Sunday 12th of July 2020 06:32:22 PM

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশের  প্রত্যন্ত অঞ্চলের জনপ্রিয় ইসলামী বক্তা কিশোরগঞ্জ জেলার কৃতি সন্তান হাফেজ মাওলানা তোফাজ্জল হোসেন ভৈরবী আজ বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে চারটায় স্ট্রোক করে ইন্তেকাল করেছেন, ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। ভৈরব উপজেলায় তিনি বসবাস করতেন।

দীর্ঘদিন ভৈরব বাসষ্ট্যান্ড জামে মসজিদের খতিব ছিলেন, আলোচিত বক্তা হাফেজ মাওলানা তোফাজ্জল হোসেন ভৈরবী জন্মস্থান নরসিংদী জেলার রায়পুরা উপজেলার রামনগর গ্রামে। তিনি একজন সুন্নি আকিদা ভিত্তিক আলেম ছিলেন।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, হাফেজ মাওলানা তোফাজ্জল হোসেন হার্টের রোগী ছিলেন। কয়েকদিন যাবত অসুস্থও ছিলেন। আজ বিকেলে হতাৎ স্ট্রোক করলে তাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নরসিংদী জেলার রায়পুরা উপজেলার রামনগর গ্রামে মায়ের পাশে তাকে দাফনের কথা রয়েছে। মৃত্যুর সময় তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে ও দুই মেয়েসহ হাজারো ভক্তবৃন্দ রেখে যান।

তার মৃত্যুর সংবাদে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন প্রচার মাধ্যমে ভক্ত ও শুভাকাংকিদের শোক প্রকাশের সংবাদ দেশে ও দেশের বাইরে ভাইরাল হয়ে আছে।

“জানুয়ারি থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত কেউ ঋণের কিস্তি না দিলেও তাকে খেলাপি না করার নির্দেশ”

বিদেশি ঋণ ও ক্রেডিট কার্ড ছাড়া অন্যক্ষেত্রে এপ্রিল ও মে মাসের জন্য এক লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণের বিপরীতে সম্পূর্ণ সুদ মওকুফ সুবিধা পাবেন গ্রাহক। আর এক লাখ টাকা থেকে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণের বিপরীতে বার্ষিক ২ শতাংশ হারে এবং ১০ লাখ টাকার বেশি ঋণে এক শতাংশ হারে সুদ মওকুফ পাওয়া যাবে।

তবে একজন গ্রাহককে দুই মাসে সর্বোচ্চ ১২ লাখ টাকা পর্যন্ত সুদ মওকুফ দেওয়া যাবে। সুদ মওকুফের টাকা সরকারের দেওয়া ২ হাজার কোটি টাকা থেকে ব্যাংকগুলোকে পরিশোধ করবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বুধবার এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করে ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট সঙ্কটের মধ্যে গত এপ্রিল ও মে মাসের সব ধরনের ঋণের সুদ আদায়ের ওপর স্থগিতাদেশ দিয়ে গত ৩ মে সার্কুলার জারি করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এতে সব ধরনের ঋণে সুদ ‘সুদবিহীন ব্লকড হিসাবে’ স্থানান্তর করতে বলা হয়। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত ব্লকড হিসাবে স্থানান্তরিত সুদ ব্যাংকের আয়খাতে না নিতে এবং গ্রাহক থেকে আদায় না করতে নির্দেশ দেওয়া হয়। এসব সুদ কী করতে হবে সে বিষয়ে বুধবারের সার্কুলারে বিস্তারিত বলে দেওয়া হয়েছে। কোনো ব্যাংক ইতিমধ্যে গ্রাহক থেকে ভর্তুকিযোগ্য সুদ আদায় করলে তা ফেরত দিতে বলা হয়েছে সার্কুলারে।

স্থগিত সুদের একটি অংশ ভর্তুকি দিতে ব্যাংকগুলোকে সরকার ২ হাজার কোটি টাকা দেবে বলে সম্প্রতি ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মূলত ভর্তুকি হিসেবে সরকারের দেওয়া টাকা ব্যাংকগুলোকে দেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলারে বলা হয়েছে, ক্রেডিট কার্ড এবং ব্যাংকের অফশোর ব্যাংকিং ও এডি শাখা থেকে বৈদেশিক মুদ্রায় দেওয়া ঋণ ছাড়া অন্যক্ষেত্রে এপ্রিল ও মে মাসে এক লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণে ৯ শতাংশ হারে আরোপিত সম্পূর্ণ সুদ মওকুফ সুবিধা পাবেন গ্রাহক। এক লাখ টাকার বেশি তবে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণে বার্ষিক ২ শতাংশ হারে মওকুফ পাবেন। এর মানে ৯ শতাংশের মধ্যে ভর্তুকি হিসেবে ২ শতাংশ দেওয়া হবে এবং গ্রাহককে দিতে হবে ৭ শতাংশ। আর ১০ লাখ টাকার বেশি ঋণে বার্ষিক এক শতাংশ হারে গ্রাহকপ্রতি সর্বোচ্চ ১২ লাখ টাকা মওকুফ পাবেন।

সুদ মওকুফের জন্য ব্যাংকগুলোকে ভর্তুকি দেবে বাংলাদেশ ব্যাংক। এজন্য নির্ধারিত ছকে আগামী ১৫ জুলাইয়ের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগে আবেদন করতে হবে। প্রাথমিক যাচাই-বাছাই শেষে ভতুর্কির অর্থ ব্যাংকের অ্যাকাউন্টে দেওয়া হবে। সংশ্লিষ্ট ব্যাংক বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে সুদ ভর্তুকির পরিমাণ নিশ্চিত হওয়ার পর গ্রাহক পর্যায়ে মওকুফ কার্যকর করতে বলা হয়েছে।

নির্দেশনায় আরও বলা হয়েছে, গ্রাহকের নগদ প্রবাহ বিবেচনায় ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে ব্লকড হিসাবে স্থানান্তরিত সুদের বাকি অংশ ২০২০ সালের জুলাই থেকে ২০২১ সালের জুন সময়ে মাসিক সমান কিস্তিতে আদায় করতে হবে। যেসব ঋণ হিসাবের মাসিক কিস্তি (ইএমআই) নির্ধারিত আছে বা ঋণ সমন্বয়ের তারিখ আগামী বছরের জুনের আগে সে-ক্ষেত্রে ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে সুদ আদায় করা যাবে। চলমান ঋণের ক্ষেত্রে মওকুফঅবশিষ্ট আদায়যোগ্য সুদ অনুমোদিত সীমাতিরিক্ত লিমিট হিসেবে গণ্য হবে। এক্ষেত্রে ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে নবায়নের সময় ওই সুদ সমন্বয় করা যাবে।

মওকুফঅবশিষ্ট সুদ আদায়ের জন্য সুদবিহীন ব্লকড হিসাবে সংরক্ষণের পরিবর্তে ইন্টারেস্ট রিসিবেবল অ্যাকাউন্ট বা ব্যাংকের নিজস্ব নীতিমালার আলোকে আলাদা সংরক্ষণ করতে হবে। ওই সুদ বা মুনাফার ওপর ৩০ জুন পর্যন্ত কোনোভাবেই সুদ আদায় করা যাবে না। কোনো ঋণের বিপরীতে মওকুফযোগ্য সুদ ইতিমধ্যে আদায় করে থাকলে সংশ্লিষ্ট গ্রাহককে তা ফেরত দিতে হবে। আর ভবিষ্যতে নিরীক্ষার জন্য এ সংক্রান্ত কাগজপত্র আগামী ২ বছর ব্যাংকে সংরক্ষণ করতে হবে।

করোনাভাইরাসের সঙ্কট কাটাতে ঋণ গ্রহীতাসহ বিভিন্ন শ্রেণির জন্য নানা সুবিধা দিচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। জানুয়ারি থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত কেউ ঋণের কিস্তি না দিলেও তাকে খেলাপি না করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ সময়ে ব্যাংক যেন তারল্য সঙ্কটে না পড়ে সে লক্ষ্যে ব্যাংকগুলোর সিআরআর দেড় শতাংশ কমিয়ে দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত বিভিন্ন আর্থিক প্রণোদনা বাস্তবায়নের সরাসরি তারল্যের যো

গান দিতে বেশ কয়েকটি পুনঃঅর্থায়ন তহবিল গঠন করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।সুত সমকাল

নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার গন্ডবগ্রামে এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায়৩জন নিহত ১৫জন আহত হয়েছে। বুধবার দুপুর ২টার দিকে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন মিরাজ মোল্যার সমর্থক মোক্তার মোল্যা (৫০), হাবিল মোল্যা (৪৫) রফিক মোল্যা (৪০) এদের মধ্যে মোক্তার মোল্যার ভাইপো হাবিল মোল্যা।

আহতদের স্বজন এলাকাবাসী জানান, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে নড়াইল জেলা পরিষদের সদস্য গন্ডবগ্রামের সুলতানুজ্জামান বিপ্লব গ্রুপের সাথে একই গ্রামের মিরাজ মোল্যা গ্রুপের মধ্যে দির্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিলো। 

বুধবার দুপুরে প্রথম দফা হামলার ঘটনায় ছুটিতে বাড়িতে আসা ঢাকায় পুলিশ বিভাগে কর্মরত এএস আই উচমান গনি আহত হন। তাকে আশংকাজনক অবস্থায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি মিরাজ মোল্যার পক্ষের লোক।

দুপুর দুইটার দিকে দ্বিতীয় দফা বিপ্লব গ্রুপের লোকজন ঢাল, সড়ক সহ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রাদি নিয়ে হামলা চালায়।  এসময় মিরাজ মোল্যার সমর্থকরাও প্রতিরোধ করার চেষ্টা করে। আধাঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষ চলাকালে বিপ্লব গ্রুপের সমর্থকদের হামলায় মিরাজ মোল্যার পক্ষের মোক্তার মোল্যা, হাবিল মোল্যা, রফিক মোল্যা, মিজান মোল্যা, জুয়েল, ইনতাজ, সাইফুল, খবির মোল্যা, ইকরাম মোল্যা, নজরুল মোল্যা, সাগর মোল্যা গুরুতর আহত হন। এসময় বিপ্লব গ্রুপেরও কয়েকজন আহত হন। 

আহতদেরকে নড়াইল সদর হাসপাতালে আনা হলে মিরাজ মোল্যা গ্রুপের মোক্তার মোল্যা (৫০) হাবিল মোল্যাকে (৪৫) মৃত ঘোষনা করেন। এছাড়া আশংকাজনক অবস্থায় রফিক মোল্যাকে (৪০) খুলনা মেডিকেল কলেজ হাপসাতালে নেয়ার পথে ফুলতলা এলাকায় পৌঁছালে তার মৃত্যু হয়। আহত অন্যান্যরা নড়াইল সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

লোহাগড়া থানার অফিসার ইযনচার্জ (ওসি) সৈয়দ আশিকুর রহমান জানান, সংঘর্ষের ঘটনার পর এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত আছে।

স্টাফ রিপোর্টারঃ ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মন্দিরের পিছনে কৃষিজমিতে চলছে অবাধে পুকুর খনন কাজ। সরেজমিনে দেখা যায় পুকুর খননে কৃষির ধ্বংসযজ্ঞ চললেও প্রশাসন যেন কিছুই দেখছে না। নামমাত্র কিছু অভিযান চালালেও প্রভাবশালীরা থেকে যাচ্ছেন ধরাছোঁয়ার বাইরে পীরগঞ্জ উপজেলার ১নং ভোমরাদহ ইউনিয়নে ৯নং ওয়ার্ডে দুবড়া গ্রামে উপজেলার ভোমরাদহ ইউনিয়নে ৯নং ওয়ার্ডে দুবড়া এলাকার মন্দিরের পাশেই প্রভাবশালী ব্যাক্তি একটি ড্রেজার মেশিন দেদারসে পুকুর খনন করতে থাকে সেই জমির মালিক স্থানীয় রিয়াজুল ইসলাম নামে পরিচিত উক্ত এলাকায় রিয়াজুলের বেশ কয়েক বিঘা জমি রয়েছে।
পুকুর খনন করলে ভবিষ্যতে সনাতন ধর্শাবলম্বীদের মন্দির ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ধসে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।তবুও তারেই পাশে অবৈধভাবে অবাধে তিনি পুকুর খনন কাজ করে যাচ্ছেন বিনাদ্বিধায়।
জানা যায় দুবড়া মৌজার ধাম মন্দির ও অতি প্রাচিন কালের পাখোর ও নাখিজা গাছ ক্ষতি করার ষড়যন্ত্র করছেন বলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর অভিযোগ দেয়া হয়েছে। দুবড়া মৌজার জন সাধারণ বলেন এলাকায় নিন্ম তপশীল বর্ণিত দেবত্র রেকর্ডকৃত খাস জমিতে দীর্ঘ দিন যাবত অতি প্রাচীন কালের যৌথ গাছ ২ টির নিচে বিভিন্ন দেবতার বেদী তৈরী করে প্রাচীন কাল হইতে অদ্যবধি পুজা পার্বনসহ হিন্দু ধর্মের অনুষ্ঠান করে থাকেন।
প্রকাশ থাকে যে গত ২০১৭ – ২০১৮ অর্থ বছরে ঠাকুরগাঁও জেরা পরিষদ কৃর্তৃক প্রাপ্ত অর্থ দ্বারা ১টি শীব মন্দির নির্মাণ করা হয়েছে। কিন্তু দেবত্র মন্দিরের উত্তর পার্শ্বে যার দাগ নং ৩১৪, এই দাগে রিয়াজুল ইসলাম কযেক বছর ধরে উক্ত দাগে টরী দ্বারা মাটি কেটে গভির গর্ত করেছেন। এছাড়াও তিনি গত ০৫/ ০৬ / ২০২০ইং উক্ত গর্তে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে গভীর গর্ত করছেন।
এতে প্রাচীন কালের জোড়া গাছ২টি দেবত্র স্হানের বেদীও শীব মন্দির ঐ গভীর গর্তে ধ্বসে বিলীন হয়ে যাওয়ার সম্ভবনা. তাছাড়া মন্দিরসহ গাছ ২টু ঝুঁকিপুর্ন অবস্থায় অাছে। এই বিষয়ে রিয়াজুল ইসলাম কাছে জানতে চাওয়া হলে, তিনি জানান আমি পুকুর খনন হলে মাছের চাষ করবো। আমার জমি যা ইচ্ছে করবো, মন্দির থাক বা না থাক সেটা আমার দেখার বিষয় না,এখানে  যদি প্রশাসন এসে সিমানা নির্ধাণ করে দেয় তহলে সমস্যা নাই মন্দির কোনো ক্ষতি হবেনা, তবে এলাকাবাসী সাথে
সরেজমিনে দেখা যায়, উক্ত দেবত্র বেদী শিব মন্দিরসহ গাছ ২টি ঝুঁকিপুর্ণ অবস্থায় রয়েছে।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট মন্দির কর্তৃপক্ষ লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে বর্তমানে ড্রেজার মেশিন দিয়ে পুকুর খনন কাজ বন্ধ রয়েছে।

নাজমুল হক নাহিদ,আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁ আত্রাইয়ে আহসানগঞ্জ ট্রেশনে ঢাকাগামী পঞ্চগড় ট্রেনটি বালুবাহী ট্রলির সাথে ধাক্কা লেগেফলে ঢাকার সাথে পঞ্চগড়, লালমনিরহাট, রংপুর রুটে সাময়িকভাবে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে   

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, বিকাল সাড়ে ৫টায় ঢাকার উদ্দেশ্যে আহসানগঞ্জ স্টেশনে অতিক্রম করার সময় স্টেশনে ট্রেনটি বালুবাহী ট্রলি সাথে ধাক্কা লাগে। এসময় ট্রলিটি দুমড়ে মুচড়ে যায়। ট্রেনের ভ্যাকম পাইপ ফেটে গেল ট্রেনটি দাঁড়িয়ে যায়। এতে উত্তরঙ্গের সাথে ট্রেন চলাচল বন্ধ আছে। তবে কেউ হতাহত হয়নি

আহসানগঞ্জ স্টেশন মাষ্টার সাইফুল ইসলাম বলেন, স্টেশনে মেরামতের কাজ চলছে। একটি ট্রলির বালু আনলোড করছিল। এসময় পঞ্চগড় আন্তঃনগর ট্রেনটি অতিক্রম করার সময় ধাক্কা লাগে। বিষয় উর্ধতন কর্মকর্তাকে জানা হয়েছে। তিনি আরও জানান, ঘটনার পত্র ঈশ্বরদী থেকে নতুন একটা ইঞ্জিন আনা হচ্ছে আনুমানিক রাত থেকে টার মধ্য এসব রুটে ট্রেন চলাচল সাভাবিক হবে তবে এঘটনায় যাত্রীদের কনো ক্ষতি হয়নি

নাজমুল হক নাহিদ

আত্রাই, নওগাঁ

মোবাইল ০১৭১৭-৭৯৭৯৩১

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc