Thursday 22nd of October 2020 12:34:43 AM

বেনাপোল প্রতিনিধি:  যশোরে দিনে-দুপুরে থানার পাশে বোমা ফাটিয়ে ও  ছুরিকাঘাত করে ব্যবসায়ীর ১৭ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় ৫ জনকে আটক করেছে পুলিশ।
বুধবার বিকাল থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করা হয়। এসময় ছিনতাইকৃত ২ লাখ ৪৮ হাজার ৫০০ টাকা ও ছিনতাইয়ের কাজে ব্যবহৃত ২টি চাকু, ব্যাগ, মোবাইল ফোন ও মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়।  আটককৃতরা হলেন টিপু, সাইদ, বিল্লাল, রায়হান ও ইমদাদুল। তাদের বাড়ি যশোর শহরের বিভিন্ন এলাকায়।
বৃহস্পতিবার দুপুরে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে পুলিশ সুপার আশরাফ হোসেন বলেন, সিসি টিভি ফুটেজ থেকে আসামীদের সনাক্ত করতে সক্ষম হয় পুলিশ। এরপর অভিযান চালিয়ে ৫ জনকে আটক করা হয়। এঘটনায় জড়িতদের আটক অভিযান অব্যহত আছে।
এদিকে বুধবার গভীর রাতে চাঁচড়া ফাড়ির উপ পরিদর্শক মাসুদুর রহমানের নেতৃত্বে যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের মালঞ্চী এলাকায় অভিযান চালিয়ে একটি ইট ভাটা থেকে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ০৩ জনকে আটক করা হয়। এসময় বিপুল পরিমাণ আগ্নেয়াস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার হয়।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জে দুটি উপজেলায় খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল কালো বাজারে পাচার কালে পৃথক দুটি অভিযানে ৬৮বস্তা চালসহ ৪জনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হল,তাহিরপুর উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের নামাগাও গ্রামের প্রভাত ও আলাল মিয়া। অন্য দিকে,দোয়ারা বাজার উপজেলায় পান্ডারগাও গ্রামের আনোয়ার হোসেনের আনু ও মাসুক আলম।

বুধবার(৩০,০৯,২০২০)রাতে জেলার তাহিরপুর ও দোয়ারা বাজার উপজেলায় অভিযান চালিয়ে ৬৮বস্তা(প্রতি বস্তায় ৩০কেজি)আটক করা হয়। আটক কৃতদের বিরোদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

দোয়ারা বাজার উপজেলায় খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ৫৮বস্তা চাল কালো বাজারে পাচার কালে বুধবার রাতে পান্ডারগাও গ্রামের আনোয়ার হোসেনের আনু ও মাসুক আলমকে দোয়ারা বাজার থানা পুলিশ আটক করে। এই ঘটনায় সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানান ওসি নাজির আলম।

অন্যদিকে তাহিরপুর উপজেলায় খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল কালো বাজারে বিক্রি করার অপরাধে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ১০বস্তা(প্রতি বস্তায় ৩০কেজি)চালসহ দুইজনকে আটক করেছে। আটককৃতরা হল,উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের মোয়াজ্জেমপুর গ্রামের পরমেশ্বর সরকারের ছেলে প্রভাত সরকার ডিলারের সহযোগী ও লামাগাও গ্রামের আলাল মিয়া একজন অক্ষর জ্ঞানহীন ষ্টোকের রোগী।

বুধবার (৩০,০৯,২০২০) রাত ১২টায় উপজেলায় লামাগাও বাজার থেকে অভিযান চালিয়ে ১০বস্তা (প্রতি বস্তায় ৩০কেজি) আটক করা হয়।

এঘটনায় বৃহস্পতিবার (০১,১০,২০২০) দুপুরে ডিলারসহ ৮জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছে তাহিরপুর উপজেলা খাদ্য গোদাম কর্মকর্তা। তবে ধরাচোয়ার বাহিরে রয়েছে মুল আসামীরা।

তাহিরপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম জানান,উপজেলা নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা মফিজুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলা দায়েরের করা হয়েছে। ডিলারসহ ৮জনকে আসামী করে বিশেষ ক্ষমতা আইনে ২৫(১)/২৫ ডি ধারায় মামলা দায়েরের করা হয়েছে। মামলা নং ৩,তারিখ ০১,১০,২০২০।

এ বিষয়ে আটক সাবেক মেম্বার ও ডিলার সহযোগী প্রভাত সরকার জানান,বুধবার (৩০,০৯,২০২০) সন্ধ্যায় আলাল মিয়ার কাছে চাল বিক্রি করে ডিলার সরুফ মিয়া,আলী রব,ফটিক মিয়া,কিবরিয়া মেম্বার,বজলুর রশীদ,শাসসুন নুর তখন আমি ছিলাম না।
এবিষয়ে আটক অক্ষরজ্ঞানহীন অসুস্থ ষ্টোকের রোগী আলাল মিয়া জানান,আমি লেখাপড়া জানি না। ডিলার সরুফ মিয়া,আলী রব,ফটিক মিয়া,কিবরিয়া মেম্বার ও বজলুর রশিদ চাল আমার কাছে বিক্রি করে। আমি জানতাম না এটি সরকারী চাল।

তাহিরপুর উপজেলা খাদ্য গোদাম কর্মকর্তা মোঃ মফিজুর রহমান বলেন,খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল কালো বাজারে পাচার কালে ১০বস্তা চালসহ ২জনকে আটক করা হয়েছে। আমাদের উর্ধবতন কতৃপক্ষ ঘটনাস্থলে গিয়েছেন পরির্দশন করেছেন। এই বিষয়ে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

সরজমিনে স্থানীয় এলাকাবাসীর কাছ থেকে জানাযায়,উপজেলার হাওর বেষ্টিত দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের চারটি ওয়াডে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ৪৫০বস্তা চাল ৪৫০জন কার্ডধারীর মধ্যে বিতরণ বরাদ্দ দেওয়া হয় খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের ডিলার সরুফ মিয়াকে। কিন্তু ডিলার তার সহযোগী নেয় আলী রব,প্রভাত সরকার,ফটিক মিয়া,কিবরিয়া মেম্বার,বজলুর রশীদ,শাসসুন নুরকে। লামাগাও বাজারে ক্ষুদ্র চাল বিক্রেতা অক্ষর জ্ঞানহীন ষ্টোকের রোগী আলাল মিয়কে ভুল বুজিয়ে ডিলার সরুফ মিয়া,আলী রব,ফটিক মিয়া,কিবরিয়া মেম্বার,বজলুর রশীদ সরকারি খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি চাল বিক্রি করে। কালো বাজারে চাল বিক্রি করেছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাহিরপুর থানা এস আই দীপংকরসহ পুলিশের একটি চৌকস দল অভিযান চালিয়ে ১০বস্তা চালসহ একজন অক্ষর জ্ঞানহীন ষ্টোকের রোগী লামাগাও গ্রামের আলাল মিয়ার কাছ থেকে চালসহ আটক করে। ও পরে আটক করে সাবেক মেম্বার ও ডিলার সহযোগী প্রভাত সরকারকে।

সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক আব্দুল আহাদ জানান,কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাই সন্মানিত সংবাদদাতাদের। এ-ধরনের ক্ষেত্রে যেকোনো সময় দ্রুত খবর দেবার জন্য পুনরায় সকলকে অনুরোধ করছি।

নূরুজ্জামান ফারুকী,নবীগঞ্জঃ হবিগঞ্জে বিপুল পরিমাণ বিভিন্ন ব্যান্ডের ভারতীয় তেল ও ওষুধসহ এক চোরাকারবারিকে আটক করেছে ডিবি পুলিশ। গতকাল বুধবার বিকেলে ডিবির ওসি মানিকুল ইসলামের নেতৃত্বে এসআই মোজাম্মেল মিয়া ও দেবাশীষ দাশসহ একদল পুলিশ ২নং পুল সিরাজ খানের বাড়ির সড়কে অভিযান চালিয়ে নজরুল ইসলাম (৪০) নামের এক ব্যক্তিকে আটক করেন।

সে চুনারুঘাট উপজেলার উত্তর কাচুয়া গ্রামের আব্দুল বাসিরের পুত্র। এসময় তার কাছ থেকে ওলিব ওয়েল ১৯০ বোতল, নবরতœ ১০৫০ বোতল, হেয়ার ওয়েল কেকুনা ২৫৫ বোতল, যৌন উত্তেজক পিপিডন ট্যাবলেট ২২ হাজার ২৩০ পিস, আতশবাশি ৩ হাজার পিসসহ বিভিন্ন ব্যান্ডের ভারতীয় মালামাল উদ্ধার করা হয়। পুলিশ জানায়, দীর্ঘদিন ধরে নজরুল চোরাই পথে ভারতীয় তেল এনে শহরের বিভিন্ন দোকানে বিক্রি করে।

বিষয়টি পুলিশের নজরে এলে গতকাল তারা উৎপেতে থাকে। এ ব্যাপারে ডিবি পুলিশ বাদি হয়ে মামলা করেছে।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ  সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা সীমান্তের চানপুর-বারেকটিলা সড়কে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় তরিকুল ইসলাম (৩৫)নামে একজন নিহত হয়েছে। নিহত তরিকুল উপজেলা পল্লী বিদ্যুৎতে ঠিকাদারের লাইনম্যান হিসাবে কর্মরত ছিল। সে পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারী থানার আলোয়াখোয়া ইউনিয়নের নুহ ইসলামের ছেলে।

বৃহস্পতিবার (১ আগস্ট ) সন্ধ্যার পর পর উপজেলার উত্তর বড়দল ইউনিয়নের রাজাই নামক স্থানে দুর্ঘটনাটি ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় এলাকাবাসী জানান,উপজেলার বড়দল উত্তর ইউনিয়নের চাঁনপুর বাজার থেকে বারেক টিলার রমজান আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (২৫)প্লাটিনা মোটরসাইকেল নিয়ে বারেকটিলা যাওয়ার পথে রাজাই নামক স্থানে অপর প্রান্ত থেকে আসা তরিকুল ইসলামকে ধাক্কা দিলে তরিকুল মাথায় গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান। পথচারীরা গুরুত্ব আহত চালককে উদ্ধার করে দ্রুত তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রেরণ করে। এছাড়া খবর পেয়ে রাতে পুলিশ ঘটনা স্থলে পৌঁছে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে।

নিহতের ঘটনায় সত্যতা নিশ্চিত করে ট্যাকেরঘাট পুলিশ ফাঁড়ি ক্যাম্প ইনচার্জ এএসআই নজরুল ইসলাম বলেন,পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশ উদ্ধার করে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে সুনামগঞ্জ মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।

শাকির আহম্মেদ: মুঠোফোনে শ্রীমঙ্গল সাব রেজিষ্ট্রারি অফিসের অফিস সহকারি মো. আব্দুল জলিল খানকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে সর্বহারা পার্টির পরিচয়ে অজ্ঞতনামা এক ব্যক্তি। এতে নিরাপত্তা আশঙ্কার কথা উল্লেখ করে শ্রীমঙ্গল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন তিনি।

এ প্রতিবেদককে হুমকি সংক্রান্তের বিষয়ে মো. আব্দুল জলিল খান বলেন, “বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) দুপুর ২টা ২২মিনিটের সময় আমার ব্যবহৃত মুঠোফোনের এই (০১৭২০-৩১৮৪২৫) নম্বারে ০১৮৪২৬৭৪৭৭২ নম্বর থেকে অজ্ঞাত ব্যক্তি কল করে নিজেকে শ্রীমঙ্গলের সর্বহারা পার্টির লোক দাবী করে টাকা না দিলে আমাকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে অশালীন ভাষায় গালিগালাজ করে।”

তিনি আরও জানান, বিষয়টি আমার উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করেছি এবং নিরাপত্তাহীনতার আশঙ্কায় শ্রীমঙ্গল থানায় (৩০ সেপ্টেম্বর) সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে, যার নম্বর- ১৬৭০ ।
এ বিষয়ে শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুছ ছালেক প্রতিবেদককে মুঠোফোনেে বলেন, আমার এই বিষয়ে কোনো কিছু জানা নাই।

বিশেষ প্রতিনিধি:  মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলায় বুধবার (৩০সেপ্টেম্বর) বা’দ আসর ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশন শ্রীমঙ্গলের উদ্যোগে আল্লামা আহমদ শফী রহঃ এর রুহের মাগফিরাত ও আল্লামা খলিলুর রহমান পীর সাহেব বর্ণভী হাফিজাহুল্লাহ এর রোগমুক্তি কামনায় শ্রীমঙ্গলের হবিগঞ্জ রোডস্থ একটি রেস্টুরেন্টে সংগঠনের সভাপতি মাওলানা এম এ রহীম নোমানীর সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি মাওলানা জুনাইদ আহমদ জুনেদ এর সঞ্চালনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঐতিহ্যবাহী বরুণা মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মাওলানা শামছুল হক বিরহামাবাদী, শ্রীমঙ্গল ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব এ এস এম ইয়াহইয়া,আলহাজ্ব মাওঃ আয়েত আলী,শ্রীমঙ্গল পৌরসভার প্যানেল মেয়র মীর (২) মীর এম এ সালাম,সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক শ্রীমঙ্গল শাখার পরিচালক মুনিরুল ইসলাম, সাংবাদিক আবদুর রব, কাজী মাওঃ শিহাব উদ্দিন,প্রিন্সিপাল মাওঃ আহমদ সোহাইল,হাফেজ মাওঃ শামছুল হক ইবনে সিরাজ,মাওলানা আহমদ জুবায়ের জুয়েল,মাওঃ শাহিদুর রহমান,মাওঃ আজিজুর রহমান প্রমুখ।
ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশন শ্রীমঙ্গল এর নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক জালাল উদ্দিন,মাওঃ নাঈমুল ইসলাম হেলাল,মাওঃ নাজমুল হাসান,মোঃ হারুন মিয়া, মাওঃ আব্দুল হামিদ মহসিন ও আহমদ আলী প্রমুখ।
উক্ত অনুষ্ঠানে অতিথিবৃন্দ আল্লামা আহমদ শফী রহঃ এর বর্নাঢ্য জীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেন এবং আল্লামা খলিলুর রহমান হামিদী বর্নভী এর রোগমুক্তি কামনা করেন।
সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা এম এ রহীম নোমানী উপস্থিত সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান এবং ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশন শ্রীমঙ্গলের সকল কর্মকান্ডে সকলের দোয়া ও সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন।
অনুষ্ঠান শেষে দোয়া পরিচালনা করেন বরুণা মাদ্রাসার সিনিয়র মুহাদ্দিস মাওলানা শামছুল হক বিরহামাবাদী।

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ  বহুল আলোচিত বরগুনার রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ছয়জনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। একই মামলায় চারজনকে খালাস প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন আদালত।
বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) দুপুর পৌনে ২টার দিকে এ মামলার রায় ঘোষণা করেন বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান।মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট ভূবন চন্দ্র হালদার এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।
ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- মো. রাকিবুল হাসান ওরফে রিফাত ফরাজী (২৩), আল কাইয়ুম ওরফে রাব্বি আকন (২১), মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত (১৯), রেজোয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয় (২২), মো. হাসান (১৯) ও আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি (১৯)।
এছাড়া এ মামলায় চার আসামিকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে। খালাসপ্রাপ্তরা হলেন- মো. মুসা (২২), রাফিউল ইসলাম রাব্বি (২০), মো. সাগর (১৯) ও কামরুল হাসান সায়মুন (২১)।
রায় ঘোষণার সময় দণ্ডপ্রাপ্ত রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাইউম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রেজওয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয়, মো. হাসান, রাফিউল ইসলাম রাব্বি, মো. সাগর এবং কামরুল ইসলাম সাইমুন আদালতে উপস্থিত ছিলেন। ১০ আসামির মধ্যে মুসা পলাতক এবং মিন্নি জামিনে। মুসা ছাড়া বাকিরা রিফাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছিলেন।
উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে শত শত লোকের ভিড়ে রিফাত শরীফকে (২৫) কুপিয়ে হত্যা করা হয়। পরে রিফাতকে কুপিয়ে হত্যার একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়।
ঘটনার পরদিন ১২ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও পাঁচ-ছয়জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন নিহত রিফাতের বাবা আবদুল হালিম দুলাল শরীফ। ওই বছরের ১ সেপ্টেম্বর প্রাপ্তবয়স্ক ও অপ্রাপ্তবয়স্ক দু’ভাগে বিভক্ত করে ২৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দেয় পুলিশ। এতে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ জন এবং অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ জনকে অভিযুক্ত করা হয়।
১ জানুয়ারি রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালত। এরপর ৮ জানুয়ারি থেকে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু করেন আদালত। এ মামলায় মোট ৭৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়।
১৬ সেপ্টেম্বর এ মামলার দুই পক্ষের যুক্তিতর্কের শুনানি শেষে বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আসাদুজ্জামান রায়ের জন্য বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) দিন ধার্য করেন।
উল্লেখ্য,চাঞ্চল্যকর এই হত্যাকা-ের পরপর নিহত রিফাতের চাচাতো ভাই মোহাম্মদ বায়েজিদ সামাজিক যোগাযোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন। সেই স্ট্যাটাসের বাস্তবতা অনেকটা প্রমাণিত হয়েছে মামলার রায়ে। এজন্য তার সেই স্ট্যাটাসটি নতুন করে আলোচনায় এসেছে। ফেসবুক স্ট্যাটাসে বায়েজিদ লিখেন, ‘রিফাত শরীফের হত্যার ভিডিওটাতে দেশবাসী যা দেখছে সেটাতে রিফাত ভাইয়ের বউ মিন্নি নির্দোষ। কিন্তু ভেতরের খবরটা সবারই অজানা! এই মিন্নি গত ঘটনার দিন সকাল ১০টায় রিফাত শরীফকে বরগুনা সরকারি কলেজে সঙ্গে করে নিয়ে যায়। পূর্ব পরিকল্পিতভাবে খুনি নয়নের সঙ্গে নিজের স্বামীকে হত্যা করে।’ বায়েজিদ আরও লিখেন, ‘প্রথমে কলেজের ভেতরে বসে রিফাত শরীফকে নয়ন, রিফাত ফরাজি, রিশাদ ফরাজি ও অন্যান্য সহযোগীরা লাঠি ও চটপটি ভ্যানের লম্বা চামচ দিয়ে এলোপাতাড়ি মারধর করে। তখন মিন্নি দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে তামাশা দেখছিল। মারামারির এক পর্যায় মারতে মারতে রিফাত শরীফকে কলেজ গেটের সামনে নিয়ে যায় এবং চলন্ত রাস্তার মধ্যে প্রকাশ্যে রিফাত শরীফকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। তখন মিন্নি স্বামীকে বাঁচানোর যে নাটকটা করেছে সেটার কারণে ভাইরাল হওয়া ভিডিও ফুটেজটির মাধ্যমে সাধারণ মানুষের পাবলিসিটি পেয়ে যায়। কিন্তু পাবলিসিটি দেয়া মানুষগুলো জানে না এই মিন্নি খুনি নয়নের সাথে পূর্বপরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে।’ বায়েজিদ লিখেছেন, ‘আপনারা খেয়াল করেছেন চাপাতি দিয়ে রিফাতকে কোপানোর সময় মিন্নিকে একটা আঘাতও করেনি সন্ত্রাসীরা! কারণ নয়নের সঙ্গে মিন্নি পরকীয়ায় লিপ্ত ছিল। দুজনে এক সাথে ইয়াবা সেবন করত। বলে রাখা ভালো নয়ন বরগুনা জেলার মাদক সিন্ডিকেটর মূল নায়ক। যার নামে বরগুনা সদর থানায় কমপক্ষে ২০টা মামলা আছে। কলেজের ভেতরে মারামারি হওয়া আগ মুহূর্তে রিফাত শরীফ মিন্নিকে নিয়ে দ্রুত স্থান ত্যাগ করতে চাইলে মিন্নি বিভিন্ন বাহানায় রিফাতকে আটকে রেখেছিল। রিফাত ভাই যদি দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করত তাহলে হয়তো বেঁচে যেত। হায়রে ভালোবাসার মেয়েটাকে ভাই ছেড়ে পালিয়ে যায়নি। রাস্তার মধ্যে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দা, চাপাতির যন্ত্রণা সহ্য করেছে। শেষে রক্তাক্ত রিফাত ঘাড় হতে গলা পর্যন্ত গুরুতর জখম নিয়ে বরগুনা সদর হাসপাতালে যায় এবং মিন্নি বরগুনা সদর হাসপাতাল থেকে বাড়ি চলে যায়।’ আলোচিত এ মামলার রায়ের পর রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বরগুনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের পাবলিক প্রসিকিউটর মোস্তাফিজুর রহমান বাবু বলেন, রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় রিফাতের স্ত্রী মিন্নিসহ ছয়জনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। রায় ঘোষণার পরপরই মিন্নিকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়। ফাঁসির দ-প্রাপ্ত সবাইকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বরিশাল প্রতিনিধিঃ চাকরি দেয়ার কথা বলে বরিশাল নগরীর শ্রীনাথ চ্যাটার্জি লেনের একটি ভবনের ফ্ল্যাটে তিন তরুণীকে আটকে রেখে দেহ ব্যবসায় বাধ্য করার ঘটনায় তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) বিকেলে আটক তিনজন এবং ওই ভবনের মালিকের বিরুদ্ধে মানবপাচার আইনে কোতোয়ালি থানায় মামলা হয়েছে। আটকরা হলেন- ওই ফ্ল্যাটের ভাড়াটিয়া মো. আলী রানা ও তার স্ত্রী সাহানারা বেগম জেসমিন এবং তাদের সহযোগী দালাল মো. আকাশ রহমান।

এছাড়া চারতলা ওই ভবনের মালিক সুইজারল্যান্ড প্রবাসী মো. সেলিমকেও মামলায় আসামি করা হয়েছে। আটক জেসমিন একটি মামলায় এক বছরের সাজাপ্রাপ্ত ও ১০ লাখ টাকা অর্থদণ্ডে দণ্ডিত আসামি। তিনি গ্রেফতার এড়াতে দীর্ঘদিন ধরে আত্মগোপনে রয়েছেন। ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হওয়া তিন তরুণীর বাড়ি নগরীর বিভিন্ন এলাকায় বলে জানিয়েছে পুলিশ। কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশের ওসি নুরুল ইসলাম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ সদস্যরা নগরীর শ্রীনাথ চ্যাটার্জি লেনের একটি ভবনের ফ্ল্যাটে মঙ্গলবার সকালে অভিযান চালিয়ে ওই তিন তরুণীকে উদ্ধার করেন।

এসময় আটক করা হয় তিনজনকে। উদ্ধার হওয়ারা দরিদ্র পরিবারের। ভালো বেতনে বিউটিপার্লারে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে তাদের ফ্ল্যাটে ডেকে এনে দেহ ব্যবসায় বাধ্য করা হয়। ওসি নুরুল ইসলাম বলেন, প্রায় তিন মাস ধরে তাদের আটকে রাখা হয়েছিল। তাদের দিয়ে দেহ ব্যবসা করিয়ে টাকা উপার্জন করেছেন আটক তিনজন। তারা কয়েকবার পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছেন। তবে তাদের লোকজন দিনরাত পাহারায় থাকেন। এ কারণে পালাতে ব্যর্থ হন। এ ঘটনায় আটক তিনজন ও ভবন মালিককে আসামি করে বিকেলে থানায় মানবপাচার আইনে মামলা করা হয়েছে হয়েছে।

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানম হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাচ্ছেন। তাকে বৃহস্পতিবার হাসপাতাল থেকে রিলিজ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তার চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ড প্রধান ও ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স অ্যান্ড হসপিটালের অধ্যাপক ডা. জাহেদ হোসেন।

বুধবার সন্ধ্যায় অধ্যাপক ডা. জাহেদ হোসেন বলেন বলেন, ‘আশা করছি আগামীকাল তাকে আমরা ছাড়পত্র দেবো। তবে তাকে পরবর্তী চিকিৎসার জন্য হাসপাতাল থেকে সিআরপিতে (পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসন কেন্দ্র বা সেন্টার ফর দ্য রিহ্যাবিলিটেশন অফ দ্য প্যারালাইজড) যাওয়ার জন্য লিখে দেবো।

ইউএনও ওয়াহিদা কতটা সুস্থ হয়েছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘কোনো ধরনের সাপোর্ট ছাড়াই তিনি নিজে নিজেই হাঁটতে পারছেন। তার আর কোনো সমস্যা নেই, হাত পায়ের শক্তি প্রায় নরমালের কাছাকাছি। তবে বাড়িতে বা সিআরপিতে গিয়ে থেরাপি নিলে বাকিটা ঠিক হয়ে যাবে।

প্রসঙ্গত, গত ২ সেপ্টেম্বর দিনগত রাত আড়াইটার দিকে উপজেলা পরিষদ চত্বরে ইউএনও’র সরকারি বাসভবনে ঢুকে হামলা করে দুর্বৃত্তরা। প্রথমে গেটে দারোয়ানকে বেঁধে ফেলে তারা। পরে বাসার পেছনে গিয়ে মই দিয়ে উঠে ভেন্টিলেটর ভেঙে বাসায় প্রবেশ করে হামলাকারীরা। ভেতরে ঢুকে ভারী ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে এবং আঘাত করে ইউএনও ওয়াহিদাকে গুরুতর আহত করে তারা। এ সময় মেয়েকে বাঁচাতে এলে বাবা মুক্তিযোদ্ধা ওমর আলী শেখকে (৭০) জখম করে দুর্বৃত্তরা। পরে তারা অচেতন হয়ে পড়লে মৃত ভেবে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। ভোরে স্থানীয়রা টের পেয়ে তাদের উদ্ধার করেন।

ওয়াহিদাকে প্রথমে রংপুরে ও পরে রংপুর থেকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে তাকে ঢাকায় আনা হয়। বর্তমান তিনি ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।আমাদের সময়

হাবিবুর রহমান খান,জুড়ী প্রতিনিধি: “শেখ হাসিনার বারতা,নারী-পুরুষ সমতা” এই শ্লোগানে মৌলভীবাজারের জুড়ীতে  জাতীয় কন্যা শিশু দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত।
বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর)উপজেলা হল রুমে জুড়ী উপজেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর কর্তৃক আয়োজিত সভায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল ইমরান রুহুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা প্রতিনিধি সুজাউদ্দৌলার পরিচালনায় “আমরা সবাই সোচ্চার, বিশ্ব হবে সমতার” এ প্রতিপাদ্য বিষয়ের উপর প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্বা এম এ মোঈদ ফারুক, বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুক আহমদ চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রিংকু রঞ্জন দাশ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রনজিতা শর্মা,জুড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ সন্ঞ্জয় চক্রবর্তী, সমাজসেবা কর্মকর্তা রাকেশ পাল, পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা পরিমল সূত্রধর,  গোয়ালবাড়ী ইউপি সংরক্ষিত মহিলা সদস্য আনোয়ারা বেগম, জায়ফরনগর ইউপি সংরক্ষিত মহিলা সদস্য রোসনা বেগম, আফিয়া বেগম, সহ বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত নারী প্রতিনিধিগণ ও সাংবাদিক উপস্তিত ছিলেন।
সভা শেষে নারী উন্নয়ন ফোরাম,জুড়ী উপজেলা শাখার সভাপতি উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রনজিতা শর্মার নেতৃত্বে নারী প্রতিনিধিগণ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর গত ৩১ শে মে ২০১৫ সালের জারীকৃত সরকারের পরিপত্রের আলোকে বাৎসরিক বাজেটের ৩% বরাদ্দ এবং পরিষদ কর্তৃক গৃহিত প্রকল্প সমুহের ২৫% নারী সদস্যের মাধ্যমে বাস্তবায়নের দাবীতে একটি স্বারকলিপি প্রদান করা হয়।

 ৯৪ হাজার শত ৫৫ জন শিশুকে ভিটামিন “এ” ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে

নড়াইল  প্রতিনিধি: আগামী অক্টোবর  থেকে ১৭ অক্টোবর২০২০ জাতীয় ভিটামিন “এ” প্লাস ক্যাম্পেইন পালন উপলক্ষে নড়াইলে সাংবাদিকদের সাথে ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ বুধবার নড়াইল সিভিল সার্জন অফিসের আয়োজনে সিভিল সার্জন অফিসের সভাকক্ষে বাংলাদেশ থেকে অপুষ্টি জনিত অন্ধত্ব নির্মূল এবং অপুষ্টি জনিত শিশু মৃত্যু প্রতিরোধ করার লক্ষ্যে কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। সিভিল সার্জন ডাঃ আব্দুল মোমেনের সভাপতিত্বে সভায় সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডাঃ অনিন্দিতা ঘোষ, ডাঃ শফিক তমাল, নড়াইল প্রেসক্লাবের সভাপতি এনামুল কবির টুকু, সাধারন সম্পাদক  শামিমুল ইসলাম টুলু, সিভিল সার্জন অফিসের সিনিয়ার স্বাস্থ্য শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ ম্যোল্যা ফোরকান  আলী, মোঃ নাজমুল ইসলাম, হারাধন মজুমদার,স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা বিভিন্ন প্রিন্ট ইলেকট্রনিক মিডিয়ার ৪০ জন সাংবাদিক সময় উপস্থিত ছিলেন।

কর্মশালায় জানানো হয় , বছর করোনা ভাইরাস সংক্রামের কারণে শিশুর অভিভাবকদের থেকে অন্তÍ ফুট দুরত্ব  শিশুদের ক্ষেত্রে যতটুকু সম্ভব দুরত্ব বজায় রেখে শত ৯২ টি ইপিআই কেন্দ্র সমূহে জেলায় মোট ৯৪ হাজার শত ৫৫ জন শিশুকে  অক্টোবর থেকে ১৭ অক্টোবর২০২০  পক্ষকাল ব্যাপী ( ০২ সপ্তাহ কর্ম দিবস) ভিটামিন “এ” ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। 

থেকে ১১ মাস বয়সী ১১ হাজার  ৬শত ৮৫  জন শিশুকে  নীল রঙের “এ”  (১লক্ষ আই,ইউ) ক্যাপসুল  এবং ১২৫৯ মাস বয়সী ৮২ হাজার শত ৭০ জন শিশুকে লাল রঙের “এ” ক্যাপসুল ( লক্ষ আই,ইউ)খাওয়ানো হবে। 

এছাড়া শিশুর বয়স মাস পূর্ন হলে মায়ের দুধের পাশাপাশি ঘরে তৈরী সুষম খাবার খাওয়ানোর বিষয়ে পুষ্টি বার্তা প্রচার করা হবে।

নিশাত আনজুমান,আক্কেলপুর (জয়পুরহাট)প্রতিনিধিঃ  জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে “আমরা সবাই সোচ্চার, বিশ্ব হবে সমতার” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের আয়োজনে জাতীয় কন্যা শিশু দিবস উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
বুধবার সকালে উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় ও উপজেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের আয়োজনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস.এম হাবিবুল হাসান এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সালাম আকন্দ।
অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা রিতা রানী পাল, সমাজ সেবা কর্মকর্তা সোহেল রানা প্রমুখ।

নূরুজ্জামান ফারুকী নবীগঞ্জঃ  নবীগঞ্জের বরকতপুর গ্রামের পারভেজ মিয়া নামে এক যুবককে তুর্কি পাঠানোর নামে ইরান আটকে নির্যাতন ও দালাল আরো টাকা দাবী করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই গ্রামের মৃত আনোয়ার মিয়ার স্ত্রী ও পারভেজ মিয়ার মা শেফুল বেগম নবীগঞ্জ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযুক্তরা হচ্ছে একই উপজেলার জাহিদপুর গ্রামের মৃত মাম্মদ আলীর পুত্র আবু মিয়া (৩৭) ও মহিবুর রহমান মবু (৩৫)।
অভিযোগে জানা যায়, পারভেজ মিয়াকে তুর্কি দেশে পাঠানোর কথা বলে ইরান দেশে আটকে রেখে দালাল কর্তৃক নির্যাতন করে নির্যাতনের ছবি বাংলাদেশে পারভেজ মিয়ার মায়ের কাছে প্রেরণ করে প্রায় অর্ধলক্ষাধিক টাকা আদায়ের পরও মুক্ত করে না দেওয়ায় ভুক্তভোগীর মা বরকতপুর গ্রামের মৃত আনোয়ার মিয়ার স্ত্রী শেফুল বেগম বাদী একই ইউনিয়নের জাহিদপুর গ্রামের মৃত মাম্মদ আলীর দুই পুত্র আবু মিয়া (৩৭) ও মহিবুর রহমান মবু (৩৫) এর বিরোদ্ধে নবীগঞ্জ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।
অভিযোগে জানা যায়, অভিযুক্ত আবু মিয়া তুর্কিতে অবস্থান করেন। প্রায়ই সে পারভেজের সাথে আলাপ করে তাকে তুর্কি যেতে উৎসাহিত করে আবু। পারভেজ তুর্কি গিয়ে টাকা পরিশোধ করতে পারবে বলে জানায় আবু মিয়ার ভাই মহিবুর রহমান মবু। এর প্রেক্ষিতে আবু মিয়ার সাথে যোগাযোগ করে গত ২৮ আগষ্ট ইরানের রাজধানী তেহরান থেকে পারভেজকে ট্যাক্সিতে তুলে তুর্কির উদ্দেশ্যে রওনা দেয় আবু মিয়া। এর ২ দিন পর গত ৩০ আগষ্ট মোবাইল ফোনে পারভেজ তার মা সেফুল বেগমকে জানায় আবু দালাল তাকে একটি অন্ধকার ঘরে বন্ধি করে রেখেছে। এখানে আফগানী ও ইরানী মাফিয়ারা তাকে মারধর করছে। এ অবস্থায় সেফুল বেগম আবুর ভাই দেশে অবস্থানরত মহিবুর রহমান মবুর সাথে যোগাযোগ করলে সে জানায় দালালদের টাকা দিতে হবে। টাকা না পারভেজ মারা গেলেও আমার কোন দোষ নাই। মবুর কথামত গত ৩১আগষ্ট দুইবারে সেফুল বেগম বিকাশে তুর্কিতে আবু মিয়ার নিকট ১৫ হাজার টাকা এবং বিগত ২ সেপ্টেম্বর আরও ১০ হাজার টাকা আবু মিয়ার নিকট প্রেরন করেন। পরে মবুর নিকট নগদ ৩০ হাজার টাকা সর্বমোট ৫৫ হাজার টাকা দেয়ার পরও পারভেজ মিয়াকে বন্ধী দশা থেকে ছাড়া হয়নি। মবুর সাথে যোগাযোগ করলে সে আরও ৩০ হাজার টাকা দাবী করে। এ অবস্থায় নিরূপায় হয়ে পারভেজ মিয়ার মা সেফুল বেগম আবু মিয়া ও মুহিবুর রহমান মবুর বিরুদ্ধে নবীগঞ্জ থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।
অভিযোগের ভিত্তিতে নবীগঞ্জ থানার এসআই সমিরন চন্দ্র দাশ সরেজমিন অভিযোগটি তদন্ত করেছেন। তিনি বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে বাদী এবং বিবাদী পক্ষে সাথে যোগাযোগ করেছি। বাদী তার দাবী স্বপক্ষে কোন ডকুমেন্ট উপস্থাপন করতে পারেননি। মৌখিক আলোচনার ভিত্তিতে পারভেজকে তুর্কি নেয়ার চুক্তি হয়। বিবাদী পক্ষের সাথে আলাপ হয়েছে। তারা পরস্পরের মধ্যে আলোচনাক্রমে বিষয়টি সমাধান করবেন বলে জানিয়েছেন।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc