবাজারে অনুষ্ঠিত গ্রীন কালাপুর এর ফুটবল টুর্নামেন্টের বিশেষ অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করার পর শারীরিক অবস্থা অবনতি দেখলে এক পর্যায়ে মাঠ থেকে চলে আসেন। ওই দিন রাতে করোনা উপসর্গ থাকায় সন্দেহমূলক ভাবে করোনা টেস্ট এর জন্য শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সহযোগিতায় পরের দিন (১ নভেম্বর) করোনা স্যাম্পল প্রেরণ করা হয়,পরের দিন চলতি নভেম্বর মাসের ২ তারিখে করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে।তখন থেকে তিনি সরকারী  স্বাস্থ্যবিধি পালন করে নির্ধারিত সময় পর্যন্ত কোয়ারেন্টাইন এ থেকে স্থানীয় চিকিৎসক ও পুলিশ প্রশাসনের সিনিয়র কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় সর্বশেষ আজ সোমবার (১৬ নভেম্বর) সন্ধ্যায় মহান আল্লাহর অসীম রহমতে করোনা টেস্টের রিপোর্টে নেগেটিভ আসে বলে জানান তিনি।

এ ব্যাপারে তিনি সকল শুভাকাঙ্খীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান এবং বলেন, মাননীয় পুলিশ সুপার জনাব ফারুক আহমেদ পিপিএম বার, ডাক্তার হরিপদ রায় প্রাক্তন বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক সিলেট। জনাব সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা শ্রীমঙ্গলসহ যারা আমার জন্য দোয়া ও সার্বিক সহযোগিতা করেছেন প্রত্যেকের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ । তিনি আরো বলেন আপনারা দোয়া করবেন আমি যেন সুস্থ থেকে দপ্তরের সকল কাজকর্ম নিয়মিতভাবে করে যেতে পারি।

কে এস এম আরিফুল ইসলাম: মৌলভীবাজার জেলায় সপ্তাহব্যাপী সচেতনতামূলক কার্যক্রম ও প্রচারণা শেষে, করোনা ভাইরাস সংক্রমণের সেকেন্ড ওয়েভ প্রতিরোধে মাস্ক পরিধান ও অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে আজ থেকে মোবাইল কোর্ট শুরু করেছে মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসন।

সোমবার (১৬ই নভেম্বর) দুপুরে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার চৌমুহনা, কোর্ট রোড, সেন্ট্রাল রোড এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে মোট ১৯ টি মামলায় ৭,৯০০/- টাকা অর্থদন্ড প্রদান ও আদায় করা হয়েছে।

মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট সানজিদা রহমান, মোঃ আরিফুল ইসলাম, মৌসুমী আক্তার, আসমা উল হুসনা, মোঃ তানভীর হোসেন, মোঃ রফিকুল ইসলাম ও অর্ণব মালাকার। এ বিষয়ে সাংবাদিকদের জানানো হয় যে, মাস্ক পরিধান নিশ্চিতে জেলা প্রশাসনের মোবাইল কোর্ট অব্যাহত থাকবে।

নূরুজ্জামান ফারুকী বিশেষ প্রতিনিধি: কমলগঞ্জে রেশমার গলিত লাশ উদ্ধারের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ।
এ ঘটনায় জড়িত ঘাতক প্রেমিক দিপেশ উরাংকে (২৪) আটক করেছে পুলিশ। তিনি পেশায় একজন সিএনজিচালক।

শনিবার রাতে রেশমার ছোট ভাই রহমত আলী বাদী হয়ে হত্যা মামলাটি দায়ের করেন। রোববার (১৫নভেম্বর) বিকেল ৪টায় মৌলভীবাজার আদালতে পাঠালে ১৬৪ ধারায় হত্যার ঘটনা বর্ণনা করেন ঘাতক প্রেমিক দিপেশ।

পুলিশ জানায় , ৮-৯ মাস আগে উপজেলার মাধবপুর চা-বাগানে বন্ধুর জন্য মেয়ে দেখতে গিয়ে সুনছড়া চা-বাগানের দীপেশ ওরাংয়ের সঙ্গে পরিচয় হয় রেশমার। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সর্ম্পক তৈরী হয়।

এ সর্ম্পক যখন গভীর হয়ে উঠে তখন রেশমা দীপেশকে বিয়ের চাপ দেয় ।এতে দীপেশ রাজি হয় এবং তারা সিদ্ধান্ত নেয় ৯ তারিখ সন্ধ্যার পর পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করবে।

পরিকল্পনা মোতাবেক দীপেশ রাত ৯টার দিকে বন্ধুর মোটরসাইকেল নিয়ে মাধবপুর চা-বাগান থেকে রেশমাকে নিয়ে দেওড়াছড়া চা বাগান হয়ে মৌলভীবাজারের দিকে রওনা হয়। দেওড়াছড়া চা-বাগানের ২৩নং সেকশনে পৌঁছানোর পর রাস্তা থেকে ১০-১৫ গজ ভেতরে চা বাগানের মাঝখানে দুজন বসে।

এ সময় দীপেশ প্যান্টের পেছনের পকেটে থাকা রশি বের করে পেছন থেকে রেশমার গলায় পেঁচিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে।

প্রেমিকের সঙ্গে ঘর বাঁধার স্বপ্ন নিয়ে রেশমা তার ব্যাগে নিয়েছিল কিছু কাপড়, রেশমি চুড়ি ও কসমেটিক্স। দীপেশ সেগুলো কিছু দূরে ফেলে রেখে চলে যায়। পেছনে পড়ে থাকে রেশমার নিথর দেহ।

অন্যদিকে রেশমার পরিবারের লোকজন খোঁজাখুঁজি করতে থাকে তাকে। একদিন দুদিন করে সময় গড়িয়ে যায়, চা বাগানের জনহীন স্থানে পরে তাকে রেশমার মৃতদেহ।

১৩ তারিখ চা শ্রমিকরা কাজ করতে গিয়ে একটি মেয়ের মৃতদেহ দেখে কমলগঞ্জ থানা পুলিশকে খবর দেয়।

প্রেমিকের সঙ্গে ঘর বাঁধার স্বপ্ন নিয়ে রেশমা তার ব্যাগে নিয়েছিল কিছু কাপড়, রেশমি চুড়ি ও কসমেটিক্স। দীপেশ সেগুলো কিছু দূরে ফেলে রেখে চলে যায়। পেছনে পড়ে থাকে রেশমার নিথর দেহ।

অন্যদিকে রেশমার পরিবারের লোকজন খোঁজাখুঁজি করতে থাকে তাকে। একদিন দুদিন করে সময় গড়িয়ে যায়, চা বাগানের জনহীন স্থানে পরে তাকে রেশমার মৃতদেহ।

১৩ তারিখ চা শ্রমিকরা কাজ করতে গিয়ে একটি মেয়ের মৃতদেহ দেখে কমলগঞ্জ থানা পুলিশকে খবর দেয়। কমলগঞ্জ পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছে।

পরে পুলিশ সুপারের নির্দেশে পিবিআই ফিঙ্গারপ্রিন্ট বিশেষজ্ঞ টিমকে ঘটনাস্থলে ডাকা হয়। পিবিআই টিম ফিঙ্গারপ্রিন্ট নিতে ব্যর্থ হয় কারণ লাশে পচন ধরে গিয়েছিল। পুলিশ আইনগত প্রক্রিয়া শেষে লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়।

১৪ তারিখ রেশমা আক্তারের বড় ভাই সিরাজুল ইসলাম পুলিশের মাধ্যমে হাসপাতালে গিয়ে লাশের পরিধেয় কাপড়, গলায় তাবিজ ও পায়ের নুপুর দেখে লাশটি তার বোনের বলে শনাক্ত করেন।

ইতোমধ্যেই পুলিশ ভিকটিমের পরিচয় ও ঘটনার রহস্য উদঘাটনে তৎপর হয়। সার্বিক তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে পুলিশ হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে কিছুটা আঁচ করতে পারে।

প্রাথমিকভাবে তিনজন সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে টার্গেট করে এগোতে থাকে পুলিশের তদন্ত কার্যক্রম। সন্দেহভাজন দীপেশ ওরাংকে ১৪ তারিখ সুনছড়া চা বাগানের বাজার লাইন থেকে আটক করা হয়।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায়, রেশমাকে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় দেওড়াছড়া চা বাগানে কে বা কারা তার মোটরসাইকেল আটকে রেশমাকে নিয়ে যায় এবং তাকে মারধর করে। এরপর সে বাড়ি চলে আসে কিন্তু ভয়ে কাউকে কিছু জানায়নি।

দীপেশের কথাবার্তার মধ্যে যথেষ্ট সন্দেহের সৃষ্টি হয়। তার কথার সত্যতা যাচাই করার জন্য যে বন্ধুর মোটরসাইকেল নিয়েছিল তার সঙ্গে কথা বলে পুলিশ বুঝতে পারে দীপেশই এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জান আশিক জানান, ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে দীপেশ এক পর্যায়ে পুরো ঘটনা স্বীকার করে জানায় তাদের দুজনের মধ্যে শারীরিক সম্পর্ক হয়। তাই রেশমা আক্তার তাকে বিয়ের জন্য চাপ দিচ্ছিল। তা না হলে রেশমা তার নামে নারী নির্যাতন মামলা করবে। এই নারী নির্যাতন মামলার ভয়ে দীপেশ ঠান্ডা মাথায় রেশমাকে খুনের পরিকল্পনা করেন।

এই পরিকল্পনার অংশ হিসেবে দীপেশ রেশমাকে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করার কথা বলে ৯ তারিখ রাতে দেওড়াছড়া চা বাগানে নিয়ে গলায় রশি পেঁচিয়ে হত্যা করে।

শ্রীমঙ্গলের সাত গাঁও চা বাগানেশতাধিক ভক্তবৃন্দ দের আগমনে উদযাপন করা হয় দীপদান মহোৎসব।

মৌলভীবাজার জেলা শ্রীমঙ্গল উপজেলার সাত গাঁও চা বাগানের কামার পাড়ায় দীন যুব সংঘের আয়োজনে রোববার ১৫/১১/২০২০ ইং তারিখ রোজ রবিবার সন্ধ্যা ৬ টা থেকে শুরু করা হয় দীপদান মহোৎসব।
উক্ত দীপদান মহোৎসবে দীপদানের মাহাত্ম্য ও ধর্মীয় আলোচনা করেন শ্রীমান হরিভক্ত চৈতন্য দাস ব্রহ্মচারী, পরিচালক ইসকন ইয়ুথ ফোরাম, শ্রী শ্রী নরসিংহ জিউ মন্দির, ইসকন হবিগঞ্জ।
এছাড়াও আরো ধর্মীয় বিষয়ে আলোচনা করেন হবিগঞ্জ ইসকন মন্দিরের প্রদীপ সরকার।

ধর্মীয় আলোচনা ও দীপদান মহোৎসব উদযাপন শেষ হওয়া পর পরই শুরু হয় বর্তমান সুশীল সমাজ গঠনে ইসকনে ভুমিকা নামক ধর্মীয় টকশো । উক্ত টকশো পরিচালনা করেন শ্রীমান লিটন চৌধুরী, অভিনয়ে ছিলেন শ্রী তীর্থলাল দাস এবং শ্রীমান শিরোমণি নিতাই দাস ব্রহ্মচারী। এছাড়াও আরো সহযোগিতায় ছিলেন শ্রী শ্রী নরসিংহ জিউ মন্দির ইসকন হবিগঞ্জ এর সুমুখ কানাই দাস ব্রহ্মচারী,অজীত কৈরী,টিটন দাস, প্রদীপ সরকার, সুরেন্দ্র দাস, দুর্জয় ঋষি,সন্জীৎ ঋষি, সজীব ঋষি,দয়ানন্দ ঋষি,জুয়েল দাস, সাগর দাস, নেপাল দাস,অজীৎ দাস,শ্রীমান নিতাই তনুবলরাম দাস,চমক ব্রত,সেবক দাস,সর্বপালক গৌবিন্দ দাস। এছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন দীন যুব সংঘের উজ্জ্বল কর্মকার,অমল মাল,ধীরেন কর্মকার,সাজেন উরাং, সুদীপ কৈরী সাংবাদিক সহ আরো গণমান্য ব্যক্তিবর্গ গন। ধর্মীয় টকশো শেষে সকল ভক্তদের মাঝে মহাপ্রসাদ বিতরন করে উক্ত অনুষ্ঠানে সমাপ্ত করা হয়।

জাতীয় সংসদের সাবেক ডেপুটি স্পিকার ও আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামি কর্নেল (অব.) শওকত আলী মারা গেছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তার ছেলে খালেদ শওকত আলী। সোমবার (১৬ নভেম্বর) সকালে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান এর আগে কিডনি, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপসহ বার্ধক্যজনিত সমস্যায় ভুগছিলেন কর্নেল শওকত আলী। পরে অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় গত ২৯ অক্টোবর তিনি সম্মিলিত সামরিক হাসপাতলে (সিএমএইচ) ভর্তি হন। বেশ কয়েদিন ধরে তিনি হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন।
তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন পানিসম্পদ উপমন্ত্রী ও শরীয়তপুর-২ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য একেএম এনামুল হক শামীম।সাবেক ডেপুটি স্পিকার কর্নেল শওকত আলী শরীয়তপুর-২ আসন থেকে ৫ পাঁচবার জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। ব্যক্তিজীবনে তিনি দুই ছেলে ও এক কন্যার জনক।
পাকিস্তান আমলে ১৯৬৯ সালে বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে যে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা করা হয়েছিল, তাতে শওকত আলীকেও আসামি করা হয়। তিনি মুক্তিসংহতি পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান এবং ৭১ ফাউন্ডেশনের প্রধান উপদেষ্টা।

 মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার কালাপুর ইউনিয়নের পশ্চিম লামুয়া গ্রামের কৃষকদের নিয়ে পরিবেশবান্ধব কৌশলের মাধ্যমে নিরাপদ ফসল উৎপাদন প্রকল্পের আওতায় খরিপ মৌসুমে বাস্তবায়িত জৈব কৃষি বালাই দমন ব্যবস্থাপনা প্রদর্শনীর মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়।

রোববার (১৫ নভেম্বর) মাঠ দিবস অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ নিলুফার ইয়াসমিন মোনালিসা সুইটি, উপস্থিত ছিলেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা রাখেন্দ্র শর্মা, উপ-সহকারী শামীম আহমেদ সহ এলাকার কৃষকগণ,

উক্ত মাঠ দিবসে কৃষি অফিসার মোনালিসা সুইটি কীটনাশকমুক্ত জৈব উপায়ে সবজি চাষের উপর গুরুত্ব আরোপ করে আলোচনা করেন, পাশাপাশি শস্যের নিবিড়তা বৃদ্ধিকরণে গম,ভুট্টা,সূর্যমুখী ও সরিষা চাষের উপর গুরুত্ব আরোপ করে বলেন জমি পতিত ফেলে না রেখে রবি মৌসুমে এসব জমি চাষের আওতায় আনার জন্য কৃষকদের উৎসাহিত করেন,পাশাপাশি বোরো মৌসুমে জমিতে অধিক ফলন উৎপাদন কৌশল সম্বন্ধে আলোকপাত করেন।

নূরুজ্জামান ফারুকী বিশেষ প্রতিনিধি: হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে আমির নির্বাচিত হয়েছেন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। মহাসচিব নির্বাচিত হয়েছেন ঢাকার জামিয়া মাদানিয়া বারিধারা মাদরাসার প্রিন্সিপাল ও হেফাজতের ঢাকা মহানগর শাখার আমির নূর হোসাইন কাসেমী।

রোববার (১৫ নভেম্বর) চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদরাসায় আয়োজিত সম্মেলনের মাধ্যমে এ কমিটি গঠন করা হয়।

হেফাজতের কেন্দ্রীয় কমিটিতে সিলেটের ১০ জন কওমী নেতা স্থান পেয়েছেন। তারা হলেন, উপদেষ্টা-আল্লামা শায়খ যিয়া উদ্দীন আঙ্গুরা, মুফতী রশিদুর রহমান ফারুক বরুনা, মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক, সহ সভাপতি মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফী, মাওলানা মুহিব্বুল হক্ব গাছবাড়ি, মাওলানা নূরুল ইসলাম খান সুনামগঞ্জী, মাওলানা নূরুল ইসলাম ওলীপুরী, অধ্যাপক আহমদ আব্দুল কাদের, আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট মাওলানা শাহীনূর পাশা চৌধুরী, সহ আন্তর্জাতিক সম্পাদক মাওলানা শোয়াইব আহমদ, মাওলানা আব্দুল কাদের সালেহ, মাওলানা গোলাম কিবরিয়া, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা হাফিজ তাফহিমুল হক হবিগঞ্জী, নির্বাহী সদস্য মাওলানা তাফাজ্জুল হক আজিজ ও মাওলানা জামিল আহমদ আনসারী।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হেফাজতে ইসলাম সিলেট মহানগরের প্রচার সম্পাদক মাওলানা সালেহ আহমদ শাহবাগী।

“হোটেল রেজিস্টারে তার কোন দস্তখত নেওয়া হয়নি সিসিটিভি দেখলেই সব পাওয়া যাবে দাবী ভিকটিমের” 

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ শ্রীমঙ্গল উপজেলা শহরের চৌমুহনার সন্নিকটে মৌলভীবাজার রোডস্থ আবাসিক হোটেল ইসাকি ইমুসে দু’দিন আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ করেছে মহাজেরাবাদ এলাকার রাধানগরের হাসান ট্রেইলারের মালিক মোঃ হাসান মিয়া নামের প্রেমিকের সাথে বিয়ের আশ্বাসে গাজীপুর থেকে আসা খুলনার বিশোর্ধ এক নারী জেমি (ছদ্মনাম)।

খুলনা জেলার লবণচোরা জিন্নাপাড়া এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা ওই নারী (ছদ্মনাম জেমি) গাজীপুরে থাকতেন। উপজেলার দিল্বরনগর গ্রামে বসবাস কারী ও রাধানগর এলাকায় দর্জির দোকানদার প্রেমিক হাসানের বিয়ের আশ্বাসে “শ্রীমঙ্গলে শহরের মৌলভীবাজার রোডস্থ আবাসিক হোটেল ইসাকি ইমুসে নিয়ে এখানে কয়েকদিন থাকার কথা বলে প্রেমিক হাসান।এ সময় হোটেল রেজিস্টারে নাম উঠানো লাগবেনা বলে হোটেলে কর্মরত এক মহিলা কর্মী জানান বলে ভিকটিম জেমি (ছদ্মনাম) এ প্রতিনিধিকে জানান। জেমি আরও জানান, দু দিনে কমপক্ষে ৮ থেকে ১০ বার থাকে অনৈতিক কাজ করতে বাধ্য করা হয়েছে। একপর্যায়ে অন্য পুরুষের হাতে তুলে দিতে চেষ্টা করলে আমি আপত্তি জানাই পরে আমাকে একা রেখে হোটেল থেকে পালিয়ে যায় হাসান।তাকে খুঁজে না পেয়ে তার এলাকায় গিয়ে স্থানীয়দের কাছে অভিযোগ করলে কয়েকজন আমাকে থানায় নিয়ে আসে এবং এক পর্যায়ে থানায় আমাকে রেখে ওরাও চলে যায়।”

তিনি এ প্রতিনিধিকে আরও বলেন, “নিরুপায় হয়ে হাসানকে খুঁজতে অটোরিকশা নিয়ে আবারও তার দোকানে (হাসান ট্রেইলারস) যাওয়ার সময় শ্রীমঙ্গলের ভানুগাছ রোডের রাবার বাগানের পাশে আমাকে আটকিয়ে মার পিঠ করে নির্যাতন করে গুরুতর আহত করে প্রায় ১৬ হাজার টাকা,মোবাইল,ভ্যানিটি ব্যাগ,কাপর চোপর সব নিয়ে যায়। পরে আহতাবস্থায় পথচারীদের সহযোগিতায় শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় ভর্তি হয়ে চিকিৎসারত ছিলাম। আজ রোববার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে সশরীরে এসে শ্রীমঙ্গল থানায় অভিযোগ দ্বায়ের করেন ধর্ষিত নারী জেমি (ছদ্মনাম)। কথা বলার সময় জেমি বারবার সিসিটিভি চেক করে তার বিচারের ব্যবস্থা করার জন্য কাঁদতে থাকেন এবং বলতে থাকে হোটেল রেজিস্টারে তার কোন দস্তখত নেওয়া হয়নি সিসিটিভি দেখলেই সব পাওয়া যাবে, সিসিটিভি কেউ দেখতে চাইনা” বলে বারবার অভিযোগ করেন।

পরে হাসপাতাল থেকে থানায় এসে ওই নারী বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ, নির্যাতন, টাকা-পয়সা (প্রায় ১৬ হাজার টাকা ) ও এন্ডড্রইয়েট মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ করেন।

অভিযোগের ভিত্তিতে শ্রীমঙ্গল থানার কর্মকর্তা ওসি আব্দুস ছালিকের নির্দেশক্রমে এস আই তিতংকর দাস পুলিশ সদস্যদের সহযোগিতায় আহত নারীকে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করেন।

এ ব্যাপারে মামলার আইও তিতংকর দাসের সাথে কথা হলে তিনি বলেন “আমরা মেয়েটিকে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠিয়েছি।”

ধর্ষণ ও নির্যাতনের অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে ওসি আব্দুস ছালিক দুলাল বলেন, “মেয়েটির অভিযোগের ভিত্তিতে তাকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে পুলিশি প্রহরায় চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এই দিকে  হাসান মিয়া পিতা অজ্ঞাত যার নামে অভিযোগ করেছে আমরা তার রাধানগরস্থ হাসান ট্রেইলার্সে অভিযান পরিচালনা করেছি সেটি বন্ধ, সে পলাতক রয়েছে, জানতে পারি তিনি এখানকার স্থায়ী বাসিন্দা না সম্ভবত কসবা এলাকার বলে তথ্য পাওয়া গেছে। তদন্ত সাপেক্ষ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। তিনি এক প্রশ্নের উত্তরে আরও বলেন, রুমে তো সিসিটিভি নেই,হোটেলের সিসিটিভিও দেখা হবে এবং  হাসানকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।” আরও বিস্তারিত জানতে পরের সংবাদে খেয়াল রাখুন।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc