Thursday 2nd of April 2020 08:38:33 PM

বেনাপোল প্রতিনিধি : যশোরের শার্শা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতাউর রহমানসহ ৫ পুলিশকে ক্লোজড করা হয়েছে। উদ্ধার করা মাদকদ্রব্য আত্মসাতের অভিযোগ ওঠে তাদের বিরুদ্ধে।
শাস্তির শিকার অন্য পুলিশ সদস্যরা হলেন, থানার সাব ইনসপেক্টর (এসআই) আবুল হাসান, এএসআই আবু বক্কর সিদ্দিক, কনস্টেবল আব্দুল মান্নান এবং ইকবাল হোসেন।
সোমবার খুলনার ডিআইজি ড. মুহাম্মদ মহিদ উদ্দিন এক অফিস আদেশে (স্মারক নম্বর-জিএ-০২/৩১০৬/৭) তাদের ক্লোজ করা হয়।
আদেশে বলা হয়েছে, প্রশাসনিক কারণে শার্শা থানার ওসি আতাউর রহমানকে ক্লোজ করে খুলনা রেঞ্জ রিজার্ভ ফোর্স (আরআরএফ)-এ সংযুক্ত করা হলো।
একইসঙ্গে এসআই আবুল হাসান, এএসআই আবু বক্কর সিদ্দিক, কনস্টেবল আব্দুল মান্নান ও ইকবাল হোসেনকে জেলা পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হলো।
পুলিশের একটি সূত্র বলছে, ওসি ও তার সহযোগীরা উদ্ধার করা ৪৫০ বোতল ফেনসিডিল ও ১৬ কেজি গাঁজা আত্মসাৎ করেছেন। সেই কারণে তাদের বিরুদ্ধে এই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা।
তবে যশোর জেলা পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম বলেন, একটি মামলার আলামত সঠিক ভাবে সংগ্রহ না করার কারণে ওই পাঁচ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

খাতে নিতে বিরোধী পক্ষের মানববন্ধন করার অভিযোগ  

 
সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় বালিজুরী ইউনিয়ন ছাত্রদলের সভাপতি দ্বীন মোহাম্মদের নেতৃত্বে বালিজুরী ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি জিয়া উদ্দিনের উপর অতর্কিত হামলার ঘটনা ভিন্ন খাতে নিতে বিরুদী পক্ষের লোকজন পাল্টা মানববন্ধন করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
সোমবার(১৬ মার্চ)সকালে যুবলীগ সভাপতি জিয়া উদ্দিনের উপর হামলার প্রতিবাদে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে আনোয়ারপুর বাজারে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা করেছে বাবুল মেম্বারের নেতৃত্বে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ,ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।
এর পূর্বে আহত যুবলীগ সভাপতির ছোট ভাই বিল্লাল মিয়া বাদী হয়ে রোববার (১৫মার্চ) রাতে তাহিরপুর থানায় ইউনিয়ন ছাত্রদল সভাপতিসহ ১১জনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেন।
এর পর পরেই এলাকায় দু-গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলে বাজারের ব্যবসায়ীরা  আতঙ্কিত হয়ে দোকানপাট বন্ধ করে দেয়।
খবর পেয়ে তাহিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আতিকুর রহমান পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনে সবাই কে দোকান খোলা রেখে ব্যবসা করতে বললে দোকান খোলা হয়।
এর পর দুপুরে আনোয়ারপুর বাজারে সন্ত্রাসী মহড়ার দেয়ার অভিযোগ তুলে বিরুধীরা মানববন্ধন কর্মসুচি পালন করেছে।
আনোয়ারপুর বাজার বণিক সমিতির সভাপতি ফয়সাল আহমেদ বলেন,আমি ঘটনাটি তাহিরপুর থানায় অবগত করলে তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আতিকুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল এসে বাজারের দোকানপাট খুলে দেন।
অভিযুক্ত স্থানীয় ইউপি সদস্য বাবুল মেম্বার জানান,গতরাতে( রবিবার)একটি সন্ত্রাসী বাহিনী বালিজুরী ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি জিয়া উদ্দিনকে মারধর করে গুরুতর আহত করে। বর্তমানে সে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে আমরা একটি প্রতিবাদ মিছিল নিয়ে বাজারে যাই। এই মিছিলকেই বিরুদীরা সন্ত্রাসী মহড়া বলছে।
তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আতিকুর রহমান বলেন, এরকম ঘটনার খবর পেয়ে আনোয়ারপুর বাজারে গিয়ে ব্যবসায়ীদের দোকানপাট খুলে দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত থানায় কেউ কোন লিখিত অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
উল্লেখ্য,রবিবার (১৫,০৩,২০২০)সন্ধ্যার পর বালিজুরি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান যুবলীগ সভাপতি জিয়া উদ্দিন বাড়ি যাওয়ার পথে দক্ষিণকুল গ্রামের স্কুলের সম্মুখে পরিকল্পিতভাবে হামলা চালায় ইউনিয়ন ছাত্রদল সভাপতি দ্বীল
মোহাম্মদ,জাকারিয়া,কিবরিয়া,তৌফিক,বাদশা,জুয়েল,সুহেল,আলম ও আতাউর দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মাথায় ও শরীরের বিভিন্ন জায়গায় পিটিয়ে মাটিতে ফেলে রেখে যায়।
পরে পথচারীরা জিয়া উদ্দিনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্মরত চিকিৎসক তাকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠান। আহত জিয়া উদ্দিন সুনামগঞ্জ সদর হাপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন।
এঘটনায় ঐ এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করলে সকাল থেকেই তাহিরপুর থানা পুলিশের একটি চৌকস দল আনোয়ারপুর বাজারে অবস্থান করছে।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার বালিজুরি ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি জিয়া উদ্দিনের উপর একই ইউনিয়নের ছাত্রদল সভাপতি দ্বীল মোহাম্মদ তার দলবল নিয়ে অতর্কিত হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করার প্রতিবাদে বিক্ষোব মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্টিত হয়েছে।
সোমবার(১৬ মার্চ)সকালে যুবলীগ সভাপতি জিয়া উদ্দিনের উপর হামলার প্রতিবাদে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে আনোয়ারপুর বাজারে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা করেছে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ,ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ।
এদিকে,আহত যুবলীগ সভাপতির ছোট ভাই বিল্লাল মিয়া বাদী হয়ে রোববার (১৫ মার্চ) রাতে তাহিরপুর থানায় ইউনিয়ন ছাত্রদল সভাপতি সহ ১১জনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেন।
অভিযোগ সুত্রে জানা যায়,রোববার সন্ধ্যা ৬টায় বালিজুরি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান যুবলীগ সভাপতি জিয়া উদ্দিন বাড়ি যাওয়ার পথে দক্ষিণকুল গ্রামের স্কুলের সম্মুখে পরিকল্পিতভাবে হামলা চালায় ইউনিয়ন ছাত্রদল সভাপতি দ্বীল মোহাম্মদ,জাকারিয়া,কিবরিয়া,তৌফিক,বাদশা,জুয়েল,সুহেল,আলম ও আতাউর দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মাথায় ও শরীরের বিভিন্ন জায়গায় পিটিয়ে মাটিতে ফেলে রেখে যায়। পরে পথচারীরা জিয়া উদ্দিনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্মরত চিকিৎসক তাকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠান। আহত জিয়া উদ্দিন সুনামগঞ্জ সদর হাপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন।
এঘটনায় ঐলাকায় উত্তেজনা রিবাজ করলে সকাল থেকেই তাহিরপুর থানা পুলিশের একটি চৌকস দল আনোয়ারপুর বাজারে অবস্থান করছে।
এব্যাপারে তাহিরপুর থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ আতিকুর রহমান বলেন,হামলার ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত পুর্বক এ ঘটনার ব্যবস্থা নেয়া হবে।

“কুড়িগ্রামের মহিলা জেলা প্রশাসক (ডিসি) সুলতানা পারভীনকে প্রত্যাহার”

এক সাংবাদিককে গভীর রাতে তুলে নিয়ে অধীনস্থ কর্মকর্তাদের মাধ্যমে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে দণ্ড দেয়ার ঘটনায় আলোচিত কুড়িগ্রামের মহিলা জেলা প্রশাসক (ডিসি) সুলতানা পারভীনকে প্রত্যাহার করছে সরকার। এছাড়া তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় বিভাগীয় ব্যবস্থার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।
রোববার দুপুরে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে ওই ঘটনা তদন্ত করে ডিসির বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। তাকে প্রত্যাহার করা হবে। এরপর তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হবে। কর্ম অনুযায়ী তার শাস্তি হবে।’
জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্বে থাকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুমোদন করলে ডিসিকে প্রত্যাহারের আদেশ জারি করা হবে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী।
ফরহাদ বলেন, ‘তদন্তে অনেকগুলো অনিয়ম দেখেছি। বিভাগীয় প্রক্রিয়া অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব। অহেতুক যে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে, এর সত্যতা পেয়েছি বিধায় বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
গত শুক্রবার মধ্যরাতে কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রিন্টু বিকাশ চাকমার নেতৃত্বে কয়েকজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও আনসার সদস্যদের একটি টিম কুড়িগ্রাম শহরের চড়ুয়াপাড়ায় সাংবাদিক আরিফুর রহমান রিগ্যানের বাড়িতে হানা দেয়। এরপর মারধর করতে করতে তাকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে নেওয়া হয়। সেখানে তার পোশাক খুলে দুই চোখ বেঁধে নির্যাতন করা হয়েছে। এসব ঘটনার নেতৃত্ব দিয়েছেন ডিসি কার্যালয়ের সিনিয়র সহকারী কমিশনার নাজিম উদ্দিন। এরপর  মাদকবিরোধী অভিযানে আটক ও পরে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়ে জেলহাজতে পাঠায় ভ্রাম্যমাণ আদালত।
আরিফুল ইসলামের স্ত্রী মোস্তারিমা সরদার নিতুর দাবি, মধ্যরাতে বাড়ির দরজা ভেঙে ঢুকে আরিফকে পেটানো, জোর করে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়। কোনো মাদক পাওয়া যায়নি।
কুড়িগ্রাম শহরের একটি সরকারি পুকুর সংস্কারের পর ডিসি নিজের নামানুসারে ওই পুকুরের নাম ‘সুলতানা সরোবর’ রাখতে চেয়েছিলেন উল্লেখ করে বাংলা ট্রিবিউনে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয় দশ মাস আগে। কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি আরিফুল ইসলাম প্রতিবেদনটি করেন। সেই ঘটনায় সাংবাদিকের ওপর ক্ষুব্ধ ছিলেন ডিসি। অভিযোগ রয়েছে, ওই সংবাদের জেরেই আরিফুল ইসলামকে মধ্যরাতে তুলে নিয়ে কাপর খুলে ভিডিও করে,চোখ বেঁধে নির্যাতন করে এবং চোখ বাঁধা অবস্থায় চারটি কাগজে দস্থখত নিয়ে  সাজানো মাদক মামলায় ফাঁসানো হয়।
এদিকে তোলপাড় করা এই ঘটনায় হাইকোর্টে একটি রিট করা হয়েছে। এছাড়া আদালতে জামিন পাওয়ার পর মুক্তও হয়েছেন নির্যাতিত সাংবাদিক আরিফুল ইসলাম।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc