Wednesday 8th of July 2020 07:52:16 PM

“মৌলভীবাজার  জেলার ৩০ জনের  মধ্যে শ্রীমঙ্গলে ১৮,কমলগঞ্জে ৬, কুলাউড়ার ৩, বড়লেখার ২ ও রাজনগরের ১ জন”

জহিরুল ইসলাম, নিজস্ব প্রতিনিধিঃ  কদিন পর মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে নতুন করে আরোও ১৮ জন করোনা ভাইরাস শনাক্তের রিপোর্ট এসেছে। নতুন করে ১৮ জনের মধ্যে ১ জন গত ২৭ মে মুক্তিযোদ্ধা বিকাশ দত্ত (৬৫) করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যান। আজ ১৮জন আক্রান্তের মধ্যে মৃত ব্যক্তি ও রয়েছেন।

এদের মধ্যে একাধিক নারীও রয়েছেন।রোববার রাতে তাদের শরীরে করোনা পজেটিভ রিপোর্ট আসে।

এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি মোঃ নজরুল ইসলাম বলেন,আজ তাদের করোনা পজেটিভ রিপোর্ট এসেছে। আমরা আক্রান্তদের বাড়ি লকডাউন করে দিচ্ছি এবং তাদের শরীরের নমুনা সংগ্রহ করা হবে। আক্রান্তদের মধ্যে একাধিক নারী  ও রয়েছেন। তারা উপজেলার সবুজবাগ, সাঁতগাও, কালিঘাট সড়ক, কালাপুর এলাকার বাসিন্দা। এর আগে শ্রীমঙ্গলে ১২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়।

এদের মধ্যে ২ জন সুস্থ্য হয়েছেন তাদের পুনরায় করোনা পরিক্ষায় নেগেটিভ রিপোর্ট এসেছে। ১ জন মারা গিয়েছিলেন।

অপরদিকে মৌলভীবাজারে একদিনে ৩০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। রোববার ঢাকায় ল্যাবে নমুনা পরীক্ষায় এই ৩০ জনের করোনা শনাক্ত হয়। করোনা সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর মৌলভীবাজার জেলায় একদিনে এটিই সর্বোচ্চ সংখ্যক শনাক্তের ঘটনা।

একইদিনে ওসমানীর ল্যাবে সিলেটের ২২ জন,শাবির ল্যাবে সুনামগঞ্জের ২১ জন ও ঢাকার র‌্যাবের হবিগঞ্জের ২০ জনের করোনা শনাক্ত হয়। সব মিলিয়ে পুরো সিলেট বিভাগে এ পর্যন্ত করোনা শনাক্ত হয়েছে ১০৪০ জনের। এ বিভাগে এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ১৮ জন, সুস্থ ২৫০জন। আর হাসপাতালে ভর্তি আছেন ১২২ জন।

মৌলভীবাজারের সিভিল সার্জন ডা. তাওহীদ আহমদ এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, শনাক্ত হওয়াদের মধ্যে ১৮ জনই শ্রীমঙ্গল উপজেলার।বাকীদের মধ্যে কমলগঞ্জের ৬ জন, কুলাউড়ার ৩ জন, বড়লেখার ২ জন ও রাজনগরের ১ জন। এই ৩০ জনসহ মৌলভীবাজারে এ পর্যন্ত করোনা শনাক্ত হয়েছে ৩৮৮ জনের। 

এম ওসমান, বেনাপোল প্রতিনিধি:  ভারতের পেট্রাপোল স্থলবন্দর হয়ে বেনাপোল স্থলবন্দরে আমদানিকৃত বিভিন্ন পন্য নিয়ে আসা ১৯ ট্রাকচালককে ২মাসের অধিক সময় অতিবাহিত হলেও ফেরত নেয়নি ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। ফলে অনাহারে, অর্ধাহারে মানবেতর জীবনযাপন করছে এসমস্ত ট্রাক চালকরা।

বাংলাদেশে আমদানিকারক ও স্থানীয় সিএন্ডএফ এজেন্ট ব্যবসায়ীরা করোনাভাইরাস দুর্যোগে ভারতীয় ট্রাকচালকদের নিয়ে পড়েছেন চরম বিপাকে। বিষয়টি ভারতীয় কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হলেও কোন ফলপ্রসূ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্ট স্টাফ এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক সাজেদুর রহমান।

বেনাপোল স্থলবন্দর ও কাস্টমস সূত্র জানিয়েছে, ভারতে লকডাউন ঘোষনার আগের দিন গত ২০শে মার্চ বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে বাংলাদেশে শিল্প কারখানার কাঁচামালসহ বিভিন্ন ধরনের পন্য নিয়ে আসে ট্রাক চালকরা। কিন্তু পন্য বেনাপোল বন্দরে খালাসের পর থেকে ট্রাক ও চালকদেরকে নিজ দেশে ফেরত নেয়নি ভারত।

ভারতের উত্তর প্রদেশে বাড়ি ট্রাক চালক সীতারাম বলেন, আমরা বাংলাদেশে এসে আটকে পড়েছি। পেট্রাপোল স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ আমাদের নিচ্ছে না। পরিবারের লোকজনের সঙ্গে কোন যোগাযোগ করতে পারছি না। কাছে যা টাকা পয়সা ছিল অনেক আগেই শেষ হয়ে গেছে। খেয়ে না খেয়ে গাড়িতেই ঘুমাচ্ছি। বেনাপোল বন্দর, কাস্টমস ও সিএন্ডএফ এজেন্টের লোকজন মাঝে মাঝে কিছু খাদ্য সহয়তা দিয়েছে। তাতে জীবন চলে না। খাদ্য সহয়তা চায় না, আমরা দেশে ফিরতে চাই।

মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে ভারতের পেট্রাপোল স্থলবন্দর সিএন্ডএফ এজেন্ট স্টাফ ওয়েল ফেয়ার এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শ্রী কার্তিক চক্রবর্তী বলেন, করোনাভাইরাস আতঙ্ক ও ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি না থাকায় গাড়ি ও চালকদের প্রবেশে বাধা দিচ্ছে কর্তৃপক্ষ। আমরাও কর্তৃপক্ষের অনুমতি নেওয়ার চেষ্টা করছি। অনুমতি পেলেই ভারতীয় চালকরা ট্রাকসহ বাংলাদেশ থেকে ভারতে চলে আসবে।

বেনাপোল স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের উপ-পরিচালক (ডিডি) মামুন কবির তরফদার বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে স্থলবন্দরের ইয়ার্ডের ভেতরেই ট্রাক ও চালকদের রাখা হয়েছে। বন্দর, কাস্টমস ও সিএন্ডএফ এজেন্টরা চালকদের খাদ্য সহায়তা দিচ্ছেন।

চালকরা নিজেরাই রান্না করে খাচ্ছেন। দ্রুত সমস্যা সমাধানে ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন বলেও জানান তিনি। অনুমতি পেলে যে কোন মুহর্তে চালক ও ট্রাক গুলো ফেরত পাঠানো হবে।

গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সংক্রমণে ৪০ জনের মৃত্যু হয়েছে। দেশে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী ধরা পড়ার পর থেকে এ পর্যন্ত একদিনের ব্যবধানে এটাই সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড।

আজ (রোববার) দুপুর আড়াইটার দিকে করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে এ তথ্য দেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (মহাপরিচালকের দায়িত্বপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা। তিনি জানান, প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে দেশে মোট মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে ৬৫০ জনে দাঁড়িয়েছে। নতুন করে মারা যাওয়া ৪০ জনের মধ্যে ৩৩ জন পুরুষ এবং সাতজন নারী। ঢাকা বিভাগে ২৮ জন এবং চট্টগ্রাম বিভাগে আটজন মারা গেছেন।

নাসিমা সুলতানা বলেন, দেশে ৫২টি ল্যাবে করোনা ভাইরাস শনাক্তকরণ পরীক্ষা করা হয়েছে। এরমধ্যে নতুন করে দুটি ল্যাব সংযুক্ত হয়েছে। একটি সরকারি। আরেকটি বেসরকারি। গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১২ হাজার ২২৯টি। আর পরীক্ষা করা হয়েছে ১১ হাজার ৮৭৬টি। সবশেষ ২৪ ঘণ্টায় পরীক্ষা করা নমুনার মধ্যে ২ হাজার ৫৪৫টি নমুনা করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট ৪৭ হাজার ১৫৩টি নমুনায় করোনাভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে।

অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা

তিনি আরও জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৪০৬ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এ নিয়ে মোট ৯ হাজার ৭৮১ জন সুস্থ হলেন। আক্রান্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ২০ দশমিক ৭৪ শতাংশ।

করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধে সবাইকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিউএইচও) ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের লকডাউন পরবর্তী সংশ্লিষ্ট দিকনির্দেশনা বিশেষ করে মাস্ক ব্যবহার এবং শারীরিক দূরত্ব মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

এর আগে শনিবার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিল ১ হাজার ৭৬৪ জন, মারা গেছে ২৮ জন। বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। আর গত ১৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। এরপর থেকে ক্রমশ এর সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েই চলছে।পার্সটুডে

২০২০ সালে অনুষ্ঠিত এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় পাসের হার ৮২ দশমিক ৮৭ শতাংশ। গত বছরের তুলনায় এ হার সামান্য বেশি। গত বছর এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় পাসের হার ছিল ৮২ দশমিক ২০ শতাংশ।

আজ রোববার সকাল ১০টায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পরীক্ষার ফলাফলের অনুলিপি তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। পরে তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে ফল ঘোষণা করেন।

ফল ঘোষণা শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব থেকে রক্ষা পেতে আমরা ধাপে ধাপে এগুতে চাচ্ছি। অফিস সীমিত আকারে ‍খুলে দেওয়া হয়েছে, গণপরিবহন খুলে দেওয়া হয়েছে। আমরা ধাপে ধাপে এগুতে চাচ্ছি। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এখনই উন্মুক্ত করব না। এখন যে অবস্থা রয়েছে, এই অবস্থার উন্নতি হলে পর্যায়ক্রমে উন্মুক্ত করবো।’

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘সবাই মনোযোগ দিয়ে লেখাপড়া করবে। আমার বিশ্বাস, এই করোনাভাইরাসের আঘাত থেকে শিগগিরই বিশ্ব মুক্তি পাবে, বাংলাদেশও মুক্তি পাবে। যেকোনো সংকটে আত্মবিশ্বাস রাখতে হবে। নিজের আত্মবিশ্বাসটাই বড়। মনে রাখতে হবে, আমরা বিজয়ী জাতি। করোনাভাইরাসসহ যেকোনো দুর্যোগে আত্মবিশ্বাস রাখতে হবে। যেকোনো ঝড়-ঝাপ্টা আসুক, আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে আমরা মোকাবিলা করব। এই অবস্থার উত্তরণ ঘটাব।’

এরপর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তন থেকে ফেসবুক লাইভে মাধ্যমিকের ফলাফলের বিস্তারিত তুলে ধরেন শিক্ষামন্ত্রী। এসময় তিনি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ সবাইকে অভিনন্দন জানান। যারা উত্তীর্ণ হননি, তাদেরকেও ভেঙে না পড়ার আহ্বান জানান। এসএমএস, প্রি-রেজিস্ট্রেশন এবং সংশ্লিষ্ট বোর্ডের ওয়েবসাইট থেকে ফল জানতে পারবে শিক্ষার্থীরা বলেও জানান তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এসএসসির সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের মধ্যে ঢাকা বোর্ডে পাসের হার ৮২.৩৪ শতাংশ, রাজশাহী বোর্ডে ৯০.৩৭ শতাংশ, কুমিল্লা বোর্ডে ৮৫.২২ শতাংশ, যশোর বোর্ডে ৮৭.৩১ শতাংশ, চট্টগ্রাম বোর্ডে ৮৪.৭৫ শতাংশ, বরিশাল বোর্ডে ৭৯.৭০ শতাংশ, সিলেট বোর্ডে ৭৮.৭৯ শতাংশ, দিনাজপুর বোর্ডে ৮২.৭৩ শতাংশ, ময়মনসিংহ বোর্ডে ৮০.১৩ শতাংশ। এছাড়া মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডে পাস করেছে ৮২.৫১ শতাংশ এবং কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে পাস করেছে ৭২.৭০ শতাংশ শিক্ষার্থী।

এ বছরের এসএসসি পরীক্ষা শুরু হয় গত ৩ ফেব্রুয়ারি, শেষ হয় গত ২৭ ফেব্রুয়ারি। গত ২৯ ফেব্রুয়ারি থেকে ৫ মার্চের মধ্যে ব্যবহারিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

মোট ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের আওতায় এবারের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয় ১৬ লাখ ৩৫ হাজার ২৪০ শিক্ষার্থী। যার মধ্যে আট লাখ ৪৩ হাজার ৩২২ ছাত্রী। ছাত্রের তুলনায় ৫১ হাজার ৪০৪ ছাত্রী বেশি।

মাদরাসা বোর্ডের দাখিল পরীক্ষায় অংশ নেয় দুই লাখ ৮১ হাজার ২৫৪ জন। ছাত্রী অংশ নেয় এক লাখ ৪৭ হাজার ১১৬ জন। ছাত্রের তুলনায় ১২ হাজার ৯৭৮ জন বেশি। এছাড়া কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের এসএসসি ভোকেশনাল পরীক্ষায় এক লাখ ৩১ হাজার ২৮৫ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছে।

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার সাংবাদিক আবুল হাসনাত নিজের ফেসবুক ওয়ালে সকলের প্রতি ক্ষমা চেয়ে ফেইসবুকে একটি পোস্ট দেওয়ার দেড় ঘণ্টার মধ্যে না ফেরার দেশে চলে গেলেন।ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।  এর আগে শনিবার রাত দেড়টার দিকে তিনি ফেসবুকে লিখেন, “আমার অবস্থা ভালো না। আমাকে সবাই মাফ করে দেবেন। আমার সন্তানদের একটু দেখবেন।আমিন।”

তার মৃত্যুর বিষয়টি ফেসবুকে নিশ্চিত করেছেন চাঁদপুর জেলা আ’লীগ নেতা ডাক্তার সাগর ও প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জি এম শাহীন।

সাংবাদিক আবুল হাসনাত চাঁদপুর থেকে প্রকাশিত দৈনিক চাঁদপুর জমিনে কাজ করতেন। ডা. সাগর জানান, হঠাৎ শ্বাসকষ্ট শুরু হলে সাংবাদিক আবুল হাসনাতকে সদর হাসপাতালে নিয়ে আসার পর চিকিৎসা শুরু করা হয়। কিছুক্ষণের মধ্যেই রাত আনুমানিক ২টা ৫০ মিনিটের তিনি মারা যান।মহান আল্লাহ সাবেক এই ছাত্রনেতাকে জান্নাতবাসী করুন। আমিন।”

তিনি জানান, উনার দুইদিন ধরে জ্বর ছিল। করোনার লক্ষণ থাকায় স্যাম্পল নিয়ে যথাযথ নিয়ম মেনে দাফন কাজ সম্পন্ন হয়েছে। সবাই দোয়া করবেন। সাংবাদিক আবুল হাসনাত ফরিদগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী গুণীজন স্মৃতি সংসদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও ফরিদগঞ্জ প্রেসক্লাবের দপ্তর সম্পাদক ছিলেন।

“দালালের লোভনীয় অফারে এই রকম শতাধিক যুবকের প্রান যাচ্ছে লিবিয়ায় নিঃস্ব হচ্ছে পরিবার”

সংসারে খানিকটা স্বচ্ছলতা ফেরাতে আদরের সন্তানকে বিদেশ পাঠিয়েছিলেন বাবা-মা। দালালের খপ্পরে পড়ে জীবন বাজি রেখে দেশ ছেড়েছিলেন সন্তান। ইচ্ছে ছিল টাকা উপার্জন করে পরিবারের মুখে হাসি ফোটাবেন। কিন্তু কে জানতো জীবনে গতি আনতে গিয়ে বিদেশের মাটিতে এভাবে লাশ হতে হবে। প্রিয় মানুষটিকে হারিয়ে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ঘরে ঘরে যেন কান্নার রোল পড়ে গেছে। গত মঙ্গলবার (২৬ মে) লিবিয়ায় মানবপাচারকারীদের গুলিতে নিহত হন ২৬ বাংলাদেশিসহ ৩০ জন। তাদের মধ্যে ভৈরবের আটজন রয়েছেন।

তারা হলেন, উপজেলার সাদেকপুর ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামের মেহের আলীর ছেলে মো. আকাশ, মোটুপী গ্রামের খালপাড় এলাকার আব্দুল আলীর ছেলে সোহাগ মিয়া, কালিকাপ্রসাদ ইউনিয়নের আকবরনগর গ্রামের জিন্নাত আলীর ছেলে মাহাবুব, শ্রীনগর ইউনিয়নের শ্রীনগর গ্রামের বাচ্চু মিলিটারির ছেলে সাকিব, শুম্ভপুর গ্রামের জানু মিয়া, মামুন মিয়া, সাদ্দাম মিয়া ও মোহাম্মদ আলী।

লিবিয়ায় নিহত এসব প্রবাসীদের বাড়িতে কান্না থামছে না। স্বজনদের আহাজারিতে ভারি হয়ে উঠেছে এলাকার পরিবেশ। শেষবারের মতো প্রিয়জনের মুখটাও দেখতে পারল না পরিবারের লোকজন। নিহত আকাশের বড় ভাই মোবারক জানান, দেড় বছর আগে স্থানীয় এক দালালের মাধ্যমে লিবিয়ায় পাড়ি জমান আকাশ। সেখানে কাজ করার সময়ে ভৈরবের শ্রীনগর গ্রামের দালাল তানজীরের সঙ্গে লিবিয়ার বেনজি থেকে ত্রিপলি হয়ে ইতালি যাওয়ার জন্য কথাবার্তা হয়। ইতালিতে পৌঁছার পর তিন-চার লাখ টাকা পরিশোধ করতে হবে বলে তার সঙ্গে চুক্তি হয়। ওই দালালের মাধ্যমে আরও অনেকের সঙ্গে আকাশের ইতালির উদ্দেশ্যে রওনা দেয়ার খবর তারা জানতে পারেন। এরপর থেকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

হঠাৎ বুধবার (২৭ মে) সন্ধ্যায় মোবারকের মোবাইলে ইমুতে একটি ভয়েস ম্যাসেজ আসে। সেখানে লেখা ‘আমাকে বাঁচাও, আমাকে মেরে ফেলবে’। পাচারকারীরা আকাশের কাছে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। যদি না দেয় তাহলে তাদের মেরে ফেলবে। এরপর থেকে আর তাদের কোনো খোঁজ মেলেনি। তার মৃত্যুর খবরে স্বজনদের মাথায় যেন আকাশ ভেঙে পড়েছে। নিহত সোহাগের বাবা আব্দুল আলী জানান, এক বছর আগে লিবিয়ায় যান তার ছেলে। সেখানে কয়েকমাস থাকার পর ভৈরবের শ্রীনগর গ্রামের পূর্বপাড়ার সোনা মিয়ার ছেলে তানজীরের মাধ্যমে ইতালি যাওয়ার জন্য তিন লাখ টাকায় চুক্তি হয়। এরপর থেকে তার ছেলের আর খোঁজ মেলেনি। পরে অন্যদের মাধ্যমে ছেলের মৃত্যুর খবর পান।

ভৈরব থানা পুলিশের পরিদর্শক (ওসি) তদন্ত বাহালুল আলম খান বলেন, লিবিয়ায় মানবপাচারকারীদের গুলিতে নিহত ২৬ বাংলাদেশির মধ্যে ভৈরবের আটজনের নাম জানা গেছে। আমরা তাদের নামের তালিকা সংগ্রহ করে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছি। পরবর্তীতে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী পদক্ষেপ নেয়া হবে। ভৈরব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুবনা ফারজানা জানান, বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। দালাল চক্রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, লিবিয়ার মিজদা শহরে একটি মানবপাচারকারীর চক্র বাংলাদেশিদের অবৈধভাবে ইতালি পৌঁছে দেয়ার কথা বলে তাদের অপহরণ করে পরিবারের কাছে মুক্তিপণ দাবি করে। মঙ্গলবার রাতে খুন হন এক মানবপাচারকারী। এরপর তার সহযোগীরা জিম্মি অভিবাসীদের ওপর ক্যাম্পে নির্বিচারে গুলি চালালে ঘটনাস্থলেই ২৬ জন বাংলাদেশিসহ মোট ৩০ জন মারা যান। এ ঘটনায় আরও ১১ জন বাংলাদেশি আহত হন। তারা বর্তমানে দেশটির জিনতান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ করোনা ভাইরাস সংক্রামন প্রতিরোধে ক্ষতিগ্রস্থ নড়াইলের  দুুঃস্থ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পাশে দাড়ালেন দূর্নীতি দমন কমিশনার (তদন্ত) এফ, এম আমিনুল ইসলাম হিরু। শনিবার শহরের চৌরাস্তা এলাকার একটি অফিসে  কমিশনারের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে জেলার ৩০ জন মুক্তিযোদ্ধাকে প্রত্যেককে ১হাজার টাকা করে নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়। এ আগেও তিনি জেলার বিভিন্ন এলাকায় করোনায় ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে ত্রান ও নগদ অর্থ বিতরণ করেছেন

সাবেক সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ হুমাউন শরীফ, বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডঃ এস,এ মতিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও জেলা পরিষদের সদস্য মোঃ সাইফুর রহমান হিলু  দুদকের কমিশনারের পক্ষে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে এ অর্থ  বিতরন করেন।  জেলা দুর্নীতি দমন প্রতিরোধ কমিটি নড়াইলের সাধারন সম্পাদক কাজী হাফিজুর রহমান, কমিশনারের আত্মীয় মোঃ ফারুক হোসেনসহ স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

হাবিবুর রহমান খান,জুড়ী প্রতিনিধি: মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার ঐতিহ্যবাহী সমাজসেবী সংগঠন জুড়ী উপজেলা ফাউন্ডেশনের কার্যকরী কমিটি গঠন করা হয়েছে।
এতে কামরুল হোসেন পলাশকে সভাপতি, আমির হোসেন রনিকে সাধারণ সম্পাদক করে ২বছর মেয়াদী ২৪ সদস্য বিশিষ্ট কার্যকরী কমিটি অনুমোদিত হয়েছে।
কমিটির অন্যরা হলো সহ-সভাপতি ওয়াহিদুর রহমান মুমিন, কুতুব উদ্দিন জসিম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক- মামুন মুন্না, হাবিবুল্লাহ বাহার, সাংগঠনিক সম্পাদক- রায়হান আহমেদ শাহীন, সহ সাংগঠনিকসাইফুর রহমান , অর্থ সম্পাদক- সাবেরুজ্জামান সুমন, সহ- অর্থ জাকারিয়া খান জাকির, দপ্তর সম্পাদক-মোঃসাইফুর রহমান, সহ দপ্তর কাউছার হোসেন নাঈম, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক- ফয়ছল আহমদ, সহ- আশিকুর রহমান, ক্রীড়া সম্পাদক- ফারুক আহমেদ, সহ- খালেদ আহমেদ চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক- আবু সালেহ নাঈম, সহ- মাহদি হাসান নুহাশ, প্রবাসী কল্যাণ সম্পাদক- গিয়াস উদ্দিন রুবেল, শামীম আহমদ, শৃঙ্খলা বিষয়ক সম্পাদক- কাউছার আহমদ শাওন, সহ- আব্দুল্লাহ আল মাহি, প্রকাশনা সম্পাদক- নাঈম খান, সহ- জে এইচ মারুফ।

স্থানীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে দীর্ঘদিনের বিরোধ নিষ্পত্তি 

সানিউর রহমান তালুকদার,নবীগঞ্জ থেকে: হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরীর প্রচেষ্টায় নবীগঞ্জ উপজেলার স্থানীয় বিজনা নদীর জলমহাল নিয়ে বাউসা ইউনিয়নের বাঁশডর গ্রামের দু’পক্ষের চলমান উত্তেজনা বিরোধ নিষ্পত্তি হয়েছে। ফলে বড় ধরণের সংঘাত থেকে রক্ষা পেয়েছে ওই গ্রামবাসী।
গতকাল শুক্রবার রাতে নবীগঞ্জ থানা প্রাঙ্গনে উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে উক্ত বিরোধ নিষ্পত্তি হয়।
জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে বিজনা নদীর জলমহাল পুরো বাঁশডর গ্রামবাসী সম্মিলিতভাবে ভোগদখল করে আসছিল। বিগত কয়েকমাস পূর্বে বাঁশডর গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসী আফরোজ মিয়া স্থানীয় ৫৭ জন মৎসজীবি নিয়ে বিজনা নদীর জলমহাল পাওয়ার জন্য আবেদন করে। প্রক্ষান্তরে বাঁশডর গ্রামবাসীর পক্ষে রাজা মেম্বার, কাছন মিয়াসহ ২৩৫ জন মৎসজীবি একই নদীর জলমহাল পাওয়ার জন্য আবেদন করেন। এরই প্রেক্ষিতে উভয় পক্ষের মধ্যে দেখা দেয় চরম উত্তেজনা। দু’পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র প্রস্তুত করে সংঘর্ষে লিপ্ত হওয়ার প্রস্তুতি নেয়।
এ খবর পেয়ে বড় ধরণের সংঘাত এড়াতে উভয় পক্ষের সাথে আলাপ করে বিষয়টি সুষ্ঠুভাবে নিষ্পত্তি করে দেয়ার আশ্বাস দেয় নবীগঞ্জ থানা পুলিশ। এরই প্রেক্ষিতে গতকাল শুক্রবার রাতে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে নবীগঞ্জ থানা প্রাঙ্গনে এক শালিস বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে উভয় পক্ষের সর্বসম্মতিক্রমে পূর্বের ন্যায় পুরো বাঁশডর গ্রামবাসী উক্ত বিজনা নদীর জলমহাল ভোগদখল করবেন এবং উভয় পক্ষের দেয়া পৃথক আবেদন প্রত্যাহার করে পুরো বাঁশডর গ্রামবাসী সকলে মিলেমিশে একটি আবেদন পুনরায় দিবেন বলে সিদ্ধান্ত হয়। এতে উভয় পক্ষের লোকজনই সন্তুষ্ট হন।
উক্ত শালিস বৈঠকে সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করে উপস্থিত ছিলেন, নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরী, নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আজিজুর রহমান, ওসি (তদন্ত) উত্তম কুমার দাশ, ওসি (অপারেশন) মো. আমিনুল ইসলামসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের চুনারুঘাট পৌর শহরের মধ্যবাজারে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার রাত ১টার দিকে মধ্য বাজারের একটি মুদি দোকান থেকে অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শী জানান, স্থানীয়রা আধাঘন্টা চেষ্টার পর শায়েস্তাগঞ্জ থেকে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালায়।

তারা ৪০ মিনিট চেষ্টার পর স্থানীয়দের সহযোগিতায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এরই মধ্যে আগুনে ৪টি দোকান পুড়ে ভস্মিভূত হয়ে যায় এবং পাশ্ববর্তী ৫ দোকানে আংশিক ক্ষতি সাধন হয়। এতে ৯টি দোকানে প্রায় ৭৬ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানায় ফায়ার সার্ভিস।

এ ব্যাপারে চুনারুঘাট থানার ওসি শেখ নাজমুল হক জানান, অগ্নিকান্ডে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তবে স্থানীয় শতশত মানুষের সহযোগিতায় ফায়ার সার্ভিস আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছে।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইলের কালিয়া উপজেলার নড়াগাতি থানার কলাবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) মেম্বার স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল কাইয়ূম সিকদারকে (৪৮) কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাহামুদুল হাসান কায়েসসহ ৪৫ জনের নামে মামলা দায়ের হয়েছে। শুক্রবার রাতে এ মামলা দায়ের করেন নিহত আব্দুল কাইয়ূমের ছেলে নড়াগাতির বিলাফর গ্রামের নাইমুল ইসলাম মিল্টন। এছাড়া এ মামলায় ১০ থেকে ১৫জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নড়াগাতি থানার ওসি রোকসানা খাতুন। তিনি জানান, এ মামলায় এখনো পর্যন্ত কোনো আসামিকে গ্রেফতার করা যায়নি। তবে গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত আছে।
মামলার বিবরণে ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও পূর্বশত্রুতার জের ধরে গত ২৬ মে রাত ৯টার দিকে নড়াইলের নড়াগাতি থানার কলাবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার ও কলাবাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা কাইয়ূম সিকদারকে কুপিয়ে হত্যা করে প্রতিপক্ষরা। ওৎ পেতে থাকা প্রতিপক্ষরা মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে নড়াগাতি থানার কালিনগর এলাকায় আব্দুল কাইয়ূমকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। গুরুতর জখম কাইয়ূমকে কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনা হলে তার মৃত্যু হয়। তার হাত, পা, মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন কুপিয়ে হত্যা করা হয়। কাইয়ূম নড়াগাতির বিলাফর গ্রামের হাসু সিকদারের ছেলে।
এ ঘটনায় নড়াগাতি থানা কৃষকলীগের সভাপতি কলাবাড়িয়া গ্রামের আবুল হাসনাত মোল্যা (৪০) এবং একই গ্রামের আপন দুই ভাই মতিয়ার মল্লিক (৪২) ও সজীব মল্লিককে (২৮) কুপিয়ে গুরুতর জখম করে প্রতিপক্ষরা। তাদের খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
তারা দু’টি মোটরসাইকেল যোগে নড়াইলের কালিয়া উপজেলা সদর থেকে বাড়িতে ফেরার পথে কালিনগর এলাকায় ওৎপেতে থাকা প্রতিপক্ষরা তাদের পথরোধ করে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটায়।

এম ওসমান,বেনাপোল প্রতিনিধিঃ বেনাপোল স্থলবন্দরের শ্রমিক সর্দার রকিব উদ্দীন (নকি) মোল্লাকে প্রায় দেড় কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে শনিবার দুপুরে অবরুদ্ধ করে রাখে সাধারণ শ্রমিকেরা। এ ঘটনায় বন্দর থেকে পণ্য খালাস বন্ধ রয়েছে। মামলার প্রস্তুতি নিয়েছেন শ্রমিক নেতারা।
অভিযুক্ত শ্রমিক সর্দার নকি মোল্লা বেনাপোল স্থলবন্দর ৮৯১ শ্রমিক ইউনিয়নের গ্রুপ সর্দার। পৌরসভার বড়আঁচড়া গ্রামের সকু মোল্লার ছেলে এবং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক।
সাধারণ শ্রমিকেরা বলছেন, রক্ত ঘাম ঝরিয়ে শ্রমিকদের উপার্জনের টাকা তিনি আত্মসাৎ করে কোটি কোটি টাকার গাড়ি, বাড়ি সম্পদ করেছেন। অথচ তাদের টাকা ফেরত দিচ্ছেন না। টাকা না দেওয়া পর্যন্ত তাকে ছাড়া হবে না।
বেনাপোল বন্দরের ৮৯১ শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি খলিলুর রহমান জানান, এর আগে অনেকবার টাকা পরিশোদের কথা বলেও তিনি দেননি। আজ ৩০ মে পরিশোধের শেষ দিন ছিল। টাকা না দেওয়ায় তাকে সাধারণ
শ্রমিকেরা অবরুদ্ধ করে রেখেছে। টাকা পরিশোধ না করলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
জানা যায়, সাধারণ শ্রমিকদের টাকা সঞ্চয়ের নামে জমা রাখতেন শ্রমিক সর্দার নকি মোল্লা।
এছাড়া বিভিন্ন জিনিসি পত্র কেনার নামে তিনগুণ টাকা বেশি দেখিয়ে রশিদ জমা দিত। সব মিলিয়ে ১ কোটি ৩২ লাখ টাকা তার কাছে পাওনা। কিন্তু তিনি প্রভাবশালী হওয়ায় সহজে তার বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলতে পারতেন না। এখন একদিকে করোনা অন্য দিকে ঘূর্ণিঝড় আম্মানে সর্বশান্ত হয়ে দেয়ালে তাদের পিট ঠেকে যাওয়ায় মুখ খুলেছে শ্রমিকরা।

পুলিশ হেফাজতে আমেরিকার মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের মিনেপোলিস শহরে জর্জ ফ্লয়েড নামে একজন কৃষ্ণাঙ্গ নাগরিক নিহত হওয়ার ঘটনায় বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে পড়েছে মিনেপোলিস শহর। পরিস্থিতি সামাল দিতে মেয়র জ্যাকব ফ্রেই শহরে কারফিউ জারি করেছেন।

তিনি নির্দেশ দিয়েছেন, সবাইকে রাস্তা থেকে ঘরে ফিরতে হবে এবং রাত ৮টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত কারফিউ বলবৎ থাকবে। এ সময় শুধুমাত্র আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর লোকজন, ফায়ার সার্ভিস এবং চিকিৎসা কর্মী ও ন্যাশনাল গার্ডের সদস্যরা শান্তি রক্ষার দায়িত্বে রাস্তায় থাকতে পারবে।

তিনি সুস্পষ্ট করে বলেন, রাতের বেলায় যারা রাস্তায় নামবে তাদেরকে ৯০ দিনের জেল দেয়া হবে এবং এক হাজার ডলার জরিমানা করা হবে। তিনি বলেন, আমেরিকার কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তি হলে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হবে- তা নয়।

এর আগে মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের গভর্নর মিনেপোলিস শহরে বিক্ষোভের অবসান ঘটানোর আহ্বান জানান। গভর্নর টিম ওয়াল্জ বলেন, পুলিশ হেফাজতে রেখে হ্যান্ডকাফ পরা অবস্থায় বর্বরতা চালিয়ে কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তিকে হত্যা করার সঙ্গে যেসব কর্মকর্তা জড়িত তাদেরকে দ্রুত ন্যায় বিচারের আওতায় আনা হবে।

ফ্লয়েড হতাকাণ্ডের পর টানা তৃতীয় দিন মিনেপোলিস শহরে বিক্ষোভ হয়েছে। বিক্ষোভকারীরা বহুসংখ্যক গাড়ি, ভবন এবং পুলিশের গাড়িতে আগুন দিয়েছে।পার্সটুডে

মহামারী করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ২৮ জন মারা গেছেন। একদিনে মৃত্যুর দিক দিয়ে এটাই এ পর্যন্ত সর্বোচ্চ সংখ্যা। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৬১০ জনে পৌঁছাল।গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১ হাজার ৭৬৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

আজ শনিবার করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় (শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে শনিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত)  দেশের সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে ৫০টি পিসিআর ল্যাব থেকে ৯ হাজার ৯৮৭টি নমুনা পরীক্ষার ফল পাওয়া গেছে। এই পরীক্ষায় নতুন করে ১ হাজার ৭৬৪ জনের দেহে করোনাভাইরাস বা কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ পাওয়া গেছে। এতে দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হলো ৪৪ হাজার ৬০৮ জন।

বিএনপি’র মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অভিযোগ করেছেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতিতে বিশেষজ্ঞদের মতামত উপেক্ষা করে সরকারের সব কিছু খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্তে দেশের মানুষ আরও বড় বিপদের দিকে ধাবিত হচ্ছে ।

আজ শনিবার সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৩৯তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তার মাজারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের নিকট এমন মন্তব্য করেন মির্জা ফখরুল।

তিনি বলেন,যে পরিমাণ পরীক্ষা হচ্ছে তাতে দেখা যাচ্ছে প্রতিমুহূর্তে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। মৃত্যুর পরিমাণ বাড়ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এমনকি সরকারের নির্বাচিত এ সংক্রান্ত টেকনিক্যাল কমিটি রয়েছে তারাও পরামর্শ দিয়েছেন একসাথে সব কিছু খুলে দেওয়া ঠিক হবে না।

তিনি আরও বলেন, ‘সে পরামর্শ না শুনে আগামীকাল থেকে সবকিছু খুলে দিচ্ছে। এসব সিদ্ধান্ত দায়িত্বজ্ঞানহীন, একেবারেই ভুল সিদ্ধান্ত। এতে করে আরও চরম বিপদের দিকে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। সরকারের ভুল সিদ্ধান্তে আরও বড় বিপদের দিকে যাচ্ছি।

বিএনপি নেতা ফখরুল ইসলাম বলেন,”আজ সমস্ত জাতিকে বিপদের মধ্যে ফেলে দিয়েছে। তারা বলছে, আগামীকাল থেকে সাধারণ ছুটিও থাকবে না, গণপরিবহনও খুলে দেওয়া হবে। প্রথম থেকেই সরকার ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মনে হয়েছে কোথাও কোনো সমন্বয় নেই। সরকারের সিদ্ধান্তগুলো সম্পূর্ণভাবে অপরিপক্কই নয়, অদূরদর্শী ও প্রজ্ঞাহীনও। ফলে দেশের মানুষ আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, সরকারকে আমরা বহু পরামর্শ দিয়েছি। বিপরীতে তাদের কাছ থেকে শুধু তিরস্কারই পেয়েছি।”

তিনি বলেন, বিএনপির দিক থেকে আমরা যে প্যাকেজ প্রস্তাব দিয়েছিলাম তা সবচাইতে যুক্তিসঙ্গত ছিল। আমরা দিন আনে দিন খায় মানুষকে মাসে ৫ হাজার টাকা করে তিন মাসে ১৫ হাজার টাকা দেওয়ার প্রস্তাব করেছিলাম। সেটা তারা পারেনি, সরকার ব্যর্থ হয়েছে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, আজ জিয়াউর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকীর দিনে শপথ নিয়েছি, অতীতের মতো জনগণের এই কঠিন মুহূর্তে তাদের পাশে থাকবো, দেশের হারানো গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনবো।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc