Saturday 29th of February 2020 03:11:27 PM

জৈন্তাপুর (সিলেট) প্রতিনিধিঃ জৈন্তাপুর প্রেসক্লাব’র সাবেক যুগ্ন সাধারন সম্পাদক সাংবাদিক আবুল হোসেন মোঃ হানিফ’র দুই মেয়ে সদ্য প্রকাশিত পিএসসি পরীক্ষা-১৯ মর্নিং বার্ডস কিন্ডার গার্টেন  স্কুল হতে তার দ্বিতীয় কন্যা হাবিবা আক্তার নিসা গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে এবং তার বড় মেয়ে হামিদা আক্তার মুনা জৈন্তাপুর সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় হতে জেএসসি পরীক্ষা-১৯ এ অংশ গ্রহন করে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়ে উর্ত্তীন হয়েছে।
তার বড় মেয়ে পিএসসি পরীক্ষা-১৮ সরকারি বৃত্তি ও দরবস্ত সিকন্দর আলী শিক্ষা কল্যাণ ট্রাষ্টের টেলেন্টপুল বৃত্তি পেয়েছে।
সাংবাদিক হানিফ জানান তার দুই মেয়েকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করতে চান ও সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সকলকে কৃতজ্ঞতা জানান এবং সকলের নিকট দোয়া কামনা করেন।

জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধি: সারাদেশের ন্যায় জৈন্তাপুরে জে.এস.সি তে পাশের হার ৯৫.২৬% এবং জে.ডি.সি তে পাশের হার ৭৯.৫৫%। তিনটি প্রতিষ্ঠান শতভাগ উর্ত্তীণ। জৈন্তাপুর উপজেলার ২২টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে মাওলানা আব্দুল লতিফ জুলেখা গার্লস হাই স্কুল, মানিকপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও হেমু তিনপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শতভাগ পাশ।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে যানাযায়, এবারের জেএসসিতে জৈন্তাপুর উপজেলার ১৮টি বিদ্যালয় হতে ২৬৫৭জন পরীক্ষার্থী মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের অধিনে পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে ৩৯টি এ+সহ ২৫৩১জন শিক্ষার্থী উর্ত্তীণ হয়। অপরদিকে মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের অধিনে উপজেলায় ৪টি প্রতিষ্ঠান হতে ৩৫৭জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহন করে ১টি এ+সহ ২৮৪জন পরীক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়। উপজেলার ২২টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৩টি প্রতিষ্ঠান শতভাগ পাশ করেছে। জৈন্তাপুর উপজেলার ২২টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে মাওলানা আব্দুল লতিফ জুলেখা গার্লস হাই স্কুল, মানিকপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও হেমু তিনপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শতভাগ পাশ করেছে।
প্রতিষ্ঠান গুলোর মধ্যে জৈন্তাপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় হতে ৮২জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১৬টি এ+সহ ৮০জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৯৭.৫৬%, জৈন্তিয়াপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় হতে ১২৫জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ২টি এ+সহ ১১৯জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৯৫.২০%, রাংপানি ক্যাপ্টেন রশিদ উচ্চ বিদ্যালয় হতে ৪৮৫জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ৫টি এ+সহ ৪২৯ জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৮৮.৪৫%, বাউরভাগ উচ্চ বিদ্যালয় হতে ১২৭জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১২৩জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৯৬.৮৫%, বিগ্রেডিয়ার মজুমদার বিদ্যানিকেতন উচ্চ বিদ্যালয় হতে ১৩৯জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১৩৩জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৯৫.৮৮%, সারীঘাট উচ্চ বিদ্যালয় হতে ১৬০জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১টি এ+সহ ১৫৫জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৯৬.৮৮%, সেন্ট্রাল জৈন্তা উচ্চ বিদ্যালয় হতে ২১৮জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ৪টি এ+সহ ২১২জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৯৭.২৮%, মাওলানা আব্দুল লতিফ জুলেখা গার্লস হাই স্কুল হতে ৭৫জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ৭৫জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ১০০%, খাজার মোকাম উচ্চ বিদ্যালয় হতে ১৪০জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১টি এ+সহ ১৩৭জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৯৭.৮৬%, হরিপুর বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয় হতে ২১৬জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ৫টি এ+সহ ৯৮.১৫জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৯৭.২৮%, চিকনাগুল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় হতে ১৯৪জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১৯১জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৯৮.৪৫%, রমজান রূপজান বাগের খাল একাডেমী হতে ১৬৪জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ২টি এ+সহ ১৫৩জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৯৩.২৯%, চারিকাটা উচ্চ বিদ্যালয় হতে ১০৬জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১টি এ+সহ ৯৮জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৯২.৪৫%, পূর্বরাজ মাহবুবুল আম্বিয়া চৌঃ মেঃ নি¤œ মাধ্যমিক বিদ্যালয় হতে ৮৫জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ৮১জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৯৫.২৯%, এম আহমদ পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় হতে ১৪২জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১৩৫জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৯৫.০৭%, জৈন্তাপুর বিয়াম ডাঃ কুদরত উল্লাহ স্কুল এন্ড কলেজ হতে ৩৬জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ৩৫জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৯৭.২২%, মানিকপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হতে ৭৭জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১টি এ+সহ ৭৭জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ১০০%, হেমু তিনপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় হতে ৮৬জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১টি এ+সহ ৮৬জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ১০০%, অপরদিকে মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের অধিনে খরিল নেজামুল উলুম আলিম মাদ্রাসা হতে ৩৯জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ৩৫জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৮৯.৭৪%, জৈন্তা দারুছ ছুন্নাহ জামেয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা হতে ১৬৫জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১৩৭জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৮৩.০৩%, সেনগ্রাম মোহাম্মদিয়া সালাফিয়া দাখিল মাদ্রাসা হতে ৮৮জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ৬২জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৭০.৪৫%, চারিকাটা দারুল ইসলাম দাখিল মাদ্রাসা হতে ৬৫জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ৫০জন উর্ত্তীন হয় পাশের হার ৭৬.৯২%,

৮জনের বিরুদ্ধে মামলা,দুজন জেল হাজতে

তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ) সংবাদদাতা: সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনায় উপজেলা সদর ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি সাজিদুর রহমান সাজিদসহ ৮জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। সোমবার সন্ধার পর সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটে।

এঘটনায় তাহিরপুর সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি সাজিদুর রহমান সাজিদ ও বীর নগর গ্রামের আরশাদ আলীর ছেলে তালহাকে আটক করে মঙ্গলবার সকালে সুনামগঞ্জ জেল হাজতে পাঠিয়েছে তাহিরপুর থানা পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,গত রবিবার সন্ধ্যায় সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ও বীরনগর গ্রামের বাসীন্দা সাজিদুর রহমান সাজিদের সাথে মধ্য তাহিরপুর গ্রামের তামিম আহমেদ লিংকনের সাথে উপজেলা পরিষদের সামনে গেইটে কথা কাটাকাটি ও হাতা হাতি হয়। এসময় উপস্থিত স্থানীয় লোকজন তাদের তাৎক্ষনিক ভাবে বিষয়টি মিমাংসা করে তাদেরকে মিলিয়ে দেন। পরিবর্তিতে এই ঘটনাটি দু’পক্ষের আতœীয় স্বজনের মধ্যে জানাজানি হলে সোমবার সন্ধ্যায় তাহিরপুর বাজারে বাচ্ছু মিয়ার চায়ের দোকানে সাজিদ ও লিংকনসহ তাদের লোকজন কথা কাটাকাটির পর সংঘর্ষে জরিয়ে পরে।
খবর পেয়ে তাহিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আতিকুর রহমান,এস আই মুস্তোফা,দি¦পংকরসহ সঙ্গীয় ফোস নিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনে। সংঘর্ষ ১৫জন আহত হয়। সংঘর্ষের সময় ছুরিকাঘাতে গুরুত্ব আহত অবস্থায় উপজেলা ছাত্রদল নেতা তামিম আহমেদ লিংকন (২৫) কে উদ্ধার করে তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকগন তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে রের্ফাড করে। অন্যান্য আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।
এবিষয়ে তাহিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত্য কর্মকর্তা ওসি আতিকুর রহমান এঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,এঘটনায় মোতাহার ইসলাম নামে একজন বাদী হয়ে সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি সাজিদুর রহমান সাজিদসহ ৮জনের নাম উল্লেখ্য করে মামলা দায়ের করেছে। আটক দুজন আসামীকে সকালে সুনামগঞ্জ জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নের বুরুঙ্গাছড়া সড়কে এলজিইডির কাজ করা অবস্থায় বাধা দিয়ে এক অন্তস্বত্তা মহিলাসহ ৪ জনের উপর সন্তাসী হামলা চালিয়ে গুরুত্ব আহত করেছে একদল সন্তাসীরা। এ সময় ১০জন আহত হয়। গুরুত্ব আহত অবস্থায় আলেকজান বিবি (৩০), কুলসুমা (অন্তসত্তা ৪মাস (২৭),হেলেনা (২৫),মালতি রবি দাস (৩২)কে উদ্ধার করে সোমবার দুপুরে  তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে  ভতি করা হয়েছে।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়,উপজেলার উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নের টেকেরঘাট- বাগলী সড়কের বুরুঙ্গাছড়া এলাকায় মহিলাদের দারা এলজিইডির কাজ চলছে। রবিবার দুপুরে এলজিইডি ঐ সড়কে কাজ করা অবস্থায় ঐ ৪মহিলাকে পিঠিয়ে আহত করে হান্নান মিয়া,জাসমিন,মরিওম সহ ১০ জন সংঘবদ্ধ সন্তাসীরা মিলে দেশি অস্ত্র  দিয়ে পিটিয়ে আহতরা করে। হামলায় ৪ মাসের অন্তসত্তা কুলসুমা (২৭)এর অবস্থান আশংকা জনক। এসময় স্থানীয়া এগিয়ে আসলে হান্নান মিয়াসহ ঐ সন্তাসীরা পালিয়ে যায়।
ঐ সন্তাসীরা ৩,৪ ও ৫ নং ওয়াডের মহিলা মেম্বার ছফিরা আক্তারের আত্নীয় হওয়ায় প্রভাবখাটিয়ে যাচ্ছে তাই করে যাচ্ছে বলে এলাকায় অভিযোগ রয়েছে।
এবিষয়ে হাসপাতালে ভতি থাকা রোগীদের ইঞ্জিনিয়ার রেজাউল করিম আহতদের সোমবার বিকালে চিকিৎসার খোঁজ খবর নেন। টেকেরঘাট পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আবু মোসা হামলার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,ঘটনার পর আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি।
এ বিষয়ে মহিলা মেম্বার  ছফিরা আক্তার ৩,৪ ও ৫ নং ওয়াড জানান,হামলা ঘটনা সত্য আমি নিজেও ঘটনার সময় উপস্থিত হয়ে মারধর ফিরিয়েছি। আমার আত্নীয় হলেও আমি তাদের কোন সাহস বা সহযোগিতা করে না।      উপজেলা নিবাহী প্রকৌশলী সাইদুল্লা মিয়া জানান,ঘটনা শুনেছি। এই বিষয়ে অভিযুক্তদের কোন ছাড় পাবে।  তাহিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আতিকুর রহমান জানান,এখন কোন অভিযোগ পাই নি পেলে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

নাজমুল হক নাহিদ,আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর আত্রাইয়ে পানিতে ডুবে শ্রী আকাশ (৩) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। মৃত আকাশ উপজেলার বান্দাইখাড়া হিন্দুপাড়া এলাকার শ্রী উৎফল এর ছেলে।

সোমবার সকাল ১০টার দিকে উপজেলার বান্দাইখাড়া বিন্দুপাড়া এলাকায় ঘটনাটি ঘটে।

স্থানীয় ও পরিবার সূত্রে জানা যায়, নিহত শ্রী আকাশ সোমবার সকালে বাড়ির উঠানে খেলা করছিলো। খেলার এক পর্যায়ে সবার অজান্তে পাশে পুকুরের পানিতে পরে যায়। পরিবারের লোকজন তাকে দেখতে না পেয়ে অনেক খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে শিশুটিকে পুকুরের পানিতে ভাসতে দেখে। সাথে সাথে স্থানীয়রা উদ্ধার করে নওগাঁ সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সময় পথমধ্যে তার মৃত্যু হয়।

এব্যপারে আত্রাই থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোসলেম উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বিষয়টি শুনেছি এবং ছোট্ট শিশু আকাশের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

রেজওয়ান করিম সাব্বির,জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধি: সিলেটের জৈন্তাপুরে প্রথম বারের মত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা প্রদান করে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড।

গতকাল সকাল ১১টায় জৈন্তাশ্বরী ইরাদেবী বিচারালয়ে বিজয় মেলার-২০১৯ উপলক্ষ্যে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সভাপতি শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমদের পরিচালনায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার সিরাজুল হক, প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জৈন্তাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল আহমদ।

বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল বনিক, অফিসার ইনচার্জ তদন্ত ওমর ফারুক, চারিকাটা ইউপি চেয়ারম্যান শাহ আলম চৌধুরী তোফায়েল, দরবস্ত ইাউপি চেয়ারম্যান বাহারুল আলম বাহার, জৈন্তাপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার হাজী মোঃ আনোয়ার হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রশিদ, দপ্তর সম্পাদক সিদ্দিক আলী, যাদবময় বিশ্বাস, নিপেন্দ্র কুমার দে, মিরন মেম্বার, আক্কেল আলী, হরমুজ আলী, আব্দুস সামাদ, আফতাব আলী, নিজপাট ইউপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোঃ ইয়াহিয়া,জৈন্তাপুর উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি ফারুক আহমদ, জৈন্তাপুর উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের আহবায়ক মোঃ আনোয়ার হোসেন, গোয়াইনঘাট উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সভাপতি কামাল আহমদ, জৈন্তাপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সিনিয়ন সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম, সহ-সভাপতি আব্দুল কাদির,সাংগঠনিক সম্পাদক মনির আহমদ,আমরা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সভাপতি মাষ্টার জসিম উদ্দিন, সঞ্জয় বিশ্বাস,সাইফুল ইসলাম বাবু, মুজিবুর রহমান।

প্রধান অতিথির বক্ত্যবে কামাল আহমদ বলেন, যে জাতী বা এলাকাবাসী গুনিজনদের সম্মান দিতে জানেন না, সেখানে গুনিজন জন্মায় না। জৈন্তাপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড এই প্রথম বারের মত এরকম একটি ব্যতিক্রমধর্মী আয়োজন করেছে সত্যিকার অর্থে প্রসংশার দাবী রাখে। আগামীতে এই ধারা অব্যহত রাখতে এবং আপমর জনসাধারনের জন্য আনন্দ বিনোদন দিতে বিজয় মেলার আয়োজন করেন সেজন্য তাদেরকে ধন্যবাদ জানাই।

আগামীতে মাস ব্যপি বিজয় মেলার আয়োজন করবেন এবং বিজয় মেলায় মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক প্রমাণ্য অনুষ্ঠান মুক্তিযোদ্ধের স্মৃতি ইত্যাদি নিয়ে একটি ষ্টল রাখার কথা বলেন। ফলে মেলায় আগত দর্শনার্থী সহ শিক্ষার্থীরা জানতে পরবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক জ্ঞান অর্জন করতে পারবে। পরে অনুষ্ঠানের অথিতিরা মাহান মুক্তিযোদ্ধোর বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা ক্রেষ্ট ও বিভিন্ন গুনিজনকে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন।

রেজওয়ান করিম সাব্বির, জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধিঃ সিলেটের জৈন্তাপুরে জাতীয় নির্বাচনের ১বছর পূর্ণ ও গনতন্ত্রের বিজয় উপলক্ষ্যে জৈন্তাপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের বিজয় মিছিল অনুষ্টিত। গতকাল ৩০ ডিসেম্বর সোমবার বিকাল ৩টায় জৈন্তাপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিস্তম্ব হতে জৈন্তাপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে বিজয় মিছিল বের হয়ে উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে পূনরায় মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিস্তম্বে এসে শেষ হয়।

পথ সভার উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জৈন্তাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল আহমদের সভাপতিত্বে যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক ফয়েজ আহমদ বাবরের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এখলাছুর রহমান, আলা উদ্দিন, যুগ্ম সম্পাদক মুহিবুর রহমান মেম, যুগ্ম সম্পাদক শাহেদ আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক হানিফ মোহাম্মদ, আব্দুর রাজ্জাক রাজা, আইন সম্পাদক এডভোকেট হানিফ, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রশিদ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক জহির রায়হান, শিক্ষা ও মানব সম্পাদ বিষয়ক সম্পাদক কামাল উদ্দিন, শ্রম সম্পাদক আলী আকবর, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক সালা উদ্দিন বাবু, সহ-দপ্তর সম্পাদক জাকারিয়া মাহমুদ, সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা যাদবময় বিশ্বাস, নিপেন্দ্র কুমার দে, মিরন মেম্বার, আবুল হোসেন, হানিফ আহমদ, নিজপাট ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি আতাউর রহমান বাবুল, আনোয়ার হোসেন, নুর উদ্দিন, আবুল কাশেম মারুফ, নজির আহমদ, জৈন্তাপুর উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি ফারুক আহমদ, জৈন্তাপুর উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মোঃ আনোয়ার হোসেন, যুগ্ম আহবায়ক কুতুব উদ্দিন, সুমন আহমদ, শামীম আহমদ, ফতেপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আব্দুল খালিক মহল্লাদার, শাহীন ফেরদৌস, সেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ইমাম উদ্দিন, আমিন আহমদ, ফতেপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি রুবেল শরীফ, জুবায়ের আহমদ পলক, প্রনব দাস, রাশেল আহমদ, সাব্বির আহমদ, মারুফ আহমদ প্রমুখ।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইল সদর হাসপাতালের এক মেডিকেল অফিসারের বিরুদ্ধে অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগে সদর উপজেলা আমলি আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। বিজ্ঞ বিচারক নয়ন বড়াল মামলাটি আমলে এনে সদর থানাকে এফ.আই.আর গ্রহন করতে নির্দেশ দিয়েছেন। সোমবার দুপুরে এ মামলা দায়ের হয়। সদর হাসপাতালের আউটসোর্সিং-এর কর্মচারি বিধান দাস সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. বিবাস শর্মা এবং তার (বিধান) স্ত্রী রিম্পা দাসের বিরুদ্ধে এ মামলা করেছেন।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. বিভাস শর্মা সদর হাসপাতালের ডক্টরস কোয়ার্টারে এবং হাসপাতালে আউটসোর্সিং প্রজেক্টে এমএলএসএস হিসেবে কাজের সুবাদে বাদি বিধান দাস ও তার স্ত্রী রিম্পা দাস কর্মচারি কোয়ার্টারে বসবাস করতেন। গত তিন মাস পূর্ব থেকে হাসপাতালে পাশাপাশি অবস্থানের সুযোগ নিয়ে ডা. বিবাস শর্মা বিধানের স্ত্রী রিম্পার সাথে বিভিন্ন জায়গায় অনৈতিক সম্পর্ক গোড়ে তোলে এবং ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে বিভিন্ন অশ্লিল ছবি আদান প্রদান করে। সর্বশেষ গত ৩ নভেম্বর হাসপাতালের কর্মচারি কোয়ার্টারে বিধানের একটি কক্ষে হাতে-নাতে বিষয়টি ধরে ফেলে।

বিষয়টি সংশোধনের জন্য বাদি উক্ত চিকিৎসককে সতর্ক করলে এটি নিয়ে বাড়াবাড়ি না করতে নিষেধ করে এবং তাকে হত্যা ও চাকরিচ্যুত করার হুমকি দেয়। এছাড়া স্ত্রীও আতœহত্যার ভয় দেখায়। বিষয়টি বিধান তার স্ত্রীর পরিবারকে জানালেও তারা সংশোধন হয়নি। বরং এ ধরনের অনৈতিক কাজ চলমান থাকে। মামলায় আরও উল্লেখ করা হয়েছে, ডা. বিবাসের স্ত্রী চৈতি রায় স্বামীর বিরুদ্ধে জয়পুরহাটে যৌতুকের একটি মামলা করেছে। স্ত্রীর দায়েরকৃত মামলায় ডা. বিবাস কিছু দিন জেল-হাজতে ছিলেন। চৈতি এখন তার বাবার বাড়ি অবস্থান করছেন।

বাদি বিধান দাস জানান, লোকলজ্জার ভয় এবং সংসারের শান্তি ফিরিয়ে আনতে ব্যর্থ হয়ে এ মামলা করেছেন।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত চিকিৎসক ডা. বিভাস শর্মা মামলার বিষয়টি জানেন না বলে জানান। তিনি আরও বলেন এ ধরনের অনৈতিক সম্পর্কের কথা সঠিক নয়। তবে স্ত্রী তার বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছেন বলে স্বীকার করেছেন।

এ মামলার বাদি পক্ষের আইনজীবী রাজু আহম্মেদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেছেন আমাদের দাবি বাদি যেন ন্যায় বিচার পান।

মিজানুর রহমান,চুনারুঘাট থেকেঃ যথাযোগ্য মর্যাদায় চুনারুঘাটে তিন দিন ব্যাপি জলবায়ু পরিবর্তনে ৪১তম জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলা ২০১৯ অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার সত্যজিৎ রায় দাস এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্হিত ছিলেন চুনারুঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল কাদির লস্কর। বিশেষ অথিতি হিসেবে উপস্হিত ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব লুৎফুর রহমান মহালদার।
বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ সামসুল হক সহ উচ্চ পদস্হ কর্মকর্তা ও নেতৃবৃন্দ। উপজেলায় শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় হিসেবে স্হান লাভ করে মিরাশী উচ্চ বিদ্যালয়। শ্রেষ্ঠ স্কুল এন্ড কলেজ নির্বাচিত হয় আমুরোড হাই স্কুল কলেজ।
জলবায়ু পরিবর্তনে বর্তমান সরকারের ভূয়সী প্রশংসা করে বক্তাগন বলেন দেশ ডিজিটালের চোয়া লেগেছে তাই জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে সাস্হ্যসম্মত খাবার পরিবেশনের উদাত্ত আহবান জানান। পরে প্রত্যেক প্রধান শিক্ষক গনের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেয়া হয়।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: শফিউলকে আলম চৌধুরী নাদেলকে বাংলাদেশ আ,লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হবার পর  তাহিরপুর উপজেলা বাসীর পক্ষ থেকে তাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল।
সোমবার (৩০ ডিসেম্বর) রাতে সিলেট চেম্বার অব কমার্সের ভবনের শফিউল আলম নাদেলের কার্যালয়ে গিয়ে তাকে শুভেচ্ছা জানান। এসময় আগামীতে সাংগঠনিক কার্যক্রমে নিজের সমর্থন ও সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন নাদের।
এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন,সুনামগঞ্জ পৌর মেয়র নাদেল বকত,ফান্স প্রবাসী জসীম উদ্দিন ফারুক, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম সেপু,আওয়ামীলীগ নেতা আমীর হোসেন রেজা,যুবলীগ নেতা বিজয় তালুকদার বিজু,পৌর আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক লিটন সরকার,জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আসিফ বখত রাদ প্রমুখ।

নড়াইল প্রতিনিধি: নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় মোটর সাইকেল আরহী ৯ বছরের এক শিশুর মর্মার্ন্তিক মৃত্যু হয়েছে। এ সময় মোটর সাইকেলে থাকা চালক সহ দুইজন গুরুতর আহত হয়। আহতদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে।
পুুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, রবিবার দুপুরে মটরসাইকেল যোগে নয়ন শেখ, মিরাজ মোল্যা ও সাদিয়ার রহমান উপজেলার দিঘলিয়া বাজার থেকে খালচরের দিকে যাচ্ছিল। এসময় বিপরিত দিক থেকে আসা তিন চাকার ট্রলির সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে ঘটনা স্থলেই নয়ন মারা যায়। নয়ন শেখ উপজেলার কুমড়ি গ্রামের রহমান শেখের ছেলে।
লোহাগড়া থানার ওসি মোঃ আলমগীর হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় ট্রলি ও মটর সাইকেল জব্দ করা হয়েছে।

বিনিময়ে সহস্রাধিক গরু-মহিষ বাংলাদেশ বাজারে 

রেজওয়ান করিম সাব্বির, জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধি: সিলেটের জৈন্তাপুর সীমান্তের লালাখাল বাগছড়া দিয়ে লাইনের টাকা, মদ, বিড়ি সিগারেট, গরু-মহিষের বিনিময়ে প্রায় সহ¯্রাধীক গরু মহিষ বাংলাদেশের বাজারে প্রবেশ করায় চোরাকারবারীরা। সচেতন মহলের দাবী সীমান্তের চোরাচালান কোন ভাবে থেমে নেই দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে চোরাচালান। বিজিবি’র চেয়ে শক্তিশালী চোরাকারবারী সিন্ডিকেটের সদস্যরা।
এলাকাবাসী ও চোরাকারবারী সিন্ডিকেটের বিশ্বস্থ সূত্রে যানাযায়, ২৬ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার হতে সীমান্তেরে অপরে প্রায় সহ¯্রাধীক গরু বাংলাদেশে প্রবেশের জন্য চোরাকারবারী সিন্ডিকেটের সদস্যরা নিয়ে আসে। বড় দিন থাকার কারনে ভারতীয় বিএসএফ সর্তক অবস্থানে থাকায় সীমান্তে কিছুটা বন্ধ থাকার কারনে প্রায় সহ¯্রাধীক গরু-মহিষ বাংলাদেশ সীমান্তে প্রবেশের অপেক্ষোয় ছিল। অবশেষ গরু মহিষ গুলো বাংলাদেশ সীমান্তে প্রবেশের জন্য বিজিবিকে ৮কাটুন মদ, ১৫কাটুন সিগারেট দেওয়ার পর বিজিবি সীমান্তে জিরো পয়েন্টের ১কিলোমিটার অতিক্রম করে ৭টি গরু ও ১০টি মহিষ আটক করে বিজিবি লালাখাল ক্যাম্প। আটককৃত গরু গুলো চোরাকারবারী দলের সদস্য হরিপুর ইউনিয়নের শ্যামপুর গ্রামের বাসিন্ধা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ, হেমু মাঝেরটুল গ্রামের বিলাল আহমদ, নিজপাট ইউনিয়নের রুপচেং গ্রামের বাসিন্ধা নাজিম উদ্দিন এবং আটক মহিষ গুলোর মালিক দরবস্ত ইউনিয়নের মানিকপাড়া গ্রামের বিলাল উদ্দিন উরফে লেংড়া বিলালের বলে জানায় চেরাকারবারী একাংশের সদস্যরা। তারা আরও জানায় বিজিবিকে লাইনের টাকা, মামলার জন্য গরু-মহিষ, বিড়ি, সিগারেট ও মদ দিয়ে বড় বড় ব্যবসায়ীদের গরু মহিষ বাংলাদেশে প্রবেশের সুযোগ করে। গতকাল ২৮ ডিসেম্বর শনিবার লাইনের টাকা, ৮কাটুন মদ, ১৫কাটুন সিগারেট দেওয়ার পরও বিজিবি ১৭টি গরু মহিষ নিয়ে প্রায় সহ¯্রাধীক গরু মহিষ বাংলাদেশে প্রবেশের সুযোগ করে দেয়। এই গরু গুলো জৈন্তাপুর বাজার, দরবস্ত বাজার ও হরিপুর বাজারে প্রবেশ করে।
সচেতন মহলের দাবী সীমান্তে চোরাচালান ব্যবসা কোন ভাবে বন্দ করা সম্ভব নয়, যেখানে বিজিবি চোরাকারবারীদের সুযোগ করে দেয়। যার ফলে জৈন্তাপুর উপজেলা সীমান্তের শ্রীপুর ক্যাম্পের আওতায় ১২৮০-১২৮১ মেইন পিলার, মিনাটিলা ক্যাম্পের ১২৮৩ সুপারী বাগান, ও রাবার বাগান, ডিবির হাওর সীমান্তের ১২৮৫ ও ১২৮৬ রিভার পিলার এলাকা, জৈন্তাপুর ক্যাম্পের ১২৮৬ ফুলবাড়ী, ১২৮৮ টিপরাখলা, ১২৯০-১২৯১ কমলাবাড়ী, ও ১২৯২ গুয়াবাড়ী এবং লালাখাল ক্যাম্পের ১২৯৬ বাইরাখেল, ১২৯৮ জালিয়াখলা, ১৩০০ লালাখাল কালিঞ্জি সারীনদীর মুখ, ১৩০১-১৩০২ ও ১৩০৩ বাঘছড়া, তুমইর ও জঙ্গীবিল এলাকা দিয়ে প্রায় ৪০জন চোরাকারবারী দলের সদস্যরা প্রায় ৩হাজার লোক দিয়ে বাংলাদেশে গরু-মহিষ, মদ মাদক, বিড়ি-সিগারেট, চা-পাতা, কসমেটিক্স সামগ্রী, সহ নানা রকম ভারতীয় পন্য বাংলাদেশে প্রবেশ করছে বলে জানান।
লালাখাল বিজিবি’র ক্যাম্প কমান্ডার হযরত আলী এবং বিজিবির ভিআইপি সদস্য আবুল খায়ের লাইনের টাকা, ১৫কাটুন সিগারেট ও ৮কাটুন মদের কথা অস্বীকার করে বলেন, বাঘছড়া এলাকা হতে বিজিবি ১৭টি গরু মহিষ আটক করে। তার জন্য চোরাকারবারী দলের সদস্যরা বিজিবির বিরুদ্ধে অপপ্রচার করছে। আটক গরু মহিষ কাষ্টম কর্মকর্তার উপস্থিতিতে ৭টি গরু ৪লক্ষ ৯০হাজার টাকা এবং ১০টি মহিষ ৮লক্ষ ১৩হাজার টাকায় লিলামে বিক্রয় করা হয়েছে। সহ¯্রাধীক গরু মহিষ প্রবেশের বিষয় জানাতে চাইলে তারা বলেন, বিজিবি’র জোয়ানরা টহল অব্যাহত ছিল এরকম কিছু ঘটেনি।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জের  আলহেরা জামেয়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসায় ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার ও মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘর’ ও ‘গার্লস কর্ণার’ উদ্বোধন করা হয়েছে। এউপলক্ষয়ে রবিবার(২৯/১২/২০১৯) বিকাল ৩ টায় সুনামগঞ্জ সদর উপজেলাধীন আলহেরা জামেয়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসায় ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার ও মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘর’ ও ‘গার্লস কর্ণার’ উদ্বোধন করেন সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ।
এসময় সদর উপজেলার উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইয়াসমিন নাহার রুমা, কুরবাননগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল বরকতসহ মাদ্রাসার শিক্ষকমন্ডলী উপস্থিত ছিলেন।

শ্রীমঙ্গল শহরের কালীঘাট রোড এলাকা থেকে গত ৫ ডিসেম্বর একটি স্যামসাং গ্যালাক্সি জে ফোর প্লাস মোবাইল সেট চুরি হয়ে যায়। চুরি হওয়ার পর মোবাইল ফোন সেটটির মালিক মাসুম আহমদ পিতা মোঃ মোসাহিদ মিয়া গ্রাম সুরভী পাড়া, মৌলভীবাজার রোড, তিনি শ্রীমঙ্গল থানায় অভিযোগ করলে অভিযোগের ভিত্তিতে শ্রীমঙ্গলের পুলিশ ২২ দিন পর উদ্ধার করে অভিযোগকারীর হাতে তুলে দেন।

মোবাইল সেটের মালিক ও শ্রীমঙ্গল থানা সূত্রে জানা যায়,মাসুম আহমদ অভিযোগ করার পর শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুস সালেক এর নির্দেশনায় এস আই সারোয়ার আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে মোবাইল ট্রাকিং এর মাধ্যমে চোরকে শনাক্ত করে এবং ২৭ ডিসেম্বর দিবাগত রাতে মোবাইল ফোন সেটসহ শহরের সোনাবাংলা রোডস্থ এলাকায় বসবাসকারী শরিফ মিয়া পিতা বিল্লাল মিয়াকে গ্রেফতার করে।

পরে প্রকৃত মালিকের হাতে ২৮ ডিসেম্বর রাতে মোবাইল সেটটি তুলে দেন শ্রীমঙ্গল থানার ওসি আব্দুস ছালেক দুলাল এবং গ্রেপ্তারকৃত চোরচক্রের একজনকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করেছেন।

সুত্রে আরও জানা যায় মোবাইল চুরির সাথে আরও ২জন জড়িত রয়েছে।

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পরিত্যক্ত মালপত্রের স্তূপ থেকে ৬৪ কেজি স্বর্ণ উদ্ধার করা হয়েছে।শনিবার রাত সোয়া ১০টার দিকে কার্গো ভিলেজ এলাকায় অভিযান চালিয়ে এসব স্বর্ণ জব্দ করা হয়। এর সঙ্গে জড়িত কাউকে আটক করা যায়নি। চোরাই পথে আসা এ স্বর্ণের দাম ৩২ কোটি টাকা।

বিমানবন্দর সূত্রে জানা যায়, কার্গো ভিলেজ এলাকায় পরিত্যক্ত অবস্থায় এসব স্বর্ণ উদ্ধার করা হয়। কাচের ফ্রেমে বিশেষ কায়দায় লুকানো ছিল এসব স্বর্ণ। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে তা উদ্ধার করা হয়। সিঙ্গাপুর থেকে আসা বাংলাদেশ বিমানের বিজি-০৮৫ নম্বর ফ্লাইটে ২৭ ও ২৮ ডিসেম্বর দুই চালানে এসব স্বর্ণ ঢাকায় আসে। তল্লাশি করে ৬৪০টি স্বর্ণের বার পাওয়া গেছে। প্রতিটি বারের ওজন ১০০ গ্রামের মতো।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া জানান, স্বর্ণ উদ্ধারের ঘটনায় মামলা হয়েছে। এর পেছনে কারা রয়েছে তা তদন্ত করে বের করা হবে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc