Tuesday 11th of August 2020 04:45:20 AM

এম ওসমান,বেনাপোল প্রতিনিধি:  সর্বকালের সর্বশ্রষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে শার্শায় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শুক্রবার বিকালে উপজেলা প্রশাসন আয়োজনে উপজেলা চত্ত্বর থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে আবার উপজেলা চত্ত্বরে এসে শেষ হয়।
পরে উপজেলা চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শুভেচ্ছা জানানো হয় এবং সারা দেশের সাথে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকীর সময় গননার উদ্বোধন করা হয়।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পুলক কুমার মন্ডলের সভাপতিত্বে এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান সিরাজুল হক মঞ্জু, জেলা আওয়ামীলীগের শিক্ষা বিষায়ক সম্পাদক এস এম আসিফ-উদ-দৌলা সরদার অলক, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) খোরশেদ আলম চৌধুরী, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডাঃ অশোক কুমার সাহা, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা লাল্টু মিয়া, কৃষি অফিসার কৃষিবিদ সৌতম কমার শীল, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার হাসান হাফিজুর রহমান, নাভারন ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল, উপজেলা সাব-রেজিস্টার কর্মকর্তা ওমর ফারুক, প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুর রব, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রহিম সরদারসহ উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারি বৃন্দ।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: স্বামী কতৃক সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার সন্তান ফুলবানু হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী।
আজ শুক্রবার বিকালে উপজেলার উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নের শ্রীপুর বাজারে ঘন্টা ব্যাপী মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়। এর পূর্বে শ্রীপুর বাজার থেকে একটি র‍্যালী বের হয়ে জনতা উচ্ছ বিদ্যালয় হয়ে আবার শ্রীপুর বাজারে এসে শেষ হয়। মানববন্দনে বক্তব্য রাখেন,তাহিরপুর উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ফেরদৌস আলম,আবুল মেম্বার,সুধাংশু মেম্বার,মাইনউদ্দিন,কবির মিয়া,হুমায়ুন মিয়া,শাহানুর মিয়া প্রমুখ ।
এসময় মানববন্ধনে বক্তারা বলেন-ফুলবানু হত্যা পরিকল্পিত তাকে রাতে নির্মমভাবে হত্যা করে।
ফুলবানু হত্যাকারী স্বামী ও তার সহযোগীরা মধ্যনগড় আটাশে মাছিমপুর বাড়ির পাশে ছোট ডোবায় পেলে রাখা হয়। সকালে এলাকাবাসীরা ফুলবানুকে মৃত অবস্থায় ডোবায় পড়ে থাকতে দেখেন। পরে ফুলবানুর আত্মীয় স্বজনদের মুঠোফোনে মৃত্যুর খবর জানায়। আমরা এলাকাবাসীরা ফুলবানু হত্যাকারী স্বামী ও তার সহযোগীদের দ্রুত  আইনের আওতায় এনে ফাঁসির দাবি জানান বক্ততাগন।

জৈন্তাপুর (সিলেট) প্রতিনিধি: সিলেট জৈন্তাপুর উপজেলায় বিভিন্ন ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান ও কোম্পানীতে কর্মরত সকল সদস্য বৃন্দের সমন্বয়ে জৈন্তাপুর সেলস গ্রুপ সমিতি‘র কমিটি গঠন ও অফিস উদ্বোধন উপলক্ষে উপজেলার চাঙ্গীল বাজারে মিলাদ মাহফিল ও আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয়।
১০ জানুয়ারী শুক্রবার বিকাল ৩টায় আয়োজিত সভায় অনুষ্ঠানে সেলস গ্রুপ সমিতির সভাপতি আবুল খায়ের এর সভাপতিত্বে এবং মো: বদরুল ইসলামের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট সমাজসেবী তাহির আলী কলাই, জৈন্তাপুর পুর্ববাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি সুলেমান আহমদ, জৈন্তাপুর ষ্টেশন বাজার ব্যবসায়ী সমিতির অর্থ সম্পাদক সাব্বির আহমদ, জৈন্তাপুর ট্রাক চালক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, দরবস্ত বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আজিম উদ্দিন, আব্দুল মালেক, জৈন্তাপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক নূরুল ইসলাম, ব্যবসায়ী সেলিম আহমদ, ব্যবসায়ী কর্ন মনি দাস সমিতির সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন।
এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন কমিটির সহ-সভাপতি শিমুল বাবু, জয়নাল আবেদীন, সহ-সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত আলী, অর্থ সম্পাদক ইউসুফ মিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক মনির আহমদ, সহ- সম্পাদক রফিক আহমদ, ক্রীড়া সম্পাদক সুবাস দাস, প্রচার সম্পাদক মো: আব্দুল্লাহ, সহ-প্রচার সম্পাদক সেবুল মিয়া, সদস্য সাহিন আহমদ, সিদ্দিক হোসেন, জসিম উদ্দিন, নেওয়াজ আহমদ, রাসেল আহমদ প্রমুখ।

 আপনার শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ান অপরকে জানিয়ে দিন খাওয়াতে সহযোগিতা করুন। 

কাল শনিবার (১১জানুয়ারি) সারাদেশে একযোগে প্রায় ২ কোটি ১০ লাখ শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। তবে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন ১১ জানুয়ারির পরিবর্তে ২৫ জানুয়ারি উদযাপন করা হবে।
বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদফতরে ক্যাম্পেইনের উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক এ তথ্য জানান।
তিনি বলেন, ঐদিন ৬ মাস বয়স থেকে ৫ বছর বয়সের প্রায় ২ কোটি ১০ লাখ শিশুকে এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন স্থানে এ কর্মসূচি পালন করা হবে।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়, বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সংস্থা, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, ছাত্র-শিক্ষক ও সাংবাদিকসহ সকলের সার্বিক সহযোগিতায় দেশব্যাপী ১ লাখ ২০ হাজার স্থায়ী কেন্দ্রসহ অতিরিক্ত আরো ২০ হাজার অস্থায়ী ও ভ্রাম্যমাণ কেন্দ্রের মাধ্যমে এ কার্যক্রম পরিচালিত হবে। ভ্রাম্যমাণ কেন্দ্রগুলোর উদ্যোগে বিভিন্ন রেলস্টেশন, বাস স্টেশন, লঞ্চঘাট, ফেরিঘাট, বঙ্গবন্ধু ব্রিজ, দাউদকান্দি ও মেঘনা ব্রিজ ইত্যাদি স্থানে শিশুকে ভিটামিন এ খাওয়ানো হবে

“তুমি আসবে বলে”

-আবছার তৈয়বী

তুমি আসবে বলে- চোখের জলে
ভাসলো মায়ের বুক,
এবার বুঝি যাবে চলে
তাহার সকল দুঃখ।

তুমি আসবে বলে- বুকের বলে
বাবা দু’হাত তুলে,
মাগলো দোয়া খোদার কাছে
দুঃখ সকল ভুলে।

তুমি আসবে বলে- কথার ছলে
বললো ডেকে বুবু,
রক্তচোষা পাক হানানাদার
খাইলো হাবুডুবু।

তুমি আসবে বলে- বানের ঢলে
জাগলো জনগণ,
জাগলো দেশের ছেলে মেয়ে
খুশি ভরা মন।

তুমি আসবে বলে- পলে পলে
সবে চেয়ে রয়,
তোমায় নিয়ে তুলবে স্লোগান
জয় বাংলা, জয়।

তুমি আসবে বলে- দলে দলে
মানুষ ছুটে যায়,
তোমার মাঝেই হারিয়ে যাওয়া
স্বজন খুঁজে পায়।

[বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন স্মরণে]

তারিখ: ১০ জানুয়ারি, ২০২০ খৃ.
আবুধাবি, ইউ.এ.ই।

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ  সদ্য সমাপ্ত “৩য় জাতীয় ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস ২০১৯ উদযাপন ” তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহার ও প্রয়োগের মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে এবং দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নে অবদানের স্বীকৃতিস্বরুপ ০৮/০১/২০২০ বুধবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার মোঃ নাইম হাসান -কে শ্রেষ্ঠ ফ্রিল্যান্সার (পুরুষ) ক্যাটাগরিতে মনোনীত করে সম্মাননা প্রদান করেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মোঃ নাইম হাসান শ্রীমঙ্গল উপজেলার বিরাহিমপুর এলাকার বাসিন্দা।হোসেন আহমেদ পিতা ডলি আহমেদ তার মাতার নাম, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিল সে। তিনি সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ছিলেন, তার ঢাকায় একটি ব্রেন ক্রেফট লিঃ নামক আইটি ফার্ম রয়েছে সে এটির স্বত্বাধিকারী ও চেয়ারম্যান।

রেজওয়ান করিম সাব্বির,জৈন্তাপুর (সিলেট) প্রতিনিধি: সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার দরবস্ত ইউনিয়নের ডেমা এলাকায় সিলেট-তামাবিল মহাসড়কের রাস্তার পাশের মাটি কেটে নিয়ে গ্রামীণ রাস্তার উন্নয়ন কাজ করছেন প্রভাবশালী আওয়ামীলীগ নেতা ইউপি সদস্য। সড়ক ও জনপথ কর্মকর্তা বলেন তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় উত্তর-পূর্ব সিলেটের একমাত্র মহাসড়ক সিলেট-তামাবিল হাইওয়ে। দরবস্ত ইউনিয়নের ডেমা গ্রামের গ্রামীণ সড়কটির সংযোগ স্থল সিলেট তামাবিল মহাসড়ক। উপজেলার কর্মসৃজন প্রকল্পের আওতায় কাজ করছেন দরবস্ত ইউপির ৮নং ওয়ার্ড সদস্য ও জৈন্তাপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রান ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক জালাল উদ্দিন মেম্বার। তিনি কর্মসৃজন প্রকল্পের শ্রমিক নিয়োগ না করে এস্কেভেটর মেশিন দিয়ে জন গুরুত্বপূর্ণ সিলেট-তামাবিল মহাসড়কের রাস্তার পাশ কেটে নিয়ে ডেমা গ্রামীণ রাস্তার মাটি ভরাট করেন। স্থানীয় এলাকাবাসী জানান একটি প্রকল্পের কাজের জন্য মাটি যোগান থাকা সত্ত্বেও ইউপি সদস্য গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার মাটি কেটে নিয়ে রাস্তার ক্ষতি সাধন করেছেন। এলাকাবাসী জানান দ্রুত তদন্ত পূর্বক জনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তার ক্ষতি সাধনকারীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী তুলেন। একজন প্রভাবশালীর এরকম জঘণ্য কাজ করার কারনে তার দেখাদেখি অন্যরাও এরকম ঘৃনিত কাজ করার সাহস পাবে এবং জনবান্ধব উন্নয়নশীল আওয়ামী সরকারের উন্নয়ন কাজে বাঁধাগ্রস্ত হবে।
সিলেট তামাবিল মহাসড়কের সাবএসিষ্ট্যান্ড ইঞ্জিনিয়ার মাসুম আহমদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মাটি কর্তনের বিষয়টি তিনি শুনেছেন। এরিয়াটি আমার নয়, আমি বিষয়টি জানার পর পর দায়িত্বরত সাবএসিষ্ট্যান্ড ইঞ্জিনিয়ার সুমন সাহেবকে অবহিত করেছি। প্রতিবেদক সুমন সাহেবের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, স্থানীয় এলাকাবাসী আমাকে ছবি তুলে পাটায় এবং মোবাইল ফোনে মাটি কাটার বিষয় অবহিত করে স্থানীয় ইউপি সদস্য জালাল উদ্দিন এস্কেভেটরের মাধ্যমে রাতের অন্ধকারে সিলেট-তামাবিল সড়কের মাটি কর্তন করে নিয়েছেন। আমি ঘটনাস্থলে অফিসার পাঠিয়েছি বিষয় তদন্তের জন্য এবং কাজ বন্ধ রাখার জন্য। তিনি আরও বলেন তদন্তে সিলেট-তামাবিল মহাসড়ক কেটে মাটি নেওয়ার বিষয়টি প্রমানিত হলে কর্তনকারীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
দরবস্ত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাহারুল আলম বাহারের সাথে আলাপকালে তিনি জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই, আমি ইউপি সদস্যের সাথে আলাপকরে ব্যবস্থা গ্রহন করব। অভিযুক্ত আওয়ামীলীগ নেতা ও ইউপি সদস্য জালাল উদ্দিন মেম্বারের বলেন মাটি কর্তনের বিষয়টি তিনি স্বীকার করে বলেন এখানে পুরাতন গর্ত ছিল আমি কিছু মাটি কেটে নিয়েছি মাত্র।
জৈন্তাপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জৈন্তাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল আহমদ বলেন, বিষয়টি আমার জানানেই আমি খোঁজ খবর নিয়ে দেখছি।

হোসাইন ইকবাল, স্পেন থেকে: স্পেনে বাংলাদেশীদের বর্ষবরণ অনুষ্ঠান ও মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে, ৯  ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার স্পেনের মাদ্রিদে মেহমানখানা  রেস্টুরেন্টে এতে বিভিন্ন জেলার সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও  প্রবাসীরা অংশ নেন।

বিশিষ্ট কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব মাহবুবুর রহমান ঝন্টুর  সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন ইন স্পেনের সাবেক সভাপতি আল মামুন।

তরুণ সংগঠক ও বৃহত্তর রংপুর অ্যাসোসিয়েশনের সমন্বয়ক জাকিরুল ইসলাম জাকির সার্বিক তত্ত্বাবধানে ও পরিচালনায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বিক্রমপুর মুন্সিগঞ্জ সমিতির সাধারণ সম্পাদক রাসেল দেওয়ান,  গ্রেটার ফরিদপুর অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এমদাদ হাওলাদার, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব মোঃ সেলিম মিয়া, গ্রেটার সিলেট অ্যাসোসিয়েশনের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য এমদাদুল হক, গ্রেটার নোয়াখালী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবু সায়েম মজুমদার, কমিউনিটি নেতা ক্রিস রিবেরি ও সুরুজ মিয়া, ফকরুল ইসলাম, আবু বক্কর, শামীম আহমেদ, গ্রেটার ঢাকা  সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবুল হুসেন, সাধারণ সম্পাদক ইনসাফ সুমন, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব জাকির হুসেন, সহ সভাপতি খায়রুজ্জামান জামান, সংগঠণিক সম্পাদক জেন্স শিপার, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের ইন স্পেনের ক্রিয়া সম্পাদক শায়েক আহমেদ, ময়মনসিংহ অ্যাসোসিয়েশনের নেতা এম আই এ আমিন, গোলাপগঞ্জ সমিতির সাধারণ সম্পাদক বেলাল আহমেদ, কমিউনিটি নেতা আবদুল মোতালেব বাবুল, ছানুর মিয়া  সাদ।

অনুষ্ঠানে বক্তারা সম্প্রীতি সৌহার্দ্য ও আন্তরিকতার বন্ধনে ঐক্যবদ্ধভাবে বাংলাদেশ কমিউনিটি কে সকলের সহযোগিতা এগিয়ে নিতে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

পরে এক নৈশ ভোজ এ সকলে অংশ নেন।

সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার মো: মোস্তাফিজুর রহমানকে ঢাকায় বদলি করা হয়েছে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এই আদেশ দিয়েছে। সিলেটের নতুন বিভাগীয় কমিশনার হিসেবে স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. মশিউর রহমান নিয়োগ পেয়েছেন।
এর আগে, গত ৩০ ডিসেম্বর ঢাকার বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ জয়নুল বারীকে পদোন্নতি দিয়ে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব পদে পদায়ন করা হয়েছে।

“যে মাটিকে আমি এত ভালবাসি, যে মানুষকে আমি এত ভালবাসি, যে জাতিকে আমি এত ভালবাসি, আমি জানতাম না সে বাংলায় আমি যেতে পারবো কীনা। আজ আমি বাংলায় ফিরে এসেছি বাংলার ভাইয়েদের কাছে, মায়েদের কাছে, বোনদের কাছে। বাংলা আমার স্বাধীন, বাংলাদেশ আজ স্বাধীন।”

আজ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। ২৯০ দিন পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি থাকার পর ১৯৭২ সালের এইদিনে মুক্তি পেয়ে নিজ দেশে পা রাখেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। প্রিয় নেতাকে ফিরে পেয়ে সেদিন সাড়ে সাত কোটি বাঙালি আনন্দাশ্রুতে সিক্ত হয়ে জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু ধ্বনিতে প্রকম্পিত করে তোলে বাংলার আকাশ-বাতাস।

সেদিন স্বদেশের মাটি ছুঁয়ে বাংলাদেশের ইতিহাসের নির্মাতা শিশুর মতো আবেগে আকুল হলেন বঙ্গবন্ধু। আনন্দ-বেদনার অশ্রুধারা নামলো তার দু’চোখ বেয়ে। জনগণনন্দিত শেখ মুজিব সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে দাঁড়িয়ে তার ঐতিহাসিক ধ্রæপদি বক্তৃতায় বলেন, ‘যে মাটিকে আমি এত ভালবাসি, যে মানুষকে আমি এত ভালবাসি, যে জাতিকে আমি এত ভালবাসি, আমি জানতাম না সে বাংলায় আমি যেতে পারবো কীনা। আজ আমি বাংলায় ফিরে এসেছি বাংলার ভাইয়েদের কাছে, মায়েদের কাছে, বোনদের কাছে। বাংলা আমার স্বাধীন, বাংলাদেশ আজ স্বাধীন।’

যুদ্ধ-বিধ্বস্ত ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন সদ্য স্বাধীন বাঙালি জাতির কাছে ছিল একটি বড় প্রেরণা। তাঁর এই স্বদেশ প্রত্যাবর্তনকে আখ্যায়িত করা হয়েছিল ‘অন্ধকার হতে আলোর পথে যাত্রা হিসেবে’। দীর্ঘ সংগ্রাম, ত্যাগ-তিতিক্ষা, আন্দোলন ও আত্মত্যাগের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধে বির্জয় অর্জনের পর বিধ্বস্ত বাংলাদেশকে সামনে এগিয়ে নেওয়ার প্রশ্নে বাঙালি জাতি যখন কঠিন এক বাস্তবতার মুখোমুখি তখন পাকিস্তানের বন্দিদশা থেকে মুক্তি পেয়ে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

ইতিহাস থেকে জানা যায়, ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ নিজ বাসা ধানমন্ডি ৩২ নাম্বার থেকে বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী। সেইরাতেই পাকিস্তানি সেনাবাহিনী পরিকল্পিতভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সংগ্রামকে ধুলিস্যাৎ করে দিতে ‘অপারেশন সার্চলাইট’ নামক গণহত্যা চালায় নিরস্ত্র জনগণের ওপর। তবে গ্রেফতারের আগমুহূর্তেও কোনোধরণের আতঙ্ক ছুঁতে পারেনি শেখ মুজিবর রহমানকে। দূরদর্শিতার সাথে তিনি তার বিশ্বাসভাজনদের সকল দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়ে যান।

তিনি যখন কারাগারে বন্দি ছিলেন, সেসময় তাকে মৃত্যুদন্ড দেয়ার কথা জানানো হয়, তাতেও বিন্দুমাত্র ভয় পাননি এই অকুতোভয় এই নেতা। কারণ তিনি জানতেন তার মৃত্যু বাঙালিদের স্বাধীনতা এনে দিতে আরো বেশি অনুপ্রাণিত করবে। তৎকালীন তৎকালীন স্বৈরশাসক জেনারেল ইয়াহিয়া খান শেখ মুজিবকে হত্যার জন্য একটা আদেশ জারি করেন। কিন্তু মুজিব যে কারাগারে বন্দি ছিলেন সেখানকার জেলার ওই আদেশ না মেনে মুজিবকে অন্যত্র সরানোর চেষ্টা করেন।

১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি মুক্তির পরপরই তিনি বাংলাদেশে ছুটে আসতে চান, ভারতের সাথে সমস্যা থাকায় তৎকালীন প্রেসিডেন্ট জুলফিকার আলি ভুট্টোকে তেহরান বা অন্যকোনো এয়ারওয়েজ বেছে নিতে বললে তিনি ব্রিটিশ এয়ারওয়েজে আসার সিদ্ধান্ত নেন। লন্ডনে প্রবেশের পর বিবিসিতে তিনি বিশ্ববাসীর উদ্দেশ্যে একটি ভাষণ দেন। তিনি যখন ভরাট কণ্ঠে তার সুস্থতার কথা জানান, ঠিক সেই মুহূর্তটিতে লাখ লাখ বাঙালি আনন্দে আত্মহারা হয়ে পড়েন। তখনও যুক্তরাজ্য বাংলাদেশকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি না দিলেও তৎকালীন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড হিথ বঙ্গবন্ধুর সাথে সাক্ষাত করেন। এসময় ব্রিটিশ বিরোধীদলীয় নেতা হ্যারোল্ড উইলসনও তাকে স্বাগত জানাতে সাক্ষাত করেন।

এরপর দিল্লিতে পৌঁছান অবিস্মরণীয় এই নেতা। ভারতের প্রেসিডেন্ট ভিভি গিরি, প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী, সমগ্র দেশবাসী তাকে উষ্ণ সংবর্ধনা দেন। এসময় তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অনন্য ভূমিকার জন্য ভারতবাসী ও তৎকালীন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর কাছে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

এরপর আসে সেই কাক্সিক্ষত মুহূর্ত। ১০ জানুয়ারি দুপুর ১টা ৪১ মিনিটে তিনি পা রাখেন স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের মাটিতে। অধীর আগ্রহে অপেক্ষারত লাখো লাখো বাঙালি সেই মুহূর্তে আনন্দে আত্মহারা হয়ে পড়েন তাদের প্রিয় নেতা, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানকে ফিরে পেয়ে। পুরো দেশই তাকে বরণ করে নিতে প্রস্তুত ছিল, তার কিছুটা চিত্র ধরা পড়ে তেজগাঁও বিমানবন্দরে। জয়বাংলা ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে ওঠা বিমানবন্দর যেন বাংলার আকাশ বাতাসকেই প্রতিনিধিত্ব করছিল। পাঁচলাখেরও বেশি মানুষ সেই মুহূর্তে অবিস্মরণীয় এই নেতাকে গ্রহণ করতে অংশ নিয়েছিলেন। মহান এই নেতাকে একটু ছুঁয়ে দেয়ার জন্য সর্বস্তরের জনসাধারণের মধ্যে এক ধরণের ব্যাকুলতা কাজ করছিল। তাকে বহনকারী ট্রাকটিও সেসময় ফুলে ফুলে ভরে গিয়েছিল।

বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বরাবরের মতো এবারও নানা কর্মসূচি আয়োজন করেছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছেÑ আজ সকাল সাড়ে ৬টায় দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়, বঙ্গবন্ধু ভবন ও সারাদেশে সংগঠনের সকল কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন। সকাল ৭টায় বঙ্গবন্ধু ভবনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন। দুপুর ৩টায় জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে ক্ষণগণনা কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের অংশগ্রহণ।

এছাড়াও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস যথাযথ মর্যাদায় পালনের জন্য বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা, মহানগর, উপজেলা, থানা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এবং সংগঠনের সকল সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন কেন্দ্রীয় কমিটির অনুরূপ কর্মসূচির আয়োজন করবে।

উপজেলার পিআইও’র খাটের নিচে ঘুষের টাকার খনি মিলেছে। সরকারি কোয়ার্টারে তল্লাশি চালিয়ে প্রায় ২ কোটি টাকাসহ খনীর মালিক দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) তাজুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করেছে দুদক।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দিনাজপুর দুদকের উপপরিচালক আবু হেনা আশিকুর রহমানের নেতৃত্বে ৭ সদস্যের একটি দল এ অভিযান চালায়।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার বিকেল পৌনে ৫টার দিকে দুদক উপজেলা পিআইও অফিসে এসে হাজির হয়। এ সময় কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম নিজ কার্যালয়ে অবস্থান করছিলেন। কার্যালয় থেকে কিছু টাকা উদ্ধার করে তার কোয়ার্টারে তল্লাশি শুরু করেন দুদকের উপসহকারী পরিচালক জিন্নাতুল ইসলাম, সহকারী পরিচালক ওবায়দুর রহমান। সেখানে একে একে ৪টি ট্রাভেল ব্যাগের মধ্যে টাকার সন্ধান পান দুদক সদস্যরা। পরে রাত পৌনে ৭টার দিকে পার্বতীপুর অগ্রণী ব্যাংক লিঃ থেকে মেশিন এনে টাকা গণনা করা হয়। সেখানে ১ কোটি ৮৫ লাথ ২৫ টাকা পাওয়া যায়। এ সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (এনডিসি) দবির উদ্দিন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহনাজ মিথুন মুন্নী, সহকারী কমিশনার ভূমি আবু তাহের মো. শামসুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

দিনাজপুর দুদকের উপ-পরিচালক আবু হেনা আশিকুর রহমান বলেন, গোপন সূত্রের ভিত্তিতে অভিযানটি পরিচালিত হয়। কিন্তু একজন প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার বাসায় এক কোটি ৮০ লাখ টাকা দেখে তারাও অবাক হয়েছেন। তিনি বলেন ঘরের ভিতর খাটের নিচে ৪টি ব্যাগে থরে থরে সাজানো ছিল টাকাগুলো। তিনি এতোগুলো টাকা নিয়ে একাই বাসায় থাকতেন। তার বিরুদ্ধে মামলার প্রস্ততি চলছে।

পার্বতীপুরের একজন চেয়ারম্যান নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, উপজেলার টিআর, কাবিখা, সোলার ক্রয়, গৃহনির্মাণসহ বিভিন্ন প্রকল্প থেকে লাখ লাখ টাকা উৎকোচ গ্রহণ করতেন তাজুল। ২০১৬ সালের ৭ জানুয়ারি পার্বতীপুর উপজেলায় যোগদান করেন তিনি। এর আগে তিনি ফুলবাড়ী উপজেলায় কর্মরত ছিল। তার বাড়ি কুড়িগ্রাম সদরের নাজিরা খলিলগঞ্জ গ্রামে।

পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহনাজ মিথুন মুন্নী সাংবাদিকদের জানান, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম দুদকের হাতে টাকাসহ গ্রেপ্তার হয়েছেন। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc