Saturday 11th of July 2020 07:19:23 PM

চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ চুনারুঘাট উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানদের সাথে ইউএনও (ভারপ্রাপ্ত)  ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) নুসরাত ফাতিমার দুর্ব্যবহার করায় অাজ উপজেলার মাসিক আইন শৃঙ্খলা সভা ও সমন্বয় সভা বয়কট করেন ১০টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগন।  পরে এক জরুরী সভা করেন সকল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা। এ নিয়ে উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেয়।
জানা যায়, গত রবিবার ৫নং শানখলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুল হক তরফদার সবুজের বাড়িতে একটি দাওয়াতের আয়োজন ছিল। এতে ভারপ্রাপ্ত ইউএনও দাওয়াত না পাওয়ায় তিনি চুনারুঘাটের সকল চেয়ারম্যানদেরকে ভদ্রতা শেখার কথা বললে চেয়ারম্যানরা ক্ষুব্ধ হন। এ নিয়ে ভারপ্রাপ্ত ইউএনও ও চেয়ারম্যানদের মধ্যে দূরত্বের সৃষ্টি হয়। মঙ্গলবার দুপুর ২টায়  উপজেলা আইনশৃঙ্খলা সভায় চেয়ারম্যানগণ বিষয়টি উত্থাপন করলে ভারপ্রাপ্ত ইউএনও জরুরী কাজ দেখিয়ে সভা ত্যাগ করেন।
এতে সকল চেয়ারম্যানরা আরো ক্ষুব্ধ হয়ে আইনশৃঙ্খলা মিটিং ও সমন্বয় সভা বর্জন করেন এবং বলেন, যতক্ষণ পর্যন্ত ইউএনও এসে ক্ষমা না চাইবেন সে পর্যন্ত তারা ভারপ্রাপ্ত ইউএনওর সকল কার্যক্রম থেকে বিরত থাকবেন।
এ বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান সমিতির সভাপতি ৮নং সাটিয়াজুরী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ মাস্টার বলেন, ভারপ্রাপ্ত ইউএনও এভাবে একজন সরকারি কর্মচারি হয়ে জনপ্রতিনিধির সাথে দুর্ব্যহার করতে পারেন না এবং সভা ত্যাগ করে যেতে পারেন না। আমরা উনার সাথে সকল কার্যক্রম থেকে বিরত থাকব।
এ নিয়ে ভারপ্রাপ্ত ইউএনও নুসরাত ফাতিমার সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন সকাল ১১ টা থেকে ১টা ৩০মিঃ পর্যন্ত আইনশৃংখলা  সভা চলছিলও এসময়ের মধ্য কোন ইউপি চেয়ারম্যান উপজেলা সভাকক্ষে আসেননি।
তাদের জন্য অপেক্ষা করে আমি এবং উপজেলা চেয়ারম্যান মোহোদয়কে নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান এর অফিসে এসে এক ঘন্টা অপেক্ষার পর তিনি নিচে নেমে আসার পর দেখেন চেয়ারম্যানগণ নিচে দাড়িয়ে কি করছেন। তিনি আরো বলেন চেয়ারম্যানগণতো সভাস্থলেই আসেননি। না আসলে বয়কট কিসের ?

বাংলাদেশ এনডিবির চেয়ারম্যান মোমিন মেহেদী বলেছেন, তথাকথিত পীর-মুরিদী ব্যবসার কারণে ঘুষ-সুদ-নামাজ একত্রে আদায়কারী বাড়ছে। পবিত্র কোরআন-এর ভাষ্যমতে- ধর্ম ব্যবসা হারাম; অথচ এই ধর্ম বিক্রি করে ‘ইসলাম’ ‘বিসমিল্লাহ’র মত পবিত্র শব্দগুলোকে মানুষের অনুভূতির কাছে নিয়ে ধর্মান্ধ-দুর্নীতিবাজরা মানবতা ধ্বংস করছে।
একদিকে ঘুষ-সুদ খায় অন্যদিকে নামাজে যায়। অথচ স্পস্ট বলা আছে- ‘আমি সুদকে হারা রেছি, ব্যবসাকে হালাল করেছি।’ এমন পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য ধর্মের নাম ব্যবহার করে অর্থাৎ ‘ইসলাম’ শব্দ ব্যবহার করে পরিচালিত সকল সংগঠন নিষিদ্ধ করতে হবে। তা না হলে ধর্ম-দেশ-মানবতা ধ্বংস হয়ে যাবে। আজ যে স¤্রাট- আজিজ ভাইদের জন্ম হচ্ছে; এর জন্যও আমাদের তথাকথিত পীর-মসজিদের ইমামগণ দায়ি। তারা যদি প্রকৃত ইসলামের রাস্তায় অগ্রসর না হন, যদি দুর্নীতি-ঘুষ-সুদ-খুন-ধর্ষণের বিরুদ্ধে খুৎবা দেয়ার পাশাপাশি সচেতনতা তৈরির জন্য নিবেদিত না থাকেন নতুন প্রজন্ম কঠোর আন্দোলনের সূচনা করবে।
২৮ অক্টোবর বেলা ১১ টায় নতুনধারা বাংলাদেশ এনডিবি আয়োজিত ‘ধর্ম ব্যবসার রাজনীতি বনাম ধর্মীয় নির্দেশনা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন। জাতীয় ধর্মধারার সহ-সভাপতি ড. মওলানা নূরনবী হাসানাতের সভাপতিত্বে নতুনধারার কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন প্রেসিডিয়াম মেম্বার মওলানা হাসানুজ্জামান চৌধুরী, সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান শান্তা ফারজানা, ভাইস চেয়ারম্যান সাইদুজ্জামান রওশন, জাতীয় ধর্মধারা ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সহ-সভাপতি প্রকৌশলী হাবিবুর রহমান সিলেটী, সাধারণ সম্পাদক ডা. শেফা আজাদ প্রমুখ। প্রেসবার্তা

আবু তাহির,ফ্রান্স থেকেঃ প্যারিসের মেরি দ্যা  ক্লিসি এলাকায় এক অভিজাত রেস্টুরেন্টে ফ্রান্সে বসবাসরত তরুণ প্রবাসীদের উদ্যোগে গঠন করা হয়েছে হিউম্যান হ্যান্ডস নামক সংগঠনের।
গত রবিবার বিপুল সংখ্যক প্রবাসীদের উপস্থিতিতে সংগঠনের লক্ষ্য উদ্দেশ্য ও ফ্রান্স প্রবাসীদের শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সভাপতি মোহাঃ খাইরুল ইসলাম মাহিন।
এসময় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ফ্রান্সের বাংলাদেশী কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব সালেহ আহমদ চৌধুরী।
মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন সংগঠনের উপদেষ্টা আরশ আহমদ , সহসভাপতি বাবুল আহমদ , সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান , সহসাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান ,সাংগঠনিক সম্পাদক হিমেল আহমদ , সহসাংগঠনিক সম্পাদক রুবেল সিকদার , প্রচার সম্পাদক মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ ,সহপ্রচার সম্পাদক মিলাদ আহমদ , এস এম শাহীন খান , অর্থ সম্পাদক আজাদ আহমদ , সহ অর্থ সম্পাদক জাহেদ আহমদ।

বক্তারা বলেন  নিজেদের উন্নয়নের পাশাপাশি এলাকার উন্নয়ন করতে সকল তরুণদের এগিয়ে আসা উচিত।  ঐক্যবদ্ধ থাকলে বিপদ আপদে যেমন সহযোগিতা পাওয়া যায় ঠিক তেমনি প্রতিষ্ঠিত ও হওয়া সম্বভ।  তারা বলেন প্রবাসে নিজেকে ভালো রাখতেই সংগঠনের মাধ্যমে সংঘবদ্ধ থাকা জরুরি।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন বালভর্তি ভলগেট,ড্রেজারসহ তিন জনকে আটক করেছে পুলিশ। তারা হলেন,জসিম উদ্দিন,রতন মিয়া,কালা মিয়া সবার বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ভাদেরটেক মনিপুরহাটি।
পুলিশ জানায়,বিশ্বম্ভলপুর উপজেলার বালাকান্দা বাজারের পার্শ্ববতী ধোপাজান চলতি নদীতে রবিবার(২৮,১০,১৯ইং)ভোর রাত ড্রেজার দিয়া বালু উত্তোলনের সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে পুলিশ পরিদর্শক আতিকুর রহমান,সংগীয় এসআই আমিনুল ইসলাম,এএসআই ফারুকসহ সঙ্গীয় ফোর্সতাদের সহযোগীতায় তাদের গ্রেফতার করা হয়।

এসময় তাদের নিকট থেকে ৪টি বালুভর্তি ভলগেড,৩টি ড্রেজার উদ্ধার করা হয়।

রেজওয়ান করিম সাব্বির,জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধিঃ সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার সড়কের বাজারটিতে চেরাইপথে নিয়ে আসা ভারতীয় গরুর দখলে। প্রতিদিন ভোর ৬টা হতে সকাল ১১টা পর্যন্ত বসে এই অবৈধ গরুর হাট। সংশ্লিষ্ট প্রশাসন নিরব ভূমিকায় থাকায় চোরাকারবারি সিন্ডিকেট দখলে রেখে বাজারটি ও বাজারটির মধ্যে দিয়ে বয়ে যাওয়া সিলেট-জকিগঞ্জ সড়ক। যানঝট লেগেই থাকে প্রতিনিয়ত। পাচার হচ্ছে প্রতিদিন কোটি কোটি টাকা।
সরেজমিনে কানাইঘাট উপজেলার সড়েকের বাজার ঘুরে দেখাযায়, প্রতিদিন ভোর হতে না হতে বাজারে প্রবেশ করতে থাকে ভারত হতে চেরাইপথে নিয়ে আসা কয়েক শহ¯্রাধিক গরু। সরকারি নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ছত্র-ছায়ায় চেরাকারবারী দলের সদস্যরা নিরাপদে অবৈধ ভাবে বসানো বাজারে গরু উত্তোলন করছে। রাস্তার দুই পাশে ও বিভিন্ন বাড়ীর আঙ্গীনায় সেড তৈরী করে বসানো হয়েছে ভারতীয় গরুর হাট।

কানাইঘাট উপজেলার বিভিন্ন সীমান্ত পথ দিয়ে চেরাকাবারি সিন্ডিকেট চক্রের সদস্যরা দেদারছে ভারত হতে গরু নিয়ে আসছে সড়কের বাজারে। সড়কের বাজার হতে বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা শহরে ট্রাক যোগে প্রেরন করা হচ্ছে এসকল ভারতীয় গরু। নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকাবাসী জানান, কানাইঘাট উপজেলার ৩নং পূর্ব দিঘিরপার ইউনিয়নে অবস্থিত বাজারটিতে সরকারি ভাবে কোন গরু বাজার বসানোর অনুমতি নেই বা গরু বাজার হিসাবে ইজারা নেই।

চলতি বৎসরের শুরু হতে কিছু সংখ্যাক প্রভাবশালীদের সহযোগিতায় বাজারটিতে ভারতীয় চোরাকারবারীরা উপজেলার বিভিন্ন সীমান্ত পথ অবলম্বন করে অবৈধ ভাবে ভারতীয় গরুর হাট গড়ে তুলে। সড়কের বাজারটি গরুরহাট হিসাবে উপজেলা প্রশাসনের কিংবা জেলা প্রশাসনের নিয়ন্ত্রনে না থাকায় সরকার রাজস্ব বি ত হচ্ছে, এই সুযোগে সুবিধাভোগীরা অবৈধ বাজার বসিয়ে রাতারাতি আঙ্গুল ফুলে কলাগাছে পরিনত হচ্ছে। সচেতন এলাকাবাসী আরও জানায় বাজারটি একটি অংশকে গরুর হাট হিসাবে চিহ্নিত করে ইজারার আওতায় নিলে সরকার রাজস্ব বি ত হতনা। চেরাকারবারীরা সিন্ডিকেট ও প্রভাবশালী চক্র বাজারের বিভিন্ন অংশ সিলেট-জকিগঞ্জ রাস্তার ও বিভিন্ন বাড়ীর আঙ্গীনা দখল করে বাজারের পরিবেশ নষ্ট করছে। দ্রুত আইনগত পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।

অপরদিকে গরু আমদানীর নামে বাংলাদেশ হতে সীমান্ত পথে ভারতে পাচার হচ্ছে বাংলাদেশী অর্থ (মুদ্রা)। অপরদিকে গরু নিতে বিভিন্ন জেলা আসা ব্যবসায়ীরা রাস্তার পাশে ট্রাক দাঁড় করে গরু বোঝাই করতে ভোগান্ততি পড়তে হচ্ছে সিলেট-জকিগঞ্জ রাস্তার যাত্রী সাধারণ।
এবিষয়ে জানতে ৩নং পূর্ব দিঘিরপার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলী হোসেন কাজল প্রতিবেদককে জানান, সড়কের বাজারটি ইউনিয়ন পরিষদ কিংবা উপজেলা পরিষদের অধিনে নয়। তবে বাজারটি বহু বৎসর হতে ওয়াকফ এর মাধ্যমে পরিচালিত হয়ে আসছে। ওয়াকফের মাধ্যমে অপেন টেন্ডারের নিলাম হয়। লিলামে প্রাপ্ত টাকা ওয়ার্কফ ফান্ডে যাচ্ছে। চলতি বৎসর বাজারটি ৬৬লক্ষ টাকায় নিলাম হয়েছে এর বাহিরে আমার জানা নেই। বাজারটি বৈধ্য না অবৈধ আপনারা খোঁজ নিন। সীমান্ত পার হয়ে ভারতীয় গরু প্রবেশ করছে কিভাবে সেটি সংশ্লিষ্ট আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ভাল জানে।
এবিষয়ে কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ তদন্ত আনোয়ার জাহিদ প্রতিবেদকে জানান, বাজারের বিষয়ে তাদের কিছু জানা নেই। সংশ্লিষ্ট প্রশাসন এবিষয়ে বলতে পারবেন। ভারতীয় গরু বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সীমান্তের দায়িত্ব আমাদের নয়, অনেক সময় কানাইঘাট থানা পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে অভিযান পরিচালনা করে। বর্তমানে আমার থানায় প্রায় ৩০টি ভারতীয় গরু আটক রয়েছে। পুলিশের জনবল সংকট সে ক্ষেত্রে গরু পাচাঁরে সীমান্ত রক্ষীবাহিনী তাদের টহল জোরদার ভূমিকা রাখলে তাপ্রতিরোধ করা সম্ভব হবে।

কমলগঞ্জ প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী হামিদুর রহমানের ৪৮ তম শাহাদাৎবার্ষিকী পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসন ও কমলগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সোমবার (২৮ অক্টোবর) দপুরে কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী দলই চা বাগানে অবস্থিত বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমানের স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পন করা হয়।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশেকুল হকের নেতৃত্বে পুস্পস্তবক অর্পনের সময় অন্যান্যর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মাধবপুর ইউপি চেয়ারম্যান পুষ্প কুমার কানু, সমাজসেবক মোস্তফা কামাল, দলই বিজিবি’র ক্যাম্প কমান্ডারসহ বিজিবি সদস্যবৃন্দ।

পুষ্পস্তবক অর্পন শেষে মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে এক মিনিটি নিরবতা পালন ও মোনাজাত করা হয়।

বেনাপোল প্রতিনিধি: বন্দর নগরী বেনাপোলে সন্ত্রাসী হামলায় স্থলবন্দরের ৮ শ্রমিক মারাত্নক আহত হয়েছে।
সোমবার (২৮ অক্টোবর) সকাল ১১টায় বেনাপোল বন্দরের ছোট আঁচড়া বাইপাস রোডে এ ঘটনাটি ঘটে।
আহতরা হলো, বেনাপোল পোর্ট থানার খড়িডাঙ্গা গ্রামের দীন মোহাম্মদের ছেলে কালাম, রঘুনাথপুর গ্রামের জান আলীর ছেলে দুল্লী, দৌলতপুর গ্রামের মিজানের ছেলে শরিফুল, শামীম, সম্রাট, জুয়েল, কামাল ও রাজু। তারা সবাই বন্দর শ্রমিকদের গ্রুপ সরদার বলে জানান শ্রমিকরা।
আহত শ্রমিক দুল্লী জানান, তিনি ও তার গ্রুপের শ্রমিকরা সবাই মিলে বেনাপোল ছোট আঁচড়া বাইপাস রোডে পাথর লোড-আনলোডের কাজ করতে যান। এসময় একদল সন্ত্রাসী প্রাভেটকারে এসে, কর্মরত শ্রমিকদের উপর গাড়ি চালিয়ে তাদের গায়ে তুলে দেয় এবং গাড়ির দরজা দিয়ে বাড়ি মারতে থাকে। এসময় গাড়িতে থাকা সন্ত্রাসীরা লাঠি-সোঁটা, বোমা ও দেশিয় অস্ত্র নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় তিনি সহ তার দলের সাত শ্রমিক আহত হন। এসময় আহত শ্রমিকদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠান স্থানীয় জনগণ।
এদিকে, বোমার আওয়াজে এলাকার জনসাধারণ আতঙ্কিত হয়ে পড়েন, দোকানদাররা তাদের দোকান বন্ধ করে দেন ও অবিভাবকরা তাদের সন্তানদের নিয়ে দ্রুত ছুটে স্কুল ত্যাগ করেন।
এ বিষয়ে বেনাপোল পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জুলফিকার আলি মন্টু বলেন, শান্ত বেনাপোলকে অশান্ত করতে একদল সন্ত্রাসী উঠে পড়ে লেগেছে। তারা খেটে খাওয়া সাধারণ বন্দর শ্রমিকদের উপর হামলা চালিয়ে তাদের আহত করেছে। এজন্য বন্দর শ্রমিকরা বন্দর এলাকায় টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করেছে ও বন্দরের সকল কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে।
বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন খান জানান, শ্রমিকদের সাথে কথা বলে হামলাকারীদের আটকের আশ্বাস দিলে তারা দ্রুত সময়ে বিক্ষোভ কর্মসুচি প্রত্যাহার ও বন্দরের সকল কার্যক্রম সচল করেন বলে তিনি জানান।

“১৯ বছরেও উপজেলার একমাত্র মহিলা কলেজ মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার নারী শিক্ষার একমাত্র উচ্চ বিদ্যাপীঠ আব্দুল গফুর চৌধুরী মহিলা কলেজ সরাকরি এমপিওভুক্তি হতে পারেনি”

 

শাব্বির এলাহী,কমলগঞ্জ:  উন্নত শিক্ষার মান,ভাল ফলাফলসহ এমপিওভুক্তির সকল শর্ত পূরণ করেই সম্প্রতি সরাকরি এমপিওভুক্তি হতে পারেনি মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার নারী শিক্ষার একমাত্র উচ্চ বিদ্যাপীঠ আব্দুল গফুর চৌধুরী মহিলা কলেজ। গত ১৯ বছর ধরে কমলগঞ্জে নারী শিক্ষা উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখলেও এমপিও বি ত রয়েছে এ কলেজটি। পূণ:বিবেচনায় কলেজটিকে এমপিওভূক্তিকরণের দাবিতে সোমবার (২৮ অক্টোবর) সকাল সোয়া ১১টা থেকে বেলা সাড়ে ১২টা পর্যন্ত কলেজের সামনের রাস্তার দুইধারে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন আব্দুল গফুর চৌধুরী মহিলা কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, পরিচালনা পরিষদ, অভিভাবক ও এলাকাবাসী।

শুধুমাত্র মানববন্ধন কর্মসূচি শুরু করলেও বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী কমলগঞ্জ-আদমপুর সড়কটি টানা এক ঘন্টা অবরোধ করে রাখে। এসময় রাস্তার দুই দিকে শতাধিক যানবাহন আটকা পড়ে।

খবর পেয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও থানার ওসি একদল পুলিশসহ ঘটনাস্থলে এসে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে বিষয়টি পূন: বিবেচনার জন্য কথা বলার আশ্বাসের পর বেলা সাড়ে ১২টায় সড়ক অবরোধ তুলে নেয়া হয়। পরে কলেজের পক্ষ থেকে ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে নির্বাচিত বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহের (উচ্চ মাধ্যমিক স্তর) এমপিওভূক্তির আওতায় আব্দুল গফুর চৌধুরী মহিলা কলেজকে এমপিওভূক্তি করণের জন্য কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর একটি স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

আব্দুল গফুর চৌধুরী মহিলা কলেজের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ইমতিয়াজ আহমেদ বুলবুলের সভাপতিত্বে ও প্রভাষক শর্মিলা সিনহার স ালনায় মানবন্ধনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কলেজ অধ্যক্ষ মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ সদস্য মো. হেলাল উদ্দিন।

মানববন্ধনে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মো. জুয়েল আহমদ, আওয়ামীলীগ নেতা মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মোমিন তরফদার, ইসলামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান, আদমপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সাব্বির আহমদ ভূঁইয়া, উপজেলা উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর সভাপতি অধ্যাপিকা মঞ্জুশ্রী রায়, সম্পাদক শাব্বির এলাহী, উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নিরঞ্জন দেব, মণিপুরী থিয়েটারের নির্বাহী প্রধান সুভাশীস সিনহা, কমলগঞ্জ সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি এম, এ, ওয়াহিদ রুলু, সাধারণ সম্পাদক শাহীন আহমেদ, যুবলীগ নেতা মোশাহিদ আলী, ইউপি সদস্য রুপেন্দ্র কুমার সিংহ, সমাজসেবক রাসেল হাসান বক্ত, শিক্ষার্থী তিশা মামুন প্রমুখ।

মাবনবন্ধন কর্মসূচি চলাকালে কমলগঞ্জ-আদমপুর সড়ক অবরোধের খবর পেয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক ও কমলগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) সুধীন চন্দ্র দাসের নের্তৃত্বে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে আসেন।

এক পর্যায়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীর মানববন্ধনের প্রতি সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক। পূণ:বিবেচনায় কলেজটিকে এমপিওভুক্তিকরণে হস্তক্ষেপ কামনা করে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটি স্মারক লিপি পেশ করেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক স্মারকলিপি গ্রহণের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তিনি যথাযথ কর্র্র্তৃপক্ষের মাধ্যমে স্মারকলিপিটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রেরণ করবেন। তিনি আশাবাদী যে আগামীতে আব্দুল গফুর চৌধুরী মহিলা কলেজটি এমপিওভুক্ত হবে।

কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি ইমতিয়াজ আহমেদ বুলবুল ও অধ্যক্ষ মো. হেলাল উদ্দিনসহ বক্তারা বলেন, ২০০০ সালে আব্দুল গফুর চৌধুরী মহিলা প্রতিষ্ঠা হয়। এখানে মণিপুরী, খাসিয়া, চা শ্রমিকসহ ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠী ও গ্রামা লের মেয়েরা পড়াশুনা করছে। ২০০২ সালে কলেজটি একাডেমিক স্বীকৃতি লাভ করেছে। ২০০৪ সালে মৌলভীবাজার জেলার মধ্যে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করে। ২০০৪ সাল থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ভেন্যু হয়েছে। এ কলেজে ১৬ জন শিক্ষক ও ৫ জন কর্মচারী টানা ১৯ বছর ধরে অনেকটা স্বেচ্ছাশ্রমে পাঠদান করছেন।

এমপিওভুক্তির নীতিমালা মেনে আবেদন করলেও গত ২৩ অক্টোবর সরকার ঘোষিত এমপিওভুক্তির তালিকায় কলেজটি অন্তর্ভুক্ত না হওয়ায় বিনাপারিশ্রমিকে শিক্ষাদান করে আসা শিক্ষক-কর্মচারীবৃন্দ চরম হতাশায় ভেঙে পড়েনন।

এ অবস্থায় কলেজটির শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখা নিতান্তই দুরূহ হয়ে পড়ছে। যা কলেজের ভবিষ্যৎকে এক গভীর সংকটে নিপতিত করবে। বক্তারা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার শিক্ষাবান্ধব সরকার। বিশেষ করে নারীশিক্ষার উন্নয়নে এই সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। দ্রুত কলেজটিকে এমপিওভুক্ত করা হলে প্রান্তিক পর্যায়ে শিক্ষার অগ্রগতি যেমন বাড়বে, তেমনি বাংলাদেশে নৃতাত্ত্বিক জনগগোষ্ঠীর নারীশিক্ষার ধারাও বেগবান হবে।

তাই ২০১৯ – ২০২০ অর্থবছরে নির্বাচিত বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহের (উচ্চ মাধ্যমিক স্তর) এমপিওভূক্তির আওতায় আব্দুল গফুর চৌধুরী মহিলা কলেজকে অন্তভূক্তিকরণের বিষয়টি বিশেষ বিবেচনা করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর আশুদৃষ্টি কামনা করেন।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার যাদুকাটা নদীর ঘাগড়া ঘাটে বৈধ ইজারাদার শেখ শফিক মিয়া কাছে স্থানীয় সংঘবদ্ধ প্রভাবশালী চাঁদাবাজদের চাঁদাদাবী করে লক্ষাধিক টাকা লুট করে জোড়পূর্বক ঘাট দখল করে বালি পাথর ভর্তি কার্গো,স্টীলবডি ও দেশীয় নৌকা থেকে চাঁদা আদায় করছে।
গত শুক্রবার(২৫,১০,১৯)সকালে ঘাগড়া গ্রামের দক্ষিনে যাদুকাটা নদীয় পশ্চিম পাড়ে টোল আদায় কালে শেখ শফিক মিয়ার সাথে এই ঘটনা ঘটে।
এবিষয়ে সংঘবদ্ধ চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও তাহিরপুর উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তার কাছে রবিবার(২৭,১০,১৯ইং)লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ইজারাদার শেখ শফিক মিয়া।
লিখিত অভিযোগ থেকে জানা যায়,উপজেলার ঘাগড়া ঘাট হতে লাউড়েরগড় পর্যন্ত যাদুকাটা নদীর দু-তীরে বালি পাথর ভর্তি কার্গো,স্টীলবডি ও দেশীয় নৌকা উঠানামার ঘাটটি ৪০লক্ষ ২০হাজার টাকা রাজস্ব দিয়ে গত ০৭,০৩,১৯ইং তাহিরপুর ইউএনও অফিস স্মারক নং ০৫,৪৬.৯০৯২.০০০.০৮.০৬৭.১৯২৮৫এর স্মারক মূলে ১লা বৈশাখ ১৪২৬ বাংলা সনের ত্রিশ চৈত্র পর্যন্ত এব বছর লিজ বন্দোবস্ত গ্রহন করেন শেখ শফিক মিয়া। এরপর থেকে সরকারী নিয়ম নেমে টোল আদায় করা হচ্ছে। কিন্তু স্থানীয় সংঘবদ্ধ একটি চাঁদাবাজ চক্র র্দীঘ দিন ধরেই ৩০লাখ টাকা চাদাঁদাবী করছে আসছে।

চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় গত শুক্রবার (২৫,১০,১৯) সকালে ঘাগড়া গ্রামের দক্ষিনে যাদুকাটা নদীয় পশ্চিম পাড়ে টোল আদায় কালে শেখ শফিক মিয়াকে জোরপূর্বক আব্দুল হেকিম,মুক্তার মিয়াসহ ২০/৩০জন চাদাঁবাজ দেশীয় অস্ত্রসস্ত্রসহ ঘাগড়া ঘাটে চাঁদাদাবী করে ও প্রান নাশের হুমকি দেয়। এই সময় শেখ শফিক মিয়া কিল ঘুষি মেরে তার কাছে কালো ব্যাগে রক্ষিত ১লাখ ৩০হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এর পর থেকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি প্রদর্শন করা ছাড়াও জোড়পূর্বক ঘাট দখল করে প্রতিদিনেই সকাল থেকে রাত পর্যন্ত বালি পাথর ভর্তি কার্গো,স্টীলবডি ও দেশীয় নৌকা থেকে চাঁদাবাজরা চাঁদা আদায় করছে।
এ অবস্থায় ঘাটের ইজারাদার শেখ শফিক মিয়া জানান,আমি জেলা প্রশাসক ও তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি এর পর থেকে সংঘবদ্ধ চাঁদাবাজ চক্র আমাকে প্রাননাশের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। আমাকে টোল আদায় করতে না দিয়ে তারাই টোল আদায় করছে। আমি প্রশাসনের নিকট জীবনের নিরাপত্তা ও চাঁদাবাজদের বিরোদ্ধে প্রয়োজনীয় আইননানুগ ব্যবস্থা নেবার দাবী জানাচ্ছি।
তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুনতাসির হাসান বলেন,১৪২৬ বাংলা সনে শেখ শফিক মিয়াকে ঘাটটি ইজারা দেওয়া হয়েছিল বলে অফিস নথি রয়েছে। এখন জোরপূর্বক ইজারা বহির্ভূত কেউ চাঁদা আদায় করলে তা খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এম ওসমান, বেনাপোল : যশোরের শার্শায় দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষনের চেষ্টার অভিযোগে শাহিল হাসান নয়ন (১৫) নামে এক কিশোরকে আটক করেছে পুলিশ।
সোমবার (২৮ অক্টোবর) সকালে এ ঘটনায় তাকে আটক করা হয়। আটক নয়ন শার্শা উপজেলার রাঘবপুর গ্রামের জাহিদুল ইসলামের পুত্র।
পুলিশ জানায়, গত (২৭ অক্টোবর) রবিবার বিকেলে নয়নের বাড়ির উঠানে ছোট ছোট বাচ্চাদের সাথে খেলা করছিল ওই ছাত্রী। এ সময় নয়ন কৌশলে ঐ ছাত্রীকে গান শোনার কথা বলে ঘরে ডেকে নিয়ে যায়। দীর্ঘ সময় পার হয়ে গেলেও বাড়িতে না ফিরে আসায় খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে আসামীর বাড়িতে গিয়ে ছাত্রীর মা দেখেন আসামীর ঘরের দরজা বন্ধ। ভিতরে উচ্চ শব্দে সাউন্ড বক্সে গান বাজছে।
এসময় অনেক ডাকাডাকির এক পর্যায়ে তিনি আসামীর ঘরের দরজায় ধাক্কা দেন। দরজা ভিতর থেকে বন্ধ দেখে ছাত্রীর মা ঘরের জানালা খুলে দেখেন আসামী নয়ন হোসেন ঐ ছাত্রীর পরিহিত প্যান্ট খুলে তাকে ধর্ষনের চেষ্টা করছে। এসময় তিনি সেখান থেকে তার মেয়েকে উদ্ধার করেন।
শার্শা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতাউর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে নয়নের নামে শার্শা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। আটকের পর নয়নকে সোমবার দুপুরে যশোর আদালতে পাঠানো হয়েছে।
আর ওই ছাত্রীকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে তিনি জানান।

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধিঃ  শ্রীমঙ্গল উপজেলা শহরের হবিগঞ্জ রোডস্থ দ্বারিকা পাল মহিলা কলেজের সামনে আজ সোমবার বিকাল সাড়ে ৫ টার দিকে  মাইক্রোবাস ও মোটরসাইকেল এর মুখোমুখি সংঘর্ষে দু’ই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত ও অপর এক আরোহী গুরুত্বর আহত হয়েছে।

স্থানীয়দের সহযোগিতায় ফায়ারসার্ভিস কর্মীরা তাদের উদ্ধার করে প্রথমে শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। পরে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সেখনেই চিকিৎসক দুই জনের মৃত্যু নিশ্চিত করে।

নিহত দুই মোটরসাইকেল আরোহী হলো বিলাসের পাড় এলাকার সজল সরকারের ছেলে বিষ্ণু সরকার (২২) ও একই এলাকার আব্দুল হকের ছেলে আশরাফুর রহমান (২০)।

একই  ঘটনায় আলীসার কুলের  মুসাব্বির মিয়া ভুট্টোর ছেলে জাবেদ মৌলভীবাজার সদর হাসপাতাল থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেটে প্রেরন করা হয়েছে।

শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনর্চাজ মো: আব্দুছ ছালিক দুলাল ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

ভোলার লালমোহন উপজেলায় দুই সন্তানের সামনে হাত-পা বেঁধে বাবাকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করার ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। নির্যাতিত বাবার নাম জসিম।

এ ঘটনায় গতকাল রোববার রাতে অভিযুক্ত হাসানকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গ্রেপ্তার হাসান ইয়াবা ব্যবসায়ী ও ডাকাতি মামলার আসামি।

মোটরসাইকেলচালক জসিম ইয়াবা বিক্রি করতে অস্বীকার করায় তাকে নির্যাতন করে উপজেলার কালমা ইউনিয়নের হাসান। এর পরই ভিডিওটি ছড়িয়ে দেওয়া হয় ফেসবুকে। নির্যাতিত জসিম উপজেলার ডাওরি বাজারে একই ইউনিয়নের নয় নম্বর ওয়ার্ডের মৃত আব্দুল মুন্নাফের ছেলে। তিনি পেশায় মোটরসাইকেল চালক।
অভিযুক্ত হাসান কালমা ইউনিয়নের দুই নম্বর ওয়ার্ডের মিস্ত্রি বাড়ির আবু ড্রাইভারের ছেলে।
ভিডিও দেখা গেছে, মোটরসাইকেল চালক জসিমকে শত শত মানুষ ও তার দুটি শিশু সন্তানের সামনে নির্যাতন করা হচ্ছে।
মোটরসাইকেল চালক জসিমকে দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবা বিক্রির জন্য প্রস্তাব দিয়ে আসছিল হাসান। জসিম ওই প্রস্তাবে রাজি না হলে ডাওরি বাজারে জনসম্মুখে উলঙ্গ করে তার দুটি শিশু সন্তানের সামনে বিএনপি ও সন্ত্রাসী আখ্যা দিয়ে হাত-পা বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্মমভাবে নির্যাতন করেন।
লালমোহন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর খায়রুল কবীর জানান, ভিডিওটি ২০১৮ সালের। হাসানকে রোববার ডাকাতি মামলায় গ্রেপ্তার করার পর এ ভিডিওটি ছাড়া হয়েছে।
এদিকে জসিমকে নির্যাতনের ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়লে সর্বত্র নিন্দার ঝড় বইতে শুরু করেছে।সূত্র আরটিভি

দেশে ফিরেছেন রাষ্ট্রপতি আলহাজ্জ মোঃ আবদুল হামিদ।জাপান ও সিঙ্গাপুরে আট দিনের সফর শেষে দেশে ফিরেছেন তিনি। রাষ্ট্রপতি এবং তার সফরসঙ্গীদের বহনকারী সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স লিমিটেডের একটি নিয়মিত ফ্লাইট (ফ্লাইট নং এসকিউ ৪৪৬) রোববার রাত সাড়ে ১০টায় হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেন।  আসছে…।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গর্বের সঙ্গে দাবি করেছেন, জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস’র প্রধান আবু বকর আল-বাগদাদি তাদের অভিযানে নিহত হয়েছেন। ট্রাম্প দাবি করেন, বাগদাদি কুকুরের মতো মারা গেছেন। ভীত-সন্ত্রস্ত অবস্থায় পালাতে না পেরে আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটিয়েছেন। অভিযানে বাগদাদি ও তার তিন ছেলেমেয়েসহ অনেক সন্ত্রাসী নিহত হলেও মার্কিন বাহিনীর কেউ হতাহত হন নি। শুধু মার্কিন বাহিনীর একটি কুকুর কিছুটা ক্ষতির শিকার হয়েছেন।

ট্রাম্প জানিয়েছেন, প্রচণ্ড বিস্ফোরণে বাগদাদির দেহ ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে। ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে বাগদাদির নিহতের বিষয়ে তারা নিশ্চিত হয়েছেন। ট্রাম্পের এই তথ্য থেকে এটা স্পষ্ট, আল-কায়েদা প্রধান বিন লাদেনের মতো আইএস প্রধান বাগদাদির মৃতদেহের ছবিও প্রকাশিত হবে না।

তাহলে ট্রাম্পের এই দাবি কীভাবে বিশ্বাস করব? মার্কিন দৈনিক ওয়াশিংটন পোস্টের বিভিন্ন বিশ্লেষণেই বলা হচ্ছে, ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রতিদিন গড়ে আট থেকে দশটি মিথ্যা বলেন। বাগদাদিকে হত্যার দাবিও যে মিথ্যা নয় তার নিশ্চয়তা কোথায়? এর আগে অন্তত আটবার বিভিন্ন গণমাধ্যমে বাগদাদি’র নিহত হওয়ার খবর গুরুত্বের সঙ্গে প্রকাশিত হয়েছে।

আগামী বছর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মার্কিন জনগণ নানা কারণে ব্যাপকভাবে বিতর্কিত ট্রাম্পকে আবারও ভোট দেবেন কিনা তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। এছাড়া তার সামনে অভিশংসনের আশঙ্কাও রয়ে গেছে। ২০২০ র নির্বাচনে সুবিধা পেতেই তিনি বাগদাদিকে হত্যার দাবি প্রচারের জন্য এ সময়টি বেছে নিয়েছেন। ঠিক একই কাজ করেছিলেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।

তিনি ২০১২ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে সামনে রেখে ২০১১ সালে বিন লাদেনকে হত্যার ঘোষণা দেন। বিন লাদেনের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান প্রযুক্তির সাহায্যে নিজে সরাসরি দেখার কথা জানিয়েছিলেন ওবামা। ঠিক একইভাবে ট্রাম্পও দাবি করেছেন, তিনি নিজে প্রযুক্তির সাহায্যে বাগদাদির বিরুদ্ধে অভিযানের একটা অংশ সরাসরি দেখেছেন।

বিন লাদেন ও বাগদাদিকে হত্যার দাবি সত্য হলেও এটা বলা যায়, এরা দু’জনই আগে থেকেই মার্কিন গোয়েন্দাদের জালের ভেতরেই ছিল। ওবামা ও ট্রাম্প তাদের নির্বাচনী স্বার্থে উপযুক্ত সময়ে হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন মাত্র।

বিন লাদেনকে হত্যার অনেক আগেই খবর বেরিয়েছিল তিনি কোথায় আছেন তা সম্পর্কে মার্কিন গোয়েন্দারা পুরোপুরি অবহিত। ধারণা করা যায় আইএস প্রধান বাগদাদির অবস্থান সম্পর্কেও মার্কিন গোয়েন্দারা আগে থেকেই জানতেন। কারণ আইএস’র অন্তত একাংশের সঙ্গে আমেরিকা-ইসরাইলের একটা গোপন যোগাযোগ ছিল এবং এখনও আছে। সিরিয়ায় মার্কিন বাহিনী ও আইএস উভয়ই আসাদ সরকারকে উৎখাতের জন্য তৎপরতা চালিয়েছে। লক্ষ্য অভিন্ন হওয়ার কারণে তাদের মধ্যে যোগাযোগ ও সহযোগিতা অবিশ্বাস্য নয়। ইহুদিবাদী ইসরাইলের বিভিন্ন সূত্র এর আগে সিরিয়ায় তৎপর জঙ্গিদের তাদের হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়ার কথা প্রকাশ্যেই স্বীকার করেছে।

বাগদাদিকে হত্যার পর সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প দাবি করেছেন, বাগদাদিকে হত্যার ঘটনা বিন লাদেনকে হত্যার ঘটনার চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কারণ বাগদাদি খেলাফত ঘোষণা করেছিলেন। তার এই তুলনা থেকেও এটা স্পষ্ট তিনি বাগদাদিকে হত্যার দাবির মাধ্যমে বড় ধরণের কৃতিত্ব নিতে চান।

বাগদাদিকে হত্যার দাবি প্রচার করে ট্রাম্প যেভাবে নিজেকে বীর হিসেবে জাহির করতে চাইছেন তা গ্রহণযোগ্য নয়। কারণ প্রায় দুই বছর আগেই ইরাক ও সিরিয়ায় আইএস’র পতন হয়েছে বলে ধরে নেওয়া হয়।

২০১৭ সালের ২১ জুন আইএস ইরাকের মসুলে তাদের কথিত খেলাফত ঘোষণার কেন্দ্রস্থল আল-নুরি মসজিদ ধ্বংসের মাধ্যমেই গোটা বিশ্বকে নিজেদের পরাজয়ের বিষয়টি জানিয়ে দেয়। মসজিদটি ইরাকি বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে চলে যাওয়ার আগে বিস্ফোরকের সাহায্যে তা ধ্বংস করে দেয় আইএস। ওই ঘটনার তিন বছর আগে আল-নুরি মসজিদে দাঁড়িয়ে ইরাক ও সিরিয়াসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিশাল অংশকে নিয়ে কথিত খেলাফত প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দিয়েছিলেন আবু বকর আল-বাগদাদি।

দুই বছর আগেই যে বাগদাদি গুরুত্ব হারিয়ে অনেকটা নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েছিলেন সেই বাগদাদিকে এখন হত্যার মাধ্যমে ট্রাম্প অন্তত বীরত্বপূর্ণ কৃতিত্ব দাবি করতে পারেন না। লেখক,রেডিও তেহরানের সিনিয়র সাংবাদিক।

নড়াইল প্রাতিনিধি: কোন মাদক ব্যাবসায়ি ,মাদক সেবী বা এর সাথে জড়িতদের স্থান বাংলাদেশ আওয়ামীলীগে হবে না- নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আব্দুর রহমান। রবিবার লোহাগড়া সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ চত্বরে লোহাগড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে অনুষ্ঠিত এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
সম্মেলনের উদ্বোধন করেন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অ্যাডঃ সুবাস চন্দ্র বোস।
সম্মেলন প্রস্তুত কমিটির আহবায়ক মোঃ আলা মুন্সির সভাপতিত্বে, বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কার্য নির্বাহী সদস্য এস,এম কামাল হোসেন, সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা, সংসদ সদস্য কবিরুল হক মুক্তি , জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডঃ সোহরাব হোসেন বিশ্বাস,বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কার্য নির্বাহী সদস্য মোঃ আমিরুল আলম মিলন,পারভীন জাহান কল্পনা, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন খান নিলু, সাবেক জেলা সম্পাদক অ্যাডঃ সৈয়দ মোহম্মদ আলী, লোহাগড়া পৌর মেয়র মোঃ আশরাফুল আলম, নড়াইল পৌর মেয়র জাহাঙ্গীর বিশ্বাস।
জেলা আওয়ামীলীগ,লোহাগড়া উপজেলা আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতা ও কর্মি এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc