Saturday 30th of May 2020 02:15:54 PM

“এক সময় অভিযোগ ছিল চালকদের থেকে র‍্যাব-পুলিশ পয়সা নেই আজ দেখা গেলো তার উল্টো চিত্র,আইন মান্যকারী ক্ষুদ্র চালকদের হাতে পয়সা তুলে দেওয়ার” 

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ  র‍্যাব-৯ শ্রীমঙ্গল ক্যাম্পের এএসপি মো. আনোয়ার হোসেন শামীম একের পর এক ঘটনা সৃষ্টি করে চলেছে যা মৌলভীবাজার জেলাবাসী অনেক দিন মনে রাখবে।তার এই নিত্য নতুন কায়দায় অপরাধের বিরুদ্ধে অভিযান ও সাধারণ লোকদের প্রতি ভালো বাসার সাথে সচেতনতা তৈরির প্রক্রিয়া সত্যি চমক তৈরি করেছে মিডিয়াসহ নানা মহলে। “শাসন করা তারই সাজে,সোহাগ করে যে জন” শত বছরের এই প্রবাদ বাক্যের হুবহু বাস্তব চিত্র একে চলেছেন তিনি।

আজ মঙ্গলবার দিনভর মৌলভীবাজার জেলার বিভিন্ন প্রান্তে তার নেতৃত্বে তৎপর ছিলেন র‍্যাব সদস্যরা। যেসব ক্ষুদ্র যানবাহনে একাধিক যাত্রী পাওয়া গেছে, তাদেরকে  তাৎক্ষণিক নামিয়ে দিয়ে খালি রিকশা বা ইজি বাইকে তুলে দিয়েছেন র‍্যাব সদস্যরা। শুধু তাই নয়, সরকারি নির্দেশনা মান্যকারী রিকশা চালকদেরকে দশ টাকা করে বকশিসও দিয়েছেন তারা, শর্ত একটাই- করোনা পরিস্থিতি থাকাকালীন কখনো সামাজিক দূরত্ব ভঙ্গ করে একাধিক যাত্রী তারা রিকশায় নেবেন না। এসময় একান্ত জরুরি প্রয়োজন ছাড়া রিকশা বের না করতেও অনুরোধ জানান তারা। রিকশা চালকেরা খুশি মনেই শর্ত মেনে চলার প্রতিশ্রুতি দিয়ে বকশিসটি গ্রহণ করেছেন।

এভাবেই তুলে দিচ্ছেন ক্ষুদ্র চালকদের হাতে সামাজিক দূরত্ব রক্ষা প্রণোদনা।তবুও যেন আইন মেনে চলে।

আজ দুপুর ২ ঘটিকার সময় শ্রীমঙ্গল চৌমোহনায় সরেজমিনে দেখা যায় সারি বেঁধে চলমান যানবাহনের পাল্লা। এর বেশিরভাগই রিকশা অথবা মোটরসাইকেল। এক সময় অভিযোগ ছিল চালকদের থেকে র‍্যাব-পুলিশ পয়সা নেই আজ দেখা গেলো তারা উল্টো চিত্র,আইন অমান্যকারী ক্ষুদ্র চালকদের হাতে পয়সা তুলে দেওয়ার।এই সময় চলমান রমজানের রোজা রেখে এই কাঁঠাল ফাটা রোদের মধ্যে দাঁড়িয়ে দায়িত্ব পালন করছেন র‍্যাব সদস্যরা। যে যানবাহনেই সামাজিক দূরত্ব লঙ্ঘনের প্রমান পাওয়া গেছে, তাদেরকেই থামাচ্ছিলেন তারা। বাবা ও ছেলে এক মোটরসাইকেলে চড়ে বাজার থেকে ফিরছিলেন। চৌমোহনা মোড়ে পৌঁছামাত্র পড়ে যান র‍্যাবের থাবায়। শত অনুরোধে কর্ণপাত না করে র‍্যাব সদস্যরা পুত্রকে মোটরসাইকেল থেকে নামিয়ে খালি একটা রিকশা ডেকে তাতে তুলে দেয়। সাথে রিকশাওয়ালার হাতে ধরিয়ে দেয় নগদ দশ টাকা বকশিস। আজ সারাদিনে এভাবে মোট শতাধিক রিকশা চালককে এমন বকশিস দেওয়া হয়েছে মর্মে র‍্যাব সূত্রে জানা গেছে।

এএসপি মো. আনোয়ার হোসেন শামীম থেকে চালক খুশি হয়ে সামাজিক দূরত্ব রক্ষার প্রণোদনা গ্রহণ করছেন। 

এ প্রসঙ্গে র‍্যাব-৯ এর এএসপি মো. আনোয়ার হোসেন শামীম জানান, সরকার কর্তৃক আগামী ১০ মে হতে সীমিত পরিসরে বাণিজ্যিক কর্মকাণ্ড শুরুর সিদ্ধান্তের পর রিকশায় একাধিক যাত্রী বহনকে আমি সামাজিক দূরত্ব রক্ষার ক্ষেত্রে অন্যতম বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছি। তাই রিকশাচালক ভাইদেরকে তাদের বাহনে একের অধিক যাত্রী না নেওয়ার ক্ষেত্রে ইতিবাচকভাবে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে আমরা তাদেরকে সামান্য বকশিস প্রদান করেছি।

এছাড়াও সরকার কর্তৃক গৃহীত নতুন সিদ্ধান্তকে লোকজন যেন সামাজিক দূরত্ব অমান্যের লাইসেন্স মনে না করেন, সেটি নিশ্চিত করার জন্য আমরা মাঠে সতর্ক রয়েছি। কোন ক্ষুদ্র বাহন ; যেমন মোটরসাইকেল বা রিকশায় একাধিক যাত্রী দেখা গেলে আমরা একজন থেকে বাকিদেরকে নেমে যেতে অনুরোধ জানিয়েছি।

এই টাকা সরকারি খাত থেকে খরচ করা হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে এএসপি আনোয়ার বলেন, ‘না, এটা একান্তই আমার ব্যক্তিগত উদ্যোগ। তাই খরচটিও করছি নিজের পকেট থেকেই। আমি আসলে ছোটখাটো আভিযানিক খরচের ক্ষেত্রে সরকারি টাকার দিকে তাকিয়ে থাকার পক্ষে নই। কাজ করতে গিয়ে দেখেছি, এরকম হলে সঠিক সময়ে সঠিক কাজ করাটা কঠিনতর হয়ে পড়ে।

উল্লেখ্য, চলমান করোনা পরিস্থিতিতে একের পর এক ব্যতিক্রমধর্মী কাজের মাধ্যমে দেশবাসীর মনোযোগ আকৃষ্ট করেছেন র‍্যাব-৯ এর এএসপি মো. আনোয়ার হোসেন শামীম।

মজলুমের আর্তনাদ

এস এম নাহিদ হাসান (নয়ন)

মনে আছে,সিরিয়ার শিশুটির কথা

সেদিন সে কেঁদে কেঁদে বলেছিলো,

আমি সৃষ্টিকর্তাকে সব বলে দিবো

সে হয়তো সব কিছু বলে দিয়েছে।

মনে আছে,কাশ্মীরের মেয়েটির কথা

সেদিন সে কেঁদে কেঁদে বলেছিলো,

সারাপৃথিবীকে যেন কিছুদিনের জন্য

তাদের মতো, ঘরে বন্দি থাকতে হয়।

দিনের পর দিন,যুগের পর যুগ ধরে

ক্ষমতার মোহে কত অন্যায় হয়েছে,

যারা ইচ্ছামত চালিয়েছে নিশংসতা

দেখুন, আজ তারা কতটা অসহায়।

বিজ্ঞানের আবিষ্কার কাজে লাগিয়ে

প্রকৃতিকে ধ্বংস করেছি অনবরত,

বেষ্টিত নগরী ধ্বংস করেছি মুহুর্তে

সবকিছুই হয়েছিলো ক্ষতবিক্ষত।

ক্ষমতা প্রদর্শনের ভয়ংকর খেলায়

হয়েছে শত সহস্র অন্যায় অবিচার,

সব সহ্য করেছি নিজের সুবিধার্থে

পৃথিবীর মালিক সইবে কত আর?

মজলুমের আর্তনাদ শুনতে শুনতে

মহান সৃষ্টিকর্তা হয়তো রাগান্বিত,

তাই বুঝি আজ মহাবিপদ এসেছে

সবাই হয়েছে আজ আতংকিত।

এম ওসমান,বেনাপোল :  যশোরের শার্শায় আবারও নতুন করে ২ চিকিৎকের শরীরে নভেল করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি সনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে উপজেলায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাড়ালো ৬জন চিকিৎসকসহ মোট ৯ জন। নতুন আক্রান্ত ২জন চিকিৎসক শার্শা উপজেলা হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার।
শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার ইউসুফ আলী জানান, গত ২৪ ঘন্টায় ল্যাব থেকে পাওয়া রিপোর্টে হাসপাতালের ২জন চিকিৎসক নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

২৪ ঘণ্টায় ৫ হাজার ৭১১ জনের করোনা পরীক্ষা

জহিরুল ইসলাম.নিজস্ব প্রতিবেদক:  সারা  দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা বেড়েছে এবং মৃত্যু কমেছে । আজকের প্রেস ব্রিফিংয়ের তথ্য অনুযায়ী, দেশে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে মোট মারা গেছেন ১৮৩ জন। মোট শনাক্তের সংখ্যা ১০ হাজার ৯২৯। গত ২৪ ঘণ্টায় ১ জন মারা গেছেন। নতুন করে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত ব্যক্তি শনাক্ত হয়েছেন ৭৮৬ জন। এটি ২৪ ঘণ্টায় দেশের   সর্বোচ্চ  করোনা রোগী শনাক্ত।দেশের করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে আজ মঙ্গলবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা বেড়েছে এবং মৃত্যু কমেছে । দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ১ জন মারা গেছেন। নতুন করে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত ব্যক্তি শনাক্ত হয়েছেন ৭৮৬ জন। এটি ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ শনাক্ত।দেশের করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে আজ মঙ্গলবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানানো হয়।ব্রিফিংয়ে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ১৯৩ জন সুস্থ হয়েছেন। এখন পর্যন্ত ১ হাজার ৪০২ জন সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন।

তবে বাসায় থেকে চিকিৎসা নেওয়া রোগীদের সুস্থ হওয়ার তথ্য জানা যায়নি। যদিও প্রায় ৭৯ শতাংশ রোগী বাসায় থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।গতকাল সোমবার ৬৮৮ জন নতুন শনাক্তের কথা জানানো হয়েছিল। আর ৫ জনের মারা যাওয়ার কথা জানানো হয়।

গত ২৪ ঘণ্টায় ৫ হাজার ৭১১ জনের করোনা পরীক্ষা করা হয়। আগের দিন ৬ হাজার ২৬০ জনের করোনা পরীক্ষা করা হয়। সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত পরীক্ষা করা হয়েছে ৯৩ হাজার ৪০৫ জনের নমুনা। দেশে এখন ৩৩টি ল্যাবে করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে।গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনায় সংক্রমিত ব্যক্তি শনাক্তের ঘোষণা আসে। আর ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধিঃ শ্রীমঙ্গলে চট্টগ্রাম ফেরত আরও একজন করোনা শনাক্ত হয়েছে বলে জানা গেছে, তিনি শ্রীমঙ্গলের সিন্দুরখানে চট্রগ্রাম থেকে ফেরত এসেছেন। এ নিয়ে শ্রীমঙ্গলে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫ জনে পৌঁছেছে।

শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডা. সাজ্জাদ হোসেন চৌধুরী থেকে জানা যায়। আজ মঙ্গলবার ঢাকা থেকে ওই যুবকের করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজেটিভ আসে।

আক্রান্ত যুবকের বাড়ি উপজেলার সিন্দুরখাঁন ইউনিয়নের খারিজ্জমা গ্রামে। গত ২৩ এপ্রিল তিনি চট্টগ্রাম থেকে শ্রীমঙ্গল আসেন। পরদিন তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছিল। তিনি চট্টগ্রামে কোনো একটি ল্যাবে এক্সরে টেকনিশিয়ান হিসেবে চাকরী করেন। এ নিয়ে উপজেলায় মোট ৫ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ৪ জন বিভিন্ন জেলা থেকে সংক্রমিত শুধু মাত্র একজন তাদের সংস্পর্শ থেকে আক্রান্ত হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলাম বলেন, করোনা আক্রান্ত ওই যুবকের বাড়িসহ আশপাশের আটটি বাড়ি লকডাউন  করে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেই সব বাড়ির অন্য সদস্যদের নমুনা সংগ্রহ করা হবে।রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত সবগুলো বাড়ি লকডাউন থাকবে।আপডেট

চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ  করোনায় চিকিৎসক, সেবিকা,স্বাস্থ্যকর্মীসহ ৭ জন আক্রান্ত ও ৫ বছরের শিশুর মৃত্যুর পর হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রা লকডাউন ঘোষনা করা হয়। ৯ দিন পর মঙ্গলবার থেকে আবাও চালু হবে এ হাসপাতাল। এর আগে গত ২৫ এপ্রিল হাসপাতালটি লগডাউন ঘোষনা করা হয়েছিল।

চুনারুঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোজাম্মেল হোসেন জানান, মঙ্গলবার থেকে হাসপাতাল চালু থাকবে। রোগীরা যথাযথ সেবা পাবেন। এ উপজেলায় ৬ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী সবাই ভাল আছেন।

কমলগঞ্জ প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার ধলাই নদী থেকে মিরতিঙ্গা চা বাগানের নিখোঁজ এক  চা শ্রমিক দুলন রাজভর (৩০) এর মরদেহ উদ্ধার করেছে স্থানীয় পুলিশ।

সোমবার (৪মে) বিকেলে ধলাই নদীর ধর্মপুর ঘাট থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহত দুলন রাজভর মৃর্তিংগা চা বাগানের মৃত বুধু রাম রাজভরের ছেলে।

বাগানের শ্রমিকরা জানান, মৃত দুলন রাজভর তার বাবার মৃত্যুর পর থেকে মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পড়ে। মানসিক সমস্যায় ভোগতে থাকা দুলন গত বৃহস্পতিবার হতে নিখোঁজ হয়। তার মা তাকে অনেক খোঁজাখুজি করে তার সন্ধান পায়নি।

সোমবার দুপুরে উপজেলার রহিমপুর ইউপির ধর্মপুর ঘাট এলাকার ধলাই নদীতে একটি লাশ ভাসমান অবস্থায় দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা কমলগঞ্জ থানায় খবর দিলে বিকালে স্থানীয় লোকজনের সহযোগীতায় পুলিশ নদী থেকে লাশ উদ্ধার করার পর তার পরিচয় নিশ্চিত হয়। পরে লাশের সুরতহাল তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য মৌলভীবাজার মর্গে পাঠানো হয়।

কমলগঞ্জ থানার ওসি মো. আরিফুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, একটি অপমৃত্যু দায়ের করা হচ্ছে। ময়না তদন্ত প্রতিবেদন আসার পর পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সিলেট প্রতিনিধিঃ  সিলেটে এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরেকজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন।

একই হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে রোববার নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয় ওই রোগী। তিনি ইউরোলজি বিভাগে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

বর্তমানে আক্রান্ত রোগীকে করোনার জন্য নির্ধারিত নগরীর শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

সদর উপজেলার হাটখোলায় আক্রান্ত ব্যক্তির গ্রামের বাড়িও লকডাউন করা হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

এর আগে, ওসমানী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দুই প্রসূতি নারী করোনায় আক্রান্ত বলে শনাক্ত হয়েছিলেন।

ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক হিমাংশু লাল রায় জানান, করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হওয়ার পর রোগীকে রোববার রাতেই শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে পাঠানো হয়।

এদিকে আক্রান্ত ব্যক্তি ওসমানীতে চিকিৎসাধীন থাকার সময় ১২ জন চিকিৎসক ও সেবিকাসহ (নার্স) প্রায় ৩০ জন স্বাস্থ্যকর্মী তার সংস্পর্শে আসেন। এছাড়া ইউরোলজি বিভাগে অন্যান্য রোগী ও তাদের স্বজনও ছিলেন।

তবে ডা. হিমাংশু দাবি করেছেন, ওই রোগীর সংস্পর্শে আসা সব স্বাস্থ্যকর্মীর যথেষ্ট সুরক্ষাসামগ্রী ছিল। ফলে কারও কোয়ারেন্টাইনে যেতে হবে না।

গত ২৯ এপ্রিল কিডনির পাথর অপসারণের জন্য করোনা শনাক্ত হওয়া ব্যক্তি ওসমানী হাসপাতালের ইউরোলজি ওয়ার্ডে ভর্তি হন। তবে অস্ত্রোপচারের আগে তার ডায়ালাইসিস করানোর প্রয়োজন হয়। এ অবস্থায় হাসপাতালের নেফ্রোলজি বিভাগ ডায়ালাইসিস করাতে গেলে রুটিনমাফিক করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। এতে কোনো ধরনের উপসর্গ ছাড়াই নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট করোনা পজিটিভ আসে। রোববার পর্যন্ত ওসমানীর ল্যাবে ৯ জন আক্রান্ত শনাক্ত হন; যাদের মধ্যে ৬ জনই সিলেট জেলার বাসিন্দা।

নূরুজ্জামান ফারুকী নবীগঞ্জ থেকেঃ    নবীগঞ্জ উপজেলার ৬নং কুর্শি ইউনিয়নের এনাতাবাদ গ্রামের নবীগঞ্জ-বাহুবলের সংসদ সদস্য কর্তৃক জামে মসজিদের বরাদ্ধকৃত টাকা আত্নসাতের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় মেম্বার এম এ বাছিতের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় গত মঙ্গলবারব্দ (২৮ এপ্রিলa) কুর্শি ইউনিয়নের এনাতাবাদ গ্রামের স্থানীয় বাসিন্দা মোঃ মির্জা সামছুল আলম নামে এক ব্যাক্তি এনাতাবাদ গ্রামের নবীগঞ্জ-বাহুবলের সংসদ সদস্য কর্তৃক এনাতাবাদ জামে মসজিদের বরাদ্ধকৃত টাকা ইউপি মেম্বার কর্তৃক আত্মসাত হয়েছে মর্মে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিতভাবে অভিযোগ দায়ের করেন। এ ঘটনায় এলাকায় প্রচার হলে আলোচনার সমালোচলনার ঝড় বইছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সংরক্ষিত আসনের মহিলা মেম্বার রাজিয়া বেগমের মৌখিক আবেদনের প্রেক্ষিতে নবীগঞ্জ-বাহুবলের সংসদ সদস্য কর্তৃক বিশেষ খাত ২০১৯-২০ অর্থ বছরে গ্রামীন অবকাঠামো রক্ষনাবেক্ষন (টিআর) হতে নবীগঞ্জ উপজেলার ৬নং কুর্শি ইউনিয়নের এনাতাবাদ গ্রামের এনাতাবাদ জামে মসজিদের নামে ৪০ হাজার টাকা বরাদ্ধ প্রদান করা হয়। জেলা ত্রাণ ও পূনর্বাসন কর্মকর্তা,হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক,হবিগঞ্জের পক্ষে উক্ত এনাতাবাদ জামে মসজিদের নামে ৪০ হাজার টাকার বরাদ্ধকৃত টাকা উত্তোলনের জন্য (১৫-১২-২০১৯) তারিখে ডিওপত্র জারী করা হয়। উক্ত এনাতাবাদ জামে মসজিদের পঞ্চায়েত কমিটির পক্ষে আবেদনকারীগন সংরক্ষিত আসনের মহিলা মেম্বারকে এনাতাবাদ জামে মসজিদের বরাদ্ধকৃত টাকা উত্তোলনের জন্য বললে তিনি জানান,বর্তমান মেম্বার এম এ বাছিত অফিসকে ভুল বুঝিয়ে মসজিদের নামীয় ৪০ হাজার টাকা তোলে নিয়েছেন।

সংরক্ষিত আসনের মহিলা মেম্বার বলেন, অফিসে গিয়ে জানতে পারলাম জনৈক মেম্বার ভূয়া কমিটি দেখিয়ে ও অফিসকে ভূল বুঝিয়ে মসজিদের টাকা মেম্বার বাছিত উত্তোলন করেছেন। বিষয়টি নিয়ে মেম্বারক জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন,ওই মসজিদের নামে কোন টাকা আসে নাই। আমি কোানো টাকা উত্তোলন করিনি। একপর্যায়ে ঐ মসজিদ যে আছে চিনেনা ও জানেনা বলে জানায় ইউপি মেম্বার বাছিত । অথচ প্রাচীনতম শত বছরের একটি পুরাতন জামে মসজিদ নামে এলকায় পরিচিতি আছে। এমনকি মসজিদের পাশেই তার বাপ-দাদার বাড়ি এক সময় ছিল। উক্ত মসজিদের নামে বরাদ্ধকৃত টাকা আত্নসাত করায় এলাকার মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোন সময় এলাকায় রক্তক্ষয়ী সংর্ঘষের সম্মুখীন হতে পারে এলাকাবাসী ।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত মেম্বার বাছিতের সাথে কথা হলে তিনি জানান,টাকা তো এখনো উত্তোলন হয়নি । তাহলে আত্নসাত করবো কিভাবে।
এ ব্যপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিশ্বজিত কুমার পাল দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে বলেন, একটি লিখিত অভিযোগ করছেন মসজিদ পঞ্চায়ত কমিটির লোকজন।  আমরা তদন্ত করে মসজিদের নামে বরাদ্দকৃত টাকার আত্মসাতের প্রমান পেলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় সাধারণ ছুটির মেয়াদ আগামী ১৬ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এ নিয়ে পঞ্চমবারের মতো সাধারণ ছুটি বাড়াল সরকার।

সোমবার দুপুরে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের মাঠ প্রশাসন সমন্বয় অধিশাখার এক আদেশে ছুটি বাড়াতে সরকারের সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়। পরে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকেও এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে৫ মে পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা রয়েছে। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় আগামী ৭ থেকে থেকে ১৪ মে পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা যেতে পারে। ৬ মে বৌদ্ধ পূর্ণিমার সরকারি ছুটি৮ ও ৯ মে এবং ১৫ ও ১৬ মের সাপ্তাহিক ছুটিও এই সাধারণ ছুটির অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, সাধারণ ছুটির এই সময়ে এক জেলা থেকে অন্য জেলা এবং এক উপজেলা থেকে অন্য উপজেলায় জনসাধারণের চলাচল কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রিত থাকবে। জেলা প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এই নিয়ন্ত্রণ সতর্কভাবে বাস্তবায়ণ করবে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে জনগণকে অবশ্যই ঘরে অবস্থান করতে হবে। রাত ৮টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া (প্রয়োজনীয় বেচাকেনা, ওষুধ কেনা, চিকিৎসাসেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার) কোনোভাবেই বাড়ির বাইরে আসা যাবে না। ছুটির মধ্যে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের জারি করা নির্দেশমালাও কঠোরভাবে মেনে চলতে বলা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, তবে জরুরি পরিষেবা যেমন- বিদ্যাৎ, পানি, গ্যাস ও অন্যান্য জ্বালানী, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরসমূহের (স্থল, নদী ও সমুদ্র বন্দর) কার্যক্রম, পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট, ডাক সেবা ও সংশ্লিষ্ট সেবার কাজে নিয়োজিত যানবাহন ও কর্মীরা এই ছুটির বাইরে থাকবেন।

আদেশে বলা হয়, ‘রমজান এবং ঈদুল  ফিতরকে সামনে রেখে সীমিত পরিসরে ব্যবসা-বাণিজ্য চালু রাখার স্বার্থে দোকান-পাট খোলা রাখা যাবে; তবে ক্রয়-বিক্রয়কালে পারস্পরিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন করতে হবে।’

এতে আরো বলা হয়, ‘বড় বড় শপিংমলের প্রবেশমুখে হাত ধোয়ার ব্যবস্থাসহ স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা রাখতে হবে। এবং শপিংমলে আগত যানবাহনসমূহকে অবশ্যই জীবাণুমুক্ত করার ব্যবস্থা রাখতে হবে। সেইসঙ্গে দোকানপাট এবং শপিংমলসমূহ আবশ্যিকভাবে বিকেল ৫টার মধ্যে বন্ধ করতে হবে।’

এদিকে, আজ সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও এক ভিডিও কনফারেন্সে ছুটি বাড়ানোর কথা বলেন। তবে ধীরে ধীরে দোকানপাট ও ছোটখাটো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো সীমিত আকারে খুলে দেওয়ার নির্দেশও দেন তিনি।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে প্রথম দফায় গত ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সরকারি-বেসরকারি অফিসে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার। দ্বিতীয় দফায় তা ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত, তৃতীয় দফায় ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত এবং চতুর্থ দফায় ৫ মে পর্যন্ত ছুটি বর্ধিত করা হয়েছিল।

নূরুজ্জামান ফারুকী:  করোনার কারণে সরকারের সাধারণ ক্ষমায় হবিগঞ্জ জেলা কারাগার থেকে ৭ জনের মুক্তি মিলেছে। রোববার ৫ জন মুক্তি পেলেও জরিমানা পরিশোধ না করতে পারায় অপর ২ জন মুক্তি পাননি। তবে জরিমানার টাকা পরিশোধ করার সাথে সাথেই তাদেরও মুক্তি দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন জেলার মোঃ জয়নাল আবেদীন ভুইয়া।
তিনি জানান, রোববার বেলা ৩টার দিকে ৫ জনকে মুক্তি দেয়া হয়েছে। তবে দুইজনের ১০ হাজার টাকা জরিমানা থাকায় তারা আপাতত মুক্তি পাচ্ছেন না। জরিমানা পরিশোধ করলে তাৎক্ষণিক তাদেরকেও মুক্তি দেয়া হবে। মুক্তিপ্রাপ্ত সকলেই ভ্রাম্যমান আদালতসহ অন্যান্য মামলায় ছয় থেকে এক বছরের সাজাপ্রাপ্ত ছিলেন। তারা সকলেই হবিগঞ্জ জেলার বাসিন্দা।
মুক্তিপ্রাপ্তরা হচ্ছেন, মাধবপুর উপজেলার উত্তর সুরমা গ্রামের মরম আলীর ছেলে রুবেল মিয়া, নবীগঞ্জ উপজেলার গোয়ান্দা গ্রামের সুমন মিয়ার স্ত্রী শিবলী বেগম, একই উপজেলার নিজ চৌকি গ্রামের তৌফিক চৌধুরীর ছেলে ইমন চৌধরী ও ইমরান চৌধুরী এবং বানিয়াচং উপজেলার শেখের মহল্লা গ্রামের মঞ্জিল মিয়ার ছেলে মনির মিয়া।
এছাড়া বন মামলায় ১০ হাজার টাকা জরিমানা থাকায় চুনারুঘাট উপজেলার কাপাই চা বাগান এলাকার তরী মুন্ডার ছেলে সুজন মুন্ডা ও ঝান্ডা মুন্ডার ছেলে চন্দ্র মুন্ডা মুক্তি পাচ্ছেন না। জরিমানা পরিশোধ করলে তাৎক্ষণিক মুক্তি দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন জেলার।

হাবিবুর রহমান খান,জুড়ী প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজারের জুড়ীতে লেয়ার মুরগীর খামারে হামলার ঘটনায় জুড়ী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ মোঈদ ফারুক নিজেকে সম্পূর্ন নির্দোষ এবং তাঁর নির্বাচনী প্রতিপক্ষ পরিস্থিতি ঘোলাটে করেছে বলে দাবি করেন।
আজ (৪মে সোমবার) দুপুর সাড়ে ১২টায় উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, একটি কথা সত্য যে, আমি ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলাম। বাকী সব মিথ্যা।
তিনি বলেন, ঘটনার দিন সকালে উপজেলা পরিষদে দুইটি ধান কাটার মেশিন (কম্বাইন হার্ভেস্টার) বিতরণ করা হয়। এদিন বিকেলে স্থানীয় লোকজন আমাকে ফোন দিয়ে মেশিনটি দেখতে যেতে বলেন। তারাবীর পর সাইদুল ইসলাম আমাকে নিয়ে যায়। দীনবন্ধু সেনের খামারে মেশিনটি রাখা ছিল। সেখানে গিয়ে মেশিনটি দেখার সময় উপস্থিত লোকজন খামারের বিষয়ে অভিযোগ করেন। আমি নিজেও খামারের দুর্গন্ধে সেখানে ঠিকতে পারিনি। ওদের সাথে কথা বলার সময় হঠাৎ করে কে বা কাহারা একটি ঢিল মারে। এতে বদরুল নামক স্থানীয় এক লোক আহত হলে উপস্থিত ৫০/৬০ জন লোক খামারে ভাঙচুরের ঘটনা ঘটায়। খামারের পশ্চিম দিকেও কিছু লোক ভাঙচুর করে। সবাই খালি হাতে ছিল। আমি ওদের নিবৃত করি। সেই সাথে পুলিশ ও অ্যাম্বুুলেন্সকে ফোন দেই। পরে সেখানে থাকা ধান কাটা মেশিনের কিছু যন্ত্রাংশ ও খামারের ১টি জেনারেটর স্থানীয় মইন উদ্দিনের জিম্মায় রেখে সাইদুুলের বাড়ীতে চা খেতে যাই। সেখানে কয়েকজন লোক জড়ো হয়ে বাড়ীতে ঢিল মারে। এসময় আনফর মেম্বার,, তার দুই পুত্র ও স্থানীয় বাসিন্দা জামাল সেখানে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। পরে শুনলাম শাহাজান নামে একজন আহত হয়েছে।
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, দেশে বৈধ বা অবৈধ কোন অস্ত্রই তার নেই। ইলেক্ট্রনিক স্মোকারকে (ভেপার) কেহ আগ্নেয়াস্ত্র ভাবতে পারেন।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত উপজেলা চেয়ারম্যানের সহকর্মী আফজাল হোসেন চিকন বলেন, সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কিশোর রায় মনি ৪ কিলোমিটার দুরে থেকে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। কিন্তু স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শ্রীকান্ত দাস ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রিংকু রঞ্জন দাস নিকটতম বাসিন্দা হয়েও ঘটনাস্থলে যাননি। উনারা উপস্থিত হলে এরকম পরিস্থিত হতোনা।

স্টাফ রিপোর্টার: ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে গত ৩ এপ্রিল উত্তর গুয়াগাও গ্রামের মোঃ সমির আলীর স্ত্রী মোছাঃ হামিদা ও তার মেয়ে লাইলীকে বেধরক মারপিটে আহত করেন এবং শ্লীলতাহানি ঘটিয়ে তাহার শরীরের পরনের কাপড় চোপড় ছিড়িয়া ফেলেন একই গ্রামের পার্শ্ববর্তী লিয়াকত,জুয়েল,সুমন।
মামলার লিখিত এজাহার কপিমূলে জানা যায়, হামিদা একজন সহজ সরল প্রকৃতির গৃহবধূ। হামিদা সাংবাদিক কে জানায় কালবৈশাখী ঝরে চায়না নিমগাছ হামিদার ঘরে পড়িলে উক্ত নিম গাছের ডালপাতা হামিদার নিজ স্বামী সমীর আলী তাহার ঘরের টিনের চালায় পড়ে থাকা ডালপালা পরিষ্কার করিতে গেলে সে সময় বেআইনি দলবদ্ধ হয়ে জুয়েল, সুমন,লিয়াকত আক্রমণ চালিয়ে হামিদা ও লাইলীকে বেধরক মারপিট করে ও লাইলীর কাপড় চোপড় ছিড়িয়া  শ্লীলতাহানি ঘটিয়েছেন বলে হামিদার লিখিত এজাহারে জানা যায়।
মারপিটের পরবর্তীকালে হামিদা ও লাইলী চরমভাবে আহত হলে ভ্যান যোগে পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মুমূর্ষু অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
এবিষয়ে লাইলী ও হামিদাকে জিজ্ঞেস করলে সাংবাদিককে জানান আসামিরা আমাকে বেধরক মারপিটসহ শ্লীলতাহানি ও আমার গায়ের কাপড় চোপড় ছিড়িয়া ফেলেন এবং আমার বাসা থেকে ২০ হাজার টাকা নিয়ে যান তাই হামিদা আসামিদের উচিৎ শাস্তি চেয়ে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে থানায় এজাহার দায়ের করেন বলে সাংবাদিককে জানান।
এ রিপোর্ট লেখা পর্যুন্ত থানায় মামলা রেকর্ড হয়নি।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc