Saturday 21st of September 2019 11:44:07 AM

হত্যা নাকি আত্নহত্যা এ নিয়ে জনমনে সন্দেহ !

সাদিক আহমেদ,স্টাফ রিপোর্টার: মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার সদর ইউনিয়নের ইসবপুর গ্রামের সার্বজনীন দুর্গাবাড়ীর দক্ষিণপাশে নিজ বাড়ি সংলগ্ন ঝোপঝাড়ে বাঁশের সাথে নাইলন (প্লাস্টিক) রশি পেঁচানো মনিন্দ্র দেবনাথ (৬০) নামে এক ব্যক্তির অর্ধ ঝুলন্ত গলিত লাশের সন্ধান পাওয়া গেছে।
জানা গেছে তার দুই ছেলে নান্টু দেবনাথ,কন্টু দেবনাথসহ তিন মেয়ে ও স্ত্রী রয়েছে।তিনি শহরে সাটারিং ব্যবসা করতেন।
সরজমিনে দেখা যায়,নিহত মনিন্দ্র দেবনাথের বসতঘর থেকে প্রায় ৫০-৬০ ফুট দূরে ঝোপঝাড়ের মধ্যে দুইটি বাঁশের সাথে তার গলায় বাঁধা অবস্থায় ঝুলে থাকতে।
অর্ধ ঝুলন্ত লাশটির রশি টানানো দেহের নানা অংশে পচন ধরেছে এবং পোকার মাকড়ের আস্তর পরে গেছে ও।বিদঘুটে দূর্গন্ধ ছড়াচ্ছে চারিদিকে।দেখে মনে হচ্ছে কয়েকদিন আগেই তার মৃত্যু হয়েছে এবং মৃতদেহের পাশে প্রায় ৩ ফুট উঁচু একটি টুল পড়ে রয়েছে।
নিহতের ছোট ছেলে কন্টু দেবনাথ আমার সিলেটকে জানান,তিনি (মনিন্দ্র) গত শুক্রবার থেকে নিখোঁজ ছিলেন।বিভিন্ন জায়গায় খোজ করে তাকে পাওয়া যায়নি।সে (কন্টু) আক্ষেপ করে বলে,সামান্য কিছু ঋণের জন্য বাবা আত্নহত্যা করবে ভাবিনি।উনাকে আমি বলেছিলাম আমায় রোববার পর্যন্ত সময় দিতে কিন্তু উনি সময় দেননি।
কিভাবে লাশের সন্ধান পেয়েছেন এমন প্রশ্নের জবাবে শোকাহত কন্ঠে কন্টু বলেন,গতকাল থেকে দুর্গন্ধ পাওয়া যাচ্ছিল।আমরা কাজকর্মে থাকায় সেদিকে আর যাওয়া হয়নি।আজ পাশের বাড়ির একজন লাকড়ি খুঁজতে এসে আামাদের জানান। তবে লাশের সন্ধান দাতার নাম পরিচয় জানা যায়নি।
এঘটনায় শ্রীমঙ্গল পুলিশের বিভিন্ন কর্মকর্তা বিশেষ করে এসপি সার্কেল আশরাফুজ্জান আশিকসহ শ্রীমঙ্গল থানার ওসি আব্দুস ছালেক দুলাল,স্থানীয় চেয়ারম্যান ভানু লাল রায়,ওয়ার্ড সদস্য শাজাহান মিয়া সকালেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
অপরদিকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন এলাকাবাসীর অভিযোগ ,বড় ছেলে নান্টু দেবনাথ তার বাবা মনিন্দ্র দেবনাথের সাথে ভালো ব্যবহার করতেন না।
কেউ কেউ প্রশ্ন তোলেন,বসতঘর থেকে সরাসরি দক্ষিণে ৫০-৬০ ফুট দূরে একটি লাশ ৫ দিন ধরে ঝুলছে তা পরিবারের কেউ দেখেনি এমনকি ঘরের সংস্কার কাজ চলছে অথচ সংস্কার কাজে ব্যবহৃত টুলটি ঘরের সামনে নেই এমন প্রশ্নও পরিবারের কারো মধ্য তৈরি হলো না এটা সন্দেহজনক। এ ছাড়া টুলটি থেকে দাঁড়িয়ে বাঁশের যে স্থানে রশিটি বাঁধা তা সম্ভব কি না তা ও পুলিশের দেখার উচিত বলে দাবি তাদের।
মূলকথা এলাকাবাসী ঘটনাটিকে স্বাভাবিকভাবে নিচ্ছে না।এজন্য প্রশাসনের প্রতি ঘটনার প্রকৃত তথ্য খুঁজে বের করার দাবী জানিয়েছে অনেকেই।
এব্যাপারে শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুস ছালেক দুলাল বলেন,”আমরা এসপি সার্কেল স্যারসহ ঘটনাস্থলে গিয়েছি।দেখে মনে হয়েছে এটি একটি আত্নহত্যা।আমরা পরিবারসহ আশেপাশের লোকজনকে জিজ্ঞাসা করেছি।কেহ সন্দেহমূলক কিছু বলেনি।পরিবারের লোকজন জানিয়েছে তিনি মানসিক বিকারগ্রস্থ ছিলেন, গত শুক্রবারে মনিন্দ্রের চট্টগ্রাম যাওয়ার কথা বলে এর মধ্যে আমরা আজ লাশ পেয়েছি। নিহতের পরিবার ময়নাতদন্ত ছাড়া লাশ সৎকারের আবেদন জানিয়েছে।”
উল্লেখ্য,একটি সুত্রে জানা গেছে নিহত মনিন্দ্রের মূল বাড়ি ছিলো মৌলভীবাজার জেলার শমসেরগঞ্জ বাজার এলাকার বিন্নি গ্রামে।তিনি দীর্ঘদিন ধরে শ্রীমঙ্গলের বিভিন্ন স্থানে বসবাস করছেন।আজ প্রায় বছরখানিক ধরে তিনি ইসবপুর গ্রামে স্থায়ীভাবে বসবাস করে আসছেন।

এম ওসমান, বেনাপোল প্রতিনিধি :  সারা দেশের ন্যায় সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠায় ৬৮০ খ্রিস্টাব্দের ১০ই মহররম কারবালা প্রান্তরে হযরত ইমাম হোসাইন (রাঃ) অকাতরে জীবন দিয়ে শিখিয়ে গিয়েছেন অন্যায়, অবিচার, জুলুম, শোষণের কাছে মাথা নত নয় বরং তার প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ করা, প্রয়োজনে জীবন বিলিয়ে দাও তবু সত্য প্রতিষ্ঠিত হোক। যুগ যুগ ধরে ইসলাম প্রিয় মানুষ হযরত হোসাইন (রাঃ) এর মিথ্যার বিরুদ্ধে সত্যের লড়াইকে আদর্শ হিসেবে বুকে ধরে রেখেছেন।

আজ মঙ্গলবার সকাল ১১টায় শার্শায় মুমিন শিয়া গোষ্ঠী উদ্দ্যোগে (১০ই মহররম) পবিত্র আশুরা উপলক্ষে হযরত হোসাইন (রাঃ) এর তাজিয়া ঘাড়ে করে হাই হোসেন, হাই হোসেন বলে একটি শোক মিছিল বের করে।
১০ই মহররম কারবালা প্রান্তরে তাইতো নিজের জীবন বিসর্জন দিয়ে তিনি সেই শিক্ষাটাই দিয়ে গেছেন। আর তাইতো মুসলিম জাহানের মুসলমানেরা (শিয়া গোষ্ঠী) এ দিনটিকে যথাযোগ্য মর্যাদায় স্মরণ করে থাকেন। যে কারণে আরবি মাসের ১ম মাস হিসেবে মহররম মাসকে নির্ধারণ করা হয়েছে।

মহররম এর ১০ তারিখ তথা আশুরার গুরুত্ব মর্যাদাবান ও মাহাত্মপুর্ণ । এদিনে ধর্মপ্রাণ মুসলমানগন রোজা রেখে দিনটির ফজিলত হাসিল করিবেন। আশুরার দিন রোজা রাখা সম্পর্কে আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (দঃ) বলেছেন, আশুরার দিনে রোজা রাখলে তার গত এক বছরের গুনাহ মাফ হয়ে যাবে। সমগ্র বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশেও এ দিনটি ধর্মপ্রিয় মুসলমানগন যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করে থাকেন।

রেজওয়ান করিম সাব্বির, জৈন্তাপুর সিলোট প্রতিনিধিঃ সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলা মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য সরকারের গৃহীত মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছে। উপজেলার বাইপাস সংলগ্ন এলাকায় ১কোটি ৯৬লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয় মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স। গোয়াইনঘাটের মুক্তিযোদ্ধাদের অফিসিয়াল কার্যক্রম পরিচালনা এবং তাদের কল্যাণে উক্ত ভবন বাণিজ্যিক পরিসরেও কার্যক্রম পরিচালিত হবে।
১১শতক ভূমির উপর সীমানা প্রাচীরসহ তৃতীয় তলা বিশিষ্ট স্থাপত্যশৈলীর মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে৷ নিচ তলায় রয়েছে ৫টি দোকান। দ্বিতীয় তলায়ও ৫টি দোকান রয়েছে। তৃতীয় তলায় ১টি কমিউনিটি সেন্টার, অফিস, লাইব্রেরী ও সম্মেলন কক্ষ রয়েছে। এছাড়া উক্ত কমপ্লেক্সে ভবনের উপরে রয়েছে নামাজের স্থান। আধুনিক সকল নির্মাণ সামগ্রীর মিশেলে স্থাপিত এই ভবনটি নির্মাণ কাজ শুরু হয় ২০১৬সালের ২৬ডিসেম্বর৷ সরকারের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী সিলেট-৪ অাসনের সংসদ ইমরান আহমদ ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনের মাধ্যমে ভবনটির নির্মাণ কাজের শুভ সূচনা করেছিলেন। চলতি বছরের ৩০ জুন ভবনটির নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে বলে উপজেলা প্রকৌশলী কার্যালয় জানায়। নির্মাণ প্রতিষ্ঠান ই.এফ.ট্রেনিং উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তরের মাধ্যমে উক্ত মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সটি নির্মাণ কাজ বাস্তবায়ন করে। ২কোটি ৩৮লক্ষ ৮হাজার টাকা বরাদ্ধ হলেও সংশোধিত চুক্তি মূল্য ১কোটি ৯৬লক্ষ ৪হাজার টাকার মধ্যে ভবনটির নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ হয়েছে বলে জানিয়েছে এল.জি.ই.ডি।
ভবনের নির্মাণ কাজের দায়িত্বে থাকা উপ-সহকারী প্রকৌশলী ইসরাইল হোসেন জানান, গোয়াইনঘাটের মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনটির নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ হয়েছে। উক্ত কমপ্লেক্সটি এখন উদ্বোধনের জন্য প্রস্তুত রয়েছে।
উপজেলা প্রকৌশলী রাশেন্দ্র চন্দ্র দেব জানিয়েছেন, গোয়াইনঘাটে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য সরকারের গৃহীত প্রকল্প উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনটির নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। অচিরেই ভবনটি আমরা আনুষ্ঠানিক ভাবে সিলেটের জেলা প্রশাসকের কাছে হস্তান্তর করব।
গোয়াইনঘাটের উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. আব্দুল হক জানান, মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণার্থে সরকারের নানামুখী প্রকল্পে আমরা কৃতজ্ঞ। প্রধানমন্ত্রী এবং প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী আমাদের গোয়াইনঘাটের মুক্তিযোদ্ধাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন বলেই কমপ্লেক্স ভবন আমরা উপহার পেয়েছি। আমরা সরকারের উদ্যোগেকে স্বাগত জানাই এবং আমরা চির কৃতজ্ঞ।
গোয়াইনঘাটের উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিশ্বজিত কুমার পাল জানান, দেশের সবকটি উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন সরকারের গৃহীত উন্নয়ন প্রকল্পের ধারাবাহিকতার অংশ। গোয়াইনঘাটের উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনটি অচিরেই উদ্বোধন করা হবে। সরকারের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী এবং সিলেট-৪ অাসানের সংসদ সদস্য ইমরান আহমদ প্রধান অতিথি হিসিবে উপস্থিত হয়ে কমপ্লেক্স ভবনটি উদ্বোধন করবেন।
সরকারের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ বলেন, বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে আন্তরিক। তাদের স্বার্থে সরকার দেশব্যাপী অগণিত উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যানার্থে সরকারের প্রধানমন্ত্রীর নিজ উদ্যোগে গৃহীত প্রকল্প উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনটিও উন্নয়ন ধারাবাহিকতার একটি অংশ। বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের যে কোন সমস্যা সমাধানে নানামুখী উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছেন। গোয়াইনঘাট সহ সারা দেশের মুক্তিযোদ্ধা এবং তাদের পরিজনরাও সরকারের বিভিন্ন সুবিধাদি পাচ্ছেন। ভবিষ্যতেও আওয়ামী লীগ সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে কাজ করে যাবে।

প্রতিযোগিতা সনদ ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠান সম্পন্ন

সিলেট দক্ষিণ সুরমা এসোসিয়েশন ইন স্পেন এর উদ্যোগে আয়োজিত পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত এবং গজল প্রতিযোগিতা ২০১৯ এর সনদ ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান এবং আলোচনা সভা গত রোববার মাদ্রিদের বাংলাদেশ এসোসিয়েশন হলরুমে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সংগঠনের সভাপতি সেলিম আলমের সভাপতিত্বে, পুরো অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রহমান লিটনের।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ দূতাবাসের ফাস্ট সেক্রেটারি শরিফুল ইসলাম , সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার শাহাদত সুমেল, সোহেল , রফিক রহমান , হাফিজ মিয়া,  সিরাজুল ইসলাম, নজরুল খান সহ কমিটির সকল নেতৃবৃন্দের সার্বিক তত্ত্বাবধানে অনুষ্ঠিত এ প্রোগ্রামে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মসজিদ কমিটির সভাপতি খোরশেদ আলম মজুমদার , বাংলাদেশ এসোসিয়েশন এর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জহিরুল ইসলাম নয়ন, সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান সুন্দর , গ্রেটার সিলেট এসোসিয়েশনের আহ্বায়ক ফয়জুর রহমান , গ্রেটার ঢাকা এসোসিয়েশনের  সভাপতি সোহেল ভূঁইয়া , দক্ষিণ সুরমা অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান উপদেষ্টা মাওলানা আসাদুজ্জামান রাজ্জাক , কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ডাক্তার দুলাল , বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সভাপতি জহিরুল ইসলাম ,সাহিত্যিক নুরুল আলম ,মাওলানা খলিলুর রহমান ,মাওলানা আবুল কালাম শিবলু।

কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব সুহেল আহমদ সামসু , ভালিয়েন্তে  বাংলার সভাপতি ফজলে এলাহী ,গ্রেটার সিলেট এর সাবেক সভাপতি লুৎফুর রহমান, সাবেক সাধারন সম্পাদক ইসলাম উদ্দিন পংকি, ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আবুল হোসেন , নোয়াখালী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবু সায়েম মজুমদার ,মাওলানা গৌস উদ্দিন ,আবুল হাশেম মেম্বার, আসাদুজ্জামান সাদ ,আব্দুল হামিদ সঞ্জু , আফসার হোসেন নিলু, এমদাদ হোসেন সহ বাংলাদেশ কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ।

এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অল ইউরোপিয়ান বাংলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বকুল খান, বাংলাদেশ এসোসিয়েশনের যুগ্ম সম্পাদক মোরশেদ আলম তাহের,  গ্রেটার সিলেট এসোসিয়েশনের আহবায়ক কমিটির সচিব আবু জাফর রাসেল , সাংবাদিক ইব্রাহিম খলিল , হানিফ মিয়াজী , আবিদুর রাহমান জসীমসহ বিভিন্ন আঞ্চলিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

অনুষ্ঠানের  প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে  বলেন ইউরোপের একটি অনৈসলামিক পরিবেশে এরকম একটা আয়োজন সত্যিই প্রশংসনীয়, স্পেনে  বেড়ে ওঠা ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে ধর্মীয় শিক্ষায় শিক্ষিত করতে অবশ্যই পিতা-মাতার পাশাপাশি কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ কে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে সেলিম আলম বলেন তাদের এ প্রচেষ্টা ছিল শিশু কিশোরদের ইসলামী শিক্ষার প্রতি আগ্রহ বাড়ানোর  প্রয়াশ মাত্র , সফল সুন্দর এবং ব্যাপকভাবে আগামীতে এরকম আয়োজন করতে সামাজিক এবং আঞ্চলিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে তিনি অনুষ্ঠানকে সফল ও সুন্দর করতে সার্বিক সহযোগিতার জন্য  বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন ইন স্পেন, বাংলাদেশ কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ, প্রত্যেক অভিভাবকবৃন্দ, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকমন্ডলী, সাংবাদিকবৃন্দ সহ সিলেট দক্ষিণ সুরমা এসোসিয়েশন ইন স্পেনের সকল নেতৃবৃন্দের  প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন .

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে কেরাত এবং নাশিদ প্রতিযোগিতায়  বিজয়ীদের মধ্যে সনদ এবং আকর্ষণীয় পুরস্কার বিতরণ করা হয় , প্রতিযোগিতায় প্রথম দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স্থান অধিকারী শিশু-কিশোরদের পুরষ্কার স্পন্সর করেন যথাক্রমে ইসলামীক কালচারাল সেন্টার মাদ্রিদ , কামাল ফাউন্ডেশন এবং   সাংগঠনিক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার শাহাদাত সুমেল,

শিশু-কিশোরদেরকে শুদ্ধ করে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত এবং নাশিদ শিক্ষার প্রতি আগ্রহ জন্মানোর জন্য এরকমের প্রতিযোগিতা মাদ্রিদে এটাই প্রথম ,এ আয়োজন দেখে অভিবাবকরা অন্ধকারে আশার আলো দেখতে পেয়েছেন।

উল্লেখ্য গত ২৫ আগস্ট এই অনুষ্ঠানের ক এবং  খ গ্রুপের এবং পহেলা সেপ্টেম্বর গ গ্রুপের প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে   স্পেনে বেড়ে ওঠা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের প্রায় শতাধিক প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করে।

কেরাত প্রতিযোগিতায় ক গ্রুপে মাহফুজা সারা আলাম, খ গ্রুপে  যৌথভাবে মাইমুনা রহমান বেগম ও আবু নোমান মজুমদার এবং গ গ্রুপে সাদিক জাহান গৌছ  প্রথম স্থান অধিকার করে। অন্যদিকে নাশিদ প্রতিযোগিতায় ক গ্রুপে আইমান আলম খ গ্রুপে আবু নোমান মজুমদার এবং গ  গ্রুপে তালহা দাইয়ান চৌধুরি প্রথম স্থান অধিকার করেছে।

এরকম প্রতিযোগিতার ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন অনুষ্ঠানে আগত কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ ।

রেজওয়ান করিম সাব্বির, জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধিঃ জৈন্তাপুরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট-১৯ এর শুভ সূচনা হয়।
৯সেপ্টেম্বর সোমবার সকাল ১১টায় জৈন্তাপুর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে রাজবাড়ী ফুটবল মাঠে আনুষ্ঠানিক ভাবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট (অনুর্ধ্ব-১৭) এর শুভ সূচনা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মৌরীন করিম।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল বণিক, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বশির উদ্দিন, জৈন্তাপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি শাহেদ আহমদ, ইউপি চেয়ারম্যান এখলাছুর রহমান, শাহ আলম চৌধুরী তোফায়েল, বাহারুল আলম বাহার, ভারপ্রাপ্ত ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ইয়াহিয়া, নিজপাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আতাউর রহমান বাবুল, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মোঃ আনোয়ার হোসেন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক জাকারিয়া মাহমুদ, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ সোলাইমান হোসেন সহ অন্যান্য অতিথিরা উপস্থিত ছিলেন।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট-১৯ অনুর্ধ্ব-১৭ খেলায় উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের বাছাইকৃত খোলায়াড়দের নিয়ে ৬টি দলে বিভক্ত করে সুরমা, সারী ও পদ্মা গ্রুপে খেলার আনুষ্ঠানিক শুভ সুচনা করা হয়। উপজেলা পর্যায়ে অনুর্ধ্ব-১৭ খেলাটি আগামী ১১ সেপ্টেম্বর বুধবার বিকাল ৩টায় রাজবাড়ী মাঠে যমুনা ও কুশিয়ারা মধ্যে ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হবে।

মালিকদের ক্ষতিপুরনের চেক বিতরণ করেন নড়াইল জেলা প্রশাসন

নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইলে পদ্মা সেতুর রেল সংযোগ প্রকল্পের আওতায় অধিগ্রহনকৃত ভ’মি মালিকদের ক্ষতিপুরনের চেক বিতরণ করা হয়েছে। রবিবার বিকালে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে পৌর এলাকার দূর্গাপুর মহিলা মাদ্রাসার সভাকক্ষে এ অনুষ্ঠানে ক্ষতিগ্রস্থদেও মাঝে চেক বিতরণ করেন প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা।
নড়াইল পৌরসভার ভওয়াখালী,দুর্গাপুর-ডুমুরতলা ও বরাশুলা মৌজার ১৮ জন জমির মালিকের মাঝে ১৭ কোটি ৫১লক্ষ ২৭ হাজার টাকার চেক প্রদান করা হয়।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব ) কাজী মাহবুবুর রশীদের সভাপতিত্বে সরকারি কর্মকর্তা, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি,স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ ভুক্তভোগী জমির মালিকগণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

“জনসেবার সর্বোত্তম পন্থা হলো রাজনীতি-মৌলভীবাজারে সুজন সমন্বয়কারী দিলীপ কুমার সরকার”
 
সাদিক আহমেদ,স্টাফ রিপোর্টার:“দেশের গণতন্ত্র ও রাজনীতি এখন সংকটাপন্ন।অথচ এই রাজনীতিই হলো জনসেবার সর্বোত্তম পন্থা।কেননা রাজনৈতিক সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে ব্যাপক জনগোষ্ঠীর কল্যানে ইতিবাচক ভূমিকা রাখা যায় সহজেই।দেশের গণতন্ত্র এখন মারাত্মক হুমকীর মুখে।নির্বাচন এখন প্রহসন।নির্বাচনের প্রতি মানুষের আস্থা নেই।এই সংকটময় অবস্থা থেকে গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে হবে”।
রোববার ০৮ সেপ্টেম্বর মৌলভীবাজারে সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন মৌলভীবাজার জেলা কমিটির আয়োজনে বিকাল ৪ টা থেকে রাত সাড়ে ৮ টা পর্যন্ত গোলটেবিল বৈঠকের শুরুতে এসব কথা বলেন সুজনের কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারী দিলীপ কুমার সরকার।
এসময় জেলার ওয়েস্টার্ন রেস্টুরেন্ট এন্ড পার্টি সেন্টারে সুজন জেলা কমিটির উদ্যোগে “বাংলাদেশের রাজনৈতিক সংস্কার ও নাগরিক ভাবনা” শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকের মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন দিলীপ কুমার।
অনুষ্ঠানের শুরুতেই সকলে দাড়িয়ে সম্মিলিত কন্ঠে  জাতীয় সংগীত পাঠ করা হয়।
সংগঠনটির জেলা কমিটির সহ-সভাপতি এডভোকেট আব্দুল মতিন এর সভাপতিত্বে ও সম্পাদক জহর লাল দত্ত ও সাংবাদিক কাওসার ইকবালের যুগ্ন সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি মো: শাহাবুদ্দিন,কুলাউড়া উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান,”সুজন” শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক কাউসার ইকবাল,”সুজন” শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার অর্থ সম্পাদক, শ্রীমঙ্গল অনলাইন প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান সম্পাদক মুহাম্মদ আনিছুল ইসলাম আশরাফী,শ্রীমঙ্গল অনলাইন প্রেস ক্লাবের সহ-সভাপতি রুম্মান আহমেদ চৌধুরী শিপুল, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মজিদ, মৌলভীবাজার জেলা পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি সঞ্জীব কুমার দেব,সম্মিলিত সামাজিক উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি খালেদ চৌধুরী,বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টি জেলা শাখার সদস্য ও দ্বারিকাপাল মহিলা ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক জলি পাল প্রমুখ।
গোলটেবিল বৈঠকের স্বাগত বক্তব্য রাখেন “সুজন” জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক জহর লাল দত্ত।
বৈঠকে সুজনের পক্ষ থেকে ২০ দফা সংস্কার প্রস্তাব তুলে ধরা হয়।সংস্কার প্রস্তাবগুলে হলো:রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে পরিবর্তন,নির্বাচনী সংস্কার,কার্যকর জাতীয় সংসদ,স্বাধীন বিচার বিভাগ,নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন,সাংবিধানিক সংস্কার,গণতান্ত্রিক ও স্বচ্ছ রাজনৈতিক দল,স্বাধীন বিধিবদ্ধ প্রতিষ্ঠান,দুর্নীতি বিরোধী সর্বাত্মক অভিযান,যথাযত প্রশাসনিক সংস্কার,বিকেন্দ্রীকরণ ও স্থানীয় সরকার,গণমাধ্যমের স্বাধীনতা,শক্তিশালী নাগরিক সমাজ,মানবাধিকার সংরক্ষন,একটি নতুন সামাজিক চুক্তি,পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা,আর্থিক খাতে সুশাসন প্রতিষ্ঠা,শিক্ষাব্যবস্থা ও শিক্ষার মানোন্নয়ন,তরুণদের জন্য বিনিয়োগ,নারীর ক্ষমতায়ন।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে বউ শাশুড়ীর মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলেন,গিরিন্দ্র দাসের স্ত্রী সন্ধ্যা রানী দাস ও রিংকু দাসের স্ত্রী সেবা রানী দাস। উপজেলার রানীগঞ্জ ইউনিয়নের মেঘারকান্দি গ্রামে এই ঘটনা ঘটছে। মেঘারকান্দি গ্রামের বাসিন্দা বকুল দাস জানান,সোমবার দুপুরের দিকে নিজ ঘরে পল্লী বিদ্যুতের সংযোগের তার ছিড়ে ঘরের গ্রিলে পড়লে গৃহকর্তা গিরিন্দ্র দাসের স্ত্রী সন্ধ্যা রানী দাস বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে চিৎকার দেন।

চিৎকার শুনে ছেলে রিংকু দাসের স্ত্রী অন্তঃসত্ত্বা সেবা রানী দাস শাশুড়ীকে রক্ষায় এগিয়ে এলে তিনিও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। এসময় পরিবারের লোকজন তাদেরকে উদ্ধার করে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সন্ধ্যায় কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাদেরকে মৃত ঘোষণা করেন।

এই ঘটনায় মেঘারকান্দি গ্রামের দুই নারীর মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। জগন্নাথপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন,বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে দুই নারীর মৃত্যুর খবর পেয়েছি। ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়না তদন্তের পর লাশ পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হবে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc